নেত্রীর ভুল ভাঙাতে পারলাম না: আক্ষেপ নাজমুলের

নেত্রীর ভুল ভাঙাতে পারলাম না: আক্ষেপ নাজমুলের

লন্ডনের বার্থ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম। ছবি: ফেসবুক

হার্টে একাধিক ব্লক নিয়ে হাসপাতালে শয্যাশায়ী ছাত্রলীগের সাবেক এই সাধারণ সম্পাদক এক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘সবাই আমাকে আল্লাহর ওয়াস্তে ক্ষমা করে দিয়েন। বাঁচব কি না জানি না, তবে এই চরম মুহূর্তে কিছু সত্য কথা বলে যাই, আমি রাজনীতিটা একমাত্র দেশরত্ন শেখ হাসিনারে মেনেই করতাম এবং করি। কোনো দিন তার বাইরে যাইনি।’

একসময় খুবই সাধারণ চলাফেরা ছিল তার। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকেই চলে আসেন পাদপ্রদীপের আলোয়। পরিচিত হয়ে ওঠেন সবার কাছে। পাল্টে যায় সিদ্দিকী নাজমুল আলমের খোলনলচে।

তখন থেকেই প্রায় প্রতি মাসে গাড়ি পাল্টানো যেন নাজমুলের শখে পরিণত হয়। সারাক্ষণ ঠোঁটে জ্বলত দামি সিগারেট। মাথার চেয়ে হাত চলাই নাজমুল ও তার অনুসারীদের এনে দেয় বিশেষ পরিচিতি। বিতর্ক হয়ে ওঠে নাজমুলের সমর্থক।

তবে নাজমুলের ভক্ত-সমর্থক ছিল তার সমসাময়িক নেতাদের তুলনায় ঈর্ষণীয়। ছাত্রলীগের সেই দাপুটে নেতা বহুদিন ধরেই দেশের বাইরে। হার্টে একাধিক ব্লক নিয়ে চিকিৎসাধীন হাসপাতালের বিছানায়।

এ অবস্থায় থেকে নাজমুল প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে লিখেছেন আবেগঘন এক স্ট্যাটাস। তার আক্ষেপ প্রিয় নেত্রীর ভুল ভাঙাতে না পারার।

সাধারণ সম্পাদক থাকা অবস্থায় টানা চার বছর অনেকটা একহাতে ছাত্রলীগের প্রায় সব নিয়ন্ত্রণ করেছেন দাপটের সঙ্গে। ক্ষমতাসীন দলটির সংগঠনটিতে সিদ্দিকী নাজমুলই তখন ছিলেন শেষ কথা। কথিত আছে, এ সময়েই বিপুল সম্পদের মালিক হন তিনি। বনে যান একটি বেসরকারি ব্যাংকের পরিচালকও।

নেত্রীর ভুল ভাঙাতে পারলাম না: আক্ষেপ নাজমুলের
প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম:ফাইল ছবি

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থাকাকালেই নাজমুল বেশ কয়েকটি দেশে নিয়মিত ভ্রমণ করতেন। সেই সময় থেকেই সেসব দেশে ব্যবসার সঙ্গে জড়ান তিনি।

ছাত্রলীগের দায়িত্ব ছাড়ার পর থেকেই নাজমুলের নানা সম্পদের খবর আসতে থাকে। সবশেষ ২০১৯ সালের অক্টোবরে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে যুবলীগ ঢাকা দক্ষিণের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটসহ অন্যদের সঙ্গে ওঠে ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতার নাম।

সেই থেকে দেশের বাইরে নাজমুল। বিতর্কিত ঠিকাদার ও যুবলীগ নেতা জিকে শামীমের কেলেঙ্কারিতেও আসে নাজমুলের নাম।

বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে উঠে আসে, সিদ্দিকী নাজমুলের বিষয়ে গোয়েন্দা তথ্য পেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ক্ষুব্ধ হন তার প্রতি। নাজমুলের দাবি, তার ব্যাপারে নেত্রীকে দেয়া হয়েছে ভুল তথ্য।

