‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘শিশুদের জন্য ন্যায়বিচার’

player
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘শিশুদের জন্য ন্যায়বিচার’

বিনা মূল্যে আইনি পরামর্শ এবং সহায়তা পেতে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চোখ রাখুন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

সব ধরনের আইনি পরামর্শ ও সহায়তা দিতে নিউজবাংলার নিয়মিত আয়োজন ‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবারের বিষয়: ‘শিশুদের জন্য ন্যায়বিচার’। প্রচারিত হবে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

শবনম ফারিয়ার সঞ্চালনায় শনিবার এ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার হবে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

আলোচনায় বিশেষজ্ঞ হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ব্যারিস্টার মিতি সানজানা ও কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মেহেরবা সাবরীন। অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার হবে শাহ্‌ সিমেন্টের সৌজন্যে।

‘আমার আইন, আমার অধিকার’ সম্পর্কে নিউজবাংলার এক মুখপাত্র বলেন, আইন জানা নাগরিকের জন্য একান্ত প্রয়োজন। আইন ও আইনজীবী- এই শব্দগুলো নিয়ে একধরনের ভীতি কাজ করে। তবে আইনের আশ্রয় লাভ করা একজন নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার।

নিজের আইনগত অধিকার সম্পর্কে না জানলে যে কেউ কোনো বিষয়ে ভুল পরামর্শ দিয়ে আপনাকে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারে। কোনো নাগরিক রাষ্ট্রের কাছে কী কী সুযোগ-সুবিধার অধিকারী, সেটি যদি তিনি না জানেন, তাহলে তিনি ন্যায্য দাবি আদায় করতে পারবেন না।

তিনি বলেন, নাগরিকের আইনি অধিকার ও সুরক্ষার বিষয়টি সহজভাবে জানাতে কাজ করবে ‘আমার আইন, আমার অধিকার’। দেয়া হবে পরামর্শ। প্রয়োজনে তৃণমূল পর্যায়ে নাগরিকের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরাসরি আইনি সহায়তাও দেয়া হবে।

আইনি সুবিধাবঞ্চিত আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

বিনা মূল্যে আইনি পরামর্শ এবং সহায়তা পেতে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চোখ রাখুন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

অনুষ্ঠান চলাকালে ফোন করুন ০২৫৫০৫৫২৮৯ নম্বরে। এ ছাড়া সমস্যা জানাতে ০১৯৫৮০৫৬৬৬৮ নম্বরে ফোন করুন যেকোনো সময়। হোয়াটসঅ্যাপে প্রশ্ন ভিডিও করেও পাঠাতে পারেন একই নম্বরে।

নিউজবাংলার ফেসবুক পেজ https://www.facebook.com/nwsbn24 এবং ই-মেইল [email protected]এ মেসেজ পাঠানোরও সুযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

মন্তব্য

করোনায় কাবু আদালত, আক্রান্ত ১০ বিচারক

করোনায় কাবু আদালত, আক্রান্ত ১০ বিচারক

সংক্রমণ ব্যাপক হারে ছড়ালেও হবিগঞ্জের আদালত পাড়ায় নেই স্বাস্থ্যবিধি। ছবি: নিউজবাংলা

শুধু বিচারকই নন, অনেক আইনজীবী, আইনজীবীর সহকারীসহ আদালতের কাজে নিয়োজিত আরও অনেকেই করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

হবিগঞ্জ আদালতের ১০ বিচারক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

রোববার বিকেলে হবিগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হবিগঞ্জ জেলার বিচার বিভাগে মোট ২৮ জন বিচারক দায়িত্ব পালন করছেন। এর মধ্যে ১০ জনই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গত কয়েকদিনে তাদের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়।

আক্রান্ত বিচারকদের মধ্যে রয়েছেন, ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বিচারক সিরাজাম মুনীরা, সিনিয়র সহকারী জজ তানিয়া ইসলাম, সহকারী জজ অভিজিৎ চৌধুরী, সাজিদ-উল-হাসান চৌধুরী, মো. আব্দুল হামিদ, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সুলতান উদ্দিন প্রধান ও মো. জাকির হোসাইন, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফখরুল ইসলাম, রাহেলা পারভীন ও তাহমিনা হক।

