× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
A major attack would have left Israel with nothing
google_news print-icon
আইআরজিসির বার্ষিক প্যারেডে ইরানের প্রেসিডেন্ট

বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না

বড়-হামলা-করলে-ইসরাইলের-কিছুই-অবশিষ্ট-থাকত-না
বুধবার আইআরজিসি বার্ষিক প্যারেডে ভাষণ দেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। ছবি: সংগৃহীত
১৩ই এপ্রিল ইসরাইলে ইরানের চালানো হামলা প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট রাইসি বলেন, “ওই অপারেশনের পরে বিশ্ববাসী দেখেছে যে, ‘ট্রু প্রমিজ’ ইহুদি রাষ্ট্রের মিথ্যা আধিপত্যকে ধ্বংস করে দিয়েছে।”

ইসরাইলে ইরানের হামলাকে ‘সীমিত আকারের’ বর্ণনা করে দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি বলেছেন, যদি ইরান বড় কোনো হামলা করতে চাইত, তাহলে ইহুদি শাসকগোষ্ঠীর (ইসরাইল) কিছুই অবশিষ্ট থাকত না।

বুধবার তিনি ইরানের রেভলুশনারি গার্ডের (আইআরজিসি) বার্ষিক প্যারেডে দেয়া ভাষণে এ সতর্কতা উচ্চারণ করেন।

রাইসি বলেন, ‘এই হামলার জবাবে ইসরাইল যদি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র আক্রমণও চালায়, তাহলে তার জবাব হবে বিশাল ও কঠোর।’

ইসরাইল-ইরান সংকট নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে যখন একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের হুমকি বিরাজ করছে, সে সময়ই এই হুংকার দিলেন ইব্রাহিম রাইসি।

সিরিয়ায় গত ১ এপ্রিল ইরানের কনস্যুলেটে হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে তিন শতাধিক ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ে তেহরান। এসব অস্ত্রের বেশির ভাগ ভূপাতিত করে ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র দেশগুলো।

হামলায় দক্ষিণ ইসরায়েলে বিমান বাহিনীর একটি ঘাঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সেটিতে কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে। এ হামলায় সাত বছর বয়সী এক ইসরায়েলি শিশু মারাত্মক আহত হয়েছে। এর বাইরে বড় ধরনের ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

ওই হামলার পর আন্তর্জাতিক মহল থেকে বার বার বিরত থাকার আহ্বান জানানো হলেও জবাব দেয়ার অঙ্গীকার করেছে ইসরাইল।

শনিবারের ওই হামলার প্রশংসা করেন প্রেসিডেন্ট রাইসি। তিনি জানান, ওই হামলার নাম দেয়া হয়েছে ‘ট্রু প্রমিজ’। একইসঙ্গে ইসরাইল থেকে সম্প্রতি যে হুমকি দেয়া হচ্ছে তার জবাব কঠোর ও অগ্নিঝরা হবে বলে পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।

১৩ই এপ্রিল ইসরাইলে ইরানের চালানো হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ওই অপারেশনের পরে বিশ্ববাসী দেখেছে যে, ‘ট্রু প্রমিজ’ ইহুদি রাষ্ট্রের মিথ্যা আধিপত্যকে ধ্বংস করে দিয়েছে।”

ভাষণে ইসরাইলি মিত্রদের উদ্দেশে বলেন, ‘যেসব দেশ এই নিষ্ঠুর ও সন্ত্রাসী রাষ্ট্রটির সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে চাইছে, তারাও তাদের জাতির কাছে লজ্জিত হবে।’

আরও পড়ুন:
ইরানের তেল বাণিজ্যে লাগাম টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত
ইরানের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলায় অংশ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস
ইসরায়েলে হামলার আগে সতর্ক করা হয়েছিল: ইরান

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Iran will continue to strengthen ties in the Middle East Ayatollah

মধ্যপ্রাচ্যে বন্ধন জোরদার অব্যাহত রাখবে ইরান: আয়াতুল্লাহ

মধ্যপ্রাচ্যে বন্ধন জোরদার অব্যাহত রাখবে ইরান: আয়াতুল্লাহ ইরানের প্রয়াত প্রেসিডেন্টের প্রতি সম্মান জানাতে তেহরান সফরে আসা কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সঙ্গে বুধবার বৈঠক করেন ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি। ছবি: প্রেস টিভি
রাইসির মৃত্যুতে সমবেদনা জানাতে আসায় কাতারের আমিরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা। ওই সময় তিনি ইরান ও কাতারের মধ্যকার সম্পর্ক এগিয়ে নেয়ার ওপর জোর দেন।

