× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Summons Senior Judicial Magistrate Alamgir in High Court
google_news print-icon

সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীরকে হাইকোর্টে তলব

সিনিয়র-জুডিশিয়াল-ম্যাজিস্ট্রেট-আলমগীরকে-হাইকোর্টে-তলব
বিচারপতি মো. হাবিবুল গনি ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেয়।

যৌতুক আইনের একটি মামলা স্থগিত থাকার পরও আসামিকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেয়ার ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে মাদারীপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলমগীর হোসেনকে তলব করেছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. হাবিবুল গনি ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেয়। খবর বাসসের

আগামী ১০ মার্চ তাকে সশরীরে হাজির হয়ে বিষয়টি ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান ডেপুটি এটর্নি জেনারেল মো. আসাদুজ্জামান মনির।

তিনি বলেন, যৌতুক আইনের ৩ ধারার একটি মামলার কার্যক্রম হাইকোর্ট স্থগিত করেছিল। মামলার কার্যক্রম স্থগিত থাকার পরও সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলমগীর হোসেন আসামিকে ১৫ ফেব্রুয়ারি হাজিরের নির্দেশ দেন। এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করেন আসামি। আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট মাদারীপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলমগীর হোসেনকে তলব করে আদেশ দেয়।

আরও পড়ুন:
বিচারক সোহেল রানাকে সাজা থেকে অব্যাহতি
ড. ইউনূসের বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন
ভাষার মাসের প্রথম দিনে হাইকোর্টে বাংলায় আদেশ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Two Bangladeshis were injured in a mine explosion on the border

সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে দুই বাংলাদেশি আহত

সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে দুই বাংলাদেশি আহত আহত সোনা মিয়াকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা
ঘুমধুম ইউপির ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মোহাম্মদ আলমের ধারণা, মিয়ানমার থেকে চোরাই পথে গরু আনতে গিয়ে তারা আহত হয়েছেন।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তমব্রু সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে দুই বাংলাদেশি আহত হয়েছেন।

শুক্রবার রাত সোয়া ৮টার দিকে তমব্রু সীমান্তের ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের মাঝামাঝি এলাকা সংলগ্ন মিয়ানমারের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে।

ঘুমধুম ইউপির ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মোহাম্মদ আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আহতরা হলেন- তমব্রু পশ্চিমকূল এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে ১৬ বছরের নবী হোসেন ওরফে সোনা মিয়া এবং একই এলাকার আবুল কালামের ছেলে ৩০ বছর বয়সী আবু তাহের।

মেম্বার আলম জানান, রাতে সীমান্তের ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলার সংলগ্ন মিয়ানমারের ভেতরে হঠাৎ বড় ধরনের বিস্ফোরণ হয়। এতে স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে সীমান্তের ওপার থেকে আহত দুই ব্যক্তিকে রক্তাক্ত অবস্থায় আসতে দেখেন স্থানীয়রা।

তিনি জানান, সঙ্গে সঙ্গে তাদের কুতুপালংয়ের এমএসএফ হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্থানীয়রা। তবে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠান।

আহতদের স্বজনরা জানিয়েছেন, আহতদের মধ্যে সোনা মিয়ার ডান পায়ের গোড়ালি সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পাশাপাশি শরীরের বিভিন্ন স্থান গুরুতর জখম হয়েছে। এছাড়া আবু তাহেরের শরীরেও বিভিন্ন স্থানে জখন হয়েছে।

ইউপি সদস্যের ধারণা, মিয়ানমার থেকে চোরাই পথে গরু আনতে গিয়ে তারা আহত হয়েছেন।

আরও পড়ুন:
ভারত থেকে অবৈধভাবে প্রবেশের সময় আটক ৮
গরু পাচারকারী চক্র ও ডাকাতদলের গোলাগুলি, নিহত ১
মিয়ানমারে ফের গোলাগুলি, কাঁপল টেকনাফ সীমান্ত
নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে ফের ৩ বাংলাদেশি আহত
নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের ওপারে মাইন বিস্ফোরণে ২ বাংলাদেশি আহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
3 arrested in Jessore for beating a man to death for love

যশোরে প্রেম নিয়ে একজনকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩

যশোরে প্রেম নিয়ে একজনকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩ ফাইল ছবি
স্থানীয়রা জানান, কন্যাদাহ গ্রামের একটি মেয়ের সঙ্গে স্থানীয় একটি ছেলের দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানতে পেরে হাসান মেম্বারসহ ১০-১২ জন ব্যক্তি ছেলেটির মামাতো ভাই সাইফুল ইসলাম মুকুলের বাড়িতে তাকে খুঁজতে যান। এ সময় ছেলেটিকে না পেয়ে মুকুল ও বকুলকে মেরে গুরুতর আহত করে ফেলে যান।

