× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

রাজনীতি
রওশনকে ছাড়া জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন
google_news print-icon

রওশনকে ছাড়া জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

রওশনকে-ছাড়া-জাতীয়-পার্টির-প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী-উদযাপন
কাকরাইলের দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনুষ্ঠানিকতা উদ্বোধন করেন দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের। ছবি: নিউজবাংলা
তবে দলে কোনো কোন্দল নেই বলে জানালেন জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব ও বর্তমান প্রেসিডিয়াম সদস্য মশিউর রহমান রাঙা। বলেন, করোনার কারণে রওশন এরশাদ কোনো প্রোগ্রামে আসেন না।

হুসেইন মুহম্মদের স্ত্রী রওশন এরশাদের উপস্থিতি ছাড়াই উদযাপিত হচ্ছে জাতীয় পার্টির ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। অবশ্য প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ ক্রোড়পত্রে বাণী দিয়েছেন পার্টির চিফ প্যাট্রন রওশন।

কাকরাইলের শুক্রবার সকালে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনুষ্ঠানিকতা উদ্বোধন করেন দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু।

আরও পড়ুন: ‘সম্ভাবনার রাজনৈতিক মঞ্চ জাপা’

এর আগে দলের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান জিএম কাদেরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।

এসবে ছিলেন না জাতীয় পার্টির চিফ প্যাট্রন ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ও বয়সজনিত কারণে রওশন অনুষ্ঠানে আসেননি বলে জানান জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব ও বর্তমান প্রেসিডিয়াম সদস্য মশিউর রহমান রাঙা।

দলে কোন্দল নেই দাবি করে নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে উনি (রওশন এরশাদ) কোনো প্রোগ্রামে আসেন না। অন্য কোনো সমস্যা নাই, ভেতরে কোনো সমস্যা নাই। আজকে ক্রোড়পত্রটা তো দেখেছেন, সব দেয়া আছে। উনি আসেন না, কারণটা হলো উনার তো একটু বয়স হয়ে গেছে। করোনার কারণে উনি আসেননি। উনি পার্লামেন্টেও আসেন না করোনার কারণে।’

দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর বিকেলের অনুষ্ঠানেও রওশন এরশাদ আসবেন না বলে জানান রাঙা।

রওশনকে ছাড়া জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

রওশন এরশাদের অনুপস্থিতি প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায় নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উনি এসব প্রোগ্রামে সাধারণত যান না। উনি বেরই হয় না।’

১৯৮৬ সালের ১ জানুয়ারি তৎকালীন সেনাশাসক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের হাত ধরে জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ২০১৯ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনিই ছিলেন দলটির চেয়ারম্যান।


আরও পড়ুন: এরশাদকে স্বৈরাচারী বলা গায়ের জোর

এরশাদের মৃত্যুর পর দলটির চেয়ারম্যানের হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন তার ছোট ভাই জিএম কাদের।

দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিকেল ৩টায় বনানীতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যায় জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির অংশগ্রহণে হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

রওশনকে ছাড়া জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাবাষির্কী উদযাপন করেছেন এরিক এরশাদও। এ উপলক্ষে বনানীতে প্রেসিডেন্ট ভবনে ৩৬ পাউন্ড ওজনের কেক কাটেন তিনি। এ সময় এরিকের মা বিদিশা সিদ্দিক ও এরশাদের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
কর্মসূচিতে ‘ভাড়াটে লোক’, বিরক্ত জি এম কাদের
রাষ্ট্রধর্ম করা জাপা ‘পছন্দ করে না’ ধর্মের গোঁড়ামি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

রাজনীতি
Noor Alam Siddiqui one of the 4 Caliphs passed away

চলে গেলেন ‘৪ খলিফার একজন’ নূরে আলম সিদ্দিকী

চলে গেলেন ‘৪ খলিফার একজন’ নূরে আলম সিদ্দিকী স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য নূরে আলম সিদ্দিকী। ছবি: সংগৃহীত
নূরে আলম সিদ্দিকীকে মুক্তিযুদ্ধের ‘চার খলিফার একজন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মুজিববাহিনীর অন্যতম কর্ণধার ছিলেন তিনি। তিনি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ছিলেন।

