পেগাসাসের কাছে আইফোনের তথ্য চেয়েছিল ফেসবুক!

পেগাসাসের কাছে আইফোনের তথ্য চেয়েছিল ফেসবুক!

এনএসও যুক্তরাষ্ট্রের আদালতকে জানিয়েছে, হোয়াটসঅ্যাপের মালিক ফেসবুক তাদের কাছে ব্যবসায়িক সহায়তা চেয়েছিল। দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের হাতে আসা তথ্য অনুযায়ী, আইফোনের ব্যবহারকারীদের অভ্যাস কেমন, তারা কোন ধরনের অ্যাপ ব্যবহার করেন ও কতটা সময় সেগুলোর পেছনে ব্যয় করেন সেটা জানতে এনএসওর সহায়তা চেয়েছিল ফেসবুক।

ফোনে আড়ি পাতার ভয়ংকর স্পাইওয়্যার পেগাসাস নিয়ে আলোচনার ঝড় চলছে বিশ্বজুড়ে। তোপের মুখে রয়েছে এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইসরায়েলি সফটওয়্যার ফার্ম এনএসও। জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হোয়্যাটসঅ্যাপের প্রধান নির্বাহী উইল ক্যাথকার্টও মুখ খুলেছেন এ বিষয়ে। একই সঙ্গে বেরিয়ে এসেছে, অ্যাপলের আইফোনের ব্যবহারকারীদের অভ্যাস কেমন, তারা কোন ধরনের অ্যাপ ব্যবহার করেন ও কতটা সময় সেগুলোর পেছনে ব্যয় করেন সেটা জানতে এনএসওর সহায়তা চেয়েছিল ফেসবুক। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া ক্যাথকার্টের সাক্ষাৎকার এবং সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন তথ্য নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট। নিউজবাংলার পাঠকের জন্য সেটি অনুবাদ করেছেন রুবাইদ ইফতেখার।

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হোয়াটসঅ্যাপের প্রধান চলতি সপ্তাহে ইসরায়েলের এনএসও গ্রুপের প্রধানের বিবৃতিকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। বিশ্ব জুড়ে সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীদের ওপর গুপ্তচরবৃত্তির জন্য কোম্পানিটির সামরিক পর্যায়ের সফটওয়্যার ব্যবহার করার খবর সংবাদ মাধ্যমে আসার পর এমন চ্যালেঞ্জ জানালেন হোয়াটসঅ্যাপ সিইও উইল ক্যাথকার্ট।

এনএসও-এর পেগাসাস সাম্প্রতিক সময়ে হোয়াটসঅ্যাপকেও হ্যাক করেছে। ওই ঘটনার পর ফেসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপ এনএসওর বিরুদ্ধে মামলা করেছে যেটি এখনও চলছে। তবে এনএসও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদক স্টেফানি কির্চগেজনারকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ক্যাথকার্ট বলেন, ‘সম্প্রতি প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলোর সঙ্গে আমরা দুই বছর আগে যে আক্রমণটিকে পরাস্ত করেছিলাম সেটি মিলে যায়। পেগাসাসের মাধ্যমে এমন অনেককেই টার্গেট করা হয়েছে যাদের ওপর গুপ্তচরবৃত্তির কোনো ধরনের প্রয়োজন বা কারণ নেই।’

পেগাসাসের কাছে আইফোনের তথ্য চেয়েছিল ফেসবুক!
হোয়াটসঅ্যাপ সিইও উইল ক্যাথকার্ট

ফ্রান্সের অলাভজনক সংবাদমাধ্যম ফরবিডেন স্টোরিজের উদ্যোগে বিশ্বের ১৬টি সংবাদমাধ্যম পেগাসাসের নজরদারির তথ্য উদ্ঘাটনের প্রজেক্টে জড়িত। এর মধ্যে দ্য গার্ডিয়ান এবং ওয়াশিংটন পোস্টও রয়েছে।

এই প্রকল্পের আওতায় ৫০ হাজার ফোন নম্বর যাচাই করা হচ্ছে, যার মধ্যে অনেকগুলো ২০১৬ সালের। এই ফোন নম্বরগুলো এমন অনেক দেশের, যেখানকার সরকার এনএসওর ক্লায়েন্ট হিসেবে স্পাইওয়্যারটি ব্যবহার করে বিভিন্ন ব্যক্তির ওপর নজরদারি চালাচ্ছে।

ফরবিডেন স্টোরিজ ও এক সহযোগীরা প্রায় ১ হাজার নম্বর এরই মধ্যে শনাক্ত করেছে। এসব নম্বর আরব রাজ পরিবারের সদস্য, বিভিন্ন দেশের অন্তত ৬৫ জন ব্যবসায়ী, ৮৫ জন মানবাধিকার কর্মী, ১৮৯ জন সাংবাদিক ও ছয় শরও বেশি রাজনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তা ব্যবহার করছেন।

তালিকায় বেশ কয়েকজন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের নম্বরও রয়েছে। এর মধ্যে ফ্রান্সের ইমানুয়েল মাঁখো, ইরাকের বারহাম সালিহ ও সাউথ আফ্রিকার সিরিল রামাফোসা আছেন। আছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, মিশরের মোস্তাফা মাদবুলি এবং মরক্কোর সাদ এদ্দিন এল ওথমানির মতো সরকার প্রধান।

