× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
No matter how influential the candidate is he must obey the law
google_news print-icon
উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে ইসি হাবিব

প্রার্থী যত প্রভাবশালীই হোক, শতভাগ আইন-কানুন মানতে হবে

প্রার্থী-যত-প্রভাবশালীই-হোক-শতভাগ-আইন-কানুন-মানতে-হবে
বুধবার খুলনা জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে খুলনাসহ পাঁচ জেলার নির্বাচন-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান। ছবি: নিউজবাংলা
ইসি হাবিব বলেছেন, ‘নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেবে কমিশন। সকল প্রার্থীর জন্য সমান সুযোগ তৈরি করতে কমিশন সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে।’

উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী যত প্রভাবশালীই হোক না কেন, তাকে নির্বাচনি আইন-কানুন শতভাগ মেনে চলতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান। তিনি বলেছেন, ‘নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেবে কমিশন। সকল প্রার্থীর জন্য সমান সুযোগ তৈরি করতে কমিশন সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে।’

বুধবার দুপুরে খুলনা জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে খুলনাসহ পাঁচ জেলার নির্বাচন-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন কমিশনার আহসান হাবিব।

এই নির্বাচনের বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি হতে পারে, আবার একই মতাদর্শের একাধিক প্রার্থী হতে পারে। সুতরাং তাদের মধ্যে কিছুটা রাগ-বিরাগ ও সহিংসতা সৃষ্টি হতে পারে। সেটাকেও কীভাবে আমরা রক্ষা করতে পারি, বিশ্লেষণ করেছি এবং আমরা নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি- সুন্দর ব্যবহার ও বিনয়ের সঙ্গে সবাইকে আমরা একইভাবে পরিচালিত করব।’

অনলাইনে মনোনয়ন দাখিলের সুবিধা তুলে ধরে এ নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এবারই প্রথম সব প্রার্থীর জন্য অনলাইনে মনোনয়নপত্র দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এতে কেউ কাউকে প্রার্থী হতে বাধা দিতে পারবেন না এবং জোরপূর্বক প্রার্থিতা প্রত্যাহার করানোর সম্ভাবনাও কমে যাবে।

‘অনলাইন ব্যতীত কোনোভাবেই মনোনয়নপত্র দাখিল করা যাবে না। এ কারণে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার কারিগরি ও পদ্ধতিগত সুবিধার্থে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনের অপেক্ষা না করে আগেই অনলাইনে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারবেন সংশ্লিষ্ট প্রার্থীরা।’

এর আগে খুলনা জেলা শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. হেলাল মাহমুদ শরীফের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি মো. মঈনুল হক, মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলাম এবং খুলনা, যশোর, নড়াইল, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা-উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

খুলনা বিভাগীয় প্রশাসন এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

উল্লেখ্য, এ বছর চারটি ধাপে দেশের উপজেলা পরিষদসমূহের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রথম ধাপের নির্বাচন আগামী ৮ মে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া দ্বিতীয় ধাপে ২৩ মে, তৃতীয় ধাপে ২৯ মে ও এবং চতুর্থ ধাপে ৫ জুন নির্বাচন হবে।

আরও পড়ুন:
উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীরা প্রভাব খাটালে তাদেরই মান ক্ষুণ্ণ হবে: ইসি হাবিব

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Rickshaw driver arrested while casting fake vote in Kurigram

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে গিয়ে রিকশাচালক আটক

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে গিয়ে রিকশাচালক আটক আটক আবুল কালাম। ছবি: নিউজবাংলা
প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আবুল কালাম একবার এসে ভোট দিয়ে গেছেন। পরে আরও একবার ভোট দিতে আসলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে আটক করে। পরে তাকে ১৫ দিনের জেল দেয়া হয়েছে।’

কুড়িগ্রামে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে জাল ভোট দিতে যাওয়া এক রিকশা চালককে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের থেতরাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আটক করা হয়।

আটক আবুল কালাম (৩৫) ওই ইউনিয়নের কুমার পাড়া এলাকার বাসিন্দা।

থেতরাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের দায়িত্বরত প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আবুল কালাম একবার এসে ভোট দিয়ে গেছেন। পরে আরও একবার ভোট দিতে আসলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে আটক করে। পরে তাকে ১৫ দিনের জেল দেয়া হয়েছে।’

