× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Couples throat slit bodies recovered from house in Coxs Bazar
google_news print-icon

কক্সবাজারে বাড়ি থেকে দম্পতির গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার

কক্সবাজারে-বাড়ি-থেকে-দম্পতির-গলাকাটা-মরদেহ-উদ্ধার
কক্সবাজারের রামু থানা। ফাইল ছবি
রামু থানার ওসি আবু তাহের দেওয়ান জানান, রাত ২টা থেকে ৩টার দিকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। কারা, কেন তাদের হত্যা করেছে বিষয়টি পরিষ্কার না।

কক্সবাজারের রামুতে ঘুমন্ত অবস্থায় এক দম্পতিকে দুর্বৃত্তরা গলা কেটে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ঈদগড় ইউনিয়নের উপরেরখিল এলাকায় নিজ বাড়িতে মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার ভোরের কোনো একসময় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন ঈদগড় ইউনিয়নের উপরের খিল এলাকার বাসিন্দা রুবি আক্তার (১৯) ও তার স্বামী নুর মোহাম্মদ (২৮)। নুর মোহাম্মদ চট্টগ্রামের রাউজান এলাকার বাসিন্দা।

রামু থানার ওসি আবু তাহের দেওয়ান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রাত ২টা থেকে ৩টার দিকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। কারা, কেন তাদের হত্যা করেছে বিষয়টি পরিষ্কার না। ঘটনার সূত্র বের করার চেষ্টা চলছে।

হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
নবজাতককে নয় তলা থেকে ফেলে হত্যা করেন মা: পুলিশ
ঈদের রাতে বগুড়ায় দুই তরুণকে কুপিয়ে হত্যা
নেত্রকোণায় মসজিদে ইমামকে ছুরিকাঘাত, হাসপাতালে মৃত্যু
স্ত্রীর সামনে পান ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়ার অভিযোগ
পাল্টাপাল্টি খুনের ঘটনায় উত্তপ্ত শাহপরীর দ্বীপ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The bridge costing 25 million taka was given before the construction was completed

নির্মাণ শেষ না হতেই দেবে গেছে আড়াই কোটি টাকার সেতু

নির্মাণ শেষ না হতেই দেবে গেছে আড়াই কোটি টাকার সেতু মানিকগঞ্জের যমুনাবাদ-বাস্তা এলাকায় খালের ওপর নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার দেবে বাঁকা হয়ে গেছে। ছবি: নিউজবাংলা
নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী আর শ্রমিকদের অদক্ষতার কারণে সেতুর পাইলিং ও শাটারিংয়ে ত্রুটি দেখা দেয়। এরপর ত্রুটির মধ্যেই ঢালাই দিলে সেতুর গার্ডার মাঝখানে দেবে বাঁকা হয়ে যায়। এ অবস্থায়ই সেতুটির নির্মাণ কাজ চলছে। উচ্চতা কম হওয়ায় সেতুর নিচ দিয়ে কোনো নৌযান চলাচলের সুযোগ নেই। বর্ষা মৌসুমে পানিস্তর সেতুটি ছুঁয়ে যাবে।

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর ও শিবালয় উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা যমুনাবাদ-বাস্তা এলাকার খালের ওপর দুই কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে আরসিসি ইনভার্টার গার্ডার সেতুর নির্মাণ কাজ চলছে। কিন্তু নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেছে সেতুটি। বাকা হয়ে গেছে গার্ডার।

চুক্তি অনুযায়ী ২০২২ সালের ১৩ অক্টোবর শিবালয় উপজেলা প্রকৌশলীর তত্ত্বাবধানে মের্সাস ফরমিলা আকতার নামের ঢাকার একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সেতুটির নির্মাণ কাজ শুরু করে। কিন্তু নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী আর শ্রমিকদের অদক্ষতার কারণে সেতুর পাইলিং ও শাটারিংয়ে ত্রুটি দেখা দেয়। এরপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ত্রুটির মধ্যেই ঢালাই দিলে সেতুর গার্ডার মাঝখানে দেবে বাঁকা হয়ে যায়। আর সেই দেবে যাওয়া বাঁকা গার্ডারের ওপরই সেতুটির নির্মাণ কাজ চলছে। সেতুটির নির্মাণ কাজে রডের পরিমাণেও ত্রুটির অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে সেতুটির উচ্চতা কম হওয়ায় এর নিচ দিয়ে নৌযান চলাচল করতে পারছে না। এমনকি বর্ষার সময় পানির স্তর সেতুটি ছুঁয়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। ইতোমধ্যে গার্ডার দেবে যাওয়ায় সেতুতে ময়লা-আবর্জনা আটকে জনভোগান্তির আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