পেগাসাস যে কোনো স্মার্টফোনে আক্রমণ করতে পারে, এটি ডিভাইসটির টেক্সট, ফটো, ভিডিও ও ইমেইল চুরি করতে পারে। ব্যবহারকারীর অজান্তে এর ক্যামেরা ও মাইক্রোফোন চালু করে রিয়াল টাইম নজরদারি চালাতে পারে।

হোয়াটসঅ্যাপ জানায়, তাদের অ্যাপকে আক্রমণ করে ব্যবহারকারীর স্মার্টফোন দখল নেয়ার জন্য পেগাসাস ব্যবহার করা হয়েছে। কোম্পানিটি জানায়, তারা ১৪০০ স্মার্টফোনের হদিস পেয়েছে, যেগুলোকে দুই সপ্তাহের মধ্যে হ্যাক করা হয়।

ক্যাথকার্ট বলেন, ‘আমরা ওই অল্প সময়ের মধ্যে ১৪০০ জন ভুক্তভোগীকে খুঁজে পেয়েছি। এখান থেকে যেটা বোঝা যায়, আরও দীর্ঘ সময়ের মধ্যে আক্রান্ত হওয়া ব্যবহারকারীর সংখ্যা অনেক বেশি হতে পারে।’

ব্যবহারকারীদের ডিভাইস ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত করার অভিযোগ এনে, হোয়াটসঅ্যাপ ২০১৯ সালে এনএসওর বিরুদ্ধে মামলা করে।
তবে আদালতে ‘সার্বভৌম দায়মুক্তি’ দাবি করে এনএসও। কোম্পানিটির যুক্তি ছিল, তাদের ক্লায়েন্টরা বিভিন্ন দেশের পরীক্ষিত সরকার, আর আইন অনুযায়ী কোনো সরকারের বিরুদ্ধে তাদের বৈধ কর্মকাণ্ডের জন্য মামলা করা যায় না।

আদালতে প্রদর্শিত এক নথিতে এনএসওর বলেছে, ‘সিস্টেম চালাতে, ব্যবস্থাপনা করতে, ঠিকঠাক মতো ব্যবহার করতে এবং সফটওয়্যারের টেকনিক্যাল ইস্যু সমাধানে ব্যবহারকারীদের সহায়তা দেবে কোম্পানি।’

পেগাসাসের কাছে আইফোনের তথ্য চেয়েছিল ফেসবুক!

আরেকটি নথিতে বলা হয়েছে, ‘নতুন কোনো আক্রমণের জন্য ইনস্টল করতে চাইলে পেগাসাস সিস্টেমের অপারেটরকে শুধু টার্গেটের ফোন নম্বরটি দিতে হবে। বাকি কাজ সিস্টেমই নিজে থেকে করে নেবে। এতে করে টার্গেট করা ডিভাইসে একটি ম্যালওয়্যার ইন্সটল হয়ে যাবে।’

ক্যালিফর্নিয়ার নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টের এক বিচারক পরে রুল জারি করে বলেন, এই মামলা চলতে পারে, কারণ বোঝা যাচ্ছে এনএসওর হাতে কিছুটা নিয়ন্ত্রণ ছিল। যদিও এনএসও জোর দিয়ে বলছে, তারা কেবল ক্লায়েন্টের অনুমতি পাওয়ার পরই ফোনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের নবম সার্কিটের কোর্ট অফ অ্যাপিলস আপিল গ্রহণ করে বিচারকের রুল শুনেছে, তবে কোনো সিদ্ধান্ত এখনও আসেনি।

এনএসও আদালতে এক পর্যায়ে এটাও জানায়, হোয়াটসঅ্যাপের মালিক ফেসবুক তাদের কাছে ব্যবসায়িক সহায়তা চেয়েছিল। দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের হাতে আসা তথ্য অনুযায়ী, আইফোনের ব্যবহারকারীদের অভ্যাস কেমন, তারা কোন ধরনের অ্যাপ ব্যবহার করেন ও কতটা সময় সেগুলোর পেছনে ব্যয় করেন সেটা জানতে এনএসওর সহায়তা চেয়েছিল ফেসবুক। এনএসও জানিয়েছে তারা ফেসবুকের সেই অনুরোধ উপেক্ষা করে, কারণ তারা শুধু সরকারের সঙ্গে ব্যবসা করে।

পেগাসাস প্রজেক্টের জবাবে এনএসও জানায়, ৫০ হাজারের বেশি ফোন নম্বরের যে তালিকা ফাঁস হয়েছে তার সঙ্গে এনএসও বা পেগাসাস জড়িত নয়, কারণ এনএসওর ক্লায়েন্টের অনুপাতে সংখ্যাটি ‘অনেক বড়’। কোম্পানিটির অপারেশনসের সঙ্গে পরিচিত একজন জানান, একেকটি ক্লায়েন্ট বছরে সাধারণত সর্বোচ্চ ১১২টি ফোনকে টার্গেট করে। এনএসওর দাবি ৪০টি দেশে তাদের ৬০ জন ক্লায়েন্ট রয়েছে।

দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া সাক্ষাত্কারে ক্যাথকার্ট এনএসও সম্পর্কে একই বিষয়টি উত্থাপন করেন যেটা তার কোম্পানি আদালতে বলেছে। হোয়াটসঅ্যাপ ও ক্যাথকার্টের দাবি, এনএসও তার ক্লায়েন্টদেরকে লাইসেন্স দেয়া সফটওয়্যার পরিচালনা করে বা ক্লায়েন্ট কাকে টার্গেট করছে সেটি তারা জানে।

গার্ডিয়ানকে ক্যাথকার্ট বলেন, ‘সফটওয়্যারকে খুব সহজেই পরিবর্তন করা যায়। তারা কীভাবে নিশ্চিত হচ্ছে যে, তাদের সফটওয়্যারকে পরিবর্তন করা হচ্ছে না? বা তারা নিজেরাই এটিকে চালাচ্ছে না?’

