× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
4 arrested including three members of KNF in Bandarban
google_news print-icon

বান্দরবানে কেএনএফের তিন সদস্যসহ গ্রেপ্তার ৪

বান্দরবানে-কেএনএফের-তিন-সদস্যসহ-গ্রেপ্তার-৪
ব্যাংক লুটের ঘটনায় বান্দরবানে গ্রেপ্তার কেএনএফের তিন সদস্য। ছবি: বাসস
সোমবার সকালে অভিযানে থানচি থেকে কেএনএফের তিন সদস্য ও ব্যাংক লুটের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এক গাড়িচালকে আটক করেছে পুলিশ বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান কাজেমী।

ব্যাংক লুটের ঘটনায় বান্দরবানে কেএনএফের তিন সদস্যসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

তারা হলেন-বান্দরবানের রোয়াছাড়ি উপজেলার রৌনিন পাড়া ভানুনন নুয়াম বম, থানচি ইউনিয়ন সদরের সিমৎলাং পাড়ার জেমিনিউ বম, আমে লানচেও বম এবং থানচি উপজেলার টিএন্ডটি পাড়ার বাসিন্দা গাড়িচালক মোহাম্মদ কফিল উদ্দিন।

সোমবার সকালে অভিযানে থানচি থেকে কেএনএফের তিন সদস্য ও ব্যাংক লুটের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এক গাড়িচালকে আটক করেছে পুলিশ বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান কাজেমী। খবর বাসসের

তিনি জানান, রোববারের অভিযানে বান্দরবান সদরের রেইচা চেকপোস্ট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় ওই তিন কেএনএফ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। এছাড়াও থানচি উপজেলা থেকে গাড়িচালককে আটক করা হয়েছে এবং জব্দ করা হয়েছে ডাকাতির ঘটনায় ব্যবহৃত বোলারো গাড়ি।

এদিকে বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি এবং থানায় হামলার ঘটনায় কেএনএফ এর সন্ত্রাসীদের ধরতে যৌথবাহিনীর অভিযান চলছে। কয়েকদিন ধরে জেলার রুমা, থানচি ও রোয়াংছড়িসহ দুর্গম পাহাড়ে এই অভিযান চলমান রয়েছে।

জানা যায়, যৌথ অভিযান আরো জোরালোভাবে পরিচালনা করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। উপজেলার সার্বিক নিরাপত্তায় নেওয়া হচ্ছে নতুন-নতুন পদক্ষেপ। এরই অংশ হিসেবে চলমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় বান্দরবানে আনা হয়েছে চারটি বিশেষ সাঁজোয়া যান (এপিসি)। আর এই বিশেষ সাঁজোয়া যান (এপিসি) পাঠানো হচ্ছে রোয়াংছড়ি, রুমা ও থানচি উপজেলায়।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, প্রত্যেকটি এলাকায় আইন শৃঙ্খলার তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। জনবল ও শক্তি বৃদ্ধি করা হয়েছে। এগুলো ছোট খাটো বিষয় আমরা খুব বেশি আমলে নিতে চায় না। আমরা কঠোর হস্তে দমন করতে চাই। কোন ধরনের সার্বিক পদক্ষেপ যাতে তারা না নিতে পারে সেরকম প্রস্তুতি আমাদের কিন্তু রয়েছে।

ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিষয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ব্যাংকি কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে। যে উপজেলাগুলোতে ব্যাংকিং কার্যক্রম হচ্ছে না সেগুলো জেলা থেকে পরিচালনা করা হচ্ছে। আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। আমরা জনগণের পাশে আছি।

ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান, ব্যাংকে সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলা ও লুটের ঘটনার জেরে বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি এই তিন উপজেলার সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের কার্যক্রম গত বৃহস্পতিবার থেকে সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। আর এই শাখাগুলোর কার্যক্রম বান্দরবান কার্যালয় থেকে চলমান রয়েছে বলে জানান ব্যাংক কর্মকর্তারা।

কৃষি ব্যাংক, বান্দরবান শাখার আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মোস্তফা এহতেহাম হায়দার মজুমদার জানান, সোমবার বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি শাখার লেনদেন কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Developed countries fail to implement climate change pledges PM

উন্নত দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ব্যর্থ: প্রধানমন্ত্রী

