ট্রাম্পের ফেসবুক-টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লকড

ট্রাম্পের ফেসবুক-টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লকড

জো বাইডেনের জয়ের স্বীকৃতি দিতে বুধবার কংগ্রেসের অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে নির্বাচনের ফল ঘুরিয়ে দেয়ার চেষ্টায় তাণ্ডব চালায় ট্রাম্প সমর্থকরা। এ ঘটনার সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একের পর এক মিথ্যা পোস্ট দিচ্ছিলেন ট্রাম্প।

মার্কিন কংগ্রেসের সামনে নিজ সমর্থকদের তাণ্ডব যাতে উসকে দিতে না পারেন সে জন্য প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট সাময়িক সময়ের জন্য ব্লক করে দিয়েছে ফেসবুক ও টুইটার।

জো বাইডেনের জয়ের স্বীকৃতি দিতে বুধবার কংগ্রেসের অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে নির্বাচনের ফল ঘুরিয়ে দেয়ার চেষ্টায় তাণ্ডব চালায় ট্রাম্প সমর্থকরা। এতে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনার সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একের পর এক মিথ্যা পোস্ট দিচ্ছিলেন ট্রাম্প। পোস্ট করেন একটি ভিডিও ক্লিপ। এসব পোস্টে ট্রাম্পের দাবি, ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে তার কাছ থেকে জয় চুরি করে নিয়েছে জো বাইডেন।

ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট ব্লক করা নিয়ে ফেসবুক বলেছে, পোস্টগুলো সহিংসতা বন্ধ করে দেয়ার পরিবর্তে উসকে দিচ্ছিল। আরও ঝুঁকি তৈরি হচ্ছিল। তা রোধেই প্রেসিডেন্টের অ্যাকাউন্ট ব্লক করা হয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যমটি আরও জানায়, টাম্পের অ্যাকাউন্টটি ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়েছে। এই সময়ে কোনো পোস্ট দিতে পারবেন না তিনি।

বুধবার দিনের শুরুতে টুইটারও ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট সাময়িক সময়ের জন্য ব্লক করে দেয়। সেই সঙ্গে হুঁশিয়ার করে দিয়ে জানায়, নিয়ম লঙ্ঘন করলে এবং নির্বাচন নিয়ে কোনো ভুল তথ্য দিলে তাকে স্থায়ীভাবে ব্লক করে দেয়া হবে।

ক্যাপিটাল হিলে মার্কিন কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্পের অস্ত্রধারী সমর্থকদের এমন নজিরবিহীন কাণ্ডে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। নিন্দা জানিয়েছেন বিল ক্লিনটন, বারাক ওবামা, হিলারি ক্লিনটনের মতো ব্যক্তিত্বরা।

ব্যাপক সহিংসতার মধ্যেও বসেছে কংগ্রেসের অধিবেশন। এতে জো বাইডেনের জয়ের স্বীকৃতি দেয়া হবে। ফলে হোয়াইট হাউজে যাওয়ার জন্য আর কোনো বাধা থাকবে না তার।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শুধু আইন দিয়ে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়

শুধু আইন দিয়ে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়

ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বলেন, ‘সমাজ সচেতন হলে হয়তো নারীদের প্রতি অত্যাচারটা কমে আসবে। কিন্তু নারী যতক্ষণ পর্যন্ত নিজে সচেতন না হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত সে একটা অমর্যাদাকর অবস্থার মধ্যে আছে, যা নিয়ে সে সামনে এগুতে পারবে না।’

নিজেরা সচেতন না হলে কেবল প্রচলিত আইন ও নীতিমালা দিয়ে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়।

আইনি পরামর্শ ও সহায়তা নিয়ে নিউজবাংলার সাপ্তাহিক আয়োজন ‘আমার আইন, আমার অধিকার’ অনুষ্ঠানে এ অভিমত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

শবনম ফারিয়ার সঞ্চালনায় শনিবারের আলোচনায় ছিলেন আইনজীবী মিতি সানজানা ও কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ-এর আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মেহেরবা সাবরীন।

তারা নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় ও নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণে প্রচলিত বিভিন্ন আইন ও সেগুলোর প্রায়োগিক দিক নিয়ে কথা বলেন এবং এ সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেন।

৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে সামনে রেখে এই আলোচনা হয়।

পদ্মা ব্যাংকের সৌজন্যে অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার হয় নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বলেন, ‘সমাজ সচেতন হলে হয়তো নারীদের প্রতি অত্যাচারটা কমে আসবে। কিন্তু নারী যতক্ষণ পর্যন্ত নিজে সচেতন না হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত সে একটা অমর্যাদাকর অবস্থার মধ্যে আছে, যা নিয়ে সে সামনে এগুতে পারবে না।’

মেহেরবা সাবরীন মনে করেন, নারীর নিজের অধিকার সম্পর্কে সচেতনতা তৈরির ক্ষেত্রে তার ‘সোশ্যাল কন্ডিশনিং’ একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

তিনি বলেন, ‘সোশ্যাল কন্ডিশনিং এর ব্যাপারটা আমাদের নারীদের মধ্যে খুব ছোটবেলা থেকে রয়ে যায়। আবার সেই শিক্ষাটা থেকে আমাদের বের হয়েও আসতে হয়। সহজ কথায় যাকে বলা যায় আনলার্নিং সামথিং।’

সাবরীন বলেন, ‘এভাবে নিজের ভয়, নিজের ইনফিরিওরিটি কমপ্লেক্স- এগুলো আনলার্ন করার বার্তাটা সবার কাছে পৌঁছে দেয়াটা জরুরি।’

মিতি সানজানা আরও বলেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে নারীরা আইনের আশ্রয় নিতে চান না। এটাকে ঝামেলা মনে করেন। অর্থনৈতিকভাবে পরনির্ভরশীলতা ও বিচারকাজে দীর্ঘসূত্রতা এর বড় কারণ।’

প্রশাসন কিংবা আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাও অনেক ক্ষেত্রে নারীবান্ধব নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘যে কারণে আদালতের অচেনা পরিসরে একজন নারীর পক্ষে আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়াটা কঠিন হয়ে পড়ে।’

নাগরিকের আইনি অধিকার ও সুরক্ষা নিয়ে প্রতি শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত নিউজবাংলার ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার হচ্ছে ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

অনুষ্ঠান চলাকালে ০১৯৫৮০৫৬৬৬৮ নম্বরে সরাসরি ফোন করতে পারছেন দর্শকরা। এ ছাড়াও যে কোনো সময় ফোন করে সমস্যা জানাতে পারবেন ভুক্তভোগীরা।

নিউজবাংলার ফেসবুক পেজ www.facebook.com/nwsbn24 এবং ই-মেইল [email protected]এ মেসেজ পাঠানোরও সুযোগ রয়েছে।

আইনি সুবিধাবঞ্চিত আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

আরও পড়ুন: ‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় আইন’

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

বর্ণবাদী ফেসবুক!

বর্ণবাদী ফেসবুক!

