× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Allegation of taking the youth in the identity of the administration
google_news print-icon

প্রশাসনের লোক পরিচয়ে যুবককে তুলে নেয়ার অভিযোগ

প্রশাসনের-লোক-পরিচয়ে-যুবককে-তুলে-নেয়ার-অভিযোগ
নিখোঁজ সাগর আলী। ছবি: সংগৃহীত
পঞ্চগড় ডিবি পুলিশের ওসি মোজাফফর হোসেন জানান, শনিবার ওই এলাকায় তারা কোনো অভিযান পরিচালনা করেননি। এমনকি কোনো ব্যক্তিকে ওই এলাকা থেকে তুলে নিয়ে যাননি তারা।

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় প্রশাসনের লোক পরিচয়ে এক যুবককে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এলাকার শ্যামলী কাউন্টার থেকে শনিবার সকাল ১০টার দিকে সাগর আলীকে (২৫) তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

এ ঘটনায় শনিবার রাতে পরিবারের পক্ষ থেকে সাগরের বাবা তেঁতুলিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নিখোঁজ) করেন।

এ বিষয়ে পঞ্চগড় ডিবি পুলিশের ওসি মোজাফফর হোসেন জানান, শনিবার ওই এলাকায় তারা কোনো অভিযান পরিচালনা করেননি। এমনকি কোনো ব্যক্তিকে ওই এলাকা থেকে তুলে নিয়ে যাননি তারা।

নিখোঁজ হওয়া সাগরের বাড়ি উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউনিয়নের বাংলাবান্ধা বাজার এলাকায়। সাগর বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে শ্যামলী পরিবহনের একটি টিকিট কাউন্টারে বুকিং সহকারীর কাজ করেন। তিনি ওই এলাকার মহসিন আলীর ছেলে। তার নয় মাস বয়সী একটি ছেলে আছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সাগরের পরিবার সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এলাকার শ্যামলী পরিবহনের টিকিট কাউন্টারে বুকিং সহকারীর কাজ করছিলেন সাগর। পরে সেখান থেকে অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যক্তি সাগরকে প্রশাসনের লোক পরিচয়ে তাদের ব্যবহৃত একটি সাদা মাইক্রোবাসের কাছে নিয়ে নিয়ে যান, তবে সাগরের নামে কোনো মামলা নেই এবং তার কাছে কিছু তথ্য জেনেই ছেড়ে দেয়া হবে এমনটি জানান তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ সময় সাগর তাদের কাছে জানতে চান, তার কী অপরাধ, কেনই বা তাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তবে এসবের উত্তর না দিয়ে সাগরকে তুলে নিয়ে যান প্রশাসনের লোক পরিচয় দেয়া লোকজন।

স্থানীয়রা আরও জানান, গত শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে তিনটার দিকে তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা বাজার এলাকার হোটেল ধানসিঁড়ি ইন্টারন্যাশনালে (আবাসিক) আটজনের একটি দল হোটেলের তিনটি রুম বুকিং দিয়ে অবস্থান করেন। তাদের কাছে পিস্তল, ওয়াকি-টকি ও হ্যান্ডকাফ ছিল।

সাগরের বাবা বলেন, ‘আইনের লোক পরিচয় দিয়ে আমার ছেলেকে তুলে নিয়ে গেছে। পরে আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারি পঞ্চগড়ের পুলিশ তাকে নিয়ে যায়নি। তাহলে কে নিয়ে গেল আমরা কিছুই বুঝতে পারছি না।’

হোটেলে ধানসিঁড়ি ইন্টারন্যাশনালের (আবাসিক) ম্যানেজার হাসিবুর রহমান বলেন, ‘আটজনের একটি দল প্রশাসনের লোক পরিচয়ে একজনের নাম দিয়ে গত শনিবার ভোর রাতে আমাদের হোটেলে এসে অবস্থানের জন্য তিনটি রুম নেয়। তাদের সাথে পিস্তল, ওয়াকি-টকি ছিল।

‘তারা কাউকে অপহরণ করেছে কিনা জানি না, তবে তেঁতুলিয়া মডেল থানা পুলিশ আমাদের কাছে এসেছিল। তাদের কাছে সিসিটিভি ফুটেজ দেয়া হয়েছে।’

