× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
BNP leader Habibs sentence is upheld on appeal
google_news print-icon

বিএনপি নেতা হাবিবের সাজা আপিলেও বহাল

বিএনপি-নেতা-হাবিবের-সাজা-আপিলেও-বহাল-
ফাইল ছবি
আদালত অবমাননার দায়ে হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা করে গত ২২ নভেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট। ওই রায়ের বিরুদ্ধে কারাবন্দি হাবিব গত ৮ ফেব্রুয়ারি লিভ টু আপিলসহ জামিন আবেদন করেন।

আদালত অবমাননার দায়ে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও ২ হাজার টাকা জরিমানা করে হাইকোর্ট বিভাগের দেয়া রায় বহাল রেখেছে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ।

হাবিবের লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) ও জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ রোববার এ আদেশ দেয়। খবর বাসসের

আদালত অবমাননার দায়ে হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা করে গত ২২ নভেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট। ওই রায়ের বিরুদ্ধে কারাবন্দি হাবিব গত ৮ ফেব্রুয়ারি লিভ টু আপিলসহ জামিন আবেদন করেন।

আদালতে হাবিবের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ।

অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ সাংবাদিকদের বলেন, হাবিবুর রহমান হাবিবের লিভ টু আপিল খারিজ করে দিয়েছে আপিল বিভাগ। এতে হাইকোর্ট বিভাগের দেয়া রায় বহাল রইল। এতে তাকে কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে এবং জরিমানার অর্থও পরিশোধ করতে হবে।

হাইকোর্ট বিভাগকে কটূক্তি ও আদালত অবমাননার মামলায় রাজধানীর পল্লবী থানার মিরপুর ডিওএইচএস এলাকা থেকে গত ২১ নভেম্বর হাবিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামানকে নিয়ে ‘অবমাননাকর বক্তব্যের’ প্রেক্ষাপটে গত বছরের ১৫ অক্টোবর হাবিবের প্রতি স্বতঃপ্রণোদিত আদালত অবমাননার রুল দেয় হাইকোর্ট বিভাগ। ব্যাখ্যা জানাতে তাকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়। নির্ধারিত তারিখে তিনি হাজির হননি।

গত ৮ নভেম্বর হাইকোর্ট বিভাগ হাবিবুরকে খুঁজে বের করে অবিলম্বে আদালতে হাজির করতে নির্দেশ দেয়। ২২ নভেম্বর তাকে আদালতে হাজির করে শেরে বাংলা নগর থানা পুলিশ।

আরও পড়ুন:
আইনের শাসন না থাকলে বিপর্যয় ঘটতেই থাকে: ফখরুল
গাজায় গণহত্যার পক্ষ নিয়েছে বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
নাশকতা মামলায় বিএনপির সাবেক এমপিসহ ২ নেতা কারাগারে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Unraveling the mystery of the sensational Suvarna murder case Detention 2

চাঞ্চল্যকর সুবর্ণা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, আটক ২

চাঞ্চল্যকর সুবর্ণা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, আটক ২ আটককৃত সাব্বির ও শাকিবের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই সুবর্ণা হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচিত হয়। ছবি: নিউজবাংলা
আটজন যুবক ও কিশোর মিলে পালাক্রমে ধর্ষণের পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে সুবর্ণাকে হত্যা করে বলে তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।

সাত বছর আগে সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে ঘটে যাওয়া চাঞ্চল্যকর সুবর্ণা নামের ৮ বছর বয়সী এক শিশু হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

আটজন যুবক ও কিশোর মিলে পালাক্রমে ধর্ষণের পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে সুবর্ণাকে হত্যা করে বলে তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।

ইতোমধ্যে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুই জনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- চৌহালী উপজেলার দত্তকান্দি গ্রামের ২০ বছর বয়সী মো. সাব্বির হোসেন এবং একই গ্রামের ২১ বছর বয়সী মো. শাকিব খান।

