× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
A League government will collapse like a house of cards Moin Khan
google_news print-icon

তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে আ.লীগ সরকার: মঈন খান

তাসের-ঘরের-মতো-ভেঙে-পড়বে-আলীগ-সরকার-মঈন-খান
ছবি: সংগৃহীত
বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘জনগণের ম্যান্ডেট ছাড়া বর্তমান সরকার ক্ষমতা দখল করায় গণতান্ত্রিক বিশ্ব স্বীকার করেছে বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র নেই। তারা বন্দুকের নলের জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করছে। তাদের এ প্রচেষ্টা কখনোই সফল হবে না।’

আওয়ামী লীগের নেত্বত্বের এই সরকার তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান। তিনি বলেছেন, ‘বন্দুকের জোরে সরকারের ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা সফল হবে না।’

সোমবার এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) ‘নতুন বাকশাল নির্মূলে শহীদ জিয়ার রাষ্ট্রীয় দর্শন’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

মঈন খান বলেন, ‘গণতন্ত্রের ভিত্তি হচ্ছে জনগণ। জনগণ তাদের সঙ্গে না থাকায় এই সরকারের কোনো ভিত্তি নেই। বন্দুকের জোর জনগণের ঐক্য ও ন্যায়বিচারের শক্তির সামনে দাঁড়াতে পারে না। সরকার নিজেও জানে না কখন তারা তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে।’

সরকারকে গণতন্ত্রের পথে এসে নতুন ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের ব্যবস্থা করার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘তা না হলে পরিণতি ভালো হবে না। গুলি, বন্দুক ও কাঁদানে গ্যাস দিয়ে জনগণকে পরাজিত করা যায়। কিন্তু মানুষের ভালোবাসা খুঁজে পাওয়া যায় না। ৭ জানুয়ারির নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি, যা বিশ্বের সব গণমাধ্যমে বলা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণের ম্যান্ডেট ছাড়া বর্তমান সরকার ক্ষমতা দখল করায় গণতান্ত্রিক বিশ্ব স্বীকার করেছে বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র নেই। তারা বন্দুকের নলের জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করছে। তাদের এ প্রচেষ্টা কখনোই সফল হবে না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, ‘আওয়ামী লীগ জনগণের জন্য কাজ করে না। তারা একদলীয় শাসন ও লগি-বইঠার রাজনীতি করে। তারা দেশের সব প্রতিষ্ঠান ঘেরাও করে রেখেছে। তারা সংবিধানের কথা বলে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছে।’

তিনি গণতন্ত্র ও জনগণের ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় শিক্ষকসহ সব পেশাজীবীদের সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘দেশে গণতন্ত্র না থাকলে কেউ বসে থাকতে পারে না। আমরা নতুন বাকশাল-২ প্রথার অবসান চাই।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বর্তমান সরকার চায় এ দেশে কেউ তাদের সমালোচনা না করুক, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের কথা বলুক। কারণ আওয়ামী লীগ ক্ষমতার লিপ্সায় অন্ধ হয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের আহ্বান জানিয়ে লিফলেট বিতরণসহ একটি শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে সরকার বাধা দিয়েছে। আমরা এখন সরকারের বিরুদ্ধে কালো পতাকা নিয়ে মিছিল করার ঘোষণা দিয়েছি। কিন্তু হুমকি দেয়া হচ্ছে, আমরা যদি কালো পতাকা মিছিল করি, তাহলে ২৮ অক্টোবরের মতো আবারও আমাদের উপর দমন-পীড়ন চালানো হবে।’

আরও পড়ুন:
কারও স্বীকৃতির জন্য সরকার বসে নেই: কাদের
বিএনপির কালো পতাকা মিছিল ২৬, ২৭ জানুয়ারি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
A child was burnt in a cocktail explosion in Mohammadpur

মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে শিশু দগ্ধ

মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে শিশু দগ্ধ শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট। ফাইল ছবি
দগ্ধ শিশুর ভাই মোহাম্মদ আশিক বলেন, ‘রাতে আমার ভাই মসজিদের সামনে পানি আনতে যায়। সেখানে হঠাৎ একটি ককটেল বিস্ফোরণে আমার ভাইয়ের গায়ে আগুন ধরে যায়।’

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে ককটেল বিস্ফোরণে এক শিশু দগ্ধ হয়েছে।

মোহাম্মদপুরের হুমায়ুন রোডে আল বশির জামে মসজিদের সামনে শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

১২ বছর বয়সী দগ্ধ শিশুটি শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি আছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দগ্ধ শিশুর ভাই মোহাম্মদ আশিক বলেন, ‘রাতে আমার ভাই মসজিদের সামনে পানি আনতে যায়। সেখানে হঠাৎ একটি ককটেল বিস্ফোরণে আমার ভাইয়ের গায়ে আগুন ধরে যায়। সঙ্গে সঙ্গে আমরা ওকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে যাই। সেখান থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের বাড়ি খুলনা জেলার খালিশপুরে। মোহাম্মদপুর হুমায়ুন রোড বিহারি ক্যাম্পে থাকছি এখন।’

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া চিকিৎসকের বরাত দিয়ে বলেন, ‘শিশুটির শরীরের ৩৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

আরও পড়ুন:
স্কুলের টয়লেটে ৬ ঘণ্টা আটকে ছিল শিশু
অন্তঃসত্ত্বাকে ‘ইটের আঘাত’, অকাল গর্ভপাতে নবজাতকের মৃত্যু
শ্বাসরোধে শিশুকে হত্যার পর বিদ্যুৎস্পর্শে মৃত্যুর নাটক সাজান মা
কক্সবাজারে পাহাড়ি ছড়ায় গোসলে নেমে ২ শিশুর মৃত্যু
নদীতে গোসলে নেমে শিশুর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Nazruls poem inciting protest Song Rizvi

প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করে নজরুলের কবিতা, গান: রিজভী

প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করে নজরুলের কবিতা, গান: রিজভী নজরুলের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে থাকা কবির কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ ‍যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ছবি: নিউজবাংলা
রিজভী বলেন, ‘নজরুলের বিপ্লবের গান, বিদ্রোহের গান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে, আজও উদ্বুদ্ধ করে। কবির কবিতা, গান এবং তার সমস্ত সাহিত্য সৃষ্টি আমাদের উদ্বুদ্ধ করছে শত নিপীড়ন-নির্যাতন ভোগ করে আজকের বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রতিবাদ করতে, এগিয়ে যেতে।’

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও গান প্রতিবাদে উদ্বুদ্ধ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

নজরুলের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে থাকা কবির কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, দেশ এখন স্বৈরতন্ত্রের রুদ্ধশ্বাস পরিস্থিতির মধ্যে আছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিটি ক্ষণ কবি নজরুল উদ্বুদ্ধ করছেন প্রতিবাদের জন্য।

তিনি বলেন, ‘নজরুলের বিপ্লবের গান, বিদ্রোহের গান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে, আজও উদ্বুদ্ধ করে। কবির কবিতা, গান এবং তার সমস্ত সাহিত্য সৃষ্টি আমাদের উদ্বুদ্ধ করছে শত নিপীড়ন-নির্যাতন ভোগ করে আজকের বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রতিবাদ করতে, এগিয়ে যেতে।’

গণতন্ত্র ফেরানোর লড়াইয়ে বিএনপি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতিবাদের ভাষা রপ্ত করেছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী৷

তিনি বলেন, ‘সেই প্রতিবাদের ভাষা রপ্ত করে আমরা গণতন্ত্র ফেরানো, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমাদের যে লড়াই, আমরা অব্যাহত রাখছি। আমরা যখন কারাগারে যাই, যখন আমাদের বিচার হয়, তখন আমরা নজরুলকে স্মরণ করি। কারণ আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি বলেই আমাদের সাজা দিচ্ছে, কারাগারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
বিএনপি নেতা-কর্মীদের পরিবারে ঈদ আনন্দ নেই: রিজভী
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের ঈদের আনন্দ ম্লান: রিজভী
বাংলাদেশ যুদ্ধ করিডোর হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে কী না প্রশ্ন রিজভীর
সরকার দেশকে প্রতিবেশী দেশের অধীনতার দিকে ঠেলে দিয়েছে: রিজভী
আ. লীগ ও সহযোগী সংগঠন উন্নয়নের নামে লুটপাট করেছে: রিজভী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Unhealthy air in Dhaka during the holidays is the third lowest