আক্রান্ত বিচারকরা বর্তমানে নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন।

এদিকে, প্রায় অর্ধেক বিচারক করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় বিঘ্নিত হচ্ছে জেলার বিচারকাজ।

শুধু বিচারকই নন, অনেক আইনজীবী আইনজীবীর সহকারীসহ আদালতের কাজে নিয়োজিত আরও অনেকেই করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে, ১০ বিচারকসহ সংশ্লিষ্ট অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হলেও হবিগঞ্জ আদালত পাড়ায় মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।

রোববার হবিগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গিয়ে দেখা যায়, অধিকাংশ বিচারপ্রার্থীর মুখে নেই মাস্ক। বহুতল ভবনের প্রতিটি ফ্লোরের বারান্দায় বিচারপ্রার্থীদের ভিড়। একে অপরের শরীর ঘেঁষে জটলা পাকিয়ে আছেন তারা।

এ অবস্থায় ওই আদালত পাড়া থেকেই করোনা সংক্রমণ ব্যপক হারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

হবিগঞ্জ আদালতের পরিদর্শক মো. আনিসুর রহমান বলেন, ‘১০ জন বিচারক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন জানতে পেরেছি। তাই আদালত পাড়ায় স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কোর্ট পুলিশ কাজ করছে।’

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

সেনা-পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা করত তারা

সেনা-পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা করত তারা

গ্রেপ্তার হলেন চক্রের হোতা ফুয়াদ আমিন ইশতিয়াক ওরফে সানি, অন্যতম সহযোগী সাইমা শিকদার নিরা ওরফে আরজে নিরা ও আব্দুল্লাহ আফিফ সাদমান ওরফে রিশু। ছবি: নিউজবাংলা

র‍্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘একজন ট্রান্সজেন্ডার নারী বিউটি ব্লগারকে যৌন নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টার ঘটনার রাজধানীর ভাটারা থানায় মামলা করেন ওই নারী। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা, র‍্যাব-১ ও র‍্যাব-২ এর যৌথ অভিযানে গত রাত থেকে শুরু করে আজ দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।’ এরা একটি সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র নিয়ন্ত্রণ করতেন।

সেনা কর্মকর্তা ও পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার নারী-পুরুষদের আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ করে হেনস্থা ও ব্ল্যাকমেইল করতো চক্রটি। এছাড়া অনলাইনেও ভিকটিমদের ফাঁদে ফেলতেন তারা।

সম্প্রতি ট্রান্সজেন্ডার নারী বিউটি ব্লগারকে যৌন নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টার ঘটনা তদন্ত করতে নেমে এই প্রতারণা চক্রের হোতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর ১টা পর্যন্ত রাজধানীর ফার্মগেট ও মহাখালী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার হলেন- হোতা ফুয়াদ আমিন ইশতিয়াক ওরফে সানি, অন্যতম সহযোগী সাইমা শিকদার নিরা ওরফে আরজে নিরা ও আব্দুল্লাহ আফিফ সাদমান ওরফে রিশু।

অভিযানে ভিকটিমের ছিনিয়ে নেয়া মোবাইল উদ্ধারসহ জব্দ করা হয় প্রতারণার কজে ব্যবহৃত অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, খেলনা পিস্তল, মোবাইল ও একাধিক ব্যাংকের কার্ড।

রোববার বিকেলে কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন র‍্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ‘একজন ট্রান্সজেন্ডার নারী বিউটি ব্লগারকে যৌন নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টার ঘটনার রাজধানীর ভাটারা থানায় মামলা করেন ওই নারী। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা, র‌্যাব-১ ও র‌্যাব-২ এর যৌথ অভিযানে গত রাত থেকে শুরু করে আজ দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