দুর্ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুর পরও ইরান মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে বন্ধুত্বের বন্ধন জোরদার অব্যাহত রাখবে বলে বুধবার জানিয়েছেন ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ সাইয়েদ আলি খামেনি।

ইরানের প্রয়াত প্রেসিডেন্টের প্রতি সম্মান জানাতে তেহরান সফরে আসা কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সঙ্গে বৈঠকে এ কথা জানান তিনি।

রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম প্রেস টিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাইসির মৃত্যুতে সমবেদনা জানাতে আসায় কাতারের আমিরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা। ওই সময় তিনি ইরান ও কাতারের মধ্যকার সম্পর্ক এগিয়ে নেয়ার ওপর জোর দেন।

ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশে রোববার হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আবদোল্লাহিয়ান, পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের গভর্নর মালেক রহমতিসহ হেলিকপ্টারের ৯ আরোহীর সবাই নিহত হন।

খামেনি বলেন, এ অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতা নস্যাতের চেষ্টার মধ্যে দেশগুলোর ঐক্যবদ্ধ হওয়া ছাড়া বিকল্প নেই।

এদিকে কাতারের আমির শেখ তামিম বলেন, ইরানের সঙ্গে কাতারের সম্পর্ক সবসময়ই শক্তিশালী ছিল এবং তা অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, ‘ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক বর্ধিতকরণে কোনো সীমাবদ্ধতা দেখছি না আমরা।’

আরও পড়ুন:
রাইসির শোকে সমাবেশ করছেন ইরানিরা
রাইসির দাফন হবে জন্ম-শহর মাশহাদে
মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনায় রসদ যোগাতে পারে রাইসির মৃত্যু
ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক
ইরানের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Taiwan deploys troops in response to Chinas punitive drills

চীনের ‘শাস্তিমূলক’ মহড়ার জবাবে সেনা মোতায়েন তাইওয়ানের

চীনের ‘শাস্তিমূলক’ মহড়ার জবাবে সেনা মোতায়েন তাইওয়ানের তাইওয়ানের চিয়ায়ির সামরিক ঘাঁটিতে ২০২৩ সালের ৬ জানুয়ারি তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েনের সফরকালে সেনাদের প্রদর্শনী। ছবি: এএফপি
তাইওয়ানের নতুন প্রেসিডেন্ট লাই চিং-তে দায়িত্ব নেয়ার ঠিক তিন দিন পর এ মহড়া শুরু করল চীন। দ্বীপরাষ্ট্রটির নতুন প্রেসিডেন্টকে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ মনে করে বেইজিং।

পূর্ব এশিয়ার দেশ তাইওয়ানের আশপাশে বৃহস্পতিবার থেকে দুই দিনব্যাপী ‘শাস্তিমূলক’ সামরিক মহড়া শুরু করেছে চীন, যার প্রতিক্রিয়ায় দেশজুড়ে সেনা মোতায়েন করেছে তাইওয়ান।

রয়টার্স জানায়, ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী কর্মকাণ্ডের’ জবাবে সামরিক মহড়া শুরু করেছে বলে দাবি করেছে চীন।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, তাইওয়ান প্রণালি ও চীনের উপকূলের ঠিক পাশে তাইওয়ান নিয়ন্ত্রিত বেশ কিছু দ্বীপ ঘিরে মহড়া শুরু করে চীন।

তাইওয়ানের নতুন প্রেসিডেন্ট লাই চিং-তে দায়িত্ব নেয়ার ঠিক তিন দিন পর এ মহড়া শুরু করল প্রতিবেশী বৈশ্বিক পরাশক্তিটি। দ্বীপরাষ্ট্রটির নতুন রাষ্ট্রপ্রধানকে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ মনে করে বেইজিং।

গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় চলা তাইওয়ানকে নিজস্ব ভূখণ্ড হিসেবে দেখে চীন। দেশটি গত সোমবার অভিষেক অনুষ্ঠানে লাইয়ের দেয়া বক্তব্যের নিন্দা জানায়।

ওই বক্তব্যে চীনকে হুমকি বন্ধের আহ্বান জানান লাই। এর এক দিন পর মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই লাইকে ‘অত্যন্ত বাজে’ আখ্যা দেন।

