× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Novels and poetry books are more in the first 5 days fair
google_news print-icon

প্রথম ৫ দিনের মেলায় উপন্যাস ও কবিতার বই বেশি

প্রথম-৫-দিনের-মেলায়-উপন্যাস-ও-কবিতার-বই-বেশি-
স্টল ঘুরে ঘুরে বই দেখছেন দর্শনার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা
এখন পর্যন্ত মেলায় নতুন বই এসেছে ২৪১টি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি এসেছে কবিতা আর উপন্যাসের বই। এ ছাড়া, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়েও কয়েকটি বই প্রকাশ হয়েছে।

চলছে প্রাণের অমর একুশে বইমেলা। সোমবার শেষ হয়েছে মেলার পঞ্চম দিন। প্রথম দিন থেকেই লেখকরা বিভিন্ন প্রকাশনী থেকে প্রকাশ হওয়া তাদের বইয়ের মোড়ক উম্মোচন করে চলছেন।

এখন পর্যন্ত মেলায় নতুন বই এসেছে ২৪১টি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি এসেছে কবিতা আর উপন্যাসের বই। এ ছাড়া, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়েও কয়েকটি বই প্রকাশ হয়েছে।

বাংলা একাডেমির তথ্যকেন্দ্র থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মেলার প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলা একাডেমি প্রকাশিত ‘কালেক্টেড ওয়ার্কস অফ শেখ মুজিবুর রহমান: ভলিয়ম-২’ ও ‘প্রাণের মেলায় শেখ হাসিনা’ (বাংলা একাডেমীতে শেখ হাসিনার গত ২০ বারের ভাষণের সংকলন) এই দুটি নতুন বইয়ের গ্রন্থ-উন্মোচন করেন। এ সময় বাংলা একাডেমি প্রকাশিত আরও ৬টি অনুবাদ গ্রন্থ ও নজরুল ইন্সটিটিউট প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরুল-কথা নামের একটি বাংলা গ্রন্থেরও মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

মেলার দ্বিতীয় দিন থেকে পঞ্চম দিন পর্যন্ত মেলায় নতুন বই এসেছে ২৪১টি। এরমধ্যে কবিতার বই ৭৫টি, উপন্যাসের বই ৪৭টি, জীবনীগ্রন্থ ১৯টি, গল্পের বই ২১টি, প্রবন্ধ ১০টি, ভ্রমণের ৯টি, অনুবাদগ্রন্থ ৭টি, ইতিহাসের ৭টি, মুক্তিযুদ্ধের ওপর ৭টি, গবেষণাধর্মী বই ৫টি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ওপর দুটি, রাজনীতি, রচনাসমগ্র, শিশুসাহিত্য আর ধর্মের ওপর বই এসেছে একটি করে।

উপন্যাসের উপর উল্লেখযোগ্য বই হলো- সাব্বির জাদিদ লিখিত আজাদীর সন্তান। বইটি প্রকাশ করেছে ঐতিহ্য প্রকাশনী। শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় লিখিত পরিণীতা, দেবদাস এবং পল্লিসমাজ। বই তিনটি প্রকাশ করেছে মিজান পাবলিশার্স। সাদাত হোসাইন লিখিত আগুনডানা মেয়ে। বইটি প্রকাশ করেছ অন্যপ্রকাশ।

প্রবন্ধের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, বাংলা একাডেমি প্রকাশিত মোহাম্মদ নুরুল হুদা লিখিত সংস্কৃতি ও সদাচার, পাঠক সমাবেশ প্রকাশিত স্বকৃত নোমান লিখিত বাংলায় ইসলাম : সহজিয়া ও রক্ষণশীল ধারা, অন্যপ্রকাশ প্রকাশিত আবুল কাসেম লিখিত বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক অর্থনীতি।

কবিতার উল্লেখযোগ্য বইসমূহ হলো- ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত লতিফুল ইসলাম শিবলীর যতক্ষণ তুমি ইনসাফের পক্ষে, আগামী প্রকাশনী প্রকাশিত শামসুর রাহমানের প্রেমের কবিতা, ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ প্রকাশিত তানজীনা ফেরদৌস লিখিত প্রেমের হুলিয়া জারি হোক তোমার নামে, আসাদ চৌধুরী লিখিত ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত একাত্তরের ৭১ কবিতা।