তিনি আরও জানতে চান, এনএসও কীভাবে নিশ্চিত হয় যে, যুক্তরাষ্ট্রের কান্ট্রি কোড +১ যুক্ত নম্বরগুলোকে টার্গেট করা হয় না?

ক্যাথকার্ট যোগ করেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নম্বর টার্গেট করা হচ্ছে না- এই দাবিতে তারা (এনএসও) এতোটা আত্মবিশ্বাসী কী করে হয়? এর কারণ কি এই যে, তারাই এটা চালাচ্ছে এবং তাদের কাছেই তালিকা (টার্গেটের) আছে? সেটাই যদি আসল ঘটনা হয়, তাহলে যা ঘটছে ও অপব্যবহারের জন্য কেন তারা দায়ী হবে না?’

তিনি আরও বলেন, ‘আমেরিকানরা দেশের বাইরে যান, তারা বিদেশি নম্বর ব্যবহার করেন। বিশ্বজুড়ে সব মানুষের বা রাষ্ট্রদূতদের ক্ষেত্রেও একই ঘটনা। ফোন নম্বরে কান্ট্রি কোড থাকল সেটা সুরক্ষিত হচ্ছে কী? ব্যাপারটা একটি আজগুবি না! ব্যাপারটা এমন যে, আপনি একটা মিসাইল ছুড়বেন যেটা পৃথিবীর নির্দিষ্ট একটা এলাকার বাইরে আর কিছুকে ধ্বংস করবে না। মিসাইল তো এভাবে কাজ করে না!।

ক্যাথকার্টের মন্তব্যের উত্তরের এনএসওর এক মুখপাত্র গার্ডিয়ানকে পাঠানো বিবৃতিতে বলেন, ‘এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন অ্যাপের আড়ালে লুকিয়ে কাজ করতে থাকা পিডোফিলিয়া ও সন্ত্রাসীচক্র এবং অপরাধমূলক কাজের তদন্ত ও প্রতিরোধ করতে গোয়েন্দা সংস্থা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীগুলোকে সহায়তা করা পেগাসাস ও সমমানের প্রযুক্তিগুলোর জন্যই বিশ্বজুড়ে লাখ লাখ লোক রাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারছে এবং রাস্তার বেরোতে পারছে।’

‘আমরা আবারও বলতে চাই: এনএসও সফটওয়্যারটি চালায় না এবং প্রাপ্ত ডেটা আমাদের হাতে আসে না। আমাদের প্রযুক্তি পণ্য পরীক্ষিত সরকারগুলোর কাছে বিক্রি করা হয় এবং যুক্তরাষ্ট্রে সাইবার নজরদারিতে ব্যবহার করা যায় না। আর যুক্তরাষ্ট্রের নম্বর ব্যবহারকারীর ডিভাইসকে আক্রান্ত করতে কখনওই কোনো বিদেশি গ্রাহককে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে দেয়া হয়নি। প্রযুক্তির দিক থেকে এটা অসম্ভব।

‘জনাব ক্যার্থকার্টের কাছে এমন কোনো বিকল্প ব্যবস্থা আছে কী যেটা বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন ব্যবহার করা পিডোফাইল, সন্ত্রাসী ও অপরাধীদের চিহ্নিত করতে গোয়েন্দা সংস্থা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোকে সহায়তা করে?...থাকলে আমরা অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে সেটা সম্পর্কে শুনব।’

পেগাসাসের কাছে আইফোনের তথ্য চেয়েছিল ফেসবুক!

হোয়্যাটসঅ্যাপের করা মামলায় বড় ইন্টারনেট ফার্মগুলো যোগ দিয়েছে এবং স্বেচ্ছায় তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছে। একমাত্র ব্যতিক্রম ছিল অ্যাপল। প্রজেক্টের করা ৩৭টি আইফোনের বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে তাদের ফোনগুলো পেগাসাস আক্রমণের ক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ।

তারপরও অ্যাপল জবাবে জানিয়েছে, তাদের অধিকাংশ ব্যবহারকারীর ফোন নিরাপদ।

ক্যাথকার্ট অন্যান্য ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোর মতো অ্যাপলকেও মামলায় যোগ দিতে ও জনগণের পক্ষে দাঁড়াতে অনুরোধ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘অধিকাংশ ব্যবহারকারীকে এটা নিয়ে চিন্তা করতে হবে না- এমনটা বলাই যথেষ্ট নয়। হাজার হাজার ভুক্তভোগী আছেন। একজনের ফোন অনিরাপদ থাকা মানে সবার ফোন অনিরাপদে থাকা।’

সরকারের প্রতি এনএসও মতো কোম্পানিগুলোকে নিয়ন্ত্রণ বা নিষিদ্ধ করার দাবি জানান ক্যাথকার্ট।

