সাংগঠনিক স্থবিরতা কাটাতে চায় আওয়ামী লীগ

সাংগঠনিক স্থবিরতা কাটাতে চায় আওয়ামী লীগ

কেন্দ্রীয় নেতা বলছেন, খুব শিগগিরই প্রযুক্তি ব্যবহার করে সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেবেন তারা। জাতীয় কাউন্সিলের আগেই থমকে থাকা সম্মেলনগুলোও শেষ করতে চায় দল।

গত বছরের মার্চে দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে গত বছরের প্রায় পুরোটা জুড়ে সব সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত রেখেছিল আওয়ামী লীগ। নতুন বছরের অর্ধেক পার হয়ে গেলেও সেই স্থবিরতা কাটাতে পারেনি ক্ষমতাসীন এ দলটি।

স্বাভাবিক সময়ে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও ধানমন্ডি ৩/‘এ’-তে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সব সময় নেতাকর্মীদের ভিড় লেগেই থাকত। গত দেড় বছরে সেখানে দলীয় নেতাকর্মীদের আনাগোনা কম।

করোনার প্রাদুর্ভাবের পর থেকে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে সেভাবে জনসমক্ষে আসতে দেখা যায় নি। নিয়মিত ঘরে বসে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে দলীয় কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। বিভিন্ন দিবসে আগের মতো জনসমাগম দেখা যাচ্ছে না।

গত দেড় বছরে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কোথাও দলটির কোনো সাংগঠনিক তৎপরতা চোখে পড়েনি। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বলছেন, এতে নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্রমে দূরত্ব বাড়ছে। নেতাদের সাথে কর্মীদের যে সংযোগ স্বাভাবিক সময়ে ঘটে, তা ব্যাহত হচ্ছে মারাত্মকভাবে। আর এ কারণে দলে বিশৃঙ্খলার আশঙ্কাও করছেন তারা।

এদিকে, তৃণমূল পর্যায়ের বেশিরভাগ কমিটির মেয়াদ এরই মধ্যে শেষ হয়ে গেছে। যেগুলোর সম্মেলন এরই মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে, সেগুলো এখনও পূর্ণাঙ্গ হয়নি। সাংগঠনিক তৎপরতা না থাকায় তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে রয়েছে হতাশা। এই পরিস্থিতি আর জিইয়ে রাখতে চায় না কেন্দ্র।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাংগঠনিক কার্যক্রম সবগুলো তো করা সম্ভব ছিল না, এটা বাস্তবতা। তারপরও কার্যক্রম কিছু ছিল। মানবিক-সামাজিক কার্যক্রম, কর্মীদের সাথে সংযোগ, এই কমিউনিকেশন আমাদের ছিল।

‘রাজনৈতিক দল হিসেবে ব্যাপক ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের মতো দলের নেতাকর্মীদের সাথে যে সম্পর্ক, যে সংযোগটা আমরা সব সময় মেইনটেইন করতাম, এটা এই সময়ে সম্ভব হয় নি, তা অস্বীকার করার বিষয় না।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, করোনার কারণে সাংগঠনিক তৎপরতা সেভাবে না থাকলেও সামাজিক ও মানবিক কর্মসূচিতে তৎপর ছিল দল। সীমিত আকারে পরিচালনা করা হয়েছে সাংগঠনিক কার্যক্রম।

দলের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনার পরে কর্মসূচি সীমিত করা হয়েছে। সে সময় রাজনৈতিক কর্মসূচির চেয়ে আমরা বেশি গুরুত্ব দিয়েছি সামাজিক দায়িত্ব পালনে, যেমন দুর্যোগ শুরুর পর থেকে এটা মোকাবেলায় সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা, স্বাস্থ্যগত বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নির্দেশনা পৌঁছে দেয়া।

