আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের সব অর্জন

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের সব অর্জন

সচিবালয়ে বুধবার দুপুরে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি ও মুজিব শতবর্ষে ‘আমাদের মুক্তি আমাদের স্বাধীনতা’ শীর্ষক হাওয়াইয়ান গিটারে ৫০ জন শিল্পীর দেশাত্মকবোধক যন্ত্রসঙ্গীতের অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন করেন মন্ত্রী। ছবি:সংগৃহীত

‘১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পরই তখনকার ড্রয়িংরুমভিত্তিক রাজনীতি জনগণের কাছে যায়। প্রথমে আওয়ামী মুসলিম লীগ হলেও পরে মুসলিম শব্দ বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ একটি অসাম্প্রদায়িক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।’

বাঙালির সব অর্জন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এসেছে জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ—এ দুটি নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম, স্বাধীনতাযুদ্ধ এবং স্বাধীনতা অর্জন।’

সচিবালয়ে বুধবার দুপুরে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি ও মুজিব শতবর্ষে ‘আমাদের মুক্তি আমাদের স্বাধীনতা’ শীর্ষক হাওয়াইয়ান গিটারে ৫০ জন শিল্পীর দেশাত্মবোধক যন্ত্রসংগীতের অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন করেন মন্ত্রী। এ সময় তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পরই তখনকার ড্রয়িংরুমভিত্তিক রাজনীতি জনগণের কাছে যায়। প্রথমে আওয়ামী মুসলিম লীগ হলেও পরে মুসলিম শব্দ বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ একটি অসাম্প্রদায়িক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।’

ইতিহাসে দৃষ্টিপাত করে তিনি বলেন, ‘১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় সরকার গঠন করার আগ পর্যন্ত পাকিস্তানের কোনো সংবিধান ছিল না। নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নেতৃত্বে পাকিস্তানের প্রথম সংবিধান রচিত হয়।

‘১৯৫২ সালে আমাদের ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠা হলেও প্রকৃতপক্ষে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলা ভাষা চালু হওয়া, ২১শে ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রীয়ভাবে পালন এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে শহীদ মিনার নির্মাণ সবই শুরু হয় ১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সরকার গঠন করার পর।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছয় দফা স্বাধীনতার লক্ষ্যে বাঙালির মনন তৈরি করেছিল বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘১৯৭০ সালের নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের হয়েই অংশ নিয়েছিলেন এবং আওয়ামী লীগ ধস নামানো বিজয় অর্জন করেছিল। তার পরিপ্রেক্ষিতেই অসহযোগ আন্দোলন এবং পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর ডাকে স্বাধীনতাসংগ্রাম, স্বাধীনতা ঘোষণা, স্বাধীনতাযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন। সে কারণেই আজকে বাংলাদেশের সমস্ত অর্জনের সঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নাম জড়িয়ে আছে।’

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছিল বলে বাংলার সংস্কৃতি, ভাষা রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, “আজকে ২১শে ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। ‘আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি’—এই গান এখন সারা পৃথিবীতে বাজানো হয়, জাতিসংঘ দিবস হিসেবে। সারা পৃথিবীতে বাজানো হয় বিভিন্ন ভাষায়।’’

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়া, পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ঘনবসতিপূর্ণ খাদ্যঘাটতির দেশ আজ খাদ্যে উদ্বৃত্তের দেশে রূপ নেয়া, মাথাপিছু আয়ে ভারতকেও ছাড়িয়ে যাওয়া, সামাজিক, অর্থনৈতিক, মানব উন্নয়ন—সব সূচকে পাকিস্তানকে অতিক্রম করা, করোনার মধ্যেও মাথাপিছু আয় বাড়া—সবই হয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

বেতারের পাশাপাশি সকল টেলিভিশনেও হাওয়াইয়ান গিটারভিত্তিক অনুষ্ঠান প্রচারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন মন্ত্রী। অনুষ্ঠানে হাওয়াইয়ান গিটার শিল্পী পরিষদের ৫০ জন সদস্যের বাজানো একটি দেশের গানে ভিডিও প্রদর্শিত হয়।

হাওয়াইয়ান গিটার শিল্পী পরিষদের সদস্য কবির আহমদ, শফিউল্লাহ খোকন, ফরহাদ আজিজ ও আব্দুর রউফ অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নামাজ পড়ি না বলে মুরতাদ বলতে পারেন না: জাফরুল্লাহ

নামাজ পড়ি না বলে মুরতাদ বলতে পারেন না: জাফরুল্লাহ

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘সন্ত্রাস ও উগ্রবাদ নয়: সম্প্রীতি, ইনসাফ ও সহনশীলতাই ইসলাম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। ছবি: নিউজবাংলা

গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমি নামাজ পড়ি না বলে আমাকে মুরতাদ বলার অধিকার আলেমদের নাই। এ বিষয়ে আল্লাহ সিদ্ধান্ত নিবেন। নামাজ পড়ি না বলে আমাকে বেত মারার অধিকার আপনার নাই, খোদা বিচার করবেন। আজকে আলেমদের নামে কেনো বলাৎকারের অভিযোগ আসবে? অন্যরা করলে দোষ হয় না, কিন্তু আপনারা করলে দোষ হবে। কারণ মানুষ আপনাদের সম্মান করে। আপনারা যেকোন দোষ করলে দোষটা বড় হয়ে যায়।’

গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, কেউ নামাজ আদায় না করলে তাকে মুরতাদ বলার অধিকার আলেমদের নেই।

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের তৃতীয় তলায় ‘সন্ত্রাস ও উগ্রবাদ নয়: সম্প্রীতি, ইনসাফ ও সহনশীলতাই ইসলাম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। আলোচনা সভা আয়োজন করে, বাংলাদেশ জাতীয় মুফাসসির পরিষদ।

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আমি নামাজ পড়ি না বলে আমাকে মুরতাদ বলার অধিকার আলেমদের নাই। এ বিষয়ে আল্লাহ সিদ্ধান্ত নিবেন। নামাজ পড়ি না বলে আমাকে বেত মারার অধিকার আপনার নাই, খোদা বিচার করবেন। আজকে আলেমদের নামে কেনো বলাৎকারের অভিযোগ আসবে? অন্যরা করলে দোষ হয় না, কিন্তু আপনারা করলে দোষ হবে। কারণ মানুষ আপনাদের সম্মান করে। আপনারা যেকোন দোষ করলে দোষটা বড় হয়ে যায়।’

ভোট ডাকাতির চেয়ে বড় জঙ্গি কে প্রশ্ন রেখে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ভোট ডাকাতির চেয়ে বড় জঙ্গি নাই। যাদের দাড়ি আছে, টুপি পড়ে তাদের জঙ্গি বলি। এটা অন্যায়, ভাঁওতাবাজি। এই ভাঁওতাবাজি বন্ধের জন্য আমাদেরকে বুদ্ধিমান হতে হবে।’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ন্যায় প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়ার নামই হলো জিহাদ। মানুষের ওপর অত্যাচারের প্রতিবাদে ইসলাম একটি বিজ্ঞানসম্মত ধর্ম। অর্ধমের বিরুদ্ধে সংগ্রামই জিহাদ। অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামই জিহাদ। অধিকার বঞ্চিত মানুষের ন্যায়ের অধিকার প্রতিষ্ঠা করাই জিহাদ।

‘জিহাদ বললে আমাদের লজ্জা পাওয়ার কিছু নাই। ভাবতে হবে আমি ন্যায়ের পক্ষে আছি। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গিকার ছিল গণতন্ত্র, সামান্য এবং জনগণের অধিকার। মুক্তিযুদ্ধে সবই ইসলামের কথা বলেছি। মানুষের কথায় বলেছি, ন্যায়ের কথাই বলেছি। আজ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ভূলন্ঠিত, সে জন্য সংগ্রামে যেতে হবে।’

তালেবানদের সাহায্য করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘তালেবানরা মুক্তিযোদ্ধা। তারা ২০ বছর যুদ্ধ করে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। তাদের সালাম করতে হবে। শুধু সালাম করলে হবে না, দায়িত্বও আছে। সেখানে খাদ্য সংকটের কথা উঠেছে। এখানে ১৬ কোটি মানুষ, তালেবানদের কয়েক বছর খাওয়াতে পারেন।’

উপস্থিত সবার উদ্দেশে আফগানিস্তানে দ্রুত খাদ্য সহায়তা পাঠানোর আহ্বান জানান জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন আল্লামা সাইয়েদ কামাল উদ্দিন জাফরী, উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম, ড. মাওলানা এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী, মাওলানা মাহমুদুল হাসান ফেরদৌস (পীর সাহেব), মুফতি একেএম ফারুক সিদ্দিকী ও কাজী আবু হুরাইরাহ সভাপতি জাতীয় ইমাম সমিতি। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মুহাম্মদ এমরানুল হক মোহাদ্দিস, নয়াটলা কামিল মাদরাসা।

শেয়ার করুন

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীরপ্রতীক।

সাম্প্রতিক রাজনীতি নিয়ে নিউজবাংলার মুখোমুখি হয়েছেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। ২০-দলীয় জোট নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই কোনো দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও ভিন্ন হবে।’

মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান। তার দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের শরিক হলেও সম্প্রতি তার কথাবার্তায় জোট ত্যাগের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে জোট ও সরকারবিরোধী আন্দোলন নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলে তার সঙ্গে।

প্রশ্ন: আপনি কি ২০-দলীয় জোট ছেড়ে যাচ্ছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: না না, ২০ দল ছেড়ে যাব কেন? সেদিন এমন কোনো কথা বলিনি। আমরা অনেক দিন যাবৎ আবেদন করছি, অনুভূতি প্রকাশ করছি, প্রধান শরিক বিএনপির সঙ্গে চলতে আমরা আনন্দিত। কিন্তু তাদের কাছে আবেদন, আপনারা আত্মসমালোচনামূলক একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০ দলকে পুনর্গঠিত করুন। ২০ দল, ১৮ দল, ১০ দল, ২২ দল করেন, কিন্তু আত্মসমালোচনার প্রক্রিয়া নেয়া প্রয়োজন। কারণ গত আট-নয় বছরে আমরা অনেক ভুল করেছি, ভালো কাজও করেছি, সুতরাং এই আত্মসমালোচনা প্রয়োজন। যদি একান্তই আমাদের প্রধান শরিকের পক্ষে সম্ভব না হয়, তাহলে আমরা নিশ্চয়ই নিজেদের কর্মপন্থা স্থির করব।

