× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Reconstruction of the face of Ramesses II
hear-news
player
google_news print-icon

দ্বিতীয় রামেসিসের মুখাবয়ব পুনর্গঠন

দ্বিতীয়-রামেসিসের-মুখাবয়ব-পুনর্গঠন
প্রাচীন মিসরের অন্যতম ফারাও দ্বিতীয় রামেসিসের মুখাবয়ব। ছবি: সংগৃহীত
অনেকে মনে করেন, মূসা (আঃ) এর সময় যে ফারাও পানিতে ডুবে মারা গেছেন, তিনিই দ্বিতীয় রামেসিস, তবে এটি নিয়ে মতভেদ রয়েছে।

কম্পিউটার টমোগ্রাফি (সিটি) সফটওয়্যারের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো প্রাচীন মিসরের অন্যতম ফারাও দ্বিতীয় রামেসিসের মুখাবয়ব পুনর্গঠন করেছেন বিজ্ঞানীরা। যুক্তরাজ্য ও মিসরের বিজ্ঞানীদের যৌথ প্রচেষ্টায় তার মুখাবয়ব পুনর্গঠিত হয় বলে রুশ সংবাদমাধ্যম আরটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

অনেকে মনে করেন, মূসা (আঃ) এর সময় যে ফারাও পানিতে ডুবে মারা গেছেন, তিনিই দ্বিতীয় রামেসিস, তবে এটি নিয়ে মতভেদ রয়েছে।

আরটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ফারাওয়ের মমির সিটি স্ক্যানগুলোকে সফটওয়্যারের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করেন বিজ্ঞানীরা। পরে তার ত্রিমাত্রিক খুলি পুনর্গঠন করা হয়। এটির ওপর সফটওয়্যারের মাধ্যমে ত্বকের স্তর বসিয়ে একটি মুখাবয়ব পুনর্গঠনের দাবি করেন বিজ্ঞানীরা।

এ প্রজেক্টের নেতৃত্ব দেয়া কায়রো ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক সাহার সেলিম বলেন, ‘সিটি স্ক্যানের ওপর ভিত্তি করে প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় রামেসিসের মুখাবয়ব বৈজ্ঞানিক উপায়ে পুনর্গঠন হয়েছে।’

ধারণা করা হয়, ৯০ বছর বয়সে দ্বিতীয় ফারাও রামসেসের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে মাইকে স্ত্রীকে তালাক
গিজায় চার্চে আগুন, শিশুসহ কমপক্ষে ৪১ মৃত্যু
জনগণকে গাছের পাতা খাওয়ার পরামর্শ মিসরের প্রেসিডেন্টের
আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে বিশ্বকাপের আশা সালাহদের
ফারাওদের মধ্যেও ছিল খতনার প্রচলন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Lots of fake IDs in my name Taslima Nasreen

আমার নামে প্রচুর ফেক আইডি: তসলিমা নাসরিন

আমার নামে প্রচুর ফেক আইডি: তসলিমা নাসরিন তসলিমা নাসরিন
তসলিমা নাসরিন লিখেছেন, আমার নামে ফেক আইডি প্রচুর এই ফেসবুকে। ইদানিং এক ফেক আইডিকে আমার আইডি ভেবে আমার অনেক বন্ধুরাও বিশ্বাস করছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তার নামে প্রচুর ফেক আইডি খোলা হয়েছে জানিয়ে ভারতে বসবাসরত বাংলাদেশি লেখক তসলিমা নাসরিন বলেছেন, রিপোর্ট করেও এই সমস্যার সমধান পাচ্ছেন না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজের ভেরিফায়েড অ্যাকাউন্ট থেকে দেয়া এক পোস্টে এ নিয়ে কথা বলেন তিনি।

তসলিমা নাসরিন লিখেছেন, আমার নামে ফেক আইডি প্রচুর এই ফেসবুকে। ইদানিং এক ফেক আইডিকে আমার আইডি ভেবে আমার অনেক বন্ধুরাও বিশ্বাস করছে।

তিনি লিখেছেন, ফেক আইডিটি যে বানিয়েছে, সে এমন ধুরন্ধর যে, মানুষকে বোকা বানাবার জন্য আমার রিয়েল আইডির প্রোফাইল পিকচার তো ইউজ করেছেই, বিপুল পরিমাণ ফলোয়ার সংখ্যা বসিয়ে দিয়েছে ওয়ার্কের জায়গায়।