‘বিশেষ করে করোনায় আক্রান্ত মানুষ যখন মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদেরকে সৎকারে শুরুর দিকে তাদের স্বজনরাও আতঙ্কিত হয়ে এগিয়ে আসে নি, সে সময় আমাদের দলের নেতাকর্মীরাই কিন্তু সৎকারে সহায়তা করেছে। এর পাশাপাশি আমাদের কৃষকদের ফসল ঘরে তুলতেও সহায়তা করা হয়েছে। পাশাপাশি নিম্ন আয়ের যেসব মানুষদের কাজ বন্ধ হয়েছিল, তাদের আমরা খাদ্য সহায়তা দিয়েছি, সরকারের পাশাপাশি। এগুলো আমরা সামাজিক দায়িত্ব হিসেবে পালন করেছি।’

করোনা মহামারির মধ্যেও তৃণমূল পর্যায়ে আটকে থাকা কিছু কিছু সম্মেলন শেষ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। হানিফ বলেন, ‘এর মাঝেও আমরা সীমিতভাবে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে গিয়েছি। এই কোভিডের মধ্যেও অনেক ইউনিয়ন পর্যায়ে আমরা সম্মেলনগুলো শেষ করেছি। এমনকি একটি জেলা সম্মেলনও করতে পেরেছি।’

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন তারা। করোনা পরিস্থিতি এখনও নিয়ন্ত্রণে না আসায় আরও কিছুটা সময় জনসমাগম এড়িয়ে চলতে চাইছে দলটি। তবে তৃণমূলে যে সংকট তৈরি হচ্ছে, তারও সমাধান করতে চান তারা।

দলের কেন্দ্রীয় নেতা বলছেন, খুব শিগগিরই প্রযুক্তি ব্যবহার করে সাংগঠনিক তৎপরতা বৃদ্ধির উদ্যোগ নেবেন তারা। দলের জাতীয় কাউন্সিলের আগেই থমকে থাকা সম্মেলনগুলোও শেষ করতে চায় দল।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘এখনও করোনার প্রকোপটা হয়তো কমে নাই, কিন্তু মানুষের মধ্যে আতংক কমে গেছে। এ কারণে আমরা আমাদের সাংগঠনিক তৎপরতা বৃদ্ধির চিন্তা করছি। কর্মসূচিও নিয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি সুরক্ষা নিশ্চিত করে এবং চিকিৎসক বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনেই আমাদের সাংগঠনিক তৎপরতা চালানো চিন্তা করেছি।

‘আমাদের লক্ষ্য আছে, জাতীয় কাউন্সিলের আগেই আমাদের সমস্ত জেলা উপজেলা কমিটিগুলো ঢেলে সাজাব এবং এগুলো আপডেট করার লক্ষ্যে আমরা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছি। জেলা উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিয়ে বৈঠক করা হচ্ছে তাদের গাইডলাইন দেয়া হচ্ছে। আমাদের ওয়ার্ড পর্যায় থেকে সম্মেলনের নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। জুন-জুলাইয়ের পরে হয়ত করোনার প্রভাবটা কিছুটা কমে যাবে। আমরা জুলাইয়ের শেষে অথবা এরপর থেকে কাউন্সিলের কাজগুলো শেষ করব।’

নেতারা বলছেন, তারা দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার অপেক্ষায় আছেন। তার নির্দেশনা পেলেই দল গোছাতে মাঠে নামবেন নেতারা।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘পরীক্ষামূলকভাবে আমরা কিছু কিছু কাজ শুরু করেছি, বিভিন্ন পর্যায়ে। সাংগঠনিক কার্যক্রম ভার্চুয়াল মাধ্যম ব্যবহার করে শুরু করব। আমাদের করোনার সাথে খাপ খাইয়ে বাস্তবতার ভিত্তিতে সব কিছু সমন্বয় করতে হবে।

‘আমরা সে হিসেবে কাজ করা শুরু করেছি। এখন ঘোষণার অপেক্ষামাত্র। করোনার জন্য বসে থাকা যাবে না। জীবন-জীবিকা যখন কোনোটিকেই অবহেলা করা যায় না। আমরা এতদিন অপেক্ষা করেছি। যেহেতু এর কোনো নির্দিষ্ট সীমা এখনও আমরা পাচ্ছি না, সব মিলিয়েই আমাদের পথ চলতে হবে। কার্যক্রম আমরা বাড়াব। পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে আগামীতে কর্মসূচি নেব। আর সময় নষ্ট করতে চাই না।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য