প্রশ্ন: বিষয়টি কি এমন যে আপনি বিএনপির কাছে মূল্যায়ন চান? মূল্যায়ন পাচ্ছেন না বলেই কি এমন কথা বলছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: অবশ্যই মূল্যায়ন আত্মসমালোচনার একটা অংশ।

প্রশ্ন: কী ধরনের মূল্যায়ন আসলে চান?

জেনারেল ইবরাহিম: আমরা চাই, কোন দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও তো ভিন্ন হবে। এখন থেকে চার-পাঁচ বছর আগে দেশনেত্রী, আমরা রোডমার্চ করেছি, বিভিন্ন জেলায় বিভাগীয় শহরে, বড় শহরে জনসভা হয়েছে। সেটা এখন সম্ভব না, যেহেতু সরকার এখন বৈরী পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। তাহলে এ প্রেক্ষাপটে আমাদের করণীয় কী হতে পারে, সেটা আমাদের স্থির করতে হবে, শুধু সংখ্যা দিয়ে তো আর জোট করলে হবে না, সারবস্তু চাই।

এখন আমরা চরম সংকটে আছি। রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য এই সংকট সৃষ্টি করেছে সরকার, সরকারবিরোধী শিবিরের রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অস্তিত্বের সংকট সৃষ্টি করেছে, কর্মযজ্ঞের সংকট সৃষ্টি করেছে। সমগ্র দেশের রাজনীতিকে সংকটাপন্ন অবস্থায় নিয়ে গেছে, বিরাজনীতিকরণ প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে। সুতরাং এখানে গভীর বিশ্লেষণের মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে যে, গণতন্ত্রকে কেমন করে পুনরায় ফেরত আনা যায়।

প্রশ্ন: মূল্যায়নটা পাচ্ছেন না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি তো বলি নাই মূল্যায়ন পাচ্ছি না। বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাই এমন। আমি একটা কঠিন শব্দ ব্যবহার করতে চাই, আশা করি আপনারা এটা গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবেন। সেটা হলো, আমরা শুধু শাসনকারী রাজনৈতিক দলের পরিবর্তন চাই না। শাসনকারী যেই হোক না কেন, কল্যাণ পার্টি অবশ্যই তার মধ্যে গুণগত পরিবর্তন চায়, তার অতীতের কর্মকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে আগামীতে তার গুণগত পরিবর্তন চায়। যিনি হবেন হন। কারণ শুধু শাসক পরিবর্তন করলেই তো বাংলাদেশে সমস্যার সমাধান হবে না। দেশের সমস্যাগুলো অনুধাবনে যদি সেই গুণগত পরিবর্তন না থাকে, তাহলে তো হবে না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোটের পাশাপাশি আপনারা একটি উপজোটের মতো করেছিলেন ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’। সেটা কেন করেছিলেন? আর সেটা গতিই-বা পেল না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: ওটা আমি করি নাই। সুস্পষ্টভাবে আপনাকে জানাই, ওটা করেছিলেন এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম। তিনি দাওয়াত দিয়েছিলেন মুক্তি মঞ্চের কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে এবং সেখানে দেশনেত্রীর (খালেদা জিয়া) মুক্তিই ছিল প্রধান বক্তব্য। ওনার মুক্তির জন্য যে যা বলুক, আমরা সবখানেই ঝাঁপিয়ে পড়েছি। এখন আহ্বায়ক যিনি, উনিই যদি এটা নিয়ে না আগান, তাহলে তো আমাদের কোনো জায়গা থাকে না। আমি সেটার নীতিনির্ধারক ছিলাম না, নাইও। তবে দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য আপনি আমাকে সবখানে পাবেন।

প্রশ্ন: আমরা তো বিএনপিকে তাদের দলের চেয়ারপারসনের মুক্তি নিয়ে খুব বেশি কথা বলতে দেখছি না। আপনি যতটুকু বলেন, এটা তো ওনাদের বলতে দেখিনি। আপনি কেন এই দাবি করেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি ব্যক্তিগতভাবে যেমন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অসীম শ্রদ্ধা করি, তেমনি জিয়াউর রহমানকেও অজস্র শ্রদ্ধা করি। একজন বঙ্গবন্ধু, তিনি তুলনাবিহীন। তার আঙ্গিকে এবং একজন জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি তুলনাবিহীন তার আঙ্গিকে। উভয়ের রাজনৈতিক দল রয়েছে। উভয়ই ভালো কাজ করতে চেষ্টা করেছিলেন। তাদের লক্ষ্য ভালো ছিল। দেশনেত্রী বেগম জিয়া আশির দশকে অনেক পরিশ্রম করেছেন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এ জন্য তার প্রতি আমার সম্মান ও মায়া রয়ে গেছে। ওনাকে বন্দি করেছে, এটা আমার পছন্দ হচ্ছে না। সে জন্য আমি বলতেই থাকি যে, ওনার মুক্তি চাই, ওনার সুস্থতা যেন আল্লাহ দেন। আমার দাবি, বাংলাদেশ নিয়ে আমরা চিন্তায়-চেতনায় কোনো বিভাজন চাই না। বাংলাদেশের নিরাপত্তা, অগ্রগতি, উন্নতি এসব নিয়ে। রাজনৈতিকভাবে মতবিরোধের জায়গা আমরা কমিয়ে আনতে চাই।

