× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Some areas of Munshiganj Chandpur Jhenaidah are celebrating Eid
google_news print-icon

দেশের যেসব জায়গায় ঈদ হচ্ছে আজ

দেশের-যেসব-জায়গায়-ঈদ-হচ্ছে-আজ
মুন্সিগঞ্জের একটি ঈদগাহে কোলাকুলি করছেন মুসল্লিরা। ছবি: নিউজবাংলা
মঙ্গলবার চাঁদ না দেখা যাওয়ায় বাংলাদেশে ঈদ উদযাপনের জন্য বৃহস্পতিবার দিন ঠিক করা হয়েছে, তবে সৌদিতে বুধবার ঈদ হওয়ায় এদিনের সঙ্গে মিল রেখে ঈদের দিন ঠিক করেছে ওই এলাকাগুলো।

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের কয়েকটি এলাকায় পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করা হচ্ছে বুধবার।

মঙ্গলবার চাঁদ না দেখা যাওয়ায় বাংলাদেশে ঈদ উদযাপনের জন্য বৃহস্পতিবার দিন ঠিক করা হয়েছে, তবে সৌদিতে বুধবার ঈদ হওয়ায় এদিনের সঙ্গে মিল রেখে ঈদের দিন ঠিক করেছে ওই এলাকাগুলো।

মুন্সিগঞ্জের ৯ গ্রামে ঈদ

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে মুন্সিগঞ্জের অন্তত ৯ গ্রামে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করা হচ্ছে । সকালে এ এলাকাগুলোতে ঈদের নামাজের মধ্য দিয়ে ঈদুল ফিতর উদযাপন শুরু হয়।

মুন্সিগঞ্জ সদরের মোল্লা কান্দি ইউনিয়নের আনন্দপুর, শিলই, নায়েবকান্দি, আধারা, মিজিকান্দি, কালিরচর,বাংলাবাজার, বাঘাইকান্দি ও কংসপুরার একাংশে ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে।

এসব গ্রামে পাঁচ থেকে ছয় হাজার মানুষ শত বছর ধরে সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ঈদ উদযাপন করে। এ ছাড়াও জেলার আরও কয়েকটি এলাকায় সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ঈদ উদযাপন হবে।

জাহাগীর তরিকার মুরিদানরা বলেন, পৃথিবীর যেকোনো স্থানে নব চন্দ্র দেখা দিলে সেই অনুযায়ী ঈদ উদযাপন করা উচিত। তাই আমরা সৌদি আরবের সাথে মিল রেখেই ঈদ উদযাপন করে থাকি।

ঝিনাইদহে ঈদ

সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগেুলোর সঙ্গে মিল রেখে ঝিনাইদহের বিভিন্ন গ্রামের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা রোজা রেখে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করে আসছেন। এ বছরও সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করছেন তারা।

বুধবার সকাল ৮টায় হরিণাকুন্ডু উপজেলা মোড়ের গোলাম হযরতের মিল চত্বরসহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় এসব ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন বিভিন্ন এলাকার মুসল্লিরা।

ঈদ জামাতের আয়োজকরা জানান, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে তারা কয়েক বছর ধরে ঈদ জামাতের আয়োজন করে থাকেন। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বংকিরা, হরিণাকুন্ডু উপজেলার কুলবাড়ীয়া, নারায়নকান্দি, বৈঠাপাড়া, বোয়ালিয়া, চটকাবাড়ীয়া, ফলসী, পায়রাডাঙ্গা, নিত্যানন্দরপুর, শৈলকুপা উপজেলার ভাটই ও চুয়াাডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলা থেকে মুসল্লিরা আসেন ঈদের নামাজ আদায় করতে। এছাড়া হরিণাকুন্ডুর ভালকী বাজার, চরপাড়া ও পুড়াহাটি এলাকায় ইদের নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা।

দেশের যেসব জায়গায় ঈদ হচ্ছে আজ
ঝিনাইদহের একটি এলাকায় ঈদের জামাত। ছবি: নিউজবাংলা

রাজশাহীর কাটাখালি এলাকা থেকে ঈদের নামাজ পড়তে আসা ওয়াজেদ বলেন, আমরা জানি চাঁদ উঠার ওপর নির্ভর করেই রোজা রাখা এবং ঈদ উদযাপন করা হয়। পৃথিবীর আকাশে চাঁদ দেখা গেছে, শুধু বাংলাদেশ ছাড়া সৌদি আরবসহ সকল মুসলিম দেশে আজ ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে, এ কারণে আমি গতকালই এখানে আত্মীয়ের বাসায় আসছি ঈদের নামাজ পড়তে।