মুক্তিযুদ্ধের ছয়টি বইয়ের মধ্যে পাঁচটি বই-ই প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। বইগুলো হলো- সুজন বড়ুয়া লিখিত মুক্তিযুদ্ধের কিশোর উপন্যাসসমগ্র, রফিকুর রশীদ লিখিত মুক্তিযুদ্ধের গল্পসমগ্র, আরেফিন বাদল লিখিত এই যুদ্ধ সেই যুদ্ধ : মুক্তিযুদ্ধের গল্প, এম আবদুল আলীমের বঙ্গবন্ধু: মুক্তিযুদ্ধ এবং ড. মোহাম্মদ জহুরুল ইসলাম লিখিত মুক্তিযুদ্ধে বৃহত্তর বগুড়া। আর ড. নুসরাত রাব্বি অনূদিত war heroines speak বইটি প্রকাশ করেছে শ্রাবণ প্রকাশনী।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে আজিজুর রহমান আজিজের লিখা অন্তরে বঙ্গবন্ধু বইটিও প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত হারুনুজ্জামানের An Untold Story বইটিও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে।

জীবনীগ্রন্থের মধ্যে আইভি সাহার লিখিত জলছবি প্রকাশিত স্বাধীন বাংলা বেতারের কন্ঠযোদ্ধা: অরুণা, শাহ্ মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান লিখিত বিজয় প্রকাশ থেকে প্রকাশিত কাজী নজরুলের কারাজীবন, অনুপম প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত আবদুল্লাহ আল-মুতীর স্মৃতিকথা ও সাগরপারের চিঠি, পাঠক সমাবেশ থেকে প্রকাশিত আবদুল মমিন চৌধুরী/সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ শত মনীষীর জীবনী।

গবেষণাধর্মী বইয়ের মধ্যে ড. মাহবুবুল হকের চাটগাঁইয়া সঅজ পন্না বইটি অন্যতম। এটি প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। ভাষাবিষয়ক প্রবন্ধগ্রন্থের মধ্যে অন্যতম মুস্তাফা মজিদ সম্পাদিত মারমা জাতিসত্তা বইটি প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী।

ইতিহাসের মধ্যে ঐতিহ্য প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত মহিউদ্দিন আহমদের চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ, কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত জাহীদ রেজা নূরের ৬ দফা থেকে স্বাধিকার, জ্যোতি প্রকাশ থেকে প্রকাশিত মো. রফিকুল হক আখন্দের বিশ্বজুড়ে আখন্দ বংশ। আগামী প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ড. মুকিদ চৌধুরীর জার্মানি: অতীত ও বর্তমান।

রাজনীতি নিয়ে উল্লেখযোগ্য বই পুথিনিলয় প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত আতিউর রহমানের বাংলাদেশ নেতৃত্বের পরম্পরা ও উন্নয়ন। ভ্রমণবিষয়ক উল্লেখযোগ্য বই অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত হাসনাত আবদুল হাইয়ের একদা সোভিয়েত ইউনিয়নে, ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত আশির আহমেদের জাপান কাহিনি (দশম খণ্ড)।

অনুবাদগ্রন্থের মধ্যে ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত মুমিত আল রশিদের মাজার শরিফ-এর আর্তনাদ এবং কিংডম অফ সোলায়মান উল্লেখযোগ্য। এছাড়া, বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত কবি সুফিয়া কামালের স্মৃতিকথার অনুবাদ 1971 : A Dairy, রিজিয়া রহমানের উপন্যাসের অনুবাদ An Untold Story এবং সেলিনা হোসেনের উপন্যাসের অনুবাদ The Glorious Afternoon উল্লেখযোগ্য।

পঞ্চম দিনে নতুন বই ৭০টি

সোমবার মেলায় নতুন বই এসেছে ৭০টি। বিকেল চারটায় বইমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় সার্ধশত জন্মবার্ষিক শ্রদ্ধাঞ্জলি : মোহাম্মদ রওশন আলী চৌধুরী শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মাসুদ রহমান। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ইসরাইল খান এবং তপন বাগচী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাইফুল আলম।