সাব্বির ও সাকিব দুজনেই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রোমহর্ষক এ ঘটনার বিবরণ দেন পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘২০১৭ সালের ২৭ মার্চ সকালে চৌহালী উপজেলার মধ্য শিমুলিয়ার চর থেকে সুবর্ণার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় সুবর্ণার বাবা মো. শুকুর আলী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে চূড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করলে বাদী আদালতে নারাজি আবেদন দেন। এরপর মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

‘২০২০ সালের ৪ ডিসেম্বর পিবিআই এসআই আশিকুর রহমানকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। তদন্তকালে তথ্যপ্রযুক্তি ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৯ এপ্রিল ভিকটিমের ফুফাতো ভাই মো. সাব্বির হোসেনকে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্যে ওই দিনই দত্তকান্দি শোলে বাজার থেকে শাকিব খানকে আটক করা হয়।’

এর আগে এ ঘটনার নায়ক মিলন পাশাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও তার কাছ থেকে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি বলে জানান এ কর্মকর্তা।

তিনি আরও বলেন, ‘তবে গ্রেপ্তার সাব্বির ও শাকিব খানকে জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার মূল রহস্য বেরিয়ে আসে।

‘জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে তারা দুজনসহ আরও ছয়জন দত্তকান্দি হাইস্কুল মাঠে যায়। সেখানে সুবর্ণাকে তার ফুফাতো ভাই সাব্বিরের সঙ্গে খেলতে দেখে। তখনই তারা সুবর্ণাকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে।

‘পরিকল্পনা অনুযায়ী মিলন পাশা ও সাকিবসহ বাকি আসামিরা সাব্বিরকে বলে তার মামাতো বোন সুবর্ণাকে মধ্যশিমুলিয়ার চরে নিয়ে যেতে। সন্ধ্যার পর সাব্বির ও শাকিব মিলে সুবর্ণাকে কৌশলে মধ্যশিমুলিয়ার চরে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকেই বাকি আসামিরা অবস্থান করছিল। এরপর সুবর্ণার হাত-পা চেপে ধরে আটজন মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে সুবর্ণা নিস্তেজ হয়ে যায়। তখন সে কাঁদতে কাঁদতে ঘটনাটি সবাইকে বলে দেয়ার কথা বলে। এ অবস্থায় আসামিরা নিজেদের বিপদের কথা চিন্তা করে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মোতাবেক সুবর্ণার গলায় তারই ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করে। এরপর শরীরে মাটি ছিটিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।’

পিবিআইয়ের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘ওদিকে পরিবারের লোকজন চিন্তা করে, সুবর্ণা ওই স্কুলের পাশে তার ফুফুর বাড়িতেই আছে। এ জন্য শুরুতে তারা খোঁজাখুঁজিও করে নাই। পরদিন তার মরদেহ পাওয়া যায়।

‘পিবিআই তদন্তকালে সুরুতহাল রিপোর্ট ও ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখে সুবর্ণাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়াও তার গোপনাঙ্গে রক্ত দেখে তা আলামত হিসেবে সংগ্রহ করা হয়। আলামতের ডিএনএ পরীক্ষায় তার পরণের পোশাকে সিমেনের (বীর্য) নমুনা পাওয়া যায়। এতেই নিশ্চিত হওয়া যায় যে, সুবর্ণাকে হত্যার আগে ধর্ষণ করা হয়েছে।’

এ ঘটনায় বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chhatra League leader Rocky murder accused killed by bus

ছাত্রলীগ নেতা রকি হত্যা মামলার আসামি বাসচাপায় নিহত

ছাত্রলীগ নেতা রকি হত্যা মামলার আসামি বাসচাপায় নিহত ফাইল ছবি
দুর্ঘটনায় নিহত সোহাগের জ্যাঠাতো ভাই আল আমিন বলেন, ‘দুর্ঘটনার সঙ্গে ওই ঘটনার কোনো যোগসাজস আছে কি না, সেটা জানতে হবে। ঘটনার পর আমরা সবাই মরদেহ নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। তাই এজাহারে ওইসব বিষয় তুলে ধরা হয়নি।’

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান রকি হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি ওমর ফারুক সোহাগ বাস চাপায় নিহত হয়েছেন।

