× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Dharla wakes up at Char Cricket Academy
google_news print-icon

ধরলার জেগে ওঠা চরে ক্রিকেট অ্যাকাডেমি

ধরলার-জেগে-ওঠা-চরে-ক্রিকেট-অ্যাকাডেমি
কুড়িগ্রামে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ধরলার চরে সাড়ে তিন একর জমিতে ক্রিকেট অ্যাকাডেমি প্রতিষ্ঠা করেছেন লাকু। ছবি: নিউজবাংলা
প্রত্যয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা লাকু বলেন, ‘সঞ্চিত অর্থ ও বাবা এবং ভাইয়ের সহযোগিতা নিয়ে সদর উপজেলার পাঙ্গার চরে ধরলা নদীর তীর ঘেঁষে উঁচু এলাকা খুঁজে পাই এবং গ্রামবাসীকে আমার স্বপ্নের কথা বলি। তারাই আগ্রহ দেখিয়ে আমাকে সাড়ে ৩ একর জমি ৫ বছরের জন্য লিজ প্রদান করেন।’

কুড়িগ্রামে ব্যক্তিগত উদ্যোগে নদীর বুকে জেগে ওঠা চরের সাড়ে তিন একর জমি লিজ নিয়ে ক্রিকেট অ্যাকাডেমি প্রতিষ্ঠা করেছেন লাকু।

প্রত্যয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির উদ্যোগে ভাওয়াইয়া যুবরাজ কছিম উদ্দিনের স্মরণে শুক্রবার সকালে অ্যাকাডেমির মাঠে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক রেদওয়ানুল হক দুলাল।
ওই সময় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন এস.এম আমিনুল ইসলাম ও প্রত্যয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা লাকু।

কুড়িগ্রামের কৃতি ক্রিকেটার লাকু ঢাকায় প্রথম বিভাগ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট খেলার সময় আহত হওয়ার পর কুড়িগ্রামে ফিরে যান। তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল ক্রিকেট অ্যাকাডেমি গড়ে তোলার। সেই লক্ষ্যে অনেক খোঁজ-খবরের পর কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নে ধরলা নদীর তীরবর্তী পাঙ্গার চরে প্রায় সাড়ে সাত লাখ টাকায় ৩ দশমিক ৫ একর জমি লিজ নিয়ে সেখানে ক্রিকেট অ্যাকাডেমির কার্যক্রম শুরু করেন।

এ অ্যাকাডেমি গড়ে তুলতে পরিবারসহ নিজের জমানো ১৭ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন বলে জানান লাকু।

প্রত্যয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা লাকু বলেন, ‘ঢাকায় খেলতে গিয়ে কবজিতে আঘাত পেয়ে মাঠ থেকে ছিটকে যাই, কিন্তু ক্রিকেট আমার রক্তে। তাই কুড়িগ্রামে ফিরে এসে স্টেডিয়ামে যুক্ত হই, এখানে আলাদা কোনো মাঠের প্রয়োজন অনুভব করি।

‘পরে সঞ্চিত অর্থ ও বাবা এবং ভাইয়ের সহযোগিতা নিয়ে সদর উপজেলার পাঙ্গার চরে ধরলা নদীর তীর ঘেঁষে উঁচু এলাকা খুঁজে পাই এবং গ্রামবাসীকে আমার স্বপ্নের কথা বলি। তারাই আগ্রহ দেখিয়ে আমাকে সাড়ে ৩ একর জমি ৫ বছরের জন্য লিজ প্রদান করেন।’

একটি আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট অ্যাকাডেমি গড়ে তোলার স্বপ্নের কথা জানান লাকু।

টুর্নামেন্ট কমিটির আহ্বায়ক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহসভাপতি আহসান হাবীব নীলু জানান, লাকু ক্রিকেট পাগল ছেলে। জেলার বয়সভিত্তিক খেলোয়াড় সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। অ্যাকাডেমিটিকে বড় করতে হলে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে।

সাংবাদিক সফি বলেন, ‘শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলার প্রয়োজন রয়েছে। এটা মা-বাবাকে বুঝতে হবে।’