তেঁতুলিয়া মডেল থানা পুলিশের ওসি সুজয় রায় বলেন, ‘সাগর নামে একজনকে তুলে নেয়ার ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়েছে। আমরা তার সন্ধানে কাজ করছি।’

আরও পড়ুন:
মুহুরী নদীতে মিলল নিখোঁজ নৌ সৈনিকের মরদেহ
পদ্মার শাখা নদীতে নিখোঁজ রামিনের সন্ধানে ফের অভিযান শুরু
ভারতে গরু আনতে গিয়ে নিখোঁজ চাঁপাইনবাবগঞ্জের যুবক
বাড়ি যাওয়ার পথে নিখোঁজ, যুবকের মরদেহ মিলল দুদিন পর
সেপটিক ট্যাংকে আওয়ামী লীগ নেতার ছেলের মরদেহ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Assured no incident like Sholakia attack RAB DG

শোলাকিয়ায় হামলার মতো ঘটনা ঘটবে না সেই নিশ্চয়তা দিচ্ছি: র‍্যাব ডিজি

শোলাকিয়ায় হামলার মতো ঘটনা ঘটবে না সেই নিশ্চয়তা দিচ্ছি: র‍্যাব ডিজি রোববার সকালে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন র‍্যাব ডিজি মো. হারুন অর রশিদ। ছবি: সংগৃহীত
মো. হারুন অর রশিদ বলেন, ‘ঈদকে কেন্দ্র করে সুনির্দিষ্ট কোনো হামলা-নাশকতার তথ্য নেই। তবে কোনো আশঙ্কাকেই উড়িয়ে দিচ্ছি না। সব বিষয় মাথায় রেখেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে। আমরা সতর্ক রয়েছি।’

পবিত্র ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে সুনির্দিষ্ট কোনো হামলা বা নাশকতার তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন, তবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি ও সক্ষমতা রয়েছে আমাদের। নিশ্চয়তা দিচ্ছি শোলাকিয়ায় হামলার মতো ঘটনা ঘটবে না।

রোববার সকালে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে র‍্যাব ডিজি এসব কথা বলেন।

মো. হারুন অর রশিদ বলেন, ‘ঈদ ঘিরে আমরা যথেষ্ট সতর্ক রয়েছি। গোয়েন্দা নজরদারি জোরদার করা হয়েছে। ঈদকে কেন্দ্র করে সুনির্দিষ্ট কোনো হামলা-নাশকতার তথ্য নেই।

‘তবে কোনো আশঙ্কাকেই উড়িয়ে দিচ্ছি না। সব বিষয় মাথায় রেখেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে। আমরা সতর্ক রয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘র‌্যাবের ডগ স্কোয়াড, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটসহ দুটি হেলিকপ্টারকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যেকোনো ধরনের নাশকতা-হামলা প্রতিরোধ করতে র‌্যাব প্রস্তুত রয়েছে। সাইবার ওয়ার্ল্ডে সাইবার পেট্রলিং জোরদার করা হয়েছে। যেকোনো গুজব প্রতিরোধ করতেও প্রস্তুতি রয়েছে।’

‘বর্তমানে ত্রিমাত্রিক এলিট ফোর্সে পরিণত হয়েছে র‍্যাব। জল-স্থল-আকাশে আমাদের সক্ষমতা রয়েছে।’

র‍্যাব ডিজি বলেন, পবিত্র ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে রাজধানীসহ সারাদেশে পশুর হাট জমে উঠেছে। হাটকেন্দ্রিক মলম পার্টি, অজ্ঞানপার্টি প্রতিরোধে র‌্যাব সার্বক্ষণিক নজরদারি রেখেছে। হাটগুলোতে পর্যাপ্ত ফোর্স মোতায়েন রাখা হয়েছে, জাল টাকা শনাক্তের জন্য ডিভাইস রয়েছে।