বাস্তা এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ সাহেদ আলী বলেন, ‘সেতুর পাইলিংয়ের সময় সমস্যা দেখা দেয়। তখন ঠিকাদারের লোকজনকে বলা হয়েছিল। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। পরে ঢালাইয়ের শেষে দেখা যায়, সেতু নিচের দিকে বাঁকা হয়ে গেছে। তাছাড়া সেতুটি রাস্তা থেকেও নিচু হয়েছে। সেতুটি কমপক্ষে আরও তিন ফুট উঁচু করা দরকার ছিল।’

বাস্তা এলাকার মো. ইদ্রিস আলী বলেন, ‘সেতুটি নির্মাণের সময় অনিয়ম দেখে সরকার ও প্রশাসনের দৃষ্টি কামনায় ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করি। কারণ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজনকে বলে-কয়ে কোনো লাভ হয়নি। ওদিকে সেতুর নির্মাণ কাজে অনিয়মের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করায় স্থানীয় প্রভাবশালীদেরও বিরাগভাজন হতে হয়েছে।’

স্থানীয় সিকিম আলী বলেন, এমনিতেই সেতুটির উচ্চতা কম হয়েছে। তার ওপর নিচের দিকে বাঁকা হয়ে গেছে। নদীতে আর দু-তিন হাত পানি বাড়লেই সেতু ছুঁয়ে যাবে। আর বর্ষার সময় সেতুতে উজানের কচুরিপানাসহ সব আবর্জনা আটকে যাবে। তখন তো আমরা এলাকায় বসবাস করতে পারব না।

‘এখন যে অবস্থা দেখছি, তাতে তো মনে হয় সেতু না হওয়াই ভালো ছিল। ঠিকাদার প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সেতু নির্মাণে এই অনিয়ম করেছেন।’

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলী তপন কুমারের দাবি, ‘সেতু নির্মাণে কোনো অনিয়ম করা হয়নি। তবে পাইলিংয়ের পর শাটারিংয়ে সমস্যার কারণে সেতুর গার্ডার দেবে বাঁকা হয়ে গেছে। এতে কোনো সমস্যা হবে না। এসব বিষয়ে উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার স্যার অবগত আছেন। ইঞ্জিনিয়ার স্যার যেভাবে বলবেন সেভাবেই সেতুর কাজ করা হবে।’

শিবালয় উপজেলা প্রকৌশলী মোবারক হোসেন বলেন, ‘গার্ডার নিচু ও বাঁকা হয়ে যাওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। সরেজমিনে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমাদের কাজে অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই।

তবে নদীতে পানি বাড়লে বা বর্ষা হলেও মানুষের কোনো সমস্যা হবে না। কারণ ফ্লাড লেভেল থেকে সেতুটি তিন ফুট উঁচু রাখা হয়েছে। তাছাড়া এখান দিয়ে বড় ধরনের বা জরুরি কোনো নৌযান চলাচল করে না।’

ইতোমধ্যে সেতুটি নির্মাণ কাজের ৭০ ভাগ শেষ হয়ে গেছে বলে জানান এই প্রকৌশলী।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Four European countries will take three thousand workers from Bangladesh Foreign Minister

বাংলাদেশ থেকে তিন হাজার কর্মী নেবে ইউরোপের চার দেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশ থেকে তিন হাজার কর্মী নেবে ইউরোপের চার দেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোববার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা
হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি কোটা আন্দোলন থেকে সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করছে। সুপ্রিম কোর্ট স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দিয়েছে। অর্থাৎ সরকার যে কোটা বাতিল করেছিল, সেটিই বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্ট। এরপরও যখন আন্দোলন হয় তখন বুঝতে হবে এর সঙ্গে রাজনীতি যুক্ত হয়েছে।’

ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত চারটি দেশ ইতালি, জার্মানি, গ্রিস ও রোমানিয়া বাংলাদেশ থেকে তিন হাজার কর্মী নেবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রোববার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির বিদায়ী সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