স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য নূরে আলম সিদ্দিকীর মৃত্যু হয়েছে।

রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে বুধবার ভোরে তার মৃত্যু হয়।

নূরে আলম সিদ্দিকীর প্রেস সচিব অনিকেত রাজেশ নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

হেলিকপ্টারে করে সকাল ১০টায় তার মরদেহ নির্বাচনী এলাকা ঝিনাইদহে নেওয়া হবে। সেখানে জানাজার পর আছরের নামাজের পর গুলশানের আজাদ মসজিদে তার জানাজা হবে। এ সময় নূরে আলম সিদ্দিকীকে ‘গার্ড অব অনার’ দেওয়া হবে। এরপর সাভারে নিজের করা মসজিদের পাশে তাকে দাফন করা হবে।

নূরে আলম সিদ্দিকীকে মুক্তিযুদ্ধের ‘চার খলিফার একজন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মুজিববাহিনীর অন্যতম কর্ণধার ছিলেন তিনি। তিনি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ছিলেন।

নূরে আলম সিদ্দিকী ছয় দফা আন্দোলন, ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ তৎকালীন সব রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। তিনি ১৯৭০-১৯৭২ মেয়াদে ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৩ সালের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন যশোর-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

এ ছাড়া ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তিনি ঝিনাইদহ-২ আসন থেকে অংশ নিয়েছিলেন।

মন্তব্য

রাজনীতি
Mirza Fakhruls speech is indecent and impudent Kader

মির্জা ফখরুলের বক্তব্য অশালীন ও ধৃষ্টতাপূর্ণ: কাদের

মির্জা ফখরুলের বক্তব্য অশালীন ও ধৃষ্টতাপূর্ণ: কাদের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মির্জা ফখরুলের এ ধরনের বক্তব্য চরম বিদ্বেষ ও আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ। তার এই মন্তব্য শতাব্দীর সেরা কৌতুক। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তাদের বিবেক-বুদ্ধিই শুধু লোপ পায়নি, চক্ষুলজ্জাও হারিয়ে গেছে।’

আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি নেতারা প্রলাপ বকছেন বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, “দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ‘আওয়ামী লীগ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর প্রেতাত্মা’ বক্তব্য অশালীন এবং ধৃষ্টতাপূর্ণ।”

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মির্জা ফখরুলের এ ধরনের বক্তব্য চরম বিদ্বেষ ও আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ। তার এই মন্তব্য শতাব্দীর সেরা কৌতুক। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তাদের বিবেক-বুদ্ধিই শুধু লোপ পায়নি, চক্ষুলজ্জাও হারিয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের ইতিহাসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ইতিহাস অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। তার এ কথা শুধু আওয়ামী লীগের ঐতিহ্যকে অসম্মানিত করেনি, ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগকেও অপমানিত করেছে।

‘ফখরুল পুরো জাতি ও জনগণের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে তার রাজনৈতিক অবস্থান স্পষ্ট করেছেন। এটি জাতির অনুভূতিতে চরমভাবে আঘাত হেনেছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, “বিএনপি শুরু থেকেই আদর্শগতভাবে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মের মূল চেতনাবিরোধী রাজনীতি করে আসছে। মির্জা ফখরুল কিছুদিন পূর্বে মন্তব্য করেছিলেন- ‘পাকিস্তান আমলে ভালো ছিলাম।’ তাদের পাকিস্তানপ্রীতি নতুন কোনো বিষয় নয়।”

আওয়ামী লীগের এই দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা বলেন, ‘বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করে গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়ে পাকিস্তানি ভাবাদর্শে বাংলাদেশকে পরিচালিত করেছিলেন। এই সামরিক স্বৈরশাসক স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ধারাকে পরিপুষ্ট করেছিলেন। জিয়ার পদাঙ্ক অনুসরণ করে খালেদা জিয়া একইভাবে পাকিস্তানি ভাবাদর্শে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে এখনও মানসিকভাবে মেনে নিতে পারেনি। মানুষ যখন স্বাধীনতার সুফল ভোগ করছে তখনও বিএনপি স্বাধীনতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

