× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
The total population of the world is 108 billion living 8 billion
hear-news
player
google_news print-icon

পৃথিবী ছেড়েছে ১০৮ বিলিয়ন মানুষ, জীবিত ৮ বিলিয়ন

পৃথিবী-ছেড়েছে-১০৮-বিলিয়ন-মানুষ-জীবিত-৮-বিলিয়ন
মানবজাতির শুরু থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় দুই লাখ বছরে পৃথিবীতে জন্ম নিয়েছে মোট ১০ হাজার ৮০০ কোটি (১০৮ বিলিয়ন) মানুষ। ছবি: অ্যানাটমি ইন ক্লে
পিআরবি প্রথমবারের মতো ১৯৯৫ সালে ঐতিহাসিক সময় থেকে পৃথিবীতে জন্ম নেয়া আধুনিক মানুষের সংখ্যা প্রকাশ করে। এরপর প্রতি বছর গবেষণা সংস্থাটি বিশ্বের মোট সংখ্যাটি প্রকাশ করে যাচ্ছে। প্রায় ২ লাখ বছরের ব্যবধানে পৃথিবীর জনসংখ্যা ১৮০০ সালে ১০০ কোটির (এক বিলিয়ন) মাইলফলক স্পর্শ করলেও মাত্র ৩০০ বছরের মধ্যে আট গুণ বেড়ে বিশ্বের জনসংখ্যা দাঁড়ায় ৮০০ কোটি (৮ বিলিয়ন)।

সম্প্রতি পৃথিবীর জনসংখ্যা ৮০০ কোটির (৮ বিলিয়ন) মাইলফলক ছাড়িয়েছে। গত বছর ১৫ নভেম্বর ব্যাপকভাবে প্রকাশিত এই খবরটি বিশ্ববাসীকে জানান দিলেও পৃথিবীতে মানবজাতির শুরু থেকে এখন পর্যন্ত কত মানুষ মারা গেছে সেই বিষয়ে সুস্পষ্ট কোনো তথ্য জানা নেই। তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিক মানুষের শুরু থেকে এ পর্যন্ত এই গ্রহ থেকে চিরবিদায় নিয়েছে মোট ১০ হাজার ৮০০ কোটি (১০৮ বিলিয়ন) মানুষ।

পৃথিবীতে এখন পর্যন্ত মোট কত মানুষ জন্মেছে সেই বিষয়টির ব্যাখ্যা কিছুটা নির্ভর করে বৈজ্ঞানিক ভিত্তির ওপর, তবে অনেকটা অনুমানের ওপর।

সাম্প্রতিক সময়ে পৃথিবীতে প্রতি বছর জনসংখ্যা বাড়ছে প্রায় সাত কোটি। আর চিরনিদ্রায় শায়িত হন আরও প্রায় সাত কোটি।

জাতিসংঘের জনসংখ্যাবিষয়ক সংস্থা ইউএনএফপিএর তথ্য অনুযায়ী, ২০২১ সালে বিশ্বে জন্ম নিয়েছে সাড়ে ১৩ কোটি ৪০ লাখ শিশু। গত বছর মৃত্যু হয়েছে ৬ কোটি ৯২ লাখ মানুষের। জনসংখ্যা বেড়েছে ৬ কোটি ৪৮ লাখ।

১৯৮০ সালে বিশ্বের জনসংখ্যায় যুক্ত হয় ৬ কোটি ৯০ লাখ মানুষ।

গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিক মানুষ হোমো সেপিয়েন্সের যাত্রা শুরু প্রায় দুই লাখ বছর আগে। খ্রিষ্টপূর্ব ১,৯০,০০০ সালে আফ্রিকায় যাত্রা শুরু মানবজাতির।

যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটে জনসংখ্যাবিষয়ক গবেষণা সংস্থা পপুলেশন রেফারেন্স ব্যুরোর (পিআরবি) গবেষণায় দেখা গেছে, দুজন থেকে যাত্রা শুরু হয়ে প্রথম ৫০ হাজার বছর শেষে মানবজাতির সংখ্যা স্পর্শ করে ২০ লাখ।