ড. হাছান জানান, এই তিন হাজার কর্মীর দক্ষতার ওপর নির্ভর করে ভবিষ্যতে আরও কর্মী নেয়ার সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছেন ইইউ রাষ্ট্রদূত। পাশাপাশি বাংলাদেশ ২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার পরও ২০৩২ সাল পর্যন্ত যাতে আমাদের পণ্যের জন্য ইইউ থেকে জিএসপি বা শুল্কহ্রাস সুবিধাসহ বিদ্যমান অন্যান্য সুবিধা যেন অব্যাহত থাকে সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

কোটা সংস্কার আন্দোলন

চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কোটার বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে এসেছে। সরকার শিক্ষার্থীদের ওপর সহানুভূতিশীল হয়ে পুরো কোটাই বাতিল করে দিয়েছিল। হাইকোর্ট সেটি পুনর্বহাল করেছিল, সুপ্রিম কোর্ট স্থগিত করেছে।

কোটা আদালতে বিচারাধীন একটি বিষয়। সে কারণে এর ওপর সরকার কোনো সিদ্ধান্ত দিতে পারে না। তাহলে আদালত অবমাননা হবে। আদালতের মাধ্যমেই এর সমাধান হতে হবে।

ড. হাছান বলেন, এখন যে আন্দোলন হচ্ছে সেটির কোনো যৌক্তিকতা আছে বলে মনে করি না। এটি আদালতের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানোও বটে। সরকার সবসময় ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিল। সে কারণে কোটা পদ্ধতি বাতিল করেছিল। তবে বাতিল করার পরিপ্রেক্ষিতে অনেক সমস্যাও দেখা দিয়েছে। যেমন অনেক জেলা থেকে অনেক ক্যাডারে কেউ সুযোগ পাচ্ছে না, মেয়েদের অংশগ্রহণ কমে গেছে।

কোটা আন্দোলন থেকে বিএনপি সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করছে কি না- এ প্রশ্নের উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান বলেন, ‘বিএনপি সবসময় চায় দেশকে অস্থিতিশীল করতে। নিজেদের তো কিছু করার ক্ষমতা নেই, তারা অপরের ঘাড়ে চেপে বসে। কোনো সময় কোটার ওপর ভর করে, কোনো সময় তেল-গ্যাসের ওপর ভর করে, কোনো সময় আবার অন্য কিছুর ওপর ভর করে।

বিএনপি কোটা আন্দোলন থেকেও সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করছে। সুপ্রিম কোর্ট স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দিয়েছে। অর্থাৎ সরকার যে কোটা বাতিল করেছিল, সেটিই বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্ট। এরপরও যখন আন্দোলন হয় তখন বুঝতে হবে এটির সঙ্গে রাজনীতি যুক্ত হয়েছে।

বিমসটেক রিট্রিট

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে ১১-১২ জুলাই অনুষ্ঠিত বিমসটেক দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের দ্বিতীয় রিট্রিট সম্মেলনের বিষয়ে সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, জলবায়ু পরিবর্তন, চিকিৎসা, জ্বালানি নিরাপত্তা খাতে সহায়তা এবং নেপাল ও ভুটানে জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে সবুজ শক্তি ব্যবহার বৃদ্ধি নিয়ে রিট্রিটে কথা হয়েছে।

তিনি জানান, আগামী ৪ সেপ্টেম্বর থাইল্যান্ডে বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে বিমসটেকের পরবর্তী চেয়ার হিসেবে দায়িত্ব নেবে বাংলাদেশ।

রিট্রিটের সাইডলাইনে ভারত ও মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক নিয়ে মন্ত্রী হাছান জানান, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় বাংলাদেশের জন্য পচনশীল পণ্য আমদানিতে কোটা নির্ধারণের বিষয়টি আবারও এসেছে। তিস্তা বিষয়ে কারিইর দল প্রেরণ, ব্রিকসে অন্তর্ভুক্তি ও জয়েন্ট কনসালটেটিভ কমিটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

পাশাপাশি মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তারা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে চান। কিন্তু সেটি রাখাইনের বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর।

আরও পড়ুন:
ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গুলির ঘটনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা
কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করবেন না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বাংলাদেশকে এক বিলিয়ন ইয়েন অর্থসহায়তা দেবে চীন
প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে ২২ এমওইউর সম্ভাবনা, চুক্তি হবে না
সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক দেখে বিএনপির গাত্রদাহ হচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The full copy of the High Courts judgment re instating the quota is published