প্রাবন্ধিক বলেন, মানোত্তীর্ণ সাহিত্যসৃষ্টির সমূহ প্রতিভা ছিল মোহাম্মদ রওশন আলী চৌধুরীর। মাত্র ষাট বছরের জীবনে তার যে সাধনা ও কীর্তি, তা তাঁকে বাঙালির নবজাগরণের ইতিহাসে স্মরণীয়জনের আসন দিয়েছে। একজন বিশিষ্ট সাহিত্যিক, সাংবাদিক-সম্পাদক, সংগঠক ও রাজনীতিক হিসেবে তিনি বরেণ্য।

সভাপতির বক্তব্যে সাইফুল আলম বলেন, মোহাম্মদ রওশন আলী চৌধুরী একাধারে একজন লেখক, সংগঠক, রাজনীতিবিদ এবং সম্পাদক ছিলেন। তিনি নিজে যেমন লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত থেকেছেন, তেমনি লেখক-সাহিত্যিকদের একত্রিত করেছেন, সংঘবদ্ধ করেছেন। তাঁর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে অবগত করার দায়িত্ব আমাদের যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

লেখক বলছি অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন বই নিয়ে আলোচনা করেন কবি নাসির আহমেদ, কবি ইসলাম রফিক, শিশুসাহিত্যিক চন্দনকৃষ্ণ পাল এবং লোকসাহিত্য গবেষক সৈয়দা আঁখি হক।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন কবি রবীন্দ্র গোপ, সরকার মাসুদ এবং মাসুদ পথিক। আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী রেজিনা ওয়ালী, সাফিয়া খন্দকার রেখা এবং শামস্ মিঠু। দলগত আবৃত্তি পরিবেশন করেন ফয়জুল আলম পাপ্পুর পরিচালনায় আবৃত্তি সংগঠন ‘প্রকাশ সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংগঠন’-এর শিল্পীরা।

মঙ্গলবারের সময়সূচি

মঙ্গলবার মেলা শুরু হবে বিকেল তিনটায় এবং চলবে রাত নয়টা পর্যন্ত।

আলোচনা অনুষ্ঠান

বিকেল চারটায় বইমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে স্মরণ: মুহম্মদ মনসুর উদ্দীন শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন জফির সেতু। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন শাহিদা খাতুন এবং সৌমিত্র শেখর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন আবদুল খালেক।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Passengers suffer for one and a half hours after metro train is closed

মেট্রো ট্রেন বন্ধ দেড় ঘণ্টা, যাত্রী দুর্ভোগ

মেট্রো ট্রেন বন্ধ দেড় ঘণ্টা, যাত্রী দুর্ভোগ ফাইল ছবি।
যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটের দিকে মেট্রো ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর রাত ৮টা ২০ মিনিটে পুনরায় ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে দেড় ঘণ্টা বন্ধ ছিল মেটো ট্রেন চলাচল। শনিবার সন্ধ্যায় হঠাৎ করে মেট্রো ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।

সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটের দিকে মেট্রো ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর প্রায় দেড় ঘণ্টা পর রাত ৮টা ২০ মিনিটে পুনরায় ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) তরফদার মাহমুদুর রহমান সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে মেট্রো চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেন।

আগাম কোনো ঘোষণা ছাড়া হঠাৎ করে মেট্রো ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিভিন্ন স্টেশনে হাজারো যাত্রীকে অপেক্ষা করতে হয়।

মেট্রোরেল পরিচালনাকারী কর্তৃপক্ষ ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক রাত সোয়া ৮র দিকে গণমাধ্যমকে জানান, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে মেট্রো ট্রেন চলাচল ১৫ মিনিটের মতো বন্ধ ছিল। পরে আবার চালু হয়।

তবে মেট্রোরেলের একাধিক যাত্রী জানিয়েছেন, ট্রেন চলাচল এক ঘণ্টার বেশি সময় বন্ধ ছিল।