৪২ হাজার বছরের ব্যবধানে ৮০০০ খ্রিষ্টপূর্বে জনসংখ্যা ৫০ লাখের (৫ মিলিয়ন) মাইলফলক স্পর্শ করে।

বলা হয় প্রায় দুই হাজার বছর আগে যিশুখ্রিষ্টের জন্মের সময় পৃথিবীর জনসংখ্যা ছিল ৩০ কোটি।

পৃথিবীতে জন্ম নেয়া মোট জনসংখ্যার মাত্র ৬ দশমিক ৫ শতাংশ বা ৮ বিলিয়ন এখন জীবিত রয়েছে। পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছে ১০ হাজার কোটি (১০০ বিলিয়ন) মানুষ।

পিআরবি প্রথমবারের মতো ১৯৯৫ সালে ঐতিহাসিক সময় থেকে পৃথিবীতে জন্ম নেয়া আধুনিক মানুষের সংখ্যা প্রকাশ করে। এরপর প্রতি বছর গবেষণা সংস্থাটি বিশ্বের মোট জনসংখ্যা প্রকাশ করে যাচ্ছে।

প্রায় ২ লাখ বছরের ব্যবধানে পৃথিবীর জনসংখ্যা ১৮০০ সালে ১০০ কোটির (এক বিলিয়ন) মাইলফলক স্পর্শ করলেও মাত্র ৩০০ বছরের মধ্যে আট গুণ বেড়ে বিশ্বের জনসংখ্যা দাঁড়ায় ৮০০ কোটি (৮ বিলিয়ন)।

এই আধুনিক বিশ্বে জীবিত মানুষের তালিকা থাকলেও মৃত মানুষের হিসাব সামষ্টিকভাবে কোথাও সংরক্ষণ করা হয় না। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মৃত্যুর পর হিসাব ও তালিকার (পপুলেশন সেনসাস) বাইরে চলে যায় মানুষ।

সমাজ পরিবর্তন ও বিনির্মাণে বিশিষ্ট মানুষ, বিজ্ঞানি, চিকিৎসক, সমাজ পরিবর্তক, ধর্মীয় গুরুর বিশেষ অবদান থাকলেও মৃত্যুর মধ্য দিয়ে তারাও জনসংখ্যার হিসাব থেকে ছিটকে পড়েন। তবে মানবজাতির বিবর্তন ও অগ্রযাত্রায় বিস্মৃতির অতল তলে হারিয়ে যাওয়া এসব মানুষের অবদান ছিল সবচেয়ে বেশি।

আরও পড়ুন:
বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটি
প্রতি ৪ মিনিটে কোন দেশে কত শিশু জন্মায়
নারীর সংখ্যা বেশি হওয়ার দুই কারণ
অবিবাহিত বেশি সিলেটে, কম রাজশাহীতে
বিয়ে বেশি রাজশাহীতে, বিচ্ছেদ খুলনায়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Fears of further rift in US China ties over surveillance balloons

নজরদারি বেলুনে যুক্তরাষ্ট্র-চীন সম্পর্কে আরও ফাটলের শঙ্কা

নজরদারি বেলুনে যুক্তরাষ্ট্র-চীন সম্পর্কে আরও ফাটলের শঙ্কা আকাশসীমায় চীনের নজরদারি বেলুন শনাক্তের কথা বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের জানান যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক কর্মকর্তা। ছবি: রয়টার্স
গুপ্তচরবৃত্তির উদ্দেশ্যে বেলুন পাঠানোর ঘটনাকে যুক্তরাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের ‘অগ্রহণযোগ্য লঙ্ঘন’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন আমেরিকার কর্মকর্তারা। দেশটির কিছু আইনপ্রণেতা চীনকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে চীনের নজরদারি বেলুন ওড়ার খবরে যে রাজনৈতিক শোরগোল শুরু হয়েছে, তাতে আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের ঘোষিত বেইজিং সফরই শুধু বাতিল হয়নি, দুই দেশের ক্রমাবনতিশীল সম্পর্ক মেরামতের চেষ্টা ব্যাহত হওয়ার শঙ্কাও তৈরি হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, গুপ্তচরবৃত্তির উদ্দেশ্যে বেলুন পাঠানোর ঘটনাকে যুক্তরাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের ‘অগ্রহণযোগ্য লঙ্ঘন’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন আমেরিকার কর্মকর্তারা। দেশটির কিছু আইনপ্রণেতা চীনকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিক্লেন শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাওয়া সফর আপাতত বাতিলের ঘোষণা দিয়ে জানিয়েছেন, পরিস্থিতি অনুকূলে এলে তিনি বেইজিং সফরের প্রস্তুতি নেবেন, তবে নীতি বিশ্লেষকদের ভাষ্য, চীনের পক্ষ থেকে যথেষ্ট সদিচ্ছা দেখানো না হলে খুব দ্রুত দেশটিতে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই ব্লিঙ্কেনের।