প্রশ্ন: সেটায় কতটুকু সফল হলেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনে এটা সুস্পষ্টভাবে দেখা যাবে যে, বঙ্গবন্ধুকে মান্য করেই, জিয়াউর রহমানকে মান্য করেই গণতন্ত্রের চর্চা করা যায়, যুগপৎ দুজনকে মান্য করেই। আজকের তরুণ প্রজন্ম, বিভাজনকে স্বাগত জানায় না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোট নিয়ে আপনি বলেছিলেন, জোট আছে এটাও সঠিক, নেই এটাও সঠিক। এরপর কি বিএনপি থেকে আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল?

জেনারেল ইবরাহিম: না। আমরা বন্ধুপ্রতিম বড় দল-ছোট দল।

প্রশ্ন: তাহলে আপনার বক্তব্যকে তারা পাত্তাই দিল না, বিষয়টা কি এমন?

জেনারেল ইবরাহিম: এটা আমি কোনোমতেই বলতে পারব না। এটা আমার বুদ্ধিতে-জ্ঞানে আসবে না।

প্রশ্ন: বিএনপি জোটে যদি না থাকেন, তাহলে কী করবেন?

জেনারেল ইবরাহিম: সেটা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত প্রশ্ন। তখন আমরা নিজে নিজে চলতে চেষ্টা করব। আমাদের মতো আরও যদি দল থাকে, তাদের বলব, চলো একসঙ্গে বসব, একসঙ্গে চলব। যদি সম্মত হয় কেউ, তখন আমরা চলব। আমরা তো আর বিএনপিকে বাধ্য করতে পারব না যে আমাদের নিয়ে জোট করেন। সুতরাং আমাদের নিজেদের অবস্থা বের করে নিতে হবে। তবে এটা অগ্রিম বলা খুব কঠিন। আমরা বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছি, আমরা প্রধান শরিককে সম্মান জানাই, আমরা প্রধান শরিকের প্রতি আহ্বান রাখছি, যে প্রধান শরিক যতদিন একটা বাস্তবসম্মত চূড়ান্ত ফয়সালা না দিচ্ছেন, ততদিন আমরা অস্থির হব না।

প্রশ্ন: তাহলে কি বলা যায়, আপনারা বিএনপির বাইরে কোনো অবস্থান তৈরি করতে পারেননি?

জেনারেল ইবরাহিম: তৈরি করতে পেরেছি কি পারি নাই, এটা নিজেরা বলা সমীচীন মোটেই না। এটা পর্যবেক্ষকরা বলবেন।

প্রশ্ন: ইদানীং আপনাকে জোটের বাইরেও অনেক রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে দেখা যায়। নতুন কোনো রাজনৈতিক সমীকরণ কি হচ্ছে?

জেনারেল ইবরাহিম: রাজনীতিতে অনেক রকমের পথ নিয়ে মানুষ চলে এবং একটা পর্যায়ে গিয়ে একটা পথ বেছে নেয়। জোটের বাইরেও তো অনেক রাজনৈতিক দল সক্রিয় আছে। যিনি কাজ করতে চান, তিনি তো কাজের জন্যই ছুটবেন। আমি ও আমার দল কাজ করতে চাই। আমি কাজ চাই, তরুণদের নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।

প্রশ্ন: এক-এগারোর প্রেক্ষাপটে যে কিংস পার্টি হয়েছিল, সেখানে আপনার দল ছিল। এ বিষয়ে কী বললেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আপনার রাজনৈতিক জ্ঞান অতি সীমিত, দুর্বল। কিংস পার্টি তাকেই বলে যাহা কিং বানায়। প্রতীকী অর্থে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় যারা রাজনৈতিক দল তৈরি করে। ১/১১ এসেছিল ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ। কিংস পার্টির সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ ছিল না। তবে কল্যাণ পার্টির জন্ম ২০০৭ সালের ডিসেম্বরের ৭ তারিখ। এর সঙ্গে তৎকালীন সরকারি কর্তৃপক্ষ ও গোয়েন্দাদের ন্যূনতম সম্পর্কও নেই। কিন্তু সৌভাগ্য বলেন, আর দুর্ভাগ্য বলেন, ১/১১ নামক যন্ত্রণার যে জন্ম হয়েছিল, সে সময় সেনাবাহিনী ক্ষমতায় ছিল। আর আমি একজন সাবেক সৈনিক। অনেকে দুই আর দুই মিলাইয়া চার করে, জোর করে হোক আর যেভাবেই হোক। আমি অতি বিনয়ের সঙ্গে বলছি, আমাদের সঙ্গে সেই কর্তৃপক্ষের কোনো সম্পর্ক নাই।