‘প্রতিটি বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, ট্রেন স্টেশনে র‌্যাব সদস্য মোতায়েন রয়েছে। টিকিট কালোবাজারির সঙ্গে সংঘবদ্ধ ১০ জনের একটি দলকে র‌্যাব গ্রেপ্তার করেছে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পশুবাহী গাড়ি ঢাকায় আসছে। এসব গাড়ি যাতে কোথাও বাধাগ্রস্ত না হয় আমরা নজর রাখছি।’

হারুন অর রশিদ আরও বলেন, ‘ঈদের দিন ঢাকায় জাতীয় ঈদগাহে সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া শোলাকিয়া, রংপুর, দিনাজপুরে বড় জামাত হবে। এসব ঈদ জামাতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ নজরদারি জোরদার করা হয়েছে।

র‌্যাব সদর দপ্তর থেকে কন্ট্রোল রুম স্থাপন করে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা মনিটরিং করা হবে। চামড়া নিয়ে যাতে কোনো কারসাজি না হয়, সে বিষয়েও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rohingya youth picked up and shot dead in Ukhia camp

উখিয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রে রোহিঙ্গা যুবককে গুলি করে হত্যা

উখিয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রে রোহিঙ্গা যুবককে গুলি করে হত্যা কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা আশ্রয় কেন্দ্র। ফাইল ছবি
উখিয়া থানার ওসি মো. শামীম হোসেন বলেন, ‘কিছুদিন আগেও খাইরুল আমিন সন্ত্রাসী সংগঠন আরসার সদস্য ছিলেন। সম্প্রতি তিনি রোহিঙ্গাদের আরেকটি সংগঠন আরএসও’তে যোগ দিয়েছেন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই খুনের ঘটনা ঘটেছে।’

কক্সবাজারের উখিয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এক রোহিঙ্গাকে গুলি করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। খাইরুল আমিন নামের ওই রোহিঙ্গা যুবককে ক্যাম্প থেকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যার পর মরদেহ ধানক্ষেতে ফেলে রেখে যায় আরসা সন্ত্রাসীরা।

উখিয়া থানার ওসি মো. শামীম হোসেন জানান, শুক্রবার রাতে উখিয়া উপজেলার ১৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ-১৪ ব্লকে এই হত্যার ঘটনা ঘটে।

নিহত খাইরুল আমিন উখিয়ার ১৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ-১৪ ব্লকের বাসিন্দা জমির হোসেনের ছেলে।

স্থানীয়দের বরাতে ওসি শামীম হোসেন বলেন, ‘শুক্রবার রাতে ক্যাম্পে নিজের বসত ঘরের সামনে থেকে সন্ত্রাসী সংগঠন আরসার কমান্ডার মো. সলিমের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত খাইরুল আমিনকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে যায়। পরে ক্যাম্প সংলগ্ন মোছারখোলা বাঙালি পাড়ায় নিয়ে তাকে লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি করে দুর্বৃত্তরা। এরপর মরদেহ ধানক্ষেতে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

স্থানীয় লোকজন ধানক্ষেতে মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে এপিবিএনের একটি দল ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি বলেন, ‘কিছুদিন আগেও খাইরুল আমিন সন্ত্রাসী সংগঠন আরসার সদস্য ছিলেন। সম্প্রতি তিনি রোহিঙ্গাদের আরেকটি সংগঠন আরএসও’তে যোগ দিয়েছেন। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই খুনের ঘটনা ঘটেছে।’

নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান শামীম হোসেন।

আরও পড়ুন:
রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার পরিকল্পনাকারীসহ গ্রেপ্তার ৫
উখিয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রে তিন রোহিঙ্গাকে গুলি ও কুপিয়ে হত্যা
‘নাশকতার’ আগুনে বারবার জ্বলছে রোহিঙ্গা ক্যাম্প
উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আগুন নিয়ন্ত্রণে, পুড়ল দুই শতাধিক ঘর
রোহিঙ্গা সংকট আরও গভীর হতে পারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In Mohakhali 4 people including the bus driver are in the clutches of the unknown party