লন্ডনের বার্থ হাসপাতাল থেকে ফেসবুকে দেয়া নাজমুলের স্ট্যাটাস

সবাই আমাকে আল্লাহর ওয়াস্তে ক্ষমা করে দিয়েন। বাঁচব কি না জানি না, তবে এই চরম মুহূর্তে কিছু সত্য কথা বলে যাই, আমি রাজনীতিটা একমাত্র দেশরত্ন শেখ হাসিনারে মেনেই করতাম এবং করি। কোনো দিন তার বাইরে যাইনি।

সাবেক অনেক বড় ভাইয়ের কথায় আমি কখনও চলি নাই। বরং পেছনের সারির অনেককে নেতা বানাইছি নিজের ইচ্ছায়। আর প্রেম করেছিলাম, কিন্তু মানিয়ে নিতে পারিনি তাই বিয়ে হয়নি। আর শেষ কথা হলো বাংলাদেশে কোনো ব্যাংকে আমার নামে এক পয়সাও লোন নাই এবং লোনের কোনো টাকা বিদেশেও নিয়ে আসিনি। তদবির ঠিকাদারি দালালি পদ-বাণিজ্য কখনও করিনি।

লন্ডনে গায়ে খাটি। জীবনে যে কাজ করিনি তা করে জীবনযুদ্ধে লিপ্ত ছিলাম। কিন্তু আমার কপাল ভালো না। কিছুক্ষণ আগেই আমার এনজিওগ্রাম সম্পন্ন হয়েছে। অনেকগুলো ব্লক ধরা পড়েছে, ওপেন হার্ট সার্জারি করতে হবে। হয়তোবা আজকালের মধ্যেই করবে, সরকারি হাসপাতালেই করবে। কারণ, এই দেশে চিকিৎসা ফ্রি। তাই আর কেউ কষ্ট কইরা ভুল তথ্য দিয়েন না, যে কোটি টাকার অপারেশন।

নেত্রীর ভুল ভাঙাতে পারলাম না: আক্ষেপ নাজমুলের
ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক থাকা অবস্থায় ব্যাপক দাপট ছিল সিদ্দিকী নাজমুল আলমের:ফাইল ছবি

যদি মরে যাই একটাই কষ্ট থাকবে নিজের দলের মানুষের প্রতিহিংসার শিকার হয়ে মিডিয়া ট্রায়াল হয়েছে বারবার আমার নামে। আর আফসোস, হয়তোবা বড় কোনো ভাই আমার নামে অনেক মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমার নেত্রীর কান ভারী করে রেখেছে, সেই ভুলগুলো হয়তো ভাঙিয়ে যেতে পারলাম না।

আপা, আপনিই আমার মমতাময়ী জননী স্নেহময়ী ভগিনী। আপনাকে অনেক ভালোবাসি, ক্ষমা করে দিয়েন আমাকে। সবাই ভালো থাকবেন, আপনাদের আর যন্ত্রণা দিব না।

পোস্টটি দেয়ার এক ঘণ্টার কিছু বেশি সময়ের মধ্যে রিঅ্যাক্ট পড়ে ৩৫ হাজার। কমেন্ট পড়ে ১০ হাজার। শেয়ার হয় ১ হাজার ৪০০।

নাজমুলের পোস্টে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম লিখেছেন, ‘ইনশাল্লাহ তুমি ভালো হয়ে যাবে। চিন্তা করো না আমাদের দোয়া তোমার সাথেই আছে।’

উত্তরবঙ্গের আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ লিখেছেন, ‘আল্লাহর রহমতে তুমি ফিরে আসবে।’

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (বহিষ্কৃত) গোলাম রব্বানী লিখেছেন, ‘ভাই আপনি সুস্থ হয়ে দেশে আসেন। সব ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে কঠিন লড়াই করে প্রকৃত সত্য উন্মোচন করতে হবে। দোয়া করি, অপারেশনটা ভালোয় ভালোয় হয়ে যাক, আপনি দুর্দিনের রাজপথের লড়াকু নাজমুল, একদম ভেঙে পড়বেন না। এবার একসাথে নেত্রীর নামে স্লোগান ধরব ইনশাল্লাহ।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য