প্রশ্ন: গত জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আপনাদের বিস্তর অভিযোগ। কিন্তু এমনটা কী করে হলো? আপনাদের ভোটের আগে ক্যাম্পিংয়ে দেখা গেল না, পোস্টারিংও তেমন ছিল না। আপনারা ভোটের পরও কোনো কর্মসূচি দিলেন না। সবই কি সরকারের দোষ?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি জোটের কোনো কিছুরই উত্তরও দিতে পারব না। কারণ জোট এ বিষয় নিয়ে সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। বরং নির্বাচনের আগে সরকারের বিরোধী শিবিরে অসমন্বয়টা ছিল প্রকট। সেই ফাঁকে সরকার তার কাজ করে নিয়েছে। আমি বলব, আমরা যারা সরকারের বিরোধী শিবিরে ছিলাম, সম্মিলিতভাবে সচেতন হতে পারিনি। নিজেদের সমন্বয় পাকাপোক্ত করতে পারিনি। যার কারণে সরকার তাদের অভিপ্রায় পূরণ করেছে। আমাদের ফাঁকি দিয়ে। ভোটের পরও আমরা সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নিতে পারিনি। এর কারণ নির্বাচনের আগে একটা হেলুসিনেশনে ভুগছিল সবাই।

প্রশ্ন: আন্দোলন হচ্ছে না কেন? আপনারা বলছেন, সরকার বাধা দিচ্ছে। সব সরকারই তো বাধা দেয়, তারপরও তো আন্দোলন হয়।

জেনারেল ইবরাহিম: আন্দোলন করতে হবে। বাস্তবতার নিরিখে যদি বিবেচনা করি, বিগত কয়েকটা মেজর আন্দোলন অসফল হয়েছে। আর একবার যে আন্দোলনের ডাক দেবেন, কে কার জন্য প্রাণটা হাতে নিয়ে নামবে? আমরা চাই সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন হোক। আমি একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে দলে বা জোটের পক্ষের কর্মীদের কীভাবে আশ্বস্ত করব যে, আপনার প্রাণ নিরাপদ, বাড়িঘর নিরাপদ কিংবা আপনার নামে মামলা হবে না?

বলা খুব সহজ আন্দোলন করব, আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিন। কিন্তু তার আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো যদি আমরা অ্যাড্রেস না করি, তাহলে তো আন্দোলন গড়ে উঠবে না। লাখ লাখ বিএনপি-জামায়াত ২০-দলীয় জোটের কর্মী মামলার ভারে ভারাক্রান্ত। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র আন্দোলন করা যাচ্ছে না। সেখানে রাজপথে আন্দোলন করা মারাত্মক চ্যালেঞ্জের একটা কাজ। এটা ৩০ বছর আগেও ছিল না।

শেয়ার করুন

রাঙ্গা পরিবহন জগতের সবচেয়ে বড় চাঁদাবাজ: কাদের মির্জা

রাঙ্গা পরিবহন জগতের সবচেয়ে বড় চাঁদাবাজ: কাদের মির্জা

মেয়র মির্জা বলেন, ‘এ রাঙ্গা সেই রাঙ্গা, যে রাঙ্গাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৌরসভার মেয়র থেকে এনে মন্ত্রী বানিয়েছেন। আর আজকে সেই রাঙ্গা প্রধানমন্ত্রীকে বলে স্বৈরাচার।...আর আমাকে বলে আমি সারা দেশে বিতর্কিত। শরম যদি লাগে গো ঘোমটা দিয়ে চলো গো।’

জাতীয় পার্টির চিফ হুইপ সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গাকে পরিবহন জগতের সবচেয়ে বড় চাঁদাবাজ বলে আখ্যা দিয়েছেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে শনিবার দুপুরে তিনি এ কথা বলেন।

মেয়র মির্জা বলেন, ‘এ রাঙ্গা সেই রাঙ্গা, যে রাঙ্গাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৌরসভার মেয়র থেকে এনে মন্ত্রী বানিয়েছেন। আর আজকে সেই রাঙ্গা প্রধানমন্ত্রীকে বলে স্বৈরাচার।

‘রাঙ্গা সাহেব পরিবহন সেক্টরের খবর কী? এই পরিবহন জগতে ধুয়ে-মুছে খেয়ে ফেলেছেন। আর আমাকে বলেন আমি সারা দেশে বিতর্কিত। শরম যদি লাগে গো ঘোমটা দিয়ে চলো গো।’

৭ দিনের আলটিমেটাম বেঁধে দিয়ে কাদের মির্জা বলেন, ‘আগামী ৭ দিনের মধ্যে কোম্পানীগঞ্জের সব ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি জানাচ্ছি। অন্যায়ভাবে যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মুক্তির দাবি জানাচ্ছি। কোম্পানীগঞ্জে দ্রুত গ্যাস-সংযোগ ও চর এলাহীর ভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দাবি জানাচ্ছি।’

