দিনমজুর থেকে ইউটিউবার, আয় ৫ লাখ

দিনমজুর থেকে ইউটিউবার, আয় ৫ লাখ

দেশটিতে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় যখন বিপর্যস্ত জনজীবন, তখন বরং স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছেন আইজ্যাক। মাসে প্রায় লাখ টাকা উপার্জন করছেন। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সুখেই ঘর করছেন।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে কাজ হারিয়েছে কোটি কোটি মানুষ। ভারতে দিনমজুর থেকে শুরু করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী, কে নেই সেই তালিকায়। তেমনই এক কাজ হারানো দিনমজুর আইজ্যাক মুন্ডা।

সংসার চালাতে কখনো ঠেলাগাড়ি, কখনো সবজি বিক্রি আবার কখনো কৃষিশ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন আইজ্যাক। করোনায় সে পথেও বাধা পড়ে।

আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষ আইজ্যাকের বাড়ি ভারতের ওড়িশায়। আইজ্যাক থাকেন রাজ্যের সম্বলপুর জেলার বাবুপালিতে।

স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে নিয়ে দিনমজুরি করে কোনোক্রমে দিন কাটাতেন আইজ্যাক। সর্বনিম্ন উপার্জনে কোনো রকমে টিকে ছিলেন করোনার শুরুতে।

দেশটিতে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় যখন বিপর্যস্ত জনজীবন, তখন বরং স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছেন আইজ্যাক। মাসে প্রায় লাখ টাকা উপার্জন করছেন। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সুখেই ঘর করছেন।

আইজ্যাক মুন্ডার এই সফলতার অন্যতম হচ্ছে ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউব। কেননা, এখন তিনি একজন ইউটিউবের কনটেন্ট ক্রিয়েটর।

এরই মধ্যে ভারতে তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে আইজ্যাক ও তার চ্যানেল ‘আইজ্যাক মুন্ডা ইটিং’।

ইউটিউব খোলার ছয় মাসের মাথায় এখন তার আয় দাঁড়িয়েছে ৫ লাখে। বলা যায়, প্রতি মাসে এখন তার আয় হচ্ছে লাখ টাকা।

মাত্র সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন আইজ্যাক। এরপর গরিব পরিবারে হাড়ভাঙা খাটুনিতে জড়াতে হয়। স্কুল ছেড়ে মনোযোগ দিতে হয় পরিবারের উপার্জনে।

২০২০ সালে দেশে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিলে কাজ চলে যায় আইজ্যাকের। তারপর দীর্ঘ সময় বাড়িতেই বেকার বসেছিলেন। কখনও কোনো কাজের ডাক পেলে করতেন।

এমন সময় একদিন এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা হয়। সেই বন্ধু আবার মোবাইল ফোনে ভিডিও করে সেটি ইউটিউবে ছাড়তেন। তার কাছ থেকেই বিস্তারিত শোনেন আইজ্যাক।

পরে আইজ্যাক তিন হাজার টাকা ধার করে কেনেন নিজের একটি স্মার্টফোন। সেটি দিয়ে তিনি প্রথম ভিডিও করেন তাদের খাবারের।

নিজেদের মাটির বাড়ি। থালার এক পাশে পড়ে থাকা খুব কম পরিমাণে ভাত আর সবজি। তালপাতার মাদুরে বসে পরিবারসহ সেই খাবারের ভিডিও করে তার চ্যানেলে আপলোড করেন।

প্রথমে কিছুটা হতাশ হয়ে পড়েন আইজ্যাক। ভিডিও দেখে না কেউ। কিন্তু তিন মাস পর খেয়াল করলেন তার প্রথম ভিডিও ৫ লাখের বেশি মানুষ দেখে ফেলেছে। এতে তার আয় গিয়ে দাঁড়ায় ৩৭ হাজার টাকায়।

পরে আইজ্যাক আর হতাশ না হয়ে জোরেশোরে কাজে লেগে পড়েন। ৩৫ বছরের আইজ্যাক এরপর পুরোদমে হয়ে গেছেন কনটেন্ট ক্রিয়েটর।

শুরু করেন তার গ্রামের সংস্কৃতি ও মানুষের জীবনযাপনের চিত্র। সেসব তুলে ধরেন ভিডিওচিত্রে। এখন আইজ্যাক মুন্ডা ইটিং চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা সাড়ে ৭ লাখ ছাড়িয়েছে।

গ্রামের নানা ধরনের ভিডিও দিয়ে এরই মধ্যে প্রশংসা পেয়েছেন আইজ্যাক মুন্ডা।

আরও পড়ুন:
আয়ের তালিকায় শীর্ষ ইউটিউবাররা

শেয়ার করুন

মন্তব্য