তিনি বলেন, ‘আশা করছি আমরা এই মুহূর্তটা ভুলব না। আমরা যদি অনিরাপদ মোবাইল ফোন ও সফটওয়্যারের দিকে এগোতে থাকি থাকি তাহলে মানুষের নিরাপত্তা ও ব্যক্তিগত গোপনীয়তার পরিস্থিত কতটা খারাপ হয়ে যাবে সেটারই একটা ঝলক দেখা গেছে। আশা করছি, এই আলোচনাগুলো বদলাবে। আমার মতে এটা নির্ভর করছে, নিরাপত্তা হুমকি ও স্বাধীনতার প্রতি হুমকিগুলো নিয়ে সরকারের সচেতন হওয়ার ওপর।’

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ভিভো ওয়াই২১ স্মার্টফোন কিনে ১০ লাখ টাকা জেতার সুযোগ

ভিভো ওয়াই২১ স্মার্টফোন কিনে ১০ লাখ টাকা জেতার সুযোগ

দেশে ভিভো ওয়াই ২১ কিনে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার জেতার সুযোগ পাচ্ছেন গ্রাহকরা। ছবি: সংগৃহীত

ভিভো বাংলাদেশের প্রোডাক্ট ডিরেক্টর ডেভিড-লি বলেন, ‘ভিভোর ওয়াই সিরিজ সব ধরণের গ্রাহকদের উপযোগী করে করা হয়েছে। ভিভো সবসময় নতুন ডিজাইনের সব প্রোডাক্ট নিয়ে আসে। ভিভো ওয়াই২১ স্মার্টফোনটি শুধু দেখতেই আকর্ষণীয় নয়; পারফরমেন্সেও নির্ভরযোগ্য।’

দেশের বাজারে ওয়াই সিরিজের নতুন স্মার্টফোন এসেছে শীর্ষস্থানীয় স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভিভো। বৃহস্পতিবার থেকে স্মার্টফোনটি প্রি-অর্ডার শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রি-অর্ডারে গ্রাহকরা ফোনটি কিনে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার জেতার সুযোগ পাবেন বলে জানিয়েছে ভিভো। অফারটি চলবে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

ভিভো বাংলাদেশের প্রোডাক্ট ডিরেক্টর ডেভিড-লি বলেন, ‘ভিভোর ওয়াই সিরিজ সব ধরণের গ্রাহকদের উপযোগী করে করা হয়েছে। ভিভো সবসময় নতুন ডিজাইনের সব প্রোডাক্ট নিয়ে আসে। ভিভো ওয়াই২১ স্মার্টফোনটি শুধু দেখতেই আকর্ষণীয় নয়; পারফরমেন্সেও নির্ভরযোগ্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের বাজারে আমরা ভিভো ওয়াই২০ স্মার্টফোনের অসাধারণ প্রতিক্রিয়া পেয়েছি। এই প্রতিক্রিয়া আমাদেরকে আরও উন্নত প্রযুক্তির স্মার্টফোন আনতে অনুপ্রাণিত করেছে, তারই ফল ভিভো ওয়াই২১।’

বাজেটের মধ্যেই ভিভোর নতুন স্মার্টফোনে রয়েছে ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংয়ের সঙ্গে রয়েছে টাইপ সি পোর্ট, রয়েছে দ্বিতীয় প্রজন্মের ৪ জিবি র‌্যাম। এটি বাড়ানো যাবে আরও ১ জিবি পর্যন্ত। আর রম রয়েছে ৬৪ জিবি, মেমোরি কার্ডে যা বাড়ানো যাবে ১ টেরাবাইট পর্যন্ত।

ফোনটিতে রয়েছে ৬.৫১ ইঞ্চির বড় ডিসপ্লে।

ভিভো ওয়াই২১ এর পেছনে ১৩ মেগাপিক্সেলের মেইন ক্যামেরা এবং ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা রয়েছে। সেলফি তুলতে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। ফোনটির ক্যামেরায় ফিল্টার ২.০ ফিচার রয়েছে যা থেকে বিভিন্ন ধরণের রঙ পছন্দ করে নেয়া যাবে।

ভিভো ওয়াই২১ পাওয়া যাবে মেটালিক ব্লু ও ডায়ামন্ড গ্লো রঙে। দাম ১৪ হাজার ৯৯০ টাকা।

আগামী ২১ সেপ্টেম্বর থেকে আউটলেটে এবং প্রি-বুক করা যাচ্ছে জিএন্ডজি, পিকাবু ডটকম এবং অথবা ডটকম ই-কমার্স প্লাটফর্ম।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

দেশে শাওমির নতুন ৪ সার্ভিস সেন্টার

দেশে শাওমির নতুন ৪ সার্ভিস সেন্টার

দেশে আরও চারটি সার্ভিস সেন্টার চালু করেছে শাওমি। ছবি: সংগৃহীত

নতুন চালু করা সার্ভিস সেন্টারগুলো ফরিদপুর, ঢাকার সাভার, নোয়াখালী ও দিনাজপুরে অবস্থিত। চারটিসহ দেশে এখন শাওমির সার্ভিস সেন্টারের সংখ্যা ২৩টি।

মোবাইল ব্র্যান্ড শাওমি দেশের স্মার্টফোন গ্রাহকদের জন্য নতুন চারটি বিক্রয়োত্তর সেবাকেন্দ্র চালু করেছে।

গ্রাহকদের বিক্রয়োত্তর সেবা আরও সহজে ও হাতের কাছাকাছি পৌঁছে দিতে এসব বিক্রয়োত্তর সেবা কেন্দ্র চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

নতুন চালু করা সার্ভিস সেন্টারগুলো ফরিদপুর, ঢাকার সাভার, নোয়াখালী ও দিনাজপুরে অবস্থিত।