লাকুর পাশে দাঁড়ানো উচিত জানিয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক রেদওয়ানুল হক দুলাল বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে ক্রিকেট অ্যাকাডেমি গড়ে তোলা অনেক কঠিন কাজ। সেই কাজ শুরু করেছে লাকু।’

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাবেক সিভিল সার্জন আমিনুল ইসলাম সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদকে সহযোগিতা করতে আহ্বান জানান।

আরও পড়ুন:
কুড়িগ্রামে সাবেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভিক্ষুক পুনর্বাসনের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ
‘এক হাতেই কাজ করে যাব, তবুও ভিক্ষা করব না’
২৫ বছর আগে ঢাকায় হারানো মাইদুল খুঁজে পেলেন পরিবার
শিক্ষা অফিসারের রোষানলে পদ গেল প্রধান শিক্ষকের
নদীগর্ভে চিলমারীতে বিলীন স্কুলের পাঠদান রৌমারীতে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bangladesh girls in the semi final
নারী এশিয়া কাপ

সেমিফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েরা

সেমিফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েরা
মালয়েশিয়ার বিপক্ষে এই ম্যাচে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে শুধু জয় নয়, বড় জয় দরকার ছিল বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের। ব্যাটারদের দাপুটে পারফরম্যান্সে তা পেরেছে নিগার সুলতানার দল।

নারী এশিয়া কাপে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে এই ম্যাচে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে শুধু জয় নয়, বড় জয় দরকার ছিল বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের। ব্যাটারদের দাপুটে পারফরম্যান্সে তা পেরেছে নিগার সুলতানার দল।

শ্রীলঙ্কার ডাম্বুলায় বুধবারের এই ম্যাচে আগে ব্যাট করে মুর্শিদা খাতুন (৮০) ও অধিনায়ক নিগার সুলতানার (৬২) ফিফটিতে বাংলাদেশ ২ উইকেটে ১৯১ রান করে। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোর। এর আগে ২০১৯ সালে মালদ্বীপের বিপক্ষে ২ উইকেটে ২৫৫ রান করেছিল বাংলার মেয়েরা।

রান তাড়া করতে নেমে মালয়েশিয়ার মেয়েরা বেশিদূর যেতে পারেননি। ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ৭৭ রান করেছে দলটি। ১১৪ রানের জয়ে রান রেটে (‍+১.৯৭১) থাইল্যান্ডকে (‍+০.০৯৮) ছাড়িয়ে গেলেন নিগাররা। বড় এই জয়ে নেট রান রেট বেড়ে যাওয়ায় নিশ্চিত হয়েছে সেমিফাইনাল। আজ রাতে শ্রীলঙ্কা-থাইল্যান্ড ম্যাচের ফল যাই হোক না কেন, বাংলাদেশ ‘বি’ গ্রুপে সেরা দুইয়েই থাকছে। থাইরা লঙ্কানদের অবিশ্বাস্যরকম বড় ব্যবধানে হারিয়ে দিলে বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়নও হয়ে যেতে পারে। অন্যথায় গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে বাংলাদেশ সেমিফাইনালে খেলবে ভারতের বিপক্ষে।

রান তাড়ায় মালয়েশিয়া তাদের ইনিংসের শুরুতেই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে। প্রথম দুই ম্যাচে দলের বাইরে থাকা অভিজ্ঞ পেসার জাহানারা আলমের করা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই ওপেনার আইন্না হামিজাহ হাশিম কট বিহাইন্ডের ফাঁদে পড়েন। এলসা হান্টার ২৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ২০ রানের ইনিংস খেলে শুরুর ধাক্কাটা সামাল দেয়ার চেষ্টা করেন।

কিন্তু বাঁহাতি স্পিনার নাহিদা আক্তারের করা পাওয়ার-প্লের শেষ ওভারে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে আউট হন তিনি। আরেক ওপেনার ওয়ান জুলিয়া ১১তম ওভার পর্যন্ত টিকে থাকলেও রিতু মনির বলে আউট হওয়ার আগে তিনি ২৫ বলে করেন মাত্র ১১ রান। এরপর মাহিরাহ ইজ্জাতি ইসমাইলের ২৫ বলে ১৫ রান ছাড়া কেউই দুই অঙ্কের স্কোর করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভার খেলে ৮ উইকেটে ৭৭ রানে থামে মালয়েশিয়ার ইনিংস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১৯১/২ (দিলারা ৩৩, মুর্শিদা ৮০, নিগার ৬২*, রুমানা ৬*; হান্টার ১/২৭, মাহিরাহ ১/৩৫)।