ঈদ জামাতের সাধারণ সম্পাদক শাখায়াত হোসেন বলেন, দীর্ঘ ২১ বছর ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে রোজা রাখা এবং ঈদের নামাজ আদায় করি। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

ঈদ জামাতের ইমাম রেজাউল ইসলাম বলেন, আমরা প্রতি বছর পৃথিবীর আকাশে প্রথম চাঁদ দেখে ঈদের নামাজ আদায় করি। যা সৌদি আরবের সাথে মিলে যায়।

হরিণাকুন্ডু থানার ওসি জিয়াউর রহমান বলেন, হরিণাকুন্ডুতে তিনটি জায়গায় সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে কিছু মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন। আইনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তার স্বার্থে যেখানে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করেছি।

চাঁদপুরের ৪০ গ্রামে ঈদ

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে বুধবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করছে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ৪০ গ্রামের মানুষ।

১৯২৮ সাল থেকে হাজীগঞ্জের সাদ্রা দরবার শরীফের মরহুম পীর মাওলানা ইসহাক (রহ.) এই অঞ্চলে চন্দ্র মাসের হিসাবে রোজা, ঈদ এবং অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের রীতি শুরু করেন।

এরপর থেকে হাজীগঞ্জের সাদ্রা দরবার শরীফের সঙ্গে অনুসারী হিসেবে পাশ্ববর্তী ফরিদগঞ্জ, মতলব, কচুয়া, শাহরাস্তি উপজেলাসহ জেলার ৪০ গ্রামে আগাম ঈদ পালন করে আসছে।

হাজীগঞ্জ উপজেলার গ্রামগুলো হচ্ছে- সাদ্রা, সমেশপুর, অলীপুর, বলাখাল, মনিহার, ভোলাচোঁ, জাখনী, সোনাচোঁ, প্রতাপপুর, বাসারা।

ফরিদগঞ্জ উপজেলার উভারামপুর, উটতলী, মুন্সিরহাট, মূলপাড়া, বদরপর, আইটপাড়া, সুরঙ্গচর, বালিথুবা, কাইতাড়া, নূরপুর, সাচনমেঘ, ষোল্লা, হাঁসা, গোবিন্দপুর।

মতলব উত্তর উপজেলার দশানী, মোহনপুর, পাঁচানী এবং কচুয়া ও শাহরাস্তি উপজেলার কয়েকটি গ্রামে আগাম রোজা ও ঈদ পালন করা হয়।

সাদ্রা দরবার শরীফের পীর মাওলানা আরিফউল্যাহ মিশকাত চৌধুরী বলেন, আগে থেকেই সৌদি, আফগানিস্তান, মিশরের সঙ্গে মরহুম পীর সাহেব ও তার অনুসারীরা ঈদ পালন করেছেন। আমরাও তার ধারাবাহিকতায় বুধবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করছি।

সৌদির সঙ্গে মিল রেখে তারা রোজা পালন শুরু করেন গত ১১ র্মাচ সোমবার থেকে। এ ব্যাপারটি ধর্মীয় ও বেশ সংবেদনশীল হওয়ায় কেউ কিছু বলছেন না বলে জানান তিনি।

চট্টগ্রামের অর্ধশতাধিক গ্রামে ঈদ

সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবার শরীফ ও চন্দনাইশের জাঁহাগিরিয়া শাহ ছুফি মমতাজিয়া দরবার শরীফের অনুসারীরা বুধবার ঈদ উদযাপন করছেন। দক্ষিণ চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় অর্ধশতাধিক গ্রামে ঈদ উদযাপিত হচ্ছে।

জাহাঁগিরীয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবারের সৈয়্যদ মাওলানা মোহাম্মদ আলীর ইমামতিতে ঈদুল ফিতরের প্রথম জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় ও দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মনজুর আলীর ইমামতিতে দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হয়।

এ ছাড়া মির্জাখীল দরবার শরীফের সৈয়্যদ মাওলানা আবদুল হামিদ শাহ জাহাঁগিরীর (নুরুল আরেফিন) ইমামতিতে মির্জাখীল দরবার শরীফে সকাল ১০টায় ও সৈয়দ ড. মাওলানা মাকসুদুর রহমানের ইমামতিতে সকাল সাড়ে ৯টায় দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

