× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Locals with Fire Service to put out fire in Sundarbans
google_news print-icon

সুন্দরবনের আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে স্থানীয়রাও

সুন্দরবনের-আগুন-নেভাতে-ফায়ার-সার্ভিসের-সঙ্গে-স্থানীয়রাও-
পুড়ছে সুন্দরবন। ছবি: নিউজবাংলা
রোববার সকাল ৮টা থেকে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে। এতে পুলিশ, উপজেলা প্রশাসন, বনরক্ষী ও স্থানীয় বাসিন্দারা অংশ নিয়েছেন।

বাগেরহাটের সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের আমরবুনিয়া এলাকায় আগুন নির্বাপণের কাজ শুরু হয়েছে।

রোববার সকাল ৮টা থেকে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে। এতে পুলিশ, উপজেলা প্রশাসন, বনরক্ষী ও স্থানীয় বাসিন্দারা অংশ নিয়েছেন।

এর আগে শনিবার বিকেলে সাড়ে ৩টার দিকে সুন্দরবনে আমরবুনিয়া এলাকায় আগুনের খবর পায় বন বিভাগ। বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। তবে সন্ধ্যা হওয়ায় তারা অভিযান সমাপ্ত করে চলে যায়।

পরে রোববার সকাল থেকে ফায়ার সার্ভিস, নৌবাহিনী, বন বিভাগ, পুলিশ স্থানীয় প্রাশন ও বাসিন্দারা আগুন নির্বাপণের কাজ শুরু করেছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স খুলনা বিভাগের উপ-পরিচালক মামুন মাহমুদ বলেন, সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা শোনার পর বন বিভাগ ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা সেখানে ছুটে যান। শনিবার সন্ধ্যা হওয়ায় আমরা কার্যক্রম শুরু করতে পারি নাই।

তিনি বলেন, সকাল থেকে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিটে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেছে। আমাদের সাথে নৌবাহিনী, বন বিভাগ, পুলিশ, স্থানীয় প্রাশসন ও সাধারণ মানুষ আগুন নির্বাপণের কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
পুড়ছে সুন্দরবন
সুন্দরবনের আগুন ছড়িয়েছে ২ কিলোমিটারে
সুন্দরবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে বনরক্ষীরা, যাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Agitation turned violent due to governments insistence Fakhrul

সরকারের জেদের কারণে আন্দোলন সহিংস রূপ নিয়েছে: ফখরুল

সরকারের জেদের কারণে আন্দোলন সহিংস রূপ নিয়েছে: ফখরুল বুধবার বায়তুল মুকাররমে গায়েবানা জানাজায় অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমরা এই আন্দোলনের সঙ্গে কখনোই সরাসরি জড়িত নই। এই আন্দোলনের সঙ্গে শিক্ষার্থীরা জড়িত। আমরা তাদের নৈতিক সমর্থন দিয়েছি। তা দিয়ে যাব। কারণ আমরা মনে করি তাদের আন্দোলন ন্যায্য।’

সরকারের জেদের কারণে কোটা সংস্কার আন্দোলন সহিংসতায় রূপ নিয়েছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার সারা বাংলাদেশে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে।’

বুধবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমে গায়েবানা জানাজায় অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। সূত্র: ইউএনবি

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘খুব স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমরা এই আন্দোলনের সঙ্গে কখনোই সরাসরি জড়িত নই। এই আন্দোলনের সঙ্গে শিক্ষার্থীরা জড়িত। আমরা তাদের নৈতিক সমর্থন দিয়েছি। আমরা তাদের নৈতিক সমর্থন দিয়ে যাব। কারণ আমরা মনে করি, তাদের আন্দোলন ন্যায্য।’