তসলিমা পোস্টে লিখেছেন, ফেসবুককে অনেকদিন রিপোর্ট করেও কাজ হচ্ছে না। তবে আমার রিয়েল আইডির বিরুদ্ধে ফেসবুকে রিপোর্ট করলে বেশ কাজ হয়। আমার আইডিতে রিমেম্বারিং স্টিকার জুড়ে দেয়া হয়, অর্থাৎ আমি মরে গেছি। অথবা আমার পোস্টের রিচ জিরো করে দেয়া হয়।

সুইডেনের পাসপোর্টধারী হিসেবে দিল্লিতে বসবাস করছেন তসলিমা। ১৯৯৪ সালে তিনি বাংলাদেশ ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগে তখন আন্দোলনের মুখে পড়তে হয় তাকে।

আরও পড়ুন:
হাসপাতাল থেকে পঙ্গুত্ব কিনে বাড়ি ফিরলাম: তসলিমা
পরীমনির জীবনটা আমার মতো: তসলিমা নাসরিন
রুশদির ওপর হামলায় স্তম্ভিত তসলিমা

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
The science minister asked the journalists questions about Rooppur

রূপপুর নিয়ে প্র‌শ্ন, সাংবাদিকদের ওপর চটলেন বিজ্ঞানমন্ত্রী

রূপপুর নিয়ে প্র‌শ্ন, সাংবাদিকদের ওপর চটলেন বিজ্ঞানমন্ত্রী সচিবালয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বুধবার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয়বিষয়ক কর্মশালায় সাংবাদিকদের ওপর চটে যান মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। ছবি: নিউজবাংলা
সাংবাদিকের প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না? আর ইউ প্রফেশনাল? লেট মি দিস অ্যান্সার? ইউ আর প্রফেশনাল, লাইক মি আর্কিটেকচার। তোমরা তো প্রফেশনাল। তোমাদের রেগুলার প্রফেশনাল স্টাডির কো‌নো ব্যবস্থা আছে? নাই।’

কর্মশালার বিষয়ের বাইরে গি‌য়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ‌কেন্দ্র নি‌য়ে প্রশ্ন করায় সাংবাদিকদের ওপর চটেছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান।

সচিবালয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বুধবার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয়বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠা‌নে এমন ঘটনা ঘ‌টে।

ওই কর্মশালার বিষ‌য়ে সাংবা‌দিক‌দের স‌ঙ্গে ২৮ মি‌নিট কথা ব‌লেন ইয়াফেস ওসমান। এরপর অনুম‌তি নি‌য়ে এক সাংবা‌দিক প্রশ্ন ক‌রতে চাইলে ইয়াফেস ওসমান ব‌লেন, ‘বলো ভাই, তোমাদের তো আবার সময়ের দাম আছে। তো এতগুলো কথা বললাম, এগুলো কি একটাও কাজের কথা হয় নাই? আচ্ছা বলো।’

এরপর ওই সাংবাদিক বলেন, ‘রাশিয়ার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালামাল সরবরাহে কত দেরি হতে পারে?’

জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ওই ব্যাপারে এখন কিছু বলব না। এত কথার মধ্যে তোমরা চলে গেলে রূপপুরে।’

ওই সময় মন্ত্রীর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব জিয়াউল হাসান বলেন, ‘আজকের ওয়ার্কশপের সঙ্গে এই প্রশ্ন সঙ্গতিপূর্ণ নয়।’

পরে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না? আর ইউ প্রফেশনাল? লেট মি দিস অ্যান্সার? ইউ আর প্রফেশনাল, লাইক মি আর্কিটেকচার। তোমরা তো প্রফেশনাল। তোমাদের রেগুলার প্রফেশনাল স্টাডির কো‌নো ব্যবস্থা আছে? নাই।’

ওই সময় ক‌য়েকজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে জানান, সাংবা‌দিক‌দের জন্যও সেই ব্যবস্থা র‌য়ে‌ছে।

তখন মন্ত্রী বলেন, ‘ঘোড়ার ডিম আছে তোমাদের। আমাদের একটা ইনস্টিটিউট আছে। ওখান থেকে যদি সার্টিফিকেট না পাও, ইউ ক্যান নট প্রাকটিস। কারণ হলো, ওটার (ইনস্টিটিউট) শুরুটা হয় আমার হাত দিয়ে। ওইগুলো করো আগে। বিকজ বাংলাদেশকে আমরা ওই জায়গায় নিতে চাই।’

এরপর একজন সাংবাদিক বলেন, ‘সনদ ছাড়া সাংবাদিকতা করা যাবে না সেই বাধ্যবাধকতা নেই।’

