দানের টিকায় করোনা মোকাবিলা সম্ভব নয়

দানের টিকায় করোনা মোকাবিলা সম্ভব নয়

জি এম কাদের বলেছেন, প্রতিদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে আশ্বাসের কথা বলা হচ্ছে, কিন্তু কোনো সাফল্য নেই।

‘সারা বিশ্বের উন্নত ও অনুন্নত দেশগুলো এর মধ্যেই রোডম্যাপ অনুযায়ী গণটিকা কর্মসূচি শুরু করেছে। ওই সব দেশের মানুষ জানেন, কখন তাদের টিকাদান কর্মসূচি শেষ হবে। কিন্তু, আমাদের দেশের কেউই জানেন না কখন আমরা গণটিকা শুরু করতে পারব।

দানের সংগৃহীত অপর্যাপ্ত টিকায় করোনার মতো মহামারি মোকাবিলা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

বুধবার তার বনানীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ‘সময়ের আয়নায় পল্লীবন্ধু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাপা চেয়ারম্যান এমন মন্তব্য করেন।

জি এম কাদের বলেন, ‘করোনা মহামারি মোকাবেলায় ভ্যাকসিন প্রধান অস্ত্র হিসাবে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত হচ্ছে।’

‘বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে ৮০ শতাংশ জনসাধারণকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা গেলে স্বাভাবিক জীবন যাপন সম্ভব হবে। অনেক দেশ ক্রমান্বয়ে সে পরিস্থিতি অর্জনের পথে সাফল্য দেখাচ্ছে। আমাদের মতো জনবহুল দেশে উপহার আর দানের সংগৃহীত অপর্যাপ্ত টিকা দিয়ে করোনার মতো মহামারি মোকাবিলা সম্ভব নয়।’

সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা বলেন, ‘প্রতিদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে আশ্বাসের কথা বলা হচ্ছে কিন্তু কোনো সাফল্য নেই।’

‘টিকা কূটনীতিতে বাংলাদেশ পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। বিভিন্ন দেশ থেকে উপহারের ৫ থেকে ১০ লাখ টিকা পেয়ে স্বস্তির ঢেকুর তুলছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। অথচ ১৮ কোটি মানুষের টিকা পাওয়ার বিষয়টি এখনও সম্পূর্ণ অনিশ্চিত। বিশ্বাসযোগ্য কোনো তথ্য-উপাত্ত নেই সরকারের ঘোষণায়। টিকার বিষয়ে দেশের মানুষের মাঝে হতাশা ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের মানুষ করোনার টিকা পাওয়ার বিষয়ে সরকারের সুস্পষ্ট ঘোষণা জানতে চায়।’

‘সারা বিশ্বের উন্নত ও অনুন্নত দেশগুলো এর মধ্যেই রোডম্যাপ অনুযায়ী গণটিকা কর্মসূচি শুরু করেছে। ওই সব দেশের মানুষ জানেন, কখন তাদের টিকাদান কর্মসূচি শেষ হবে। কিন্তু, আমাদের দেশের কেউই জানেন না কখন আমরা গণটিকা শুরু করতে পারব।’

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ‘অদূরদর্শিতার কারণে টিকা ক্রয়ে বিকল্প কোনো সোর্স রাখেনি সরকার। অথচ গেল বছর বারবার সরকারকে টিকা ক্রয়ে বিকল্প সোর্স রাখতে পরামর্শ দিয়েছিলাম আমরা। এ ছাড়া বাজেটে টিকা ক্রয়ের জন্য স্পষ্ট বরাদ্দ নেই। তবে বাজেট বক্তৃতায় কিছু দেশ ও সংস্থার কাছ থেকে ভ্যাকসিন সরবরাহ এবং ভ্যাকসিন ক্রয়ের অর্থপ্রাপ্তির আশ্বাস উল্লেখ করা হয়েছে। বিষয়টি এখনও সে পর্যায়ে আছে।’

জি এম কাদের বলেন, ‘স্বাস্থ্যসেবা উন্নত করতে উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে সরকারের কোনো পরিকল্পনা আছে বলে মনে হয় না। তাই আমরা চাই উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালে অক্সিজেন সহায়তা এবং আইসিইউ থাকতে হবে। সকল পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা থাকতে হবে জেলা পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালে। যেহেতু যথেষ্ট পরিমাণ করোনা ভ্যাকসিন পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না, সে ক্ষেত্রে করোনা ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। সে পরিস্থিতিতে আমাদের চিকিৎসাব্যবস্থা ভেঙে পড়বে। তাই পরিকল্পিতভাবে আমাদের দেশের চিকিৎসাব্যবস্থা উন্নত করতে হবে। গণহারে মৃত্যু ঠেকাতে অনতিবিলম্বে চিকিৎসাব্যবস্থার উন্নয়নে বাস্তবায়নে মেগা প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে। একই সঙ্গে দেশীয় করোনা ভ্যাকসিনের টিকা উদ্ভাবনের যেকোনো উদ্যোগকে সহযোগিতা দিতে হবে।’

এরশাদ নিয়ে গবেষণা করবে আগামী প্রজন্ম

এ সময় জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের ছোট ভাই জি এম কাদের বলেন, “আগামী প্রজন্ম একসময় পল্লিবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জীবনী নিয়ে গবেষণা করবে। তখন ‘সময়ের আয়নায় পল্লীবন্ধু’ বইটি তরুণ প্রজন্মের কাছে সমাদৃত হবে। আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে এরশাদের অবদান স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।’’

জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান ও “সময়ের আয়নায় পল্লীবন্ধু” গ্রন্থের প্রকাশক আহসান আদেলুর রহমানের সভাপাতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রকাশনা উৎসবে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। আরও বক্তব্য রাখেন দলের কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, কো-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
টিসিবির মাধ্যমে বাজার নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়: জাপা

শেয়ার করুন

মন্তব্য