মির্জারখীল দরবার শরীফের সৈয়্যদ মাওলানা আবদুর রহমান শাহ জাহাঁগিরী ও চন্দনাইশ কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়নের জাহাঁগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মতি মিয়া মনসুর জানান, হানাফী মাযহাবের অনুসারী হিসেবে বিশ্বের কোথাও চাঁদ দেখা সাপেক্ষে সুফি সাধক সৈয়্যদ মাওলানা মোখলেসুর রহমান জাঁহাগিরীর দেখানো পথ অনুসরণ করে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করা হয়।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশ পৌরসভার বুলার তালুক, হরিনার পাড়া, ফকির পাড়া, সর্বল কাজী বাড়ি, চন্দনাইশ উপজেলার কাঞ্চননগর, হারালা, বাইনজুরি, কানাইমাদারি, সাতবাড়িয়া, বরকল, বরমা, ধোপাছড়ি, দোহাজারি, জামিজুরি, মোহাম্মদপুর, পশ্চিম এলাহাবাদ, উত্তর কাঞ্চননগর, জুনিঘোনা, আব্বাসপাড়া, মাঝের পাড়া, দিঘির পাড়া, পন্ডিত বাড়ি, মোস্তা আলী শাহ, কেন্দুয়াপাড়া, কেশুয়া, মোহাম্মদপুর, উত্তর হাশিমপুর, ছৈয়দাবাদ, খুনিয়ারপাড়া, পটিয়ার শ্রীমাই, হাইদগাঁও, ফকির পাড়া, বাথুয়া, সাতকানিয়ার রুপকানিয়া, বাঁশখালীর জলদী, গুনাগরি, কালীপুর, গন্ডামারা, মিরিঞ্জিরতলা, ছনুয়া, সাধনপুর, আনোয়ারার তৈলারদ্বীপ, বারখাইন, চরণদ্বীপ, খরণদ্বীপ, লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া, চুনতি, পুটিবিলা, উত্তর সুখছড়ি, বাংলাবাজার, মইশামুড়া, খোয়াছপাড়া, বাজালিয়া, কাঞ্চনা, গাটিয়াডাঙ্গা, পুরানগড়, মনেয়াবাদসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের লক্ষাধিক অনুসারী ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছেন বুধবার।

এ ছাড়া বোয়ালখালী, হাটাহাজারী, রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, আনোয়ারা, বাঁশখালী, পটিয়া, কর্ণফুলী, সন্দ্বীপ, ফটিকছড়ি, আলীকদম, নাইক্ষ্যংছড়ি, কক্সবাজার, টেকনাফ, মহেশখালী, কুতুবদিয়া, হাতিয়ার বিভিন্ন স্থানে ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The child was stuck in the school toilet for 6 hours

স্কুলের টয়লেটে ৬ ঘণ্টা আটকে ছিল শিশু

স্কুলের টয়লেটে ৬ ঘণ্টা আটকে ছিল শিশু প্রতীকী ছবি
পরীক্ষা শেষে বেলা ১২টার দিকে বিদ্যালয় ছুটির পর রাফিন টয়লেটে যাওয়ার পর স্কুলের দপ্তরি খোকন খান টয়লেট চেক না করেই বাইরে থেকে রশি দিয়ে আটকিয়ে দেন।

মাদারীপুরে একটি স্কুলের টয়লেটে প্রথম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর আটকে পড়ার ঘটনা ঘটেছে। ছুটির পর সবাই বাড়ি চলে গেলেও টয়লেটে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে শিশুটি। এ ঘটনার ৬ ঘণ্টা পর তাকে সেখান থেকে বের করা হয়।

মাদারীপুর সদর উপজেলার পাঁচখোলা ইউনিয়নের ৯ নম্বর পাঁচখোলা বোর্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটে। তবে এ বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে শনিবার।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থীর নাম রাফিন। সে পাঁচখোলা এলাকার মৃত্যু নুরুল হকের ছেলে এবং ৯ নম্বর পাঁচখোলা বোর্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র।

শিশুটির পরিবারের সদস্যরা জানান, প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবারও স্কুলে গিয়েছিল রাফিন। তখন তাদের পরীক্ষা চলছিল। পরীক্ষা শেষে বেলা ১২টার দিকে বিদ্যালয় ছুটির পর রাফিন টয়লেটে যাওয়ার পর স্কুলের দপ্তরি খোকন খান টয়লেট চেক না করেই বাইরে থেকে রশি দিয়ে আটকিয়ে দেন। পরে শিশুটি দরজাটি খোলার জন্য ডাকাডাকি করেও কোনো সাড়া পায়নি। এ সময় আতঙ্কিত হয়ে বারবার দরজা খুলতে চিৎকার করতে থাকে সে। প্রায় ছয় ঘণ্টার চেষ্টার পর সে এক পর্যায়ে টয়লেটের দরজা খুলতে সক্ষম হয়।