এ ছাড়াও ওই উপজেলার দলদলিয়া ইউনিয়নের দলদলিয়া আদর্শ হাইস্কুল কেন্দ্রে দলদলিয়া গ্রামের ফেরদৌস হাসান (১৮) নামে একজনকে আটক করার কথা নিশ্চিত করেন প্রিজাইডিং অফিসার শামসুল আলম।

তিনি বলেন, ‘যুবককে আটকিয়ে রাখা হয়েছে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এদিকে বজরা ইউনিয়নের খামার বজরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তাসরিফ আলম আমিন নামে একজন জাল ভোট দিতে গিয়ে আটক হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান প্রিজাইডিং অফিসার সালগিরা।

আরও পড়ুন:
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার
‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
বেনাপোল দিয়ে ভারতে যাওয়ার সময় মিয়ানমারের একজনসহ আটক ৪
৬১৫ কেন্দ্রে ব্যালট যাবে আগের দিন, বাকিগুলোতে ভোটের সকালে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
17 percent turnout in four hours EC

চার ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ১৭ শতাংশ: ইসি

চার ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ১৭ শতাংশ: ইসি

জামালপুরের একটি উপজেলায় ভোট চলছে। ছবি: নিউজবাংলা
মঙ্গলবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. জাহাংগীর আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

ষষ্ঠ উপজেলার পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটে আধাবেলায় ভোট পড়েছে ১৭ শতাংশ।

মঙ্গলবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. জাহাংগীর আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বেলা ১২টা পর্যন্ত ১৫৬ উপজেলায় ভোট পড়েছে গড়ে ১৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ। বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে ১৮টি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে।

ইসি সচিব বলেন, সাধারণত আমাদের দেশে দুপুরের পর ভোটার উপস্থিতি বাড়ে। আশা করি প্রথম ধাপের চেয়ে ভোটের হার বাড়বে।

এই ধাপে ২৪টি উপজেলায় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। বাকিগুলোতে সরাসরি ব্যালটে ভোট নেয়া হচ্ছে।

এ নির্বাচনে প্রতিনিধি বাছাইয়ে মত দেবেন তিন কোটি ৫২ লাখের বেশি ভোটার। ভোট উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

দ্বিতীয় ধাপে ১৫৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও রোববার রাতে আদালতের নির্দেশে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ফলে এই ধাপে ১৫৬ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
7 8 percent vote in two hours EC

দুই ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ৭-৮ শতাংশ: ইসি

দুই ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ৭-৮ শতাংশ: ইসি ভোট চলছে জামালপুরের একটি উপজেলায়। ছবি: নিউজবাংলা
অতিরিক্ত সচিব বলেন, এই ধাপের ১৫৬ উপজেলায় সকাল ৮টায় সুষ্ঠুভাবে ভোট শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার ঘটনা ঘটেনি। তবে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় এক আনসার সদস্য শারীরিক অসুস্থতায় হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন।

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোট চলছে ১৫৬টি উপজেলায়।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে ভোটের কার্যক্রম শুরু হয়েছে, যা নিরবচ্ছিন্নভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোট শুরুর প্রথম দুই ঘণ্টায় অর্থ্যাৎ সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত অঞ্চলভিত্তিক ৭-৮ শতাংশ ভোট পড়েছে।

সকাল ১১টার দিকে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, এই ধাপের ১৫৬ উপজেলায় সকাল ৮টায় সুষ্ঠুভাবে ভোট শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার ঘটনা ঘটেনি। তবে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় এক আনসার সদস্য শারীরিক অসুস্থতায় হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন।

অশোক কুমার আরও বলেন, ভোট শুরু হয়েছে মাত্র দুই ঘণ্টা হয়েছে। বিভিন্ন জেলার প্রাপ্ত তথ্যে একেক অঞ্চলে বিভিন্ন হারে ভোট পড়ছে। কোথাও বেশি কোথাও কম। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে এই হার আরও বাড়বে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Voting is going on in 156 upazilas