মহাখালীতে বাসচালকসহ ‘অজ্ঞান পার্টির’ খপ্পরে ৪ জন

মহাখালীতে বাসচালকসহ ‘অজ্ঞান পার্টির’ খপ্পরে ৪ জন মহাখালী বাস টার্মিনালে চারজন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কোলাজ: নিউজবাংলা
বাসচালক শাহিন বলেন, ‘ওই লোকটি বলে এত গরমে ঠান্ডা পানি খেলে আরাম লাগবে। তখন আমরা সবাই পানি পান করি। এরপর বাসটি টার্মিনালে ঢুকতেই লোকটিকে আর দেখা যায়নি। মনে হচ্ছে ওই ব্যক্তি অজ্ঞান পার্টির সদস্য ছিল, তবে আমাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা নিতে পারে নাই।’

রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনালে বাসের চালক, সুপারভাইজার ও হেলপারসহ চারজন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকা-নেত্রকোণা চলাচল করা নেত্রকোণা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে এ ঘটনা ঘটে। পরে সহকর্মীরা অচেতন অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান।

অসুস্থ চারজন হলেন বাসচালক মোহাম্মদ শাহিন (৩০), সুপারভাইজর রফিকুল ইসলাম (২৬), হেলপার সৌরভ (২৭) ও রবিন (২৫)।

তাদের ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া মোহাম্মদ বাবু জানান, তারা চারজনই নেত্রকোণা পরিবহন বাসের স্টাফ। রাতে তারা নেত্রকোণা থেকে ঢাকায় আসেন। বাসটি মহাখালী টার্মিনালে ঢুকতেই চালকসহ চারজনই বাসের ভেতরে অচেতন হয়ে পড়েন, তবে শাহিনের জ্ঞান ছিল।

বাসচালক শাহিন বলেন, ‘নেত্রকোণা থেকে বাস নিয়ে রাতে মহাখালী আসার পরে টার্মিনালে ঢোকার আগে এক ব্যক্তি আমাদের ঠান্ডা পানি খেতে দেয়। ওই লোকটি বলে এত গরমে ঠান্ডা পানি খেলে আরাম লাগবে। তখন আমরা সবাই পানি পান করি। এরপর বাসটি টার্মিনালে ঢুকতেই লোকটিকে আর দেখা যায়নি। মনে হচ্ছে ওই ব্যক্তি অজ্ঞান পার্টির সদস্য ছিল, তবে আমাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা নিতে পারে নাই।’

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মহাখালী টার্মিনাল খেকে চারজনকে অচেতন অবস্থায় ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাদেরকে স্টমাক ওয়াশ দিয়ে মেডিসিন ওয়ার্ডে পাঠান।’

আরও পড়ুন:
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্ব খোয়ালেন পুলিশ সদস্য

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Benazir left Dhaka Boat Club

ঢাকা বোট ক্লাবের দায়িত্ব ছাড়লেন বেনজীর

ঢাকা বোট ক্লাবের দায়িত্ব ছাড়লেন বেনজীর পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ। ফাইল ছবি
ঢাকা বোট ক্লাবের উপদেষ্টা রুবেল আজিজকে পাঠানো এক চিঠিতে বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘বর্তমানে জরুরি কাজে পরিবারের সঙ্গে আমি দেশের বাইরে আছি। এই মুহূর্তে বোট ক্লাবের দায়িত্ব পালন করতে পারছি না। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে কাউকে মনোনয়ন করা হোক।’

ঢাকা বোট ক্লাবের সভাপতি পদ থেকে সরে দাঁড়াতে চিঠি পাঠিয়েছেন পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ। ক্লাবের সভাপতি পদে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে কাউকে দায়িত্ব দিতে ১৩ জুন চিঠি পাঠিয়েছেন তিনি।

ঢাকা বোট ক্লাবের উপদেষ্টা রুবেল আজিজকে পাঠানো ওই চিঠিতে বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘বর্তমানে জরুরি কাজে পরিবারের সঙ্গে আমি দেশের বাইরে আছি। এই মুহূর্তে বোট ক্লাবের দায়িত্ব পালন করতে পারছি না।

‘ক্লাবের যাবতীয় কাজ সম্পাদনের জন্য ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে কাউকে মনোনয়ন করা হোক।’

চিঠিতে এ ব্যাপারে দ্রুত উদ্যোগ নিতেও বোট ক্লাবের ইসি কমিটির প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন বেনজির আহমেদ।