কোটা পুনর্বহাল করে‌ হাইকোর্টের রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ

কোটা পুনর্বহাল করে‌ হাইকোর্টের রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ। ফাইল ছবি
সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া এই রায়ের ওপর ১০ জুলাই এক মাসের স্থিতাবস্থা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

সরকারি চাকরিতে (প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী) মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে জারি করা পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করা হয়েছে।

রায়ে বলা হয়েছে, সরকার প্রয়োজনে অথবা চাইলে কোটা সংস্কার করতে পারবে। রায়ের ২৭ পৃষ্ঠার অনুলিপি রোববার সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

অবশ্য এর আগেই রাষ্ট্র ও সাধারণত শিক্ষার্থীদের পক্ষে করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ওই প্রজ্ঞাপনের ওপর এক মাসের স্থিতাবস্থা (স্ট্যাটাসকো) জারি করে আদেশ দিয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) কোটা পুনর্বহাল করে দেয়া হাইকোর্টের আলোচিত রায়ের মূল অংশ প্রকাশ করা হয় বলে মিডিয়াকে নিশ্চিত করেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ (এসকে) সাইফুজ্জামান জামান। এরপর রোববার রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ করা হলো।

সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের ওপর গত ১০ জুলাই এক মাসের স্থিতাবস্থা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

এর আগে ৫ জুন প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর জারি করা পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেয় হাইকোর্ট।

এ সংক্রান্ত রিটের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে হাইকোর্টের বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই রায় দেয়।

সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর জারি করা পরিপত্র কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে হাইকোর্ট। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের সাতদিনের মধ্যে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছিল।

এ সংক্রান্ত রিটের শুনানি নিয়ে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারি করে।

নারী কোটা ১০ শতাংশ, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০ শতাংশ এবং জেলা কোটা ১০ শতাংশ বাতিল করে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর ওই পরিপত্র জারি করা হয়।

তখন রিটকারীরা জানান, মুক্তিযোদ্ধাদের ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ কোটা নবম গ্রেড (পূর্বতন প্রথম শ্রেণী) এবং ১০ম থেকে ১৩তম গ্রেড (পূর্বতন দ্বিতীয় শ্রেণী) বাতিল করে (তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী) ১৪ থেকে ২০তম গ্রেডে রাখা হয়েছে, যা বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরবর্তী প্রজন্মকে হেয়প্রতিপন্ন করার শামিল।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিধি-১ শাখা থেকে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর নবম গ্রেড এবং ১০ম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত সরাসরি নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে একটি পরিপত্র জারি করা হয়।

সেখানে বলা হয়েছিল, ৯ম গ্রেড (পূর্বতন ১ম শ্রেণী) এবং ১০ম-১৩তম গ্রেড (পূর্বতন ২য় শ্রেণী) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে মেধাতালিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে। ওই পদসমূহে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হলো।

ওই পরিপত্র চ্যালেঞ্জ করে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সভাপতি অহিদুল ইসলাম তুষারসহ সাতজন হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন।

ওই রিটের শুনানি নিয়ে কোটা বাতিলের পরিপত্র কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে আদালত।

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে ২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর পদে ৫৬ শতাংশ কোটা বাতিল করা হয়। তবে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীতে কোটা ব্যবস্থা বহাল রাখে সরকার।

আরও পড়ুন:
কোটা আন্দোলনকারীদের অন্যদিকে ধাবিত করার চেষ্টা চলছে: হারুন
কোটা আন্দোলনকারীদের দাবি সংবিধানবিরোধী: কাদের
কোটা আন্দোলনকারীদের নামে শাহবাগ থানায় মামলা পুলিশের
কোটা নিয়ে আন্দোলনকারীদের দাবি সঠিক নয়: সেলিম মাহমুদ
পুলিশি হামলার প্রতিবাদে কুবি শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
As soon as the students file the case the ultimatum aspect will be investigated Home Minister

শিক্ষার্থীরা মামলা তোলার যতই আল্টিমেটাম দিক তদন্ত চলবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