আমেরিকার আকাশে উড়তে থাকা বেলুনটি আবহাওয়াসংক্রান্ত কাজের জন্য মোতায়েন করা হয় দাবি করে চীনের পক্ষ থেকে বলা হয়, সেটি ভুলবশত যুক্তরাষ্ট্রের আকাশসীমায় ঢুকে পড়ে।

এ নিয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময়ে এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ কূটনীতিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ড্যানিয়েল রাসেল বলেন, চীনের এ ‘হাস্যকর অজুহাত’ কাজে আসবে না।

তার মতে, গত বছরের নভেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় যোগাযোগ বাড়ানোর বিষয়ে যে ঐকমত্য সৃষ্টি হয়েছিল, সে অবস্থায় ফেরা কঠিন হয়ে যাবে।

বৈশ্বিক দুই পরাশক্তির মধ্যে গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে সম্পর্কের অবনতি হচ্ছিল। গত বছরের আগস্টে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফরে যাওয়ার পর সে সম্পর্ক তলানিতে নেমে যায়। পেলোসির সফরের প্রতিক্রিয়ায় তাইওয়ান ঘিরে সামরিক মহড়া চালায় চীন।

এমন বাস্তবতায় বাইডেন প্রশাসনের আশা ছিল, সম্পর্ক মেরামতের একটি রাস্তা তৈরি হবে, যাতে করে সংঘাত ঠেকানো যাবে, কিন্তু সে আশায় গুড়েবালি হয়ে দেখা দিল বেলুন ওড়ানোর ঘটনা।

আরও পড়ুন:
আকাশে ‘চীনা’ বেলুন, গুলি করবে না যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার জেরে পুলিশের বিশেষ ইউনিট নিষিদ্ধ
মারছিল পুলিশ, ‘মা, মা’ বলে কাঁদছিলেন নিকোলস
স্টুডেন্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে চীনের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি
ক্যালিফোর্নিয়ায় আবারও গুলি, নিহত ৭

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
US will not shoot Chinese balloons in the sky

আকাশে ‘চীনা’ বেলুন, গুলি করবে না যুক্তরাষ্ট্র

আকাশে ‘চীনা’ বেলুন, গুলি করবে না যুক্তরাষ্ট্র আকাশসীমায় চীনের নজরদারি বেলুন শনাক্তের কথা বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের জানান যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক কর্মকর্তা। ছবি: রয়টার্স
নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের একজন সাংবাদিকদের বলেন, আকাশসীমায় প্রবেশের পর বেলুনটিকে ‘হেফাজতে’ নেয় যুক্তরাষ্ট্র। চালকসহ সামরিক বিমান দিয়ে একে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে।

চীনের একটি গুপ্তচর বেলুন কয়েক দিন ধরে যুক্তরাষ্ট্রের আকাশসীমায় উড়ছে জানিয়ে দেশটির এক কর্মকর্তা বলেছেন, নিরাপত্তা ঝুঁকির শঙ্কায় বস্তুটিকে গুলি না করতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে পরামর্শ দিয়েছেন সামরিক কর্মকর্তারা।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক কর্মকর্তা বেলুনের অবস্থানের বিষয়ে জানান বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