এর পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘ওইটাই তো প্রবেলম। তোমার যদি একটা ব্যাকগ্রাউন্ড না থাকে, কালকে বলে দিলা তুমি সাংবাদিক। তুমি তো প্রফেশনালিজমের কিছু বোঝোই না। একটা প্রফেশন মাস্ট নো দ্যাট সাবজেক্ট। তার একটা ব্যাকগ্রাউন্ড থাকতে হবে। একটা কথা বলে দিলা যেকোনো জায়গা থেকে চলে আসলে। তার মানে তোমাদের কোনো স্ট্যান্ডার্ড নাই।

‘তোমার প্রফেশনালি যদি জ্ঞান-গরিমা থাকে, নেচারালি তখন তুমি একভাবে বলবা, আর যদি না থাকে আরেকভাবে বলবা। তারপরও তুমি বলছো আমরা আসতে পারি যেকোনো জায়গা থেকে? এনিওয়ে ভাই, আমি তোমার এই কথায় যেতে চাই না। একদিন আইসো, তোমাদের বসদের সাথে কথা হয় তো, ওদের সাথেই কথা বলব। তোমাদের সাথে বলে আর লাভ নাই।’

সাংবা‌দিকরাও এসব বিষ‌য়ে কথা বল‌তে শুরু কর‌লে মন্ত্রী ব‌লেন, ‘আচ্ছা এই সাবজেক্ট বাদ দিয়ে দাও। আমি ওই জন্য বলছি তোমরা এই সাবজেক্টের ওপর ধরো না কেন? এটা বাদ দিয়ে তুমি চলে গেলে অন্য জায়গায়। এটা নিয়ে আর কোনো কথাই হবে না।

‘তুমি এখানে আসছো কী জন্য? তুমি রূপপুরের ব্যাপারে কথা বলতে আসছো? এখান থেকে তোমার প্রশ্ন বের করতে হবে, উত্তর নিতে হবে। সেটা হলে তুমি প্রোপার জিনিসটা করলা।’

ওই সময় একজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে বলেন, ‘আমরা যারা সাংবাদিকতা করি তাদের সাবজেক্টের বাইরেও প্রশ্ন করতে হয়। আপনাকে আমরা পাই না, গত ৮-৯ মাসে আপনার প্রোগ্রামে আসিনি, এই প্রথম আসলাম। তাও আবার জরুরি ভিত্তিতে আসতে বলেছেন। ১১টার প্রোগ্রাম, ১১টা ১০ মিনিটে আমাদেরকে জানিয়েছেন। আমরা গুরুত্বপূর্ণ মনে করে চলে এসেছি।

‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জনগণের জানার আগ্রহ আছে। জনসাধারণের ভিউ থেকে আমাদেরও অনেক কিছু জানতে হয়।’

তখন মন্ত্রী ক্ষে‌পে গি‌য়ে ধম‌কের সু‌রে বলেন, ‘আমি একটা কথা পরিষ্কার বলে যাই। ইউ লিসেন টু মি। আপনারা যদি না আসতে চান, চলে যান। গেট গোয়িং।’

এরপর সেখা‌নে উপ‌স্থিত থাকা সাংবা‌দিকরাও প্র‌তি‌ক্রিয়া জা‌নি‌য়ে অনুষ্ঠানস্থল ছাড়‌তে চাইলে মন্ত্রী ব‌লেন, ‘ইউ শুড গো। আমি বললাম প্রশ্নটা ওটার ওপর না করে এটার ওপরে করেন। এটা বলতে পারব না আমি?’

আরও পড়ুন:
রূপপুরে দ্বিতীয় ইউনিটের পারমাণবিক চুল্লি স্থাপনকাজ শুরু
বাংলাদেশকে ধন্যবাদ রোসাটমপ্রধানের
যেখানে বাংলার চেয়ে দাপট রুশ ভাষার
রূপপুরের বিদ্যুৎপ্রাপ্তি পেছাতে পারে গ্রিডলাইনের কারণে
রূপপুরে দ্বিতীয় চুল্লি স্থাপনের কাজ শুরু বুধবার

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
How to see the green comet after 50 thousand

৫০ হাজার বছর পর আসা সবুজ ধূমকেতু যেভাবে দেখবেন

৫০ হাজার বছর পর আসা সবুজ ধূমকেতু যেভাবে দেখবেন ৫০ হাজার বছর পর বুধবার রাতের আকাশে দেখা যাবে সবুজ ধূমকেতু। ছবি: সংগৃহীত
৫০ হাজার বছর আগে শেষবার ধূমকেতুটি দেখা গিয়েছিল। বুধবার পৃথিবী থেকে ২ কোটি ৬০ লাখ মাইল দূরে হবে এর অবস্থান।