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে তৃতীয়

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে তৃতীয় মানে সামান্য হেরফের হলেও অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঘুরপাক খাচ্ছে ঢাকা। ফাইল ছবি
আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৯ গুণ বেশি।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও বাতাসের নিম্ন মানে প্রথম সারিতে রয়েছে ঢাকা।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানি আইকিউ এয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ১৫৭ স্কোর নিয়ে ১১৮টি শহরের মধ্যে বায়ুর নিম্ন মানে তৃতীয় ছিল ঢাকা।

একই সময়ে প্রথম ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের কিনশাসা ও ভারতের দিল্লি।

আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৯ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউএয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৫৭। এর মানে হলো ওই সময়টাতে নিঃশ্বাসের সঙ্গে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
ঢাকার বাতাস ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’
বৃষ্টির পর ঢাকার বাতাসের মানের উন্নতি
ছুটির দিনে বাতাসের নিম্ন মানে চতুর্থ ঢাকা
ঢাকার বাতাসের মান ‘মধ্যম’ পর্যায়ে
ঢাকার বাতাস ‘সহনীয়’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The law minister asked for prayers at the hospital

হাসপাতালে আইনমন্ত্রী, চাইলেন দোয়া

হাসপাতালে আইনমন্ত্রী, চাইলেন দোয়া ফাইল ছবি
ইউরিনাল ইনফেকশন ও জ্বরের কারণে বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

শারীরিক সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

ইউরিনাল ইনফেকশন ও জ্বরের কারণে বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। খবর বাসসের

এখন পর্যন্ত সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন আইনমন্ত্রী। বর্তমানে তিনি অনেকটাই সুস্থ। সম্পূর্ণ সুস্থতায় তিনি সবার দোয়া চেয়েছেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
4 projects including Bangabazar Bipanibitan and Suhrawardy Shishu Udyan were inaugurated on Saturday

বঙ্গবাজার বিপণি বিতান ও সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন শনিবার

বঙ্গবাজার বিপণি বিতান ও সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন শনিবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেন এবং প্রস্তুতির খুটিনাটি পর্যবেক্ষণ করেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার সকাল ১০টায় রাজধানীতে এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন তিনি।

এই প্রকল্পগুলো হলো ‘বঙ্গবাজার নগর পাইকারি বিপণিবিতান’, পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে রায়েরবাজার স্লুইসগেট গেট পর্যন্ত আট সারির ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মণি সরণি (ইনার সার্কুলার রিং রোড)’, ধানমন্ডি হ্রদে ‘নজরুল সরোবর’ এবং শাহবাগে ‘হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যান’।

প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেন এবং প্রস্তুতির খুটিনাটি পর্যবেক্ষণ করেন।

উদ্বোধন অপেক্ষায় থাকা ১০তলা বিশিষ্ট বঙ্গবাজার নগর পাইকারি বিপণিবিতানে পাঁচটি সাধারণ সিঁড়ি ও ছয়টি অগ্নি প্রস্থান সিঁড়িসহ পর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বিপণিবিতানের প্রতিটি ব্লকের জন্য আলাদা বাহির ও প্রবেশদ্বার থাকবে।

ভবনে বৈদ্যুতিক যান্ত্রিক কক্ষ এবং প্রতিটি ব্লকের প্রতি তলায় চারটি করে শৌচাগার থাকবে। এ ছাড়া ভবনের ভূমিতলে ১৬৯টি গাড়ি ও ১০৯টি মোটরসাইকেল পার্কিংয়ের সুবিধা থাকবে।

পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে রায়েরবাজার স্লুইসগেট গেট পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের আট সারির বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মণি সরণির নির্মাণকাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। ৯৭৪ কোটি ৫৮ লাখ টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পের আওতায় ১০ কিলোমিটার নর্দমা(ড্রেন), ১০ কিলোমিটার পথচারী হাঁটার পথ(ফুটপাত), ৩টি উড়াল সেতু (ভেহিকেল ওভারপাস), ৩টি পথচারী পারাপার সেতু (ওভারব্রিজ), দুই কিলোমিটার সংরক্ষণকারী দেয়াল(রিটেইনিং ওয়াল), তিনটি মসজিদ, ছয়টি যানবাহন বিরতির স্থান(বাস-বে) ও ছয়টি যাত্রীছাউনি নির্মাণ করা হবে। এতে ঢাকা শহরের ভেতরে বাস, ট্রাক ও পণ্যবাহী যানবাহনের চাপ কমার পাশাপাশি বহুলাংশে যানজট নিরসন হবে।

নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় ৫১ কোটি টাকা ব্যয়ে ধানমন্ডি হ্রদে নজরুল সরোবর নির্মাণ করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি। শনিবার এই কাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মরণে ‘নজরুল সরোবর’ নামের উন্মুক্ত বিনোদন মঞ্চে একটি ঘাটলা, উন্মুক্ত মিলনায়তন, পথচারীদের হাঁটার পথ, গণপরিসর, রেস্তোরাঁ, বসার স্থান (বেঞ্চ), দৃষ্টিনন্দন বাতি, পর্যাপ্ত সবুজায়ন ও শব্দযন্ত্র (সাউন্ড সিস্টেম) স্থাপনের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও নজরুল ইসলামের স্মৃতিময় মুহূর্ত ও সাহিত্যকর্ম সংবলিত ফলক স্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া শাহবাগে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানের আধুনিকীকরণ কাজেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (শাহবাগে জিয়া শিশু পার্কের নতুন নাম হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যান করা হয়েছে)। প্রায় ৬০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে এই শিশু উদ্যানের আধুনিকায়নের কাজ করা হবে।

১৯৭৯ সালে স্থাপিত এই পার্কে আগে ১১টি রাইড ছিল। আধুনিকায়নের মাধ্যমে সেখানে মেগা ডিস্ক'ও, সুপার এয়ার রেস, ফ্লাইং ক্যারোস্যাল, গ্যালিয়ন , ১২ডি থিয়েটার, মাইন কোস্টার, ক্লাইম্বিং কার, সুপার হ্যাপী সুইং, ওয়াটার ম্যানিয়া-সহ অত্যাধুনিক নতুন ১৫ ধরনের রাইডস বসানো হবে।

এ ছাড়াও আগত দর্শনার্থীদের জন্য শৌচাগার, চত্বর, রেস্তোরাঁ, বিশ্রামস্থল, প্রশস্ত হাঁটার পথ, বসার আসন ইত্যাদি প্রয়োজনীয় সুবিধাদি সংযোজন করা হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Without adequate preparation in data protection we will not have sovereignty
তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

ডাটা সুরক্ষায় পর্যাপ্ত প্রস্তুতি না থাকলে আমাদের সার্বভৌমত্ব থাকবে না

ডাটা সুরক্ষায় পর্যাপ্ত প্রস্তুতি না থাকলে আমাদের সার্বভৌমত্ব থাকবে না শুক্রবার বিকেলে গুলশানের একটি হোটেলে ‘ইনফোকম ঢাকা ২০২৪’ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত। ছবি: নিউজবাংলা
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো উন্নয়নই মানবজাতির জন্য উপকারী হতে পারে না যদি সেটা টেকসই না হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার নেতৃত্বাধীন সরকার টেকসই উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়। আমরা শুধু উন্নয়নেই বিশ্বাস করি না, সুষম ও টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাস করি।’