আমেরিকার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি জানায়, আকাশসীমায় বেলুন দেখে একে ধ্বংস করতে উদ্যত হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক যুদ্ধবিমান, তবে জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তারা বাইডেনকে পরামর্শ দেন, বেলুনের ধ্বংসাবশেষ নাগরিকদের জন্য ঝুঁকি তৈরি করতে পারে, যা মেনে নেন প্রেসিডেন্ট।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্মকর্তাদের একজন সাংবাদিকদের বলেন, আকাশসীমায় প্রবেশের পর বেলুনটিকে ‘হেফাজতে’ নেয় যুক্তরাষ্ট্র। চালকসহ সামরিক বিমান দিয়ে একে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে।

এদিকে ‘বেশি উচ্চতার নজরদারি বেলুন’ শনাক্তের কথা জানিয়েছে কানাডার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ও।

ওই বেলুনটি চীনের কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রণালয় আরও বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এ বিষয়ে নিয়মিত যোগাযোগ করা হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে শুক্রবার নিয়মিত ব্রিফিংয়ে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাও নিং বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের দাবি যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ক্যালিফোর্নিয়ায় চীনা নববর্ষ উদযাপনে গুলি, নিহত ১০
এক সপ্তাহে চীনে করোনায় ১৩ হাজার মৃত্যু
ক্যালিফোর্নিয়ায় গুলি, হতাহতের শঙ্কা
দ্বীপটির দাম ৫ কোটি টাকা
ক্যালিফোর্নিয়ায় গুলিতে নিহত ৬

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Adanis three institutions under surveillance in the capital market

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান আদানি গ্রুপের লোগোর পাশে কর্ণধার গৌতম আদানি। ছবি: সংগৃহীত
অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

পুঁজিবাজারে দরপতনের হিড়িকের মধ্যে স্বল্পমেয়াদি বাড়তি নজরদারি ব্যবস্থায় (এএসএম) রাখা হয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ধনকুবের গৌতম আদানির মালিকানাধীন আদানি গ্রুপের তিনটি প্রতিষ্ঠানকে।

ভারতের মুম্বাইভিত্তিক বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (বিএসই) ও ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (এনএসই) থেকে বৃহস্পতিবার পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার এ খবর জানায় এনডিটিভি।

নজরদারিতে থাকা প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো- আদানি এন্টারপ্রাইজ, আদানি পোর্টস অ্যান্ড স্পেশাল ইকনোমিক জোন এবং আম্বুজা সিমেন্টস।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিন্ডেনবার্গ রিসার্চ গ্রুপের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে পুঁজিবাজারে লেনদেনে প্রতারণা ও শেয়ার দরে কারসাজির অভিযোগ করা হয়। এর পর থেকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আদানি গ্রুপের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরে ধস নামে।

ওই প্রতিবেদনকে মিথ্যা আখ্যা দিয়ে আদানি গ্রুপ বলেছে, তাদের কোম্পানিগুলো সব আইন মেনে চলছে।

বেশ কয়েকটি বিষয়ের ভিত্তিতে কোনো কোম্পানিকে এএসএমের আওতায় রাখা হয়। এর মধ্যে রয়েছে কোম্পানির আয়ের ওপর গ্রাহকদের অংশীদারত্ব, প্রাইস-আর্নিং রেশিও ইত্যাদি।

এনএসই ও বিএসই জানিয়েছে, আদানি গ্রুপের তিনটি কোম্পানি নির্ধারিত মানদণ্ডে পড়ায় এগুলোকে এএসএমের আওতাভুক্ত করা হয়েছে।

এদিকে অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে।

সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

আরও পড়ুন:
সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন
সূচকের সঙ্গে কমল লেনদেনও
ডিএসই’র সতর্কতার পরও ছুটছে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Adani Group bought Haifa port in Israel

ইসরায়েলের বন্দর হাইফা কিনল আদানি গ্রুপ

ইসরায়েলের বন্দর হাইফা কিনল আদানি গ্রুপ ফাইল ছবি
আদানি গ্রুপ ইসরায়েলে অধিকতর বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে তারা হাইফা বন্দর কিনল।

১২০ কোটি ডলারে ইসরায়েলের গুরুত্বপূর্ণ বন্দর হাইফা কিনে নিল ভারতের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী আদানি গ্রুপ।