৫০ হাজার বছর পর রাতের আকাশে দেখা যাবে সবুজ ধূমকেতু। বুধবার এটি পৃথিবীর সবচেয়ে কাছাকাছি থাকবে। বিশ্বের প্রায় সব অঞ্চল থেকে রাতে ধূমকেতুটি দেখা যাওয়ার কথা রয়েছে।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এ ধুমকেতুটির নাম দিয়েছেন ‘সি/২০২২ ই৩ (জেডটিএফ)’। জানুয়ারির শুরুতে সূর্যকে প্রদক্ষিণের পর পৃথিবীর আকাশে ধুমকেতুটি দেখতে পায় বিজ্ঞানীরা। এর আগে গত বছরের মার্চে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার জুইকি ট্রানজিয়েন্ট ফ্যাসিলিটি টেলিস্কোপে ধূমকেতুটি আবিষ্কার করেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, ৫০ হাজার বছর আগে শেষবার ধূমকেতুটি দেখা গিয়েছিল। বুধবার পৃথিবী থেকে ২ কোটি ৬০ লাখ মাইল দূরে হবে এর অবস্থান।

সবুজাভ ধূমকেতুটির রাসায়নিক গঠনকে প্রতিফলিত করে। সূর্যালোক এবং কার্বন অণুর মধ্যে মিথষ্ক্রিয়ার ফলে এটি সবুজ দেখায়।

ধূমকেতু দেখতে চাইলে সেরা সময় বুধবার রাত। শহুরে বাতি থেকে দূরে, তুলনামূলক আঁধার কোনো এলাকায় গিয়ে দেখার চেষ্টা করতে পারেন। এ জন্য আকাশ পরিষ্কার থাকা জরুরি। সবচেয়ে ভালো হয় দূরবীনে চোখ রাখলে।

আরও পড়ুন:
তারাদের বয়স গণনা কীভাবে
আট বছরেই গ্রহাণু আবিষ্কার অলিভেইরার

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
G Tide brand Calling smartwatch launched Motion View in the country

জি-টাইড ব্র্যান্ডের কলিং স্মার্টওয়াচ দেশে আনল মোশন ভিউ

জি-টাইড ব্র্যান্ডের কলিং স্মার্টওয়াচ দেশে আনল মোশন ভিউ ফেসবুক লাইভে শনিবার বিকেলে ‘জি-টাইড এস-১ লাইট’ মডেলের স্মার্টওয়াচটি উন্মোচন করা হয়। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
ফেসবুক লাইভে শনিবার বিকেলে ‘জি-টাইড এস-১ লাইট’ মডেলের স্মার্টওয়াচটি উন্মোচন করা হয়। লাইভে মোশন ভিউয়ের পক্ষ থেকে স্মার্টওয়াচের ফিচার ও সুবিধাগুলো নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

বাংলাদেশের বাজারে জি-টাইড ব্র্যান্ডের ব্লুটুথ কলিং স্মার্ট ওয়াচ এনেছে ব্র্যান্ডটির বিপণন প্রতিষ্ঠান মোশন ভিউ লিমিটেড।

ফেসবুক লাইভে শনিবার বিকেলে ‘জি-টাইড এস-১ লাইট’ মডেলের স্মার্টওয়াচটি উন্মোচন করা হয়।

লাইভে মোশন ভিউয়ের পক্ষ থেকে স্মার্টওয়াচের ফিচার ও সুবিধাগুলো নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

উন্মোচনের ক্ষণে লাইভে যুক্ত হয়ে বেশ কয়েকজন জিতে নেন জি-টাইড এস-১ লাইট, আকর্ষণীয় গিফট ও অফিশিয়াল টি-শার্ট।

৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারির স্মার্টওয়াচটিতে থাকা বিভিন্ন ফিচারে ২৪ ঘণ্টা হার্ট রেট মনিটর, ঘুমের কোয়ালিটি পর্যবেক্ষণ, রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা, দেহের তাপমাত্রা পরিমাপসহ আরও নানা সুবিধা রয়েছে। একবার ফুল চার্জে টানা ৭ দিন ব্যবহার করা যাবে ডিভাইসটি।