‘আমরা বিশ্বাাস করি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণকারী পুরো দেশবাসী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ ঐক্যবদ্ধ এবং তারা আগামীতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণ করবে, ইনশাআল্লাহ।’

আরও পড়ুন:
জিয়া গলা টিপে গণতন্ত্র হত্যা করেছিলেন: ওবায়দুল কাদের
গণহত্যা নিয়ে বিএনপির বক্তব্যে পাকিস্তানের ভাষ্য দেখছেন কাদের
মির্জা ফখরুল অপশক্তির দালাল: কাদের
মির্জা ফখরুলের মর্মবেদনা আমরা বুঝি: ওবায়দুল কাদের
বিএনপির আন্দোলনের সঙ্গে জনগণ নেই: কাদের

মন্তব্য

রাজনীতি
Proloy Gang Affiliated terrorist organization of Chhatra League Chhatra Dal

‘প্রলয় গ্যাং’ ছাত্রলীগের সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন: ছাত্রদল

‘প্রলয় গ্যাং’ ছাত্রলীগের সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন: ছাত্রদল সোমবার বিকেলে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। ছবি: নিউজবাংলা
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি খোরশেদ আলম সোহেল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কখনও কোনো গ্যাংস্টার সংস্কৃতির জন্ম হয়নি। কিন্তু ছাত্রলীগ তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য এই গ্যাং সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে। সংগঠনটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫ বছর ধরে পেশিশক্তির মাধ্যমে নানা অপকর্মসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।’

বেপরোয়া গতিতে গাড়ি না চালাতে বলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে বেদম পিটুনির ঘটনার পর প্রকাশ্যে এসেছে ‘প্রলয় গ্যাং’। এই গ্যাংয়ের সদস্যরা মারধরসহ বিভিন্ন চাঁদাবাজি ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত।

জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের একদল শিক্ষার্থী এই গ্যাং তৈরি করেছেন। আর এই গ্যাং-এর কিছু সদস্য ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

প্রলয় গ্যাংস্টারের উদ্ভব ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশব্যাপী সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগের ‘সিরিজ অপকর্ম’-এর প্রতিবাদে সোমবার বিকেলে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। এ সময় সংগঠনটির নেতারা প্রলয় গ্যাংকে ছাত্রলীগের নতুন সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন বলে উল্লেখ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি খোরশেদ আলম সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে এই বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে শুরু হয়ে কার্জন হলের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে এই বিক্ষোভ শেষ হয়।

এ সময় খোরশেদ আলম সোহেল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কখনও কোনো গ্যাংস্টার সংস্কৃতির জন্ম হয়নি। কিন্তু ছাত্রলীগ তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য এই গ্যাং সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে। সংগঠনটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫ বছর ধরে পেশিশক্তির মাধ্যমে নানা অপকর্মসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এসব অপকর্ম ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের তীব্র নিন্দা ও কঠোর প্রতিবাদ জানায় এবং সব সন্ত্রাসী কার্যক্রম প্রতিহত করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছে। আমরা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রদলসহ সব ছাত্র সংগঠনের সহাবস্থান নিশ্চিত করার জোর দাবি জানাচ্ছি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি।’

সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একটি নব্য সন্ত্রাসী সংগঠন হচ্ছে প্রলয় গ্যাং, যা সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিপীড়ন সেল।

‘ছাত্রলীগ তাদের অতীত ঐতিহ্যগত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অব্যাহত রেখেছে। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, টেন্ডারবাজি, হলে সিট বাণিজ্য, ভর্তি বাণিজ্য, মাদকের কারবার ইত্যাদি কর্মকাণ্ডের কারণে ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের কাছে ঘৃণ্য সংগঠনে পরিণত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল ছাত্রলীগের এহেন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় এবং সাংগঠনিক অভিভাবক তারেক রহমানের নির্দেশনায় ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অচিরেই সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নিয়ে ছাত্রলীগকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করবে ইনশাআল্লাহ।’