হিনডেনবার্গের প্রতিবেদনের জেরে বিধ্বস্ত আদানি গোষ্ঠীর বাজার মূলধন প্রায় ৭ হাজার কোটি ডলার কমার মধ্যেই মঙ্গলবার ওই বন্দর কেনার ঘোষণা আসে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

সুউচ্চ বিভিন্ন ভবন নির্মাণ করে ভূমধ্যসাগরীয় শহরটিকে পাল্টে দেয়ার অঙ্গীকার করা হয়েছে ভারতীয় এই ব্যবসায়ী গ্রুপের পক্ষে।

আদানি গ্রুপ ইসরায়েলে অধিকতর বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে তারা হাইফা বন্দর কিনল। এছাড়া তারা তেল আবিবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা গবেষণাগার (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ল্যাবরেটরি) চালু করতে যাচ্ছে।

জালিয়াতিসহ বিভিন্ন অভিযোগে বিপুল পরিমাণ লোকসানের কারণে গৌতম আদানির ব্যবসায়িক সাম্রাজ্যে সম্প্রতি বড় ধরনের ধস নেমেছে।

কৌশলগত কারণে হাইফা বন্দরটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। এখান থেকে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল করে এবং সবচেয়ে বড় পর্যটকবাহী বিলাসবহুল জাহাজও (ক্রুজ শিপ) এই বন্দরে ভিড়ে। এছাড়া এটি ইসরায়েলের দ্বিতীয় বৃহত্তম বন্দর।

আরও পড়ুন:
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির
ভারতের আদানি এখন বিশ্বের তৃতীয় ধনী

মন্তব্য

‘স্বপ্ন’ এখন মানিকগঞ্জে

‘স্বপ্ন’ এখন মানিকগঞ্জে মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মঙ্গলবার উদ্বোধন হয় স্বপ্নের আউটলেটের। ছবি: নিউজবাংলা
স্বপ্নের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, “‘স্বপ্ন’ এখন দেশের ৫১টি জেলায়। মানিকগঞ্জের নতুন এই আউটলেটে আমাদের সেবার পরিসর আরও বিস্তৃত হবে। আশা করছি স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ পরিবেশে গ্রাহকরা স্বপ্নের এ আউটলেট থেকে নিয়মিত বাজারের সুযোগ পাবেন।”

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় উদ্বোধন হয়েছে দেশের বৃহত্তম রিটেইল চেইন শপ স্বপ্নের আউটলেট।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে নতুন এই আউটলেটের উদ্বোধন করা হয়।

ওই সময় উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই পরিচালক তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটো, স্বপ্নের হেড অফ বিজনেস এক্সপ্যানশন মো. শামছুজ্জামান, রিজিওনাল ম্যানেজার অফ অপারেশন সাজিদ আহমেদ, ম্যানেজার (প্রজেক্ট ডেভেলপমেন্ট) মেহেদী হাসান রাহাত, আউটলেট অপারেশন ম্যানেজার মাসুদুর রহমানসহ অনেকে।

স্বপ্নের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, “‘স্বপ্ন’ এখন দেশের ৫১টি জেলায়। মানিকগঞ্জের নতুন এই আউটলেটে আমাদের সেবার পরিসর আরও বিস্তৃত হবে। আশা করছি স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ পরিবেশে গ্রাহকরা স্বপ্নের এ আউটলেট থেকে নিয়মিত বাজারের সুযোগ পাবেন।”

স্বপ্নের অপারেশন্স ডিরেক্টর আবু নাছের জানান, নতুন এ আউটলেটে থাকছে মাসব্যাপী নানা অফার ও হোম ডেলিভারি সেবা।

স্বপ্নের ২৯৩তম আউটলেটের ঠিকানা: সিটি সেন্টার, ১৬/ঢাকা-আরিচা হাইওয়ে রোড, মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড, মানিকগঞ্জ।