যশোরে প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে ইউপি মেম্বারসহ ১০/১২ জন মিলে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় তিনজন গ্রেপ্তার হয়েছে।

গত বুধবার রাত ১০ টার দিকে শার্শা উপজেলার উলাশী ইউনিয়নের কন্যাদাহ গ্রামে সাইফুল ইসলাম মুকুল ও তার ভাই শরিফুল ইসলাম বকুলকে পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মুকুল মারা যান।

এ ঘটনায় শুক্রবার নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে শার্শা থানায় একটি মামলা হয়। মামলার পর ওই ইউপি সদস্যসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- উলাশী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য ৩৫ বছর বয়সী হাসান মেম্বার, ৪৫ বছর বয়সী তাজউদ্দিন ও ৩৭ বছর বয়সী কামরুজ্জামান।

স্থানীয়রা জানান, কন্যাদাহ গ্রামের একটি মেয়ের সঙ্গে স্থানীয় একটি ছেলের দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানতে পেরে হাসান মেম্বারসহ ১০-১২ জন ব্যক্তি ছেলেটির মামাতো ভাই সাইফুল ইসলাম মুকুলের বাড়িতে তাকে খুঁজতে যান। এ সময় ছেলেটিকে না পেয়ে মুকুল ও বকুলকে মেরে গুরুতর আহত করে ফেলে যান।

পরে প্রতিবেশীরা তাদের চিকিৎসার জন্য যশোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। এর মধ্যে মুকুলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়। বৃহস্পতিবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

শার্শা থানার ওসি শেখ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘নিহতের ফুফাত ভাইয়ের সঙ্গে স্থানীয় ইউপি সদস্যের এক আত্নীয়ের প্রেমঘটিত সম্পর্কের জেরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় মামলা হলে ইউপি সদস্য হাসানসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কাপড় ধুতে বলায় স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা: স্বামীর মৃত্যুদণ্ড
ঝালকাঠিতে গাছে বেঁধে যুবককে পিটিয়ে হত্যা
জমি নিয়ে বিরোধে ভাতিজিকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ
ফেরিওয়ালাকে হত্যায় নারীর মৃত্যুদণ্ড, স্বামীর জেল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two were abducted while visiting the fountain in Teknaf

টেকনাফে ঝর্ণা দেখতে গিয়ে দুজন অপহৃত

টেকনাফে ঝর্ণা দেখতে গিয়ে দুজন অপহৃত অপহরণের পর পাহাড়ে অনুসন্ধানে নেমেছে পুলিশ। ফাইল ছবি
টেকনাফ থানার ওসি মুহাম্মদ ওসমান গনি জানান, অপহৃতদের গহীন পাহাড়ের জঙ্গলের ভেতরে নিয়ে যাওয়ার সময় রিয়াদ পালিয়ে আসার চেষ্টা করেন। এতে অপহরণকারীরা তাকে মেরে রক্তাক্ত করে। পরে ফের তিনি কৌশলে পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও অপর দুইজনকে অপহরণকারীরা নিয়ে যায়।

কক্সবাজারের টেকনাফে ঝর্ণা দেখতে গিয়ে দুই দর্শনার্থীসহ তিনজন অপহরণের শিকার হন। পরে মারধরের শিকার হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় একজন পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও দুজনের সন্ধান এখনও মিলছে না।

শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালিয়া পাড়ার বাঘঘোনা ঝর্ণা দেখতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন টেকনাফ থানার ওসি মুহাম্মদ ওসমান গনি।

তিনি জানান, ঘটনার পরপরই পুলিশ অভিযান শুরু করলেও এখনও অপহৃত দুইজনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

অপহৃতরা হলেন- চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার পূর্ব রূপকানিয়া এলাকার মো. মোস্তাক আহমদের ছেলে ২২ বছর বয়সী মোহাম্মদ রিদওয়ান এবং স্থানীয় বাঘঘোনা এলাকার মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে ১৮ বছর বয়সী রিদওয়ান।

আর সাতকানিয়ার উপজেলার পূর্ব রূপকানিয়া এলাকার মো. মোস্তাক আহমদের ছেলে ৩৫ বছর বয়সী মো. ফজলুল করিম রিয়াদ অপহরণকারীদের কবল থেকে পালিয়ে আসেন। তিনি রিদওয়ানের বড় ভাই। অপহৃত আরেক রিদওয়ান ওই দুই ভাইয়ের দোকানের কর্মচারী।

