বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ফেরদৌসী কাদরীর ম্যাগসেসে জয়

বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ফেরদৌসী কাদরীর ম্যাগসেসে জয়

আইসিডিডিআর,বি'র জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী।

ড. ফেরদৌসী কাদরীর পুরস্কার পাওয়ার তথ্যটি আইসিডিডিআরবি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছে। এ ছাড়া র‍্যামন ম্যাগসেসের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ড. ফেরদৌসীর পুরস্কার পাওয়ার তথ্য দেয়া হয়েছে।

এশিয়ার নোবেল হিসেবে পরিচিত র‍্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কার পেয়েছেন আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী।

ড. ফেরদৌসী কাদরীর পুরস্কার পাওয়ার তথ্যটি আইসিডিডিআরবি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছে।

এ ছাড়া র‌্যামন ম্যাগসেসের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ড. ফেরদৌসীর পুরস্কার পাওয়ার তথ্য দেয়া হয়েছে।

তিনি কলেরা ও টাইফয়েড রোগ নিয়ন্ত্রণে অবদান রাখায় এই পুরস্কার পেয়েছেন বলে জানানো হয়।

ম্যাগসেসের ওয়েবসাইটে বলা হয়, সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ, ইমিউনোলজি, টিকার উন্নয়ন ও ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ড. ফেরদৌসীর অবদান রয়েছে।

নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন, শিক্ষা ও চিকিৎসার কম সুযোগ-সুবিধার কারণে এশিয়া ও আফ্রিকার দেশগুলোতে প্রধান রোগ হিসেবে পরিচিত কলেরা ও টাইফয়েড। আইসিডিডিআরবির এই বিজ্ঞানী ওই দুটি রোগ নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে ওয়েবসাইটে।

ড. ফেরদৌসী প্রাপ্তবয়স্ক, শিশু এমনকি ৯ মাস বয়সী শিশুদের জন্য টাইফয়েডের টিকা (ভিআইটিসিভি) উদ্ভাবনে এবং সেই সঙ্গে সাশ্রয়ী মূল্যে ওরাল কলেরা ভ্যাকসিন (ওসিভি) তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

ড. ফেরদৌসী ১৯৮৮ সালে আইসিডিডিআরবিতে যোগ দেন।

২০১৩ সালে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বিজ্ঞানের অগ্রগতির জন্য বিশ্ব বিজ্ঞান অ্যাকাডেমির বার্ষিক সিএন রাও পুরস্কার পান ফেরদৌসী কাদরী।

২০১৪ সালে তিনি ইনস্টিটিউট ফর ডেভেলপিং সায়েন্স অ্যান্ড হেলথ ইনিশিয়েটিভস (ideSHi) প্রতিষ্ঠা করেন। এই প্রতিষ্ঠান বায়োমেডিক্যাল গবেষণা পরিচালনা, প্রশিক্ষণ কোর্স এবং একটি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিচালনা করে। বর্তমানে এটি বাংলাদেশে বৈজ্ঞানিক ক্রিয়াকলাপের একটি কেন্দ্র হয়ে উঠেছে।

র‍্যামন ম্যাগসেসের ওয়েবসাইটে বলা হয়, লাখ লাখ মানুষের জীবন রক্ষা করেছে তার উদ্ভাবিত টিকা। এ জন্য ড. ফেরদৌসী কাদরীকে র‍্যামন ম্যাগসেসে অ্যাওয়ার্ড ফাউন্ডেশন আজীবন সম্মাননায় ভূষিত করেছে।

২০২১ সালের র‍্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কার পেয়েছেন ড. ফেরদৌসী কাদরীসহ পাঁচজন।

ড. ফেরদৌসী কাদরীর জন্ম ১৯৫১ সালের ৩১ মার্চ। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিকুলার বায়োলজি থেকে ১৯৭৫ সালে স্নাতক এবং ১৯৭৭ সালে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।

তিনি ১৯৮০ সালে যুক্তরাজ্যের লিভারপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়োকেমিস্ট্রি ও ইমিউনোলজিতে ডক্টরেট ডিগ্রি নেন।