নিয়োগ ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে বর্ণবাদী আচরণের অভিযোগ উঠেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। ছবি: এএফপি

তিনজন চাকরিপ্রার্থীর অভিযোগ, কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের আচরণ বৈষম্যপূর্ণ। প্রার্থীদের নিয়োগ বা পদোন্নতির যোগ্যতা যাচাইয়ে পদ্ধতিগতভাবে বর্ণবাদী আচরণ করে প্রতিষ্ঠানটি।

ফেসবুককে নিয়ে বিতর্কের তালিকায় এবার যোগ হলো বর্ণবাদ। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অনুসন্ধানী প্রতিষ্ঠান ইক্যুয়াল এমপ্লয়মেন্ট অপরচুনিটি কমিশন (ইইওসি) বলছে, নিয়োগ ও পদোন্নতির প্রশ্নে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে পদ্ধতিগত জাতি ও বর্ণবাদী আচরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ফেসবুকে তিনজন চাকরিপ্রার্থী এবং একজন ব্যবস্থাপকের আইনজীবীরা শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ তথ্য জানান।

বিষয়টি নিয়ে আগেই অনুসন্ধানে নামে ইইওসি। সংস্থাটির সন্দেহ, ফেসবুকের অভ্যন্তরীণ নীতিমালার কারণে বড় ধরনের বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বিপুলসংখ্যক মানুষ।

ইইওসি সাধারণত নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আবেদনকারীদের মামলা বা পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে সঙ্কট সমাধান করে। হাতেগোণা কিছু বিষয়কে ‘পদ্ধতিগত’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি। এর মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট ঘটনার অভিযোগ খতিয়ে দেখে কর্মীদের সবার হয়ে আইনি ব্যবস্থা নেয় এবং নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠানের তথ্য বিশ্লেষণে বিশেষজ্ঞ দলকে কাজে লাগায়।

ফেসবুকের অপারেশন্স প্রোগ্রাম ম্যানেজার অস্কার ভেনেসজি জুনিয়র এবং নিয়োগ আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়া দুই ব্যক্তি গত বছর জুলাইয়ে ইইওসির কাছে অভিযোগ করেন। এরপর ডিসেম্বরে নাম যুক্ত হয় চাকরির আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়া তৃতীয় অভিযোগকারীর।

প্রত্যেকেরই অভিযোগ, কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের আচরণ বৈষম্যপূর্ণ। প্রার্থীদের নিয়োগ বা পদোন্নতির যোগ্যতা যাচাইয়ে পদ্ধতিগতভাবে বর্ণবাদী আচরণ করে প্রতিষ্ঠানটি।

এ ব্যাপারে ইইওসির অনুসন্ধান কতোটা এগিয়েছে, তা জানা যায়নি। ফেসবুকের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগও আনেনি প্রতিষ্ঠানটি। তদন্ত শেষ হতে লাগতে পারে কয়েক মাস।

এ অভিযোগের বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

তবে প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র অ্যান্ডি স্টোন বলেন, সব কর্মী যেন নিরাপদ কর্মপরিবেশে সম্মানের সঙ্গে কাজ করতে পারেন, তা নিশ্চিতে ফেসবুক বদ্ধপরিকর। বৈষম্যপূর্ণ আচরণের যে কোনো অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে নেয় ফেসবুক। অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থাও নেয় সামাজিক মাধ্যমটি।

ফেসবুকের হিসাবে, যুক্তরাষ্ট্রে গত বছরের জুন পর্যন্ত নিয়োগ পাওয়া কর্মীদের ৩.৯ শতাংশ কৃষ্ণাঙ্গ।

ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি ও বিক্রির মাধ্যমে রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ রয়েছে ফেসবুকের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় আইন’

‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় আইন’

আইনি সুবিধাবঞ্চিত আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

সব ধরনের আইনি পরামর্শ ও সহায়তা দিতে নিউজবাংলার নিয়মিত আয়োজন ‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবারের বিষয় ‘নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় আইন’। প্রচারিত হবে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

শবনম ফারিয়ার সঞ্চালনায় শনিবার এ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার হবে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

আলোচনায় বিশেষজ্ঞ হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ব্যারিস্টার মিতি সানজানা ও কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মেহেরবা সাবরীন। অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার হবে পদ্মা ব্যাংকের সৌজন্যে।

‘আমার আইন, আমার অধিকার’ সম্পর্কে নিউজবাংলার এক মুখপাত্র বলেন, ‘আইন জানা নাগরিকের জন্য একান্ত প্রয়োজন। আইন ও আইনজীবী এই শব্দগুলো নিয়ে এক ধরনের ভীতি কাজ করে। তবে আইনের আশ্রয় লাভ করা এক জন নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার।

‘নিজের আইনগত অধিকার সম্পর্কে না জানলে যে কেউ কোনো বিষয়ে ভুল পরামর্শ দিয়ে আপনাকে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারে। কোনো নাগরিক রাষ্ট্রের কাছে কী কী সুযোগ-সুবিধার অধিকারী, সেটি যদি তিনি না জানেন, তাহলে তিনি ন্যায্য দাবি আদায় করতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘‘নাগরিকের আইনি অধিকার ও সুরক্ষার বিষয়টি সহজভাবে জানাতে কাজ করবে ‘আমার আইন, আমার অধিকার’। দেয়া হবে পরামর্শ। প্রয়োজনে তৃণমূল পর্যায়ে নাগরিকের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরাসরি আইনি সহায়তাও দেয়া হবে।’’

আইনি সুবিধাবঞ্চিত আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

বিনা মূল্যে আইনি পরামর্শ এবং সহায়তা পেতে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চোখ রাখুন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

অনুষ্ঠান চলাকালে ০১৯৫৮০৫৬৬৬৮ অথবা ০২৫৫০৫৫২৮৯ নম্বরে সরাসরি ফোন করতে পারবেন দর্শকরা। এ ছাড়াও যে কোনো সময়ে ফোন করে সমস্যা জানাতে পারবেন ভুক্তভোগীরা।

নিউজবাংলার ফেসবুক পেজ https://www.facebook.com/nwsbn24 এবং ইমেইল [email protected] এ মেসেজ পাঠানোরও সুযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

পাকিস্তানি তরুণীর ভিডিও ভারতেও ভাইরাল

পাকিস্তানি তরুণীর ভিডিও ভারতেও ভাইরাল

৫ সেকেন্ডের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর আলোচনায় ১৯ বছরের মোবিন। ছবি: এএফপি

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম কিংবা মাইক্রোব্লগিং সাইট ‍টুইটার খুললেই দেখা যাবে তরুণীর সংলাপের আদলে তৈরি শ শ ভিডিও। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের নজরও কেড়েছে এটি।

পার্টিকে মুখ ফসকে বলে ফেলেছিলেন ‘পাওরি’। সেই শব্দটির কারণেই ভাইরাল হয়ে গেছে পাঁচ সেকেন্ডের ভিডিও। পাকিস্তানি তরুণীর ধারণ করা ভিডিওটি এতই জনপ্রিয় হয়েছে যে, এ নিয়ে প্রতিবেশী দেশ ভারতেও চলছে তুমুল আলোচনা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম কিংবা মাইক্রোব্লগিং সাইট ‍টুইটার খুললেই দেখা যাবে তরুণীর সংলাপের আদলে তৈরি শত শত ভিডিও। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের নজরও কেড়েছে এটি।

আল জাজিরার প্রতিবেদন জানানো হয়, ১৯ বছরের ওই তরুণীর নাম দানানির মোবিন। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে বন্ধুদের নিয়ে ভিডিওতে তিনি বলেছিলেন, ‘ইয়ে হামারি কার হ্যায়, অওর ইয়ে হাম হ্যায়, অওর ইয়ে হামারি পাওরি হোরাই হ্যায়!’