এরা একটি সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র নিয়ন্ত্রণ করতেন। গ্রেপ্তার ইশতিয়াক এই চক্রের হোতা, গ্রেপ্তার আরজে নিরা ও গ্রেপ্তার সাদমান আফিফ ওরফে রিশু তার অন্যতম সহযোগি।

তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা গত দুই বছর ধরে বিভিন্ন কৌশলে জিম্মি, ব্ল্যাকমেইল ও প্রতারণা করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নারী-পুরুষদের অর্থ হাতিয়ে নিত। তারা সাধারণত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্নজনের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলেন। এরপর কৌশলে বিভিন্ন সময়ের আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ করে ভিকটিমদের হেনস্থা ও ব্ল্যাকমেইল করত। তাদের ভাড়া বাসা ব্যবহার করে জোরপূর্বক আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করতো। এছাড়া অনলাইনেও ভিকটিমদের ফাঁদে ফেলত তারা। গ্রেপ্তারকৃতরা নিজেদেরকে সেনা কর্মকর্তা ও পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিত।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিকটিম ট্রান্সজেন্ডার নারীর সঙ্গে গ্রেপ্তার সাদমান আফিফ রিশুর পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্রে গত ১০ জানুয়ারি রাজধানীর বসুন্ধরার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে একটি রেস্টুরেন্টের সামনে রিশুর সঙ্গে ভিকটিমের সাক্ষাত হয়। এরপর সারপ্রাইজ দেয়ার কথা বলে কৌশলে ভিকটিমকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ইশতিয়াকের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। বাসায় নেয়ার পরে ইশতিয়াক, নিরা ও রিশু জোর করে ভিকটিমকে মারধর, শ্লীলতাহানী ও যৌন নিপীড়ন করার পাশাপাশি ভিডিও ধারণ করে। এসময় তারা ট্রান্সজেন্ডার ওই নারীর সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোন, স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং এক লাখ টাকা দাবি করে।

র‍্যাব জানায়, ওই নারীকে ব্লাকমেইলের এক পর্যায়ে তারা আইন-শৃঙ্খলা ও সামরিক বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ভয়-ভীতি দেখায়। ওই ট্রান্সজেন্ডার নারীকে থানায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরিয়ে রামপুরায় নামিয়ে দেন।

এক প্রশ্নের জবাবে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তার ইশতিয়াক এর আগের দুটি মামলা রয়েছে। ইতোপূর্বে বিভিন্ন মামলায় সে কারাভোগ করেছে। তারা এর আগেও এমন প্রতারণা করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে মামলাও রয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

ইসি নিয়ে জটিলতা দূর করবে, বিএনপির বক্তব্য উদভ্রান্তের প্রলাপ: কাদের

ইসি নিয়ে জটিলতা দূর করবে, বিএনপির বক্তব্য উদভ্রান্তের প্রলাপ: কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

‘রাজনীতির মাঠে পরাজিত বিএনপি এখন নির্বাচন কমিশন গঠন আইন নিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে অপতৎপরতায় লিপ্ত হয়েছে। এই আইনকে শুধু নয়, তারা বরাবরের মতো নির্বাচন ও নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পাঁয়তারা করছে। তারই ধারাবাহিকতায় নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রচুর পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ ও বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ মাধ্যমে ষড়যন্ত্রের নতুন নতুন নাটক মঞ্চায়ন করেও বিএনপি’র মরা গাঙ্গের খরা কাটেনি। তাই তারা উদভ্রান্তের মতো প্রলাপ বকতে শুরু করেছে।’

নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে আইন করতে জাতীয় সংসদে তোলা বিলের সমালোচনা করে বিএনপির বক্তব্যকে ‘উদভ্রান্তের প্রলাপ’ আখ্যা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