আয়াতাকার ওয়াচে ২.৫ডি কার্ভ শেপের ১ দশমিক ৮৫ ইঞ্চি আকারের ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। ওয়াচটিকে জিটি ফিট প্রো অ্যাপের মাধ্যমে যেকোনো অ্যান্ড্রয়েড কিংবা আইফোনের সঙ্গে ব্লুটুথের মাধ্যমে সংযুক্ত করা যাবে।

স্মার্ট ঘড়িটির অন্যতম বিশেষত্ব হলো এতে থাকা ব্লুটুথ কলিং ফিচার। মোবাইলে সংযুক্ত থাকা অবস্থায় সরাসরি এই ওয়াচ থেকেই কল রিসিভ বা কাউকে কল করা যাবে।

এ ছাড়া ফোনে আসা সব নোটিফিকেশন স্মার্টওয়াচ থেকেই দেখা যাবে। একই সঙ্গে প্রয়োজনে মেসেজের রিপ্লাইও দেয়া যাবে।

নানা ধরনের সেন্সরযুক্ত জি-টাইড ব্র্যান্ডের স্মার্টওয়াচে ১০০টির বেশি স্পোর্টস মোড যুক্ত রয়েছে। হার্ট রেট মনিটরের মতো আরও কিছু হেলথ ফিচার রয়েছে এতে।

স্মার্ট ওয়াচটিতে আইপি-৬৮ গ্রেডের ওয়াটার রেজিস্ট্যান্স থাকায় এটি হাতে থাকা অবস্থায় সাঁতার কাটা যাবে।

মোশন ভিউ জানায়, শনিবার থেকেই দেশব্যাপী প্রতিষ্ঠানটির সব আউটলেট, অনুমোদিত রিটেইল পয়েন্ট ও অনলাইনে স্মার্টওয়াচটি পাওয়া যাবে।

১২ মাসের ওয়ারেন্টি সুবিধাসহ স্মার্টওয়াচটির কালো রঙের ভার্সনটির দাম ৩ হাজার ৪৯০ টাকা। ধূসর রঙের সংস্করণের দাম পড়বে ৩ হাজার ৬৯০ টাকা।

উভয় সংস্করণের সঙ্গে একটি অতিরিক্ত স্ট্র্যাপ ও একটি অফিশিয়াল ট-শার্ট বিনা মূল্যে পাওয়া যাবে।

জি-টাইড ব্র্যান্ডের আরেকটি মডেলের স্মার্টওয়াচ (আর-১) এবং লে-১ মডেলের ওয়্যারলেস ইয়ারফোনও বাজারে পাওয়া যায়।

দেশব্যাপী ৬৪ জেলায় মোশন ভিউয়ের বিপণন চালু আছে। নিজস্ব ২৭টি ব্র্যান্ড আউটলেট, ২ হাজারের বেশি রিটেইল ও অনলাইনে তাদের পণ্য পাওয়া যায়।

বিভিন্ন ধরনের ব্র্যান্ডের অরিজিনাল স্মার্ট গ্যাজেট (যেমন: স্মার্ট ওয়াচ, ইয়ারফোন, স্মার্ট টিভি, স্মার্ট হোম অ্যাপ্লায়েন্স ইত্যাদি) গ্রাহকের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার পাশাপাশি সেগুলোর ক্ষেত্রে পূর্ণ বিক্রয়োত্তর সেবা নিশ্চিতে কাজ করে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

আরও পড়ুন:
দেশে কিসিলেক্টের নতুন কলিং স্মার্টওয়াচ
সারা দেশে প্রযুক্তিপণ্য পৌঁছে দিতে মোশন ভিউয়ের পার্টনার মিট
ধানমন্ডিতে মোশন ভিউয়ের নতুন আউটলেট চালু
মোশন ভিউয়ে পাওয়া যাবে ইনফিনিক্স মোবাইল
দেশে অ্যামেজফিট স্মার্টওয়াচের পরিবেশক হলো সেলেক্সট্রা

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
Digital Connectivity Key to Smart Bangladesh PM

স্মার্ট বাংলাদেশের চাবিকাঠি ডিজিটাল কানেকটিভিটি: প্রধানমন্ত্রী

স্মার্ট বাংলাদেশের চাবিকাঠি ডিজিটাল কানেকটিভিটি: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার সকালে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলার উদ্বোধন উপলক্ষে ডিডিওবার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস
প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের চাবিকাঠি হবে ডিজিটাল কানেকটিভিটি। এর ভিত্তিতেই স্মার্ট নাগরিক, স্মার্ট অর্থনীতি, স্মার্ট সরকার ও স্মার্ট সমাজ গড়ে উঠবে।

