× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
India interested in financing Bangladeshs Teesta project Hasan Mahmood
google_news print-icon

বাংলাদেশের তিস্তা প্রকল্পে অর্থায়নে আগ্রহী ভারত: হাছান মাহমুদ

বাংলাদেশের-তিস্তা-প্রকল্পে-অর্থায়নে-আগ্রহী-ভারত-হাছান-মাহমুদ
ফাইল ছবি
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জানেন তিস্তা নিয়ে আমরা একটা বড় প্রজেক্ট হাতে নিয়েছি। এই প্রকল্পে অর্থায়ন করতে চায় ভারত। আমাদের চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। আমরা আমাদের চাহিদা পূরণ দেখতে চাই।’

বাংলাদেশের তিস্তা প্রকল্পে অর্থায়নের বিষয়ে ভারত আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিনয় মোহন কোয়াত্রার সঙ্গে বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা জানান। খবর ইউএনবির

তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন তিস্তা নিয়ে আমরা একটা বড় প্রজেক্ট হাতে নিয়েছি। এই প্রকল্পে অর্থায়ন করতে চায় ভারত। আমাদের চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। আমরা আমাদের চাহিদা পূরণ দেখতে চাই।’

তিস্তা নিয়ে তাদের আলোচনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা তিস্তা ইস্যু নিয়ে আলোচনা করেছি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নয়া দিল্লি সফর প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই ভারত সফর করবেন।

তিনি বলেন, ‘ভারতে নির্বাচন চলছে। নতুন সরকার গঠন করা হবে এবং তারপরে সফরের তারিখ চূড়ান্ত করা হবে।’

প্রধানমন্ত্রী প্রথমে ভারত যাবেন না কি চীন- জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেসে বলেন, ভৌগোলিক দূরত্বের দিক থেকে দিল্লি বাংলাদেশের কাছে।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো ইঙ্গিত দিচ্ছে, জুনের শেষ দিকে প্রতিবেশী দেশটির নির্বাচন শেষ হওয়ার পর সম্ভব না হলেও জুলাইয়ের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

সীমান্ত হত্যা প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সীমান্ত হত্যা বন্ধে সরকার ও রাজনৈতিক পর্যায়ে সদিচ্ছার অভাব নেই।

তিনি বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আমরা প্রাণঘাতী নয় এমন অস্ত্র ব্যবহারের ওপর জোর দিয়েছি।’

তিনি বলেন, সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এবং তারা নির্দেশনা অনুসরণ করে প্রাণঘাতী নয় এমন অস্ত্র ব্যবহার করছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তবে প্রাণঘাতী নয় এমন অস্ত্র যখন কাছাকাছি ব্যবহার করা হয় তখন তা প্রাণঘাতী অস্ত্রের মতো কাজ করে।

হাছান মাহমুদ বলেন, তারা মানুষ থেকে মানুষে যোগাযোগ নিয়েও আলোচনা করেছেন।

তিনি বলেন, নেপাল ও ভুটান থেকে ভারতের মধ্যে দিয়ে জলবিদ্যুৎ আমদানিতে ভারতের সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

ভিসা প্রক্রিয়া আরও সহজ করার উপায় নিয়েও আলোচনা করেন তারা।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বৃষ্টি হতে পারে

বৃষ্টি হতে পারে ফাইল ছবি
রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

সারা দেশে অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, সারা দেশে অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বোচ্চ ১৩৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

অধিদপ্তর বলছে, সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আবহাওয়ার সার্বিক পর্যবেক্ষণে বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত একটি নিম্নচাপ অবস্থান করছে। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যত্র মাঝারি থেকে শক্তিশালী পর্যায়ে রয়েছে। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যান্য স্থানে মাঝারি পর্যায়ে রয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
5 families are homeless due to cold weather

শীতলক্ষ্যায় ভাঙনে গৃহহারা ৫ পরিবার

শীতলক্ষ্যায় ভাঙনে গৃহহারা ৫ পরিবার ভেঙে গেছে ঘরবাড়ি। ছবি: নিউজবাংলা
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আমানত হোসেন খান বলেন, নদী ভাঙনের শিকার হওয়া পরিবারকে সহযোগিতা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সাথে জরুরি ভিত্তিতে ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের কাপাসিয়া মধ্যে পাড়া গ্রামের পাঁচটি পরিবারের বসত ঘর নদীতে ভেঙে গেছে।