২০১৪ সালে বোট ক্লাব প্রতিষ্ঠা হয়। তারপর থেকেই ২০১৫ সালে ক্লাবটির সভাপতি পদে আসীন হন তিনি। সেই থেকে এখন পর্যন্ত ক্লাবের সভাপতি পদ ধরে রেখেছেন এই সাবেক আইজিপি।

আরও পড়ুন:
বেনজীর চাইলে ১৫ দিন সময় দিতে পারে দুদক
বেনজীর ৬ জুন দুদকে হাজির হন কি না দেখার বিষয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বান্দরবানের পাহাড়েও বেনজীরের বিপুল সম্পদের সন্ধান
দোষী হলে বেনজীরকে দেশে ফিরতেই হবে: কাদের
সাবেক আইজিপি বেনজীরকে স্ত্রী-সন্তানসহ দুদকে তলব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fraudster arrested in love trap of London daughter

লন্ডনি-কন্যাকে প্রেমের ফাঁদে, প্রতারক গ্রেপ্তার

লন্ডনি-কন্যাকে প্রেমের ফাঁদে, প্রতারক গ্রেপ্তার প্রতারণার মামলায় শনিবার শিব্বিরকে গ্রেপ্তার করে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
জগন্নাথপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘ইংল্যান্ডপ্রবাসী ওই তরুণীর চাচা মামলা করায় আসামি শিব্বিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে দীর্ঘদিন ধরে ওই তরুণীর সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিল। আসামিকে সুনামগঞ্জ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এক লন্ডনি-কন্যাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রতারণার অভিযোগে শাব্বির আহমদ নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ওই লন্ডনিক-ন্যার চাচা বাদী হয়ে শনিবার জগন্নাথপুর থানায় শিব্বির আহমদের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি ও অর্থ আত্মসাৎ আইনে মামলা করেন। পরে অভিযুক্তকে নিজ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযুক্ত শিব্বির জগন্নাথপুর পৌরসভার হবিবপুর (দক্ষিণ পাড়া) এলাকার রহমত আলীর ছেলে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি দেশের বাড়িতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আসেন ইংল্যান্ড প্রবাসী ওই তরুণী। অভিযুক্ত শিব্বির ওই তরুণীর বাড়িতে প্রাইভেট গাড়িচালকের কাজ করতেন। সে সুবাদে প্রেমের ফাঁদ পেতে ওই তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন ওই যুবক। কিছুদিন পর ওই তরুণী আবার ইংল্যান্ডে চলে গেলেও শিব্বিরের সঙ্গে হোয়াটসসঅ্যাপে ভিডিও কলে কথা বলতেন। তখন কৌশলে ওই তরুণীর ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন শিব্বির। এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই প্রকাশ পায় শিব্বিরের প্রতারণার রূপ। এক পর্যায়ে তিনি ওই তরুণীর কাছ থেকে ছবি আর ভিডিও ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে হাতিয়ে নেন মোটা অংকের টাকা।

মামলার বাদী বলেন, ‘শিব্বির কৌশলে আমার ভাতিজির ছবি ও ভিডিও ধারণ করে দীর্ঘদিন ধরে তাকে ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে তিন লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। সবশেষ শুক্রবার সে ফোনের মাধ্যমে আরও পাঁচ লাখ টাকা দাবি করলে ভাতিজি বিষয়টি আমাদের জানায়। পরে আমরা আইনের আশ্রয় নেই।’

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘ইংল্যান্ডপ্রবাসী ওই তরুণীর চাচা মামলা করায় আসামি শিব্বিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে দীর্ঘদিন ধরে ওই তরুণীর সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিল। আসামিকে সুনামগঞ্জ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
পাল্টাপাল্টি খুনের ঘটনায় উত্তপ্ত শাহপরীর দ্বীপ
সালিশে মারধর ও জরিমানা করায় মাতব্বরকে হত্যা: পুলিশ
পাচারের চেষ্টা করা ৫ নারী উদ্ধার, চীনা নাগরিকসহ দুজন গ্রেপ্তার
রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার পরিকল্পনাকারীসহ গ্রেপ্তার ৫
রাজধানীতে দেড় কোটি টাকার জাল নোট জব্দ, গ্রেপ্তার ৪