পুলিশ জানিয়েছে, অপহৃত দুই ভাই মো. ফজলুল করিম রিয়াদ ও মোহাম্মদ রিদওয়ান ব্যবসায়িক সূত্রে বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালিয়া পাড়ায় অবস্থান করেন। সেখানে তাদের একটি দোকান রয়েছে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি ওসমান গনি জানান, শুক্রবার বিকেলে বাঘঘোনা এলাকায় ওই দুই ভাই তাদের কর্মচারী স্থানীয় রিদওয়ানকে সঙ্গে নিয়ে ঝর্ণা দেখতে যান। এক পর্যায়ে ঝর্ণা এলাকা থেকে মুখোশধারী ৪/৫ জনের একদল দুর্বৃত্ত অস্ত্রের মুখে তাদের জিম্মি করে নিয়ে যায়।

অপহৃতদের গহীন পাহাড়ের জঙ্গলের ভেতরে নিয়ে যাওয়ার সময় রিয়াদ পালিয়ে আসার চেষ্টা করেন। এতে অপহরণকারীরা তাকে মেরে রক্তাক্ত করে। পরে ফের তিনি কৌশলে পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও অপর দুইজনকে অপহরণকারীরা নিয়ে যায়।

আহত অবস্থায় পালিয়ে আসা রিয়াদকে স্থানীয়রা কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ওসি বলেন, ‘ঘটনার খবর শুনে অপহৃতদের উদ্ধারে পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান শুরু করে। টেকনাফে বাহারছড়া ইউনিয়নের গহীন পাহাড়ের সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালালেও অপহৃতদের উদ্ধার করা যায়নি। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় আপাতত পুলিশ পাহাড়ে অভিযান স্থগিত রাখা হয়েছে।’

অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য নিয়ে রাতেই সাঁড়াশি অভিযান শুরু করা হবে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
টেকনাফে অপহৃত শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৫
টেকনাফের সড়কে পাওয়া গেল অপহৃত ২ জনকে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
3 accused in MP Annas murder case remanded

এমপি আনার হত্যা মামলায় ৩ আসামি রিমান্ডে

এমপি আনার হত্যা মামলায় ৩ আসামি রিমান্ডে আনোয়ারুল আজীম আনার। ফাইল ছবি
বুধবার সকালে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যানুযায়ী, নিউ টাউনের এক বাড়িতে খুন হয়েছেন এমপি আনার। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালসহ দায়িত্বশীল পক্ষে তার মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যার মামলায় গ্রেপ্তার তিন আসামির প্রত্যেককে ৮ দিন করে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি পেয়েছে পুলিশ।

ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট দিলরুবা আফরোজ তিথি শুক্রবার এ আদেশ দেন।

রিমান্ডের আদেশ পাওয়া তিনজন হলেন সৈয়দ আমানুল্লাহ, তানভীর ভূঁইয়া ও শিলাস্তি রহমান।

আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই জালাল উদ্দিন গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকে ওই তিন আসামিকে আদালতে হাজির করে দশ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে বিচারক তিন আসামির প্রত্যেককে আট দিনের রিমান্ড দেন।

আদালতে আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। তবে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় কথা বলেন শিলাস্তি রহমান। তিনি ঘটনার কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের তিনবারের সংসদ সদস্য কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারুল আজীম আনার গত ১১ মে চিকিৎসার জন্য ভারতে ভারত গিয়ে নিখোঁজ হন।

বুধবার সকালে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যানুযায়ী, নিউ টাউনের এক বাড়িতে খুন হয়েছেন এমপি আনার। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালসহ দায়িত্বশীল পক্ষে তার মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ভারতীয় পুলিশের তথ্যে দেশে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে এমপি আনারের মরদেহ পাওয়া যায়নি।

এমপি আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় একটি মামলা করেছেন। গ্রেপ্তার তিনজনকে ওই মামলায় রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hundreds of houses were burnt in Kaliakore Colony

কালিয়াকৈরে কলোনিতে আগুন, পুড়ল শতাধিক ঘর

কালিয়াকৈরে কলোনিতে আগুন, পুড়ল শতাধিক ঘর শুক্রবার দুপুরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক তেলিরচালা এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। ছবি: নিউজবাংলা
খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট প্রায় এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একটি কলোনিতে আগুন লেগে ওই কলোনির শতাধিক বসত ঘর পুড়ে গেছে।

শুক্রবার দুপুরে কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক তেলিরচালা এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট প্রায় এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