এদিকে ছুটির পর রাফিন বাড়িতে না ফেরায় তার বাড়ির লোকজন বিভিন্ন ছাত্র ও আত্মীয়ের বাড়িতে খুঁজতে থাকে। অন্যদিকে, সন্ধ্যা ৬টার পর বিদ্যালয়ের তিনতলা থেকে এক মুদি দোকানীকে বিদ্যালয়ের গেট খোলার জন্য ডাকাডাকি করতে করতে অসুস্থ হয়ে পড়ে রাফিন। এরপর কয়েকজন মিলে তাকে উদ্ধার করে তার বাড়িতে নিয়ে যায়।

এলাকাবাসী এ ঘটনাকে ১৯৮০ সালের শিশুতোষ চলচ্চিত্র ‘ছুটির ঘণ্টা’র সঙ্গে তুলনা করে বলে, ‘৬ ঘণ্টা পর স্কুলের বাথরুম থেকে জীবিত ফিরে এলেও আর কিছু সময় হলেই ছুটির ঘণ্টা বেজে যেত শিশুটির।’

ওই মুদি দোকানদার বলেন, ‘দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বাথরুমের আটকা পড়ার পরে কোনোমতে দরজা খুলেই তিনতালার বেলকনি থেকে আমাদের ডাক দেয় রাফিন। পরে আমরা গিয়ে তাকে উদ্ধার করি।’

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রওশন আরা বেগম বলেন, ‘ওইদিন আমি একটি মিটিংয়ে ছিলাম। বের হবার আগপর্যন্ত এমন কিছু আমার নজরে পড়েনি। আমি পরে জানতে পেরেছি। বিষয়টির সঙ্গে কে জড়িত রয়েছে, তা তদন্ত করে বের করা হবে।’

মাদারীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আল মামুন বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। আপনাদের মাধ্যমেই জানতে পেরেছি। যদি এরকম কিছু হয়ে থাকে, তদন্ত সাপেক্ষে আইনহত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Daily demand of eggs in Sylhet is 29 lakhs production is only 4 lakhs

সিলেটে ডিমের প্রাত্যহিক চাহিদা ২৯ লাখ, উৎপাদন মাত্র ৪ লাখ

সিলেটে ডিমের প্রাত্যহিক চাহিদা ২৯ লাখ, উৎপাদন মাত্র ৪ লাখ সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ওয়াপসা আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন ভিসি প্রফেসর ডা. মো. জামাল উদ্দিন ভুঞা। ছবি: নিউজবাংলা
কর্মশালায় বক্তারা বলেন, দেশের ৪৫ ভাগ মানুষ প্রাণিজ আমিষের ওপর নির্ভরশীল। প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস হলো পোল্ট্রি শিল্প। অথচ সিলেট অঞ্চলে লেয়ার খামার ও পোল্ট্রি হ্যাচারি নেই বললেই চলে।

সিলেট বিভাগে প্রতিদিন ২৫ লাখ ডিমের ঘাটতি রয়েছে। এ অঞ্চলে প্রতিদিন হাঁস ও মুরগির ডিমের চাহিদা রয়েছে প্রায় ২৯ লাখ। চাহিদার বিপরীতে সিলেটে মাত্র ৪ লাখ ডিম উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে। ফলে অন্তত ২৫ লাখ ডিম বাইরে থেকে এনে চাহিদা মেটাতে হচ্ছে।

শনিবার সকালে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিকৃবি) ওয়ার্ল্ডস পোল্ট্রি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের (ওয়াপসা বিবি) বিভাগীয় কর্মশালায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, হাঁসের ডিমের পুষ্টিগুণ মুরগির ডিমের চেয়ে বেশি। এতে অন্য কোনো এলার্জেন্স নেই। দেশের ৪৫ ভাগ মানুষ প্রাণিজ আমিষের ওপর নির্ভরশীল। প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস হলো পোল্ট্রি শিল্প। অথচ সিলেট অঞ্চলে লেয়ার খামার ও পোল্ট্রি হ্যাচারি নেই বললেই চলে।

তারা বলেন, সিলেট অঞ্চলে কর্মক্ষম যুব সমাজকে কাজে লাগানোর পাশাপাশি গ্রামীণ নারীদের পোল্ট্রি শিল্পে নিয়োজিত করতে পারলে এ অঞ্চলে মাংস ও ডিমের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে। পোল্ট্রি শিল্পেও কৃষির মতো বাণিজ্যিক বিদ্যুৎ বিলের পরিবর্তে আবাসিক বিল প্রদান করতে হবে। একইসঙ্গে উদ্যোক্তা গড়ে তুলতে স্বল্প সুদে ব্যাংক ঋণের সুবিধা বাড়াতে হবে।

সিলেট কৃষি বিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি, অ্যানিমেল ও বায়োমেডিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. ছিদ্দিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিকৃবির উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. জামাল উদ্দিন ভুঞা।