শিক্ষার্থীরা মামলা তোলার যতই আল্টিমেটাম দিক তদন্ত চলবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন। ছবি: সংগৃহীত
আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘তদন্তের আগে বোঝা যাবে না তাদেরকে উসকানি দিচ্ছে কে। আন্দোলনে উস্কানিদাতা রয়েছে। শিক্ষার্থীরা যা করছে তা না বুঝেই কোটা নিয়ে আন্দোলন করছে।’

শিক্ষার্থীরা না বুঝেই কোটা নিয়ে আন্দোলন করছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি বলেছেন, ‘শিক্ষার্থীরা মামলা তোলার যতই আল্টিমেটাম দিক, তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলবে। মেরিট দেখেই মামলা করা হয়েছে।’

মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষে রোববার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর আয়োজিত আলোচনা সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘তদন্তের আগে বোঝা যাবে না তাদেরকে উসকানি দিচ্ছে কে। আন্দোলনে উস্কানিদাতা রয়েছে। শিক্ষার্থীরা যা করছে তা না বুঝেই কোটা নিয়ে আন্দোলন করছে।

‘কোটা আন্দোলনে উস্কানিদাতা রয়েছে। শিক্ষার্থীদের ভুল পথে পরিচালিত করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবারের ঘটনায় যে মামলা হয়েছে তদন্তের পর সেটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থামানো উচিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
জানমালের অনিশ্চয়তা দেখা দিলে পুলিশ বসে থাকবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
আন্দোলনকারীদের প্রতি কঠোর হবে না পুলিশ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
মিয়ানমারকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে পাল্টা গুলি চালাব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
প্রতি জেলায় হবে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Attack on Trump condemnable PM

ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: প্রধানমন্ত্রী

ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন। ছবি: ফোকাস বাংলা
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমেরিকার মতো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে একজন রাষ্ট্রপতি প্রার্থীর ওপর এমন হামলার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এটা গ্রহণযোগ্য নয়।’

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আমেরিকার মতো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে একজন রাষ্ট্রপতি প্রার্থীর ওপর এমন হামলার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক।

চীনে তিন দিনের সফর নিয়ে রোববার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যকালে তিনি এই নিন্দা জানান।

এক সাংবাদিক ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘আমেরিকা তাদের গণতন্ত্র নিয়ে অনেক গর্ববোধ করে। আমরা তো গুলি খাওয়ায় অভ্যস্ত, অনবরতই খাচ্ছি। সেখানে একজন বিরোধী নেতাকে এভাবে গুলি করা...।

‘অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন। তার একেবারে কানের ওপর দিয়ে গুলি চলে গেছে। যদি একটু এদিক-ওদিক হতো তিনি আর বাঁচতেন না।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘এটা আমেরিকার মতো জায়গায় হয় কী করে? আমেরিকার মতো সভ্য দেশে এ ধরনের ঘটনা ঘটবে কেন- সেটা তো আমাদের একটা প্রশ্ন। বাংলাদেশে হলে সরকারকে দায়ী করত। এক গ্রুপ সরকারকে দায়ী করত, আরেক গ্রুপ বলত যে নিজেই মারছি। এখানে লাগাম ছাড়া কথা বলা হয়। প্রেসিডেন্ট বাইডেনও এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।

‘এটা গ্রহণযোগ্য নয়। যারা আমাদের কথায় কথায় এরকম দোষ দেয় তারাও এখান থেকে শিক্ষা নিতে পারে।’

আরও পড়ুন:
আমার সাবেক পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক, হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না: প্রধানমন্ত্রী
কোটার সমাধান আদালত থেকেই আসতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন থেকে শূন্য হাতে ফেরার দাবিকারীরা মানসিকভাবে অসুস্থ: প্রধানমন্ত্রী
রপ্তানিযোগ্য নতুন পণ্য ও বাজার খুঁজতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বিকেলে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Foreign Minister condemns Donald Trump shooting incident

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গুলির ঘটনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গুলির ঘটনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ফাইল ছবি
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে সহিংসতা ছিল না। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর যে হামলা হয়েছে তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা এর নিন্দা জানাই। রাজনীতিতে সহিংসতার কোনো স্থান থাকা উচিত নয় বলে আমরা মনে করি।’

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় এক সমাবেশে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও আসন্ন নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গুলি করে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে রোববার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের অবস্থান অত্যন্ত পরিষ্কার। রাজনীতিতে আমরা কোনো সহিংসতা চাই না। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে সহিংসতা ছিল না। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর যে হামলা হয়েছে তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা এর নিন্দা জানাই। রাজনীতিতে সহিংসতার কোনো স্থান থাকা উচিত নয় বলে আমরা মনে করি।’