কদিন ধরে পরিবার-পরিজন নিয়ে অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন তারা। এই ভাঙনের ফলে এলাকাজুড়ে বিরাজ করছে আতঙ্ক। অনেক পাকা ঘর, মাদ্রাসা, ঈদগা মাঠও ভাঙনের আশঙ্কায়।

সরজমিনে পরিদর্শন গিয়ে দেখা যায়, ফকির মজনু শাহ সেতু সংলগ্ন উত্তর পাশে কাপাসিয়া মধ্যপাড়া গ্রাম। শীতলক্ষ্যা নদীর পাড় ঘেঁষে গড়ে উঠেছে একটি ঘনবসতি এলাকা যার স্থানীয়দের কাছে কুলু পাড়া নামে পরিচিত। গত রোববার রাতে অতিবর্ষণের ফলে এলাকার হেনা বেগম, মাসুদ মিয়া, রফিকুল ইসলাম, বাবুল মিয়া, আক্কাস আলী ও কিরন মিয়ার বসত ঘর ও বড় গাছপালা সহ নদীতে দেবে গেছে।

পাশেই রয়েছে কাপাসিয়া উপজেলার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ। ঈদগার সাথে রয়েছে মসজিদ, মসজিদের উত্তর পাশে রয়েছে একটি মাদ্রাসা। এই ভাঙনের ফলে আশেপাশের বাড়ি ও মসজিদ মাদ্রাসা ভাঙনের আশঙ্কা রয়েছে।

স্থানীয়রা মনে করছেন, যেকোনো সময় বড় ধরনের ভাঙনের শঙ্কা রয়েছে। ঈদের আগের দিন রাতে এই ভাঙন শুরু হয়। ভাঙনের ফলে পাঁচটি পরিবারের ঈদের আনন্দ মাটি হয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার বসত ঘর ভেঙে নদীতে চলে গেছে। এখন আমি পরিবার-পরিজন নিয়ে অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছি। এই বৃষ্টি বাদলের দিনে অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছি। অন্যান্য ঘরের মেঝেতে বড় বড় ফাটল দেখা দিয়েছে যেকোনো সময় পুরো বাড়ি নদীতে চলে যেতে পারে। এ অবস্থায় আমরা কি করব তার কোন উপায় খুঁজে পাচ্ছি না।

হেনা বেগম বলেন, আমার রান্নাঘর সহ থাকার ঘরের অর্ধেক ভেঙে গেছে নদীতে। যে কোন সময় বাড়ির বাকি অংশটুকু ভেঙে পূর্ব দিকে নদীতে চলে যেতে পারে। এখন আমি অন্যের বাড়ির বারান্দায় আশ্রয় নিয়েছি। অবৈধ ভাবে এসব এলাকায় বালি খননের ফলে এই ভাঙন দেখা দিয়েছে।

ভাঙনের শিকার বাবুল মিয়া বলেন, হঠাৎ করে এইভাবে বাড়িঘর বিলীন হবে আমরা কেউ বুঝতে পারিনি। আমার একটি ঘরই ছিল তা ভেঙে গেছে নদীতে। এখন থাকারও জায়গা নেই। এ অল্প জায়গাটুকুর মধ্যে বাড়ি করে বসবাস করতেছি। এই শেষ সম্বলটুকু নদী ভেঙে নিয়ে গেছে। এখন কি করব কোথায় যাব জানি না।

স্থানীয়রা জানান, হঠাৎ করেই এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙনে একটি আধা পাকা ঘরসহ পাঁচটি ঘর নদীতে দেবে গেছে। ভাঙনের ঝুঁকিতে আছে মাদরাসা ও ঈদগাহ মাঠসহ অর্ধশত বাড়িঘর। আকস্মিক ভাবে নদী ভাঙনে চরম আতঙ্কে আছেন নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা। অনেকে ঘরবাড়ি সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেও জায়গার অভাবে অন্যত্র যেতে পারছেন না।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আমানত হোসেন খান বলেন, নদী ভাঙনের শিকার হওয়া পরিবারকে সহযোগিতা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সাথে জরুরি ভিত্তিতে ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Unhealthy Dhaka air even on holidays

ছুটির দিনেও ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস

ছুটির দিনেও ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস ফাইল ছবি
সরকারি ছুটির দিন শুক্রবার সকালে একিউআইয়ের ১২৪ সূচক নিয়ে সবচেয়ে খারাপ বায়ুমানের শহরের তালিকায় সপ্তম স্থানে রয়েছে ঢাকা।