ভোট চলছে ১৫৬ উপজেলায়

ভোট চলছে ১৫৬ উপজেলায় ভোট চলছে মুন্সীগঞ্জের একটি উপজেলায়। ছবি: নিউজবাংলা
২৪টি উপজেলায় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। বাকিগুলোতে সরাসরি ব্যালটে ভোট নেয়া হচ্ছে। 

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে ১৫৬ উপজেলায় ভোট হচ্ছে মঙ্গলবার।

সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

২৪টি উপজেলায় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। বাকিগুলোতে সরাসরি ব্যালটে ভোট নেয়া হচ্ছে।

এই নির্বাচনে প্রতিনিধি বাছাইয়ে মত দেবেন তিন কোটি ৫২ লাখের বেশি ভোটার। ভোট উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

দ্বিতীয় ধাপে ১৫৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও রোববার রাতে আদালতের নির্দেশে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ফলে এই ধাপে ১৫৬ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

দুর্গম ও উপকূলীয় অঞ্চল বিবেচনায় ৩০টি উপজেলার ৬৮৫ কেন্দ্রে সোমবারই ব্যালট পাঠানো হয়েছে। বাকি ১২ হাজার ৩৩১টি কেন্দ্রে ব্যালট পৌঁছেছে মঙ্গলবার সকালে। মোট ১৩ হাজার ১৬টি কেন্দ্রে ভোট কক্ষ ৯১ হাজার ৫৮৯টি।

সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে মাঠে নেমেছে পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য। সমতলে সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ১৭ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে মোতায়েন থাকছে ১৯ জনের ফোর্স। দুর্গম ও পার্বত্য এলাকায় এই সংখ্যা আরও বেশি।

এ ছাড়া নির্বাচনি আচরণবিধি নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রতি ইউনিয়নে থাকবেন একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

ইসি সূত্র জানায়, সোমবার থেকেই সংশ্লিষ্ট প্রতিটি উপজেলায় একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। ভোটের আগে-পরে মোট পাঁচদিনের জন্য তারা দায়িত্ব পালন করছেন।

এ ছাড়া মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্সের সঙ্গে বিশেষ করে বিজিবির প্রতিটি মোবাইল টিমের সঙ্গে একজন করে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকছেন।

নির্বাচন কমিশন ২ এপ্রিল দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। তফসিল অনুযায়ী ৩০ এপ্রিল প্রার্থিতা প্রত্যাহারের নির্ধারিত সময় শেষে চূড়ান্ত হয় এক হাজার ৮২৪ জন প্রার্থী। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৬০৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬৯৩ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫২৮ জন। ২ মে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই নির্বাচনের প্রচার শুরু করেন প্রার্থীরা।

তবে এরই মধ্যে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ২২ জন প্রার্থী। তাদের মধ্যে সাতজন চেয়ারম্যান, আট জন ভাইস চেয়ারম্যান ও সাতজন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন।

এই ধাপের ভোটে প্রচার-প্রচারণার সময় আচরণবিধি লঙ্ঘনের প্রায় ছয়শ’ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে ইসি। প্রচারণায় নেমে সংঘাত, হুমকি এবং প্রার্থীর পক্ষে জনপ্রতিনিধিদের প্রভাব বিস্তারের অভিযোগও রয়েছে। ইতোমধ্যে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিয়েছে ইসি।

তবে বিএনপি ও সমমনা রাজনৈতিক দলগুলো উপজেলা নির্বাচন বর্জনের পর ভোটের লড়াই চলছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যেই। ইতোমধ্যে ভোটের প্রচারণায় নেমে ১০টির বেশি উপজেলায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন উপজেলায় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় নামায় চারজন সংসদ সদস্যসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিদের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে।

নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ সম্প্রতি গণমাধ্যমকে জানান, সুষ্ঠু ভোট আয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পর্যাপ্তসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। আচরণবিধি প্রতিপালনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে ১৫৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রসঙ্গত, ইসি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী দ্বিতীয় ধাপে ১৫৬ উপজেলায় ২১ মে, তৃতীয় ধাপে ১১২ উপজেলায় ২৯ মে ও চতুর্থ ধাপে ৫৫ উপজেলায় ৫ জুন ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আর প্রথম ধাপে ১৩৯টি উপজেলায় নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে ৮ মে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Teacher accuses former UP chairman of rape