মালয়েশিয়া: ২০ ওভারে ৭৭/৮ (হান্টার ২০, মাহিরাহ ১৫; নাহিদা ২/১৩, রিতু ১/২, স্বর্ণা ১/৭, রাবেয়া ১/১০, সাবিকুন ১/১৭, জাহানারা ১/২০)।

ফল: বাংলাদেশ ১১৪ রানে জয়ী।

ম্যান অফ দ্য ম্যাচ: মুর্শিদা খাতুন।

আরও পড়ুন:
অলরাউন্ডার রিশাদকে সংবর্ধনা
ছাত্রলীগ আয়োজিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন বিইউ
১৭ বছরের অপেক্ষার অবসান, টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন ভারত
ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত
শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Congratulations to all rounder Rishad

অলরাউন্ডার রিশাদকে সংবর্ধনা

অলরাউন্ডার রিশাদকে সংবর্ধনা অলরাউন্ডার রিশাদকে সোমবার নীলফামারী কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্যোগে সংবর্ধনা দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা
জাতীয় দলের অলরাউন্ডার রিশাদ ইসলাম বলেন, কষ্ট করলে কোনো কিছু বৃথা যায় না। দেশে অনেক ক্ষেত্র রয়েছে- যেখানে মেধা, শ্রম আর লেগে থাকলে সফল হওয়া যায়; আলোকিত মানুষ হওয়া যায়।’

কষ্ট করলে কোনো কিছু বৃথা যায় না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার রিশাদ ইসলাম। বলেছেন, ‘শুধু যে পড়াশোনা করেই সফল হওয়া যায় তা নয়। বাংলাদেশে অনেক ক্ষেত্র রয়েছে- যেখানে মেধা, শ্রম আর লেগে থাকলে সফল হওয়া যায়, আলোকিত মানুষ হওয়া যায়।’

সোমবার নীলফামারী কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (টিটিসি) উদ্যোগে সংবর্ধনা গ্রহণ শেষে এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেছেন।

রিশাদ বলেন, ‘নীলফামারী টিটিসি একটি বড় ক্ষেত্র। প্রশিক্ষণ নিয়ে বিদেশে গিয়ে পরিবর্তন ঘটানো সম্ভব। দক্ষ জনশক্তির মূল্য রয়েছে বিদেশে। এখানে যেসব ট্রেড রয়েছে এগুলোতে প্রশিক্ষণ নেয়া হলে নিজেকে সফল হিসেবে গড়তে পারবে যুবারা।’

টিটিসি সভাকক্ষে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ প্রকৌশলী জিয়াউর রহমান। এতে চিফ ইনস্ট্রাকটর মশিউর রহমান, প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম ও নীলফামারী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নুর আলম বক্তব্য দেন।

তারকা ক্রিকেটার রিশাদকে সম্মাননা স্মারক এবং শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে উপহার প্রদান করা হয়। এর আগে টিটিসির বিভিন্ন ট্রেডের প্রশিক্ষণ ক্লাস ঘুরে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তিনি।

টিটিসি অধ্যক্ষ জিয়াউর রহমান বলেন, ‘রিশাদ শুধু নীলফামারী নয়, বাংলাদেশের সম্পদ। একজন তারকা। আমাদের গর্ব। তাকে দেখে অনুপ্রাণিত হবে তরুণ প্রজন্ম। টিটিসিতে এসে রিশাদ শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন দেখিয়েছে, উৎসাহ দিয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগ আয়োজিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন বিইউ
১৭ বছরের অপেক্ষার অবসান, টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন ভারত
ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত
শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত
ইংল্যান্ডকে সহজে হারিয়ে ফাইনালে ভারত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two Tests Bangladesh tour of Pakistan final