ড. ফেরদৌসী কলেরা প্রতিরোধে বিল গেটস অ্যাওয়ার্ড, ইউনেক্সোর ইন্টারন্যাশনাল উইম্যান সায়েন্স পুরস্কারসহ অসংখ্য পরুস্কার পেয়েছেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মেক্সিকোর তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চলে সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ

মেক্সিকোর তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চলে সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ

সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ হয়েছে মেক্সিকোর তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চলে। ছবি: এএফপি

মেক্সিকোর সোনোরা অঙ্গরাজ্যের কংগ্রেস বৃহস্পতিবার সমলিঙ্গের বিয়ের পক্ষে ২৬টি ও বিপক্ষে সাতটি ভোট দেয়।

সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ করেছে মেক্সিকোর সোনোরা অঙ্গরাজ্যের কংগ্রেস।

অঙ্গরাজ্যটির আইনসভা কংগ্রেসে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সমলিঙ্গের বিয়ের পক্ষে বেশি ভোট পড়ে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সোনোরা অঙ্গরাজ্যে সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ করার মধ্য দিয়ে মেক্সিকোর প্রায় তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চল এই আইনের আওতায় এলো।

মেক্সিকোর উত্তরাঞ্চলে বিস্তীর্ণ এলাকা নিয়ে গঠিত সোনোরা। সীমান্তে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আরিজোনা ও নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্য।

বৃহস্পতিবার সোনোরার আইনপ্রণেতারা সমলিঙ্গের বিয়ের পক্ষে ২৬টি ও বিপক্ষে সাতটি ভোট দেন।

মেক্সিকোর মধ্যাঞ্চলে অবস্থিত দেশটির অন্যতম রক্ষণশীল অঙ্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত কোয়েরেতারোও বুধবার নিজেদের আইন পরিবর্তন করে সমলিঙ্গের বিয়ের অনুমোদন দেয়।

মেক্সিকোভিত্তিক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশটির ৩২টি অঙ্গরাজ্যের মধ্যে সমলিঙ্গের অনুমোদন দেয়া কোয়েরেতারো ২৩তম অঙ্গরাজ্য।

২০০৯ সালে মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটি প্রথম সমলিঙ্গের বিয়ের বৈধতা দেয়।

এর পরই বিয়ের সমতা ও এলজিবিটি সম্প্রদায়ের অধিকারের পক্ষে সোচ্চার হয় মেক্সিকোর বাকি অঞ্চল।

মেক্সিকোর বামপন্থি প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেজ ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদোরের রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল রিজেনারেশন মুভমেন্টের (মরিনা) অনেক কর্মী সমলিঙ্গের বিয়েসহ অন্যান্য অধিকারের কড়া সমর্থক।

রাজধানী মেক্সিকো সিটির পাশাপাশি আগুয়াসকালিয়েনতিস, বাহা ক্যালিফোর্নিয়া, বাহা ক্যালিফোর্নিয়া সুর, কামপেচি, চিয়াপাস, চিহুয়াহুয়া, কোয়াহুইলা, কলিমা, হিদ্যালগোসহ অন্যান্য অঙ্গরাজ্যেও সমলিঙ্গের বিয়ে গত কয়েক বছরে বৈধ ঘোষণা করা হয়।

শেয়ার করুন

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ৭৫ নারী শিল্পীকে নিয়ে আর্ট ক্যাম্প

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ৭৫ নারী শিল্পীকে নিয়ে আর্ট ক্যাম্প

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে আর্ট ক্যাম্প। ছবি: সংগৃহীত

আর্ট ক্যাম্পের চিত্রকর্মগুলো নিয়ে আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার ১ নম্বর গ্যালারিতে শুরু হবে মাসব্যাপী প্রদর্শনী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে ৭৫ নারী শিল্পীর অংশগ্রহণে শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী আর্ট ক্যাম্প।

একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় বুধবার উদ্বোধন হয় ‘শেখ হাসিনা: বিশ্বজয়ী নন্দিত নেতা’ শীর্ষক এ ক্যাম্পের।

শিল্পকলা একাডেমির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর ভাবনা ও পরিকল্পনায় দুই দিনের এই আর্ট ক্যাম্পে শিল্পী ফরিদা জামান, নাইমা হক, রোকেয়া সুলতানা, কুহু প্লামনডন, কনক চাঁপা চাকমা, আইভি জামান, ফারজানা আহমেদ শান্তা, সীমা ইসলাম, জয়া শাহরীন হক ও সৈয়দা মাহবুবা করিমসহ ৭৫ জন নারী শিল্পী অংশ নিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ৭৫ নারী শিল্পীকে নিয়ে আর্ট ক্যাম্প
‘শেখ হাসিনা: বিশ্বজয়ী নন্দিত নেতা’ শীর্ষক আর্টক্যাম্পে অংশ নেয়া চিত্রশিল্পীরা। ছবি: সংগৃহীত

২৩ সেপ্টেম্বর শেষ হবে এ আর্ট ক্যাম্প। এরপর ক্যাম্পের চিত্রকর্মগুলো নিয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার ১ নম্বর গ্যালারিতে শুরু হবে মাসব্যাপী প্রদর্শনী।

শেয়ার করুন

কিশোরীকে গণধর্ষণ, অপ্রাপ্তবয়স্কসহ ২৬ আসামি গ্রেপ্তার

কিশোরীকে গণধর্ষণ, অপ্রাপ্তবয়স্কসহ ২৬ আসামি গ্রেপ্তার

প্রতীকী ছবি

গত জানুয়ারিতে প্রথমবার মেয়েটিকে ধর্ষণ করে মূল অভিযুক্ত এবং পুরো ঘটনাটির ভিডিও ধারণ করে। এরপর ভিডিওটি প্রকাশের ভয় দেখিয়ে সে এবং বাকিরা মিলে বারবার মেয়েটিকে বিভিন্ন এলাকায় ডাকত এবং ধর্ষণ করত। শেষ পর্যন্ত বুধবার রাতে দোম্বিভালির মানপাড়া থানায় হাজির হয়ে অভিযোগ জানায় মেয়েটি; নাম উল্লেখ করে ২৯ জনের।

নয় মাস ধরে ১৫ বছরের এক কিশোরীকে গণর্ধষণের পর প্রকাশ্যে এসেছে বর্বর এ ঘটনা। জানা গেছে, ২৯ জন পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে তাকে। অভিযুক্তদের মধ্যে দুইজন অপ্রাপ্তবয়স্ক।

গা শিউড়ে ওঠার মতো এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের থানে জেলায়। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বারবার ধর্ষণের শিকার হয়েছে মেয়েটি।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, থানের দোম্বিভালি এলাকায় এ ঘটনায় অপ্রাপ্তবয়স্ক দুইজনসহ ২৬ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তিনজন পলাতক।

পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার দাত্তা কারালে জানান, মূল অভিযুক্ত অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেটি ধর্ষণের শিকার মেয়েটির বন্ধু ছিল। গত জানুয়ারিতে প্রথমবার সে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে এবং পুরো ঘটনাটির ভিডিও ধারণ করে।

এরপর ভিডিওটি প্রকাশের ভয় দেখিয়ে মূল অভিযুক্ত এবং বাকিরা মিলে বারবার মেয়েটিকে বিভিন্ন এলাকায় ডাকত এবং ধর্ষণ করত।

শেষ পর্যন্ত বুধবার রাতে দোম্বিভালির মানপাড়া থানায় হাজির হয়ে নিজে অভিযোগ জানায় মেয়েটি। এরপরই প্রকাশ্যে আসে ঘটনাটি। ধর্ষণের ঘটনায় ২৯ জনের নাম উল্লেখ করেছে সে।

ধর্ষণের শিকার মেয়েটি বর্তমানে একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানানো হয়েছে।

