উপনির্বাচন

হাবিব-শফির বাগ্‌যুদ্ধে উত্তাপ সিলেটে

হাবিব-শফির বাগ্‌যুদ্ধে উত্তাপ সিলেটে

সিলেট-৩ আসনের প্রার্থী (বাঁ থেকে) আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব ও স্বতন্ত্র শফি আহমদ চৌধুরী। ছবি: নিউজবাংলা

প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও শিল্পপতি শফি আহমদ প্রার্থী হওয়ার ঘোষণার পরই এই আসনে জমজমাট লড়াইয়ের আভাস মিলছিল। এখন শুরুতেই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমানের সঙ্গে তার কথার লড়াই সেই আভাসকে আরও গাঢ় করে তুলেছে।

এখনও প্রচার শুরু হয়নি। প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন কেবল। এর মধ্যেই কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়েছেন হাবিবুর রহমান হাবিব ও শফি আহমদ চৌধুরী। এই দুজনের বাগ্‌যুদ্ধ উত্তাপ ছড়াচ্ছে সিলেট-৩ আসনের নির্বাচনি মাঠে।

হাবিবুর রহমান এই আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী। আর শফি আহমদ স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও তিনি বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য।

সিলেট-৩ আসনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে এর আগে চারবার প্রার্থী হয়েছেন শফি। একবার নির্বাচিতও হয়েছেন। বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন তিনি।

এই দুজন ছাড়াও সিলেট-৩ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী আরেক শিল্পপতি আতিকুর রহমান আতিক। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন জুনায়েদ মুহাম্মদ মিয়া। ফাহমিদা হোসেন লুমা এবং শেখ জাহেদুর রহমান মাসুম নামে আরও দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিলেও বৃহস্পতিবার যাচাই-বাছাইয়ে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। অবশ্য তারা এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন।

প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও শিল্পপতি শফি আহমদ প্রার্থী হওয়ার ঘোষণার পরই এই আসনে জমজমাট লড়াইয়ের আভাস মিলছিল। এখন শুরুতেই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমানের সঙ্গে তার কথার লড়াই সেই আভাসকে আরও গাঢ় করে তুলেছে।

বাগ্‌যুদ্ধের শুরুটা করেন শফি চৌধুরী। যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরে গত সোমবার শফি আহমদ চৌধুরী বলেন, ‘সিলেট-৩ আসনের প্রয়াত সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর স্ত্রী ফারজানা সামাদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি। তিনি আমাকে সমর্থন দিয়েছেন।’

সাংসদ মাহমুদের মৃত্যুতেই এই আসনে উপনির্বাচন হচ্ছে। এতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন সামাদের স্ত্রী ফারজানাসহ দলটির অন্তত দুই ডজন নেতা।

গত মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দিতে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আগের দিনের বক্তব্য আবারও উল্লেখ করে শফি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রার্থী নিয়ে দলের মধ্যেই অসন্তোষ রয়েছে। দলের নেতা-কর্মীরা আশা করেছিলেন মানবিক দিক বিবেচনায় মাহমুদ উস সামাদের স্ত্রীকে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেবে। কিন্তু আওয়ামী লীগ তার প্রতি সহানুভূতি না দেখানোর কারণে দলের নেতা-কর্মীরা মারাত্মক ক্ষুব্ধ।

‘এ ছাড়া দলের সিনিয়র নেতারা মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ায় দলটির নেতা-কর্মীরা অসন্তুষ্ট। তারাও আমার সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। জামায়াতও আমাকে নির্বাচনে অংশ নিতে উৎসাহ দিচ্ছে। সব মিলিয়ে দলীয় নেতা-কর্মী ও এলাকার মানুষের সমর্থন উপেক্ষা করতে না পেরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ছুটে এসে প্রার্থী হতে হয়েছে।’

শফি চৌধুরীর এমন মন্তব্যে ক্ষুব্ধ হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। গত বুধবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন তিনি। এতে এক সাংবাদিক শফি চৌধুরীর মন্তব্যের বিষয়ে তার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় হাবিব বলেন, নির্বাচনি এলাকার তিন উপজেলার আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মী নৌকা প্রতীকের পক্ষে রয়েছেন। অন্য যারা মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন, তারাও তাকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। সবাইকে নিয়ে তিনি নির্বাচন করবেন।

নৌকা প্রতীকের বাইরে কোনো নেতা-কর্মী নেই দাবি করে হাবিব বলেন, ‘শফি চৌধুরী বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন। তিনি বয়স্ক মানুষ। কোন সময় কী বলেন, কী করেন তার ঠিক নেই। তার কর্মীদেরই বলতে শুনেছি, বয়সের কারণে তিনি প্যান্টে প্রস্রাব-পায়খানা পর্যন্ত করে দেন। সুতরাং তার কথায় কান দিয়ে লাভ নেই।’

তরুণ হাবিবের এমন মন্তব্য নজরে পড়েছে প্রবীণ শফি আহমদের। শুক্রবার এক ভিডিওবার্তায় এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার বয়স এখন ৮৪ বছর। আজকেও সারা দিন নির্বাচনি কাজে এলাকায় ছিলাম। একবারও বাথরুমে যেতে হয়নি। আমার কাপড়চোপড়ও অপরিষ্কার হয়নি। এখনও অজু আছে।’

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হওয়ায় শফি চৌধুরীকে শোকজ করেছে বিএনপি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘জনগণের চাপে আমি প্রার্থী হয়েছি। এই আসনটি বিএনপির ঘাঁটি। এই ঘাঁটি নষ্ট হতে দেয়া যায় না। এ ছাড়া এমপি থাকাকালে আমি এই এলাকায় অনেক উন্নয়ন করিয়েছি। জনগণ তা আজও মনে রেখেছে। এসব বিবেচনায়ও আমি প্রার্থী হয়েছি। আশা করছি বিএনপিও তা বুঝতে পারবে।’

শফি জানান, ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি অংশ নিয়েছিলেন। ওই সময়ও তার বিরুদ্ধে দল কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

প্রবীণ এই বিএনপি নেতার দাবি, তিনি বিএনপির রাজনীতি করলেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাকে ছোট ভাইয়ের মতো স্নেহ করতেন।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ১১ মার্চ মারা যান সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েস। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ২৮ জুলাই এ আসনে উপনির্বাচন হওয়ার কথা।

আরও পড়ুন:
তিন আসনে বৈধ প্রার্থী ১০ জন
কুমিল্লা-৫ উপনির্বাচন: নৌকা ও লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা
বিএনপি নেতার ঘোষণায় ভোট জমবে সিলেটে
লক্ষ্মীপুর-২ উপনির্বাচন: জমে উঠেছে প্রচার
দুই ডজনকে ডিঙালেন প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা   

শেয়ার করুন

মন্তব্য