তিনি বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে ঢাকাসহ দেশের সর্বত্র ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করেছে সরকার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বগুড়া, রংপুর, চট্টগ্রাম, বরিশালসহ বিভিন্ন জেলায় সরকারের সন্ত্রাসী বাহিনী গুলি-সন্ত্রাস-নির্যাতন করে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বন্ধ করার প্রচেষ্টা চালিয়েছে। ন্যায্য দাবি আদায় করতে গিয়ে ছয়জন নিহত হয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন, শিক্ষার্থী সাঈদকে রংপুরে কীভাবে সরাসরি গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এরকম ভয়াবহ ঘটনা আমাদের জীবনে কখনও দেখিনি। এই ধরনের দমননীতি, এ ধরনের নির্যাতন, এই ধরনের হত্যা-গুম করে সরকার আজকে জোর করে ক্ষমতায় টিকে আছে।’

তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের দাবি সরকার আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে শেষ করতে পারত। শুধু তাদের জেদের কারণে তারা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানাচ্ছি।’

এ সময় নিহত শিক্ষার্থীদের জন্য গায়েবানা জানাজা পড়তে এসেও তারা পুলিশি বাধার সম্মুখীন হন বলে অভিযোগ করেন বিএনপির এই নেতা।

তিনি বলেন, ‘সাদা পোশাকের পুলিশ আমাদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বোমা ও লাঠিসোঁটা রেখে অভিযানের নামে নাটক করেছে। অতীতেও তারা একই নাটক করেছে।

‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার উদ্দেশ্যেই এ অভিযান চালানো হয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘পাকিস্তান আমলে শাসকগোষ্ঠী এভাবে আন্দোলন দমন করার চেষ্টা করেছে, কিন্তু তারা পারেনি। একইভাবে আজকে সরকার যেভাবে চেষ্টা করছে, তার সঙ্গে কোনোমতেই আমরা একমত নই।’

ফখরুল বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেই শান্তিপূর্ণভাবে সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। সরকার চাইলেই এটা করা যেত। কিন্তু তাদের সেই ইচ্ছা নেই।’

এর আগে কড়া নিরাপত্তা ও পুলিশি বাধা সত্ত্বেও বায়তুল মুকাররম মসজিদে গায়েবানা জানাজায় যোগ দেন বিএনপিসহ দলটির যুগপৎ আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী।

বুধবার বাদ জোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের উত্তর গেটে এই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপরই পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় বিএনপি নেতা-কর্মীরা।

আরও পড়ুন:
এখন সবার উচিত আন্দোলন করা: ফখরুল
কোটাবিরোধী আন্দোলনে বিএনপির ইন্ধন নয়, সমর্থন আছে: ফখরুল
কোটা ও পেনশন স্কিম বাতিলের আন্দোলনে বিএনপির সমর্থন
রেল করিডোর ও এমওইউ নিয়ে মিথ্যাচার করছে সরকার: ফখরুল
শেখ হাসিনার ভারত সফর ধারাবাহিক গোলামি চুক্তির নব সংস্করণ: বিএনপি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Quota agitation is going on under the prescription of BNP Jamaat Foreign Minister

কোটা আন্দোলন চলছে বিএনপি-জামায়াতের প্রেসক্রিপশনে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কোটা আন্দোলন চলছে বিএনপি-জামায়াতের প্রেসক্রিপশনে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাতীয় প্রেসক্লাবে বুধবার আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘কোটা আন্দোলনের মধ্যে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের উদ্দেশ্যে বিএনপি-জামায়াত চাচ্ছিল দেশে লাশ তৈরি হোক। মঙ্গলবার তারা এই লাশগুলো তৈরি করেছে, ৬ জন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।’

কোটা আন্দোলন এখন আর শিক্ষার্থীদের হাতে নেই মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘এখনকার কর্মসূচি বিএনপি-জামায়াতের প্রেসক্রিপশনে হচ্ছে।’

জাতীয় প্রেসক্লাবে বুধবার বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘কোটা আন্দোলনের মধ্যে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের উদ্দেশ্যে বিএনপি-জামায়াত চাচ্ছিল দেশে লাশ তৈরি হোক। মঙ্গলবার তারা এই লাশগুলো তৈরি করেছে, ৬ জন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।