‘প্রযুক্তির বিশ্বে আমাদের ডাটা সুরক্ষায় যদি পর্যাপ্ত প্রস্তুতি না থাকে তাহলে এক্ষেত্রে আমাদের সার্বভৌমত্ব থাকবে না। এ জন্য ডাটা ব্যবস্থাপনাসহ এ সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়ে পুনরায় চিন্তা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে দুদিনব্যাপী আয়োজিত ‘লিডারশিপ, টেকনোলজি অ্যান্ড ট্রেন্ডজ’ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন ‘ইনফোকম ঢাকা ২০২৪’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

সার্ক চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, দ্য ডেইলি স্টার, আইসাকা ঢাকা চ্যাপ্টার ও জেসিআই বাংলাদেশের সহযোগিতায় এ সম্মেলন আয়োজন করে ভারতের এবিপি গ্রুপ। সম্মেলনের এবারের থিম ‘সাসটেইনেবল ডিসরাপশন’।

বক্তৃতাকালে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রযুক্তির বিষয়টি মাথায় রেখেই একসঙ্গে সম্পূর্ণ নতুন এক বিশ্ব তৈরির ব্যাপারে নতুন করে ভাবতে হবে। এ বিষয়টি সব ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার প্রক্রিয়ায় কেন্দ্রবিন্দুতে থাকতে হবে।

‘মানবতা, মানবাধিকার ও মানুষের কল্যাণই মূল বিষয়। দেশ-রাষ্ট্র নির্বিশেষে ভালো চিন্তার মানুষগুলোকে একত্রিত হতে হবে এবং ভবিষ্যতের জন্য একটি ভালো পৃথিবী গড়ে তোলার জন্য একসঙ্গে চেষ্টা করতে হবে।’

এ সময় তিনি বলেন, ‘কোনো উন্নয়নই মানবজাতির জন্য উপকারী হতে পারে না যদি সেটা টেকসই না হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার নেতৃত্বাধীন সরকার টেকসই উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়।

‘আমরা শুধু উন্নয়নেই বিশ্বাস করি না, সুষম ও টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাস করি। এজন্য জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনের অধিকাংশ সূচকে বাংলাদেশ অনেক দেশের চেয়ে ভালো করেছে। এটিই প্রমাণ করে, শেখ হাসিনার সরকার টেকসই উন্নয়নে কতটা গুরুত্ব দেয়।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রযুক্তি দ্রুত পরিবর্তনশীল, কিন্তু পরিবর্তিত প্রযুক্তি সমাজে ইতিবাচক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে কি না- সেটাই মূল বিষয়। এটি জনগণের জীবন উন্নতভাবে গড়ে তুলছে না ধ্বংস করছে- সেটিই বিবেচ্য।

‘আমরা এখন ব্যাপকভাবে প্রযুক্তির ওপর নির্ভরশীল। তাই প্রযুক্তির মাধ্যমে যেসব ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে, সেগুলো আমাদের জন্য সত্যিকার অর্থেই বড় ভাবনার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। এমনকি এসব ঝুঁকি মানব সম্প্রদায়ের একত্রিত অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ফেলছে। তবে শেষ পর্যন্ত আমরা বিশ্বাস করি প্রযুক্তির ইতিবাচক দিকগুলোই মানব সভ্যতাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রযুক্তির উন্নয়নের মাধ্যমে যে পরিবর্তনগুলো ঘটছে, সেটাকে আমরা এখন টেকসই করার চিন্তা করছি; এটা ভালো একটা বিষয়। প্রযুক্তির মাধ্যমে কোনো কিছুর পরিবর্তনের ফলাফল যদি ইতিবাচক হয়, সেটাকে টেকসই করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাবনা।’

তিনি আরও বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছে এবং বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশে রূপান্তরের কাজ করে যাচ্ছে।’

