শাটডাউন

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’

শাটডাউনে সিলেট সিটি করপোরেশনের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন বিয়েতে কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমান। ছবি: নিউজবাংলা

সিলেট-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব শাটডাউনের প্রথম দুই দিনই নিজ নির্বাচনি এলাকার বিভিন্ন মসজিদে যান। নামাজ আদায় শেষে সবার সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন, বক্তৃতাও দেন। তবে এসব কর্মসূচির কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়নি।

শাটডাউনের মধ্যে বিয়ে সেরে কনে নিয়ে মাইক্রোবাসে করে ফিরছিলেন বর। সড়কে তাদের গাড়ি আটকায় পুলিশ। এরপর ম্যাজিস্ট্রেট গিয়ে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন বরকে।

সিলেট নগরের হুমায়ুন রশীদ চত্বর এলাকায় শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

এর কয়েক ঘণ্টা আগে শুক্রবার দুপুরে ফেসবুকে কয়েকটি বিয়ের ছবি আপলোড করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা ইলিয়াসুর রহমান ইলিয়াস। ক্যাপশনে লেখা, ‘গতকাল বিভিন্ন বিয়ের অনুষ্ঠানে।’

শাটডাউন ঘোষণার প্রথম দিন ৮ নম্বর ওয়ার্ডে এই বিয়েগুলো সম্পন্ন হয়। সেগুলোতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর ইলিয়াস। ফেসবুকে দেয়া সেসব ছবির মধ্যে বর-কনেসহ অতিথিদের সঙ্গে ছবিতে দেখা গেছে তাকেও। কারও মুখেই ছিল না মাস্ক।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে বৃহস্পতিবার থেকে সারা দেশে সাত দিনের শাটডাউন চলছে। গত বুধবার জারি করা শাটডাউনের প্রজ্ঞাপনে ২১ দফার নির্দেশনার মধ্যে আছে, জনসমাবেশ হয় এ ধরনের সামাজিক (বিবাহোত্তর অনুষ্ঠান, জন্মদিন, পিকনিক পার্টি ইত্যাদি), রাজনৈতিক ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

শাটডাউন কার্যকরে বৃহস্পতিবার থেকেই সারা দেশের মতো সিলেটে কঠোর অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিজিবি ও সেনাবাহিনী। মাঠে রয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালতও।

কেউ অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হলে কিংবা বিয়েসহ সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে জরিমানা গুনতে হচ্ছে। গত দুই দিনে সিলেট জেলায় অন্তত ৪০০ ব্যক্তিকে প্রায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

অথচ রাজনৈতিক নেতারা, বিশেষত ক্ষমতাসীন দলের নেতা এবং জনপ্রতিনিধিরা শাটডাউনের নির্দেশনা ভেঙে ও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে অবাধেই অংশ নিচ্ছেন বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে। জনসমাগম করে নির্বাচনি প্রচারও চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা।

শাটডাউনে নগরীতে সিটি মেয়র আরফিুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের চালানো অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সিটি কাউন্সিলররাও।

‘সাধারণ মানুষের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে নিজেই শাটডাউনের নিদের্শনা ভেঙে বিয়ের আয়োজনে উপস্থিত হওয়া কেন?’

জবাবে কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমান ইলিয়াস বলেন, ‘জাঁকজমক বিয়ে নয়, আসলে ঘরোয়া অনুষ্ঠান ছিল। আমার ওয়ার্ডোর বিয়া। এর লাগি একটু দেখা দিয়া আইছি। যাওয়ার লাগি যাওয়া আরকি।’

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’
যুবলীগ চেয়ারম্যানের জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার শাহজালাল মাজারে আয়োজিত দোয়া মাহফিল

যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের জন্মদিন ছিল বুধবার। এ উপলক্ষে শুক্রবার দুপুরে হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজার প্রাঙ্গণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে সিলেট মহানগর যুবলীগ।

মহানগর যুবলীগের পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি, সাধারণ সম্পাদক মুশফিক জায়গীরদার ছাড়াও মহানগর ও ওয়ার্ড যুবলীগের বিপুল নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

শাটডাউনে এই জনসমাগম প্রসঙ্গে মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিধিনিষেধ ঠিক আছে। আমরা অল্প মানুষ দরগায় দোয়া করছি।

‘এর পরে বাইরে গরিব, অসহায়, ছিন্নমূল মানুষের মাঝে আমরা আম ও মাস্ক বিতরণ করেছি। মূলত গরিব মানুষকে সাহায্য করতেই উদ্যোগ নেয়া হয়।’

হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর ৭০২তম ওরশ শরিফ ছিল বৃহস্পতিবার। করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় আগেই ওরশের সব আনুষ্ঠানিকতা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল মাজার কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয় শাটডাউন।

সেদিন অর্ধশতাধিক নেতা-কর্মী নিয়ে শাহজালাল মাজারের ওরশে উপস্থিত হন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সিলেট-২ আসনের সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী। মাজারে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে গিলাফ দেন তিনি।

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’
শাহজালাল মাজারে বৃহস্পতিবার এই সমাগমে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী

সে সময়ের ছবি ওই দিনই নিজের ফেসবুকে পোস্ট করেন শফিকুর। ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘হযরত শাহ জালাল (রহ.) ৭০২তম পবিত্র উরশ শরিফ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার পক্ষে মাজারে গিলাফ ছড়াচ্ছি...কবির উদ্দিন আহমদ, সৈয়দ এপতেয়ার হোসেন পিয়ার, আলম খান মুক্তি, শেখ জালাল ফরিদ উদ্দিন, কবিরুল ইসলাম কবির, হোসিয়ার আলমসহ নেতৃবৃন্দকে নিয়ে...।’

এ বিষয়ে শুক্রবার রাতে কল করা হলে শফিুকর রহমান চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দরগাত ইটা তারা (দরগাহ কর্তৃপক্ষ) দিছইন, আমরাও দিছি একটা রাতে। এটাত কোনো অসুবিধা নাই।

‘তবে না দেয়াটা ভালা। খাদেম একজনে লইয়া রাখছইন। এটা আসলে ভুলই হয়ে গেছে। খেয়াল করছি না। বাদ দিলাইন; এটা লইয়া নিউজ করার দরকার নাই।’

২৮ জুলাই সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন। শাটডাউন চলাকালে সব ধরনের প্রচার বন্ধ রাখতে প্রার্থীদের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার দুই দিনই নিজের নির্বাচনি এলাকার বিভিন্ন মসজিদে যান হাবিব। নামাজ আদায় শেষে সবার সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন, বক্তৃতাও দেন। তবে এসব কর্মসূচির কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়নি।

অথচ শাটডাউনের মধ্যে মসজিদে নামাজ আদায়ে যেতে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে ৯টি নির্দেশনা দেয়া হয়। তাতে বলা হয়, আগত মুসল্লিদের অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। নামাজের কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’
দক্ষিণ সুরমার মসজিদে বৃহস্পতিবার এভাবে আলাপচারিতায় দেখা যায় সিলেট- ৩ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবকে



শাটডাউনের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজ নির্বাচনি এলাকা দক্ষিণ সুরমার বরইকান্দি এলাকায় একটি মসজিদে মাগরিবের নামাজ শেষে মুসল্লিদের সঙ্গে কুশলবিনিময় করেন হাবিব। রাতে নিজের ফেসবুকে কুশল বিনিময়ের একাধিক ছবি প্রকাশ করেন তিনি।

এতে দেখা যায়, হাবিবসহ উপস্থিত প্রায় কারও মুখে মাস্ক নেই। সামাজিক দূরত্বের নির্দেশনা না মেনে সবাই গাদাগাদি করে আছেন।

সে সময় মসজিদে উপস্থিত একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নামাজ শেষে জনাপঞ্চাশেক লোক হাবিবকে ঘিরে ধরেন; করমর্দন করেন। বেশির ভাগের মুখেই মাস্ক ছিল না। এমনকি হাবিবের মাস্কও নামানো ছিল থুতনিতে। এরপর উপস্থিত জনতার উদ্দেশে ভোট চেয়ে বক্তৃতাও দেন তিনি।

ওই রাতে দক্ষিণ সুরমার একটি কমিউনিটি সেন্টারে হাবিবুর রহমান হাবিবের সমর্থনে সভা হয়। তাতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী অংশ নেন।

এরপর শুক্রবার ফেঞ্চুগঞ্জের রাজনপুর জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করেন হাবিব। ওই দিনও নামাজ শেষে তিনি মুসল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এরপর নেতা-কর্মীদের নিয়ে হজরত ইসহাক আলী শাহ্ (রহ.), হজরত শাহ্ সৈয়দ আলী (রহ.) ও হজরত গোলাপ শাহ্ (রহ.)-এর মাজার জিয়ারত করেন।

জনতাকে জরিমানা, নেতার সমাগমে ‘নেই মানা’
ফেঞ্চুগঞ্জের একটি মসজিদে শুক্রবার জনসমাগমে হাবিবুর রহমান হাবিব

এ বিষয়ে শুক্রবার রাতে সিলেট-৩ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। রাতে হাবিবের ই-মেইল আইডি থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই মসজিদে জড়ো হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। তাতে বলা হয়, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুসল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন হাবিব।’

নেতাদের শাটডাউনের নির্দেশনা উপেক্ষা প্রসঙ্গে সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, ‘শাটডাউন বাস্তবায়নে আমরা কঠোর অবস্থানে আছি। কাউকেই ছাড় দেয়া হচ্ছে না।

‘রাজনৈতিক নেতা-জনগণ সবাইকেই এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে; আমাদের সহযোগিতা করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
শাটডাউনে হাতিরঝিলে জন্মদিন
সেনা টহলে পাল্টে গেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিত্র
চাকা না ঘুরলে শ্রমিকদের টাকা নেই
শাটডাউনে বিয়ে করে জরিমানা
শাটডাউনে আটক: রাতে হাজতবাসের পর জরিমানায় মুক্তি

শেয়ার করুন

মন্তব্য