বাংলায় শব্দগুলোর অর্থ দাঁড়ায়, ‘এটি আমাদের গাড়ি, আর এ হলো আমরা বন্ধুরা, আর এই আমাদের পার্টি চলছে।’

তরুণীর বলা ‘পাওরি’ শব্দটি ভারতের বড় ব্র্যান্ডগুলো বিজ্ঞাপনে ব্যবহার করছে। দানানিরকে অনুকরণ করে ভিডিও বানাচ্ছেন বলিউড তারকারাও।

বিবিসি উর্দুকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে দানানির জানিয়েছেন, তার ওই ছোট ভিডিওটি যে এত সাড়া ফেলবে সেটা তিনি কল্পনাও করেননি।

‘আমরা বেড়াতে গিয়ে মজা করছিলাম, গান শুনছিলাম। হঠাৎ কী মনে হলো, আমার ফোনটা বের করে ভিডিওটা বানালাম আর পোস্ট করলাম। বাকিটা ইতিহাস।

‘বিশেষ করে বিশ্বে যখন এত উত্তেজনা আর বিভাজনের পরিবেশ। আমার হালকা মেজাজে বানানো ভিডিওটা সীমান্তের ওপারের মানুষ উপভোগ করছে জেনে খুব ভালো লাগছে।’

গত ৬ ফেব্রুয়ারি বন্ধুদের সঙ্গে গাড়িতে করে বেড়াতে যাওয়ার ছোট ভিডিওটি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছিলেন দানানির। ছোট্ট ওই ভিডিও তাকে রাতারাতি সুপারস্টার বানিয়ে দিয়েছে। ইনস্টাগ্রামে এরই মধ্যে সেই পোস্ট প্রায় ৫০ লাখ মানুষ দেখেছে।

হ্যাশট্যাগ ‘পাওরি হোরাই হ্যায়’ এখন শুধু পাকিস্তানে নয়, ভারতেও ট্রেন্ডিংয়ে থাকা বিষয়গুলোর শীর্ষে।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

‘জান ও জবান’-এর ঘূর্ণিতর্ক ফেসবুকে

‘জান ও জবান’-এর ঘূর্ণিতর্ক ফেসবুকে

ব্যানারের এই 'জান ও জবান' নিয়ে ফেসবুকে চলছে বিতর্কের ঝড়। ছবি: সংগৃহিত।

কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদ সমাবেশের একটি ব্যানারে লেখা ছিল ‘জান ও জবানের স্বাধীনতা চাই’। আর এরপর থেকেই ‘জান ও জবান’ শব্দবন্ধ নিয়ে তোলপাড় চলছে ফেসবুকে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় আইনটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করছে লেখক, শিল্পী, সংস্কৃতিকর্মী ও একাধিক বামপন্থি সংগঠন। তবে এই আন্দোলনেই বিতর্ক উঠেছে একটি স্লোগানের দুটি শব্দ ঘিরে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে পাল্টাপাল্টি সমালোচনা। এমনকি আন্দোলনকারীদের মধ্যেই তৈরি হয়েছে দুটি পক্ষ।

মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর পরদিন ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে শাহবাগে বেলা ৩টায় ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ৪টায় সমাবেশ করেন লেখক, শিল্পী, সংস্কৃতিকর্মীরা। বিভিন্ন বামপন্থি সংগঠনের নেতা-কর্মীরাও ছিলেন সেখানে।

প্রতিবাদ সমাবেশের একটি ব্যানারে লেখা ছিল ‘জান ও জবানের স্বাধীনতা চাই’। আর এরপর থেকেই সেই ‘জান ও জবান‘ নিয়ে তোলপাড় চলছে ফেসবুকে।

বিতর্কের সূত্রপাত হয় বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায় এবং সুইডেন প্রবাসী লেখক ও উইমেন চ্যাপ্টার সম্পাদক সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসের সূত্রে।

এর মধ্যে দিলীপ রায়ের স্ট্যাটাসটি ছিল আন্দোলনের কর্মসূচি হিসেবে ‘গায়েবানা জানাজা'র আয়োজন নিয়ে। ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ৪২ মিনিটে দিলীপ রায় স্ট্যাটাস দেন, ‘সারাদিন মিটিং মিছিল করে আসার পর ফেসবুকে কূটক্যাচাল করতে ইচ্ছে করছে না। তারপরও শুধু একটা প্রশ্ন করতে চাই- এটি একটি সাধারণ জিজ্ঞাসা। অপরাধ নেবেন না।

গায়েবানা জানাজা যদি ধর্মীয় না হয়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি হয়ে থাকে, সেই কর্মসূচির নেতৃত্ব কি দিলীপ রায় দিতে পারবে?’

ভোর ৬টা ২৪ মিনিটে সুপ্রীতি ধর লেখেন, “জান ও জবান’-এর স্বাধীনতা চেয়ে আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে। এই দুটো শব্দই আমার কানে বাজছে। এতো বয়স হয়ে গেলেও মনে হয় না খুব বেশি বার/কখনও আমি এই দুটি শব্দ ব্যবহার করেছি। কথা বলার স্বাধীনতা চেয়েছি, লেখার স্বাধীনতা চেয়ে এসেছি এতোকাল। শব্দ, ভাষাও যে সাম্প্রদায়িক হয়, এ দুটো তার প্রমাণ।”

আন্দোলনে ‘জান ও জবান’ দুটি উদ্দেশ্যপূর্ণ শব্দের ব্যবহারকে ইঙ্গিত করে তার এই বক্তব্য সমর্থন করেন নেটিজেনদের অনেকে। সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসে আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ লেখেন, ‘এটা হচ্ছে সাম্প্রদায়িকতা। ধর্মকে ব্যবহারের সফটকোর কায়দা। মওলানা ভাসানি স্টাইল। কে করেছে? আমি শুনিনি।’

ইমতিয়াজ মাহমুদ একটি আলাদা পোস্টে লেখেন, ‘...জান-জবান নিয়ে কি আমার অসুবিধা আছে? না, বিষয়টা অসুবিধার নয়, আশঙ্কার। আশঙ্কাটা কিসের?...বাংলাদেশে একদল লোক আছে যারা মওলানা ভাসানিকে খুব পছন্দ করেন, যে কোন অবস্থায় ভারতের বিরোধিতা করেন আর যে কোন অবস্থায় আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করেন।...এরা কারা? আপনিই হিসাব করে দেখেন। বিএনপি জামাত এবং ওদের জোটের দলগুলি, সাবেক চীনপন্থি দল ও গ্রুপগুলি এবং এদের অনুগামী বা সমর্থক সমর্থকরা। এরা বাঙালিকে কেবল বাঙালি হিসাবে একটি জাতী হিসাবে দেখতে চায় না বা দেখতে পারে না, এরা বাঙালী মুসলমান ও বাঙালি হিন্দুর মধ্যে পার্থক্য করেন এবং বাংলাদেশকে বাঙালী মুসলমানের দেশ হিসাবে দেখতে পছন্দ করেন।

‘আমি মাওলানা ভাসানিকে পছন্দ করিনা। কেন করিনা? কারণ আমার জ্ঞান বুদ্ধিতে তিনি একজন সাম্প্রদায়িক নেতা ছিলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা প্রশ্নে তাঁর ভূমিকা একটু ম্লান ছিল এবং স্বাধীনতার পর দেশের সংবিধানে তিনি ধর্মনিরপেক্ষতার পরিবর্তে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম মানুষের বিশ্বাসের প্রতিফলন দেখতে চেয়েছিলেন। চীনের প্রতি আনুগত্য ও ভারতের প্রতি বিদ্বেষ তাঁর রাজনৈতিক অবস্থানকে একটু জটিল তো করেছিলই, তাঁর উপর আবার তাঁর নিজের পীর হিসবে মুরিদ গ্রহণ করা, মানুষকে তাবিজ দেওয়া, পড়াপানি দেওয়া, এইসব আছে। আবার বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর ঘাতকদের প্রতি তাঁর ব্লেসিং, জিয়াউর রহমানকে সমর্থন, জিয়াউর রহমানের সমর্থন নিয়ে লং মার্চ এইসবও আছে।’