দুই টেস্ট: বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর চূড়ান্ত

দুই টেস্ট: বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর চূড়ান্ত বিসিবি ও পিসিবির লোগো। কোলাজ: ইউএনবি
ইউএনবির প্রতিবেদনে জানানো হয, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে নতুন মৌসুম শুরু করতে যাচ্ছে টাইগাররা।

দুই টেস্ট খেলতে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফর চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে ইউএনবি।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে নতুন মৌসুম শুরু করতে যাচ্ছে টাইগাররা।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ এ সিরিজের প্রথম টেস্ট রাওয়ালপিন্ডিতে শুরু হবে ২১ আগস্ট। এরপর করাচিতে ৩০ আগস্ট শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট।

সিরিজটি খেলতে বাংলাদেশ দল কবে পাকিস্তান যাবে, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ইউএনবি জানায়, বাংলাদেশ সর্বশেষ ২০২৩ সালে এশিয়া কাপে অংশ নিতে পাকিস্তান সফর করেছিল। ওই টুর্নামেন্টের ভেন্যু পাকিস্তানের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কাতেও ছিল।

আরও পড়ুন:
টাইগারদের বড় লক্ষ্য দিল ভারত
তিস্তা নিয়ে আলোচনা করতে ঢাকায় আসছে ভারতের কারিগরি দল
এক পরিবর্তন নিয়ে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ
পারস্পরিক সহযোগিতায় ঢাকা-দিল্লির মধ্যে ১০ চুক্তি সই
এক সপ্তাহে রিজার্ভ বেড়েছে ৩১ কোটি ৮০ লাখ ডলার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BU is champion in inter university indoor cricket organized by Chhatra League

ছাত্রলীগ আয়োজিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন বিইউ

ছাত্রলীগ আয়োজিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন বিইউ মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে বুধবার পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে এক জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে বিজয়ী ও রানারআপ টিমকে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। ছবি: ছাত্রলীগ
‘মাদক, বাল্যবিবাহ, যৌতুক রুখবোই, আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়বোই’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ছাত্রলীগ আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেট-২০২৪-এর আয়োজন করে। সমাপনী অনুষ্ঠানে দুই ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানের হাতে সম্মাননা তুলে দেয়া হয়।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আয়োজিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি (বিইউ)।

এ প্রতিযোগিতায় রানারআপ হয় সোনারগাঁও ইউনিভার্সিটি।

মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে বুধবার পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে এক জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে বিজয়ী ও রানারআপ টিমকে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

‘মাদক, বাল্যবিবাহ, যৌতুক রুখবোই, আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়বোই’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ছাত্রলীগ আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর ক্রিকেট-২০২৪-এর আয়োজন করে। সমাপনী অনুষ্ঠানে দুই ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানের হাতে সম্মাননা তুলে দেয়া হয়।

ব্যক্তি পর্যায়ে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখায় ফেনীর মাহবুবা তাবাচ্ছুম ইমাকে সম্মাননা দেয়া হয়। আর যৌতুক ও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখায় লালমনিরহাটের মো. স্বাধীন ইসলামকে সম্মাননা দেয়া হয়। এ ছাড়া প্রাতিষ্ঠানিকভাবে মাদক প্রতিরোধে মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র ‘বাঁধন’কে সম্মাননা দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের সঞ্চালনায় বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা উপস্থিত ছিলেন।

গত ২৬ জুন থেকে রাজধানীর মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে দেশের পাবলিক ও বেসরকারি ৬৪টি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ক্রিকেট প্রতিযোগিতা শুরু হয়।

আরও পড়ুন:
১৭ বছরের অপেক্ষার অবসান, টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন ভারত
ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত
শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত
ইংল্যান্ডকে সহজে হারিয়ে ফাইনালে ভারত
টস হেরে ব্যাটিংয়ে ভারত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
17 years of waiting is over for T20 champion India

১৭ বছরের অপেক্ষার অবসান, টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন ভারত