রোববার দলের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়।

নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে সংবিধানে আইনের কথা বলা থাকলেও স্বাধীনতার ৫০ বছরেও এ আইনটি হয়নি। আগামী ফেব্রুয়ারিতে মেয়াদ শেষ হতে যাওয়ার আগে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতি যখন বিভিন্ন দলের সঙ্গে সংলাপ করেন, তখন সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয় এই আইনের বিষয়টি নিয়ে। এরই মধ্যে এই আইনের একটি বিল জাতীয় সংসদে উত্থাপন হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির আগের দুই সংলাপে বিএনপি অংশ নিলেও এবার তারা এই আলোচনা বর্জন করেছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশ নিলেও দলটি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ফিরে গেছে। পাশাপাশি নির্বাচন কমিশন গঠনে যে বিল আনা হয়েছে, তার সমালোচনা করেছেন দলটির সংসদ সদস্যরা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাজনীতির মাঠে পরাজিত বিএনপি এখন নির্বাচন কমিশন গঠন আইন নিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে অপতৎপরতায় লিপ্ত হয়েছে। এই আইনকে শুধু নয়, তারা বরাবরের মতো নির্বাচন ও নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পাঁয়তারা করছে। তারই ধারাবাহিকতায় নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রচুর পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ ও বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ মাধ্যমে ষড়যন্ত্রের নতুন নতুন নাটক মঞ্চায়ন করেও বিএনপি’র মরা গাঙ্গের খরা কাটেনি। তাই তারা উদভ্রান্তের মতো প্রলাপ বকতে শুরু করেছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নির্বাচন কমিশন গঠন আইন সম্পর্কিত বিলটির উপর জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী সকল রাজনৈতিক দল আলোচনা করবেন এবং নিজেদের মতামত ব্যক্ত করবেন। সাংবিধানিক বিধান অনুযায়ী আইন প্রণয়নের ক্ষমতা মহান জাতীয় সংসদের উপর ন্যস্ত রয়েছে। সে মোতাবেক সংসদে উত্থাপিত বিলটি যথাযথ প্রক্রিয়া ও সাংবিধানিক রীতি-নীতির মধ্য দিয়েই পাস হবে বলে আশা রাখে।

‘বিএনপি নেতৃবৃন্দ উত্থাপিত আইনটি সম্পর্কে সম্পূর্ণরূপে না জেনে এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অভিপ্রায়ে নানা ধরনের বিভ্রান্তিকর মন্তব্য ও অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।’

গণতান্ত্রিক কাঠামো ও আইনি প্রক্রিয়ার প্রতি বিএনপির কোনো শ্রদ্ধাবোধ নেই মন্তব্য করে কাদের বলেন, ‘বন্দুকের নলের মুখে অসাংবিধানিক ও অবৈধ পন্থায় ক্ষমতা দখল করে যাদের নেতা নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করতে পারে, আইনি কাঠামোর প্রতি তাদের আস্থা থাকবে না এটাই স্বাভাবিক। সংবিধান ও আইন লঙ্ঘনের মধ্য দিয়ে যাদের জন্ম তাদের কাছে যে কোনো আইনি কাঠামোই তামাশা মনে হবে। কারফিউ মার্কা গণতন্ত্রের যে প্রহসনের বীজ তাদের অস্থিমজ্জায় প্রথিত তা থেকে এখনো তারা বেরিয়ে আসতে পারেনি।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়নের দাবি সব মহল থেকে উঠে এসেছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, সব রাজনৈতিক দল ও নাগরিক সমাজের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আইনের খসড়া মন্ত্রিসভা অনুমোদন দিয়েছে। এই বিল সংসদে পাসের মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে জটিলতা নিরসনে সমাধানের স্থায়ী পথ উন্মুক্ত হতে চলেছে।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

সিনেমা হল নির্মাণে স্বল্প সুদে ঋণ দেবে সরকার: তথ্যমন্ত্রী

সিনেমা হল নির্মাণে স্বল্প সুদে ঋণ দেবে সরকার: তথ্যমন্ত্রী

রোববার জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রীসহ অতিথি ও আয়োজকরা। ছবি: নিউজবাংলা