রোববার সন্ধ্যায় গাইবান্ধা সদর উপজেলার বল্লমঝাড় ইউনিয়নের ঝিনাশ্বর এলাকার নতুন জেলখানার সামনে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন তিনি।

ঘটনার পর সোমবার সকালে গাইবান্ধা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন নিহত সোহাগের স্ত্রী ইফাত আরা মুন। মামলায় একমাত্র আসামি করা হয়েছে ঘাতক বাসের চালক সাদ্দামকে।

৪০ বছর বয়সী ওমর ফারুক সোহাগ গাইবান্ধা পৌর এলাকার সরদারপাড়ার বাসীন্দা। তিনি ফুলছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান রকি হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত তিন নম্বর আসামি ছিলেন।

মামলা ও দুর্ঘটনার বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন গাইবান্ধা সদর থানার ওসি মাসুদ রানা।

তিনি বলেন, ‘রোববার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেলযোগে পলাশবাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন সোহাগ। এ সময় তিনি নতুন জেলখানা মোড় এলাকায় পৌঁছালে গাইবান্ধা থেকে একইদিকে যাওয়া শাওন অ্যান্ড সৈকত পরিবহনের একটি বাস তাকে পেছন থেকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত তিনি। ঘটনার পর স্থানীয়দের খবরে মরদেহ উদ্ধার করে জেনারেল হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী দুর্ঘটনাকারী বাসটির চালককে একমাত্র আসামি করে একটি মামলা করেছেন। পুলিশ বিষয়টির তদন্ত করছে।’

ঘটনার বিষয়ে জানতে মামলার বাদীর এজাহারে দেয়া ফোন নম্বরে কল করা হলে তা রিসিভ করেন সোহাগের জ্যাঠাতো ভাই আল আমিন।

তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘সোহাগ ছাত্রলীগ নেতা রকি হত্যা মামলার আসামি ছিল। ওই মামলায় সে প্রায় এক বছর জেল খেটে জামিনে ছিল।’

তিনি বলেন, দুর্ঘটনার সঙ্গে ওই ঘটনার কোনো যোগসাজস আছে কি না, সেটা জানতে হবে। ঘটনার পর আমরা সবাই মরদেহ নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। তাই এজাহারে ওইসব বিষয় তুলে ধরা হয়নি।’

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ১১ জুলাই রাত ১০টার দিকে গাইবান্ধা-বালাসী সড়কের শহরের পূর্বপাড়ায় অবস্থিত হালিম বিড়ি ফ্যাক্টরির সামনে দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হন রকি। পরে স্থানীয়রা তাকে গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক রকিকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় পূর্ব শত্রুতার জেরে ও হত্যকাণ্ডে সরাসরি জড়িত থাকার অভিযোগে নিহত ওমর ফারুক সোহাগের অপর এক আপন ভাইসহ চারজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৭-৮ জনকে আসামি করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন রকির বড় ভাই আতিকুর রহমান।

ওই মামলায় একই বছরের ১৭ অক্টোবর ওমর ফারুক সোহাগসহ তাদের দুই সহোদরকে শহরের ব্রিজ রোড এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে সদর থানা পুলিশ। পরে তারা জামিনে বের হন।

হত্যার শিকার ছাত্রলীগ নেতা রকির বাড়ি ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের মধ্য কঞ্চিপাড়া গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মৃত সাইদার রহমান ছেলে। ২০১৫ সাল থেকে ওই সময় পর্যন্ত রকি ফুলছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

আরও পড়ুন:
ছাত্রদল নেতা হত্যায় কুমিল্লায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন
মাথায় গুলি করে ইউএনও’র দেহরক্ষীর ‘আত্মহত্যা’
বাসের ধাক্কায় দুই চুয়েট শিক্ষার্থী নিহত, আহত ১

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Youth dies of heatstroke in Chittagong