অধ্যাপক ড. নাসরিন সুলতানা লাকীর সঞ্চালনায় কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ওয়াপসা বিবির সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. বাহানুর রহমান, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় চিফি এপিডেমিউলজিস্ট ডা. আছির উদ্দিন, ওয়াস্টার পোল্ট্রির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইমরান হোসেন।

কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ওয়াপসা বিবির সদস্য অধ্যাপক ড. মো. ইলিয়াস হোসেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. এটিএম মাহবুব-ই-ইলাহী, অধ্যাপক ড. এম রাশেদ হাসনাত।

কর্মশালায় জানানো হয়, সিলেট জেলায় সোনালী জাতের মুরগির চাহিদা রয়েছে এক লাখ। অথচ স্থানীয়ভাবে সরবরাহ হচ্ছে ১০ হাজারের মতো। কর্মশালায় বায়ু নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিতের পাশাপাশি প্রান্তিক চাষী পর্যায় থেকে বাজার পর্যন্ত ডিমের দামের বৈষম্য কমানোর তাগিদ দেয়া হয়।

সিলেটে হাওরাঞ্চলে হাঁস পালনের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। এই সম্ভাবনাকে ব্যক্তি পর্যায়ে কাজে লাগানো যায় বলেও সুপারিশ করেন গবেষকরা।

আরও পড়ুন:
আলুর হিমাগারে ছিল ২১ লাখ ডিম, ২৪ হাজার কেজি মিষ্টি
এক লাফে হোল্ডিং ট্যাক্স কয়েক শ গুণ বৃদ্ধি, ক্ষুব্ধ সিলেট নগরবাসী
উজানের ঢল আর বৃষ্টিতে গ্রীষ্মেই সিলেটে বন্যার পদধ্বনি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two people including a child died after taking a bath in Mahananda

মহানন্দায় গোসলে নেমে শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু

মহানন্দায় গোসলে নেমে শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু প্রতীকী ছবি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও ভোলাহাট উপজেলায় মহানন্দা নদীতে গোসল করতে নেমে ডুবে যান কলেজছাত্র রায়হান আলী শুভ ও ১২ বছরের সোনিয়া। তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও ভোলাহাট উপজেলায় মহানন্দা নদীতে গোসল করতে নেমে শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- সদর উপজেলার স্বরূপনগরের মো. জিকেনের ছেলে ও শাহ নেয়ামতুল্লাহ কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রায়হান আলী শুভ ও ভোলাহাট উপজেলার দলদলী ইউনিয়নের পীরগাছি গ্রামের জহর আলীর মেয়ে সোনিয়া। দুজনের মরদেহ আইনগত প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার ওসি মিন্টু রহমান জানান, ‘মহানন্দা সেতুর রাবার ড্যাম এলাকায় তিন-চার বন্ধু মিলে নদীতে গোসল করতে নেমে ডুবে যায় শুভ। পরে অন্যরা তাকে উদ্ধার করে দ্রুত সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অন্যদিকে ভোলাহাট থানার ওসি সুমন কুমার জানান, উপজেলার বজরাটেক এলাকায় নানা জমরুদ্দিনের বাড়িতে বেড়াতে এসে দুপুরে মহানন্দা নদীতে গোসল করতে নেমেছিল সোনিয়া। এরপর তাকে খুঁজে না পাওয়ায় ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নদী থেকে সোনিয়াকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠালে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:
চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
কুড়িগ্রামে পুকুরের পানিতে খেলতে গিয়ে প্রাণ গেল দুই শিশুর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Naib of Awami League who won unopposed in Jhenaidah 1 by election

ঝিনাইদহ-১ উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আওয়ামী লীগের নায়েব

ঝিনাইদহ-১ উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আওয়ামী লীগের নায়েব ঝিনাইদহ-১ আসনের উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী মো. নায়েব আলী জোয়ার্দ্দার। ছবি: সংগৃহীত
শনিবার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম দুলাল ও খেলাফত আন্দোলনের আব্দুল আলিম নিজামী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। এরপর নৌকার প্রার্থীকে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয় বলে জানান ঝিনাইদহ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মখলেসুর রহমান।

ঝিনাইদহ-১ আসনের উপনির্বাচনে দুই প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেয়ায় আওয়ামী লীগের মো. নায়েব আলী জোয়ার্দ্দার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন।

শনিবার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম দুলাল ও খেলাফত আন্দোলনের আব্দুল আলিম নিজামী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। এরপর নৌকার প্রার্থীকে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয় বলে জানান ঝিনাইদহ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মখলেসুর রহমান।