এলাকাবাসী, ফায়ার সার্ভিস ও কলোনির মালিকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তেলিরচালা এলাকায় স্থানীয়দের কাছ থেকে জমি ভাড়া নিয়ে সারোয়ার ও সুফিয়ানসহ আরও অনেকে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাকি রুমগুলোকে গার্মেন্টস শ্রমিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষদের কাছে ভাড়া দিয়েছিলেন তারা।

শুক্রবার দুপুরে সারোয়ারের কালোনিতে প্রথমে আগুন লাগে। একপর্যায়ে অন্যান্য কলোনিতে তা ছড়িয়ে পড়ে। প্রথমে এলাকাবাসী আগুন নেভানোর চেষ্টা করে ব্যল্থ হলে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে ১ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

কলোনির বাসিন্দাদের কয়েকজন বলেন, আমরা নামাজ পড়তে গেছি, তখন হঠাৎ আগুন লাগে। আসতে আসতেই আগুন সব কিছু পুড়িয়ে ছাই করে দিছে।

আরেকজন বলেন, কারখানা থেকে এসে দেখি আমার ঘরের সকল আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। চাউল, ডাউল, সবজি সব শেষ। এখন আমরা খাব কী? থাকব কোথায়?

গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ্ আল আরেফিন জানান, দুপুর ১টা ১৫মিনিটে আগুন লাগার খবর পেয়ে কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিস ও কোনাবাড়ী ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় এক ঘণ্টার চেষ্টায় দুপুর ২টা ১৫মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তাৎক্ষণিকভাবে আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি।

আরও পড়ুন:
উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুনে পুড়ল অর্ধশত ঘর
নেশার টাকা না পেয়ে বাড়িতে আগুন দিল ছেলে
ভারতে চলন্ত বাসে আগুনে ৯ জনের মৃত্যু
এক ঘণ্টা পর নিভল ধোলাইখালের মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের আগুন
ধোলাইখালে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে আগুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
3 months imprisonment for fake doctor in Naogaon

নওগাঁয় ভুয়া চিকিৎসকের ৩ মাসের কারাদণ্ড

নওগাঁয় ভুয়া চিকিৎসকের ৩ মাসের কারাদণ্ড নওগাঁ জেলা কারাগার। ছবি: নিউজবাংল
ইউএনও পপি খাতুন বলেন, ‘ডাক্তার পরিচয়ে এক নারী নজিপুর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে রোগী প্রতি ৬০০ টাকা ফি নিয়ে ব্যবস্থাপত্র প্রদান ও নিজেই বিভিন্ন টেস্ট করছিলেন। নির্দিষ্ট একটি কোম্পানির ওষুধ প্রমোট করছে, যে কোম্পানির সরকারি অনুমোদন নেই।’

নওগাঁর পত্নীতলায় এক ভুয়া চিকিৎসককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পপি খাতুন বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা সদরে অভিযান পরিচালনা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত সোমাইয়া তাবাসসুম সাবা (২৪) মহাদেবপুর উপজেলার আতুরা গ্রামের বাসিন্দা। তাকে কারাদণ্ডাদেশ দিয়ে নওগাঁ কারাগারে পাঠানো হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পপি খাতুন বলেন, ‘ডাক্তার পরিচয়ে এক নারী নজিপুর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে রোগী প্রতি ৬০০ টাকা ফি নিয়ে ব্যবস্থাপত্র প্রদান ও নিজেই বিভিন্ন টেস্ট করছিলেন। নির্দিষ্ট একটি কোম্পানির ওষুধ প্রমোট করছে, যে কোম্পানির সরকারি অনুমোদন নেই। মেয়েটি জিজ্ঞাসাবাদে কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি, ডাক্তারি সনদপত্রের সঠিক প্রমাণাদি দেখাতে পারেনি।’

ইউএনও বলেন, ‘মেয়েটি একটি কোর্স করেছে। সেটা দিয়ে আইন অনুযায়ী রোগী দেখতে পারেন না ডাক্তারকে অ্যাসিস্ট করতে পারবে। এ কারণে তাকে তিন মাসের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।’

জনস্বার্থে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড
মানবপাচার মামলায় স্বামী-স্ত্রীর কারাদণ্ড
মিথ্যা ধর্ষণ মামলা করায় নারীর শাস্তি
চট্টগ্রামে রবি ও সোমবার চিকিৎসকদের কর্মবিরতির ঘোষণা
মানিকগঞ্জে স্বর্ণ চোরাচালানে পাঁচজনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
NDTV reports gory description of MP Annas murder

এনডিটিভির প্রতিবেদনে এমপি আনার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা

এনডিটিভির প্রতিবেদনে এমপি আনার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা কলকাতার নিউ টাউনের একটি ফ্ল্যাটে এমপি আনার খুন হন বলে জানায় পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ। ছবি: এনডিটিভি
হত্যাকাণ্ডের তদন্তে প্রাপ্ত তথ্যের বরাত দিয়ে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশি একজন এমপির (যিনি কলকাতায় খুন হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে) চামড়া তুলে ফেলা হয়েছে। একটি ফ্ল্যাটে তার মরদেহ টুকরা হয়েছে। পরে কয়েকটি প্লাস্টিকের প্যাকেটে ভরে শহরজুড়ে মরদেহের অংশগুলো ফেলা হয়েছে।

ভারতে গিয়ে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনারের খুন হওয়া নিয়ে শুক্রবার প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে নয়াদিল্লিভিত্তিক জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

এতে আনার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়া হয়েছে।

হত্যাকাণ্ডের তদন্তে প্রাপ্ত তথ্যের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশি একজন এমপির (যিনি কলকাতায় খুন হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে) চামড়া তুলে ফেলা হয়েছে। একটি ফ্ল্যাটে তার মরদেহ টুকরা হয়েছে। পরে কয়েকটি প্লাস্টিকের প্যাকেটে ভরে শহরজুড়ে মরদেহের অংশগুলো ফেলা হয়েছে।

চিকিৎসার জন্য গত ১২ মে কলকাতায় যান এমপি আনার, যার দুই দিন পর ১৪ মে থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মুম্বাইয়ের বাসিন্দা অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী জিহাদ হাওলাদারকে গ্রেপ্তারের পর আনার হত্যার তদন্তে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।

সিআইডির সূত্রের বরাতে সংবাদমাধ্যমটি জানায়, কলকাতার নিউ টাউনের ফ্ল্যাটে বাংলাদেশি এমপিকে হত্যা ও তার দেহ টুকরা করার সঙ্গে জড়িত থাকার স্বীকার করেছেন জিহাদ।

এনডিটিভি জানায়, জিহাদকে জিজ্ঞাসাবাদে খুনের নিখুঁত পরিকল্পনা ও সংঘটনের মর্মান্তিক বর্ণনা উঠে আসে।

সিআইডির সূত্র জানায়, বাংলাদেশি আমেরিকান আখতারুজ্জামান এমপি আনার হত্যার হোতা। আখতারুজ্জামানের নির্দেশে কলকাতার নিউ টাউনের ফ্ল্যাটে জিহাদ ও অন্য চার বাংলাদেশি শ্বাসরোধ করে আনারকে হত্যা করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বুধবার এমপি আনার খুনের বিষয়টি জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গ সিআইডি নিউ টাউনের ফ্ল্যাটটিতে রক্তের দাগ ও বেশ কিছু প্লাস্টিকের ব্যাগ পায়। এসব ব্যাগ দিয়ে আনারের দেহের টুকরাগুলো ফেলা হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশের বিভাগটি।

পুলিশের দাবি, পারিপার্শ্বিক প্রমাণ দেখে মনে হচ্ছে, এমপি আনারকে শুরুতে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় এবং পরবর্তী সময়ে তার দেহ কয়েক টুকরা করা হয়।

পুলিশের কাছে জিহাদের দেয়া বর্ণনার ভিত্তিতে এনডিটিভির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আনারকে হত্যার পর দলটি তার গায়ের চামড়া তোলার পাশাপাশি হাড় থেকে মাংস ছাড়িয়ে ফেলে। আনারের দেহকে ছোট ছোট টুকরা করা হয়, যাতে তাকে চেনার কোনো সম্ভাবনা না থাকে।

হত্যাকারী দলটি এমপির হাড়গুলোকেও ছোট ছোট টুকরা করে এবং দেহের অংশগুলো প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরে। পরবর্তী সময়ে সেগুলো গাড়িতে করে কলকাতার বিভিন্ন স্থানে ফেলা হয়।

পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ জানায়, খুনের শিকার হওয়া বাংলাদেশি এমপির দেহের অংশগুলো কোথায় ফেলা হয়েছে, তা নিয়ে আরও তথ্য জানার চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:
এমপি আনার খুন: ভারতের সংবাদমাধ্যম যা বলছে
শেরেবাংলা নগর থানায় এমপি আনারের মেয়ের মামলা
এমপি হত্যায় ভারতকে দোষারোপ না করার আহ্বান কাদেরের
এমপি আনারকে হত্যা করেছে বাংলাদেশি অপরাধীরা: ডিএমপি ডিবি প্রধান
এমপি আনারের হত্যাকাণ্ড দুই রাষ্ট্রের বিষয় নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

p
উপরে