এ ঘটনায় গণধর্ষণ ও যৌন অপরাধের বিরুদ্ধে শিশুসুরক্ষা আইনের বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, যেসব স্থানে মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে, সেসব স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে এবং তদন্তের জন্য ফরেনসিক বিশেষজ্ঞদের ডেকে পাঠানো হয়েছে। ভিডিওসহ অন্যান্য প্রমাণও সংগ্রহ করেছে পুলিশ।

অভিযুক্তদের প্রায় সবাই একই এলাকার বাসিন্দা এবং ধর্ষণের শিকার মেয়েটি ও মূল অভিযুক্তের পরিচিত।

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন মহারাষ্ট্রের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেতা দেবেন্দ্র ফড়নাভিস।

এনসিপির আইনপ্রণেতা বিদ্যা চাভান জানিয়েছেন, অভিযুক্তদের কয়েকজন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্য। তাদের রাজনৈতিক পরিচয় যেন ধর্ষণের বিচারে বাধা না হয়, তা নিশ্চিতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি।

শেয়ার করুন

মণ্ডপে প্রতিমা ভাঙচুর

মণ্ডপে প্রতিমা ভাঙচুর

জেলার পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক তুহিন চাকী বলেন, ‘আগামী ৬ অক্টোবর মহালয়ার মাধ্যমে দুর্গোৎসব শুরু হওয়ার কথা। এখন এ ঘটনা ঘটল।’

কুষ্টিয়ায় একটি পূজামণ্ডপে ভাঙচুর চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা, ভেঙে ফেলা হয়েছে দুর্গাপূজার জন্য নবনির্মিত বেশ কিছু প্রতিমা।

শহরের আড়ুয়াপাড়ার আইকা সংঘ পূজামণ্ডপে মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নিউজবাংলাকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি- তদন্ত) নিশিকান্ত সরকার।

দুর্গাপূজা আয়োজনে ওই মণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে ছিল বলে জানায় জেলার পূজা উদযাপন পরিষদ। পুরোনো কোনো বিরোধের জেরে দুর্বৃত্তরা এই কাজ করেছে বলে ধারণা পরিষদের নেতাদের।

এর সাংগঠনিক সম্পাদক তুহিন চাকী জানান, মঙ্গলবার রাত ৩টার পর মণ্ডপ কমিটির লোকজন প্রতিমা ঢেকে রেখে বাড়ি চলে যান। বুধবার সকাল ৭টার দিকে এলাকার এক নারী মণ্ডপের পাশে একটি প্রতিমার মাথা পড়ে থাকতে দেখে সংশ্লিষ্টদের খবর দেন।

পরে মণ্ডপ কমিটির সদস্যরা গিয়ে দেখেন, দুর্গা, লক্ষ্মী, স্বরস্বতী, কার্তিক ও অসুরের প্রতিমা ভেঙে ফেলা হয়েছে।

তুহিন বলেন, ‘আগামী ৬ অক্টোবর মহালয়ার মাধ্যমে দুর্গোৎসব শুরু হওয়ার কথা। এখন এ ঘটনা ঘটল। সবগুলো প্রতিমার ক্ষতি করা হয়েছে।’

তিনি ও মণ্ডপ কমিটির নেতারা জানিয়েছেন, স্থানীয় এক পৌর কাউন্সিলরের সঙ্গে এলাকার একটি গোষ্ঠির দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে তাদের ধারণা।

শেয়ার করুন

নারীদের ড্রাইভিং প্রশিক্ষণের বিশেষ উদ্যোগ

নারীদের ড্রাইভিং প্রশিক্ষণের বিশেষ উদ্যোগ

নারীদের ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ দিতে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। ছবি: নিউজবাংলা

দেড় বছরে আটটি কেন্দ্রে ত্রিশজন করে ছয়টি ব্যাচে মোট ১ হাজার ৪৪০ জন নারীকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। প্রশিক্ষণ শেষে তাদের বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় সনদ দেয়া হবে।

দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে দেড় হাজার নারীকে মোটর ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ দেবে মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তর।

রাজধানীতে মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের সাথে এ বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।

মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

কর্মকর্তারা জানান, আয়বর্ধক প্রকল্পের মাধ্যমে এ প্রশিক্ষণ হবে। সাতটি বিভাগীয় শহর ও পাবনা জেলায় নারীদের মোটর ড্রাইভিং এবং বেসিক মেইন্টেইন্স বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

আগামী দেড় বছরে আটটি কেন্দ্রে ত্রিশজন করে ছয়টি ব্যাচে মোট ১ হাজার ৪৪০ জনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। প্রশিক্ষণ শেষে প্রশিক্ষণার্থীদের বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় সনদ দেয়া হবে।

শেয়ার করুন

ফ্রান্সে নির্বাচনের আগে মুসলিমবিরোধী পদক্ষেপ

ফ্রান্সে নির্বাচনের আগে মুসলিমবিরোধী পদক্ষেপ

ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাকি নেই আট মাসও। এখনই প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল মাখোঁ প্রায় ৬০ শতাংশ সমর্থন হারিয়েছেন বলে উঠে এসেছে বিভিন্ন জনমত জরিপে। এ অবস্থায় কট্টর ডানপন্থিদের ভোট পেতে মুসলিমবিরোধী বিভিন্ন প্রস্তাব উপস্থাপন করছে তার দল। মাখোঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কট্টর ডানপন্থি মেরি ল্যু পেন আগে থেকেই নিজের ইসলামবিরোধী ও মুসলিমবিদ্বেষী অবস্থানের জন্য পরিচিত।

ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে বিভিন্ন মুসলিম প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রচার চালাচ্ছেন দেশটির রাজনীতিবিদরা। ভোটারদের সমর্থন পেতে হাতিয়ার করেছেন ইসলামভীতিকে; আশ্বাস দিচ্ছেন মুসলিম সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার।

ফ্রান্সের কট্টর ডানপন্থি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডার্মানিন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে জানিয়েছেন, মুসলিমদের একটি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছেন তিনি। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ইসলামের ইতিহাসে ধর্মবিশ্বাসের দোহাই দিয়ে লড়াই করা মুসলিম নেতাদের কথা বলা বই বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।

প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানটির নাম ‘নাবা এডিশন্স’। এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির নামে থাকা সব ব্যাংক হিসাব এবং তাদের অন্যতম দুই প্রধান লেখক আইসাম আইত ইয়াহইয়া ও আবু সোলাইমান আল কাবির ব্যাংক হিসাব জব্দ করেছে প্যারিস।

মন্ত্রীর দাবি, প্রতিষ্ঠানটির সম্পাদকীয় নীতিমালা ‘সার্বজনীনতাবাদ-বিরোধী ও পশ্চিমা মূল্যবোধের সঙ্গে সরাসরি সাংঘর্ষিক’। জিহাদকে বৈধতা দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি বেশ কিছু বই প্রকাশ করেছে বলেও অভিযোগ তার।

এসব প্রকাশনার একটি হলো সপ্তম শতকের মুসলিম সেনা অধিপতি খালিদ ইবনে আল-ওয়ালিদের জীবনী।

টার্কিশ রেডিও অ্যান্ড টেলিভিশনের (টিআরটি) প্রতিবেদনে বলা হয়, ফ্রান্সের সাম্রাজ্যবাদী ইতিহাসে বর্বরতার অভিযোগে বিতর্কিত বিভিন্ন চরিত্র ও ঔপনিবেশিক শাসকদের প্রতি পক্ষপাতিত্ব রয়েছে ফরাসি প্রশাসনের। কিন্তু দেশটিতে মুসলিমরা নিজেদের ইতিহাস ও সাংস্কৃতিক পরিচয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিবেচিত ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে বই প্রকাশ করলে তা উগ্রবাদ হিসেবে গণ্য করে প্যারিস।