চীনের সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে আলোচনার আহ্বান জানিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন লাই।

তার ভাষ্য, একমাত্র তাইওয়ানের জনগণই তাদের ভবিষ্যৎ ঠিক করতে পারে।

লাই তাইওয়ানের ওপর বেইজিংয়ের সার্বভৌমত্বের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন।

আরও পড়ুন:
সফরের দ্বিতীয় দিনে চীনের ‘লিটল মস্কোতে’ পুতিন
চীন-রাশিয়ার ‘কষ্টার্জিত’ সম্পর্কের লালনপালন চান শি
ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের পরিকল্পনায় সমর্থন পুতিনের
ভূমিকম্পে ৮০ বারেরও বেশি কেঁপে উঠল তাইওয়ান
নারায়ণগঞ্জে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে চীনা প্রকৌশলীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rishi Sunak announced the general election of the United Kingdom on July 4

৪ জুলাই যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচন, জানালেন ঋষি সুনাক

৪ জুলাই যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচন, জানালেন ঋষি সুনাক
সরকারি বাসভবন ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের বাইরে ঋষি সুনাক এই ঘোষণা দিয়ে ‘প্রতিটি ভোটের জন্য লড়াই করার’ অঙ্গীকার করেন। আসন্ন ভোটে তিনিও লড়বেন। 

আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক।

ঘোষণা অনুযায়ী আসন্ন ৪ জুলাই দেশটিতে সাধারণ নির্বাচন হবে বলে বৃহস্পতিবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের বাইরে ঋষি সুনাক এই ঘোষণা দিয়ে ‘প্রতিটি ভোটের জন্য লড়াই করার’ অঙ্গীকার করেন। আসন্ন ভোটে লড়বেন কনজারভেটিভ পার্টির এ নেতাও।

আগামী অক্টোবর বা নভেম্বরে যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা ছিল।

আনুষ্ঠানিকভাবে পাঁচ সপ্তাহের নির্বাচনি প্রচারণার আগে পরের হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে পার্লামেন্ট স্থগিত হবে শুক্রবার। এর মানে হল যে কোনো আইন পাস করার জন্য মাত্র দুই দিন হাতে আছে।

বেশ কয়েক বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা ঋষি সুনাকের দল কনজারভেটিভ পার্টির প্রতি জনসমর্থন বড় ধাক্কার মুখে পড়েছে মুদ্রাস্ফীতিসহ নানা কারণে। এসব কারণেই অনেকের ধারণা, আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে লেবার পার্টি এগিয়ে থাকতে পারে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
1 million people at Raisis funeral

রাইসির জানাজায় জনসমুদ্র

রাইসির জানাজায় জনসমুদ্র ছবি: সংগৃহীত
তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে ইব্রাহিম রাইসিসহ দুর্ঘটনায় নিহত আটজনের মরদেহের কফিন নিয়ে আসা হয় বুধবার সকালে। এখানে নামাজে জানাজা শেষে মরদেহগুলোতে লাখো মানুষ শ্রদ্ধা জানান।

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও তার সঙ্গীদের জানাজায় অংশ নিয়েছে দেশটির বিপুলসংখ্যক নাগরিক।

জানাজায় ইমামতি করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ সাইয়েদ আলি খামেনি।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে বুধবার সকালে ইব্রাহিম রাইসিসহ দুর্ঘটনায় নিহত ৯ জনের মরদেহবাহী কফিন নিয়ে আসা হয়। জানাজা শেষে মরদেহগুলোতে লাখো মানুষ শ্রদ্ধা জানান। ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

তেহরানে শেষযাত্রা অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে মরদেহগুলো তেহরান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গাড়িতে করে আজাদি স্কয়ারে নিয়ে যাওয়া হয়।

জানাজার নামাজের একটি ভিডিও খামেনির এক্স (সাবেক টুইটার) অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশ করা হয়েছে। এতে দেখা যাচ্ছে, বৃদ্ধ খামেনি লাঠিতে ভর করে হাসিমুখে মরদেহগুলোর কাছে এগিয়ে আসছেন। এরপর তিনি সমবেত সকলকে নিয়ে জানাজার নামাজ পড়েন।