ঢাবি ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান মাসুদ, যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, মাসুম বিল্লাহ, তরিকুল ইসলাম তারিক, নাছির উদ্দিন শাওন, সাদ্দাম হোসেন, রাজু আহমেদ, হান্নান তালুকদারসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
কোমরে পিস্তল নিয়ে ফেসবুকে ছাত্রলীগ নেতা
জাবিতে ছাত্রলীগের দেশীয় অস্ত্রের মহড়া, সাংবাদিকের ওপর হামলা
আলোচিত সেই ছাত্রলীগ সভাপতি গ্রেপ্তার
বিছানায় চবি ছাত্রলীগ সভাপতি, পা টিপছেন ২ নেতা
ছাত্র অধিকারের ২৪ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৬ এপ্রিল

মন্তব্য

রাজনীতি
Foreigners interested in investment due to political stability Information Minister

রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকায় বিদেশিরা বিনিয়োগে আগ্রহী: তথ্যমন্ত্রী

রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকায় বিদেশিরা বিনিয়োগে আগ্রহী: তথ্যমন্ত্রী তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। ফাইল ছবি
মন্ত্রী বলেন, ‘রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা যে কোনো বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের পূর্বশর্ত। আমাদের দেশের অর্থনীতির আকার যেভাবে বিস্তৃত হচ্ছে, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা আছে, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে ও বাড়ছে, এ সব কারণে বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য এখনই উপযুক্ত সময়।’

বাংলাদেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধির কারণে বাণিজ্য ও বিনিয়োগে বিদেশিদের আগ্রহ বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

সোমবার রাজধানীর কাওরানবাজারে একটি হোটেলে ‘ইনোভেটিভ বিজনেস অপরচুনিটিজ ফ্রম বেলজিয়াম’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

বেলজিয়ামের রপ্তানি উন্নয়ন সংগঠন ওলোনিয়া এক্সপোর্ট-ইনভেস্টমেন্ট এজেন্সি এবং ফ্ল্যান্ডার্স ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড ট্রেড যৌথভাবে এ সেমিনার আয়োজন করে।

মন্ত্রী বলেন, ‘রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা যে কোনো বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের পূর্বশর্ত। আমাদের দেশের অর্থনীতির আকার যেভাবে বিস্তৃত হচ্ছে, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা আছে, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে ও বাড়ছে, এ সব কারণে বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য এখনই উপযুক্ত সময়।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিনিয়োগে বিদেশিদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য সাধারণত আমরাই বিদেশে গিয়ে সভা-সেমিনার করি, আর আজ বেলজিয়ামের কর্তৃপক্ষ বিনিয়োগকারীদের নিয়ে এসে এখানে সেমিনার করছে। কিন্তু রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা যদি বিনষ্ট হয়, তাহলে বিদেশি বিনিয়োগ আসবে না এবং কোনো দেশ এভাবে এসে সেমিনার করবে না, সতর্কবার্তা দেন তিনি।’

মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে একশত ইকনোমিক জোন তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছেন। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি ইকনোমিক জোন উৎপাদনে গেছে। দেশি, বিদেশি বিনিয়োগ এবং চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা ভাবনায় রেখেই এই অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো তৈরি হচ্ছে।

বেলজিয়ামের লিম্বুর্গ ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাম থেকে পরিবেশ রসায়ন পিএইচডি অর্জনকারী হাছান মাহমুদ বলেন, বেলজিয়াম একটি উন্নত দেশ। বেলজিয়াম ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদর দপ্তর, ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্ট সেখানে বসে। সেই দেশ থেকে যদি আমাদের দেশে বিনিয়োগ আসে, বিশেষ করে হাইটেক শিল্প, যে খাতে আমরা এখনো সেভাবে পৌঁছায়নি, সে সব খাতে বিনিয়োগ আমাদেরকেও সে সব ক্ষেত্রে পারদর্শী করে তুলতে পারবে। বাংলাদেশ উপকৃত হবে।

এর আগে সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী দেশের অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরেন।

