নুর-রাশেদের দ্বন্দ্বের পেছনে ‘কমল বড়ুয়া’

নুর-রাশেদের দ্বন্দ্বের পেছনে ‘কমল বড়ুয়া’

ছাত্র অধিকারের সূচনালগ্ন থেকে এককাট্টা রাশেদ খান (বাঁয়ে) ও নুরুল হক নুর। ফাইল ছবি

সম্প্রতি ফারুক হাসানের ফেসবুক আইডি হ্যাকড হয়। এরপর ‘কমল বড়ুয়া’ নামে মেসেঞ্জার গ্রুপটিতে রাশেদ ও সোহরাবের আলোচনার কয়েকটি স্ক্রিনশট আনুমানিক এক সপ্তাহ আগে ছড়িয়ে পড়ে। দুই নেতার ‘আপত্তিকর কথোপকথন’ দেখে ক্ষুব্ধ হন নুর। তিনি শুক্রবার ছাত্র যুব এবং শ্রমিক পরিষদের বৈঠক ডাকেন। সেখানে রাশেদ ও সোহরাবকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।  

কর্তৃত্ব নিয়ে বিরোধে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতৃত্ব পড়েছিল হুমকিতে। ডাকসুর সাবেক সহসভাপতি নুরুল হক নুরের সঙ্গে পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রাশেদ খানের দ্বন্দ্ব এসেছিল প্রকাশ্যে। এক দিনের মধ্যে সে বিরোধ সমঝোতার দিকে গেলেও রহস্য রয়ে গেছে ঘটনার শুরু নিয়ে।

ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, সাংগঠনিক নানা সংকট থাকলেও দ্বন্দ্ব প্রকাশ্য রূপ নেয় ‘কমল বড়ুয়া’ নামে একটি মেসেঞ্জার গ্রুপ নিয়ে। দুই নেতার মতবিরোধ উসকে দেয় সেখানকার ফাঁস হওয়া চ্যাটের কয়েকটি স্ক্রিনশট। দ্রুতই পরিস্থিতি জটিল হয়ে পড়ে।

সংগঠনের আহবায়ক রাশেদ খান, যুগ্ম আহবায়ক সোহরাব হোসেন এবং ফারুক হাসানসহ শীর্ষ নেতারা ‘কমল বড়ুয়া’ নামের মেসেঞ্জার গ্রুপটিতে যুক্ত ছিলেন। সেখানে তারা সংগঠনটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতেন। এখানকার আলাপচারিতা নিয়েই সংগঠনে নেতৃত্বের বিরোধ তুঙ্গে উঠে।

নেতারা জানান, সম্প্রতি ফারুক হাসানের ফেসবুক আইডি হ্যাকড হয়। এরপর গ্রুপটিতে রাশেদ ও সোহরাবের আলোচনার কয়েকটি স্ক্রিনশট আনুমানিক এক সপ্তাহ আগে ছড়িয়ে পড়ে।

দুই নেতার ‘আপত্তিকর কথোপকথন’ দেখে ক্ষুব্ধ হন নুর। তিনি শুক্রবার ছাত্র যুব এবং শ্রমিক অধিকার পরিষদের বৈঠক ডাকেন। সেখানে রাশেদ ও সোহরাবকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

২০১৮ সালে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবি নিয়ে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ গঠন করা হয়। নুর ডাকসু ভিপি হয়ে রাজনৈতিক দল গঠনের উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে গেলে এবং ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা হলে পরিষদের দায়িত্ব পান রাশেদ খান। আর নুর এই সংগঠনে যুক্ত থাকেন যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে।

নুর-রাশেদের দ্বন্দ্বের পেছনে ‘কমল বড়ুয়া’
সংগঠনে কর্তৃত্ব নিয়ে বিরোধের তিন দিন আগে ৩০ জুন ‘একতাই আমাদের শক্তি’ উল্লেখ করে নুরের সঙ্গে ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করেন রাশেদ খান।

সংগঠনের শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজে যুক্ত থাকার অভিযোগ তুলে রোববার রাত তিনটায় প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে রাশেদ খান এবং সোহরাব হোসেনকে ছাত্র পরিষদ থেকে সাময়িক অব্যাহতির বিষয়টি প্রকাশ করা হয়।