উন্নত দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ব্যর্থ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে মঙ্গলবার ঢাকায় গণভবনে সাক্ষাৎ করেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওং। ছবি: পিআইডি
উন্নত কৃষি প্রযুক্তি বিনিময়ে অস্ট্রেলিয়ার সহায়তা কামনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ ১৫ বছরে খাদ্যশস্য উৎপাদনে সফল হয়েছে। আমরা আমাদের উৎপাদন বহুগুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে জমি কমে যাওয়ায় উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে।’

জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে উন্নত দেশগুলো তাদের প্রতিশ্রুতি পূরণ না করায় হতাশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সফররত অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওং মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সাক্ষাৎকালে শেখ হাসিনা খোলামেলা কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার এম নজরুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে উন্নত দেশগুলোর প্রতিশ্রুতি পূরণ না হওয়ার কারণে প্রধানমন্ত্রী কিছুটা হতাশা ব্যক্ত করেন।

‘প্রধানমন্ত্রী এ প্রসঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার মন্ত্রীকে বলেন, ‘আমরা অলস বসে থাকিনি (উন্নত দেশের অপেক্ষায়)। আমরা আমাদের জনগণকে বাঁচানোর জন্য নিজস্ব ক্লাইমেট ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছি। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে চেষ্টা করছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে রয়েছে। কারণ এখানে প্রায়ই ঘূর্ণিঝড় ও বন্যা আঘাত হানে।’

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গা এবং ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি আগ্রাসন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ যে কোনো ধরনের যুদ্ধ বা সংঘাতের বিরুদ্ধে। আমরা প্রতিটি সংঘাত নিরসনে আলোচনা ও সংলাপ চাই।

‘রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সহায়তার জন্য অনুরোধ করলেও প্রত্যাবাসন প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি।

‘বাংলাদেশ ২০১৭ সাল থেকে কক্সবাজার জেলায় প্রায় ১৩ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। তাদের বেশিরভাগই মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দ্বারা পরিচালিত হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগ থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে। মিয়ানমার এখনও তাদের নাগরিকদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়নি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ছোট আয়তনের বাংলাদেশ একটি ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। এজন্য আমরা কর্মসংস্থান সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ করেছি।’

‘সরকার কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে শিল্প-কারখানা স্থাপনের জন্য সারাদেশে একশ’ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোক্তারা সেখানে বিনিয়োগ করতে পারে এবং দেশের বিনিয়োগবান্ধব সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে মুনাফা অর্জন করতে পারে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ গত ১৫ বছরে খাদ্যশস্য উৎপাদনে সফল হয়েছে। আমরা আমাদের উৎপাদন বহুগুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে জমি হ্রাস পাওয়ায় আমাদের উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে।’

সরকার প্রধান উন্নত কৃষি প্রযুক্তি বিনিময়ে অস্ট্রেলিয়ার সহায়তা কামনা করেন।

তিনি বলেন, ‘সরকারের সময়োপযোগী ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ১৭ দশমিক ৭ শতাংশে এবং চরম দারিদ্র্যের মাত্রা ২৫ শতাংশ থেকে ৫ দশমিক ৭ শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।’

বৈঠককালে প্রধানমন্ত্রী ও সফররত অস্ট্রেলিয়ার মন্ত্রী কৃষি, শিক্ষা, বাণিজ্যসহ দু’দেশের পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী এসব বিষয়ে দু’দেশের মধ্যে যোগাযোগ ও অংশীদারত্ব বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে প্রায় ৯০ হাজার বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মানুষ অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছে এবং তারা দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে।’

শেখ হাসিনা অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে তাদের দেশে আরও বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর প্রবেশাধিকারের জন্য পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ জানান।

অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দু’দেশের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার ও গভীর করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং অ্যাম্বাসেডর-অ্যাট-লার্জ এম জিয়াউদ্দিন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার করতে এবং আঞ্চলিক শান্তি, সমৃদ্ধি ও নিরাপত্তার জন্য সহযোগিতা জোরদারের উপায় খুঁজে বের করতে মঙ্গলবার দুদিনের সরকারি সফরে ঢাকায় আসেন পেনি ওং।

আরও পড়ুন:
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানকে সহায়তা ‘দিতে পারেনি’ যুক্তরাষ্ট্র
ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে এলাকা ভাগ করে দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
বঙ্গবন্ধুর নামে ‘শান্তি পদক’ দেবে সরকার
ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
পরিবেশবান্ধব শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two killed in oil tanker crash in Pabna

