× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Distribution of BOHS winter clothes to orphan children
google_news print-icon

এতিম শিশুদের মাঝে বিওএইচএস-এর শীতবস্ত্র বিতরণ

এতিম-শিশুদের-মাঝে-বিওএইচএস-এর-শীতবস্ত্র-বিতরণ
সমাজের পিছিয়ে পড়া অসহায় শিশুদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সংস্থাটি।

সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির আওতায় দরিদ্র এতিম শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে ব্যাংক অফিসার্স হাউজিং সোসাইটি (বিওএইচএস)।

নিয়মিত সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ বছরও বিভিন্ন মাদ্রাসার এতিম ও পথ শিশুদের মাঝে এই কম্বল বিতরণ করেছে বিওএইচএস।

বন্ডিং ফর বেটার টুমরো- এই এই বাক্য হৃদয়ে ধারণ করে বেশ কিছু তরুণ ব্যাংকার ২০১৯ সালে এই সোসাইটিটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। বর্তমানে এই সোসাইটির সদস্য সংখ্যা প্রায় ১১ হাজার।

সমাজের পিছিয়ে পড়া অসহায় শিশুদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সংস্থাটি।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Uncle sentenced to death in case of murder after raping niece

ভাতিজিকে ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় চাচার মৃত্যুদণ্ড

ভাতিজিকে ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় চাচার মৃত্যুদণ্ড নাটোরের সিংড়ায় ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। ছবি: নিউজবাংলা
নাটোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পিপি আনিসুর রহমান জানান, ২০১৯ সালের ৪ আগস্ট ১৬ বছরের এক কিশোরী ও ছোট তার দুই ভাই-বোনকে বাড়িতে রেখে তাদের পরিবারের সদস্যরা পার্শ্ববর্তী পাকুয়া গ্রামে যায়। কিশোরীর ছোট দুই ভাই-বোন স্কুলে যাওয়ায় পর বাড়িতে কেউ না থাকায় তার আপন চাচা শাহাদত বাড়িতে প্রবেশ করেন এবং ভাতিজিকে ধর্ষণ করেন।

নাটোরের সিংড়ায় নিজ ভাতিজিকে ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

নাটোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম সোমবার দুপুরে এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত শাহাদত একই উপজেলার দেওগাছা উত্তপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তাকে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পিপি আনিসুর রহমান জানান, ২০১৯ সালের ৪ আগস্ট ১৬ বছরের এক কিশোরী ও ছোট তার দুই ভাই-বোনকে বাড়িতে রেখে তাদের পরিবারের সদস্যরা পার্শ্ববর্তী পাকুয়া গ্রামে যায়। কিশোরীর ছোট দুই ভাই-বোন স্কুলে যাওয়ায় পর বাড়িতে কেউ না থাকায় তার আপন চাচা শাহাদত বাড়িতে প্রবেশ করেন। পরে অভিযুক্ত শাহাদত তার ভাতিজিকে ধর্ষণ করেন।

এ সময় কিশোরী সেই ঘটনা সবাইকে জানিয়ে দেয়ার কথা বললে শাহাদত তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।

তিনি জানান, নিহতের দুই ভাই-বোন স্কুল থেকে বাসায় ফিরে তার বোনকে মৃত দেখলে শাহাদত দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। ওই সময় এলাকাবাসী ধাওয়া দিয়ে শাহাদতকে ধরে সংঘবদ্ধ পিটুনি দিলে তিনি তার ভাতিজিকে ধর্ষণের পর হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেন।

এ ঘটনায় নিহত কিশোরীর মা শাহাদতের নামে সিংড়া থানায় মামলা করেন। রায় ঘোষণার সময় সোমবার অভিযুক্ত শাহাদত আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সিএনজি চালককে হত্যার দায়ে ২ যুবকের মৃত্যুদণ্ড
স্বামী-স্ত্রীকে হত্যার মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ড
শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড
অন্তর হত্যাকাণ্ড: ৩ জনের ফাঁসি, ৩ জনের যাবজ্জীবন
প্রবাসীকে হত্যা মামলায় স্ত্রীসহ চারজনের ফাঁসি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The body of a young man was recovered from a tea garden in Moulvibazar

চা বাগানে শ্রমিকের ছেলের ঝুলন্ত মরদেহ

চা বাগানে শ্রমিকের ছেলের ঝুলন্ত মরদেহ প্রতীকী ছবি
কমলগঞ্জ থানার এসআই জিয়াউল বলেন, ‘বাগানের ৮ নম্বর সেকশন এলাকায় একটি গাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয়া সজল বাউরির মরদেহ সকালে উদ্ধার করা হয়েছে।’