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার শিক্ষিকার সংবাদ সম্মেলন। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, ‘আমি বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগ সত্য নয়; মিথ্যা ও বানোয়াট।’

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার ৮ নম্বর বোগলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আরিফুল ইসলাম জুয়েলের বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

সোমবার দুপুরে সুনামগঞ্জ শহরের পৌরবিপনী মার্কেটের দোতলার একটি কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ আনেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ওই শিক্ষিকা জানান, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ ইদুকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনি নিয়োগ পান। বিদ্যালয়ে কর্মরত থাকাকালে তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েলের সঙ্গে বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তার পরিচয় হয়।

এক পর্যায়ে জুয়েল তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। শুরতে সাবেক ওই চেয়ারম্যানের স্ত্রী সন্তান থাকায় তার প্রস্তাব গ্রহণ করেননি ভুক্তভোগী দাবি করা শিক্ষিকা।

পরবর্তীতে ২০২০ সালের দিকে ধীরে ধীরে দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরবর্তীতে ফের বিয়ের করার জন্য চাপ দিলে এক পর্যায়ে কক্সবাজারে গিয়ে বিয়ে হবে বলে ২০২১ সালের ১৮ মার্চ শিক্ষিকাকে বিমানে করে সেখানে নিয়ে যান চেয়ারম্যান। সেখানকার একটি হোটেলে তিনদিন তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপর ওই শিক্ষিকা বিয়ের জন্য চাপ দিলেও টালবাহানা শুরু করেন অভিযুক্ত চেয়ার‌ম্যান। শুধু তাই নয়, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ, এমনকি হুমকি-ধমকিও দেয়া হয় বলে অভিযোগ সংবাদ সম্মেলনকারীর।

ওই নারীর অভিযোগ, বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে ও ফ্ল্যাট কেনার কথা বলে তার কাছ থেকে পর্যায়ক্রমে ২০ লাখ টাকাও নিয়েছেন অভিযুক্ত।

তিনি বলেন, ‘আমি নিরুপায় হয়ে সংবাদ সম্মেলন করছি। আমি আরিফুল ইসলাম জুয়েলের স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি চাই। যদি সে আমাকে স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি না দেয়, আমাকে মুসলিম শরিয়া মোতাবেক বিয়ে না করে, তাহলে আমি তার উপযুক্ত বিচার দাবি করছি।’

এ বিষয়ে সোমবার সকালে জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন ওই সহকারী শিক্ষক।

অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম জুয়েলের সঙ্গে এ ব্যপারে কথা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগ সত্য নয়; মিথ্যা ও বানোয়াট।’

আরও পড়ুন:
‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
১৫৬ উপজেলায় ভোট কাল
বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The former UP chairman played a beating while distributing the vote money

‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান

‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আহত ছালেক মিয়া। ছবি: নিউজবাংলা
চা শ্রমিক ফটিক কুর্মি বলেন, ‌‘শুনেছি চেয়ারম্যান ছালেক বাগানে টাকা বিতরণ করে ভোট কিনছিলেন। শ্রমিকরা তাকে পিটিয়ে আমার বাড়ির দিকে ধাওয়া করলে তিনি আমার বাড়িতে আহত হয়ে আশ্রয় নেন।’

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর পক্ষে টাকা বিলি করতে গিয়ে গণপিটুনি খেয়েছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নেতা ছালেক মিয়া।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের করিমপুর চা বাগানের হাইতলা এলাকায় টাকা বিলির সময় এ ঘটনা ঘটে।

আহত ছালেক মিয়া মুন্সিবাজার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবং তিনি মোটরসাইকেল প্রতীকের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী র‌ওনক আহমদ অপুর সমর্থক।