চারটিসহ দেশে এখন শাওমির সার্ভিস সেন্টারের সংখ্যা ২৩টি।

শাওমি বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার জিয়াউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘ন্যায্য মূল্যে অত্যাধুনিক স্মার্টফোন বিক্রির মাধ্যমে ফ্যানদের আস্থা অর্জনের পাশাপাশি শাওমি বিক্রয়োত্তার সেবাকে আরও গতিশীল করেছে।

‘শীর্ষস্থানীয় কনজ্যুমার ইন্টেলিজেন্স ফার্ম রেডকোয়ান্টার হিসাবে বাংলাদেশের বাজারে বিক্রয়োত্তর সেবায় ২০১৯ সালের শেষ প্রান্তিক থেকে শীর্ষ ব্র্যান্ড শাওমি। আমরা সবসময় চেষ্টা করি আমাদের ফ্যান এবং গ্রাহকদের সর্বোত্তম সেবা পাওয়া নিশ্চিত করা।’

সেবা দেয়ার সেই অংশ হিসেবেই নতুন চারটি সার্ভিস সেন্টার চালু। এতে অপেক্ষাকৃত দূরের এলাকায় এসব সার্ভিস সেন্টার খোলার মাধ্যমে গ্রাহকরা আরও উন্নত সেবা পাবে বলে জানান তিনি।

শাওমির নতুন সার্ভিস সেন্টারগুলো ফরিদপুর সদরের জনতার মোড়ের সামসুদ্দিন টাওয়ার, লেভেল ৩-এ; ঢাকার সাভারের ৪২ শাহীবাগ শিমুলতলীর এমকে টাওয়ার, লেভেল ৬; নোয়াখালীর চৌমহনীর করিমপুর রোড, রেলগেট, মোরশেদ আলম কমপ্লেক্সের চতুর্থ তলা এবং আরেকটির অবস্থান দিনাজপুরের স্টেশন রোডের গুলশান ট্রেড সেন্টার, শপ নং ২, লেভেল ২-এ অবস্থিত। এসব সেন্টার থেকে গ্রাহকরা শুক্রবার ছাড়া সপ্তাহের অন্য দিনগুলোতে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সেবা নিতে পারবেন।

এ ছাড়া সহজেই গ্রাহকদের সেবা দিতে দেশব্যাপী শাওমির রয়েছে ৩৯টি কালেকশন পয়েন্ট। তরুণরা যেকোন সমস্যায় পড়লেই সেগুলো থেকে দ্রুত সমাধান পাচ্ছেন। দেশের ফ্যানদের স্বল্পমূল্য সেরা স্পেসিফিকেশনের স্মার্টফোন তুলে দিতে শাওমি দেশব্যাপী তাদের রিটেইল নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে। বর্তমানে আড়াই শতাধিক অথোরাইজড মি স্টোর, ৫০টি মি প্রেফারড পার্টনার স্টোর, তিন হাজারের বেশি রিটেইল পয়েন্ট রয়েছে শাওমির।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

ডিজিটালাইজড হবে বাংলা একাডেমি: পলক

ডিজিটালাইজড হবে বাংলা একাডেমি: পলক

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ফাইল ছবি

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ‘সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীন দেশের ৭৩টি লাইব্রেরি, প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে কেন্দ্রীয় আর্কাইভ এবং আমাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বাতিঘর বাংলা একাডেমিকে ডিজিটালাইজ করার বিষয়ে আইসিটি বিভাগ প্রযুক্তিগত সহায়তাসহ সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।’

দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা ৭৩টি লাইব্রেরি ও বাংলা একাডেমিকে ডিজিটালাইজড করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

বুধবার শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের বেগম সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ৩০৩টি সেবা ডিজিটালাইজড অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ‘সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীন দেশের ৭৩টি লাইব্রেরি, প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে কেন্দ্রীয় আর্কাইভ এবং আমাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বাতিঘর বাংলা একাডেমিকে ডিজিটালাইজড করার বিষয়ে আইসিটি বিভাগ প্রযুক্তিগত সহায়তাসহ সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।

‘বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির মধ্যে অন্যতম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের তত্ত্বাবধানে গত ১২ বছরে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো গড়ে তোলা হয়েছে। এ কারণে করোনা মহামারির সময়েও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ ধরে রাখা সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও করোনার সময়ে ১৯ মাসে দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, ব্যবসা-বাণিজ্য, প্রশাসনিক, বিচার ব্যবস্থাসহ সবকিছু সচল ছিল।’

তিনি বলেন, ‘২০১৬ সালে সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনায় ই-নথি ব্যবস্থা প্রবর্তন করায় দুই কোটির অধিক ইলেকট্রনিকস ফাইল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে। করোনার সময়ে বিভিন্ন অফিসের লক্ষাধিক কর্মকর্তা ইলেকট্রনিক ফাইল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ব্যবহার করেছে।

‘এর মাধ্যমে তারা শত শত কোটি টাকা সাশ্রয়, সময় ও যাতায়াতের হয়রানি থেকে রক্ষা পেয়েছেন। লকডাউনেও কোনো প্রশাসনিক কাজ বন্ধ ছিল না।’

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কারিগরি সহায়তায় ‘মাইগভ র্যাপিড ডিজিটালাইজেশন’ পদ্ধতির আওতায় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ৩০৩টি ডিজিটালাইজড সেবার উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, ‘মাইগভ র্যাপিড ডিজিটালাইজেশন প্ল্যাটফর্মের আওতায় ইতোমধ্যে যে সকল মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ডিজিটালাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে, তার মধ্যে মন্ত্রণালয় ভিত্তিক সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সর্বোচ্চ সংখ্যক সেবার (৩০৩টি) ডিজিটালাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে।