২০তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ভারতের ‘কুজহানগাল’ সেরা চলচ্চিত্র, ফিনল্যান্ডের ‘দ্য আদার সাইড অব দি রিভার’ সেরা প্রামাণ্যচিত্র, ফ্রান্সের ‘আ সামার প্লেস’ সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য ও নারীনির্মাতা বিভাগে ইরানের ‘সাহারবানু’ সেরা ফিচার ফিল্মের পুরস্কার পায়। দর্শক পছন্দে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশের ‘চন্দ্রাবতী কথা’ ও ‘লাল মোরগের ঝুঁটি’। আর বাংলাদেশ প্যানোরামা বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে ‘আজব কারখানা’।

সারাদেশে বন্ধ হয়ে যাওয়া সিনেমা হলগুলো পুনরায় চালু, পুরনো হলগুলো সংস্কার ও আধুনিকায়ন এবং নতুন হল নির্মাণে স্বল্প সুদে ঋণ দেবে সরকার৷ এ জন্য সরকার এক হাজার কোটি টাকার তবহিল গঠন করেছে।

রোববার রাজধানীতে জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে ২০তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

গত ১৫ জানুয়ারি প্রায় ৭০টি দেশের ২২৫টি সিনেমা নিয়ে শুরু হওয়া এই উৎসবে জাতীয় জাদুঘর, গণগ্রন্থাগার, অলিয়ঁস ফ্রসেজসহ কয়েকটি স্থানে চলচ্চিত্র দেখানো হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিভাগে পুরস্কার বিতরণ করেন মন্ত্রী ড. হাছান।

ভারতের ‘কুজহানগাল’ সেরা চলচ্চিত্র, ফিনল্যান্ডের ‘দ্য আদার সাইড অব দি রিভার’ সেরা প্রামাণ্যচিত্র, ফ্রান্সের ‘আ সামার প্লেস’ সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য ও নারীনির্মাতা বিভাগে ইরানের ‘সাহারবানু’ সেরা ফিচার ফিল্মের পুরস্কার পায়। দর্শক পছন্দে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশের ‘চন্দ্রাবতী কথা’ ও ‘লাল মোরগের ঝুঁটি’। আর বাংলাদেশ প্যানোরামা বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে ‘আজব কারখানা’।

তথ্যমন্ত্রী জানান, ‘সিনেমা হল নির্মাণ, পুরনো হল চালু কিংবা আধুনিকায়নে এমনকি মার্কেটের সঙ্গে সিনেপ্লেক্স নির্মাণেও মেট্রোপলিটন এলাকার বাইরে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ ও মেট্রোপলিটন এলাকায় ৫ শতাংশ হারে ব্যাংককে লভ্যাংশ দিয়ে একজন উদ্যোক্তা দশ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন।

‘এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন হয়েছে। বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলচ্চিত্র শিল্প যাতে ঘুরে দাঁড়ায় এবং বাংলা চলচ্চিত্র যেন বিশ্বময় জায়গা করে নিতে পারে সে লক্ষ্যে আমরা কাজ শুরু করেছি।

‘তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে চলচ্চিত্র নির্মাণে বার্ষিক অনুদানের সংখ্যা ও পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। আশা করি এসব উদ্যোগ আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য সুদিন বয়ে আনবে।’

অনুষ্ঠানে সুন্দর দেশ, সমাজ ও পৃথিবী গড়তে চলচ্চিত্র অনন্য ভূমিকা রাখতে পারে বলে মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘এদেশের কালজয়ী চলচ্চিত্রগুলো আমাদের স্বাধিকার আন্দোলনে, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও স্বাধীনতা-উত্তরকালে দেশ গঠনে ভূমিকা রেখেছে। একইসঙ্গে অনেক বিষয় যা সমাজ ও সমাজপতিরা ভাবে না, সেগুলোও চলচ্চিত্রের মাধ্যমে উঠে আসে, সমাজকে পথ দেখায়।’

উৎসবের মূল আয়োজক রেইনবো ফিল্ম সোসাইটির বোর্ড সদস্য মফিদুল হকের সভাপতিত্বে ও উৎসব পরিচালক আহমেদ মুজতবা জামালের পরিচালনায় সমাপনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী ও ঢাকা ক্লাবের প্রেসিডেন্ট খন্দকার মশিউজ্জামান রোমেল।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেলেন ১৫ জন