ইমতিয়াজ মাহমুদ লেখেন, ‘...আমি মনে সেক্যুলার মানুষ, আমি চাই দেশ সেক্যুলার হোক, রাষ্ট্র চলুক ইহজাগতিক নিয়মে। আমি মানুষকে হিন্দু মুসলমানে ভাগ করতে চাই না, বাঙালিকেও হিন্দু মুসলমানে ভাগ করতে চাই না। আমি মনে করিনা যে মাদ্রাসা শিক্ষকরা অনেক স্মার্ট আর রবীন্দ্রনাথ আমার শত্রু। আমি দেশের সমাজতন্ত্র চাই, দুনিয়াজুড়ে সমাজতন্ত্র চাই, বাজার অর্থনীতির পতন চাই। আমি মনে করি সমাজতন্ত্র অর্জন সম্ভব, সমাজতন্ত্র প্রয়োজন এবং বাজার অর্থনীতি উৎখাত করা সম্ভব। কঠিন বটে, কিন্তু অসম্ভব নয়। আমি এটাও মনে করি যে মার্ক্স সাহেবের থিসিস এখনও সঠিক। এবং আমি চাই না রাজনীতিতে কেউ ধর্মের ব্যবহার করুক।’

বাকস্বাধীনতা আদায়ের জন্য যে মঞ্চ তৈরির চেষ্টা, তাতে ‘জান ও জবান’ শব্দের ব্যবহার উদ্দেশ্যমূলক এবং সাম্প্রদায়িক মনে করে স্ট্যাটাস দেন দৈনিক সমকালের ফিচার সম্পাদক ও কবি মাহবুব আজীজ, দৈনিক দেশ রূপান্তর-এর যুগ্ম সম্পাদক গাজী নাসিরুদ্দিন খোকনসহ অনেকে।

মাহবুব আজীজ লেখেন, “কথা বলবার অধিকার আদায়ের জন্য যে মঞ্চ তৈরির চেষ্টা-- তাতে ‘জান ও জবান’ শব্দের ব্যবহার সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেয়। ভাষা সুতীব্রভাবে রাজনৈতিক -- জান, জবান বা সিনা, সিলসিলা -- এসব শব্দ যারা ব্যবহার করে; তাদের রাজনৈতিক গন্তব্য অবশ্যই সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে।”

‘জান জবানের স্বাধীনতা চাই’ দাবি তুলে আন্দোলনকারীরা এর মধ্যে খাটিয়া মিছিল ও গায়েবানা জানাজা করলে সাংবাদিক গাজী নাসিরুদ্দিন খোকন স্ট্যাটাস দেন, “বামপন্থীরা গায়েবানা জানাজা করল। এটিতো আর মৃত ব্যক্তির আত্মার শান্তি কামনায় করা হয়নি। রাজনৈতিক কর্মসূচি ছিল। তাতে দেশের অন্য ধর্মের লোকদের এক্সক্লুড করে দেয়া হল। তারপর নাকি আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে ‘জান ও জবান’ রক্ষার দাবি নিয়ে। দৃশ্যত ভাসানী ভাসানী মনে হলেও এর স্পিরিচুয়াল গুরু সন্দেহাতীতভাবে ফরহাদ মজহার। ভাষার বিউপনিবেশিকরণের নামে ধর্মবিদ্বেষ ছড়ানোই এই স্লোগানের অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য। মজার ব্যাপার ফরহাদের এই সমস্ত বিদ্বেষের সাবস্ক্রাইবার হচ্ছে বামপন্থী পরিচয় দেওয়া প্রতিক্রিয়াশীলরা। বাংলাদেশের রাজনীতিতে বামপন্থীরাও যদি ইনক্লুসিভ হতে না পারে তাহলে ভেদবুদ্ধিই রাজনীতি শাসন করবে। দিব্যচোখে এদেশের পরিণতি দেখা যায়। আরেকটা পাকিস্তান ইজ ইন দ্য অফিং।”

সোশাল মিডিয়া ব্যবহারকারী অনেকেই এসব স্ট্যাটাসে তাদের প্রতিক্রিয়া ও মতামত দেন। সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসে খান আসাদ নামের একজনের মন্তব্য ছিল, “ব্যাপারটা খেয়াল করেছি। প্রথমে ফরহাদ মজহার এলো ‘জ্বিহাদ হচ্ছে শ্রেণীসংগ্রাম’ তত্ত্ব নিয়ে। তারপর পিনাকী ভটচাজ এলো সংখ্যাগুরু ‘মুসলমানের’ সাথে ঐক্য করার ‘কৌশল’ বোঝাতে। এরপর এখন ‘মুসলমানদের’ সাথে রিলেট করা যায়, এমন স্লোগান খোঁজা হচ্ছে। হোক এগুলো। পার্ট অফ দি প্রসেস। কিন্তু আন্দোলনে ‘সাম্প্রদায়িক ভাষা’ সম্পর্কে প্রশ্ন তোলায় যে উষ্মা ও গালাগাল দেখছি, সেটা আমাকে খুবই বিস্মিত করেছে। এই ধরনের বুদ্ধিবৃত্তিক সহিঞ্চুতা তো ফ্যাসিস্টদের থাকে।”

‘জান ও জবান’-এর এই তর্কের সূত্র ধরে লেখক ও ব্লগার অমি রহমান পিয়াল লেখেন, “বাংলা ভাষার মাসের শেষ দিনটায় দারুণ এক বলাৎকার উপহার দিলো বিপ্লবীরা। তারা মুশতাকরে ভাষা সৈনিক বইলা দাবি করছে, সেটা করতেই পারে। কিন্তু ইনকিলাবি জোশে নতুন কিছু শব্দ যোগ করছে বাংলার রাজনীতিতে, শ্লোগানে, পোস্টারে। যদিও তাগো নেতারা বলতেছে ডানপন্থী জামাত শিবির ও বিম্পি যেন তাদের দূরের না ভাবে এবং ইসলামী আন্দোলনকারীরা যেন নাস্তিক বইলা তাগো দূরে ঠেইলা না দেয় সেই নৈকট্য আনতেই তারা এইসব ভাষা প্রয়োগ করতেছে। তো আমরা ইনসানিয়াত, ইনসাফ, নফসানিয়াত, মাগরমছলি, জান কি বাজি ইত্যাদি অনেক নতুন জবান শিখলাম আলহামদুলিল্লাহ। পরে গুগল মাইরা দেখি এইসব নামে সুপারহিট সব উর্দু সিনেমা আছে! মারহাবা...”