শোকার্ত জনতার হাতে ছিল রাইসির ছবিসহ নানা বক্তব্য লেখা প্ল্যাকার্ড।

এর আগে তাবরিজ ও কোম শহরেও শেষযাত্রায় মানুষের ঢল নামে। মঙ্গলবার, তাবরিজ, কোম এবং তেহরানের গ্র্যান্ড মোসাল্লা মসজিদে কয়েক হাজার মানুষের উপস্থিতিতে তাদের শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজায় উপস্থিত ছিলেন ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক ব্যুরো প্রধান ইসমাইল হানিয়া এবং লেবানিজ হিজবুল্লাহ প্রতিরোধের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল শেখ নাইম কাসেমসহ ইসরায়েলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের অক্ষের নেতারা। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশের নেতা, রাষ্ট্রপতি, রাষ্ট্রদূত এবং আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্বরা জানাজায় অংশ নেন।

ইরান সরকার সোমবার সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আবদুল্লাহিয়ানের নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে। ওই দুজন ছাড়াও পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের গভর্নর মালেক রহমাতি, তাবরিজের জুমার নামাজের খতিব হোজ্জাতোলেস্লাম আল হাশেম এবং আরও কয়েকজন ওই হেলিকপ্টারের আরোহী ছিলেন।

রাইসির বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি সর্বোচ্চ নেতা হিসেবে খামেনির স্থলাভিষিক্ত হবেন বলে ব্যাপকভাবে আশা করা হয়েছিল।

রাজধানীতে প্রয়াত এই প্রেসিডেন্টকে ‘সেবার শহীদ’ হিসেবে সম্বোধন করে বিশাল ব্যানার প্রদর্শন করতে দেখা যায়।

তেহরানের বাসিন্দারা তাদের ‘সেবার শহীদের জানাজায় যোগদান’ করার আহ্বান জানিয়ে মোবাইল ফোনে বার্তা পেয়েছেন।

রাষ্ট্রীয় মিডিয়া পরিবেশিত খবরে বলা হয়, শোক মিছিল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যাত্রা শুরু করে শহরের কেন্দ্রস্থলে সুবিশাল ইঙ্গেলাব স্কোয়ারে যাওয়ার কথা রয়েছে। এতে বিদেশি বিশিষ্ট ব্যক্তিরা অংশ নেবেন।

আরও পড়ুন:
রাইসির দাফন হবে জন্ম-শহর মাশহাদে
মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনায় রসদ যোগাতে পারে রাইসির মৃত্যু
ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক
ইরানের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানি
ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
US signals support for ICC sanctions against Israel

ইসরায়েলের প্রতি আইসিসির নিষেধাজ্ঞা সমর্থনের ইঙ্গিত যুক্তরাষ্ট্রের

ইসরায়েলের প্রতি আইসিসির নিষেধাজ্ঞা সমর্থনের ইঙ্গিত যুক্তরাষ্ট্রের যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, ‘ইসরায়েলের বড় ভুল সিদ্ধান্ত মোকাবেলায় আমাদের যথাযথ পদক্ষেপ নিতে দেরি করব না। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় চলমান যুদ্ধকে কেন্দ্র করে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট এবং শীর্ষ হামাস নেতাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ও নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থনের ইঙ্গিত দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিষয়টি নিয়ে আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন।

কংগ্রেসের এক শুনানিতে ব্লিংকেন বলেন, ‘গভীর ভুল সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

আইসিসির কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য রিপাবলিকানদের চাপের মধ্যে তিনি এ মন্তব্য করলেন।

যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের সদস্য না হলেও ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধে আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানাসহ এর আগের মামলাগুলোকে সমর্থন করেছে।

মঙ্গলবার সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক কমিটির শুনানিতে শীর্ষ রিপাবলিকান জেমস রিশ প্রশ্ন তোলেন- স্বাধীন, বৈধ, গণতান্ত্রিক বিচার ব্যবস্থা রয়েছে- এমন দেশগুলোর কাজে নাক গলাতে আইসিসিকে মোকাবেলায় ব্লিনকেন বিল সমর্থন করবেন কিনা?