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেলেন ১৫ জন

বাংলা একাডেমি আয়োজিত অমর একুশে বইমেলা ২০২২-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এ পুরস্কার তুলে দেবেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

সাহিত্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখা ১৫ জনকে এ বছর বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার দেয়া হচ্ছে।

রোববার সন্ধ্যায় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলা একাডেমি ২০২১ সালের জন্য পুরস্কারের জন্য মনোনীতদের নাম ঘোষণা করে।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন কবিতায় আসাদ মান্নান, বিমল গুহ, কথাসাহিত্যে ঝর্ণা রহমান, বিশ্বজিৎ চৌধুরী, প্রবন্ধ/গবেষণা হোসেনউদ্দীন হোসেন, অনুবাদে আমিনুর রহমান, রফিক-উম-মুনীর চৌধুরী, নাটকে সাধনা আহমেদ, শিশুসাহিত্যে রফিকুর রশীদ, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গবেষণায় পান্না কায়সার, বঙ্গবন্ধুবিষয়ক গবেষণায় হারুন-অর-রশিদ, বিজ্ঞান/কল্পবিজ্ঞান/পরিবেশ বিজ্ঞানে শুভাগত চৌধুরী, আত্মজীবনী/স্মৃতিকথা/ভ্রমণকাহিনিতে সুফিয়া খাতুন, হায়দার আকবর খান রনো ও ফোকলোরে আমিনুর রহমান সুলতান।

বাংলা একাডেমি আয়োজিত অমর একুশে বইমেলা ২০২২-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এ পুরস্কার তুলে দেবেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

প্রতিষ্ঠার পাঁচ বছর পর ১৯৬০ সাল থেকে নিয়মিতভাবে সাহিত্য পুরস্কার দিয়ে আসছে বাংলা একাডেমি।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

পুলিশের কাছে প্রত্যাশা আকাশচুম্বী: আইজিপি

পুলিশের কাছে প্রত্যাশা আকাশচুম্বী: আইজিপি

পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা

আইজিপি বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘যারা পুলিশে পদোন্নতি পেয়ে শীর্ষ পর্যায়ে পৌঁছেছেন, তাদের বাহিনী থেকে তেমন কিছু পাওয়ার নেই। এখন শুধু দেয়ার পালা। আপনারা এখন দেশ, জনগণ এবং পুলিশ বাহিনীর জন্য কাজ করবেন।’

পুলিশের কাছে মানুষের প্রত্যাশা আকাশচুম্বী বলে মনে করেন বাহিনীপ্রধান ড. বেনজীর আহমেদ। নানা সীমাবদ্ধতায় সে আশার সবকিছু পূরণ সম্ভব না হলেও পুলিশ বাহিনী আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে।

সদ্য পদোন্নতি পাওয়া সাতজন অতিরিক্ত মহাপরিদর্শকের র‍্যাংক ব্যাজ পরিধান অনুষ্ঠানে রোববার তিনি এ কথা বলেন।

পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের হল অফ প্রাইডে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে মহাপরিদশর্ক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘মানুষের প্রত্যাশা পূরণে নিজেদের অতিক্রম করে সেবা দিতে হবে। পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

‘যারা পুলিশে পদোন্নতি পেয়ে শীর্ষ পর্যায়ে পৌঁছেছেন, তাদের বাহিনী থেকে তেমন কিছু পাওয়ার নেই। এখন শুধু দেয়ার পালা। আপনারা এখন দেশ, জনগণ এবং পুলিশ বাহিনীর জন্য কাজ করবেন।’

পুলিশের কাছে প্রত্যাশা আকাশচুম্বী: আইজিপি
আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ মতবিনিময় করেন পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের সঙ্গে। ছবি: নিউজবাংলা

আইজিপি পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তা এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের আন্তরিক অভিনন্দন ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের র‍্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেন আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ এবং অতিরিক্ত আইজি (এঅ্যান্ডআই) ড. মো. মইনুর রহমান চৌধুরী।