রাজধানী শহর ঢাকার বাতাসের মান আজও অস্বাস্থ্যকর অবস্থায় রয়েছে।

সরকারি ছুটির দিন শুক্রবার সকালে একিউআইয়ের ১২৪ সূচক নিয়ে সবচেয়ে খারাপ বায়ুমানের শহরের তালিকায় সপ্তম স্থানে রয়েছে ঢাকা। খবর ইউএনবির

বৃহস্পতিবার এয়ার কোয়ালিটি ইন্ডেক্সের সূচক ৮৪ নিয়ে বায়ুর মান মাঝারি থাকলেও আজ তা অস্বাস্থ্যকর হিসেবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে।

একিউআই স্কোর শূন্য থেকে ৫০ এর মধ্যে থাকলে ‘ভালো’ এবং ৫০ থেকে ১০০ এর মধ্যে থাকলে তাকে ‘মাঝারি’ বা ‘গ্রহণযোগ্য’ পর্যায় হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

১০১ থেকে ১৫০ এর মধ্যে হলে বাতাসের মান ‘সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’, ১৫১ থেকে ২০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বলে মনে করা হয়। ২০১ থেকে ৩০০ এর মধ্যে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়, ৩০১+ একিউআই স্কোরকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

বাংলাদেশে একিউআই নির্ধারণ করা হয় দূষণের ৫টি বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে। সেগুলো হলো- বস্তুকণা (পিএম১০ ও পিএম২.৫), এনও২, সিও, এসও২ ও ওজোন (ও৩)।

দীর্ঘদিন ধরে বায়ু দূষণে ভুগছে ঢাকা। এর বাতাসের গুণমান সাধারণত শীতকালে অস্বাস্থ্যকর হয়ে যায় এবং বর্ষাকালে কিছুটা উন্নত হয়।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ঢাকার বায়ু দূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো- ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলো।

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডব্লিউএইচও) অনুসারে, বায়ু দূষণের ফলে স্ট্রোক, হৃদরোগ, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ, ফুসফুসের ক্যান্সার এবং তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণের কারণে মৃত্যুহার বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ফলে বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর আনুমানিক ৭০ লাখ মানুষ মারা যায়।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Coxs Bazar mountain collapse killed husband along with pregnant wife

কক্সবাজারে পাহাড় ধসে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীসহ স্বামীর মৃত্যু

কক্সবাজারে পাহাড় ধসে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীসহ স্বামীর মৃত্যু ফাইল ছবি
শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে কক্সবাজার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাদশা ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিন।

কক্সবাজার শহরে পাহাড় ধসে মাটি চাপায় ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে কক্সবাজার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাদশা ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিন।

নিহতরা হলেন ওই এলাকার নজির হোসেনের ছেলে মো. আনোয়ার হোসেন (২৬) ও মাইমুনা আক্তার (২০)।

আনোয়ার হোসেন স্থানীয় ওমর ফারুক জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলেন। তার স্ত্রী মাইমুনা ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বলে জানান তার স্বজনেরা।

নিহতদের স্বজনদের বরাতে কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিন বলেন, বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে কক্সবাজার শহরে থেমে থেমে মাঝারি ও ভারী বৃষ্টি হচ্ছিল। ভোর রাত ৩টার দিকে মুষলধারে ভারী বৃষ্টিপাত হয়। রাতে খাবার খেয়ে নিজের শয়ন কক্ষে স্ত্রীসহ ঘুমিয়ে পড়েন আনোয়ার হোসেন। এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে পাহাড়ের খাদের নিচে ঘরটির ওপর বড় এক খণ্ড মাটি পড়ে। এতে স্বামী-স্ত্রী দুইজনই মাটি চাপা পড়ে মারা যায়।

তিনি বলেন, ঘটনার পর তাদের স্বজনদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে মাটি চাপা অবস্থায় দুইজনকে উদ্ধার করেন। পরে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

মরদেহ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে বলে জানান হেলাল উদ্দিন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Deterioration of flood situation in Kurigram