জবাবে অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, ‘আমরা একটি উপযুক্ত প্রতিক্রিয়া খুঁজে পেতে দ্বিপক্ষীয় ভিত্তিতে আপনার সঙ্গে কাজ করতে চাই। আমি তা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

‘ইসরায়েলের বড় ভুল সিদ্ধান্ত মোকাবেলায় আমাদের যথাযথ পদক্ষেপ নিতে দেরি করব না। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

এর আগে সোমবার আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি করিম খান জানান, তিনি ইযরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছেন। এছাড়াও গাজার নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ার, কাসসাম ব্রিগেডের সামরিক শাখার কমান্ডার মোহাম্মদ দেইফ এবং হামাসের রাজনৈতিক ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়ার বিরুদ্ধেও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা চেয়েছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এর প্রতিক্রিয়ায় ওইদিন বলেন, ‘গ্রেপ্তারি পরোয়ানার জন্য আবেদন করা অপমানজনক। ইসরায়েল ও হামাসকে সমান পাল্লায় মাপা যায় না।’

গাজা যুদ্ধে ইসরায়েলের তদন্ত জোরদার করার সময় আইসিসির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের অন্তত দুটি পদক্ষেপ ইতোমধ্যে কংগ্রেসে উত্থাপন করা হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতে উত্থাপিত টেক্সাসের রিপাবলিকান চিপ রয়ের একটি বিল ঘিরে ক্যাপিটল হিলের সমর্থন একত্রিত হচ্ছে।

‘ইলিগ্যাল কোর্ট কাউন্টার অ্যাকশন অ্যাক্ট’ নামের এই বিলে বলা হয়েছে, এই মামলার সঙ্গে জড়িত আইসিসি কর্মকর্তাদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে বাধা, তাদের যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা বাতিল এবং যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে কোনো ধরনের সম্পত্তি লেনদেন নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেবে; যদি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের সুরক্ষিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা বন্ধ না করে।

রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি পরিষদের অন্তত ৩৭ জন আইনপ্রণেতা এখন বিলটির পৃষ্ঠপোষকতা করছেন, যাদের মধ্যে চেম্বারের তৃতীয় সর্বোচ্চ পদমর্যাদার রিপাবলিকান এলিস স্টেফানিকও রয়েছেন।

স্টেফানিক সদ্যই ইসরায়েল সফর করেছেন। সেখানে তিনি নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন, নেসেটে কথা বলেন এবং গাজায় আটকা পড়া জিম্মিদের পরিবারের সঙ্গে দেখাও করেন।

বিবিসিকে দেয়া এক বিবৃতিতে স্টেফানিক বলেন, ‘আদালত (আইসিসি) একটি শান্তিপূর্ণ জাতিকে তার অস্তিত্বের অধিকার রক্ষায় গণহত্যা সংঘটিত মৌলবাদী সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সমান আচরণ করছে।’

বিলটির সমর্থক আরেক রিপাবলিকান সদস্য কেনটাকির অ্যান্ডি বার বলেন, ‘ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আইসিসির মামলা আরও এগিয়ে নেয়াটা অবশ্যই আমাদের নিষেধাজ্ঞার পূর্ণ শক্তি দিয়ে মোকাবেলা করতে হবে।’

তবে ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতারা রিপাবলিকান সিনেটরদের এই প্রচেষ্টার পেছনে থাকবেন কিনা তা স্পষ্ট নয়।

ডেমোক্র্যাটদের মধ্যপন্থী ও উদারপন্থী শাখাগুলো কয়েক মাস ধরে বাইডেনের ইসরায়েল নীতির সঙ্গে লড়াই করছে। কারণ তরুণ প্রগতিশীল ভোটাররা বাইডেনকে গাজায় নেতানিয়াহু সরকারের অভিযান বন্ধে আরও তীব্র সমালোচনা করার জন্য চাপ দিচ্ছে।

ইসরায়েলে অস্ত্র সরবরাহে বাইডেনের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের পক্ষে গত সপ্তাহে ভোট দেয়া কয়েকজন ডেমোক্র্যাট সিনেটরের একজন গ্রেগ ল্যান্ডসম্যান বিবিসিকে বলেন, ‘আমি আশা করি কংগ্রেস আইসিসির বিরুদ্ধে দ্বিপক্ষীয় তিরস্কার জারি করবে। আইসিসির এই সিদ্ধান্ত কেবল উত্তেজনা ও বিভাজনকে উস্কে দেবে এবং ইসরায়েলবিরোধী ষড়যন্ত্রকে উৎসাহিত করবে।’

আরও পড়ুন:
ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দেবে নরওয়ে, আয়ারল্যান্ড ও স্পেন
গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণ পাচ্ছেন নেতানিয়াহু
ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতির তারিখ ঘোষণা করবে স্পেন
যুদ্ধাপরাধে নেতানিয়াহু-হানিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
German romance novel Kairos wins Booker Prize

