× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Plastic sea at Sugandha Point in Coxs Bazar
google_news print-icon

কক্সবাজারের সুগন্ধা পয়েন্টে ‘প্লাস্টিক সমুদ্র’

কক্সবাজারের-সুগন্ধা-পয়েন্টে-প্লাস্টিক-সমুদ্র
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও দাতব্য সংস্থা বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন আয়োজন করেছে ‘প্লাস্টিক সমুদ্র’ শিরোনামে ভিন্নধর্মী এক প্রদর্শনী। ছবি: নিউজবাংলা
ডিসি মুহাম্মদ শাহীন ইমরান বলেন, ‘কক্সবাজারে শীতের মৌসুমে সারা দেশ থেকে প্রচুর পর্যটক আসেন। এই সময়ে পর্যটকরা যেন যেখানে সেখানে প্লাস্টিক না ফেলেন এবং প্লাস্টিক রিসাইকেল নিয়ে সচেতন হন সেক্ষেত্রে এই আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

প্লাস্টিক জাতীয় পণ্য এখন জলজ প্রাণী, খাদ্য চেইন ও মানুষের জীবনের জন্য বিশাল হুমকি হয়ে দাঁড়াচ্ছে। দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহারের পর ফেলে দেয়া প্লাস্টিক ও পলিথিন জাতীয় বর্জ্যগুলোর খাল, নালা, নদী হয়ে সর্বশেষ আশ্রয় হচ্ছে সমুদ্রে।

প্লাস্টিকের মতো অপচনশীল উপকরণের দীর্ঘ সময় ধরে টিকে থাকা, মাটির উর্বরতা হ্রাস, সামুদ্রিক মাছ ও প্রানীর জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টিকে গুরত্ব দিয়ে প্লাস্টিক জাতীয় পণ্য ব্যবহারে আরও বেশী সংযমী, সচেতন ও নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতি অবলম্বনে জনগনকে উদ্ভুদ্ধ করতে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও দাতব্য সংস্থা বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন আয়োজন করেছে ‘প্লাস্টিক সমুদ্র’ শিরোনামে ভিন্নধর্মী এক প্রদর্শনী।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে আয়োজিত এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মুহাম্মদ শাহীন ইমরান।

তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারে শীতের মৌসুমে সারা দেশ থেকে প্রচুর পর্যটক আসেন। এই সময়ে পর্যটকরা যেন যেখানে সেখানে প্লাস্টিক না ফেলেন এবং প্লাস্টিক রিসাইকেল নিয়ে সচেতন হন সেক্ষেত্রে এই আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

বিদ্যানন্দের বোর্ড মেম্বার মোহাম্মদ জামাল উদ্দীন জানান, কক্সবাজার সৈকতের বালির ওপর নির্মিত পাঁচটি ভাস্কর্য দিয়ে দেখানো হয়েছে মানুষের আবাসস্থল, সেটা হোক বাসাবাড়ী কিংবা আবাসিক হোটেল। সেখান থেকে প্লাস্টিকের বর্জ্য ফোয়ারার আকারে বেরিয়ে ভূমিতে, জলাশয়ে তথা সমুদ্রে গিয়ে পড়ে এবং জাহাজের মতো ভাসতে থাকে। সামুদ্রিক মাছ, প্রাণী, গাংচিল (পাখিদের প্রতিনিধি) তাদের খাবার মনে করে তা গলাদকরণ করে, যা পরবর্তীতে হজম হয়না। ফলে অকালে মারা যায় নিষ্পাপ প্রাণী ও পাখিগুলো।