এক বিবৃতিতে নাবা এডিশন্স ফ্রান্সের এ ‘দ্বিমুখী আচরণের’ নিন্দা জানিয়ে বলেছে, এটি রাষ্ট্রের ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ আচরণ।

গত বছর ফ্রান্সের সর্ববৃহৎ মুসলিম দাতব্য সংস্থা বারাকা সিটি বন্ধ করে দেয় সরকার। এরপরে ইসলামভীতির বিরুদ্ধে কাজ করা পরামর্শক সংস্থা সিসিআইএফও ভেঙে দেয়া হয়। ফ্রান্সে মুসলিমদের বিরুদ্ধে সহিংসতার বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা একমাত্র প্রতিষ্ঠান ছিল সেটি।

ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাকি নেই আট মাসও। এখনই প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল মাখোঁ প্রায় ৬০ শতাংশ সমর্থন হারিয়েছেন বলে উঠে এসেছে বিভিন্ন জনমত জরিপে। এ অবস্থায় কট্টর ডানপন্থিদের ভোট পেতে মুসলিমবিরোধী বিভিন্ন প্রস্তাব উপস্থাপন করছে তার দল।

মাখোঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কট্টর ডানপন্থি মেরি ল্যু পেন আগে থেকেই নিজের ইসলামবিরোধী ও মুসলিমবিদ্বেষী অবস্থানের জন্য পরিচিত।

শেয়ার করুন

তালেবানের বিরুদ্ধে রাজপথে ১৩ আফগান কিশোরী

তালেবানের বিরুদ্ধে রাজপথে ১৩ আফগান কিশোরী

আফগানিস্তানে শূন্য পড়ে আছে মেয়েদের স্কুল। ছবি: টোলো নিউজ

তালেবানের নিষেধাজ্ঞার ফলে সায়েদুল শুহাদা গার্লস হাই স্কুলেই শিক্ষাবঞ্চিত কয়েক হাজার ছাত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, স্কুলটিতে প্রায় সাত হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি রয়েছে। সাম্প্রতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে ক্লাস করতে পারছে না প্রায় পাঁচ হাজার ছাত্রী।

আফগানিস্তানে মেয়েশিশু ও কিশোরীদের স্কুলে যেতে নিষেধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে পশ্চিমাঞ্চলীয় হেরাত শহরের ছোট্ট একদল কিশোরী। শাসক দল তালেবানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে অংশ নেয়া ১৩ কিশোরীর সবার বয়স ছিল ১৫ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে।

তালেবানশাসিত সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত নির্দেশনা অনুযায়ী, শনিবার থেকে আফগানিস্তানে ছাত্র ও শিক্ষকদের নিয়ে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পাঠদান শুরু হয়েছে। ছাত্রী ও শিক্ষিকাদের শিক্ষা কার্যক্রমে ফেরার বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে নির্দেশনায়।

তিন দিন ধরে মেয়েদের স্কুলগুলো শিক্ষার্থীশূন্য। এ অবস্থায় সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এ সিদ্ধান্তের প্রকাশ্য বিরোধিতা করে কয়েকজন শিক্ষার্থী।

যদিও যে এলাকায় বিক্ষোভটি হয়েছে, সেখানে তালেবান তেমন সক্রিয় নয় বলে তাৎক্ষণিকভাবে বিক্ষোভের খবর গোষ্ঠীটির কাছে পৌঁছায়নি। বিক্ষোভের খবর প্রচারে স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছিল শিক্ষার্থীরা।

বিক্ষোভে অংশ নেয়া ১৭ বছর বয়সী নার্গিস জামশেদ বলে, ‘তালেবানকে যত দ্রুত সম্ভব আমাদের স্কুলগুলো খুলে দেয়ার অনুরোধ করছি। স্কুলে না যাওয়ার অর্থ হলো, আমরা আরও পিছিয়ে পড়ব।’

১৮ বছরের শারারা শারওয়ারি বলে, ‘প্রতিটি মেয়েকে স্কুলে ফিরতে দেয়া হোক। প্রত্যেক নারীকে তাদের কর্মক্ষেত্রে ফিরতে দেয়া হোক। এই একটিই দাবি আমাদের।’