চট্টগ্রামে হিটস্ট্রোকে যুবকের মৃত্যু

চট্টগ্রামে হিটস্ট্রোকে যুবকের মৃত্যু
বাস কাউন্টারের বাবুল আহমদ বলেন, ‘ছেলেটি টেম্পুতে মনে হয় সিটি গেটের দিকে কোথাও যাচ্ছিল। আমার কাউন্টারের সামনে এসে ছেলেটা নাকি গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ে। ওরা কাউন্টারের সামনে গাড়ি ব্রেক করে নামিয়ে তাকে শুইয়ে দেয়। সেখানে পরক্ষণেই সে মারা যায়।’

চট্টগ্রামে হিটস্ট্রোকে এক যুবক মারা গেছেন। তার নাম শুকুর আলী। পুলিশ বলছে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে মৃত্যুর কারণ।

সোমবার নগরীতে চলাচল করা একটি টেম্পু কর্নেল হাট শ্যামলী বাস কাউন্টারের সামনে পৌঁছলে টেম্পুটি থামিয়ে সেখান থেকে নিস্তেজ অবস্থায় এক যাত্রীকে ধরাধরি করে নামিয়ে আনেন অন্য যাত্রীরা। পরে খবর দেয়া হয় পাহাড়তলী থানা পুলিশকে।

শুকুর আলী লক্ষ্মীপুর জেলার দালাল বাজারের হাজীবাড়ির মৃত মানিক মিস্ত্রির ছেলে। তিনি সীতাকুণ্ডে জলিলের সিডিএ এলাকার বুলু মেম্বারের ভাড়া ঘরে থাকতেন।

কর্নেল হাট শ্যামলী বাস কাউন্টারের বাবুল আহমদ বলেন, ‘ছেলেটি টেম্পুতে মনে হয় সিটি গেটের দিকে কোথাও যাচ্ছিল। গরমে নাকি হাসফাঁস করছিল। আমার কাউন্টারের সামনে এসে ছেলেটা নাকি অসুস্থ হয়ে পড়ে। ওরা কাউন্টারের সামনে গাড়ি ব্রেক করে নামিয়ে তাকে শুইয়ে দেয়। সেখানে পরক্ষণেই সে মারা যায়। পরে আমরা পুলিশে খবর দেই।’

পাহাড়তলী থানার ওসি মোহাম্মদ কেপায়েত উল্লাহ বলেন, ‘কর্নেল হাট এলাকায় এক যাত্রীর মৃত্যু খবর পেয়ে আমার অফিসার ঘটনাস্থলে যায়। পরে মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়।

‘প্রথমে তার পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। ফেসবুকে বিষয়টি পোস্ট করার পর তার মামা আসেন। তার মা-বাবা কেউ বেঁচে নেই। বাড়ি লক্ষ্মীপুরে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
3 passengers detained at Shah Amanat airport with 1 kg of gold

শাহ আমানত বিমানবন্দরে এক কেজি স্বর্ণসহ ৩ যাত্রী আটক

শাহ আমানত বিমানবন্দরে এক কেজি স্বর্ণসহ ৩ যাত্রী আটক ছবি: সংগৃহীত
ন্দেহজনক গতিবিধির কারণে এনএসআই ও সিআইআইডির সদস্যরা ওই তিন যাত্রীকে আটক করেন।

চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক কেজি স্বর্ণসহ তিন যাত্রীকে আটক করা হয়েছে।

সোমবার সকালে এনএসআই ও কাস্টমস ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের সদস্যরা যৌথ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করেন।

আটককৃতরা হলেন- কক্সবাজারের মোবারক আলী, চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার মো. নাজমুল হক ও চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের আনোয়ার মোহাম্মদ শাহ।

চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তসলিম আহমেদ জানান, ভোর ৬টা ৪৫ মিনিটে বাংলাদেশ বিমানের বিজি-১৪৮ ফ্লাইটটি দুবাই থেকে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। আটক তিনজন কাপড় ও কম্বলে করে এক কেজির বেশি ওজনের সোনা নিয়ে আসেন। তাদের সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে এনএসআই ও সিআইআইডির সদস্যরা তাদের আটক করেন।

আটক তিনজনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয় বলেও তিনি জানান।