উল্লেখ্য, এ বছরের ১৬ মার্চ ঝিনাইদহ-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এরপর উপনির্বাচনের চন্য ওই আসনের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। গত ১০ এপ্রিল ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। আওয়ামী লীগের নায়েব আলি জোয়ার্দ্দার, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. আব্দুল আলিম নিজামী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম ও মুনিয়া আরেফিন মনোনয়নপত্র জমা দেন। যাচাই-বাছাইয়ে মুনিয়া আরফিনের মনোনয়ন বাতিল হলে ভোটের মাঠে ছিলেন তিনজন প্রার্থী। আগামী ৫ জুন ভোট গ্রহণের দিন ধার্য ছিল।

তবে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন অপর দুই প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিলে আওয়ামী লীগের নায়েব আলী জোয়ার্দ্দারকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ঘোষণা করা হয় বলে জানান জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মখলেসুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তর থেকে গেজেট প্রকাশের জন্য কাগজপত্র নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হবে।’

এর আগে, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলার দলীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হকের নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা হয়।

সভায় ঝিনাইদহের তিন আসনের সংসদ সদস্য, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্যসহ ঝিনাইদহ-১ আসনের উপনির্বাচনের দুই প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘যেহেতু নৌকা প্রতীকে একজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে এবং দলেরই অপর এক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন, সেজন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম দুলালকে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ করেছিলাম। তিনি সাড়া দিয়ে তা গ্রহণ করেছেন।’

মনোনয়ন প্রত্যাহার করা স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম দুলাল বলেন, ‘কোনো চাপের কারণে মনোনয়ন প্রত্যাহার করিনি। দল নায়েব আলী জোয়ার্দ্দারকে মনোনয়ন দিয়েছে। দলের সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান দেখিয়ে নির্বাচন থেকে সরে এসেছি।’

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আব্দুল হাইয়ের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন নজরুল ইসলাম দুলাল।

আরও পড়ুন:
ঝিনাইদহ-১ উপনির্বাচনে নৌকা পেলেন নায়েব আলী
ঝিনাইদহ-১ উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান ১৭ জন
ঝিনাইদহ-১ আসনে উপনির্বাচন ৫ জুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Lu expressed intention to return GSP benefits Foreign Minister

জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর কাজীর দেউড়িস্থ ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন হলে শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা থেকে কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে তাদের (যুক্তরাষ্ট্রের) একটি বিশেষ তহবিল আছে। সেখান থেকে তারা সাহায্য করার কথাও বলেছেন। সুতরাং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। আমরা এই সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যেই কাজ করছি। এজন্যই বিএনপির মাথাটা বেশি খারাপ।’

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যই যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু এসেছিলেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘কীভাবে এই সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাব, দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে আমার সঙ্গে সেটি নিয়ে তিনি কথা বলেছেন। এমনকি আমরা যদি কোনো কোনো ক্ষেত্রে কিছু রিফর্ম করি, তাহলে আমাদেরকে জিএসপি সুবিধাও ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায়ও তারা ব্যক্ত করেছেন।’

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর কাজীর দেউড়িস্থ ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন হলে শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা থেকে কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে তাদের (যুক্তরাষ্ট্রের) একটি বিশেষ তহবিল আছে। সেখান থেকে তারা সাহায্য করার কথাও বলেছেন। সুতরাং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। আমরা এই সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যেই কাজ করছি। এজন্যই বিএনপির মাথাটা বেশি খারাপ।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি একটা জালিয়াত রাজনৈতিক দল। আপনাদের মনে আছে, গত বছর ২৮ অক্টোবর জো বাইডেনের ভুয়া উপদেষ্টাকে বিএনপি হাজির করেছিল? ভুয়া উপদেষ্টা যখন বিএনপি কার্যালয়ে তখন দেখি শুধু ইংরেজি বলে। পুলিশ যখন ধরে নিয়ে গেল তখন দেখি গড়গড়াইয়া বাংলা বলে।

‘তার আগে বিএনপি কংগ্রেসম্যানদের সই জাল করেছিল। সেই সময়ে বলেছিল- ভারতের অমিত শাহ ফোন করেছিল। অমিত শাহর অফিস থেকে বলা হলো- তিনি কাউকে ফোন করেননি। যে আওয়াজ ছাড়া হয়েছিল সেটা অমিত শাহর নয়।

‘দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি দেখে বিএনপি ও তাদের দোসরদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। মাঝেমধ্যে দেখি জিএম কাদেরেরও মাথা খারাপ হয়ে যায়।’