‘এ থেকে বোঝা যায়, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ক্ষেত্র ও কর্মপরিধি কত ব্যাপক। মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত ১৭টি দপ্তর সংস্থার মধ্যে ১০টি দপ্তর সংস্থার ডিজিটালাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে। বাকি সাতটি সংস্থার র্যাপিড ডিজিটালাইজেশন সম্পন্ন হলে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ডিজিটালাইজড সেবার সংখ্যা আরও বাড়বে।’

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

অ্যাপল আনল ওয়াচ সিরিজ ৭, আইপ্যাড

অ্যাপল আনল ওয়াচ সিরিজ ৭, আইপ্যাড

অ্যাপলের নতুন ওয়াচ সিরিজ ৭। ছবি: সংগৃহীত

অ্যাপল ঘোষণা দিলেও ওয়াচ ৭ বাজারে আসতে কিছুটা দেরি হবে। পর্যাপ্ত পরিমাণ উৎপাদন করতে না পারায় এটি দেরিতে বাজারে ছাড়ার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে আইপ্যাড পাওয়া যাবে চলতি মাস থেকেই।

আইফোন ১৩ সিরিজের পাশাপাশি নতুন ওয়াচ ও আইপ্যাডের ঘোষণা দিয়েছে অ্যাপল। করোনাভাইরাস মহামারিতে আইপ্যাড ও ওয়্যারেবল ডিভাইসের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় নতুন পণ্য আনায় জোর দেয় অ্যাপল।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) টিম কুক মঙ্গলবার নতুন এসব পণ্য উন্মোচন করেন।

অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ ৭

আইফোনের পাশাপাশি নতুন ওয়্যারেবল ডিভাইস হিসেবে অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ ৭ উন্মোচন করেছে অ্যাপল।

২০১৮ সালের পর প্রথমবারের মতো ওয়াচের রিডিজাইন করে কিছুটা বড় আকৃতি দিয়েছে অ্যাপল।

এর ডিসপ্লেতে আগের চেয়ে ৫০ শতাংশ বেশি টেক্সট দেখা যাবে; লেখার জন্য থাকছে কিবোর্ড। প্রথমবারের মতো ধূলারোধী ফিচার যুক্ত করা হয়েছে ওয়াচে।

ওয়াচে থাকা আইওএস ৮ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাইসাইকেল চালানোর হিসাব রাখবে এই ওয়াচ।

প্রযুক্তি বিষয়ক সংবাদ সাইট ব্লুমবার্গ বলছে, অ্যাপল ঘোষণা দিলেও ওয়াচ ৭ বাজারে আসতে কিছুটা দেরি হবে। পর্যাপ্ত পরিমাণ উৎপাদন করতে না পারায় এটি দেরিতে বাজারে ছাড়া হবে।

অ্যাপল জানিয়েছে, ওয়াচ পাওয়া যাবে শরতের শেষে।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিসিএ ইনসাইটের মতে, বিশ্বের স্মার্টফোন বাজারের ৪৭ শতাংশ এখন অ্যাপলের দখলে।

আইপ্যাডের নতুন সংস্করণ

অ্যাপল নতুন সংস্করণের একটি আইপ্যাডের ঘোষণা দিয়েছে। অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টিম কুক পণ্য উন্মোচন অনুষ্ঠানে জানান, গত বছরের চেয়ে আইপ্যাডের বিক্রি ও চাহিদা ৪০ শতাংশ বেড়ে গেছে।

অ্যাপল আনল ওয়াচ সিরিজ ৭, আইপ্যাড
নতুন সংস্করণে আইপ্যাড আনার ঘোষণা দিয়েছে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক। ছবি: সংগৃহীত

নতুন আইপ্যাডটিতে রয়েছে অ্যাপলের নিজস্ব এ১৩ চিপ, যা আগের মডেলগুলোর চেয়ে ২০ শতাংশ বেশি দ্রুতগতির পারফরম্যান্স দেবে।

অ্যাপল বলেছে, ‘ক্রোমবুকের চেয়ে এই আইপ্যাড তিন গুণ বেশি দ্রুতগতির।’

অ্যাপলের নতুন সংস্করণের আইপ্যাডটির দাম শুরু হবে ৩২৯ ডলার থেকে। তবে স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য মূল্যছাড়ে পাওয়া যাবে ২৯৯ ডলারে।

এ ছাড়া একটি আইপ্যাড মিনিও উন্মোচন করা হয় মঙ্গলবার। ইউএসবি-সি, পেনসিল সাপোর্ট রাখা হয়েছে এতে। তবে রাখা হয়নি কোনো হোম বাটন। নতুন মিনিতে দেয়া হয়েছে টাচ আইডি।

এর দাম শুরু হবে ৪৭৯ পাউন্ড বা ৬৬০ ডলার থেকে।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

পুরোনো ডিজাইনে নতুন আইফোন ১৩ উন্মোচন

পুরোনো ডিজাইনে নতুন আইফোন ১৩ উন্মোচন

আইফোন ১৩ সিরিজ উন্মোচন করেছে অ্যাপল। ছবি: অ্যাপল

আইফোন ১৩ সিরিজের ডিজাইন আগের ডিজাইন থেকে ভিন্ন করার উপায় নেই। দেখতে একেবারে আইফোন ১২ সিরিজের মতো। অবশ্য ডিজাইনে নতুনত্ব না থাকলেও পারফরম্যান্স বেশ বাড়ছে বলে জানিয়েছে অ্যাপল।