‘মঙ্গলবার সারা দেশে যে নৈরাজ্যের অপচেষ্টা হয়েছে, এর প্রধান কারণ হচ্ছে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত লাশ চেয়েছিল, পেয়েছে। তাদের ক্যাডাররা নেমে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে ৬ জনকে খুন করেছে। সরকার তদন্ত করছে। যে বা যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে। আর কোটার বিষয়টি সর্বোচ্চ আদালতে বিচারাধীন।’

আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য উপকমিটির সদস্য লায়ন মশিউর আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভাটি পরিচালনা করেন স্বাধীনতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন টয়েল।

প্রধান আলোচক ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মো. আব্দুল ওয়াদুদ দারা।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন কৃষিবিদ ড. আওলাদ হোসেন এমপি, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, এম এ করিম, স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি জিন্নাত আলী খান, অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী চৌধুরী মানিক।

আরও পড়ুন:
রাজাকারের পক্ষে স্লোগানে নেতৃত্বদানকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
কোটা আন্দোলনে রাজনীতি ঢুকেছে তা স্পষ্ট: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বাংলাদেশ থেকে তিন হাজার কর্মী নেবে ইউরোপের চার দেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ডোনাল্ড ট্রাম্পকে গুলির ঘটনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা
কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করবেন না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
I believe students will get justice in high court Prime Minister
জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী

আমার বিশ্বাস ছাত্রসমাজ উচ্চ আদালতে ন্যায়বিচার পাবে

আমার বিশ্বাস ছাত্রসমাজ উচ্চ আদালতে ন্যায়বিচার পাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন। ছবি: সংগৃহীত
শেখ হাসিনা বলেন, ‘কিছু মহল কোটা আন্দোলনের সুযোগ নিয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হয়েছে। অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতার সময় যেসব হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, তাতে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সরকারি চাকরিতে কোটা প্রথা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে দেশব্যাপী সৃষ্ট সংঘাতময় পরিস্থিতি সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন।

সরকার প্রধান বলেছেন, সর্বোচ্চ আদালতের রায় আসা পর্যন্ত ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করার জন্য আমি সবাইকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি। আশা করি উচ্চ আদালতের রায়ে শিক্ষার্থীরা হতাশ হবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০১৮ সালে ছাত্র সমাজের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার সরকারি চাকরিতে কোটা প্রথা বাতিল করে একটা পরিপত্র জারি করে। পরবর্তীকালে মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে কোটা বহাল রাখার পক্ষে উচ্চ আদালত ২০১৮ সালের জারি করা সরকারের পরিপত্র বাতিল করে দেয়।

‘সরকারের পক্ষ থেকে পরিপত্র বহাল রাখার জন্য সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করা হয় এবং আদালত শুনানির দিন ধার্য্য করে।’

তিনি বলেন, ‘এ সময় আবার ছাত্ররা কোটা সংস্কারের দাবি নিয়ে আন্দোলন শুরু করে। এই আন্দোলনের শুরু থেকেই সরকার যথেষ্ট ধৈর্য্য ও সহনশীলতা প্রদর্শন করেছে। বরং আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে পুলিশ সহযোগিতা করে।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো, কিছু মহল এই আন্দোলনের সুযোগটা নিয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত উচ্চাভিলাষ চরিতার্থ করার সুযোগ নিয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হয়। এর ফলে এই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ঘিরে যে সকল ঘটনা ঘটেছে তা খুবই বেদনাদায়ক ও দুঃখজনক। অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল। আপনজন হারাবার বেদনা যে কত কষ্টের তা আমার থেকে আর কে বেশি জানে।