আরও পড়ুন:
জুতায় লুকানো ছিল স্বর্ণের ৬ বার
কমানোর পর দিনই বাড়ল স্বর্ণের দাম
স্বর্ণের দাম এবার কমেছে, তবে নামমাত্র
দেশে স্বর্ণের দামে নতুন রেকর্ড, ভরি ১১৯৬৩৮ টাকা
মহেশপুর সীমান্ত থেকে ৪০টি স্বর্ণের বারসহ আটক ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The Awami League rally was also suspended on Friday

শুক্রবার আওয়ামী লীগের সমাবেশও স্থগিত

শুক্রবার আওয়ামী লীগের সমাবেশও স্থগিত ফাইল ছবি
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ বলেছেন, ‘সমাবেশের অনুমতি চেয়ে পুলিশের কাছে আবেদন করা হয়েছিল, কিন্তু অনুমতি দেয়া হয়নি। ফলে সমাবেশ আপাতত স্থগিত। শান্তি সমাবেশের তারিখ পরে জানানো হবে।’

আগামী ২৬ এপ্রিলের (শুক্রবার) শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ স্থগিত করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। পুলিশের অনুমতি না পাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সমাবেশের অনুমতি চেয়ে পুলিশের কাছে আবেদন করা হয়েছিল, কিন্তু অনুমতি দেয়া হয়নি। ফলে সমাবেশ আপাতত স্থগিত। শান্তি সমাবেশের তারিখ পরে জানানো হবে।’

প্রসঙ্গতঃ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে এ শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

রোববার (২১ এপ্রিল) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশের ঘোষণা দেয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) বেলা ৩টা থেকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করা হবে।

অবশ্য এর আগে গত শনিবার (২০ এপ্রিল) চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ দলের নেতা-কর্মীদের মুক্তির দাবিতে ২৬ এপ্রিল বিকেলে নয়াপল্টনে সমাবেশ ডেকেছিল বিএনপি। পরে তাপপ্রবাহের কারণ দেখিয়ে সোমবার তা স্থগিত করে দলটি।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Red carpet reception for Emir of Qatar in Dhaka

কাতারের আমিরকে ঢাকায় লালগালিচা অভ্যর্থনা

কাতারের আমিরকে ঢাকায় লালগালিচা অভ্যর্থনা কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-সানি সোমবার বিকেলে ঢাকায় পৌঁছার পর তাকে অভ্যর্থনা জানান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। ছবি: পিআইডি
কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-সানি দু’দিনের সরকারি সফরে সোমবার বিকেলে ঢাকায় পৌঁছার পর ২১ বার তোপধ্বনি করা হয়। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-সানিকে ঢাকায় লালগালিচা অভ্যর্থনা জানানো হয়েছে। দু’দিনের সরকারি সফরে সোমবার বিকেলে ঢাকায় পৌঁছার পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

আমির ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী কাতার এয়ারওয়েজের একটি বিশেষ বিমান বিকেল ৫ টার দিকে ঢাকায় বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এ সময় ২১ বার তোপধ্বনি করা হয়।

এরপর আমিরকে অস্থায়ী অভিবাদন মঞ্চে নিয়ে যাওয়া হয়। তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মানের অংশ হিসেবে গার্ড অফ অনার দেয়া হয়। এ সময় দু’দেশের জাতীয় সঙ্গীত বাজানো হয়। কাতারের আমির প্যারেড পরিদর্শন করেন। সূত্র: বাসস

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন কাতারের আমিরকে প্রেজেন্টেশন লাইনে অপেক্ষমাণ ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। এ সময় আমিরও তার প্রতিনিধিদের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. নসরুল হামিদ বিপু, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, পররাষ্ট্র সচিব, রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সচিবগণ এবং ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ আমন্ত্রণে ঢাকায় এসেছেন কাতারের আমির।

বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে কাতারের আমির তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে অবস্থান করবেন।

মঙ্গলবার সকালে কাতারের আমিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এরপর সকাল সোয়া ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শিমুল হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তিনি বৈঠক করবেন।