বছর ঘুরে আবারও নতুন আইফোনের ঘোষণা দিয়েছে অ্যাপল। আইফোনপ্রেমীরা মুখিয়ে ছিলেন নতুন কী পাচ্ছেন তারা। তবে খুব একটা চমক নেই নতুন আইফোনে।

আইফোন ১৩ সিরিজের ডিজাইন আগের ডিজাইন থেকে ভিন্ন করার উপায় নেই। দেখতে একেবারে আইফোন ১২ সিরিজের মতো। অবশ্য ডিজাইনে নতুনত্ব না থাকলেও পারফরম্যান্স বেশ বাড়ছে বলে জানিয়েছে অ্যাপল।

সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা তাদের একটা রীতি হয়ে গেছে, এ মাসে নতুন পণ্য ঘোষণা দেয়ার।

গত বছর অবশ্য করোনাভাইরাস মহামারিতে সে ধারাবাহিকতায় ব্যাঘাত ঘটে। এক মাস পর গত বছর আইফোন ১২ সিরিজ উন্মোচন করে অ্যাপল। এবার আর দেরি হলো না।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাতে যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাপলের নতুন পণ্য উন্মোচনের আসর সাজিয়েছিল অ্যাপল। সেখানে আইফোন ১৩ সিরিজ ছাড়াও আনা হয়েছে নতুন আইপ্যাড, অ্যাপল ওয়াচসহ বেশ কয়েকটি নতুন পণ্য।

নতুন আইফোন ১৩ সিরিজে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যাপলের নিজের বায়োনিক ১৫ প্রসেসর। এটি ফোনটিকে ১২ সিরিজের চেয়ে ৫০ শতাংশ বেশি কর্মদক্ষ করে তুলবে বলে জানায় অ্যাপল।

পেছনে রয়েছে ডুয়েল ক্যামেরা। ক্যামেরায় বেশ নতুনত্ব আনার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বলছে, তাদের নতুন আইফোনে ভিডিও করা যাবে পোর্ট্রেইট মোডে।

রয়েছে সিনেম্যাটিক মোড, কেউ যখন ফ্রেমে প্রবেশ করে এবং ফ্রেম থেকে বের হয় তখন তাকে ফোকাস করার ক্ষেত্রে এটি একটি উদ্ভাবন হিসেবে দেখা হচ্ছে।

অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টিম কুক বলেন, ‘এটিই একমাত্র স্মার্টফোন যা ব্যবহারকারীকে শ্যুটিংয়ের পর বিভিন্ন ইফেক্ট সম্পাদনা করতে দেবে।’

আইফোন ১৩ সিরিজে দেয়া হয়েছে ব্রাইটার সুপার রেটিনা এক্সডিআর ডিসপ্লে।

আইফোন ১৩ মিনিও এনেছে অ্যাপল। দাম শুরু হয়েছে ৬৯৯ ডলার থেকে। ফোনটির ডিসপ্লে দেয়া হয়েছে ৫.৪ ইঞ্চি।

এ ছাড়া আইফোন ১৩ বিক্রি শুরু হচ্ছে ৭৯৯ ডলার থেকে। এতে রয়েছে ৬.১ ইঞ্চির ডিসপ্লে, স্টোরেজ শুরু হয়েছে ১২৮ জিবি থেকে। আর র‍্যাম রয়েছে ৬ জিবি।

পুরোনো সিরিজ থেকে নতুন আইফোনে ব্যাটারি ব্যাকআপ আড়াই ঘণ্টা বেশি পাওয়ার কথা বলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

নতুন আইফোন আনার পাশাপাশি পুরোনো মডেলের দাম কমানোর ঘোষণাও দিয়েছে জায়ান্টটি। নতুন দাম অনুযায়ী আইফোন এসই বিক্রি হবে ৩৯৯ ডলারে, ৪৯৯ ডলার থেকে শুরু আইফোন ১১, আইফোন ১২-এর দাম কমিয়ে বিক্রি শুরু হচ্ছে ৫৯৯ ডলার থেকে।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

চলতি বছরেই ডিজিটালাইজড হচ্ছে ৮০০ পরিষেবা: পলক

চলতি বছরেই ডিজিটালাইজড হচ্ছে ৮০০ পরিষেবা: পলক

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস বাংলাদেশ লিমিটেডের উদ্যোগে আয়োজিত ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার ২০২১’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও তার আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা, ডিজিটাল বাংলাদেশের আর্কিটেক্ট সজীব ওয়াজেদের নির্দেশনায় আমরা ইতোমধ্যেই প্রায় ১ হাজার ২৩২টি সরকারি সেবা ডিজিটালাইজড করেছি। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে আরও প্রায় ৮০০টি পরিষেবা ডিজিটালাইজড করার জন্য কাজ করছি।’

ডিজিটাল বাংলাদেশে মানুষের সেবা প্রাপ্তি সহজ করতে ১ হাজার ২৩২টি সরকারি সেবা ডিজিটালাইজড হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে আরও ৮০০ সরকারি পরিষেবা ডিজিটালাইজড করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