আরও পড়ুন:
মেট্রো ট্রেন বুধবার থেকে রাতে এক ঘণ্টা বেশি চলবে
ঢাবিতে খুলল মেট্রোর দরজা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two DU students arrested and released on bail in robbery case

দস্যুতার মামলায় দুই ঢাবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার, পরে জামিন

দস্যুতার মামলায় দুই ঢাবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার, পরে জামিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি
নাফিজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবীর শয়নের আর বাঁধন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকতের অনুসারী বলে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

মারধর করে প্রায় দুই লাখ টাকা ডাকাতির মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দুই শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করে শাহবাগ থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৩ মে) তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। পরে শুক্রবার তাদের আদালতে তোলা হলে জামিন পেয়েছেন তারা।

গত ২১ এপ্রিল মো. রুবেল নামের এক ব্যবসায়ী তিনজনের নাম উল্লেখ করে আরও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে শাহবাগ থানায় মামলা করেন। অজ্ঞাতনামা আসামি হিসেবে এই দুই শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- নিশান, রাসেল মিয়া ও রাফি। তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাজিব শেখ বলেন, ‘দস্যুতার মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন শিক্ষার্থী নাফিজ ফুয়াদ এবং মাহিদুর রহমান বাঁধনকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তার করে পরদিন আদালতে পাঠানো হয়। বর্তমানে তারা জামিনে আছেন।’

এই মামলায় সর্বমোট কতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে- জানতে চাইলে রাজিব শেখ বলেন, ‘মোট কতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে সেটি আমি বলতে পারব না। কারণ এটি তদন্তাধীন মামলা।’

নাফিজ ফুয়াদ ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী এবং বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। মাহিদুর রহমান বাঁধন নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী এবং ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্রলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক।

এদের মধ্যে নাফিজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবীর শয়নের আর বাঁধন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকতের অনুসারী বলে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি শয়ন বলেন, ‘বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণে রেখেছি। আদালতের রায়ে যদি তারা দোষী সাব্যস্ত হয় তাহলে আমরা সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।’

মামলার এজাহারে ভুক্তভোগী মো. রুবেল লেখেন, ‘আমি গার্মেন্টস এক্সেসরিজ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকায় এক নম্বর আসামি নিশানের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে উঠে। গত ১৫ এপ্রিল নিশান আমাকে দরকারি কথা আছে বলে শাহবাগ থানাধীন সুপার হোস্টেলে আসতে বলায় আমি সেখানে যাই। সেখানে তার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলার পর খাবার খাওয়াবে বলে সে আমাকে নিচে নামালে রাসেল, রাফিসহ অজ্ঞাতনামা আসামিরা তিনটি মোটরসাইকেলে করে আমাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের নির্জন জায়গায় নিয়ে যায়। ঈদের বন্ধ থাকার কারণে সেখানে খুব কম লোকের আনাগোনা ছিল।

‘তখন নিশান বাকী আসামিদের বলে, আমার কাছে অনেক টাকা আছে, ব্যাংক ব্যালেন্সও অনেক আছে। এরপর আমাকে মোবাইলের লক খুলতে বলা হলে আমি অস্বীকৃতি জানালে অজ্ঞাতনামা আসামিরা আমাকে খেলার মাঠে ফেলে লাথি, কিল-ঘুষি মারতে থাকে। প্রচণ্ড মারধরের কারণে আমি মোবাইলের খুলে দেই।

‘এরপর তারা আমার মোবাইলের সিটি ব্যাংকের অ্যাপ থেকে আমার বিকাশ অ্যাকাউন্টে পঞ্চাশ হাজার টাকা সেন্ডমানি করে সেখান থেকে তাদের বিকাশ অ্যাকাউন্টে নিয়ে নেয়। পরে আমার নগদ অ্যাকাউন্ট থেকে ৪৯ হাজার ৯৩৫ টাকা, রকেট অ্যাকাউন্ট থেকে ২০ হাজার ৬০০ টাকা এবং এটিএম কার্ডের পিন নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাচ বাংলা ব্যাংকের বুথ থেকে আরও ৫০ হাজার টাকা আসামিরা নিয়ে নেয়।’