মোহাম্মদ আরাফাত বলেন, ‘যত বেশি জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা নিয়ে আমরা একসঙ্গে চলতে পারব, তত ভালো আউটপুট তৈরি সম্ভব হবে এবং আমরা উন্নত বিশ্ব তৈরি করতে পারব। এর মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের জনগণ উপকৃত হবে। তাই সবকিছুর মূলে জনগণ ও জনগণের সুবিধা বিবেচনায় নিতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এবিপি প্রাইভেট লিমিটেডের সিইও ধ্রুব মুখার্জি, ভারত ও সার্কের পালো আলতো নেটওয়ার্কসের সিস্টেমস ইঞ্জিনিয়ারিং পরিচালক হুজেফা মতিওয়ালা, সার্ক চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট মো. জসিম উদ্দিন, সার্ক চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির কাউন্সিল ফর কমিউনিকেশন অ্যান্ড আইটির চেয়ারম্যান শাফকাত হায়দার, জেসিআই বাংলাদেশের ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট ইমরান কাদির প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
ইন্টারনেট সংযোগ সম্প্রসারণে সিডিনেটকে ইউএসটিডিএর সমীক্ষা অনুদান
সরকার ও নাগরিকের মধ্যে অংশীদারত্ব চান তথ্য প্রতিমন্ত্রী
পরিকল্পিত প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য সহজলভ্য করা হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
সরকারের ব্যর্থতা ধরিয়ে দিন, সাংবাদিকদের তথ্য প্রতিমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Govt wont give protection even if culprit is ex IGP army chief Kader

অপরাধী সাবেক আইজিপি, সেনাপ্রধান হলেও সরকার সুরক্ষা দেবে না: কাদের

অপরাধী সাবেক আইজিপি, সেনাপ্রধান হলেও সরকার সুরক্ষা দেবে না: কাদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
এক প্রশ্নের জবাবে কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোনো ব্যক্তি যত প্রভাবশালীই হোক, অপরাধ করতে পারে, অপকর্ম করতে পারে। কথা হচ্ছে যে, প্রশ্ন থেকে যায় যে, সরকার এই ব্যাপারে তাদেরকে অপকর্ম, অপরাধের শাস্তি পাওয়ার ব্যাপারে সৎসাহস দেখিয়েছে কি না। শেখ হাসিনার সরকারের সেই সৎসাহস আছে।’

অপরাধী যত প্রভাবশালীই হোক, সরকার তাকে সুরক্ষা দেবে না বলে শুক্রবার মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল আজিজ আহমেদের ওপর গত সোমবার নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদের গোপালগঞ্জে থাকা সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছে ঢাকার একটি আদালত।

এমন বাস্তবতায় এক প্রশ্নের জবাবে কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোনো ব্যক্তি যত প্রভাবশালীই হোক, অপরাধ করতে পারে, অপকর্ম করতে পারে। কথা হচ্ছে যে, প্রশ্ন থেকে যায় যে, সরকার এই ব্যাপারে তাদেরকে অপকর্ম, অপরাধের শাস্তি পাওয়ার ব্যাপারে সৎসাহস দেখিয়েছে কি না। শেখ হাসিনার সরকারের সেই সৎসাহস আছে।

‘অপরাধ করে কেউ পার পাবে না। বিচার বিভাগ স্বাধীন, দুদক স্বাধীন। সেখানে যদি অপরাধী হিসেবে সাব্যস্ত হয় কেউ, আমরা তাকে প্রটেকশন দিতে যাব না। তিনি সাবেক আইজিপি হোন আর সাবেক সেনাপ্রধান হোন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দেশের প্রচলিত আইনে অন্যায় যে করবে, তাকে শাস্তির কাছে সমর্পণ করা হবে। এতে কোনো প্রকার সরকারের কাউকে প্রটেকশন দেয়ার বিষয় নেই।’

আরও পড়ুন:
এমপি আনার অপরাধে জড়িত কি না, তদন্তে বেরিয়ে আসবে: কাদের
এমপি হত্যায় ভারতকে দোষারোপ না করার আহ্বান কাদেরের
যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাক্টে আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা: কাদের
ঢাকা শহরে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলার অনুমতি প্রধানমন্ত্রীর: কাদের
ভারতে মেট্রোরেলে ভ্যাট নেই, বাংলাদেশে কেন: কাদের

মন্তব্য

p
উপরে