ডিজিটাল কানেকটিভিটি তথা ইন্টারনেট সংযুক্তিকে স্মার্ট বাংলাদেশের চাবিকাঠি আখ্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এর ভিত্তিতেই বিনির্মাণ হবে স্মার্ট সমাজ।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার সকালে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলার উদ্বোধন উপলক্ষে ডিডিওবার্তায় তিনি এ কথা বলেন। খবর বাসসের।

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নানা পণ্য ও সেবা তুলে ধরতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় তিন দিনের এ মেলার আয়োজন করে।

এ উপলক্ষে দেয়া ভিডিওবার্তায় স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য ডিজিটাল কানেকটিভিটির গুরুত্ব তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের চাবিকাঠি হবে ডিজিটাল কানেকটিভিটি। এর ভিত্তিতেই স্মার্ট নাগরিক, স্মার্ট অর্থনীতি, স্মার্ট সরকার ও স্মার্ট সমাজ তৈরি হবে।

বক্তব্যে ডিজিটাল পণ্য বাংলাদেশে বিনিয়োগ সহায়ক হওয়ার পাশাপাশি রপ্তানি বৃদ্ধিতে অবদান রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তবতা। পরবর্তী প্রজন্মের হাত ধরে গড়ে উঠবে স্মার্ট বাংলাদেশ ও স্মার্ট জাতি। সে লক্ষ্য পূরণে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের বিকল্প নেই।

সরকারের লক্ষ্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ইন্টারনেট অফ থিংস, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি, অগমেন্টেড রিয়েলিটি, রোবোটিকস ও বিগ ডেটার মতো ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিতের মাধ্যমে সরকার বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করতে চায়। তিনি বলেন, সরকার শিল্পাঞ্চলগুলোতে ফাইভজি সেবা নিশ্চিত করতে চায়।

ডিজিটালাইজেশনে বাংলাদেশে বিপ্লব ঘটে গেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তরুণ প্রজন্ম এখন স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখছে।
তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন রাঙ্গামাটি জেলার বেতবুনিয়ায় দেশের প্রথম স্যাটেলাইট আর্থ স্টেশন স্থাপন করেন, যার মাধ্যমে বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হয়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার ২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচনী অঙ্গীকারে রূপকল্প-২০২১ ঘোষণা করেছিল, যার মূল লক্ষ্য ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাংলাদেশি জনগণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন নিশ্চিত করা। সরকার ২০১৮ সালে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ কক্ষপথে উৎক্ষেপণ করেছে, যা সম্প্রচার ও টেলিযোগাযোগ খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে।

দেশে মোবাইল ব্যবহার পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমানে ১৮ কোটি মোবাইল সিম ব্যবহার করা হচ্ছে, যেখানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১২ কোটি।’

তিনি বলেন, ‘গ্রামীণ ও শহরাঞ্চলের মধ্যে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের ডিজিটাল বৈষম্য এবং দামের পার্থক্য দূর করা হয়েছে।’

প্রত্যন্ত ও দুর্গম এলাকায় টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে সরকারের সাফল্য তুলে ধরে তিনি বলেন, “সারা দেশে ‘এক দেশ এক দরের’ একটি সাধারণ শুল্ক চালু করা হয়েছে।”

অনুষ্ঠানে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে টেলিযোগাযোগ খাতে প্রশংসনীয় কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ১৪ ক্যাটাগরিতে ২২ প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে নতুন প্রবর্তিত পোস্ট অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
সংকট মোকাবিলায় উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সহায়তার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
ইজতেমার জন্য স্থগিত প্রধানমন্ত্রীর স্কাউটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে নিজস্ব তহবিল তৈরির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
আইএমএফ থেকে ঋণ কোনো শর্তে নয়: প্রধানমন্ত্রী
ব্যবসায়ীদেরকে গ্যাসের কেনা দামটা  দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
3900 employees of IBM are going to work

চাকরি যাচ্ছে আইবিএমের ৩৯০০ কর্মীর

চাকরি যাচ্ছে আইবিএমের ৩৯০০ কর্মীর যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে আইবিএমের করপোরেট সদরদপ্তরের প্রবেশপথে প্রতিষ্ঠানটির লোগো সংবলিত বোর্ড। ছবি: এএফপি
আইবিএমের চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) জেমস কাভানাহ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, বড় ধরনের ছাঁটাইয়ের পরও গ্রাহকমুখী গবেষণার জন্য এখনও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ কোম্পানিটি।