এজাহারে ভুক্তভোগী রুবেল বলেন, ‘আসামিরা আামার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি নিয়ে খালি স্ট্যাম্পে আমার স্বাক্ষর নেয়। এরপর রাত সাড়ে আটটায় আমার মানিব্যাগ থেকে আরও ৫ হাজার টাকা নিয়ে আমার এটিএম কার্ড, মোবাইল ফেরত দিয়ে আমাকে মাঠ থেকে বের করে দেয়া হয়।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মো. মাকসুদুর রহমান বলেন, ‘দুই শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তারের খবর পেয়েছি। থানা থেকে এখনও আমরা মামলার কাগজপত্র পাইনি। পেলে আমরা বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।’

আরও পড়ুন:
শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলা: ড. ইউনূসের জামিন ৪ জুলাই পর্যন্ত
যাত্রীবেশে চালকের গলা কেটে অটোরিকশা ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৩
পুলিশের ওপর হামলা মামলার আসামি মিঠু চেয়ারম্যান বরখাস্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A child was burnt in a cocktail explosion in Mohammadpur

মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে শিশু দগ্ধ

মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে শিশু দগ্ধ শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট। ফাইল ছবি
দগ্ধ শিশুর ভাই মোহাম্মদ আশিক বলেন, ‘রাতে আমার ভাই মসজিদের সামনে পানি আনতে যায়। সেখানে হঠাৎ একটি ককটেল বিস্ফোরণে আমার ভাইয়ের গায়ে আগুন ধরে যায়।’

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে এক শিশু দগ্ধ হয়েছে।

মোহাম্মদপুরের হুমায়ুন রোডে আল বশির জামে মসজিদের সামনে শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

১২ বছর বয়সী দগ্ধ শিশুটি শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি আছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দগ্ধ শিশুর ভাই মোহাম্মদ আশিক বলেন, ‘রাতে আমার ভাই মসজিদের সামনে পানি আনতে যায়। সেখানে হঠাৎ একটি ককটেল বিস্ফোরণে আমার ভাইয়ের গায়ে আগুন ধরে যায়। সঙ্গে সঙ্গে আমরা ওকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে যাই। সেখান থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের বাড়ি খুলনা জেলার খালিশপুরে। মোহাম্মদপুর হুমায়ুন রোড বিহারি ক্যাম্পে থাকছি এখন।’

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া চিকিৎসকের বরাত দিয়ে বলেন, ‘শিশুটির শরীরের ৩৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

আরও পড়ুন:
স্কুলের টয়লেটে ৬ ঘণ্টা আটকে ছিল শিশু
অন্তঃসত্ত্বাকে ‘ইটের আঘাত’, অকাল গর্ভপাতে নবজাতকের মৃত্যু
শ্বাসরোধে শিশুকে হত্যার পর বিদ্যুৎস্পর্শে মৃত্যুর নাটক সাজান মা
কক্সবাজারে পাহাড়ি ছড়ায় গোসলে নেমে ২ শিশুর মৃত্যু
নদীতে গোসলে নেমে শিশুর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Nazruls poem inciting protest Song Rizvi

প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করে নজরুলের কবিতা, গান: রিজভী

প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করে নজরুলের কবিতা, গান: রিজভী নজরুলের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে থাকা কবির কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ ‍যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ছবি: নিউজবাংলা
রিজভী বলেন, ‘নজরুলের বিপ্লবের গান, বিদ্রোহের গান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে, আজও উদ্বুদ্ধ করে। কবির কবিতা, গান এবং তার সমস্ত সাহিত্য সৃষ্টি আমাদের উদ্বুদ্ধ করছে শত নিপীড়ন-নির্যাতন ভোগ করে আজকের বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রতিবাদ করতে, এগিয়ে যেতে।’

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও গান প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

নজরুলের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে থাকা কবির কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, দেশ এখন স্বৈরতন্ত্রের রুদ্ধশ্বাস পরিস্থিতির মধ্যে আছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিটি ক্ষণ কবি নজরুল উদ্বুদ্ধ করছেন প্রতিবাদের জন্য।