কাদের মির্জা আরও বলেন, ‘শেখ হাসিনার সব অর্জন দুর্নীতিবাজরা ও প্রশাসন শেষ করে দিচ্ছে। এটা আমরা মানতে পারি না। আওয়ামী লীগের কাছে মানুষ অনেক কিছু আশা করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ করব তিনি যেন মানুষের হৃদয়ের ভাষা বোঝার চেষ্টা করেন।’

জয় বাংলা ও জয় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্লোগানের দাবি জানিয়ে কাদের মির্জা বলেন, ‘বাংলাদেশে জয় বাংলা ও জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান দেয়ায় অনেকে ভিন্নভাবে দেখেন। জয় বাংলা হলো জাতীয় স্লোগান। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাচ্ছি এটিকে জাতীয় স্লোগান করা হোক।’

অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউনুছ, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আজিজুল হক, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আজিজ, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়েরসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

আ.লীগের সভায় প্রচার সম্পাদকের নিরাপত্তায় ডিবি

আ.লীগের সভায় প্রচার সম্পাদকের নিরাপত্তায় ডিবি

নিরাপত্তা শঙ্কায় সভা শেষে ডিবি প্রহরায় বের হন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক নজরুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা

ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার এবং প্রচার সম্পাদক নজরুল ইসলামের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। আজকের সভায় আলোচ্যসূচীতে ছিল প্রচার সম্পাদক নজরুলকে করা শোকজের জবাব। ওই শোকজ ঘিরে যে কোনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভা শেষে প্রচার সম্পাদক নজরুল ইসলাম বের হয়েছেন গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পাহারায়।

এ ঘটনায় নেতাকর্মীদের মধ্যে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

শহরের সুর সম্রাট ওস্তাদ দি আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গনে শনিবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে সভা। শুরু থেকেই সভাস্থলে ছিলেন পুলিশ ও ডিবিসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার এবং প্রচার সম্পাদক নজরুল ইসলামের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। আজকের সভায় আলোচ্যসূচীতে ছিল প্রচার সম্পাদক নজরুলকে করা শোকজের জবাব। ওই শোকজ ঘিরে যে কোনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।

সভায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীসহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে নিরাপত্তা শঙ্কায় ডিবি পাহারায় সভাস্থল ত্যাগ করেন নজরুল।

নেতাকর্মীরা আরও জানান, জেলা আওয়ামী লীগের দুই নেতার মধ্যে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে কয়েক মাস আগে। ওই সময় সাধারণ সম্পাদক আল মামুনের বিরুদ্ধে পৌর এলাকায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার লাইসেন্স নিয়ে অনিয়মসহ নানা অভিযোগ এনে ফেসবুকে পোস্ট দেন নজরুর ইসলাম।

এরপর ৩০ জুলাই আল মামুনের বাড়িতে আগুন লাগে। এ ঘটনায় নজরুল ইসলামকে আসামি করে মামলা হয়।

এ ছাড়া সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বিরোধের জেরে নজরুল ইসলামকে শোকজও করা হয়। শনিবার জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় শোকজের জবাব দেয়ার কথা ছিল বলে জানিয়েছেন দলের নেতারা। তবে নজরুল ইসলাম তা অস্বীকার করেছেন।

তিনি বলেন, ‘জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় আমাকে শোকজের উত্তর দিতে হবে এমন কোনো চিঠি পাইনি। আর শোকজের উত্তর এমপিকে আমি আরও আগেই দিয়ে দিয়েছিলাম। শোকজের উত্তর কী দিয়েছি তা বলতে চাচ্ছি না।’

এ বিষয়ে সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, ‘প্রচার সম্পাদকের বিরুদ্ধে আমি মামলা করেছি। তাই কোনো ছাত্রলীগ নেতাকর্মী যেন তার সঙ্গে ঝামেলা না করে সেজন্য তিনি ডিবি পুলিশের নিরাপত্তায় সভাস্থল ত্যাগ করেছেন।’

শোকজের জবাবের বিষয়ে তিনি দাবি করেন, নজরুল ইসলামের জবাব সভায় গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। এজন্য তাকে আরও তিন দিন সময় দেয়া হয়েছে।

নেতাকর্মীদের ভিড়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের কমিটি হবে, সে কারণে উৎসুক নেতাকর্মীরা ভিড় জমিয়েছেন।’

জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন জানান, নজরুল ইসলামের শোকজের জবাব সন্তোষজনক হয়নি। এজন্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি সর্বসম্মতিক্রমে আরও তিন দিন সময় বাড়িয়ে দিয়েছেন।

শেয়ার করুন

তত্ত্বাবধায়ক নয়, ইসির অধীনে নির্বাচন: কৃষিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক নয়, ইসির অধীনে নির্বাচন: কৃষিমন্ত্রী

টাঙ্গাইল সার্কিট হাউসে শনিবার সকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। ছবি: নিউজবাংলা