বড় পরিসরে কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দিয়ে যাচ্ছে একের পর এক টেক জায়ান্ট। মেটা, অ্যামাজনসহ আরও কিছু কোম্পানির হাজার হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণার পর একই পথে হেঁটেছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কভিত্তিক বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল বিজনসে মেশিন (আইবিএম) করপোরেশন।

নগদ অর্থের বার্ষিক রিজার্ভের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ায় স্থানীয় সময় বুধবার ৩ হাজার ৯০০ কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

আইবিএমের চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) জেমস কাভানাহ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, বড় ধরনের ছাঁটাইয়ের পরও গ্রাহকমুখী গবেষণার জন্য এখনও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ কোম্পানিটি।

ছাঁটাইয়ের ঘোষণার পর পুঁজিবাজারে আইবিএমের শেয়ারের ২ শতাংশ দরপতন হয়েছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, শেয়ারদরের পতনের নেপথ্যে রয়েছে চাকরিচ্যুতি এবং তারল্যের রিজার্ভের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার খবর।

অর্থবাজারবিষয়ক সাইট ইনভেস্টিং ডটকমের জ্যেষ্ঠ বিশ্লেষক জেসে কোহেন বলেন, দৃশ্যত মনে হচ্ছে, আইবিএমের ঘোষিত ছাঁটাই নিয়ে অর্থবাজার সংশ্লিষ্টরা হতাশ। কোম্পানিটি তাদের মোট জনবলের দেড় শতাংশ ছাঁটাই করেছে।

তার ভাষ্য, আইবিএমের কাছে ব্যয় সংকোচনের আরও কড়া পদক্ষেপ আশা করেছিলেন বিনিয়োগকারীরা।

গত বছরের জন্য তারল্যের বার্ষিক রিজার্ভের লক্ষ্যমাত্রা ১ হাজার কোটি ডলার নির্ধারণ করেছিল আইবিএম, তবে কোম্পানিটি ৯৩০ কোটি ডলার রিজার্ভ রাখতে সক্ষম হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স পুরস্কার পেল ১৫ প্রতিষ্ঠান
সবচেয়ে শক্তিশালী চিপ তৈরি করল আইবিএম

মন্তব্য

কী আছে চ্যাট জিপিটিতে

কী আছে চ্যাট জিপিটিতে  চ্যাট জিপিটি, ডিইউ মামাবোটের সঙ্গে চ্যাটের স্ক্রিনশট (ডানে)। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
আসলে প্রযুক্তি এখন এগোতে এগোতে এমন এক জায়গায় পৌঁছেছে, অনেক প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে মানুষকে তেমন একটা মাথা খাটাতে হচ্ছে না। এতদিন ধরে গুগল বা এমন কিছু সার্চ ইঞ্জিনে এসব সুবিধা মিলতো। তবে এবার এই কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তায় নতুন করে যোগ দিয়েছে ‘চ্যাট জিপিটি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য নির্ধারিত বাস চলাচলের সময় বা কখন কোন রুটে কোন বাস চলছে তা জানাতে একটি ফেসবুক চ্যাটবট আছে। ‘ডিইউ মামাবট’ নামে মেসেঞ্জারভিত্তিক কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন এ চ্যাটবট তৈরি করেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের চতুর্থ বর্ষের দুই ছাত্র মেহেদি হাসান ও আজিজুল হাকিম।

শুধু কি বাসের সময় বা এসব তথ্য? না, এর বাইরেও ওই চ্যাটবটে প্রশ্ন করলে উত্তর মেলে। এই যেমন, যদি জিজ্ঞেস করেন, মামা কেমন আছেন? চ্যাটবটটি মুহূর্তেই উত্তর দেয়- ‘মামা সেই ভাল আছি!! আপনে কেমন আছেন মামা?’