তিনি বলেন, ‘নজরুলের বিপ্লবের গান, বিদ্রোহের গান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে, আজও উদ্বুদ্ধ করে। কবির কবিতা, গান এবং তার সমস্ত সাহিত্য সৃষ্টি আমাদের উদ্বুদ্ধ করছে শত নিপীড়ন-নির্যাতন ভোগ করে আজকের বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রতিবাদ করতে, এগিয়ে যেতে।’

গণতন্ত্র ফেরানোর লড়াইয়ে বিএনপি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতিবাদের ভাষা রপ্ত করেছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী৷

তিনি বলেন, ‘সেই প্রতিবাদের ভাষা রপ্ত করে আমরা গণতন্ত্র ফেরানো, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমাদের যে লড়াই, আমরা অব্যাহত রাখছি। আমরা যখন কারাগারে যাই, যখন আমাদের বিচার হয়, তখন আমরা নজরুলকে স্মরণ করি। কারণ আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি বলেই আমাদের সাজা দিচ্ছে, কারাগারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
বিএনপি নেতা-কর্মীদের পরিবারে ঈদ আনন্দ নেই: রিজভী
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের ঈদের আনন্দ ম্লান: রিজভী
বাংলাদেশ যুদ্ধ করিডোর হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে কী না প্রশ্ন রিজভীর
সরকার দেশকে প্রতিবেশী দেশের অধীনতার দিকে ঠেলে দিয়েছে: রিজভী
আ. লীগ ও সহযোগী সংগঠন উন্নয়নের নামে লুটপাট করেছে: রিজভী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Unhealthy air in Dhaka during the holidays is the third lowest

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে তৃতীয়

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে তৃতীয় মানে সামান্য হেরফের হলেও অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঘুরপাক খাচ্ছে ঢাকা। ফাইল ছবি
আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৯ গুণ বেশি।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও বাতাসের নিম্ন মানে প্রথম সারিতে রয়েছে ঢাকা।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানি আইকিউ এয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ১৫৭ স্কোর নিয়ে ১১৮টি শহরের মধ্যে বায়ুর নিম্ন মানে তৃতীয় ছিল ঢাকা।

একই সময়ে প্রথম ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের কিনশাসা ও ভারতের দিল্লি।

আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৯ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউএয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৫৭। এর মানে হলো ওই সময়টাতে নিঃশ্বাসের সঙ্গে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
ঢাকার বাতাস ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’
বৃষ্টির পর ঢাকার বাতাসের মানের উন্নতি
ছুটির দিনে বাতাসের নিম্ন মানে চতুর্থ ঢাকা
ঢাকার বাতাসের মান ‘মধ্যম’ পর্যায়ে
ঢাকার বাতাস ‘সহনীয়’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The law minister asked for prayers at the hospital

হাসপাতালে আইনমন্ত্রী, চাইলেন দোয়া

হাসপাতালে আইনমন্ত্রী, চাইলেন দোয়া ফাইল ছবি
ইউরিনাল ইনফেকশন ও জ্বরের কারণে বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

শারীরিক সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

ইউরিনাল ইনফেকশন ও জ্বরের কারণে বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। খবর বাসসের

এখন পর্যন্ত সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন আইনমন্ত্রী। বর্তমানে তিনি অনেকটাই সুস্থ। সম্পূর্ণ সুস্থতায় তিনি সবার দোয়া চেয়েছেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
4 projects including Bangabazar Bipanibitan and Suhrawardy Shishu Udyan were inaugurated on Saturday

বঙ্গবাজার বিপণি বিতান ও সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন শনিবার

বঙ্গবাজার বিপণি বিতান ও সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন শনিবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেন এবং প্রস্তুতির খুটিনাটি পর্যবেক্ষণ করেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার সকাল ১০টায় রাজধানীতে এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন তিনি।

এই প্রকল্পগুলো হলো ‘বঙ্গবাজার নগর পাইকারি বিপণিবিতান’, পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে রায়েরবাজার স্লুইসগেট গেট পর্যন্ত আট সারির ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মণি সরণি (ইনার সার্কুলার রিং রোড)’, ধানমন্ডি হ্রদে ‘নজরুল সরোবর’ এবং শাহবাগে ‘হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যান’।