পাবনায় তেলবাহী লরির চাপায় দুজন নিহত

পাবনায় তেলবাহী লরির চাপায় দুজন নিহত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে সুজানগর থানার সামনের মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশ জানায়, রাতে সুজানগর থানার সামনের মোড়ে একটি চায়ের দোকানে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলেন ওই দুই ব্যক্তি। এ সময় সুজানগর বাজার থেকে নাজিরগঞ্জের দিকে যাচ্ছিল তেলবাহী ট্রাকটি। ট্রাকটি বাজারের সড়ক থেকে বাঁধের সড়কে উঠতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের চাপা দেয়।

পাবনার সুজানগর উপজেলায় তেলবাহী লরির চাপায় কামরুল ইসলাম ও আব্দুল মান্নান নামের দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে সুজানগর থানার সামনের মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- সুজানগরের পৌর এলাকার চর সুজানগরের ৩৮ বছর বয়সী কামরুল ইসলাম এবং পৌর এলাকার মসজিদ পাড়ার ৪০ বছর বয়সী আব্দুল মান্নান।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, রাতে সুজানগর থানার সামনের মোড়ে একটি চায়ের দোকানে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলেন ওই দুই ব্যক্তি। এ সময় সুজানগর বাজার থেকে নাজিরগঞ্জের দিকে যাচ্ছিল তেলবাহী ট্রাকটি। ট্রাকটি বাজারের সড়ক থেকে বাঁধের সড়কে উঠতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু। পরে ফায়ার সার্ভিসের সহায়তায় ট্রাকের তলা থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সুজানগর থানার ওসি জালালউদ্দিন বলেন, ‘তেলবাহী ট্রাকচাপায় কামরুল ও মান্নান নামের দুইজন নিহত হয়েছেন। তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ট্রাকটি জব্দ করে থানায় আনা হয়েছে। ড্রাইভার পালাতক রয়েছেন। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।’

আরও পড়ুন:
শ্রীনগরে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় নিহত ২
সাভারে সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী নিহত, আহত পুলিশ কর্মকর্তা
মেরিন ড্রাইভ সড়কে দুর্ঘটনায় পর্যটকসহ নিহত ২
বাড়ি ফেরার পথে ট্রাকের ধাক্কায় কলেজছাত্র নিহত
বাইক নিয়ে নির্বাচনি শোডাউনে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
They are transport extortionists

ওরা পরিবহন চাঁদাবাজ

ওরা পরিবহন চাঁদাবাজ র‍্যাবের পৃথক অভিযানে আটক পরিবহন চাঁদাবাজ চক্রের হোতাসহ ১৩জন। ছবি: নিউজবাংলা
রাজধানীর যাত্রাবাড়ী ও কোতোয়ালিতে অভিযান চালিয়ে ১৩ জনকে আটক করেছে র‍্যাব। তারা যাত্রাবাড়ী, কোতোয়ালি, ডেমরা ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জসহ আশপাশের এলাকায় আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরি ও অটোরিকশার চালক-হেলপারদের কাছ থেকে জবরদস্তি চাঁদা আদায় করে আসছিল।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী ও কোতোয়ালি এলাকায় বিভিন্ন পরিবহন থেকে চাঁদা আদায়ের সময় চাঁদাবাজ চক্রের হোতা ইউসুফ গাজী ও সাব্বিরসহ ১৩কে আটক হয়েছে। এসব পরিবহন চাঁদাবাজকে সোমবার আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১০।

মঙ্গলবার র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) এম. জে. সোহেল এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, গোয়েন্দা তথ্যে সোমবার সকাল সোয়া ৬টার দিকে রাজধানীর দক্ষিণ যাত্রাবাড়ী এলাকায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানে আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরি ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ বিভিন্ন পরিবহন থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায়ের সময় চক্রের হোতা ইসুফ গাজীসহ ছয় পরিবহন চাঁদাবাজকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে আদায় করা চাঁদার আট হাজার ৪১০ টাকা ও ছয়টি কাঠের লাঠি জব্দ করা হয়।