অতিরিক্ত আইজি হিসেবে সদ্য পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তারা হলেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের আবু হাসান মুহম্মদ তারিক, পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের পরিচালক ড. হাসান উল হায়দার, স্পেশাল ব্রাঞ্চের প্রধান মো. মনিরুল ইসলাম, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান, শিল্পাঞ্চল পুলিশের মো. মাহাবুবর রহমান ও ময়মনসিংহ রেঞ্জের ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ।

অনুষ্ঠানে পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তারা দেশ ও জনগণের কল্যাণে যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের অঙ্গীকার করেন।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন

শাবি ভিসির পদত্যাগ দাবি চক্রান্ত: বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ

শাবি ভিসির পদত্যাগ দাবি চক্রান্ত: বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ

সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের নিয়ে গঠিত হয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নীতিবহির্ভূতভাবে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে ক্রমশ যে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হচ্ছে তা সমগ্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করে তোলার মাধ্যমে দেশের উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলার একটি চক্রান্তের অংশ বলেই প্রতিভাত হচ্ছে।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন আহমেদের পদত্যাগ দাবিকে ‘দেশের উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলার একটি চক্রান্তের অংশ’ বলে মনে করছে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ।

সেই সঙ্গে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিকে নীতিবহির্ভূত বলেও দাবি করেছে সংগঠনটি।

সংবাদ মাধ্যমে রোববার পাঠানো এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ এ অবস্থান জানায়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘শাবিতে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে ২০ জানুয়ারি পরিষদের এক জরুরি সভা ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের সভাপতি ড. হাবিবুর রহমান। সভায় ৩৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য উপস্থিত ছিলেন।

‘শাবির বেগম সিরাজুন্নেছা চৌধুরী হলের একজন প্রাধ্যক্ষকে অপসারণের দাবিতে ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে প্রশাসনের অনভিপ্রেত ঘটনার প্রেক্ষাপটে ছাত্র-ছাত্রী, পুলিশ ও শিক্ষকদের যারা আহত হয়েছেন তাদের সবার প্রতি আমরা সহমর্মিতা প্রকাশ করছি।

‘এরই মধ্যে ওই হলে একজন নতুন প্রাধ্যক্ষ নিয়োগ দেয়া হলেও উপাচার্যসহ তার পরিবারের সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখার মাধ্যমে বর্তমানে যে জটিল পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছে তা আমাদের কোনোভাবেই কাম্য নয়।’

আরও পড়ুন: একযোগে পদত্যাগ করছেন ৩৪ উপাচার্য?

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নীতিবহির্ভূতভাবে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে ক্রমশ যে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হচ্ছে তা সমগ্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করে তোলার মাধ্যমে দেশের উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলার একটি চক্রান্তের অংশ বলেই প্রতিভাত হচ্ছে।

‘শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যকার সম্পর্কটি শ্রদ্ধা, স্নেহের ও পারস্পরিক সম্মানবোধের। সেটি যেন অক্ষুণ্ন থাকে তা আমাদের অবশ্যই বিবেচনায় নিতে হবে এবং যে কোনো সমস্যা, তা যত বড়ই হোক না কেন, আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে অবশ্যই সমাধান করা সম্ভব বলে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ মনে করে।’

বিবৃতিতে সই করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভাপতি ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) উপাচার্য ড. মো. হাবিবুর রহমান এবং বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের কোষাধ্যক্ষ শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহীদুর রহমান ভুইয়া।

আরও পড়ুন:
‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘হিন্দু বিয়ে নিবন্ধন ও বিচ্ছেদ আইন’
‘আমার আইন, আমার অধিকার’, এবার ‘অনলাইন কেনাকাটায় সাবধানতা’
চুক্তিভিত্তিক বিয়ে কি বৈধ?
তালাক ছাড়া বিয়ে করলে কী শাস্তি
অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে কী করবেন?

শেয়ার করুন