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি কুড়িগ্রামে বন্যায় নিমজ্জিত হয়েছ আউশ ধানের ক্ষেত। ছবি: নিউজবাংলা
কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরিফ বলেন, ‘জেলার ভেতর দিয়ে ১৬টি নদ-নদী প্রবাহমান। এর মধ্যে ধরলা ও তিস্তা নদীর দুটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। ফলে রাজারহাট, নাগেশ্বরী ও কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার নিচু এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।’

কুড়িগ্রামে তিস্তা, দুধকুমার, ব্রহ্মপুত্র, ধরলা নদীসহ ১৬টি নদ-নদীর পানি বেড়েই চলছে। এর মধ্যে ধরলা ও তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে তিনটি উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। বন্যায় কুড়িগ্রাম সদর, নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারী ও রাজারহাট উপজেলার প্রায় ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টা পর্যন্ত ফুলবাড়ি উপজেলার তালুকশিমুল শেখ হাসিনা দ্বিতীয় ধরলা সেতু পয়েন্টে ধরলা নদীর পানি ১৬ সেন্টিমিটার ও কাউনিয়া রেলসেতু পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। বন্যার পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে দেখা দিয়েছে নদ-নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দেয়া তথ্যমতে, পানি বাড়ার কারণে নদ-নদী অববাহিকার নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। তলিয়ে গেছে বিভিন্ন সড়ক। ডুবে গেছে সবজিক্ষেতসহ বিভিন্ন উঠতি ফসল।

কুড়িগ্রাম পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী রাকিবুল হাসান জানান, পানি বৃদ্ধির কারণে বিভিন্ন জায়গায় প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ৫/৬টি পয়েন্টে ভাঙন চলছে। সেখানে জরুরিভিত্তিতে কাজ করা হচ্ছে।

জেলায় স্বল্পমেয়াদি এই বন্যা পরিস্থিতি দু-একদিনের মধ্যে উন্নতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

কুড়িগ্রাম কৃষি বিভাগের উপপরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘চলতি বন্যায় জেলায় প্রায় ৪৫৩ হেক্টর ফসলি জমি নিমজ্জিত হয়েছে। এর মধ্যে মরিচ, আউশ ধান, পাট, চিনা, পটল ক্ষেতসহ অন্যান্য ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরিফ বলেন, ‘জেলার ভেতর দিয়ে ১৬টি নদ-নদী প্রবাহমান। এর মধ্যে ধরলা ও তিস্তা নদীর দুটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। ফলে রাজারহাট, নাগেশ্বরী ও কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার নিচু এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।’

তিনি জানান, দুর্যোগকবলিত মানুষের সংখ্যা তিন হাজার ৬৯১ জন। বন্যাকবলিতদের উপজেলা পর্যায়ে ১৪৪ টন চাল এবং নগদ ১০ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ত্রাণ হিসাবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া ৪০৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে, সেখানে দুর্গত মানুষ আশ্রয় নেয়া শুরু করেছেন।

আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে খাদ্য সহায়তা সরবরাহ করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বন্যার্তদের উদ্ধারের জন্য রটি স্পিড বোট ও দুটি নৌকা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্হিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।’

কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য ডা. হামিদুল হক খন্দকার বৃহস্পতিবার যাত্রাপুর ও পাঁচগাছি ইউনিয়নের বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেন।

তিনি জানান, বন্যার্তদের সহায়তায় স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আর নদী ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সুনামগঞ্জে আট লাখ মানুষ পানিবন্দি
বন্যা: সিলেট বিভাগে এইচএসসি পরীক্ষা ৮ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত
আশ্রয়কেন্দ্রে খাদ্য সংকটে সুনামগঞ্জের বানভাসী মানুষ
সিলেটে বিস্তৃত হচ্ছে বন্যা, পানিবন্দি প্রায় ১০ লাখ মানুষ
মৌলভীবাজারে বন্যায় পানিবন্দি ২ লাখ মানুষ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Four people including children were killed and injured in Khulna lightning

খুলনায় বজ্রপাতে শিশুসহ চারজনের প্রাণহানি, আহত ১

খুলনায় বজ্রপাতে শিশুসহ চারজনের প্রাণহানি, আহত ১
বজ্রপাতে খুলনার পাইকগাছায় শ্রীকান্ত মণ্ডল, বটিয়াঘাটায় আল মামুন এবং সাতক্ষীরার শ্যামনগরে এনায়েত আলী ও শিশু নাজমুল মারা যান। গুরুতর আহত হয়েছেন শিশুটির নানা মুছা গাজী।