১৭ বছরের অপেক্ষার অবসান, টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন ভারত
টস জিতে এদিন শুরুতে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৭৬ রান করে ভারত। জবাবে খেলতে নেমে নাটকের পর নাটক, ম্যাচে একের পর এক পালাবদলের পর মাত্র ৭ রানে হেরেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর প্রথম আসরেই ফাইনালে ওঠে ভারত। সেবার পাকিস্তানকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় দলটি। এরপর আরও একবার ফাইনালে উঠলেও শ্রীলঙ্কা কাঁদায় তাদের। ১৭ বছর পর ফের ফাইনালে কাঁদল ভারত। তবে এবার আর হতাশা নয়, শিরোপা জয়ের আনন্দে কাঁদলেন রোহিত-হার্দিকরা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ২০২৪ সালের আসরে এসে অবশেষে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম এ সংস্করণে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে রোহিত শর্মার দল।

টস জিতে এদিন শুরুতে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৭৬ রান করে ভারত। জবাবে খেলতে নেমে নাটকের পর নাটক, ম্যাচে একের পর এক পালাবদলের পর মাত্র ৭ রানে হেরেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

দুই দলই তুমূল লড়াইয়ের স্মরণীয় এক ফাইনাল উপহার দেয়ার পর প্রথমবার কোনো বিশ্ব আসরের ফাইনালে উঠেও সামান্য ব্যবধানে হেরে হতাশ হলো প্রোটিয়ারা। আর প্রায় দেড় যুগের অপেক্ষা শেষে শিরোপা উঁচিয়ে ধরল ভারত।

প্রোটিয়াদের হয়ে ব্যাট হাতে হাইনরিখ ক্লাসেন করেন সর্বোচ্চ ৫২ রান। এছাড়া কুইন্টন ডি কক ৩৯ এবং ডেভিড মিলার ২১ রান করেন।

অন্যদিকে, বল হাতে সর্বোচ্চ তিন উইকেট শিকার করেন হার্দিক পান্ডিয়া। তবে ব্যক্তিগত চার ওভারে ১৮ ও ২০ রান দিয়ে দুটি করে উইকেট তুলে নেন যথাক্রমে জসপ্রিত বুমরাহ ও আর্শদীপ সিং। প্রথম ইনিংসে বিরাট কোহলির ৭৬ রানের পর এই দুই পেসারের দুর্দান্ত বোলিংয়ের কারণেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে চেপে ধরে হারিয়েছে ভারত।

প্রথম ইনিংসে দলের সংগ্রহ বড় করে দেয়ায় ফাইনাল ম্যাচের রাজা বিরাট কোহলি। আর আসরজুড়ে বোলিংয়ে ঝলক দেখানো জসপ্রিত বুমরাহ হয়েছেন টুর্নামেন্ট সেরা।

আরও পড়ুন:
ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত
শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
India turned around and gave the Proteas a challenging target

ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত

ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিল ভারত
টস জিতে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৭৬ রান করেছে ভারত। প্রথমবার ফাইনালে উঠেই শিরোপা ছুঁতে হলে এই লক্ষ্য পাড়ি দিতে হবে প্রোটিয়া ব্যাটারদের।

পুরো টুর্নামেন্টজুড়ে রানখরা গেলেও ফাইনালে ঠিকই জ্বলে উঠল বিরাট কোহলির ব্যাট। তার ব্যাটের হাসিতে শুরুতে উইকেট হারিয়েও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ালো ভারত, আর প্রোটিয়াদের দিল চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য।

বার্বাডোসের ব্রিজটাউনের কেনসিংটন ওভাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৭৬ রান করেছে ভারত। প্রথমবার ফাইনালে উঠেই শিরোপা ছুঁতে হলে এই লক্ষ্য পাড়ি দিতে হবে প্রোটিয়া ব্যাটারদের।

এদিন দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৬ রান করেন কোহলি। ৫৯ বলে এই রান করতে গিয়ে তিনি দুটি ছক্কা ও ছয়টি চার মারেন। এছাড়া অক্ষর প্যাটেল ৩১ বলে ৪৭ এবং শেষের দিকে শিবম দুবে ১৬ বলে ২৭ রানের ক্যামিও ইনিংস খেলেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন কেশব মহারাজ। এছাড়া কাগিসো রাবাদা ও মার্কো ইয়ানসেনের ঝুলিতে গেছে একটি করে উইকেট।