‘বড় বড় প্লাস্টিকের টুকরো ও পরিত্যক্ত জালে আটকে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে কাছিমের মৃত্যু হয়। মরে পড়ে থাকা মাছ কিংবা গাংচিলের পেটে ছোট ছোট প্লাস্টিকের বোতল আর টুকরোগুলো বলে দেয় আমাদের অসচেতনভাবে ফেলে দেয়া প্লাস্টিক সামগ্রীর দূষণে মারাত্মক ক্ষতির মুখে স্বাভাবিক বাস্তুসংস্থান। ফলে নির্মমভাবে ধ্বংস হচ্ছে আমাদের জীববৈচিত্র্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই কাজটি করার ক্ষেত্রে উপকরণ হিসেবে নানা ধরনের প্লাস্টিক সামগ্রী ব্যবহার করে মুলত দর্শকদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে চেষ্টা করা হয়েছে নীরবে আমাদের অগোচরে, অজান্তে প্লাস্টিক কীভাবে মানুষের ক্ষতিসাধন করে। বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন সমাজের সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর মৌলিক চাহিদা ও ভাগ্য পরিবর্তনে নিয়মিত কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি পরিবেশ ও জলবায়ু নিয়ে জনসাধারণকে সচেতন করতে নানা রকম সৃজনশীল উদ্যোগ নিয়ে থাকে।’

আরও পড়ুন:
দেশি চাল প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরলেই জব্দ
‘প্লাস্টিক দানবে’ হুমকিতে মানুষ ও প্রাণী
প্লাস্টিক-পলিথিনকে জ্বালানিতে রূপান্তর!
প্লাস্টিক থেকে তৈরি হচ্ছে মানুষের খাবার!  
বেঙ্গল প্লাস্টিক পাইপসের পরিবেশকদের নেপাল ভ্রমণ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bechi dai kini book and then Ekushey Padak

বেচি দই কিনি বই, অতঃপর একুশে পদক

বেচি দই কিনি বই, অতঃপর একুশে পদক একুশে পদকের জন্য মনোনীত চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটের জিয়াউল হকের রুটি-রুজির মাধ্যম দই বিক্রি। ছবি: নিউজবাংলা
চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার মুশরীভুজা বটতলা গ্রামের সাদাসিধে মানুষটি শিক্ষার আলো ছড়াতে গড়ে তুলেছেন একটি পাঠাগার। শুধু পাঠাগার নয়, নানা প্রয়োজনে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে আসছেন। সামাজিক কাজে তিন কোটি টাকার বেশি খরচ করেছেন এই সাদা মনের মানুষ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার মুশরীভুজা বটতলা গ্রামের জিয়াউল হক এবার একুশে পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন। অতিসাধারণ মানুষটি সমাজ সেবায় অনন্য অবদানের জন্য পর্যাদাপূর্ণ এই পদক হাতে নিতে যাচ্ছেন।

গ্রামের এই সাদাসিধে মানুষটি শিক্ষার আলো ছড়াতে গড়ে তুলেছেন একটি পাঠাগার। ১৯৬৯ সালে নিজ বাড়িতেই গড়ে তোলেন জিয়াউল হক সাধারণ পাঠাগার। শুধু পাঠাগারই নয়, নানা প্রয়োজনে মানুষের পাশে থাকছেন। সামাজিক কাজে তিন কোটি টাকারও বেশি খরচ করেছেন এই সাদা মনের মানুষ।

জিয়াউল হক বলেন, ‘ভালো কিছু করলে যে ভালো কিছু পাওয়া যায় তার প্রমাণ পেলাম। আমাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে যে সম্মান জানানো হবে এটা জানার পর থেকে মন থেকে আনন্দিত হয়েছি। এ বয়সে একুশে পদকের মতো এতো বড় সন্মান পেয়ে আমি সত্যিই খুশি হয়েছি।’

বেচি দই কিনি বই, অতঃপর একুশে পদক
চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার মুশরীভুজা বটতলা গ্রামে নিজ বাড়িতে পাঠাগারে সাদা মনের মানুষ জিয়াউল হক। ছবি: নিউজবাংলা

বেচি দই কিনি বই

সাদাসিধে মানুষটি পেশায় দই বিক্রেতা। এক সময় সাইকেলে ঝুড়ি মাথায় নিয়ে পথে-ঘাটে ঘুরে ঘুরে দই বিক্রি করতেন। ৯১ বছর বয়সে এসেও তার রুটি-রুজির অবলম্বন দই বিক্রি।

জিয়াউল হকের দইয়ের খ্যাতি জেলা জুড়েই। খাঁটি গরুর দুধ দিয়ে দই বানানো। সেই সততার কারণেই ভোক্তাদের মনে জায়গা করে নেয় জিয়াউল হকের দই। অনেকেই তার দই কেনার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে তার বাড়ি পর্যন্ত ছুটে যান।