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘নির্বাচনের আগে আমরা দেখেছি, বিএনপি প্রতিদিন বিভিন্ন এম্বাসিতে ঘুরে বেড়াত আর দেন-দরবার করত- নির্বাচনটা যাতে বন্ধ করা যায়; কোনো লাভ হয় নাই। নির্বাচন হয়েছে, ৪২ শতাংশ মানুষ ভোট দিয়েছে। যদি নির্বাচনের দিন কুয়াশা ও প্রচণ্ড ঠান্ডা না থাকত তাহলে আরও বেশি মানুষ ভোট দিত। আর বিএনপি যদি নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণা, মানুষের ওপর হামলা, ট্রেনের মধ্যে শিশুসন্তানসহ পুরো পরিবারকে জ্বালিয়ে হত্যা না করত তাহলে ভোটের হার ৬০ শতাংশের বেশি হতো।

‘গত দু-তিন বছরে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত অনেক দেশে নির্বাচন হয়েছে। সেখানে অনেক দেশে ৪০ শতাংশের কম ভোট পড়েছে। যদিওবা সেখানে নির্বাচনে বর্জন ও প্রতিহতের কোনো হুমকি ছিল না।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে অত্যন্ত চমৎকার নির্বাচন হয়েছে। নির্বাচন তা না হতো তাহলে পৃথিবীর ৮০টি দেশের সরকার কিংবা রাষ্ট্রপ্রধান আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাতেন না। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট চিঠি লিখে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন- আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই। সর্বশেষ দুদিন আগে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীও আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এজন্য বিএনপির মাথা খারাপ। সম্ভবত সেজন্য বিএনপি নেতা ড. মঈন খান ইদানিং জ্যোতিষীর মতো কথা বলছেন।’

বয়সে বড় বিএনপি নেতা ড. মঈন খানের প্রতি সম্মান রেখে ড. হাছান বলেন, ‘তিনি রাজনীতির বাইরে এখন জ্যোতিষীর দায়িত্বও পালন করা শুরু করেছেন। বঙ্গবন্ধু যখন দেশ পরিচালনা করছিলেন তখন মঈন খানের বাবা আবদুল মোমেন খান খাদ্য সচিব ছিলেন। খাদ্যবাহী জাহাজ ভারত মহাসাগর থেকে ফেরত যাওয়ার পেছনে তার বাবার কারসাজি ছিল, যাতে দেশে খাদ্য সংকট তৈরি হয়। খাদ্য সংকট তৈরি করে বঙ্গবন্ধুকে অজনপ্রিয় করার ক্ষেত্রে আবদুল মোমেন খানের ভুমিকা ছিল। সেটির পুরস্কারস্বরূপ জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করার পর আবদুল মোমেন খানকে মন্ত্রীর মর্যাদায় খাদ্য উপদেষ্টা বানিয়েছিলেন। ’৭৯ সালের নির্বাচনের পর আবদুল মোমেন খান সংসদে খাদ্যমন্ত্রীর বক্তব্যে বলেছিলেন, খাদ্যের জন্য দরকার হলে দেশ বিক্রি করে দেব। ওনারই সন্তান জনাব মঈন খান।’

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আজকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে, বাংলাদেশের মানুষের স্বপ্নের বাস্তবায়ন ঘটাতে হলে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প একমাত্র শেখ হাসিনা; এইদেশে আর কোনো বিকল্প নাই। তিনি জাতিকে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন ডিজিটাল বাংলাদেশের এবং সেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন ঘটেছে। ২০১৮ সালে আমাদের স্লোগান ছিল- আমার গ্রাম আমার শহর। আজকে গ্রামগুলো শহরের মতো হয়ে গেছে; গ্রাম আর শহরের মধ্যে কোনো পার্থক্য নাই।’

তিনি বলেন, ‘এবার আমরা স্লোগান দিয়েছি- স্মার্ট বাংলাদেশ। স্মার্ট বাংলাদেশ বলতে স্মার্ট সোসাইটি, স্মার্ট ইকোনমি, স্মার্ট গভরন্যান্স ও স্মার্ট পিপলস- এই চারটি অনুসঙ্গকে আমরা সঙ্গে নিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ রচনা করতে চাই। ইনশাল্লাহ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা এই অভিযাত্রায়ও বিজয়ী হব, কিন্তু আমাদের অভিযাত্রাকে আটকে দিতে চান বিএনপি ও তাদের দোসররা। সেই কারণেই নানা ষড়যন্ত্র।’

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহাতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল, আলহাজ খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শফিক আদনান, শফিকুল ইসলাম ফারুক, অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান প্রমুখ।

এরপর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চট্টগ্রাম নগরীর কদম মোবারক এতিমখানায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির উদ্যোগে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে সুষম খাবার বিতরণ করেন।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহজাদা মহিউদ্দিন প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
প্রশ্নের সময় ডোনাল্ড লুকে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন সাংবাদিকরা: বিএনপি
র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার প্রশ্নে কী বলল যুক্তরাষ্ট্র
দেশকে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Seasonal journalists are not allowed to enter polling stations
ঝালকাঠিতে ইসি আহসান হাবিব