স্থানীয়রা জানান, আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে র‌ওনক আহমদ অপুর সমর্থনে কাজ করছেন ছালেক মিয়া। নির্বাচনি প্রচারের শেষ দিন ছালেক মিয়া ও তার ভাই বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবলু আহমদকে নিয়ে প্রাইভেট কারে চা বাগান এলাকায় যান। এরপর মোটরসাইকেল প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে টাকা বিলি করা হচ্ছে- এমন দৃশ্য দেখে চা শ্রমিকরা বাধা দেন। এ সময় কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে উত্তেজিত শ্রমিকরা গণপিটুনি দেয়। পরে তিনি পালিয়ে ফটিক কুর্মি নামের এক চা শ্রমিকের বাড়িতে আশ্রয় নেন। এ সময় প্রায় ২ ঘণ্টা পর তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন চা শ্রমিকরা। খবর পেয়ে রাজনগর থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ফটিক কুর্মি বলেন, ‌‘শুনেছি চেয়ারম্যান ছালেক বাগানে টাকা বিতরণ করে ভোট কিনছিলেন। শ্রমিকরা তাকে পিটিয়ে আমার বাড়ির দিকে ধাওয়া করলে তিনি আমার বাড়িতে আহত হয়ে আশ্রয় নেন।’

চা শ্রমিক নিয়তি রিকমন বলেন, ‘ছালেক মিয়া আমাদের ৫০০ টাকা দিয়ে মোটরসাইকেলে ভোট দিতে বলেন। এতে আমরা রাজি হ‌ইনি, তাই মানুষে তাকে মেরেছে।’

রাজনগর ওসি (তদন্ত) মির্জা মাজহারুল আনোয়ার বলেন, ‘খবর পেয়ে ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। আহত চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে আহত ছালেক মিয়াকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন:
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
১৫৬ উপজেলায় ভোট কাল
বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A League leaders intimate moment video goes viral human chain demands punishment

আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
এ বিষয়ে জানতে চেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শামসুল আলম শাহ্ চৌধুরীকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ‘ওটা কয়েকদিন ধরেই চলছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলানোর জন্য এটা করা হচ্ছে।’

নওগাঁর সাপাহারে এক নারীর সঙ্গে শামসুল আলম শাহ্ চৌধুরী নামে এক আওয়ামী লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে রোববার রাতে ‘Shohana Chowdhury’ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে দুটি অন্তরঙ্গের মুহূর্তের ভিডিও পোস্ট করা হয়। এরপর বিষয়টি টক অফ দ্য টাউনে পরিণত হয়।

দুই মিনিটের একটি ভিডিওতে দেখা যায়, চশমা পরিহিত এক ব্যক্তি মোবাইলে চোখ রেখে কিছু খাচ্ছেন। এরপর মোবাইলে কথা বলেন তিনি। এ সময় তার পাশে এক নারী বসে আছেন।

এক মিনিট ২৭ সেকেন্ডের আরেকটি ভিডিওতে তাদের দুজনকে অন্তরঙ্গ হতে দেখা যায়।

ভিডিও ভাইরাল হওয়ার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাসসুল আলম শাহ্ চৌধুরীর বিচারের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার দুপুরে উপজেলা সদরের কলেজ গেট মুহুরি পট্টিতে সাপাহারবাসীর আয়োজনে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

জানতে চাইলে সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান এবং আনারস প্রতীকে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শাহজাহান হোসেন মন্ডল বলেন, ‘শামসুল আলমের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে- এটা জনগণ তাদের দৃষ্টিতে দেখবে। আমি কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।’

তিনি বলেন, ‘সামনে নির্বাচনের সে প্রার্থী। তাই জনগণই বক্তব্য দেবে। তবে এটা একটা ন্যক্কারজনক কাজ।’

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শামসুল আলম শাহ্ চৌধুরীকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ‘ওটা কয়েকদিন ধরেই চলছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলানোর জন্য এটা করা হচ্ছে।’

মানববন্ধন ও নির্বাচনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যারা প্রতিপক্ষ তারা এসব করছে।’

সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রেজা সারোয়ার বলেন, ‘আমি ঘটনাটি শুনেছি। যেহেতু আগামীকাল ভোট। এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। ভোট শেষ হলে দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন শেষে যদি আমাদের কাছে কোনো তথ্যপ্রমাণ আসে, তাহলে জেলা কমিটি একটা ব্যবস্থা করবে। শোকজও করতে পারে।’

আরও পড়ুন:
১৫৬ উপজেলায় ভোট কাল
বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির
ভোটের হার কম হলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই: ইসি আলমগীর

মন্তব্য

p
উপরে