দই বিক্রি করে সামান্য আয় থেকেই এলাকার হতদরিদ্র তরুণদের মূলত পাঠ্যবই কিনে দিতেন জিয়াউল হক। নিজে অভারের কারণে পড়ালেখা করতে না পারার আক্ষেপ তার বরাবরের। গ্রামের কারও পড়ালেখা যাতে অর্থের অভাবে বন্ধ না হয়ে যা, সেই ভাবনা থেকেই পাঠ্যবই কিনে দেয়া শুরু করেন জিয়াউল হক।

বইয়ের সংখ্যা বাড়তে থাকলে পাঠাগার গড়ে তোলেন তিনি। ১৯৬৯ সালে ভোলাহাট উপজেলার মুশরীভূজা এলাকার বটতলা গ্রামে নিজ বাড়ির একটি কক্ষে গড়ে ওঠে তার পাঠাগার। ‘জিয়াউল হক সাধারণ পাঠাগার’ নামে সেই পাঠাগার দিন যত গড়িয়েছি ততই আলোকবর্তিকা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে এ পাঠাগারে ২০ হাজারের বেশি বিভিন্ন ধরনের বই রয়েছে।

জিয়াউল হকের দেয়া বই পড়ে আজ তারা শিক্ষক

জিয়াউল হকের কাছ থেকে বই নিয়ে পড়ে শিক্ষক হয়েছেন ভোলাহাট উপজেলার পীরগাছি দারুস সুন্নাত দাখিল মাদ্রাসার মজিবুর রহমান (৫৯) ও মুসরীভূজা ইউসুফ আলী হাইস্কুল এন্ড কলেজের আজিজুল হক (৪৫)।

তারা জানান, জিয়াউল হকের কাছ থেকে পাঠ্যবইসহ সার্বিক সহযোগিতা না পেলে তারা জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে পারতেন না। এ জন্য তাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। জিয়াউল হক একুশে পদকের জন্য মনোনীত হওয়ার খবরে তারা খুবই আনন্দিত।

শুধু এ দুজনই নন, আরও অনেকেই পড়ালেখা করেছেন জিয়াউল হকের পাঠাগারের বই নিয়ে।

জিয়াউল হক বলেন, ‘১৯৬০ সালে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণের কাজ শুরু করি। এখনও তা চলমান।’

মানুষের কল্যাণে ব্যয় করেছেন সাড়ে তিন কোটি টাকা

পেশায় দই বিক্রেতা, সাদাসিধে জিয়াউল হক সামাজিক নানা কল্যাণ কাজে এ পর্যন্ত খরচ করেছেন সাড়ে তিন কোটি টাকার বেশি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অসহায় মানুষের ঘর নির্মাণ, টিউবওয়েল স্থাপন, মসজিদ, কবরস্থানের উন্নয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বই বিতরণসহ নানা খাতে তিনি ব্যায় করেছেন এই টাকা। জিয়াউল হকের সততার কারণে অনেকেই তার কাছে অনুদান পাঠিয়েছেন। সেসব সহযোগিতা গ্রহণ করে তিনি জনকল্যাণকর কাজে ব্যয় করেছেন।

জিয়াউল হক বলেন, ‘স্কুল-কলেজে বই বিতরণ, অসহায় মানুষের ঘর নির্মাণসহ বিভিন্ন সামাজিক কাজে যে সহযইগতা করেছি তার মধ্যে দেড় কোটি টাকাই দিয়েছেন আমার শুভাকাঙ্ক্ষীরা। বাকিটা দই বিক্রি করেই করা।’

পদকের অর্থে বানাবেন পাঠাগারের ঘর

জিয়াউল হকের নিজ বাড়ির একটি ঘরেই কার্যক্রম পরিচালিত হয় তার পাঠাগারের। বিকেল বেলা অনেক শিক্ষার্থী বই পড়ার জন্য আসেন। কিন্তু তাদের বসার স্থান সংকুলান হয় না। পাঠাগারের পরিসর বাড়ানোর পরিকল্পনা অনেক দিন থেকেই করছেন তিনি। কিন্তু পেরে উঠছিলেন না। তাই পদক থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়েই পাঠাগারের পরিসর বাড়ানোর চিন্তা গুণী এই মানুষটির।