এর বিপরীত পক্ষও তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখান ফেসবুকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরছে হেমাঙ্গ বিশ্বাস, সলিল চৌধুরী আর আব্দুল লতিফের গানের লিরিক, নজরুলের রাজবন্দীর জবানবন্দিসহ নানা সাহিত্যিক রেফারেন্স। মোটা দাগে দুই ধরনের বক্তব্য ও বিশ্লেষণ পাওয়া যাচ্ছে এসব স্ট্যাটাসে।

এক পক্ষ ‘সাধারণ মানুষের মুখের ভাষা’কে আন্দোলনের স্লোগানে ব্যবহারের সমালোচনাকারীদের ‘সাম্প্রদায়িক ও সরকারপন্থি’ হিসেবে অভিযুক্ত করছেন। আরেক পক্ষ ভাষার চিরকালীন পরিবর্তনশীলতা, বিদেশি শব্দের সাথে সহজাত মিথস্ক্রিয়া এবং এর ঐতিহাসিক রাজনৈতিক ব্যবহারের বিভিন্ন বিষয় সামনে আনছেন।

লেখক, অ্যাক্টিভিস্ট ও কবি ফারুক ওয়াসিফ লেখেন, ‘জান ও জবান যাদের কলুষিত, তারা একদিন শহীদ মিনারকেও সাম্প্রদায়িক বলবে, যেহেতু শহীদ আরবী আর মিনার ফারসি ভাষা থেকে আসা বাংলা শব্দ।’

কবি সোহেল হাসান গালিব ফেসবুকের এই তর্কে ‘ভাষা-সাম্প্রদায়িকদের’ উদ্দেশ করে “ভাষা-সাম্প্রদায়িকতা: প্রসঙ্গ জান ও জবান” শিরোনামে পোস্টে লেখেন, “কিছুদিন আগে আমার এক বন্ধু আক্ষেপসহ আমাকে জানালেন তিনি কবিতায় ‘আব্বা’ শব্দ ব্যবহার করেছেন বলে এক প্রগতিশীল ‘হিন্দু’ কবি বলেছেন, লেখাটা সাম্প্রদায়িক হয়ে গেছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘আব্বা’ শব্দের রিপ্লেসমেন্ট হিশেবে তার সেকুলার সাজেশনটা কী? বন্ধু বললেন, সে তাকে ‘বাবা’ লিখতে বলছে। আমি তখন বললাম, তাকে বলেন ‘বাবা’ শব্দটা তো তুর্কি। আরবির বদলে তুর্কি লেখাটা কি ঠিক হবে?…’

তিনি লেখেন, “জান ও জবান’-এর বিরোধিতা যারা করছেন, তারা সেই পুরনো সাম্প্রদায়িক ব্যাধিতে আক্রান্ত। এ যুগের ভারতচন্দ্র হিশেবে এইটুকু আমি নিশ্চিত করতে পারি।”

কবি ব্রাত্য রাইসু স্ট্যাটাস দেন, “জান’ ও ‘জবান’ শব্দ একসঙ্গে বসার কারণে এর ইসলামি উৎস প্রকট হইয়া উঠছে। তাতে ক্ষতি কী? এই শব্দ দুইটার কারণে যারা আন্দোলনে অনীহ তারাই সাম্প্রদায়িক।

‘শব্দের অবশ্যই মুসলিম ও হিন্দু উৎস আছে, থাকবে। তার ব্যবহারকারী হিসাবে আপনি যখন মুসলমান তাই হিন্দু শব্দ ব্যবহার করবেন না বইলা ঘোষণা দিবেন তখন আপনি সাম্প্রদায়িক। আবার হিন্দু হইলে মুসলমান শব্দ ব্যবহারে আপত্তি যখন জানাইতেছেন তখনও আপনি সাম্প্রদায়িক। কিন্তু যখন আপনি একই সঙ্গে মুসলমান ও ইসলামি শব্দে আপনার আপত্তি তখন আপনি দুই নম্বর। আপনি পরিচয় লুকাইতেছেন। তাইলে কারা সাম্প্রদায়িক ও ভণ্ড?

‘যারা জান ও জবানে আপত্তি করতেছেন, তারাই। ’

‘জান ও জবান’ শব্দবন্ধের বিরোধিতার সমালোচনা করে দেশ রূপান্তরের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক আরিফুজ্জামান তুহিন লেখেন, ‘সুপ্রীতি ধর কহিলেন!! তসলিম নাসরিন সরাসরি বিজেপিকে সমর্থন করেন। তসলিমার সমর্থক নারীবাদীরাও বিজেপি সংঘ পরিবারের সমর্থক কট্টোর হিন্দু মৌলবাদী। এতে সুপ্রীতি ধর কেন গোস্যা হলেন বুঝতে পারছিনা। আপনি একটা আন্দোলনকে সাম্প্রদায়িক বলে দেগে দিলেন সেটা তুচ্ছ ঘটনা? এভাবেইতো ভারতে কৃষক আন্দোলনকে টুকরে টুকরে গ্যাং, খালিস্তান, মাওবাদী দেগে দিচ্ছে মোদি বিজেপি সংঘ পরিবার।

তিনি লেখেন, “আমরা জানি কারা আমাদের মুখ চেপে ধরতে চায়? আপনার মুখের ভাষা ‘অতি বাম’ আসলে আপনার নেত্রীর ভাষা।

আমরা জানি আপনাদের রসুনের কোয়াগুলো ঠিক কোথায় এসে বাসা বেধেছে। আমরা অপেক্ষা করি সেদিনের, যেদিন কৃষক ও শ্রমিক তার ভাষা দিয়ে আপনার জবানের জবাব দেবে। আর কান্নাকাটি কইরেন না। আন্দোলন করছেন যারা তারা আন্দোলনই করবে,যারা মামলা কারাগারে তারা তা বহন করবে। দুরে থেকে নিরাপদে থেকে তারা নারীবাদ বেঁচবে না। কারণ তারা শ্রম বেচতে জানে, আর্দশ না।”

অন্যদিকে জার্মান প্রবাসী কবি ও অ্যাক্টিভিস্ট, সাহিত্য পত্রিকা অংশুমালীর সম্পাদক জোবায়েন সন্ধী সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাস এর জবাবে লেখেন, “চশমাটা খুলে ফেলুন! ওরে, তোরা কেউ আর যাসনে ওই ‘শহীদ’ ‘মিনার’-এ। ‘জান’ কিংবা ‘জবান’ এই শব্দগুলো যে সাম্প্রদায়িক, এটা সুপ্রীতি ধর দাবি করেছেন। নিজেকে নারীবাদি দাবি করা সুপ্রীতি ধর উওমেন চ্যাপ্টার নামক পোর্টাল চালান। এই নারী যে ভাষা ও সাম্প্রদায়িক বিশেষজ্ঞ, সেটা আজ নতুন করে জানতে পারলাম।’’

জোবায়েন সন্ধী লেখেন, “তিনি (সুপ্রীতি) যে আওয়ামী লীগের পারপাস সার্ভ করেন সেই ‘আওয়ামী’ শব্দটায় কোনো সাম্প্রদায়িক গন্ধ পাননা। হক ও মজলুম শব্দে সাম্প্রদায়িক গন্ধ পেলেও তাঁর মেয়ের নামের শেষে ‘হক’ থাকায় তিনি কোনো সাম্প্রদায়িক গন্ধ পাননা।

সুপ্রীতির দাবি অনুযায়ী ‘ইনকিলাব’ কিংবা ‘জিন্দাবাদ’ তো মহা সাম্প্রদায়িক শব্দ!...”