খুলনায় বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে একটি শিশু রয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত বজ্রপাতের পৃথক ঘটনায় তাদের মৃত্যু হয়।

বিকেলে খুলনার পাইকগাছায় বজ্রপাতে শ্রীকান্ত মণ্ডল নামে এক যুবক মারা যান। তিনি উপজেলার দেলুটি ইউনিয়নের পতিত মণ্ডলের ছেলে।

পাইকগাছার দেলুটি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রিপন কুমার মণ্ডল বলেন, ‘শ্রীকান্ত মাছের ঘেরের কর্মচারী ছিলেন। বিকেলে বৃষ্টিপাতের সময় ঘেরের একটি ঝুপড়ি ঘরে অবস্থান করছিলেন তিনি। এ সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যাযন। তার মরদেহ বাড়িতে আনা হয়েছে।’

দুপুরের দিকে খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলায় খারাবাদ এলাকায় বজ্রপাতে আল মামুন নামে ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। সে স্থানীয় মনি চৌকিদারের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে আকাশে মেঘ দেখে আল মামুন খারাবাদ এলাকার কড়িয়া ভিটায় গরু আনতে যায়। এ সময় বৃষ্টি শুরু হয়। ফাঁকা বিলে কোনো নিরাপদ স্থান না পেয়ে সে দ্রুত বাড়ি ফেরার সময় বজ্রপাতে মারা যায়। তার মরদেহ বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এছাড়া বজ্রপাতে খুলনার কয়রার অধিবাসী এক শিশুসহ দুজন মারা গেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে এই ঘটনা ঘটে।

তারা হলেন- কয়রা উপজেলার ঘড়িলাল গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে এনায়েত আলী ও মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের আল আমিনের ছেলে আট বছর বয়সী নাজমুল। এ সময় গুরুতর আহত হন নাজমুলের নানা মুছা গাজী।

শ্যামনগরের গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জিএম মাসুদুল আলম জানান, ঈদ উপলক্ষে শ্যামনগরের পদ্মপুকুর ইউনিয়নের গড়পদ্মপুকুর এলাকায় বেড়াতে এসেছিলেন তারা। সেখান থেকে চারজন মোটরসাইকেলযোগে গাবুরা ইউনিয়নের পার্শ্বেমারী খেয়াঘাট হয়ে কয়রার উদ্দেশে রওনা হন তারা। দুপুর ১টার দিকে গাবুরার গাগড়ামারী ও নেবুবুনিয়া এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়। এ সময় তারা একটি মৎস্য ঘেরের বাসায় আশ্রয় নিলে বজ্রপাতে এনায়েত ও নাজমুল ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ ছাড়া শিশুটির নানা মুছা গাজীর শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়।

খুলনার কয়রার দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আছের আলি মোড়ল বলেন, ‘খবর পেয়ে স্বজনরা এসে তাদের মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছেন।’

আরও পড়ুন:
ছাগলনাইয়ায় বজ্রপাতে প্রাণ গেল দুই শিক্ষার্থীর
নরসিংদীতে বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ তিনজন নিহত
টাঙ্গাইলে বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু
গাইবান্ধার দুই উপজেলায় বজ্রপাতে দুইজনের মৃত্যু
বজ্রপাত নিরোধ যন্ত্র স্থাপনে সহায়তা করতে চায় ফ্রান্স

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sadarghat is bustling with people returning to Dhaka after Eid

ঈদ শেষে ঢাকায় ফিরছে মানুষ, সরগরম সদরঘাট

ঈদ শেষে ঢাকায় ফিরছে মানুষ, সরগরম সদরঘাট পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ শেষে ঢাকায় ফিরছেন কর্মজীবী মানুষেরা। বৃহস্পতিবার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকার চিত্র। ছবি: নিউজবাংলা
পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর বরিশালগামী লঞ্চগুলোতে যাত্রী কমায় ঢাকার সদরঘাটের চেনা রূপ অনেকটাই হারিয়ে গিয়েছিল। ঈদের ছুটির সঙ্গে ফিরেছে চেনা সেই ভিড়। তবে ঈদের পর ঢাকার সদরঘাটে ভিড় বাড়লেও আগের মতো যাত্রী নেই বলে জানিয়েছেন লঞ্চ-সংশ্লিষ্টরা।