আরও পড়ুন:
শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
India batting in the title fight

শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত

শিরোপার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে ভারত
১৮ বছর আগে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণের বিশ্বসেরার প্রতিযোগিতা শুরু হলেও এখন পর্যন্ত শিরোপা অধরাই রয়ে গেছে ভারতের। অন্যদিকে, ক্রিকেটের সব সংস্করণ মিলিয়ে বিশ্ব আসরে বারবার সেমিফাইনাল খেললেও এই প্রথমবার কোনো ফাইনালে উঠেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা উঁচিয়ে ধরতে মাঠে নেমেছে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। এদিন টস জিতে আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রোহিত শর্মা।

১৮ বছর আগে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণের বিশ্বসেরার প্রতিযোগিতা শুরু হলেও এখন পর্যন্ত শিরোপা অধরাই রয়ে গেছে ভারতের। এর আগে দুবার ফাইনালে উঠেও শিরোপার স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে তাদের।

অন্যদিকে, ক্রিকেটের সব সংস্করণ মিলিয়ে বিশ্ব আসরে বারবার সেমিফাইনাল খেললেও এই প্রথমবার কোনো ফাইনালে উঠেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তাই ‘চোকার’ থেকে ‘উইনার’ হতে সব রকম চেষ্টাই করবে আইডেন মার্করামের দল।

টস জিতে রোহিত বলেন, ‘আগে ব্যাট করতে চাই। এখানে আগে একটি ম্যাচ খেলেছি। পিচ ভালোই। সেদিন রানও পেয়েছিলাম।

‘ফাইনালের চাপ বুঝতে পারছি। তবে আমরা মাথা ঠান্ডা রাখতে চাই। একটি সাধারণ আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচের মতো করেই আজকের ম্যাচটিকে দেখতে চাই।’

‘দক্ষিণ আফ্রিকা (টুর্নামেন্টজুড়ে) অসাধারণ ক্রিকেট খেলেছে। আমাদের ক্ষেত্রেও বিষয়টি তাই। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন খেলোয়াড় (দলের) হাল ধরেছে। আজকেও সেরকম কিছু প্রত্যাশা করছি।’

সেমিফাইনালের অপরিবর্তিত একাদশ নিয়েই ভারত মাঠে নামছে বলে জানান তিনি।

অপরদিকে, মার্করাম বলেন, ‘(টস জিতলে) আমরাও আগে ব্যাট করতাম। তবে যাইহোক, শুরুতে বোলিং করছি, নতুন উইকেটের সুবিধা কাজে লাগানোর চেষ্টা করব।

‘কিছু কিছু সময় আমরা ভালো খেলিনি, তারপরও ম্যাচ বের করেছি। সেই আত্মবিশ্বাস ও অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর চেষ্টা করব। পারফেক্ট হওয়া তো সম্ভব নয়, তবে আমাদের তার যতটা কাছাকাছি পারা যায়, যাওয়ার চেষ্টা থাকবে।’

‘ফাইনালের উত্তেজনা অনুভব করলেও চাপ একেবারেই নিচ্ছি না। এটাই (বিশ্বকাপে) আমাদের প্রথম ফাইনাল। তাই খেলা উপভোগ করব।’

দক্ষিণ আফ্রিকাও অপরিবর্তিত একাদশ নিয়ে মাঠে নামছে বলে জানান তিনি।

ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), বিরাট কোহলি, ঋষভ পান্ত (উইকেটরক্ষক), সূর্যকুমার যাদব, শিবম দুবে, হার্দিক পান্ডিয়া, অক্ষর প্যাটেল, রবীন্দ্র জাদেজা, আর্শদীপ সিং, জসপ্রিত বুমরাহ ও কুলদীপ যাদব।

দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ: কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), রিজা হেন্ড্রিক্স, আইডেন মার্করাম (অধিনায়ক), ডেভিড মিলার, হাইনরিখ ক্লাসেন, ট্রিস্টান স্টাবস, মার্কো ইয়ানসেন, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাদা, আনরিখ নর্টকিয়া ও তাবরাইজ শামসি।

আরও পড়ুন:
ফাইনালে রাতে মুখোমুখি দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত

মন্তব্য

p
উপরে