কৃষিমন্ত্রী বলেন, জাতীয় সংসদের দ্বাদশ নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন। সংবিধানের আলোকে আগামী সংসদ নির্বাচন হবে, দায়িত্ব পালন করবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনারদের ওপর কারও কোনো হস্তক্ষেপ নেই।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক নয়, নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অধীনে হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

শনিবার সকালে টাঙ্গাইল সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, জাতীয় সংসদের দ্বাদশ নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন। সংবিধানে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে, কমিশনাররা নির্বাচন দেবেন। বাংলাদেশে কোনো নিরপেক্ষ সরকার হবে না, তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, হবে সাংবিধানিক সরকার। সংবিধানের আলোকে আগামী সংসদ নির্বাচন হবে, দায়িত্ব পালন করবে ইসি। নির্বাচন কমিশনারদের ওপর কারও কোনো হস্তক্ষেপ নেই।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি নির্বাচন এলেই জ্বালাও-পোড়াও শুরু করে। বিগত দিনে তারা ট্রেনে আগুন দিয়েছে, রেললাইন তুলে নিয়েছে, বিদ্যুতের লাইন কেটেছে। তারা ৫০০-এর বেশি মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে।

পরে মন্ত্রী শহরের পৌর উদ্যানে বীর বিক্রম আব্দুস সবুর খানের স্মরণসভায় যোগ দেন।

এতে সভাপতিত্ব করেন টাঙ্গাইল জেলা শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি বালা মিয়া।

বক্তব্য দেন সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, সংসদ সদস্য জোয়াহেরুল ইসলাম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান খান ফারুকসহ অনেকে।

শেয়ার করুন

সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে হিসাব চেয়ে চিঠি: রিজভী

সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে হিসাব চেয়ে চিঠি: রিজভী

জিয়াউর রহমান, বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে কুৎসা রটানোর প্রতিবাদে রাজধানীর নয়াবাজারে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ। ছবি: নিউজবাংলা

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ করতে সরকার এখন নানা কালাকানুন করছে। আদালত দিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ করার চেষ্টা করছে। সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে চিঠি দিয়ে হয়রানি করছে।’

মুখ বন্ধ করতেই ব্যাংক হিসাব চেয়ে ১১ সাংবাদিক নেতাকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইনান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) চিঠি দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

জিয়াউর রহমান, বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে কুৎসা রটানোর প্রতিবাদে রাজধানীর নয়াবাজার এলাকায় শনিবার দুপুরে এক বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ করতে সরকার এখন নানা কালাকানুন করছে। আদালত দিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ করার চেষ্টা করছে। সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে চিঠি দিয়ে হয়রানি করছে।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খানসহ ১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংক হিসাব তলব করেছে বিএফআইইউ।

আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাবের সব তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে। এসব তথ্যের মধ্যে রয়েছে হিসাব খোলার ফরম, কেওয়াইসি, ট্রানজেকশন প্রোফাইল, শুরু থেকে এখন পর্যন্ত লেনদেনের বিবরণী।

ব্যাংক হিসাব চাওয়ার নামে সম্মানহানির প্রতিবাদে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে করেন ১১ সাংবাদিক নেতা। তাদের দাবি, উদ্দেশ্যমূলক এই চিঠি সাংবাদিকদের মাঝে ভয় ভীতি ছড়ানোর কৌশল হতে পারে।

রিজভীও তাই মনে করেন। তিনি বলেন, ‘মূলত, মানুষের মুখ স্তব্ধ করে দিতে সরকার এসব পদক্ষেপ নিচ্ছে। গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ করে দিতে চায় তারা।’

বিএনপির এই বর্ষীয়ান নেতা বলেন, ‘ভোটারবিহীন সরকার দুর্নীতে চ্যাম্পিয়ন হলেও অন্য সবদিক থেকে ব্যর্থ হয়েছে। এ সরকারের আমলে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ দুর্নীতির রেকর্ড হয়েছে। বর্তমানে তাদের পায়ের নিচে মাটি নেই। বিশ্ব সম্প্রদায়ও তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

‘বাংলাদেশে যাতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয় সেজন্য দেশের মানুষের দাবির সঙ্গে বিশ্বের অন্যান্য দেশও দাবি জানাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইইউসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন থেকে শক্তিশালী গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য প্রচণ্ড চাপ দিচ্ছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বেই বাংলাদেশে গণতন্ত্র ফিরবে ইনশাল্লাহ।’

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও অংশ নেন ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা আরিফুর রহমান, যুবদল নেতা সাঈদ হাসান মিন্টু, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা ডা. জাহিদুল কবির, যুবদল নেতা মেহেবুব মাসুম শান্ত, বিএনপি নেতা লতিফুল্লাহ জাফরু, ফরিদ জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা সারা করিম লাকি, মনজুরুল হক, আশু মোহাম্মদ, হাজী জাহিদ, মো. হালিম, ছাত্রদল নেতা রাহু আহমেদসহ আরও অনেকে।