প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেন এবং প্রস্তুতির খুটিনাটি পর্যবেক্ষণ করেন।

উদ্বোধন অপেক্ষায় থাকা ১০তলা বিশিষ্ট বঙ্গবাজার নগর পাইকারি বিপণিবিতানে পাঁচটি সাধারণ সিঁড়ি ও ছয়টি অগ্নি প্রস্থান সিঁড়িসহ পর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বিপণিবিতানের প্রতিটি ব্লকের জন্য আলাদা বাহির ও প্রবেশদ্বার থাকবে।

ভবনে বৈদ্যুতিক যান্ত্রিক কক্ষ এবং প্রতিটি ব্লকের প্রতি তলায় চারটি করে শৌচাগার থাকবে। এ ছাড়া ভবনের ভূমিতলে ১৬৯টি গাড়ি ও ১০৯টি মোটরসাইকেল পার্কিংয়ের সুবিধা থাকবে।

পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে রায়েরবাজার স্লুইসগেট গেট পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের আট সারির বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মণি সরণির নির্মাণকাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। ৯৭৪ কোটি ৫৮ লাখ টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পের আওতায় ১০ কিলোমিটার নর্দমা(ড্রেন), ১০ কিলোমিটার পথচারী হাঁটার পথ(ফুটপাত), ৩টি উড়াল সেতু (ভেহিকেল ওভারপাস), ৩টি পথচারী পারাপার সেতু (ওভারব্রিজ), দুই কিলোমিটার সংরক্ষণকারী দেয়াল(রিটেইনিং ওয়াল), তিনটি মসজিদ, ছয়টি যানবাহন বিরতির স্থান(বাস-বে) ও ছয়টি যাত্রীছাউনি নির্মাণ করা হবে। এতে ঢাকা শহরের ভেতরে বাস, ট্রাক ও পণ্যবাহী যানবাহনের চাপ কমার পাশাপাশি বহুলাংশে যানজট নিরসন হবে।

নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় ৫১ কোটি টাকা ব্যয়ে ধানমন্ডি হ্রদে নজরুল সরোবর নির্মাণ করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি। শনিবার এই কাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মরণে ‘নজরুল সরোবর’ নামের উন্মুক্ত বিনোদন মঞ্চে একটি ঘাটলা, উন্মুক্ত মিলনায়তন, পথচারীদের হাঁটার পথ, গণপরিসর, রেস্তোরাঁ, বসার স্থান (বেঞ্চ), দৃষ্টিনন্দন বাতি, পর্যাপ্ত সবুজায়ন ও শব্দযন্ত্র (সাউন্ড সিস্টেম) স্থাপনের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও নজরুল ইসলামের স্মৃতিময় মুহূর্ত ও সাহিত্যকর্ম সংবলিত ফলক স্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া শাহবাগে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানের আধুনিকীকরণ কাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (শাহবাগে জিয়া শিশু পার্কের নতুন নাম হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যান করা হয়েছে)। প্রায় ৬০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে এই শিশু উদ্যানের আধুনিকায়নের কাজ করা হবে।

১৯৭৯ সালে স্থাপিত এই পার্কে আগে ১১টি রাইড ছিল। আধুনিকায়নের মাধ্যমে সেখানে মেগা ডিস্ক'ও, সুপার এয়ার রেস, ফ্লাইং ক্যারোস্যাল, গ্যালিয়ন , ১২ডি থিয়েটার, মাইন কোস্টার, ক্লাইম্বিং কার, সুপার হ্যাপী সুইং, ওয়াটার ম্যানিয়া-সহ অত্যাধুনিক নতুন ১৫ ধরনের রাইডস বসানো হবে।

এ ছাড়াও আগত দর্শনার্থীদের জন্য শৌচাগার, চত্বর, রেস্তোরাঁ, বিশ্রামস্থল, প্রশস্ত হাঁটার পথ, বসার আসন ইত্যাদি প্রয়োজনীয় সুবিধাদি সংযোজন করা হয়েছে।

মন্তব্য

p
উপরে