এর মধ্যেই ব্লগার ও গণসংহতি আন্দোলনের কর্মী সৈকত মল্লিক স্ট্যাটাস দেন, “জান ও জবানের স্বাধীনতা চাই। ‘নফসানিয়াত’ নিপাত যাক, ‘ইনসানিয়াত’ মুক্তি পাক। ইনসাফ কায়েমের লড়াইয়ে শামিল হোন।”

বামপন্থী অ্যাক্টিভিস্ট ও লেখক ফিরোজ আহমেদ ফেসবুকে লেখেন, “ধাড়িগুলোকে নামিয়েছে মোস্তাক ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করতো, এই ব্রহ্মাস্ত্র নিয়ে। অতীতে বেশ কাজে এলেও এবারে ওষুধ ধরেনি। তখন ছানাপোনাগুলোকে নামিয়েছে ঠিক ১৮০ কৌনিক দূরত্বের ‘জান-জবান’ উর্দু, এই ঢাল নিয়ে।

“আওয়ামী’ ‘লীগের’ এই দুইটি আলাদা ‘মোসাহেব’ বাহিনীই বেশ পারঙ্গম। আরে ভাই, জান-জবান শুনে উর্দু মনে হয়, তোমাদের কেউ মানা করেছে ‘বাকস্বাধীনতা রক্ষা করো, মোস্তাকের খুনীদের বিচার করো, অবৈধ দখলদার আসন ছাড়ো’ এইভাবে শুদ্ধ বাংলায় সমাবেশ ডাকতে? নিমন্ত্রণ পেলে আমিও যাবো, বিশুদ্ধ বাংলায় বক্তব্য দিয়ে আসবো।”

ফিরোজ আহমেদ ফেসবুকে লেখেন, “কী জাবর কেটে তারা সময় কাটায়, সেটা দেখেই তো বোঝা যায় কারা আসলে কোন প্রাণী, কী তারা চায়। *অত্যন্ত লজ্জিত ‘মোসাহেব’ এই ফার্সী শব্দটা রেখে দিতে হলো বলে। চাটুকার, দলদাস, দলকানা ইত্যাদি বাংলা শব্দকে আমার কাছে একটু আক্রমণাত্মক আর অভদ্র মনে হয়। ক্ষমা করবেন বাংলাভাষীবৃন্দ।”

বাংলা ভাষায় আরবি-ফারসি-উর্দু-তুর্কি শব্দের সহজাত ব্যবহার এবং জান-জবান এর ব্যবহারকে ‘সাম্প্রদায়িক’ হিসেবে আখ্যানের পেছনের মনস্তত্ত্ব নিয়ে বিশ্লেষণমূলক স্ট্যাটাস দিয়েছেন অনেকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ আজম ‘জান ও জবান’ নিয়ে ফেসবুকের হুলুস্থুলে লেখেন, ‘‘বাজারে ‘জান’ ও ‘জবান’ নিয়া হুলুস্থুল চলতেছে। এ লাইনে করে-খাওয়া পাবলিক হিসাবে দুই-এক কথা বলা জরুরি মনে করছি। এক. এ আলাপটা আদতে ‘বিদেশি’ ভাষার আলাপ। যারা দশ ক্লাস ডিঙ্গাইছেন, তাদের সবারই মনে থাকার কথা, বাংলা ব্যাকরণ বইতে ‘শব্দের উৎসগত শ্রেণিবিভাগ’ বলে এক চিজ আছে। এটাও ভুলে যাওয়ার কারণ নাই, ইংরেজি ব্যাকরণে এ লাইনে কোনো বাতচিত ছিল না।"

তিনি লেখেন, "জটিলতায় না গিয়া কই, আপনারা পিছন ফিরা মনে করতে পারবেন, বাংলা ব্যাকরণটা সাজানো হইছে এই ‘বিদেশি’ আর ‘অবিদেশি’ ক্যাটেগরি বা বর্গ দিয়া। এর পেছনের রাজনীতি ও রাজনৈতিক র্অথনীতি বিস্তর আছে। সেদিকে না গিয়া বলি, ‘বিদেশি’ শব্দ বইলা ভাষায় আসলে কিছু থাকে না। এটা ভাষাবিজ্ঞানের খুবই প্রাথমিক আলাপ। ‘বোতল’ শব্দটা বিদেশি নয়; কারণ, দুনিয়ার কোনো ভাষায় এ রূপতত্ত্ব ও ধ্বনিতত্ত্বে ব্যাখ্যাযোগ্য কোনো শব্দ নাই। ইংরেজিতে যে নাই, তা আপনারা সকলেই জানেন। কাজেই যারা ‘বিদেশি’ ক্যাটেগরিতে আলাপটা করেছেন, পক্ষে বা বিপক্ষে, বাংলা হইয়া গেছে বা হয় নাই ইত্যাদি বলে, তারা জেনে বা না জেনে ইতিমধ্যে সাম্প্রদায়িকতার খপ্পরে থাকা ব্যাকরণের খপ্পরে পড়েছেন। এখানে বলে রাখি, ‘বিদেশি’ কথাটা শুধু বাংলা ব্যাকরণের না, ইতিহাস ও অন্য অনেক শাস্ত্রেরও ঘোষিত বা অঘোষিত ভিত্তিভূমি। কাজেই সংস্কৃতি, রাজনীতি, সাংস্কৃতিক রাজনীতি ইত্যাদি চর্চায় আপনি এ গোলমাল এড়াতে চাইলে ‘সাধু’ সাজলেই কেবল হবে না, এই সাম্প্রদায়িক ‘বিদেশি’ ধারণাটাকেই গুড়িয়ে দিতে হবে। দুই. এ আলাপে ‘আরবি’ ও ‘ফারসি’ শব্দ দুটো দেদার ব্যবহৃত হয়েছে। ভুল। দুশ বছর ধরে সবচেয়ে ভদ্রলোকেরাও কথাটা এভাবে বলায় এখনকার ভদ্রলোকেরা কথাগুলো ব্যবহার করেছেন, আর দাবি করেছেন, তিনি আরবি-ফারসিতে সমস্যা মনে করছেন না, কাজেই তিনি অসাম্প্রদায়িক।"

অধ্যাপক আজম লেখেন, "আসলে পুরা আলাপটাই ভয়াবহভাবে গোলমেলে। বাংলায় ব্যবহৃত এসব শব্দের সাথে ‘আরবি-ফারসি’র সম্পর্ক খুবই সামান্য অথবা একেবারেই নাই। যে ভাষা থেকে বাংলা এবং ভারতীয় অন্য অসংখ্য ভাষায় শব্দগুলো ঢুকেছে সে ভাষাটির নাম হিন্দুস্থানি -- ইংরেজির আগে ভারতের সবচেয়ে প্রতাপশালী লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা। এ কথা মাথায় নেয়ার সাথে সাথে আপনি দুশ বছরের এ বাতচিতের গোড়ার ব্যারামটা বুঝে ফেলবেন। ‘আরবি-ফারসি’ ‘বিদেশি’ ভাষা এবং প্রধানত মুসলমানদের সাথে যুক্ত। হিন্দুস্থানি খাঁটি ভারতীয় মাল, এবং এসেন্সিয়ালি ভারতের হিন্দু-মুসলমানসহ সব জনগোষ্ঠীর সাথে যুক্ত। কাজেই হিন্দুস্থানিকে ভাসুর বানাইয়া ‘আরবি-ফারসি’র নাম জবানে এস্তমাল করতে পারলেই একসাথে অনেকগুলা কেল্লা ফতে করা যায়। গত দুশ বছর ধইরা এ ঘটনা নানা ফর্মে ঘটতেছে। যারা ফেসবুকের আলাপ ফলো করেছেন, তাদের ব্যাপারটার ব্যাপকতা বুঝতে দেরি হওয়ার কথা না। ৩। অনেকে ভাষার সাথে সাম্প্রদায়িকতা, রাজনীতি ইত্যাদির সম্পর্ক নাই বলে ফতোয়া বিতরণ করেছেন। ভালো নিয়তেই করেছেন। তাদের জন্য শুভকামনা।"

তিনি লেখেন, "এরা শুধু একটাই সমস্যা করেছেন। ভাষাকে জামার মতো ভেবেছেন, যাকে ধুয়ে-মুছে সাফ-সুতরা করিয়ে নেয়া যায়, এবং চাইলে যে কোনো সুগন্ধী মাখিয়ে অন্য ফ্লেবার দেয়া যায়। না। ভাষা ওই জিনিস না। এটা জীবনের প্রধান প্রকাশ; কাজেই জীবনের মাপই এর মাপ। জীবনে যা যা আছে ভাষাতেও তার সবই আছে।

এ দিক থেকে যারা ‘জান’ ও ‘জবান’ শব্দের একত্র-ব্যবহারে ভিরমি খেয়েছেন, তাদের পজিশন, আমি বলব, রাজনৈতিকভাবে শুদ্ধ নাও হতে পারে, কিন্তু ভাষার চরিত্রের দিক থেকে বিলকুল সহি। এ ব্যবহার রাজনৈতিকভাবে, বিশেষত সাংস্কৃতিক রাজনীতির দিক থেকে, কাজে কাজেই ক্ষমতা-সম্পর্কের দিক থেকে, অবশ্যই তাৎপর্যপূর্ণ। ”

কবি মজনু শাহ স্ট্যাটাস দেন, “Bengali words, come from others!