মৌসুমী সাংবাদিকদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশের পাস নয়

মৌসুমী সাংবাদিকদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশের পাস নয় শনিবার ঝালকাঠিতে তিন জেলার প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন ইসি আহসান হাবিব খান। ছবি: নিউজবাংলা
ইসি আহসান হাবিব খান বলেন, ‘কোনো ভোট কেন্দ্রে অসংগতির ছবি ও ভিডিও করে প্রমাণ দেখাতে পারলে দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রয়োজনে কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করে দেয়া হবে। অবাধ নিরপেক্ষ ও শান্তিময় নির্বাচন করার জন্য প্রশাসন সর্বদা প্রস্তুত।’

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান বলেছেন, উপজেলা নির্বাচনে ভুঁইফোড় মিডিয়া এবং মৌসুমী সাংবাদিকদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশের জন্য পাস দেয়া হবে না। সংশ্লিষ্ট কমিটি আবেদন যাচাই-বাছাই করে পাস ইস্যু করবে।

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে শনিবার ঝালকাঠি শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে তিন জেলার প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।

আহসান হাবিব খান বলেন, ‘কোনো ভোট কেন্দ্রে অসংগতির ছবি ও ভিডিও করে প্রমাণ দেখাতে পারলে দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রয়োজনে কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করে দেয়া হবে। অবাধ নিরপেক্ষ ও শান্তিময় নির্বাচন করার জন্য প্রশাসন সর্বদা প্রস্তুত।’

তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনার একটি সাংবিধানিক পদ। সংবিধান সুরক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। ভোটার উপস্থিত করানো প্রার্থীর দায়িত্ব। তবে ভোটারদের কেন্দ্রে আসতে যদি কেউ বাধা দেয় তার জন্য দুই থেকে সাত বছর কারাদণ্ডের আইন করা হয়েছে। সেভাবেই আমরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছি। নির্বাচনকালীন ডিসি-এসপিরা স্বাধীনভাবে কাজ করবেন।

আরও পড়ুন:
মৃত বাবাকে দেখতে এক ঘণ্টা সময় পেলেন মেয়ে
সামনের নির্বাচনগুলো আরও স্বচ্ছ হবে: ইসি
প্রকাশ্যে ভোট: ক্ষমা চাওয়ায় এমপি হাফিজকে দায়মুক্তি ইসির
প্রবাসীদের এনআইডি কার্যক্রম দেখতে যুক্তরাজ্য যাচ্ছেন ইসি আলমগীর
প্রকাশ্যে ভোট, বরিশালের এমপি হাফিজ মল্লিককে ইসিতে তলব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Three people including mother and son were killed by lightning in Narsingdi

নরসিংদীতে বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ তিনজন নিহত

নরসিংদীতে বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ তিনজন নিহত ফাইল ছবি
নিহতদের একজন কাইয়ুম তার নানার বাড়ি বেড়াতে এসে মামার সঙ্গে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন।

নরসিংদীর সদর উপজেলার দুর্গম চলাঞ্চল আলোকবালীর মাঠে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রাঘাতে মা-ছেলেসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও দুইজন।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। খবর বাসস

নিহতরা হলেন- আলোকবালী ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামের কামাল মিয়ার স্ত্রী ৪৮ বছর বয়সী শরিফা বেগম ও তার ১২ বছরের ছেলে ইমন এবং রায়পুরা উপজেলার বাঘাইকান্দি গ্রামের হাতেম মিয়ার ছেলে ২৫ বছর বয়সী কাইয়ুম মিয়া।

কাইয়ুম তার নানার বাড়ি বেড়াতে এসে মামার সঙ্গে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন।

নিহতদের স্বজনদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, সকালে কামাল মিয়া, তার স্ত্রী শরিফা ও ছেলে ইমনসহ বেশ কয়েকজন জমিতে ধান কাটছিলেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বৃষ্টি শুরু হলে বিদ্যুৎ চমকানো শুরু হয়। ওই সময় হঠাৎ বজ্রপাতে শরিফা, তার ছেলে ইমন ও কামালসহ ৫ জন আহত হন। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে ইমন, শরিফা ও কাইয়ুম মারা যান।

কামাল মিয়া ও রহমত আলী নামে আহত দুই ব্যক্তিকে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ওসি তানভীর আহমেদ বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আহতদের সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
টাঙ্গাইলে বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু
বজ্রপাত নিরোধ যন্ত্র স্থাপনে সহায়তা করতে চায় ফ্রান্স

মন্তব্য

p
উপরে