‘যারা মৃত্যুবরণ করেছে তাদের আত্মার মাগফিরাত কমনা করছি। পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। আমি প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাই। যেসব ঘটনা ঘটেছে তা কখনোই কাম্য ছিল না।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘চট্টগ্রামে সন্ত্রাসীরা বহুতল ভবনের ছাদ থেকে ছাত্রদের হত্যার উদ্দেশ্যে নির্মমভাবে নিচে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে। অনেক ছাত্রের হাত-পায়ের রগ কেটে দেয়। তাদের ওপর লাঠিপেটা এবং ধারালো অস্ত্র দ্বারা আঘাত করে। একজন মৃত্যুবরণ করেছে, অনেকে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। ঢাকা, রংপুর এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের বাসভবন ও ছাত্র-ছাত্রীদের আবাসিক হলে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করা হয়।

‘সাধারণ পথচারী, দোকানিদের আক্রমণ, এমনকি রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স চলাচলে বাধা প্রদান করা হয়। মেয়েদের হলে ছাত্রীদের ওপর আক্রমণ করা হয়েছে এবং লাঞ্ছিত করা হচ্ছে। আবাসিক হলে প্রভোস্টদের হুমকি দেওয়া হয় এবং আক্রমণ করা হয়েছে। শিক্ষকদের ওপর চড়াও হয়ে তাদের গায়ে হাত তোলা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি যারা কোটা সংস্কার আন্দোলনে জড়িত তাদের সঙ্গে এসব সন্ত্রাসীর কোনো সম্পর্ক নেই। বরং সন্ত্রাসীরা এদের মধ্যে ঢুকে সংঘাত ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে। এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের চিহ্নিত করে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। যারা হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে তাদের পরিবারের জন্য জীবন-জীবিকা নির্বাহের ক্ষেত্রে যে সহযোগিতা দরকার তা আমি করব।

‘আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে ঘোষণা করছি- যারা হত্যাকান্ড, লুটপাট ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়েছে এরা যেই হোক না কেন, তারা যেন উপযুক্ত শাস্তি পায় সে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

‘আমি আরও ঘোষণা করছি, হত্যাকান্ডসহ যে সকল অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটেছে, সুষ্ঠু বিচারের ও ন্যায় বিচারের স্বার্থে সে সকল বিষয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে।

‘কাদের উস্কানিতে সংঘর্ষের সূত্রপাত হলো, কারা কোন উদ্দেশ্যে দেশকে একটি অরাজক পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিল, তা তদন্ত করে বের করা হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আন্দোলনরত কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। এই সন্ত্রাসীরা যেকোনো সময়ে সংঘাতের পরিবেশ তৈরি করে তাদের ক্ষতিসাধন করতে পারে। তাই শিক্ষার্থীদের পিতা-মাতা, অভিভাবক এবং শিক্ষকদের প্রতি আমার আবেদন, তারা যেন তাদের সন্তানদের নিরাপত্তার বিষয়ে সজাগ থাকেন। একই সঙ্গে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টি বিশেষভাবে নএর রাখেন।

সরকার হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেছে। আপিল আদালতে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। আদালত শিক্ষার্থীদের কোন বক্তব্য থাকলে তা শোনার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে।

‘এই আইন প্রক্রিয়া সমাধানের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও রাস্তায় আন্দোলনে নেমে দুষ্কৃতকারীদের সংঘাতের সুযোগ করে দেবেন না। সর্বোচ্চ আদালতের রায় আসা পর্যন্ত ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করার জন্য আমি সবাইকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি। আমার বিশ্বাস, আমাদের ছাত্রসমাজ উচ্চ আদালত থেকে ন্যায়বিচারই পাবে, তারা হতাশ হবে না।’

আরও পড়ুন:
ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: প্রধানমন্ত্রী
আমার সাবেক পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক, হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না: প্রধানমন্ত্রী
কোটার সমাধান আদালত থেকেই আসতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন থেকে শূন্য হাতে ফেরার দাবিকারীরা মানসিকভাবে অসুস্থ: প্রধানমন্ত্রী
রপ্তানিযোগ্য নতুন পণ্য ও বাজার খুঁজতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Infiltration of 5 Rohingya including women by sea in Teknaf