জার্মান প্রেমের উপন্যাস কাইরোস পেল বুকার পুরস্কার

জার্মান প্রেমের উপন্যাস কাইরোস পেল বুকার পুরস্কার জার্মান লেখিকা জেনি এরপেনবেক এবং অনুবাদক মাইকেল হফম্যান পেয়েছেন এবারের পুরস্কার
১৯৮৬ সালের দিকে পূর্ব বার্লিনে একটি বাসে ১৯ বছর বয়সী এক ছাত্রীর সঙ্গে দেখা হয় ৫০ বছর বয়সের এক পুরুষের। তাদের ‘ধ্বংসাত্মক সম্পর্কের’ কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে জার্মান ভাষায় লেখা ‘কাইরোস’ উপন্যাসে।

জার্মান লেখিকা জেনি এরপেনবেক এবং অনুবাদক মাইকেল হফম্যান এবার ‘কাইরোস’ উপন্যাসের জন্য আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার বিজয়ী হয়েছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার এই পুরস্কারের জন্য তাদের নাম ঘোষণা করা হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

১৯৮৬ সালের দিকে পূর্ব বার্লিনে একটি বাসে ১৯ বছর বয়সী এক ছাত্রীর সঙ্গে দেখা হয় ৫০ বছর বয়সের এক পুরুষের। তাদের ‘ধ্বংসাত্মক সম্পর্কের’ কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে জার্মান ভাষায় লেখা ‘কাইরোস’ উপন্যাসে।

লন্ডনের টেট মডার্ন গ্যালারিতে একটি অনুষ্ঠানে মর্যাদাপূর্ণ পুরষ্কারটি হস্তান্তর করা হয়। সারা বিশ্বের কথাসাহিত্যের কাজকে স্বীকৃতি দিতে ইংরেজিতে অনুবাদ হওয়া বই থেকে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পুরস্কারের ৫০ হাজার পাউন্ড লেখক এবং অনুবাদকের মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে দেয়া হবে।

২০২৪ সালের বিচারকদের সভাপতি এলেনর ওয়াচটেল এরপেনবেকের ‘উজ্জ্বল গদ্য’, ‘একটি সম্পর্কের জটিলতা’ এবং পূর্ব বার্লিনের পরিবেশের বর্ণনার প্রশংসা করেছেন।

এর আগে গত এপ্রিলে চলতি বছরের আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারের জন্য বইয়ের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়।

গত বছর টাইম শেলটার উপন্যাসের জন্য আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার পেয়েছিলেন বুলগেরিয়ার লেখক জর্জি গসপদিনভ।

বিভিন্ন ভাষার লেখকদের ইংরেজিতে অনূদিত এবং যুক্তরাজ্য বা আয়ারল্যান্ড থেকে প্রকাশিত বইগুলো এই পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হয়। ২০০৫ সাল থেকে দেয়া হচ্ছে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার।

আরও পড়ুন:
আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার পেলেন ‘টাইম শেল্টার’ উপন্যাসের লেখক ও অনুবাদক
বুকার পেলেন শ্রীলঙ্কার লেখক শেহান
হিন্দি উপন্যাসের জন্য প্রথম বুকার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Funeral arrangements for Raisis body have begun in Tehran

রাইসির মরদেহ তেহরানে, শেষকৃত্যের আয়োজন শুরু

রাইসির মরদেহ তেহরানে, শেষকৃত্যের আয়োজন শুরু ইব্রাহিম রাইসিসহ নিহত অন্যদের মরদেহ ছুঁয়ে দেখছেন ভক্ত-সমর্থকরা। ছবি: সংগৃহীত
ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, রাইসির মরদেহ বহনকারী প্রেসিডেন্সিয়াল বিমান তেহরানের মেহরাবাদ বিমানবন্দরে অবতরণ করছে। মরদেহ বিমান থেকে নামানোর সময় সরকারি ও সামরিক কর্মকর্তারা লালগালিচার পাশে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। তাদের অনেকে কাঁদছেন।

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির কয়েক দিনব্যাপী শেষকৃত্য আয়োজনের অংশ হিসেবে মরদেহ তেহরানে নেয়া হয়েছে। ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে।