শেয়ার করুন

‘সরকারবিরোধী রূপকল্প তৈরি করছে বিএনপি’

‘সরকারবিরোধী রূপকল্প তৈরি করছে বিএনপি’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি বিশেষ সিরিজ সভায় অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রের চর্চা না করে সরকারবিরোধী সিরিজ ষড়যন্ত্রের রূপকল্প তৈরির গোপন বৈঠক করছে। মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও বিএনপিতে গণতন্ত্রের কোনো চর্চা নেই।’

বিএনপি নেতাদের সঙ্গে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাম্প্রতিক সময়ের কয়েকটি বৈঠককের প্রসঙ্গ টেনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এসব বৈঠকে সরকারবিরোধী রূপকল্প তৈরি করা হচ্ছে।

২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ শনিবার সকালে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি বিশেষ সিরিজ সভায় অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রের চর্চা না করে সরকারবিরোধী সিরিজ ষড়যন্ত্রের রূপকল্প তৈরির গোপন বৈঠক করছে। মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও বিএনপিতে গণতন্ত্রের কোনো চর্চা নেই।

‘বিএনপি গণতন্ত্রের কথা বলে, অথচ তাদের সম্মেলনের এক বছর পরে আমাদের এক টার্ম শেষ হয়ে আরেক টার্মেরও এক বছর আট মাস পেরিয়ে গেছে। আমাদের সম্মেলনে আমি যখন সাধারণ সম্পাদক হয়েছি, এর এক বছর আগে তাদের জাম্বুজেট ৫০১ সদস্যের কমিটি হয়েছে, কিন্তু এখনও সেই কমিটি দিয়েই চলছে।’

নিজেদের মধ্যে গণতন্ত্রের চর্চা না করে বিএনপি কীভাবে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে, সে প্রশ্ন তুলে ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা বলেন, ‘তারা মুখে গণতন্ত্রের বড় বড় বুলি আওড়ায়, তাদের নিজেদের ঘরেই গণতন্ত্রের চর্চা নেই। তাদের সম্মেলন হয় না, তাদের কমিটি হয় না, কমিটির মিটিং পর্যন্ত হয় না। এই অবস্থা দিয়ে যে পার্টি চলছে, তারা দেশে গণতন্ত্র কীভাবে প্রতিষ্ঠা করবে? সেটাই একটা বিরাট প্রশ্ন চিহ্ন হয়ে ঝুলে থাকে।’

কাদের অভিযোগ করে বলেন, ‘অবৈধ অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা দখলকারী জিয়াউর রহমানের হাতে প্রতিষ্ঠিত বিএনপির গণতান্ত্রিক রীতিনীতির কোনো দায়ভার তাদের নেই। তাদের তথাকথিত বিশেষ যে সিরিজ সভাগুলো হয়েছে। এগুলো অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রের চর্চা নয়।

‘এখানে গণতন্ত্রের কিছু নেই। কীভাবে সরকারকে ঠেকাবে, কীভাবে দেশের পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করবে, কীভাবে বিভিন্ন অপশক্তিকে উসকে দেবে। কারণ বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক শক্তির বিশ্বস্ত ঠিকানা হচ্ছে বিএনপি এবং তারাই পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে এই সাম্প্রদায়িক সংগঠনগুলোকে জিইয়ে রেখেছে। আমরা জানি, তাদের এখন গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির প্রতি কোনো শ্রদ্ধা নেই। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার ষড়যন্ত্র করে তারা।’

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের আগেই বিএনপি নানা ষড়যন্ত্র শুরু করছে বলে অভিযোগ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের।

তিনি বলেন, ‘আগামী বছর নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রাক্কালে বিএনপি আবার নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন গঠনকে কেন্দ্র করে। নির্বাচন কমিশন যথাসময়ে যেভাবে হয়, আমাদের দেশের আইনগত প্রক্রিয়ায় যে বিধান রয়েছে, সেভাবে আমাদের সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠন হবে। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।’

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারকে ইঙ্গিত করে কাদের বলেন, ‘গতবারও রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটি গঠন করেছিলেন, সেই সার্চ কমিটিতে বিএনপিরও প্রতিনিধিত্ব ছিল। তাদের একজন এখনও আছেন। বিভিন্ন সময় তিনি নোট অব ডিসেন্ট দেন, নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন। এটা গণতন্ত্রের বিউটি। বাইরে এসে তিনি মাঝে মাঝে যে অবস্থার সৃষ্টি করেন, সেটা গণতান্ত্রিক রাজনীতির জন্য এবং নির্বাচন কমিশনের জন্য প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

আওয়ামী লীগের আগাম সম্মেলনের সম্ভাবনা নিয়ে প্রশ্ন করলে তা নাকচ করে দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সাংবাদিকদের বলেন, ‘আগাম সম্মেলন কেন হবে? আওয়ামী লীগের ইতিহাসে আগাম কোনো সম্মেলন হয়নি। নির্বাচন যথাসময়ে হবে, আওয়ামী লীগের সম্মেলনও যথাসময়ে হবে।’

শেয়ার করুন