আটক অপর পাঁচজন হলেন- মোহাম্মদ ইউসুফ, পিন্টু মিয়া, ডালিম, পাভেল ও মোহাম্মদ আলী।

র‍্যাবের একই দল ওইদিন সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর বাবুবাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন পরিবহন থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায়ের সময় সাব্বির গ্রুপের দলনেতা সাব্বিরসহ সাতজনকে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে আদায় করা চাঁদার সাত হাজার ৩৫০ টাকা, ছয়টি লাঠি ও একটি প্লাস্টিকের পাইপ জব্দ করা হয়।

আটক অপর ছয়জন হলেন- নাজির হোসেন, কামাল উদ্দিন, বিল্লাল হোসেন, মো. বিল্লাল, নাজির উদ্দিন ভূঁইয়া ও রনি হোসেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আটককৃতরা বেশ কিছুদিন ধরে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, কোতোয়ালি, ডেমরা ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জসহ আশপাশের এলাকায় আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরি ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালক ও হেলপারদের ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা আদায় করে আসছিল।

আটক ১৩ জনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
নৌপথে চাঁদাবাজির অভিযোগ: সেই পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলি
‘নৌ পুলিশের যন্ত্রণাটা ডাকাত দলের সদস্যদের চেয়ে কম নয়’
ঢামেক হাসপাতালে ৬৫ দালাল আটক, ৫৮ জনকে সাজা
ডিসির কাছে বিচার দিলেন ‘চাঁদাবাজে অতিষ্ঠ’ অটোরিকশার চালক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangladesh has advanced two steps in the freedom of expression index

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সূচকে দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সূচকে দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ ছবি: সংগৃহীত
স্কোর অনুযায়ী ০-১৯ সংকটজনক, ২০-৩৯ অতি বাধাগ্রস্ত, ৪০-৫৯ বাধাগ্রস্ত, ৬০-৭৯ স্বল্প বাধাগ্রস্ত ও ৮০-১০০ মুক্ত। এবার বাংলাদেশের মতপ্রকাশ স্কোর ১২।

বৈশ্বিক মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সূচকে এবার বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮তম। ২০২২ সালে অবস্থান ছিল ১৩০তম। আর্টিকেল নাইনটিনের বৈশ্বিক মতপ্রকাশ প্রতিবেদন বা গ্লোবাল এক্সপ্রেশন রিপোর্ট ২০২৪-এ বাংলাদেশের এ অবস্থান উঠে এসেছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন আর্টিকেল নাইনটিনের আঞ্চলিক পরিচালক শেখ মনজুর-ই-আলম।

সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সংকটজনক। দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের মতো সংকটজনক অবস্থায় আছে ভারত ও আফগানিস্তান।

এবার বাংলাদেশের মতপ্রকাশ স্কোর ১২। ২০১৮-২০২৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের স্কোর আটকে আছে ১১ ও ১২-এর মধ্যে। দশ বছরে বাংলাদেশের স্কোর কমেছে ৮ পয়েন্ট, ২ যুগে কমেছে ৩২ পয়েন্ট। ২০০০ সালে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৪৪।

২০১৭ সাল থেকে প্রতিবেদনটি নিয়মিত প্রকাশ করে আসছে আর্টিকেল নাইনটিন।

সবার স্বাধীনতা, মতপ্রকাশ, যোগাযোগ এবং অংশগ্রহণসহ ২৫টি সূচকের বিপরীতে মতপ্রকাশ বা এক্সপ্রেশন স্কোর নির্ধারণ করে সংস্থাটি।

স্কোর অনুযায়ী ০-১৯ সংকটজনক, ২০-৩৯ অতি বাধাগ্রস্ত, ৪০-৫৯ বাধাগ্রস্ত, ৬০-৭৯ স্বল্প বাধাগ্রস্ত ও ৮০-১০০ মুক্ত।

আর্টিকেল নাইনটিনের রিপোর্ট অনুযায়ী, ২৪টি দেশ অতি বাধাগ্রস্ত, বাধাগ্রস্ত ২৫টি, স্বল্প বাধাগ্রস্ত ৩৫টি ও মতপ্রকাশের মুক্ত শ্রেণিতে রয়েছে ৩৮টি দেশ।