পরবর্তীতে এই সফরে দু’দেশের মধ্যে ছয়টি চুক্তি এবং পাঁচটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চুক্তিগুলো হলো- দ্বৈত কর ও কর ফাঁকি পরিহার, আইনি বিষয়ে সহযোগিতা, সমুদ্র পরিবহন, পারস্পরিক বিনিয়োগ উন্নয়ন ও সুরক্ষা, দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিদের স্থানান্তর এবং একটি যৌথ ব্যবসায়িক পরিষদ প্রতিষ্ঠা।

এর বাইরে শ্রমশক্তি, উচ্চশিক্ষা ও বৈজ্ঞানিক গবেষণা এবং কূটনৈতিক প্রশিক্ষণে সহযোগিতাসহ পাঁচটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দুপুরে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বঙ্গভবনের দরবার হলে কাতারের আমিরের সম্মানে মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করবেন।

সন্ধ্যায় বিশেষ বিমানে করে আমির কাতারের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ তাকে বিমানবন্দরে বিদায় জানাবেন।

আরও পড়ুন:
কাতারের আমির আসছেন সোমবার, সই হবে ৬ চুক্তি ও ৫ এমওইউ
কাতারের আমিরের বাংলাদেশ সফরে গুরুত্ব পাবে যেসব বিষয়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Life imprisonment of 14 people in Comilla for Chhatra Dal leaders murder

ছাত্রদল নেতা হত্যায় কুমিল্লায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন

ছাত্রদল নেতা হত্যায় কুমিল্লায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন ফাইল ছবি
২০২০ সালের ১০ জুন সন্ধ্যায় কমলাপুর বাজারের দক্ষিণ পাশে পারভেজকে আটক করেন সিকান্দার চেয়ারম্যান ও তার লোকজন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত তাকে এলোপাতাড়ি মারধরে গুরুতর আহত করা হয়। মারধরে গুরুতর আহত হয়ে পারভেজের মৃত্যু হয়।

কুমিল্লায় ছাত্রদল নেতাকে হত্যার দায়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৪ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এ সময় দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৫ মাসের সাজার রায় ঘোষণা করা হয়।

সোমবার কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক নাসরিন জাহান এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার সময় ১১ জন আসামি উপস্থিত থাকলেও পলাতক ছিলেন তিনজন।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন মামলার আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. শরীফুল ইসলাম।

নিহত মো. পারভেজ হোসেন সদর উপজেলার কালিরবাজার ইউনিয়ন ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- কালিবাজার এলাকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. সেকান্দর আলী, যুবলীগ নেতা মো. শাহীন, স্থানীয় যুবলীগ নেতা মো. সাদ্দাম হোসেন, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, মফিজ ভান্ডারী, মো. কামাল হোসেন, আব্দুল কাদের, মো. ইব্রাহীম খলিল, আনোয়ার, মো. মেহেদী হাসান রুবেল ও জয়নাল আবেদীন। এবং পলাতক তিন আসামী হলেন- মো. কাওছার, মো. রিয়াজ রিয়াদ ও বিল্লাল।

আইনজীবী অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম জানান, ২০২০ সালের ১০ জুন সন্ধ্যায় কমলাপুর বাজারের দক্ষিণ পাশে পারভেজকে আটক করেন সিকান্দার চেয়ারম্যান ও তার লোকজন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত তাকে এলোপাতাড়ি মারধরে গুরুতর আহত করা হয়। মারধরে গুরুতর আহত হয়ে পারভেজের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় কুমিল্লার কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই মাহবুবুর রহমান বাদী হয়ে ১৫০ জন অজ্ঞাত আসামির বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। পরে পারভেজের মাও বাদী হয়ে মামলা করেন। এ ঘটনায় তদন্ত করে সিআইডি ১৪ জনকে আসামি করে প্রতিবেদন দাখিল করে। পরে একজন আসামি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি ও ৩০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত এ রায় দেয়।

আরও পড়ুন:
মাথায় গুলি করে ইউএনও’র দেহরক্ষীর ‘আত্মহত্যা’

মন্তব্য

p
উপরে