আরও পড়ুন:
সিলেটের শাহপরাণে স্বপ্নের নতুন আউটলেট
স্বপ্না ভৌমিক এমএন্ডএস’র ভারতেরও প্রধান
বগুড়ার পুলিশ প্লাজায় চেইন শপ ‘স্বপ্ন’
নবীনগর পৌঁছে গেল ‘স্বপ্ন’
স্বপ্ন এখন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
24 lives fell into a bus ditch in Peru

পেরুতে বাস খাদে পড়ে গেল ২৪ প্রাণ

পেরুতে বাস খাদে পড়ে গেল ২৪ প্রাণ দুর্ঘটনাকবলিত বাস। ছবি: সংগৃহীত
পেরুর পরিবহন পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এসইউটিআরএএন এক বিবৃতিতে দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে হতাহতের কোনো সংখ্যা তারা উল্লেখ করেনি।

পেরুর উত্তরাঞ্চলে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় শনিবার দেশটির এল অলটো জেলায় পাহাড়ি রাস্তায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে পুলিশের বরাত দিয়ে জানিয়েছে রয়টার্স

পেরুর পরিবহন পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এসইউটিআরএএন এক বিবৃতিতে দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে হতাহতের কোনো সংখ্যা তারা উল্লেখ করেনি।

স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, ৬০ জন যাত্রী নিয়ে লিমা থেকে ইকুয়েডর সীমান্তবর্তী টুম্বেসে যাচ্ছিল বাসটি। পথে এটি অরগানোস শহরের কাছে রাস্তার পাশের গভীর খাদে পড়ে যায়।

পেরুতে প্রায়ই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। এসব দুর্ঘটনায় প্রাণহানির সংখ্যাও কম নয়।

আরও পড়ুন:
শ্রীমঙ্গলে অটোরিকশায় পিকআপের ধাক্কা, নিহত ২
অ্যাম্বুলেন্সচাপায় রিকশাচালক নিহত, আহত একই পরিবারের ৪ জন
সড়কে গেল পীর-মুরিদের প্রাণ

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
55 executions in 26 days in Iran

ইরানে ২৬ দিনে ৫৫ ফাঁসি

ইরানে ২৬ দিনে ৫৫ ফাঁসি ইরানে এক আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, সরকারবিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার দায়ে সম্প্রতি ইরানে তিন যুবকের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে একজনের বয়স মাত্র ১৮।

ইরানে নতুন বছরের প্রথম ২৬ দিনে ৫৫ জনের ফাঁসি কার্যকরা হয়েছে বলে জানিয়েছে নরওয়েভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস (আইএইচআর)। সংস্থাটি বলছে, পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে আন্দোলনরতদের ভয় দেখাতে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে তেহরান।

এদিকে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, সরকারবিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার দায়ে সম্প্রতি ইরানে তিন যুবকের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে একজনের বয়স মাত্র ১৮।

আইএইচআরের প্রতিবেদনে বলা হয়, বছরের প্রথম ২৬ দিনে মাদক মামলার ৩৭ আসামিকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে। এছাড়া সরকারবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে।

সংস্থাটি জানায়, পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ইরানে ১০৭ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ নিয়ে আইএইচআর-এর পরিচালক মাহমুদ আমিরি মোঘদ্দাম বলেন, ‘আন্দোলনকারীদের ভয় দেখাতে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে ইরান সরকার। কোনো ফাঁসি বরদাস্ত করা হবে না, তা সে রাজনৈতিক হোক বা অরাজনৈতিক।’

সঠিকভাবে হিজাব না পরার অভিযোগে ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যু হয় গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর। সেদিন থেকেই প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে গোটা ইরানে।

বিক্ষোভ থামাতে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ইরান সরকার ধরপাকড় চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। এর মধ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের এ সংখ্যা উদ্বেগ তৈরি করেছে।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনের ফ্লাইটে হামলা: ইরানের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ
‘ইরানে ১০০ বিক্ষোভকারীর সামনে ফাঁসির দড়ি’
ইরানে স্টারলিংকের ১০০ স্যাটেলাইট সক্রিয়: মাস্ক
ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতা দাবির ১০০ দিন
মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে ইরানের র‍্যাপারের আপিল গ্রহণ

মন্তব্য

p
উপরে