সোমবার হুয়াওয়ে টেকনোলজিস বাংলাদেশ লিমিটেডের উদ্যোগে আয়োজিত ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার ২০২১’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে পলক বলেন, ‘স্বচ্ছতা নিশ্চিতে আমরা একটি জাতীয় ওয়েব পোর্টাল চালু করেছি। এই পোর্টালে ৫১ হাজার ৫১২টি সমন্বিত ওয়েবসাইট রয়েছে, যাতে বাংলাদেশের নাগরিকরা পাবলিক অফিস, মন্ত্রণালয় এবং অন্যান্য বিভাগের তথ্য সহজে পেতে পারে।

‘আমরা জাতীয় হেল্পলাইন ৩৩৩ চালু করেছি। এই হেল্পলাইন আমাদের ডিজিটালাইজেশন নীতিতে অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করেছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি সেবা কার্যক্রম সহজ ও সাবলীল করতে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও তার আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা, ডিজিটাল বাংলাদেশের আর্কিটেক্ট সজীব ওয়াজেদের নির্দেশনায় আমরা ইতোমধ্যেই প্রায় ১ হাজার ২৩২টি সরকারি সেবা ডিজিটালাইজড করেছি। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে আরও প্রায় ৮০০টি পরিষেবা ডিজিটালাইজড করার জন্য কাজ করছি।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তরুণ ও যুব সমাজই উন্নয়নের চালিকাশক্তি। তাদের ভবিষ্যতের উপযোগী করে গড়ে তুলতে তথ্যপ্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জনের বিকল্প নেই।’

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখেন আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ফজলি ইলাহী, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো রফিকুল ইসলাম শেখ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রুবাইয়াত তানভীর হোসেন, হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মি ঝাং ঝেংজুন।

বিশ্বব্যাপী এসটিইএম (বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশলবিদ্যা ও গণিত) এবং নন-এসটিইএম বিষয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য হুয়াওয়ের ফ্ল্যাগশিপ সিএসআর প্রোগ্রাম ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার’ স্থানীয় শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশ, জ্ঞান প্রদান এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাত সম্পর্কে আরও জানাশোনা ও আগ্রহ তৈরিতে কাজ করে।

২০১৪ সালে বাংলাদেশে চালু হওয়া এই প্রোগ্রামটি সারাবিশ্বে প্রায় দশ বছর ধরে মেধা বিকাশে কাজ করে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন

বিদ্যুৎ-চালিত যানের চার্জিং নীতিমালা আনছে সরকার

বিদ্যুৎ-চালিত যানের চার্জিং নীতিমালা আনছে সরকার

পরিবেশের ভারসাম্য রাখতে দেশে বিদ্যুৎচালিত গাড়ির ব্যবহার বাড়বে। ফাইল ছবি

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, ‘পুরো বিশ্বে বর্তমানে অন্যতম আলোচিত বিষয় হলো বৈদ্যুতিক গাড়ি। চার্জিং স্টেশন কেমন হবে, কী ধরনের ট্যারিফ হবে, যানবাহনের সার্বিক তথ্য কোথায়-কীভাবে সংরক্ষিত হবে, এসব বিষয় ঠিক করে আমাদের প্রস্তুতি এখন থেকেই নিতে হবে।’

পরিবেশবান্ধব পরিবহনব্যবস্থা উৎসাহিত করার যে উদ্যোগ সরকার নিয়েছে, তাতে বিদ্যুৎ-চালিত গাড়ি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করতে যাচ্ছে। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার যানবাহন চার্জিং নীতিমালার দিকে হাঁটছে।

রোববার ‘বৈদ্যুতিক যান চার্জিংবিষয়ক নির্দেশিকা’ ভার্চুয়াল সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনাও হয়।

সভার সভাপতি ও বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, ‘বৈদ্যুতিক যানবাহনের চার্জিং নীতিমালা গ্রাহকবান্ধব হতে হবে।

‘পুরো বিশ্বে বর্তমানে অন্যতম আলোচিত বিষয় হলো বৈদ্যুতিক গাড়ি। চার্জিং স্টেশন কেমন হবে, কী ধরনের ট্যারিফ হবে, যানবাহনের সার্বিক তথ্য কোথায়-কীভাবে সংরক্ষিত হবে, এসব বিষয় ঠিক করে আমাদের প্রস্তুতি এখন থেকেই নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সামনে দাঁড়িয়ে আমরা। নিরাপদ, টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি এই বিপ্লবের গতিপথ পাল্টে দেবে। অন্যদিকে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয় পরিবেশ। পরিবেশের ভারসাম্য রাখতে বৈদ্যুতিক গাড়ির উত্থান উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে।’

তিনি প্রতিটি বিতরণ কোম্পানিতে বৈদ্যুতিক যান চার্জিংবিষয়ক দল রাখার নির্দেশ দেন।

সভায় সড়ক পরিবহন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরটিএর চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, বৈদ্যুতিক যানবাহনের নিবন্ধন কাজ চলছে।

বিদ্যুৎ-সচিব হাবিবুর রহমান, বাংলাদেশ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সত্যজিত কর্মকার, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মঈন উদ্দিন, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইনও বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে পেগাসাস ইস্যুতে তদন্ত কমিশন
স্মার্টফোনে পেগাসাসের আক্রমণ বুঝবেন কী করে
পেগাসাস কাণ্ড: মোদিকে রাষ্ট্রদ্রোহী বললেন রাহুল
পেগাসাস: বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের ভয়ঙ্কর অস্ত্র
পেগাসাস-কাণ্ডে ভারতে মামলা

শেয়ার করুন