আসলে প্রযুক্তি এখন এগোতে এগোতে এমন এক জায়গায় পৌঁছেছে, অনেক প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে মানুষকে তেমন একটা মাথা খাটাতে হচ্ছে না। এতদিন ধরে গুগল বা এমন কিছু সার্চ ইঞ্জিনে এসব সুবিধা মিলতো। তবে এবার এই কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তায় নতুন করে যোগ দিয়েছে ‘চ্যাট জিপিটি।’

চ্যাট জেনারেটিভ প্রি-ট্রেইনড ট্রান্সফরমার বা চ্যাট জিপিটি হলো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স রিসার্চ কোম্পানি ওপেন এআইয়ের একটি চ্যাটবট। মানুষের কথা বলার ভাষা বুঝতে পারে এই এআই চ্যাটবটটি।

সহজ ভাষায় বলতে গেলে গুগলে যেমন অনেক প্রশ্নের উত্তর মেলে খুব সহজেই, সেই সহজ ব্যবস্থাটি আরও সহজ ও উন্নত হয়ে এসেছে চ্যাটবট চ্যাট জিপিটিতে।

বিশ্বের প্রচুর ডেটা সংগ্রহ করে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে টেক্সট ফরম্যাটে জানাবে এই প্রযুক্তি। গত নভেম্বরে চালু হওয়া এই চ্যাটবট ব্যবহার করতে ওয়েবসাইটে ঢুকে নিবন্ধন করতে হবে। এরপর সহজেই ব্যবহার করে এর মাধ্যমে সেবা পাওয়া যাবে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, চ্যাট জিপিটিকে প্রশ্ন করা হলে মানুষের মতোই উত্তর দিতে পারে। এমনকি এই চ্যাটবটকে যদি কেউ কবিতা লিখতেও বলেন, তাও লেখে দেবে। সার্চ টুল দিয়ে দেবে পরীক্ষাও।

অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটির সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড্যান গিলমোর চ্যাট জিপিটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে একটি অ্যাসাইনমেন্ট লিখতে দিয়েছিলেন। ছাত্রদেরও একই অ্যাসাইনমেন্ট দিয়েছিলেন তিনি। বেশ ভালো ফল দিয়েছে চ্যাট জিপিটি। অ্যাসাইনমেন্ট দেখে গিলমোর বলেন, ‘আমি এই চ্যাটবটকে অবশ্যই ভালো নম্বর দেব।’

ওপেন এআই নতুন সংস্করণের চ্যাটবট প্রকাশের ঘোষণা দিয়ে জানিয়েছে, সংলাপের ধরন বুঝে ফলোআপ প্রশ্নের উত্তর দেয়া, ভুল স্বীকার করা, ভুল বা ত্রুটিপূর্ণ বিষয়কে চ্যালেঞ্জ করা এবং অনুপযুক্ত অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার মতো কাজ করতে দক্ষ হয়ে উঠেছে চ্যাটবটটি।

ইন্টারনেটে থাকা ওয়েব পেজ, ওয়েব টেক্সট, বই, উইকিপিডিয়া, আর্টিকেলসহ বিভিন্ন উৎস থেকে প্রায় ৫৭০ জিবির বেশি ডাটা সমৃদ্ধ চ্যাট জিপিটি। শুধু তাই নয় এই চ্যাটবটে রয়েছে ৩০০ বিলিয়ন শব্দের ভান্ডার। পাশাপাশি একটি বাক্যের পরবর্তী শব্দটি কী হওয়া উচিত তা অনুমান করতেও সক্ষম চ্যাট জিপিটি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আপনি যদি চ্যাট জিপিটিতে গিয়ে সার্চ করেন মূল্যস্ফীতি কি? চ্যাট জিপিটি তার যথোপযুক্ত নির্ভুল উত্তর দেবে। উত্তরটি যদি কোনও কারণে ভুলও হয় তাহলে এর কর্মীরা প্রশ্নের সঠিক উত্তরটি সিস্টেমে ইনপুট করে দেন। ফলে চ্যাট জিপিটির জ্ঞানের ভান্ডার ক্রমশ বাড়তে থাকে।

তবে অনেক সুবিধা থাকলেও চ্যাট জিপিটির মাধ্যমে মূলত টেক্সট রেজাল্ট পাওয়া যায়। ভিডিও বা ভিজ্যুয়াল রেজাল্ট আসে না। এসব বিষয়ে আরও কাজ চলছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সার্বিক পরিস্থিতিতে চ্যাট জিপিটি মাথা ব্যথা বাড়িয়েছে সার্চ ইঞ্জিন সংস্থাগুলোর মধ্যে মোট আয়ের প্রায় ৮০ শতাংশ পাওয়া সার্চ ইঞ্জিন গুগলের। প্রতিযোগিতায় টিকতে গুগলও অবশ্য এবার চ্যাটবট তৈরির পথে এগোচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ইনটেলের চেয়ারম্যান পদ ছাড়লেন ওমর ইশরাক
উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সেবাদান সহজ করতে প্রযুক্তি ব্যবহারের আহবান
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিচ্ছে ৯৩ চাকরি

মন্তব্য

p
উপরে