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two motorcyclists killed in Ghazaria road accident

গজারিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

গজারিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত গজারিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে নিহতদের মরদেহ। ছবি: নিউজবাংলা
এ ব্যাপারে গজারিয়া ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘নিহত দুজনের মরদেহ গজারিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রয়েছে। আমরা ঘাতক গাড়িটি শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।’

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মোটরসাইকেলের পেছনে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

গজারিয়ার বালুয়াকান্দি এলাকায় শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার লক্ষণখোলা গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে ২১ বছর বয়সী জামিউল ইসলাম জয় এবং একই উপজেলার বড় সাপমারা গ্রামের ফিরোজ আলীর ছেলে ১৯ বছর বয়সী ইমরান হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মেঘনা উপজেলা থেকে গজারিয়া উপজেলার মিয়ামী ডাইন রেস্টুরেন্ট খেতে যাচ্ছিলেন দুই বন্ধু জয় ও ইমরান। ইমরান মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন এবং জয় তার পেছনে বসা ছিলেন। পথিমধ্যে তারা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ঢাকাগামী লেন দিয়ে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া অংশের বালুয়াকান্দি শাহ্ শের আলী সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সামনে এলে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন জয়। গুরুতর আহত অবস্থায় ইমরানকে গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. সায়মা আক্তার বলেন, ‘বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে আমাদের হাসপাতালে ইমরান নামে একজন রোগীকে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ শেষে আমরা তাকে মৃত ঘোষণা করি। হাসপাতালে আনার আগেই সে মারা গিয়েছিল।’

এ ব্যাপারে গজারিয়া ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘নিহত দুজনের মরদেহ গজারিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রয়েছে। আমরা ঘাতক গাড়িটি শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।’

আরও পড়ুন:
অটোরিকশায় কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কা, দুজন নিহত
টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাইভেট কারের চালকসহ নিহত ৫
শেরপুরে ট্রাকচাপায় পল্লী বিদ্যুতের মিটার রিডার নিহত 
কুমিল্লায় গরু বোঝাই ট্রাক উল্টে নিহত ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Accused of anti humanity case dies in Central Jail

কেন্দ্রীয় কারাগারে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামির মৃত্যু

কেন্দ্রীয় কারাগারে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামির মৃত্যু ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের মর্গ। ফাইল ছবি
কেন্দ্রীয় কারাগারের কারারক্ষী মো. সুজন মিয়া বলেন, ‘সৈয়দ মোহাম্মদ তিতুমীর মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি ছিলেন, তবে মামলার বিস্তারিত আমরা বলতে পারব না।’

ঢাকার কেরাণীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারে অসুস্থ অবস্থায় মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার এক আসামির মৃত্যু হয়েছে।

কারারক্ষীরা শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে অসুস্থ হাজতিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রাণ হারানো হাজতির নাম সৈয়দ মোহাম্মদ তিতুমীর (৬৭)।

কেন্দ্রীয় কারাগারের কারারক্ষী মো. সুজন মিয়া জানান, রাতে কারাগারে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে কারা কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান।

তিনি বলেন, ‘সৈয়দ মোহাম্মদ তিতুমীর মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি ছিলেন, তবে মামলার বিস্তারিত আমরা বলতে পারব না।’

ঢামেক পুলিশ ক‍্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘কেরাণীগঞ্জ থেকে একজন যুদ্ধাপরাধীকে ঢামেকে নিয়ে আসলে রাতে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে ময়নাতদন্ত হবে।’

এর পর স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
ভাটারায় ভবনে বিস্ফোরণ: দগ্ধ শিশুর মৃত্যু
চট্টগ্রামে খালে নিখোঁজ দুই শিশুর মধ্যে একজনের মরদেহ উদ্ধার
মৌলভীবাজারে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু
সিলেটে টিলা ধস: ছয় ঘণ্টা পর ৩ মরদেহ উদ্ধার
শিল্পোদ্যোক্তা আব্দুল মোনেমের মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল

মন্তব্য

p
উপরে