আফগানিস্তানের টোলো নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, কয়েকজন ছাত্রও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার অনুমতি দেয়ার অনুরোধ করেছে।

আহমেদ নামের এক শিক্ষার্থী বলে, ‘আমাদের স্কুল তো খুলে গেছে। মেয়েদের স্কুলগুলো খুলে দেয়া হলেও খুব ভালো হতো। ওদেরও দ্রুত শ্রেণিকক্ষে ফেরা দরকার।’

শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ভাষ্য অনুযায়ী, তালেবানের এ সিদ্ধান্তের কারণে দেশজুড়ে লাখো ছাত্রীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তায় পড়েছে।

কাবুলের পশ্চিমে সায়েদুল শুহাদা গার্লস হাই স্কুলের ছাত্রী ফাতিমা জানায়, তার স্বপ্ন ছিল বড় হয়ে আইনজীবী হওয়ার। কিন্তু সে স্বপ্ন দেখাও এখন নিষেধ।

ফাতিমা বলে, ‘আমার মনে হচ্ছে না যে আমি আফগানিস্তানের নাগরিক। মনে হচ্ছে আমাকে কয়েদির মতো ঘরে বন্দি করে রাখা হয়েছে।’

তালেবানের নিষেধাজ্ঞার ফলে সায়েদুল শুহাদা গার্লস হাই স্কুলেই শিক্ষাবঞ্চিত কয়েক হাজার ছাত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, স্কুলটিতে প্রায় সাত হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি রয়েছে। সাম্প্রতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে ক্লাস করতে পারছে না প্রায় পাঁচ হাজার ছাত্রী।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আকিলা তাওয়াক্কুলি জানান, ষষ্ঠ ও এর ওপরের শ্রেণিগুলোর চার হাজার ৭৪৫ জন শিক্ষার্থী এখন ঘরবন্দি।

আফগানিস্তানের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে ১৪ হাজার ৯৮টি স্কুল রয়েছে। এর মধ্যে প্রথম থেকে ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত স্কুল পাঁচ হাজার ৩৮৫টি, সপ্তম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত রয়েছে তিন হাজার ৭৮১টি স্কুলে এবং দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত স্কুল রয়েছে চার হাজার ৯৩২টি।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, প্রথম থেকে ষষ্ঠ শ্রেণির স্কুলগুলোর মধ্যে সাড়ে ১৩ শতাংশ, সপ্তম থেকে নবম শ্রেণির স্কুলগুলোর মধ্যে সাড়ে ১৫ শতাংশ এবং দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত স্কুলগুলোর মধ্যে ২৮ শতাংশ মেয়েদের স্কুল।

সংস্কৃতি ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের সাংস্কৃতিক কমিশনের সদস্য সাইদ খোস্তি বলেন, ‘কিছু কারিগরি সমস্যা আছে। নীতি প্রণয়ন ও কর্মপরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে সমস্যার গোড়া থেকে সমাধান করতে হবে।

‘কীভাবে মেয়েদের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা হবে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা দরকার। এসব সমস্যার সমাধান হলেই মেয়েরা স্কুলে ফিরবে।’

ছাত্রীরা বলছে, তালেবান বদলে গেছে বলে দাবি করলেও তাদের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্তে আরও বেশি ঝুঁকিতে পড়েছে নারী ও কিশোরীদের অধিকার।

এর আগে শুক্রবার আফগানিস্তানের নারী মন্ত্রণালয় স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয় শাসক গোষ্ঠী। রোববার রাজধানী কাবুলে নগর প্রশাসনের নারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরও বাড়িতে থাকার আদেশ দেয় তালেবান।

নব্বইয়ের দশকে প্রথম দফার শাসনামলেও নারীদের শিক্ষাগ্রহণ, জীবিকা উপার্জনসহ সব মৌলিক অধিকার বাতিল করেছিল তালেবান।

শেয়ার করুন