টেকনাফে সাগরপথে নারীসহ ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

টেকনাফে সাগরপথে নারীসহ ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালীপাড়ার ঘাটে এসে নামেন পাঁচ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ। ছবি: নিউজবাংলা
বাহারছড়া ইউপির চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন জানান, অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের আলিপাড়ার বাসিন্দা। তারা সীমান্তের ওপারে মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে ট্রলারে ওঠেন। এপারে ঘাটে পৌঁছার পর ট্রলার রেখে দালালরা পালিয়ে গেছে।

মিয়ানমার থেকে ট্রলারযোগে বঙ্গোপসাগর হয়ে দুই নারীসহ পাঁচ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে। কক্সবাজারের টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালীপাড়া সমুদ্র উপকূলে পৌঁছার পর তাদেরকে বুধবার বিকেল ৩টায় আটক করেছেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান।

বাহারছড়া ইউপির চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন জানান, স্থানীয় জনগণের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে নোয়াখালীপাড়ার ঘাটে এসে ওই পাঁচজনকে আটক করা হয়। বিষয়টি ইতোমধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের আলিপাড়ার বাসিন্দা। তারা সীমান্তের ওপারে মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে ট্রলারে ওঠেন। এপারে ঘাটে পৌঁছার পর ট্রলার রেখে দালালরা পালিয়ে গেছে।’

এসব রোহিঙ্গারা হলেন- আলিপাড়ার হারুনের ছেলে এনামুল হাছান, একরাম উল্লাহর ছেলে মোশাররফ, একরামের স্ত্রী ওমমুল কাইর, একরামের ছেলে মোফশশর ও আবু বক্করের স্ত্রী শাহনাজ।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আদনান চৌধুরী বলেন, ‘স্থানীয় চেয়ারম্যান বিষয়টি আমাকে অবহিত করেছেন। অনুপ্রবেশকারী পাঁচ রোহিঙ্গাকে বিজিবি হেফাজতে নিয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। একইসঙ্গে ট্রলারটি জব্দ করা হয়েছে।

‘রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশে সহায়তাকারী ট্রলার মালিক, চালকসহ দালালদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক ছমি উদ্দিন বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যান পাঁচ রোহিঙ্গাকে অনুপ্রবেশকালে আটক করার বিষয়টি জানিয়েছেন। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তমতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
ক্যাম্পে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে রোহিঙ্গা যুবক নিহত
রাখাইনে সংঘাত, সীমান্তে ফের জড়ো হচ্ছে রোহিঙ্গারা
টাকা পেলেই রোহিঙ্গাদের জন্ম নিবন্ধন বানিয়ে দিতেন তিনি
উখিয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রে রোহিঙ্গা যুবককে গুলি করে হত্যা
সেন্টমার্টিন থেকে ফেরার পথে রোহিঙ্গা যুবক গুলিবিদ্ধ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hundreds of thousands of accused in 4 cases in Chittagong clash

চট্টগ্রামে সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ মামলা, আসামি কয়েক হাজার

চট্টগ্রামে সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ মামলা, আসামি কয়েক হাজার কোটা সংস্কার আন্দোলনে উত্তপ্ত হয়ে ওঠা চট্টগ্রাম নগরীর মহাসড়ক বুধবার ছিল অনেকটাই ফাঁকা। ছবি: নিউজবাংলা

চট্টগ্রামে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় নগরীর দুই থানায় চারটি মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ও বুধবার পুলিশ বাদী হয়ে এসব মামলা করেছে। এতে আসামি করা হয়েছে কয়েক হাজার ব্যক্তিকে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘এ পর্যন্ত পাঁচলাইশ থানায় তিনটি এবং খুলশী থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিদের মধ্যে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাতপরিচয় কয়েক হাজার ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। আরও কয়েকটি মামলা হবে।’