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের একটি চা বাগানে গাছের সঙ্গে ফাঁস লাগা অবস্থায় এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার ফুলবাড়ি চা বাগান এলাকার ৮ নম্বর সেকশনে সোমবার সকালে ওই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ।

প্রাণ হারানো যুবক ১৯ বছর বয়সী সজল বাউরি, যে ওই বাগানের চা শ্রমিক চুন্নু বাউরির ছেলে।

স্থানীয় একজনের ভাষ্য, ‘রাতে মা-বাবার সঙ্গে ভাত নিয়ে সজল বাউরির ঝগড়া হয়। আমরা তাদের ঝগড়া শুনতে পাই। সকালে বাগানে গাছের সঙ্গে তার মরদেহ দেখে তার মা-বাবাকে জানাই।

‘পরে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। সে বাগানে শ্রমিকের কাজ করত।’

সজল বাউরির বাবা চুন্নু বাউরী বলেন, ‘আমার সঙ্গে ও ছেলের মায়ের সঙ্গে গরম ভাত করে দেয়ার জন্য সন্ধ্যায় ঝগড়া হয়। সে ঠান্ডা ভাত খাবে না। পরে রাত আটটার দিকে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। আমরা ভাবছি হয়তো প্রতিবেশী কারও ঘরে রাতে থাকতে পারে। তাই আর খোঁজখবর নিইনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সকালে হঠাৎ শ্রমিকরা কাজে গেলে চা বাগানের ৮ নম্বর সেকশনে এলাকায় গাছের সঙ্গে ফাঁস লাগা অবস্থায় সজলের মরদেহ দেখতে পেয়ে আমাদের খবর দেয়। আমরা পুলিশকে বিষয়টা জানাই। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।’

কমলগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জিয়াউল বলেন, ‘বাগানের ৮ নম্বর সেকশন এলাকায় একটি গাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয়া সজল বাউরির মরদেহ সকালে উদ্ধার করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মরদেহ ময়নাতদন্ত করার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ছেলের বিরুদ্ধে মাকে খুন করার অভিযোগ
গাইবান্ধায় অটোরিকশার চালকের গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার
ভুট্টা ক্ষেতের পাশে নারীর মরদেহ, পাশে রক্তাক্ত কাঁচি
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে কমলগঞ্জে দুই দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা
পদ্মার শাখা নদীতে এবার ভেসে উঠল রামিনের মরদেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Kulaura without electricity in the midnight Kalbaisakhi storm

মধ্যরাতের কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎহীন কুলাউড়া

মধ্যরাতের কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎহীন কুলাউড়া
ঝড়ে ভেঙে পড়েছে গাছপালা, বিদ্যুতের খুুঁটি। ছবি: নিউজবাংলা
কুলাউড়া বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘ঝড়ে বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুতের লাইন ও খুঁটি ভেঙে পড়েছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ সচল করতে বিদ্যুৎকর্মীরা কাজ করছেন। বিকেল নাগাদ বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে আশা করছি।’

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় মধ্যরাতে আঘাত হেনেছে কালবৈশাখী ঝড়, এতে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে।

রোববার মধ্যরাতের এই ঝড়ের তাণ্ডবে উপজেলার বেশিরভাগ এলাকায় বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। সরবরাহ ঠিক করতে বিদ্যুৎকর্মীরা সোমবার সকাল থেকেই কাজ করছেন।

জানা গেছে, মধ্যরাতের ঝড়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুতের লাইন ও খুঁটি ভেঙে পড়েছে। এ কারণে বিদ্যুতের ৭টি ফিডারে মধ্যরাত থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে পড়ে।

এরইমধ্যে সকাল থেকে বিদ্যুৎকর্মীরা ৩টি ফিডার চালু করতে সক্ষম হয়েছেন। কাদিপুর, ব্রাহ্মণবাজার, সিরাজনগর ও ঘাগটিয়াসহ ৪ ফিডারে লাইন চালু করার কাজ চলমান রয়েছে। এ ছাড়া ঝড়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘরবাড়িগুলোতেও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কুলাউড়া বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘ঝড়ে বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুতের লাইন ও খুঁটি ভেঙে পড়েছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ সচল করতে বিদ্যুৎকর্মীরা কাজ করছেন। বিকেল নাগাদ বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে আশা করছি।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
2 killed by truck hit by autorickshaw in Chittagong