চায়ের কাপে বিস্কুট ডুবিয়ে খাওয়ার সময় হঠাৎ মাথায় এল যে এই চা চীনা শব্দ। আবার বিস্কুট ফরাসি শব্দ। বিস্কুটের সাথে থাকা চানাচুর হিন্দি। চায়ে যে চিনি ও পানি থাকে, সেখানে পানি হিন্দি । আবার চা ভর্তি পেয়ালাটা ফারসি কিন্তু কাপটা ইংরেজি। এদিকে ইংরেজি শব্দটাই আবার পর্তুগিজ।”

তিনি লেখেন, ‘চা চীনা হলেও কফি কিন্তু তুর্কি শব্দ। আবার কেক পাউরুটির কেক ইংরেজি, পাউরুটি পর্তুগীজ। খানাপিনায় যাই। বলে রাখি, খানাপিনা হিন্দী আর দাম গ্রীক। রেস্তোরাঁ বা ব্যুফেতে গিয়ে পিৎজা, বার্গার বা চকোলেট অর্ডার দেয়ার সময় কখনো কি খেয়াল করেছেন, রেস্তোরা আর ব্যুফে দুইটাই ফরাসী ভাষার, সাথে পিৎজাও। পিৎজায় দেয়া মশলাটা আরবি। মশলায় দেয়া মরিচটা ফারসি!

বার্গার কিংবা চপ দুটোই আবার ইংরেজি। কিন্তু চকোলেট আবার মেক্সিকান শব্দ। অর্ডারটা ইংরেজি। যে মেন্যু থেকে অর্ডার করছেন সেটা আবার ফরাসী। ম্যানেজারকে নগদে টাকা দেয়ার সময় মাথায় রাখবেন, নগদ আরবি, আর ম্যানেজার ইতালিয়ান। আর যদি দারোয়ানকে বকশিস দেন, দারোয়ান ও তার বকশিস দুটোই ফারসি।…

‘পুরো স্ট্যাটাস মনে না থাকলে অন্তত এটা মনে রাখবেন যে মন শব্দটা আরবি। নামে আসি। মজনু (মাজনুন) আরবি, শাহ ফারসি, বাংলা অর্থ, পাগল প্রেমিকের মাজার/দরগাহ । দরগাহ আবার ফারসি। শব্দের কেচ্ছা-কাহিনী এখানেই খতম। তবে কেচ্ছাটা আরবি, কাহিনীটা হিন্দি, উভয়ের খতমটা আরবিতে। মাফ চাইলাম না বা সরি বললাম না, কারণ মাফটা আরবি আর সরিটা ইংরেজি।’

কবি রক মনু লেখেন, “গোরস্থান বা হিন্দুস্থান নাকি গোরস্তান আর হিন্দুস্তান? জে কোনটাই হইতে পারে, কিন্তু কি আছিল আর কেমনে আর কেন পাল্টাইলো অনেকের লেখায়, শেই ইতিহাশটা মজার!

“আরো দুয়েকটা শব্দও আনা জাইতে পারে আলাপে; নিশিত বা ভোমর নাকি নিশিথ আর ভ্রমর? ছিলেট/মৌলভিবাজারের ভানু শেখের লেখা গান আছিলো, ‘নিশিতে জাইও ফুলবনে রে ভোমরা...’। এইটা চুরি করছিলেন জসিমউদ্দিন; চুরি কেন কইলাম? ভানু শেখের গানে তার দস্তখত আছিলো, লালনের গানে জেমন থাকে না, ‘শিরাজ শাই ডেকে বলে লালনকে...’ তেমন দস্তখত বা আরো আগে ‘কাশিরাম দাশ ভনে...’, তেমনটা রেওয়াজ আছিলো শেই জামানায়; আশলে এই জামানায়ও, জামানার আলাপটা ভুয়া, এখনো বাউল আর ফকিরা গানে আকছার পাইবেন এমন, আপনের টাইপের মামলা এইটা, জামানার ততো না!...’’

লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট পারভেজ আলম লেখেন, “বদলোকে কয় বাঙলা ভাষার কি জাত এই সংসারে? ভাষার কোন জাত নাই এ সংসারে। বাঙলা ভাষারও নাই। বাঙলা ভাষার দিকে তাকাইতে হবে প্রেমিকের মতো। বাঙলা ভাষার মধ্যে হাজির থাকা বিভিন্ন বংশের শব্দ ভান্ডারকে তখন আপনার আপন মনে হবে। যারা ভাষার দিকে জাতিবাদী বা সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিতে তাকান, তারা বিভিন্ন শব্দের মধ্যে হিন্দুয়ানী, মুসলমানি, দেশী, বিদেশী এমন নানান রকম পরিচয়ই খালি খুঁজে পান। শব্দের মধ্যে তারা দেখেন খালি ‘জাতের চিহ্ন’।

ভাষারে পৈতা পরাইতে চাওয়া অথবা সুন্নতে খতনা করাইতে চাওয়া সাম্প্রদায়িকদের গায়ে জ্বালা ধরিয়ে দেবার জন্যে, নিজ নিজ পক্ষকে সাম্প্রদায়িক-জাতিবাদীদের প্রভাব মুক্ত রাখার জন্যে বাঙলা ভাষায় হাজির থাকা সকল শব্দকে ভালবাসুন, বেশি বেশি ব্যবহার করুন। নিজের ভাষার প্রাচুর্যকে কবুল করুন। তখন দেখবেন যে - জান ও জবান - এমন আরো কতো স্লোগান - টুপ করে, হুট করে, ধপ করে, অথবা একটা নাদের মতো করে - নাজেল হতে থাকবে আমাদের ভাষার মধ্যে। …”

কবি আলতাফ শাহনেওয়াজ লেখেন, “জান’, ‘জবান’–এর সমস্যা কি? ভাষা ও শব্দকে কেন সাম্প্রদায়িকরূপে দেখা হবে? আমরা মাঝেমাঝেই বলি যে, ‘আমার কণ্ঠ রোধ করা হচ্ছে।’

একই কথা আবার এভাবেও বলি যে, ‘আমার জবান বন্ধ করতে চাও?’ এই যে একবার ‘কণ্ঠ’ আর একবার ‘জবান’ ব্যবহার করা গেল, এতে—এই দুই শব্দের মধ্য দিয়ে কি কোনো সাম্প্রদায়িক মনোভাবকে নির্দিষ্ট করা গেল? যাচ্ছে?