ঢাকায় নিযুক্ত বেলজিয়ামের রাষ্ট্রদূত দিদিয়ের ভ্যান্ডারহ্যাসেল্ট, ঢাকা চেম্বার অভ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট সামির সাত্তার, বাংলাদেশে বেলজিয়ামের কনসাল আরিফ দৌলা প্রমুখ সেমিনারে বক্তব্য রাখেন।

বেলজিয়ান সংস্থা ফ্ল্যান্ডার্সের ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কমিশনার বাবেটে ডেসফোসেজ এবং বেলজিয়ামের কৃষি, চিকিৎসা, নিত্যপণ্য, যানবাহন এবং নির্মাণ প্রযুক্তি বিষয়ক বাণিজ্য সংস্থার প্রতিনিধিরা সেমিনারে বাংলাদেশে তাদের বিনিয়োগের বিষয়ে উপস্থাপনা তুলে ধরেন।

আরও পড়ুন:
মুক্তিযোদ্ধার ছদ্মাবরণে পাকিস্তানিদের দোসর ছিলেন জিয়া: তথ্যমন্ত্রী
রমজানের পবিত্রতা নষ্ট করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ গেছে হাসের আমন্ত্রণে, বিএনপির মতো পদলেহনে না: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

রাজনীতি
Zia killed democracy by strangulation Obaidul Quader

জিয়া গলা টিপে গণতন্ত্র হত্যা করেছিলেন: ওবায়দুল কাদের

জিয়া গলা টিপে গণতন্ত্র হত্যা করেছিলেন: ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি এ দেশের গণতন্ত্র বিকাশের প্রধান অন্তরায়। দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ছিলেন সামরিক স্বৈরশাসক। তিনি দেশের গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছিলেন।’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান দেশের গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি এ দেশের গণতন্ত্র বিকাশের প্রধান অন্তরায়। দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ছিলেন সামরিক স্বৈরশাসক। তিনি দেশের গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছিলেন।’

তিনি বলেন, ‘বন্দুকের নলের মুখে অবৈধ ও অসাংবিধানিক উপায়ে ক্ষমতা দখলের মধ্য দিয়ে গঠিত অবৈধ দল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মুখে গণতন্ত্র এবং ভোটাধিকারের কথা ভূতের মুখে রাম নাম ছাড়া কিছু নয়।

‘যে দলের প্রতিষ্ঠাতা অসাংবিধানিক ও অবৈধভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলকারী সামরিক স্বৈরশাসক, যে দলের প্রতিষ্ঠা হয়েছে মিলিটারি ডিক্টেটরের পকেট থেকে সেই দল দেশের জনগণকে কী গণতন্ত্র দেবে? তাই বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা ও আন্দোলন জাতির সঙ্গে পরিহাসের শামিল।’

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘অবৈধভাবে সেনাপ্রধান, প্রধান সামরিক আইন কর্মকর্তা ও রাষ্ট্রপতির পদ দখল করে ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করার জন্য ১৯৭৭ সালে হ্যাঁ-না ভোটের নামে দেশের গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছিল স্বৈরাচার জিয়াউর রহমান। জিয়ার গণতন্ত্র ছিল কারফিউ মার্কা গণতন্ত্র।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘মির্জা ফখরুলরা নির্বাচনে না গিয়ে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি তীব্র সমালোচনা আর মিথ্যাচারের তীর ছুড়ে এবং দলীয়ভাবে আপাদমস্তক অগণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত রেখে নাকি দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে। জনগণ কী তা বিশ্বাস করে?

‘জিয়ার পদাঙ্ক অনুসরণ করে মাগুরা ও মিরপুর মার্কা উপ-নির্বাচন, ১৫ ফেব্রুয়ারির ভোটারবিহীন প্রহসনের নির্বাচন জাতিকে উপহার দিয়েছিল বিএনপি। বিএনপির গণতন্ত্রবিরোধী রাজনীতির কারণেই এদেশের গণতান্ত্রিক অভিযাত্রা বার বার হোঁচট খেয়েছে।’

আওয়ামী লীগ জনগণের ক্ষমতায়ন ও গণতান্ত্রিক চেতনাকে সমুন্নত রাখতে বদ্ধপরিকর উল্লেখ করে কাদের বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরিচালিত সরকার গণতন্ত্রকে ক্রমান্বয়ে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ভোটাধিকার সুরক্ষা দেয়ার লক্ষ্যে অবাধ, সুষ্ঠু, স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