ঈদের ছুটি শেষে অফিস শুরুর প্রথম দিন বুধবার থেকেই রাজধানী ঢাকার প্রধান নদীবন্দর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে নগরমুখী মানুষের ভিড় শুরু হয়। বৃহস্পতিবারও ছিল একই চিত্র।

গ্রামে যাওয়া মানুষেরা ক্রমে ক্রমে ঢাকা ফিরতে থাকায় চাপ কম লক্ষ্য করা গেছে সদরঘাটে। শুক্র-শনিসহ ঈদের তিন দিন মিলে পাঁচদিনের লম্বা ছুটি শেষে কর্মমুখী মানুষ ঢাকায় ফিরতে থাকায় বৃহস্পতিবারও দক্ষিণাঞ্চল থেকে আসা যাত্রীর চাপ ছিল সদরঘাটে। তবে যাত্রীর উপচেপড়া ভিড় বলতে যা বুঝায় তেমনটা দেখা যায়নি।

বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকেই ঢাকা-বরিশাল নৌরুটের লঞ্চগুলো ডেকে পরিপূর্ণ যাত্রী নিয়ে সদরঘাটের পন্টুনে ভিড়তে থাকে। সন্ধ্যা পর্যন্ত সদরঘাটের লঞ্চ টার্মিনালে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

দুপুরের পর থেকে গ্রিন লাইন-৩ ও সন্ধ্যার পর পারাবত-৯, ১০, ১২ ও ১৮; মানামী, কুয়াকাটা-২, কীর্তনখোলা-২ ও ১০, সুরভী-৮ ও ৯, অ্যাডভেঞ্চার-১ ও ৯, সুন্দরবন-১২ লঞ্চসহ মোট ১৫টি লঞ্চ বরিশাল নদীবন্দর থেকে সদরঘাটে এসে পৌঁছায়।

ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়েও কিছু লঞ্চ ঢাকায় এসে পৌঁছায়। এছাড়াও নিকটবর্তী জেলা চাঁদপুর, ভোলা, ইলিশা থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলোও ছিলো কানায় কানায় পূর্ণ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সদরঘাট টার্মিনাল থেকে দেশের ৩১টি নৌপথে নিয়মিত ৭০টি লঞ্চ চলাচল করে। তবে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে তা দ্বিগুণের বেশি করা হয়েছে। ঈদের আগে-পরের প্রায় ১৫ দিন ছোট-বড় মিলিয়ে ১৭৫টিরও বেশি লঞ্চ যাতায়াত করেছে। আগে ঢাকা থেকে ৪১টি নৌপথে লঞ্চসহ পণ্যবাহী বিভিন্ন নৌযান চলত। নদী খনন ও ড্রেজিংয়ে অনিয়মের কারণে ঢাকা থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলগামী ১০টি নৌপথ বন্ধ হয়ে গেছে।

সরকারি ছুটি শেষ হওয়ায় কর্মস্থল ঢাকায় ফিরতে লঞ্চে মানুষের ঢল নেমেছে বলে জানিয়েছেন জাহাজ মালিক, স্টাফ ও কর্মকর্তারা।

মানামি লঞ্চের চালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘এবার ঈদের আগে যেমন যাত্রী চাপ ছিলো পরে তেমন হচ্ছে না। সরকারি ছুটি শেষ হওয়ায় অনেকেই এখন ঢাকা ফিরছে। তবে অনেকে বুধ ও বৃহস্পতি ছুটি নিয়ে সাপ্তাহিক ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করে নিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সামনের সাপ্তাহিক ছুটির দুদিন বিশেষ করে শনিবার যাত্রীর চাপ অনেকটা বাড়বে।’

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম পরিবার নিয়ে গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী থেকে ফিরেছেন ঢাকায়। তিনি বলেন, ‘এমভি টিপু-৭ লঞ্চের টিকিট পেয়েছিলাম। তবে লঞ্চে অনেক মানুষের ভিড় ছিলো। ঠিকভাবে ঢাকায় আসতে পেরেছি এটাই অনেক।’

মনপুরা থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকায় এসেছে এমভি তাসরিফ-৮। লঞ্চটির কর্মী আসাদ মুন্সি বলেন, ‘এই ট্রিপে পাঁচ-ছয়শ’ মানুষ এসেছে। ছুটি শেষ হওয়ায় মানুষ ঢাকায় ফিরছে। আরামের যাত্রা লঞ্চ। এজন্য অনেকেই লঞ্চে যাতায়াত করেন।’