মনে হয় না। একেবারেই মনে হয় না। আমরা যেমন ‘জল’ বলি, আবার ‘পানি’ও বলি। এটা আমাদের ভাষা বৈচিত্র্যের অংশ।…”

এর বাইরে এই তর্কের ঊর্ধ্বে উঠে আন্দোলনের মূল ইস্যুতে জোর দেয়ার তাগিদও দিয়েছেন অনেকে।

কলামিস্ট, সাংবাদিক ও লেখক মনজুরুল হক স্ট্যাটাস দেন, “প্রশ্ন হচ্ছে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন’ বাতিল করতে হবে। এটা বাতিল হলে কী আর নির্যাতন-নিপীড়ন হবে না? অবশ্যই হবে। সেসবের জন্য গন্ডায় গন্ডায় আইন আছে। তারপরও এই কালো আইন বাতিলের আন্দোলন করতে হবে। আন্দোলনের আগে ‘রিদমিক স্লোগান’ হিসেবে এসেছে- ‘জান ও জবানের স্বাধীনতা চাই’। এই স্লোগানকে কেউ কেউ ‘সাম্প্রদায়িকতা দোষে দুষ্ট’ বলছেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের বাক-বিতণ্ডা চরমে। মধ্যিখানে গুরুত্ব হারাল মূল ইস্যু-কুখ্যাত ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন’ বাতিলের দাবী।

তিনি লেখেন, ‘এই স্লোগানসম্বলিত পোস্টারে কুখ্যাত আইনটি বাতিলের দাবী নেই। এটাই হওয়ার কথা। আপনারা বলবেন; ভাষার আবার ধর্ম কি? আছে, আছে। মজহার সায়েব যখন জিহাদকেই শ্রেণিসংগ্রাম বলে বিভ্রান্ত করেন, তখন সেটা ধর্মের কোটিং দিয়েই হয়। শব্দ যদি নিরীহ আর নিরপরাধ হতো তাহলে সর্বহারা শ্রেণির হাতে বন্দুক উঠলে আপনারা রে রে করে ওঠেন কেন?...’

স্ট্যাটাসের শেষ অংশে তিনি লেখেন,

‘আপনারা বন্দুকের সামনেও যেতে পারেন না।

আপনারা বন্দুক হাতে নেওয়া মানতে পারেন না।

কী করে জান-জবানের স্বাধীনতা আদায় করবেন?’

এই প্রতিবেদনে ফেসবুকের স্ট্যাটাসের বানান ও ভাষারীতি একই রাখা হয়েছে। তবে কোনো কোনো দীর্ঘ স্ট্যাটাস সংক্ষিপ্ত আকারে দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘ইভ টিজিংয়ের আইনি প্রতিকার’

‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবার ‘ইভ টিজিংয়ের আইনি প্রতিকার’

আইনি সুবিধাবঞ্চিত আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

সব ধরনের আইনি পরামর্শ ও সহায়তা দিতে নিউজবাংলার নিয়মিত আয়োজন ‘আমার আইন, আমার অধিকার’-এ এবারের বিষয় ‘ইভ টিজিংয়ের আইনি প্রতিকার’ প্রচারিত হবে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

শবনম ফারিয়ার সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার হবে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

আলোচনায় বিশেষজ্ঞ হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ব্যারিস্টার মিতি সানজানা ও কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মেহেরবা সাবরীন। অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার হবে পদ্মা ব্যাংকের সৌজন্যে।

আইনি সুবিধাবঞ্চিত, আর্থিকভাবে অসহায় ভুক্তভোগীরা এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইনি সহায়তা চাইলে তাদের পাশে দাঁড়াবে নিউজবাংলার ‘আমার আইন, আমার অধিকার’।

বিনা মূল্যে আইনি পরামর্শ এবং সহায়তা পেতে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চোখ রাখুন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

‘আমার আইন, আমার অধিকার’ সম্পর্কে নিউজবাংলার এক মুখপাত্র বলেন, ‘আইন জানা নাগরিকের জন্য একান্ত প্রয়োজন। আইন ও আইনজীবী এই শব্দগুলো নিয়ে একধরনের ভীতি কাজ করে। তবে আইনের আশ্রয় লাভ করা এক জন নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার।

‘নিজের আইনগত অধিকার সম্পর্কে না জানলে যে কেউ কোনো বিষয়ে ভুল পরামর্শ দিয়ে আপনাকে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারে। কোনো নাগরিক রাষ্ট্রের কাছে কী কী সুযোগ-সুবিধার অধিকারী, সেটি যদি তিনি না জানেন, তাহলে তিনি ন্যায্য দাবি আদায় করতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘‘নাগরিকের আইনি অধিকার ও সুরক্ষার বিষয়টি সহজভাবে জানাতে কাজ করবে ‘আমার আইন, আমার অধিকার’। দেয়া হবে পরামর্শ। প্রয়োজনে তৃণমূল পর্যায়ে নাগরিকের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরাসরি আইনি সহায়তাও দেয়া হবে।’’

অনুষ্ঠান চলাকালে ০১৯৫৮০৫৬৬৬৮ অথবা ০২৫৫০৫৫২৮৯ নম্বরে সরাসরি ফোন করতে পারবেন দর্শকরা। এ ছাড়াও যে কোনো সময়ে ফোন করে সমস্যা জানাতে পারবেন ভুক্তভোগীরা।

নিউজবাংলার ফেসবুক পেজ www.facebook.com/nwsbn24 এবং ই-মেইল [email protected] এ মেসেজ পাঠানোরও সুযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

অস্ট্রেলিয়ায় সংবাদ প্রকাশকদের অর্থ দিতে হবে ফেসবুক গুগলকে

অস্ট্রেলিয়ায় সংবাদ প্রকাশকদের অর্থ দিতে হবে ফেসবুক গুগলকে

ফেসবুকের সঙ্গে বিরোধ মেটাতে গত শুক্রবার থেকে কয়েক দফা আলোচনা চালায় অস্ট্রেলিয়া সরকার। এতে টেক জায়ান্টগুলো লভ্যাংশের একটা হিস্যা সংবাদ প্রকাশকদের দেয়ার বিষয়ে সমঝোতা হয়।

নিউজ কন্টেন্ট ইস্যুতে নতুন আইন পাস করল অস্ট্রেলিয়া। এখন থেকে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যমের কোনো কন্টেন্ট ফেসবুক, টুইটার, গুগলের মতো সাইটে শেয়ার করা হলে সেখান থেকে যে আয় হবে তার একটি অংশ দিতে হবে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে।

১৭ ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে পাসের পর গত বুধবার উচ্চকক্ষেও পাস হয় প্রস্তাবিত আইনটি।

শুরু থেকেই অস্ট্রেলিয়া সরকারের এই আইনের বিরোধিতা করে আসছে ফেসবুক। গত সপ্তাহে আইনটির প্রস্তাব হলে অস্ট্রেলিয়ার সব ধরনের নিউজ কন্টেন্ট ব্লক করে দেয় ফেসবুক। অবশ্য দুই দিন পর আলোচনা শুরু হলে তা আবার খুলে দেয় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

টেক জায়ান্টগুলো দাবি করেছিল, ইন্টারনেট-ব্যবস্থা যেভাবে কাজ করে এই আইনে তার প্রতিফলিত হয়নি। এ ছাড়া এই আইনে অযৌক্তিকভাবে তাদের ‘জরিমানা’ করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

সংকট নিরসনে ফেসবুকের সঙ্গে গত শুক্রবার থেকে কয়েক দফা আলোচনা চালায় অস্ট্রেলিয়া সরকার। এতে টেক জায়ান্টগুলো লভ্যাংশের একটা হিস্যা সংবাদ প্রকাশকদের দেবে বলে সমঝোতা হয়।

এর মধ্যে মিডিয়া মোগল রুপার্ট মারডকের প্রতিষ্ঠানগুলোর কন্টেন্ট ব্যবহারে তাদের অর্থ দেয়ার ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছিল গুগল।

আরও পড়ুন:
কংগ্রেসের সামনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ১
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ভীষণ ক্ষতি করেছেন ট্রাম্প: বাইডেন
করোনাই কাল হয়েছে ট্রাম্পের

শেয়ার করুন

ad-close 103.jpg