‘জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে এবং জনগণের মতামতের ভিত্তিতেই রাষ্ট্রক্ষমতা পরিবর্তন হবে।’

আরও পড়ুন:
গণহত্যা নিয়ে বিএনপির বক্তব্যে পাকিস্তানের ভাষ্য দেখছেন কাদের
মির্জা ফখরুল অপশক্তির দালাল: কাদের
মির্জা ফখরুলের মর্মবেদনা আমরা বুঝি: ওবায়দুল কাদের

মন্তব্য

রাজনীতি
Extrajudicial killings are happening again due to non punishment Fakhrul

শাস্তি না হওয়ায় ফের বিচারবহির্ভূত হত্যা: ফখরুল

শাস্তি না হওয়ায় ফের বিচারবহির্ভূত হত্যা: ফখরুল রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সোমবার বিকেলে ‘মুক্তিযোদ্ধা গণসমাবেশ’-এ বক্তব্য দেন মির্জা ফখরুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপি মহাসচিব বলেন, র‍্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পর নাটকীয়ভাবে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড কমে গিয়েছিল। এখন তা আবার ঘটতে শুরু করেছে। কারণ যাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তাদের পুরস্কৃত করা হয়েছে, শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’

দেশে আবারও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, অতীতে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি না হওয়ায় পুনরায় এমন হত্যাকাণ্ড ঘটতে শুরু করেছে।

রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সোমবার বিকেলে ‘মুক্তিযোদ্ধা গণসমাবেশ’-এ তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল এ সমাবেশের আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নওগাঁয় র‍্যাব এক নারীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর তার মৃত্যু হয়েছে। ডাক্তার বলছেন, নিহত ওই নারীর মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। যে র‍্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল, সেই র‍্যাবের বিরুদ্ধে আবারও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ উঠছে।

‘নিষেধাজ্ঞার পর নাটকীয়ভাবে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড কমে গিয়েছিল। এখন তা আবার ঘটতে শুরু করেছে। কারণ যাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তাদের পুরস্কৃত করা হয়েছে, শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’

একাত্তরের পাকিস্তানি হানাদার সরকারের সঙ্গে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের কোনো পার্থক্য কেউ নেই মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশে যে সরকার অধিষ্ঠিত তা একাত্তরের পাকিস্তানি বাহিনীর প্রেতাত্মা। তারা সাধারণ মানুষের কথা ভাবে না। স্বাধীনতার পর বাহাত্তর সালেই এই আওয়ামী লীগের আসল মুখোশ খুলে গিয়েছিল।

‘আওয়ামী লীগ মনে করে তারা একাই যুদ্ধ করেছে। এ কারণে তারা শেরেবাংলা একে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল ওসমানীদের নাম স্মরণ করে না। স্বাধীনতার ঘোষক জিয়াউর রহমানের নাম তো উচ্চারণই করতে চায় না। বরং তাকে আরও দোষ দেয়।’

আওয়ামী লীগ নেতারা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয়েছেন মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের কাজ হচ্ছে প্রতারণা করা। ২০০৮ সালে ১০ টাকা কেজি চালের কথা বলেছে। এখন চালের দাম কত? তারা ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কথা বলছে। যুদ্ধ নয়, বরং আওয়ামী লীগের ব্যর্থতা আর তাদের দুর্নীতিতে দ্রব্যমূল্যের এই ঊর্ধ্বগতি।’

দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা ধ্বংস করে সংলাপের নাটক করা হচ্ছে মন্তব্য করে বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা এখনও এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেইনি। নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যবস্থা ছাড়া আমরা সংলাপ করব না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আওয়ামী লীগ স্বাধীনতাকে চিবিয়ে খাচ্ছে। স্বাধীনতা বাংলার মানুষের কাজে লাগছে না। লেবুর হালি ১০০ টাকা, কাঁচামরিচের কেজি ৩০০ টাকা। ধনী বাংলাদেশকে গরিব বানিয়ে কিছু মানুষ বিদেশে নতুন করে ধনী হওয়ার চেষ্টা করছে। যেদিন বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ থাকবে না সেদিন এ দেশের চেহারা পাল্টে যাবে।’

মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, দক্ষিণের আহ্বায়ক আব্দুস সালাম প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কেন সংলাপ নয়, জানাল বিএনপি
পঞ্চগড়ের ঘটনায় ফায়দা নেয়ার চেষ্টায় সরকার: ফখরুল
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে আ.লীগ ক্ষমতায় থাকতে চায়: ফখরুল
এই সরকারের একটাও ভালো কাজ নেই: ফখরুল
সালাহউদ্দিনকে দেশে ফেরানোর দায়িত্ব সরকারের: ফখরুল

মন্তব্য

রাজনীতি
Prime Minister asked how undemocratic party will give democracy

অগণতান্ত্রিক দল কীভাবে গণতন্ত্র দেবে, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

অগণতান্ত্রিক দল কীভাবে গণতন্ত্র দেবে, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সোমবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: পিআইডি
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা বলে, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র দেয়নি, তারা গণতন্ত্র দেবে। গণতন্ত্রের জন্য নাকি তারা লড়াই করে। ওদের জিজ্ঞেস করতে হয়, তাদের জন্মটা কোথায়? অবৈধ দখলদারি এটা তো আমাদের কথা না। আমাদের উচ্চ আদালত বলে দিয়েছে যে, জিয়া-এরশাদ সম্পূর্ণ অবৈধ। তারপর তারাও নাকি গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামও করে!’

অবৈধ প্রক্রিয়ায় যে দলের সৃষ্টি, সেটি কীভাবে গণতন্ত্র দেবে, সে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সোমবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এমন প্রশ্ন তোলন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যাদের জন্ম অবৈধভাবে, অগণতান্ত্রিকভাবে, তারা কীভাবে গণতন্ত্র দেবে? তারা নাকি আবার গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে! সামরিক একনায়কের হাতে অবৈধভাবে জন্ম নেয়া কোনো দল কখনও গণতন্ত্র দিতে পারে না।’

বিএনপির দমন-পীড়নের অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তার দল বা সরকার কারও ওপর অত্যাচার করেনি, কিন্তু বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে হাজার হাজার মানুষ হত্যা করেছেন। সেনাবাহিনীর মুক্তিযোদ্ধা অফিসার, সৈনিক থেকে শুরু করে প্রায় ৫ হাজার মানুষকে নির্বিচারে ফাঁসি দিয়েছেন, গুলি করেছেন, হত্যা করেছেন। পরিবারগুলো তাদের লাশও পায়নি।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি নালিশ করে তাদের ওপরে নাকি খুব অত্যাচার হচ্ছে। অথচ এ দেশে যা অন্যায়, অনাচার, অত্যাচার করেছে, তা সবই করেছে বিএনপি-জামায়াত জোট। বিএনপির শুরুই হয়েছে অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতা দখল করার মাধ্যমে। প্রথমে লেবাস পরে ক্ষমতায় যাওয়া, রাজনীতিকে গালি দিয়ে ক্ষমতা দখল করে, আবার সেই লেবাস খুলে নিজেরাই রাজনীতিবিদ হয়ে যাওয়া আর ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে দল গঠন করেছিলেন জিয়া। এখন অবৈধ দখলকারীদের হাতে তৈরি করা যে সংগঠন, তারা নাকি গণতন্ত্র চায়! যাদের জন্মই গণতন্ত্রের মধ্য দিয়ে হয়নি, যাদের জন্ম মিলিটারি ডিক্টেটরের মধ্য দিয়ে, তারা আবার গণতন্ত্র চায়।