ভোলার চরফ্যাশন ও বেতুয়া থেকে ছেড়ে সন্ধ্যায় সদরঘাটে ভিড়েছে এমভি টিপু-১৩। লঞ্চটিতে ঘাটে ভিড়তেই দেখা যায়, ডেকভর্তি মানুষ। অনেকে দাঁড়িয়েও এসেছেন।

ভোলা থেকে আসা যাত্রী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘কাপড়ের দোকানে কাজ করি। ঈদের আগের দিনও খোলা ছিল। চাঁদ রাতে ঈদ করতে ঢাকা থেকে বাড়িতে গিয়েছিলাম। ছুটি শেষ, মার্কেট খুলবে। এজন্য আবার চলে আসলাম।’

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর বরিশালগামী লঞ্চগুলোতে যাত্রী কমায় ঢাকার সদরঘাটের চেনা রূপ অনেকটাই হারিয়ে গিয়েছিল। ঈদের ছুটির সঙ্গে ফিরেছে চেনা সেই ভিড়। তবে ঈদের পর ঢাকার সদরঘাটে ভিড় বাড়লেও আগের মতো যাত্রী নেই বলে জানিয়েছেন লঞ্চ-সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে রাজধানীর প্রধান নদীবন্দর সদরঘাটে ঢাকামুখী মানুষের ভিড় থাকলেও লঞ্চে ফিরতি পথের যাত্রী ভিড় অনেকটাই কম। বরিশাল ও ভোলার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা লঞ্চগুলোর কর্মীরা যাত্রীদের ডাকাডাকি করছেন। অল্পসংখ্যক মানুষ লঞ্চে উঠেছেন। বেশ কয়েকটি লঞ্চের ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, ডেকের সিট অধিকাংশই ফাঁকা। ভেততে কিছু মানুষ বসে আছে। কেউ আবার কেবিন নিয়ে দরদাম করছেন।

নৌপথেই স্বস্তি খুঁজবে যাত্রীরা- এবারের ঈদযাত্রায় এমনটা প্রত্যাশা ছিলো লঞ্চ মালিকদের। তবে ঈদের পর তা আবার কমে যাওয়ায় হতাশ তারা।

ডলার কোম্পানির ২৪টি লঞ্চের মালিক ও যাত্রী পরিবহন সংস্থার সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল কালাম বলেন, ‘আমাদের লঞ্চ আছে অনেক। কিন্তু সে অনুযায়ী যাত্রী নেই। তাই লঞ্চ কম ছাড়ছে। যেগুলো ছাড়ছে সেগুলো যাত্রী ভরেই যাচ্ছে। ঈদের পরও আমরা যাত্রীর চাপ আশা করেছিলাম। কিন্তু পাইনি।’

লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ‘ঈদের আগে যাত্রীর চাপ বাড়ায় আশা পেয়েছিলাম। এখন সে আশা আর দেখছি না। সামনের দিনগুলোতে কী হয় দেখা যাক।’

সার্বিক বিষয়ে ঢাকার প্রধান নদীবন্দর সদরঘাটের দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএ-এর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন জানান, ‘ঈদের পর যাত্রীর চাপ স্বাভাবিক রয়েছে। আমাদের নিয়মিত লঞ্চগুলোই চলাচল করছে। অতিরিক্ত কোনো লঞ্চের প্রয়োজন পড়ছে না। আর ভাড়া বেশি নেয়ার অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

টার্মিনাল এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে সদরঘাট নৌ-থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম বলেন, ‘আজ (বৃহস্পতিবার) যাত্রীর চাপ আগের থেকে বেড়েছে। পুলিশ, র‍্যাবসহ আনসার সদস্যরা যাত্রীদের নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন। সন্দেহজনক কিছু দেখলে তল্লাশিও চালানো হচ্ছে। যাত্রীর চাপ বাড়লে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হবে।’

আরও পড়ুন:
ঘরে ফেরা মানুষের পদচারণায় মুখর সদরঘাট
ছুটি শুরুর দিনেই সদরঘাটে যাত্রীর চাপ
ঈদযাত্রার প্রভাব নেই সদরঘাটে, গার্মেন্টস ছুটির অপেক্ষা
সদরঘাট থেকে সব রুটের লঞ্চ চলাচল বন্ধ

মন্তব্য

p
উপরে