চট্টগ্রামে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২

চট্টগ্রামে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২ প্রতীকী ছবি
বোয়ালখালী থানার এসআই নুর মোহাম্মদ জানান, চট্টগ্রাম নগরীর লালখান বাজার থেকে অটোরিকশা নিয়ে গোমদন্ডী ফুলতলায় মাছ নিতে যাচ্ছিলেন ব্যবসায়ী মিজানুর। আরাকান সড়কের রায়খালীর পুল এলাকায় পৌঁছালে বালুবোঝাই ট্রাকের সঙ্গে অটোরিকশার ধাক্কা লাগে।

চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলায় একটি অটোরিকশাকে বালুবোঝাই ডাম্প ট্রাক ধাক্কা দিলে অটোর চালকসহ দুইজন নিহত হয়েছেন।

উপজেলার শাকপুরা ইউনিয়নের আরাকান সড়কের রায়খালীর পুল এলাকায় সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রাণ হারানো দুইজন হলেন দেলোয়ার হোসেন (৩০) ও মিজানুর রহমান (৩২)।

তাদের মধ্যে দেলোয়ার চাঁদপুর জেলার কচুয়া বেরকোঠা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি অটোরিকশার চালক ছিলেন। মিজানুর নগরের লালখান বাজার মতিঝর্ণা এলাকার বাসিন্দা। তিনি পেশায় মাছ ব্যবসায়ী।

বোয়ালখালী থানার এসআই নুর মোহাম্মদ জানান, চট্টগ্রাম নগরীর লালখান বাজার থেকে অটোরিকশা নিয়ে গোমদন্ডী ফুলতলায় মাছ নিতে যাচ্ছিলেন ব্যবসায়ী মিজানুর। আরাকান সড়কের রায়খালীর পুল এলাকায় পৌঁছালে বালুবোঝাই ট্রাকের সঙ্গে অটোরিকশার ধাক্কা লাগে।

তিনি জানান, এতে ঘটনাস্থলেই অটোরিকশার চালক দেলোয়ার মারা যান। গুরুতর আহত মাছ ব্যবসায়ী মিজানুরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান।

দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি দুটো জব্দ করা হয়েছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
গাছে বাসের ধাক্কায় একজন নিহত, আহত ৭
চলে গেলেন পাগল হাসানের সহকর্মী জাহাঙ্গীরও
ট্রেনে আঙুল কাটা পড়ল আনু মুহাম্মদের
সোনারগাঁয়ে গাড়ির চাপায় বাবা-ছেলে নিহত
পটিয়ায় দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত, আহত চার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
One person was killed and injured when the bus collided with a tree

গাছে বাসের ধাক্কায় একজন নিহত, আহত ৭

গাছে বাসের ধাক্কায় একজন নিহত, আহত ৭ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুমড়েমুচড়ে গেছে বাসের ছাদ। ছবি: নিউজবাংলা
হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি এম এ ওয়াদুদ বলেন, ‘যাত্রীবাহী বাসটি পাবনা-নগরবাড়ি মহাসড়কের শাহাজাদপুরের টেটিয়ারকান্দা এলাকায় পৌঁছালে অন্য একটি গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে বাসের ছাদের সম্পূর্ণ অংশ দুমড়েমুচড়ে যায়।’

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে সি-লাইন নামে একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘটনাস্থলে এক যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও সাতজন।

পাবনা-নগরবাড়ি মহাসড়কের শাহজাদপুর উপজেলার টেটিয়ারকান্দা এলাকায় সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রাণ হারানো আল-শামীম (২৪) পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার মধুপুর গ্রামের রাশিদুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা আহতদেরকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায়। এর মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর বলে জানান তারা।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি এম এ ওয়াদুদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে পাবনা থেকে ছেড়ে আসা সি-লাইন পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস পাবনা-নগরবাড়ি মহাসড়কের শাহাজাদপুরের টেটিয়ারকান্দা এলাকায় পৌঁছালে অন্য একটি গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে।

‘এ ঘটনায় বাসের ছাদের সম্পূর্ণ অংশ দুমড়েমুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলে এক যাত্রী নিহত হন। আহত সাতজনকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।’

মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি উদ্ধার করে হেফাজতে রাখা হয়েছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
পাবনায় জমির বিরোধে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১
চট্টগ্রামে ট্রেনে কাটা পড়ে ২ জন নিহত
ফরিদপুরে মন্দিরে আগুন, সন্দেহের জেরে সংঘবদ্ধ পিটুনিতে দুই শ্রমিক নিহত
ঝালকাঠিতে দুর্ঘটনা: স্বামী হারিয়ে দিশাহারা হেনারা
মোটরসাইকেলে বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল মামা-ভাগ্নের 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In Moulvibazar paddy harvesting is going on in full swing

দাবদাহের মধ্যে হাকালুকি হাওরে ধান কাটার ধুম

দাবদাহের মধ্যে হাকালুকি হাওরে ধান কাটার ধুম মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাকালুকি হাওরে বোরো ধান কেটে বাড়ি ফিরছেন কৃষকরা। ছবি: নিউজবাংলা
কুলাউড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, ‘হাওরে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। চলতি মাসে হাওর অঞ্চলের ধান কাটা শেষ হবে। মে মাসের প্রথম সপ্তাহে পুরো উপজেলার ধান কাটা শেষ হবে।’ 

প্রচণ্ড গরমের মধ্যে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বোরো ধান কাটতে শুরু করেছেন কৃষকরা।

উপজেলার হাকালুকি হাওরে এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। সোনালি ফসল তুলতে মাঠে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করছেন কৃষকরা।

কুলাউড়ার অনেক জায়গায় অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানির শঙ্কায় কৃষকরা আধা পাকা বোরো ধান কাটা শুরু করেছেন। হাওরে পানি ঢোকার আগে ফসল ঘরে তোলার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। হাকালুকি হাওরপাড়ের কয়েকটি এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্য চোখে পড়েছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর বোরো ধানচাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮ হাজার ৬৬০ হেক্টর জমিতে।

কৃষকদের ভাষ্য, হাওরে এবার বোরো ধানের ভালো ফলন হয়েছে।

এ বছর হাওরে এখন পর্যন্ত পানি না আসায় সময়মতো নিরাপদে ধান কাটছেন কৃষকরা। হাওরপাড়ের ভুকশিমইল, কানেহাত, কারেরা, বাদে ভুকশিমইল এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রচণ্ড রোদে উত্তপ্ত আবহাওয়ায় কৃষকরা হাওরের ভেতর থেকে ধান কাটেছেন।

কৃষক মনিরুল উসলাম বলেন, ‘ধান পাকার আগে অতি বৃষ্টি হলে খুব সমস্যায় পড়তে হয়। হাওরে উজানের পানি ঢুকলে ফসল নষ্ট হয়ে যাবে। হাওরে এখন পানি না থাকায় ফসল তুলতে সুবিধা হচ্ছে।’

আরেক কৃষক জমির মিয়া বলেন, ‘কয়েক দিন আগে ধান পাকতে শুরু করলে বৃষ্টি হওয়ায় ক্ষেত নষ্ট হওয়ার শঙ্কায় ছিলাম। এখন অতিরিক্ত গরম থাকলেও ধান নিরাপদে কাটা সম্ভব হচ্ছে।’

এক কৃষকের ভাষ্য, সরকারি সুযোগ-সুবিধা পেলে প্রতি বছর বোরো আবাদে বেশ ভালো ফলন পাওয়া সম্ভব। গেল বছর খরায় বোরো ধান আবাদ বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানির সংকটে পড়ায় ধানের চারা নষ্ট হয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, বোরো চাষের এলাকায় গভীর নলকূপের ব্যবস্থা থাকলে হয়তো পানি সংকটের ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়া যেত। গত বছর হাকালুকি হাওরে যে ছোট-বড় খাল রয়েছে, সেগুলো শুকিয়ে গিয়েছিল। আবাদি জমির পরিমাণ বেশি হওয়ায় তুলনামূলক পানির জোগান না থাকায় দেখা দিয়েছিল পানির অতিরিক্ত সংকট। কোনো কোনো জায়গায় ধান বের হলেও পানির অভাবে চারার অবস্থা ছিল শোচনীয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সব শঙ্কা কাটিয়ে এ বছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এতে খুশি কৃষকরা।

কুলাউড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, ‘হাওরে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। চলতি মাসে হাওর অঞ্চলের ধান কাটা শেষ হবে। মে মাসের প্রথম সপ্তাহে পুরো উপজেলার ধান কাটা শেষ হবে।