বাংলাদেশের অবস্থান প্রসঙ্গে প্রতিবেদনে বলা হয়, ২৫টি সূচকের মধ্যে সব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের স্কোর সম্পূর্ণ ঋণাত্মক। ২০০৯ সাল থেকে ৮টি সূচকেই ক্রমাগত খারাপ করে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা সরকারের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেন্সরশিপে। ধর্ম পালন ও নারী-পুরুষের আলোচনার স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ইতিবাচক। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা সমাবেশ করার স্বাধীনতা ও অ্যাকাডেমিক-সাংস্কৃতিক মতপ্রকাশের স্বাধীনতার স্কোরে।

অনুষ্ঠানে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘গণমাধ্যমে নাগরিক সমাজের জন্য ভয়ের সংস্কৃতি তৈরি হয়েছে। আইন করা হচ্ছে নিবর্তনমূলক, ব্যক্তির পরিচয়ভেদে ভালো আইনের অপপ্রয়োগ হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হোসেন, বেলার প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There is someone paid by BNP at the US State Department briefing Hasan Mahmood

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ব্রিফিংয়ে ‘পেইড বাই বিএনপি’ কেউ আছে: হাছান মাহমুদ

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ব্রিফিংয়ে ‘পেইড বাই বিএনপি’ কেউ আছে: হাছান মাহমুদ পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ মঙ্গলবার সেগুনবাগিচায় ডিআরইউ কার্যালয়ে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। ছবি: পিআইডি
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সেখানে কেউ একজন আছেন যিনি খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ে কাজ করতেন। তাকে বিএনপি বেতন দেয়। তিনি উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করেন এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার চেষ্টা করেন।’

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার জন্য বিএনপি বেতন দিয়ে কাউকে নিয়োজিত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এই মন্তব্য করেন তিনি। সূত্র: ইউএনবি

ড. হাছান বলেন, ‘সেখানে কেউ একজন আছেন যিনি খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ে কাজ করতেন। তাকে বিএনপি বেতন দেয়। তিনি উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করেন এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার চেষ্টা করেন। উনি ইচ্ছাকৃতভাবে প্রশ্ন করেন।’

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার তৎকালীন সহকারী প্রেস সচিব মুশফিকুল ফজল আনসারীর উল্লেখ করে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের সবশেষ ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ব্রিফিংয়ে আনসারীর প্রশ্ন ছিল, ‘যুক্তরাষ্ট্র কি বাংলাদেশি পণ্যের জন্য জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালের কথা বিবেচনা করছে, যেমনটা বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার বলেছেন- অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু আশ্বাস দিয়েছেন যে ওয়াশিংটন বাংলাদেশের জন্য জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালের বিষয়টি বিবেচনা করবে?’

জিএসপি সুবিধা বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মূলত বলেছেন, এই কর্মসূচি পুনরায় চালু হলে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে এটি ফেরত পেতে সহায়তা করতে চায়।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি তথ্য ও সত্যের ভিত্তিতে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছি। যুক্তরাষ্ট্রের ইচ্ছার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সার্বিক অবস্থার উন্নয়নে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র শ্রমক্ষেত্রে কাজ করছে এবং যুক্তরাষ্ট্র জিএসপি সুবিধা পুনরায় চালু করলে তারা এটি ফেরত দিতে চায়।’

আনসারী অন্য একটি মিডিয়া ব্রিফিংয়ে বলেছিলেন, ‘ডোনাল্ড লুর সঙ্গে বৈঠকের পর বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সাংবাদিকদের বলেন, মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য র‌্যাবের ওপর আরোপিত যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে হোয়াইট হাউস খুবই আগ্রহী। তাই তিনি বলেছেন যে স্টেট ডিপার্টমেন্ট এবং হোয়াইট হাউস নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে কাজ করছে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ডিআরইউ সভাপতি সৈয়দ শুকুর আলী শুভ ও সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন।

আরও পড়ুন:
আজিজ আহমেদের নিষেধাজ্ঞা ভিসা নী‌তির অধীনে নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
মন্ত্রিসভায় এপোস্টল কনভেনশন স্বাক্ষরের অনুমোদন, বছরে সাশ্রয় হবে ৫০০ কোটি টাকা
রোহিঙ্গা সংকট আরও গভীর হতে পারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
দেশকে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
11 people including Jamaat leader ATM Azhar were sentenced to prison

জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড

জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড ছবি: সংগৃহীত
এ টি এম আজহারুল ইসলামের আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দণ্ডবিধির পৃথক দুই ধারায় এ কারাদণ্ডের আদেশ দেয় আদালত। এক ধারায় দেড় বছর ও আরেক ধারায় ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