গ্রেপ্তারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আসামিদের বেশিরভাগই অজ্ঞাত। তাই ভিডিও ফুটেজ ও সিসিটিভি ফুটেজ দেখে সহিংসতায় জড়িতদের শনাক্ত করে গ্রেপ্তার অভিযান পরিচালনা করছি। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযান চলমান।’

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় সারাদেশে শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে চট্টগ্রামের মুরাদপুরে জড়ো হন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। দুপুর থেকেই ষোলশহর রেলস্টেশন এলাকায় অবস্থান নেয় ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে হঠাৎ করে ছাত্রলীগ-যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগের মিছিলটি মুরাদপুর এলাকায় পৌঁছলে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। এতে তিনজন নিহত হন। আহত হন ৭৬ জন। তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সংঘর্ষে নিহত তিনজনের মধ্যে ওয়াসিম আকরাম চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রদলের সদস্য। তিনি কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মেহেরনামা এলাকার শফিউল আলমের ছেলে। অপরজন ফারুক পথচারী ছিলেন। তার বাড়ি কুমিল্লায়। তিনি ফার্নিচারের দোকানে চাকরি করতেন। আরেকজন চট্টগ্রাম নগরের ওমরগণি এমইএস কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ফয়সাল আহমেদ শান্ত।

আরও পড়ুন:
জামালপুরে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ, সংঘর্ষে আহত ১২
কোটার আন্দোলনকালে ববি শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ
হল না ছাড়ার ঘোষণা শাবি শিক্ষার্থীদের, হলে হলে তল্লাশি, অস্ত্র উদ্ধার
ঢাবির হলগুলো থেকে শিক্ষার্থীদের বের করে দিচ্ছে পুলিশ
ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধসহ পাঁচ দাবিতে উত্তাল রাবি, উপাচার্য অবরুদ্ধ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The list of conspirators in the movement was found Aaron

আন্দোলন নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের তালিকা পাওয়া গেছে: হারুন

আন্দোলন নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের তালিকা পাওয়া গেছে: হারুন ডিএমপি ডিবিপ্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ। ফাইল ছবি
ডিএমপি ডিবি প্রধান বলেন, ‘অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে একটি গ্রুপ কাজ করছে। একই গ্রুপ গুজব ছড়িয়ে কোটাবিরোধী আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। যারা গুজব ছড়াচ্ছে ও অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করছে, তারা অতীতেও ষড়যন্ত্র করেছে। আমরা তাদের ছাড় দেইনি।’

সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিতে একটি গোষ্ঠী অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে ষড়যন্ত্রের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে দাবি করেছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

বুধবার সকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এমনটা দাবি করে বলেন, ‘যারা এই ষড়যন্ত্র করছে তাদের একটি তালিকাও পেয়েছি।’

ডিএমপি ডিবি প্রধান বলেন, ‘অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে একটি গ্রুপ কাজ করছে। একই গ্রুপ গুজব ছড়িয়ে কোটাবিরোধী (কোটা সংস্কার) আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। যারা গুজব ছড়াচ্ছে ও অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করছে, তারা অতীতেও ষড়যন্ত্র করেছে। আমরা তাদের ছাড় দেইনি।’

হারুন বলেন, ‘যারা রাজনীতিকে ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য কোমলমতি ছাত্রদের ব্যবহার করে দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, রেলের স্লিপার তোলা, মেট্রোরেল বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করছে, তাদের সবার নাম আমরা পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে শিগগির ডিএমপি ও গোয়েন্দা পুলিশের অভিযান চলবে।’

তিনি বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে সাধারণ ছাত্ররা কোটাবিরোধী আন্দোলন করছিল। সাধারণ ছাত্রদের ক্লাসে যাওয়ার জন্য আদালত নির্দেশনা দিয়েছিল। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে একটি গ্রুপ বিভিন্ন জায়গায় বসে সরকারবিরোধী স্লোগান দেয়া শুরু করে।