‘তারা বলে, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র দেয়নি, তারা গণতন্ত্র দেবে। গণতন্ত্রের জন্য নাকি তারা লড়াই করে। ওদের জিজ্ঞেস করতে হয়, তাদের জন্মটা কোথায়? অবৈধ দখলদারি, এটা তো আমাদের কথা না। আমাদের উচ্চ আদালত বলে দিয়েছে যে, জিয়া-এরশাদ সম্পূর্ণ অবৈধ। তারপর তারাও নাকি গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামও করে!’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারী। ইনডেমনিটি দিয়ে তার বিচারের পথ রুদ্ধ করা হয়েছিল। আমি তো বিচার চাইতে পারিনি। দেশের মানুষ বিচার পায়নি। তারা আবার গণতন্ত্রের কথা বলে! আমি জানি, অনেক আন্তর্জাতিক শক্তি আছে, এই ধারাবাহিক গণতন্ত্র তাদের পছন্দ হয় না। আর আমাদের কিছু আঁতেল আছে। তাদের তো (গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা) পছন্দই না। তারা মনে করে, একটা অস্বাভাবিক সরকার ক্ষমতায় থাকলে তাদের কদর বাড়ে।

‘কারণ যারা অবৈধভাবে যারা ক্ষমতায় আসে, তাদের কিছু লোক হাতের লাঠি লাগে বা খুঁটি লাগে। সেই লাঠি হতে পারছে না বলেই তাদের মনে খুব দুঃখ।’

সমালোচনাকারী ওই ব্যক্তিদের উদ্দেশে সরকারপ্রধান বলেন, ‘তারা সবসময় দেশে এবং বিদেশে বদনাম তো করবেই, আবার দেশের মধ্যেও আজেবাজে লিখে যাচ্ছে যে, কিছুই নাকি হয়নি, কিন্তু বাংলাদেশের একেবারে তৃণমূল মানুষের কাছে যান, তাদের মধ্যে যে আস্থা ও বিশ্বাস আছে, সেটাই আমাদের ধরে রেখে এগিয়ে যেতে হবে।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘বাংলাদেশে স্বাধীনতা ব্যর্থ হতে দেয়া যাবে না। যে অবৈধ শক্তি পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে হত্যা করে ক্ষমতায় এসেছিল, তাদের কোনো প্রেতাত্মা যেন আবার দেশের মানুষের স্বাধীনতা নস্যাৎ করতে না পারে, সে জন্য নেতা-কর্মী ও দেশের জনগণকে অতন্দ্র প্রহরীর মতো সজাগ থেকে দেশের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে।’

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ২১ বছর এবং ২০০১ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত আট বছর; মোট ২৯ বছর বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘কালো অধ্যায়’ বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ২০০৮ এর পর, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে সরকারে আসার কারণে ধারাবাহিক গণতন্ত্র রয়েছে, ধারাবাহিক উন্নতি হয়েছে। সারা বিশ্ব বলতে বাধ্য হয়, বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল। কালো মেঘ কেটে দেশের মানুষের জন্য আমরা একটা নতুন সূর্যের আলো নিয়ে এসেছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ, সেই পথেই এগিয়ে যাবে।

‘বাংলাদেশের মানুষের যে আস্থা-বিশ্বাস সৃষ্টি হয়েছে, তা নিয়েই যেন তারা এগিয়ে চলে। কারও মিথ্যা কথায় যেন কেউ বিভ্রান্ত না হয়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যার যা কিছু আছে তা নিয়ে এ দেশের মানুষ লড়াই করতে নেমে গিয়েছিল। বাংলাদেশের যুদ্ধটা একটি জনযুদ্ধ ছিল। যে যেভাবে পেরেছে, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিল।

‘গেরিলা যোদ্ধারা যখন দেশে ঢুকেছে, এ দেশের মা-বোনেরা রান্না করে খাবার দেওয়া, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর অবস্থানের তথ্য দেওয়া, সেই কাজগুলো করেছে। একটা জনযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা এ দেশে বিজয় অর্জন করতে পেরেছি।’

আরও পড়ুন:
যুদ্ধ ও সংঘাত চাই না: প্রধানমন্ত্রী
গণতন্ত্রিক ধারাবাহিকতা থাকায় উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
স্বাধীনতা পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
বাংলাদেশকে বিমান চলাচল কেন্দ্র করতে রোডম্যাপ জরুরি : প্রধানমন্ত্রী
আরও ৭ জেলা ১৫৯ উপজেলাকে গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

মন্তব্য

p
উপরে