প্রসঙ্গ, যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় নির্বাচনি প্রচারাভিযানের সময় শনিবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটের দিকে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটে। গুলিতে ট্রাম্পের ডান কানের উপরের অংশ ফুটো হয়ে গেছে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হামলাকারী পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে। নিহত হয়েছেন সমাবেশে অংশ নেয়া ট্রাম্পের এক সমর্থকও।

আরও পড়ুন:
ট্রাম্পের ওপর হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত
ট্রাম্প নিরাপদ আছেন: সিক্রেট সার্ভিস
ট্রাম্পের ওপর হামলার নিন্দা, ঐক্যের ডাক বাইডেনের
সমাবেশে ট্রাম্পের কানে গুলি, হামলাকারী নিহত
কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করবেন না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
My ex pion owner of Tk 400 crore does not go without helicopter PM

আমার সাবেক পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক, হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না: প্রধানমন্ত্রী

আমার সাবেক পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক, হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন। ছবি: ফোকাস বাংলা
সরকার প্রধান বলেন, ‘যারা প্রশ্নপত্র ফাঁস করে এবং যারা ফাঁস হওয়া প্রশ্ন কিনে পরীক্ষা দিয়ে চাকরি পেয়েছে, তারা তো সমান অপরাধী। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া উচিত। খুঁজে পেলে, প্রমাণ পেলে অবশ্যই ফাঁস হওয়া প্রশ্নে চাকরি পাওয়াদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমার বাসায় কাজ করে গেছে, পিয়ন; সে এখন ৪০০ কোটি টাকার মালিক। হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না। এটা বাস্তব কথা। কী করে বানালো এই টাকা? যখন আমি জেনেছি, তাকে বাদ দিয়ে কার্ড সিজ করে ব্যবস্থা নিয়েছি। এটা তো হয়।’

গণভবনের রোববার চীন সফর-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘কোন ড্রাইভার কত টাকা বানালো, কে কী বানালো, সেটা খোঁজ করে ধরা হচ্ছে বলেই সবাই জানতে পারছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রথমে আমরা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছি। এখন জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে, তাদের থামিয়েছি। এবার আমরা দুর্নীতি নিয়ে কাজ করছি। দুর্নীতবাজদের ধরছি। এটা চলতে থাকবে।’

‌‘অনেকে আমাকে বলেন যে এটা করলে সরকারের ইমেজ নষ্ট হবে। আমি সেটা মনে করি না। যারা অপরাধ করছে, দুর্নীতিতে জড়াচ্ছে, তাদেরকে ধরতে হবে। এক্ষেত্রে ছাড় দেয়া হবে না।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘যারা প্রশ্নপত্র ফাঁস করে এবং যারা ফাঁস হওয়া প্রশ্ন কিনে পরীক্ষা দিয়ে চাকরি পেয়েছে, তারা তো সমান অপরাধী। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া উচিত। কিন্তু প্রশ্ন হলো, এখন তাদের খুঁজে দেবে কে? খুঁজে পেলে, প্রমাণ পেলে অবশ্যই ফাঁস হওয়া প্রশ্নে চাকরি পাওয়াদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

‘ধরার পর এগুলো চোখে আসে। তাছাড়া তো হয় না। যখনই ধরা পড়ে তখনই আমরা ব্যবস্থা নেই। এটা এক ধরনের মানসিকতা।’

তিনি বলেন, ‘আরেকটি কথা, সারাবিশ্বেই যে দেশ অর্থনীতিতে উন্নতি করে, সেখানেই এ ধরনের কিছু অনিয়ম হয়; কিছু লোকের হাতে চলে যায়, কিছু টাকা-পয়সা বানায়। তারা তো অপেক্ষা করে থাকে। যুগ যুগ ধরে এভাবেই চলে আসছে।’

আরও পড়ুন:
কোটার সমাধান আদালত থেকেই আসতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন থেকে শূন্য হাতে ফেরার দাবিকারীরা মানসিকভাবে অসুস্থ: প্রধানমন্ত্রী
রপ্তানিযোগ্য নতুন পণ্য ও বাজার খুঁজতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বিকেলে
ফুটবলের উন্নয়নে সরকারের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

p
উপরে