‘এ বছর বোরো ধানের বেশ ভালো ফলন হয়েছে। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের জন্য সরকারি ভর্তুকি মূল্যে কয়েকটি কম্বাইন্ড হারভেস্টার কৃষকদের দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মাতৃভূমি রক্ষা করা আমাদের প্রধান কর্তব্য: সেনাপ্রধান
ভিক্ষুক জাতির ইজ্জত থাকে না: প্রধানমন্ত্রী
মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির দিকে চোখ রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
হাওরে ধান কাটা শুরু
মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Written complaint of students collecting extra money in HSC exam form

এইচএসসি পরীক্ষা: ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের লিখিত অভিযোগ

এইচএসসি পরীক্ষা: ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের লিখিত অভিযোগ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার উপজেলা পরিষদ প্রশাসনিক ভবনে অভিযোগকারী শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা
গজারিয়ার ইউএনও কোহিনুর আক্তার বলেন, ‘বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা আমার নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ 

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগে কলেজটির অধ্যক্ষের নামে লিখিত অভিযোগ করেছে শিক্ষার্থীরা।

উপজেলার কলিম উল্লাহ কলেজের শিক্ষার্থীরা রোববার দুপুরে নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ের সামনে অবস্থা নিয়ে আন্দোলন করে।

শিক্ষার্থীদের দাবি, তাদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে চার থেকে ছয় হাজার টাকা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের কয়েকজনের সঙ্গে রোববার দুপুরে কথা বলে জানা যায়, উন্নয়ন ফির নামে তাদের কাছ থেকে সরকার নির্ধারিত ফির চাইতে অনেক বেশি টাকা আদায় করা হচ্ছে। আর্থিকভাবে অসচ্ছল এবং দরিদ্র শিক্ষার্থীরা এত বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে ফরম পূরণ করতে পারছেন না।

তারা জানায়, ফরম পূরণের শেষ সময় চলে আসায় বাধ্য হয়ে তারা আন্দোলনে নেমেছে। প্রাথমিকভাবে তারা তাদের আপত্তির বিষয়টি কলেজটির অধ্যক্ষ এবং শিক্ষকদের জানিয়েছে। তবে তারা এ বিষয়ে কোনো কর্ণপাত না করায় বাধ্য হয়ে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এসেছে।

এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে গজারিয়া উপজেলার ইউএনওর কাছে তারা একটি লিখিত অভিযোগ করে। নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের জানান, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খবর নিয়ে জানা যায়, শিক্ষা বোর্ডগুলোর নিয়ম অনুযায়ী বিজ্ঞান শাখার পরীক্ষার্থীদের মোট ২ হাজার ৬৮০ টাকা এবং মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষার জন্য ২ হাজার ১২০ টাকা করে ফরম পূরণের ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোনো পরীক্ষার্থীর চতুর্থ বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা থাকলে এ ফির সঙ্গে অতিরিক্ত ১৪০ টাকা যুক্ত হবে। আর মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোনো শিক্ষার্থীর নৈর্বাচনিক বিষয়ে ব্যবহারিক থাকলে বিষয় প্রতি আরও ১৪০ টাকা যোগ হবে।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে কলেজটির অধ্যক্ষ মোনতাজ উদ্দীন মর্তুজা বলেন, ‘যারা আন্দোলন করছে তারা অধিকাংশ টেস্ট পরীক্ষায় অকৃতকার্য শিক্ষার্থী। ফরম পূরণে চার হাজার টাকা আদায় করা হচ্ছে তা সত্যি নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার নির্ধারিত টাকার বাহিরে যে টাকা বেশি নেয়া হচ্ছে তা হলো বেতন ও উন্নয়ন ফির টাকা। উন্নয়ন ফি বাবদ ১ হাজার ১৪০ টাকার মতো আদায় করা হচ্ছে। আমরা এমপিওভুক্ত কলেজ। এ টাকাটুকু যদি না আদায় করি, তাহলে কলেজ কীভাবে চলবে?’

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকির হোসেন রোববার বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত আছি। আমাদের জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাও এ বিষয়ে সম্পর্কে অবগত আছেন। আমি সোমবার সকালে কলেজটি পরিদর্শনে যাব। সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

গজারিয়ার ইউএনও কোহিনুর আক্তার বলেন, ‘বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা আমার নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

  • ট্যাগ:

মন্তব্য

p
উপরে