এতে ক্ষুব্ধ হন আবার রাশেদ খান। তিনি সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক। কিন্তু নুর সেখানে যুগ্ম আহ্বায়ক। তবে তিনি পদ ব্যবহার করেছেন সমন্বয়ক হিসেবে। কিন্তু সংগঠনে এই পদ বলতে কিছু নেই। রাশেদ খান চিঠি দিয়ে জানতে চান, কেন এই পদ ব্যবহার করা হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে নুরকে জবাব দেয়ার নির্দেশ দিয়ে চিঠিতে বলা হয়, নইলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে বিকেলেই অনলাইন মিটিং করে রাশেদ-সোহরাবকে বহিষ্কারের আদেশ প্রত্যাহার করে নেন নুর।

বহিষ্কারের আদেশ প্রত্যাহারের আগে রাশেদ ও সোহরাবের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ জানতে চাইলে নুর স্ক্রিনশটের কথা না বললেও ‘কমল বড়ুয়া’ নামের মেসেঞ্জারের চ্যাট গ্রুপের কথা জানান নিউজবাংলাকে।

নুর বলেন, ‘কমল বড়ুয়া’ নামে মেসেঞ্জারে এটি চ্যাট গ্রুপ খুলে সংগঠন ভাঙার চেষ্টা করছিল রাশেদ খান। এটির মাধ্যমে সে সংগঠনের ত্যাগী নেতাদের নিয়ে নানা ধরনের বিভ্রান্তি এবং অপপ্রচারের জন্য একটা সংঘবদ্ধ গ্রুপ তৈরি করছিল। এ অভিযোগে তাকে এবং সোহরাব হোসেনকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

ঘটনার বিষয়ে সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দপ্তর সম্পাদক সালেহ উদ্দীন সিফাত বলেন, ‘কয়েকটি স্ক্রিনশটকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন জেলার যে কমিটিগুলো আছে সেগুলো নিয়ে সেখানে কিছু আলোচনা ছিল। বিভিন্ন জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্ধারণ বা বাদ দেয়া নিয়েই এসব আলোচনা।

‘যেমন, অমুককে সভাপতি করা হোক। অথবা অমুককে বাদ দেওয়া হোক, তার সমস্যা আছে, সে অনুগত থাকবে না। এই ধরনের আলোচনাগুলোকে বিভিন্ন জেলার সমস্যাগুলো উসকে দেয়ার শামিল বলে চিহ্নিত করেন নুর ভাই। এর থেকেই মূলত সমস্যা তৈরি হয়।’

সিফাত আরও বলেন, ‘রাশেদ ভাই অনেক দিন ধরে বলে আসছেন সংগঠনে সমন্বয়কের কোন কথা আগে উল্লেখ ছিল না। এই ধরনের পদ যেন না থাকে। এটি দুজনের সম্পর্কের অবনতি ঘটায়। তবে স্ক্রিনশটগুলো অনেক আগের। মাঝখানে ফারুক হাসান ভাইয়ের আইডি হ্যাকড হয়েছিল৷ হ্যাকাররা আগের কনভারসেশনগুলো পাবলিক করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহসভাপতি আসিফ মাহমুদ বলেন, ‘রাশেদ ভাইয়ের চ্যাটের একটা স্ক্রিনশট সংগঠনের তৃণমূল পর্যন্ত ব্যাপক প্রচার করা হয়। এতেই সমস্যার সৃষ্টি৷ সংগঠনের একজন যুগ্ম আহ্বায়ক এবং নুর ভাইকে নিয়ে রাশেদ ভাই কিছু বলেছিলেন। সেখানে নুর ভাইয়ের স্বঘোষিত ছাত্র যুব শ্রমিক পরিষদের সমন্বয়ক বনে যাওয়া নিয়েই সোহরাব ভাই আর রাশেদ ভাইয়ের মধ্যে কথা হচ্ছিল। আর এটা থেকেই সমস্যা বেড়েছে। কথাগুলো ছিল প্রায় দুই মাস আগের। কিন্তু প্রকাশ হয়েছে কিছুদিন আগে।’

সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান খান বলেন, ‘সংগঠনে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বিভিন্ন গ্রুপ থাকে। সে গ্রুপে অনেকে ব্যক্তিগত বিষয় শেয়ার করে। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এসব গ্রুপে আলোচনা করে সঠিক সিদ্ধান্তে আসা হয়৷ স্ক্রিনশটের ভিত্তিতে শাস্তি দেয়া হাস্যকর ব্যাপার। এভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া অন্যায়।’

তিনি বলেন, ‘সংগঠনের অনেকের মধ্যে রাশেদ খানকে নিয়ে ক্ষোভ বা তাকে কীভাবে দমানো যায় সেই চিন্তা থাকতে পারে। জুনিয়র নেতাদের মাধ্যমে স্ক্রিনশট শেয়ার দিয়ে অনেক নোংরামি করা হয়েছে৷ মূলত কোন্দল আর ভুল বোঝাবুঝি নিয়েই সমস্যার সূত্রপাত।’

মাহফুজুর রহমান আরও বলেন, ‘নুর যখন সমন্বয়কের পদ ব্যবহার করছিলেন তখন আমরা মানা করেছিলাম। যেহেতু সামনে নতুন দল গঠন হচ্ছে। কিন্তু এরপর সে কোনো চাপে হয়তো এই পদ ব্যবহার করে সুপ্রিমেসির (শ্রেষ্ঠত্ব) জায়গা তৈরি করে শাস্তি দেওয়ার দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চেয়েছিলেন। আমরা অসাংগঠনিক এই পদের বিরুদ্ধে কথা বলে আসছিলাম।’

স্ক্রিনশটে কী ছিল জানতে চাইলে মাহফুজ বলেন, ‘স্ক্রিনশটটা আমি শুরুতে দেখিনি। পরে দেখেছি। সেখানে এক জায়গায় দেখলাম পটুয়াখালী বা কোনো এক জায়গায় রাশেদের নাম দিয়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। আরেক জায়গায় দেখলাম সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেককে বের করে দিতে হবে লিখা হয়েছে৷ এসব নিয়েই মূলত সমস্যার সৃষ্টি।’

সার্বিক বিষয় নিয়ে রাশেদ খান বলেন, ‘এসব কিছুই না। সংগঠনে চলতে গিয়ে অনেক সময় বিভিন্ন মতানৈক্য তৈরি হয়৷ সংগঠনের কেউ হয়তো আমার নামে নুরকে ভুল বুঝিয়েছে, নুরের নামে আমাকে ভুল তথ্য দিয়েছে৷ সে জায়গা থেকে আমাদের মাঝে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে হবে সে লক্ষ্যে আমরা মিটিং করে সব সমাধান করেছি৷’

রাশেদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের আগে নুর এই ঘটনায় গোয়েন্দাদের হাত থাকার অভিযোগ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘বিভিন্নভাবেই রাজনৈতিক দল ভাঙনে সরকারের গোয়েন্দাবাহিনী বা সরকারের ইন্ধন থাকে৷ আমরা যেহেতু সরকার বিরোধী জায়গা থেকে রাজনীতি করি আমাদের প্লাটফর্ম ভাঙনের জন্য এখানেও গোয়েন্দা বাহিনী জড়িত থাকতে পারে।’

এ ছাড়া তার অভিযোগ ছিল, রাশেদ খান ম্যাসেঞ্জার গ্রুপ তৈরি করে পরিষদে ভাঙন ধরানোর চেষ্টা করছেন।

তবে ২৪ ঘণ্টা যেতে না যেতেই রাশেদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নুর বলেন, ‘বহিষ্কারাদেশ এবং কমিটি বিলুপ্তির বিষয়টি উইথড্র করা হয়েছে। রাশেদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ সেটি প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাই আমরা তার অব্যাহতি তুলে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি৷’

আরও পড়ুন:
নিজেরা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে অন্যের মুখে ছাই নুরের
রাশেদের পেছনে গোয়েন্দা, সমঝোতার আগে নুরের অভিযোগ
বিরোধ জমিয়ে নুর-রাশেদের ইউটার্ন
ছাত্র অধিকার থেকে রাশেদকে বের করে দিলেন নুর
বিয়ের আগে যৌন সম্পর্ক নিয়ে মুখোমুখি বাবা-মেয়ে

শেয়ার করুন

মন্তব্য