বার্তা সংস্থাটির প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, রাইসির মরদেহ বহনকারী প্রেসিডেন্সিয়াল বিমান তেহরানের মেহরাবাদ বিমানবন্দরে অবতরণ করছে। তার মরদেহ বিমান থেকে নামানোর সময় সরকারি ও সামরিক কর্মকর্তারা একটি লালগালিচার পাশে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। ওই সময় তাদের অনেককেই কাঁদতে দেখা যায়।

ইরনা প্রকাশিত কয়েকটি ছবিতে দেখা যায়, প্রেসিডেন্সিয়াল বিমানের একটি আসন খালি রাখা হয়েছে। আর আসনটিকে কালো কাপড়ে জড়িয়ে সেখানে রাইসির একটি ছবি রাখা আছে।

রাইসির মৃত্যু ইসলামি প্রজাতন্ত্র রাষ্ট্রটির কট্টরপন্থি এজেন্ডা বাস্তবায়নকে একটি অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে ঠেলে দিয়েছে।

রাইসির মরদেহ তেহরানে, শেষকৃত্যের আয়োজন শুরু
মঙ্গলবার ইরানের তাবরিজ শহরের রাস্তায় শোকার্ত মানুষে ঢল নামে। ছবি: সংগৃহীত

মঙ্গলবার ইরানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর তাবরিজে রাইসির জানাজা হয়। তার সঙ্গে থাকা বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারের আরোহী পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ অন্যদের জানাজাও একইসঙ্গে অনুষ্ঠিত হয়। এদিন রাইসি ও অন্যদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে তাবরিজ শহরে শোক মিছিল বের হয়।

রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিগুলোতে দেখা যায়, প্রেসিডেন্ট রাইসি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আবদোল্লাহিয়ান ও রোববারের দুর্ঘটনায় নিহত অন্যদের মরদেহ বহনকারী ফুল দিয়ে সাজানো ও ইরানের পতাকা দিয়ে আচ্ছাদিত ট্রাকটি যাওয়ার সময় মারটায়ার্স স্কয়ারে কালো পোশাক পরিহিত অসংখ্য মানুষ বৃষ্টির মধ্যে দাঁড়িয়ে আছেন।

তাবরিজে মঙ্গলবার দেয়া এক ভাষণে ইরানের ইন্টেরিয়র মিনিস্টার আহমাদ ভাহিদি বলেন, ‘রাইসি ও আমির-আবদোল্লাহিয়ান সাহসের সঙ্গে সেবা ও কূটনীতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। গাজা রক্ষায় রাইসির মর্মস্পর্শী বক্তব্যের কথা কে ভুলতে পারে?’

তাদের মরদেহগুলো এর পরে শিয়াদের পবিত্র শহর কোম-এ নেয়া হবে। সেখানে ইরানের প্রশিক্ষিত ও অভিজাত ধর্মগুরুরা ফাতিমা মাসুমাহ মাজারে মৃতদের জানাজা নামাজ পরিচালনা করবেন।

রাইসিসহ অন্যদের শেষকৃত্য আয়োজন উপলক্ষে বুধবার তেহরানের গ্র্যান্ড মোসাল্লাহ মসজিদে বড় আকারের আয়োজনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। শেষকৃত্যের আয়োজন নির্বিঘ্নে পরিচালনা করার জন্য ইরানিয়ান ভাইস প্রেসিডেন্ট মানসুরি ওইদিনকে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করেছেন। দেশজুড়ে সব কার্যালয়ের কর্মকাণ্ড বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বার্তা সংস্থা মেহের নিউজ জানায়, রাইসির মরদেহ এরপর ঐতিহাসিক ইমাম রেজা মাজারে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি জানাজা নামাজ পরিচালনা করবেন।

এদিকে সোমবার ইরানিয়ান সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে সামরিক ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত একটি কমিশনকে নিয়োগ দিয়েছেন ইরানের সামরিক বাহিনীর প্রধান।

ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিম জানিয়েছে, আজারবাইজানের পূর্বাঞ্চলের ওই ঘটনাস্থলে যাবে উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল।

আরও পড়ুন:
রাইসির মৃত্যুতে যেভাবে অস্থির হয়ে উঠতে পারে ইরান
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানকে সহায়তা ‘দিতে পারেনি’ যুক্তরাষ্ট্র
রাইসি’র মৃত্যুতে বাংলাদেশে একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক
রাইসির শোকে সমাবেশ করছেন ইরানিরা
রাইসির দাফন হবে জন্ম-শহর মাশহাদে

মন্তব্য

p
উপরে