‘ওই গ্রুপ গাড়িতে আগুন, রেললাইনের স্লিপার তোলা, মেট্রোরেল বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করে। সবগুলো বিষয় গোয়েন্দা পুলিশ নিবিড় পর্যবেক্ষণ করেছে। ওই গ্রুপই কোটাবিরোধী আন্দোলনকে অন্যদিকে নিতে অর্থ, পানি, লাঠি ও অস্ত্র সরবরাহ করে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চেষ্টা চালাচ্ছে।’

ডিবির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘মঙ্গলবার রাতেও জাতীয় প্রেস ক্লাবে দুটি বাসে আগুন, বিভিন্ন জায়গায় ককটেল নিক্ষেপ করেছে তারা। গাড়িতে আগুন দেয়া কোমলমতি সাধারণ ছাত্রদের কাজ নয়। এ ছাড়া স্বাধীনতাবিরোধী কয়েকটি ছাত্র সংগঠন কয়েকটি জায়গায় মিছিল-সমাবেশ করেছে। আদালতের নির্দেশনা না মেনে কোটাবিরোধী আন্দোলন ভিন্ন দিকে চালানোর অপচেষ্টা চলছে।’

হারুন অর রশীদ আরও বলেন, ‘মঙ্গলবার রাতে বিএনপি অফিসে অভিযান চালিয়ে শতাধিক ককটেল, পাঁচ বোতল পেট্রোল, ৫০০ লাঠিসোঁটা, সাতটি দেশি-বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এ ছাড়া ছাত্রদল ও অঙ্গ সংগঠনের সাতজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

আরও পড়ুন:
কোটা আন্দোলনকারীদের অন্যদিকে ধাবিত করার চেষ্টা চলছে: হারুন
ঝিনাইদহ আওয়ামী লীগের আরও নেতা নজরদারিতে: হারুন
সিয়ামকে জিজ্ঞাসাবাদে প্রয়োজনে ফের কলকাতা যাবে ডিবি: হারুন
মাস্টারমাইন্ড শাহীনকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেরাতে ব্যবস্থা হচ্ছে: হারুন
ফের ডিবিএসএফ সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Minister will address the nation in the evening

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এক বার্তায় জানানো হয়, আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার একযোগে সম্প্রচার করবে।

কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সৃষ্ট উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক ক্ষুদে বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং।

বার্তায় জানানো হয়, আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার একযোগে সম্প্রচার করবে।

প্রসঙ্গত, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন মঙ্গলবার বেশ সহিংস রূপ নেয়। এদিন ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ছয়জন নিহত হন। আহত হন কয়েকশ’ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এ অবস্থায় মঙ্গলবারই সারা দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আজ বুধবার বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হল ও ক্যাম্পাস ত্যাগ না করার ঘোষণা দিয়েছেন। হলগুলোর ভেতরে অবস্থান করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বেশিরভাগ হল থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বের করে দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোটা প্রসঙ্গে কথা বলার সময় মন্তব্য করেন- ‘মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এত ক্ষোভ কেন? মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না, রাজাকারের নাতিপুতিরা সব পাবে?’

প্রধানমন্ত্রীর এ মন্তব্যে ক্ষিপ্ত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা। তারা ধরে নিয়েছেন ‘রাজাকারের নাতিপুতি’ তাদেরকেই বলা হয়েছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য প্রত্যাহারের দাবিতে এবং কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে রোববার মধ্যরাত থেকেই আন্দোলনে নামেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। সেই আন্দোলন চলমান। আজ বুধবারও ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন:
আমার সাবেক পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক, হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না: প্রধানমন্ত্রী
কোটার সমাধান আদালত থেকেই আসতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন থেকে শূন্য হাতে ফেরার দাবিকারীরা মানসিকভাবে অসুস্থ: প্রধানমন্ত্রী
রপ্তানিযোগ্য নতুন পণ্য ও বাজার খুঁজতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বিকেলে

মন্তব্য

p
উপরে