রাজধানীর মতিঝিল থানার নাশকতা মামলায় জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারুল ইসলামসহ ১১ জনকে দু’বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে উভয় ধারায় এক হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। মামলায় বেকসুর খালাস পেয়েছেন সাতজন।

ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী মঙ্গলবার এই রায় ঘোষণা করেন।

২০১০ সালের নভেম্বরে নাশকতার অভিযোগে মতিঝিল থানায় মামলাটি করা হয়।

সাজাপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন- মোবারক হোসেন, হাসান আল মামুন, আবু তাহের মেজবাহ, মো. জাহাঙ্গীর, মো. ইব্রাহিম, সাইফুল ইসলাম, মো. জরিপ, আবুল কাশেম, আশরাফুজ্জামান ও মো. রেদুয়ান।

এ টি এম আজহারুল ইসলামের আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দণ্ডবিধির পৃথক দুই ধারায় এ কারাদণ্ডের আদেশ দেয় আদালত। এক ধারায় দেড় বছর ও আরেক ধারায় ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, রায় ঘোষণার সময় যুদ্ধাপরাধ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারুলকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। রায় শেষে তাকে সাজা পরোয়ানাসহ কারাগারে ফেরত পাঠানো হয়। আর সাজাপ্রাপ্ত অন্য ১০ আসামি পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
জামায়াতের আমির ১৪ মাস পর কারামুক্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Minister agreed to run battery operated rickshaws thinking of livelihood Nanak

জীবিকার কথা ভেবেই ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: নানক

জীবিকার কথা ভেবেই ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: নানক মঙ্গলবার রাজধানীর তালতলায় অবস্থিত লায়ন্স অগ্রগতি স্কুলে বিশেষ শিশু, বৃদ্ধ ও পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগীদের হুইল চেয়ারর বিতরণ অনুষ্ঠানে দেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক। ছবি: নিউজবাংলা
নানক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেমন করে গরীব-দুঃখী মানুষের জন্য কাজ করেন, আমরাও ঠিক তেমনভাবে মানুষের জন্য কাজ করতে চাই।’

মেহনতি মানুষের জীবন-জীবিকার কথা চিন্তা করেই গণমানুষের নেত্রী শেখ হাসিনা ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলের নির্দেশ দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরিব-দুঃখী মানুষের আস্থার ঠিকানা বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার রাজধানীর তালতলায় অবস্থিত লায়ন্স অগ্রগতি স্কুলে বিশেষ শিশু, বৃদ্ধ ও পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগীদের হুইল চেয়ারর বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সামাজিক সংগঠন ‘সোসাইটি ফর এইড প্রোগ্রাম’ (এসএপি)।

এ সময় রোগীদের মাঝে হুইল চেয়ার ও গরিব-দুঃখীদের মাঝে রিকশা বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে নানক বলেন, ‘সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটি বার্তা আসে- ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধ করা হয়েছে, তাই শ্রমিকরা বিক্ষোভ শুরু করেছেন। প্রধানমন্ত্রী কথাটা শুনে অবাক হয়ে গেলেন! তিনি জানতে চান- এর কারণ কী? প্রধানমন্ত্রী তখনিই পরিষ্কার করে বললেন- ওরা যা দিয়ে উপার্জন করে জীবন-জীবিকা চালায়, সেই পথ কেন বন্ধ করা হয়েছে? সঙ্গে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন অটোরিকশা চালু করার জন্য এবং চালু হয়ে গেল।’

ঢাকা ১৩ আসনের জনগণের উদ্দেশে স্থানীয় সংসদ সদস্য নানক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেমন করে গরীব-দুঃখী মানুষের জন্য কাজ করেন, আমরাও ঠিক তেমনভাবে মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। যেকোনো প্রয়োজন আপনারা আমাদের কাছে জানাবেন, আমরা আপনাদের পাশে থাকব, চেষ্টা করে যাব।’

অনুষ্ঠানে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ঢাকা শহরে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলার অনুমতি প্রধানমন্ত্রীর: কাদের
কালশীতে পুলিশ বক্সে অটোরিকশা চালকদের আগুন
মিরপুরে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকদের সড়ক অবরোধ

মন্তব্য

p
উপরে