পদকের অর্থ দিয়ে কী করবেন- এমন প্রশ্নে তাই জানালেন, ‘পাঠাগারে জায়গার সংকুলান হয় না। আরও একটি ঘর করতে পারলে ভালো হয়। এ অর্থ দিয়ে পাঠাগারের আরও একটি ঘর বানাব।’

ব্যক্তি-জীবন

মরহুম তৈয়ব আলী ও শরীফুন নেসা দম্পতির ছেলে জিয়াউল হকের জন্ম ১৯৩৮ সালে। ব্যক্তিগত জীবনে তার স্ত্রী, দুই কন্যা ও এক ছেলে সন্তান রয়েছে। প্রথম স্ত্রী সারাবান তহুরার মৃত্যুর পর দ্বিতীয় স্ত্রী ফরিদা হককে নিয়ে বটতলা গ্রামে বসবাস করছেন।

আনন্দের বন্যা চাঁপাইনবাবগঞ্জে

একুশের পদকের জন্য সাদামনের মানুষ মনোনীত হওয়ায় আনন্দের বন্য বয়ে যাচ্ছে উপজেলা ভোলাহাটসহ গোটা চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেকেই তার ছবি পোস্ট দিয়ে জানাচ্ছেন অভিনন্দন। বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি পর্যায়ে অনেকেই ফুল দিয়ে যাচ্ছেন জিয়াউল হকের বাড়িতে।

বুধবার তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা স্কাউটস। জেলা স্কাউট সম্পাদক গোলাম রশিদের অভিব্যক্তি, সাদা মনের মানুষ জিয়াউল হক একুশে পদকের জন্য মনোনয়ন পাওয়ায় জেলাবাসী গর্বিত ও আনন্দিত। তার এ সম্মানপ্রাপ্তিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নামটাও উজ্জ্বল হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ -২ (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট) আসনের সংসদ সদস্য মু. জিয়াউর রহমান বলেন, ‘যোগ্য একজন মানুষকেই একুশে পদকের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। তিনি দই বেচে বই কিনে পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করে এবং গরিব ছাত্রদের মাঝে বই বিলি করে সাদা মনের মানুষ হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন। সমাজসেবায়ও অনন্য অবদান রেখেছেন এই গুণী। তার এই প্রাপ্তিতে জেলাবাসী গর্বিত।’

আরও পড়ুন:
রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহসহ একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ জন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Coach Kanchan Academy reunion

কোচ কাঞ্চন একাডেমির মিলনমেলা

কোচ কাঞ্চন একাডেমির মিলনমেলা রাজধানীর ফরটিস ডাউনটাউন রিসোর্টে এলামনাই আপলিফট প্রোগ্রামে সমবেতরা। ছবি: নিউজবাংলা
অনুষ্ঠানের প্রথম ভাগে সকালে ব্রেইন সায়েন্সের ওপর স্পেশাল সেশন নেন একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা, বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক হ্যাপিনেস কোচ ও ব্রেইন ট্রেইনার কোচ কাঞ্চন। দ্বিতীয় অংশে তার পঞ্চম বই ‘ক্যাশ মেশিন’-এর উদ্বোধন হয়।

দেশের ই-লার্নিং ইতিহাসে অ্যালামনাইদের নিয়ে বড় মিলনমেলা হয়ে গেলো রাজধানী ঢাকায়। ‘একসাথে সমৃদ্ধি’ (Thrive Together) থিমের ওপর ভিত্তি করে শনিবার রাজধানীর ফরটিস ডাউনটাউন রিসোর্টে এলামনাই আপলিফট প্রোগ্রাম আয়োজন করে কোচ কাঞ্চন।

অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কোচ কাঞ্চন একাডেমির পাঁচ শতাধিক অ্যালামনাই অংশ নেন।

তাদের মধ্যে রয়েছেন তরুণ উদ্যোক্তা, করপোরেট লিডার, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী ও আইনজীবী।

দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের প্রথম ভাগে সকালে ব্রেইন সায়েন্সের ওপর স্পেশাল সেশন নেন একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা, বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক হ্যাপিনেস কোচ ও ব্রেইন ট্রেইনার কোচ কাঞ্চন।

দ্বিতীয় অংশে দুইবারের রকমারি বেস্টসেলার লেখক কোচ কাঞ্চনের পঞ্চম বই ‘ক্যাশ মেশিন’-এর উদ্বোধন হয়।

কোচ কাঞ্চন একাডেমির মিলনমেলা
অনুষ্ঠানে লেখক কোচ কাঞ্চনের পঞ্চম বই ‘ক্যাশ মেশিন’-এর উদ্বোধন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

সন্ধ্যায় জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে একাডেমির বিভিন্ন পর্যায়ের ১০ জন প্রশিক্ষণার্থীকে ‘স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ড’ ও পাঁচজনকে ‘এমপ্লয়ী অফ দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ড’ দেয়া হয়।

মিলনমেলায় বক্তব্যে কোচ কাঞ্চন বলেন, ‘আমি অনেক লস করে ট্রাজেডির মধ্য দিয়ে আজকের সফল অবস্থানে এসেছি। আমি চাই না আমার মতো আপনারাও এতো কষ্ট করেন। তাই তো আমার সব লার্নিং আপনাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত শেয়ার করছি। এই মিলনমেলা বাংলাদেশের ই-লার্নিং ইতিহাসে এক নতুন ইতিহাসের সূচনা করলো। ইতিহাসের এই পথ বেয়েই আমরা এগিয়ে যেতে চাই বহুদূর। এই আয়োজন ই-লার্নিং সম্পর্কে মানুষের আস্থা বাড়াবে।’

২০১৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩০ হাজারের বেশি প্রশিক্ষণার্থী কোচ কাঞ্চন একাডেমির বিভিন্ন সেশনে অংশগ্রহণ করে উপকৃত হয়েছেস। কোচ কাঞ্চনের বই পড়েছেন ৫০ হাজারের বেশি পাঠক।

কোচ কাঞ্চন একাডেমির এই মেগা মিলনমেলা ছিল পারস্পরিক সু-সম্পর্ক তৈরি ও হাতে হাত ধরে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hashem Lok Utsav begins Monday in Noakhali

নোয়াখালীতে হাশেম লোক উৎসব শুরু সোমবার

নোয়াখালীতে হাশেম লোক উৎসব শুরু সোমবার
শিক্ষা ও গবেষণায় অসামান্য অবদানের জন্য এ বছর মোহাম্মদ হাশেম পদক পাচ্ছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. দিদার-উল-আলম। এছাড়া শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ জনকল্যাণে বিশেষ ভূমিকার জন্য দুজনকে দেয়া হবে হাশেম লোক উৎসব-২০২৪ সম্মাননা।

লোকগীতির বরেণ্য গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী অধ্যাপক মোহাম্মদ হাশেমের ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ২২ জানুয়ারি সোমবার নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীতে শুরু হচ্ছে ‘হাশেম লোক উৎসব-২০২৪’।

জেলা শিল্পকলা একাডেমির বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে হাশেম লোক উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে বিকেল ৪টায়। নোয়াখালী জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে দু’দিনব্যাপী এ উৎসবের আয়োজন করেছে মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশন।

মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মুস্তফা মনওয়ার সুজন জানান, এবারের উৎসবে শিক্ষা ও গবেষণায় অসামান্য অবদানের জন্য মোহাম্মদ হাশেম পদক-২০২৪ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. দিদার-উল-আলম। এছাড়াও শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ জনকল্যাণে বিশেষ ভূমিকার জন্য হাশেম লোক উৎসব-২০২৪ সম্মাননা দেয়া হবে দু’জনকে।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে মোহাম্মদ হাশেম পদক ও সম্মাননা দেয়া হবে।

এর আগে বিকেল ৪টায় একই মঞ্চে ‘লোকগীতির জাদুকর মোহাম্মদ হাশেম’ শিরোনামে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন নোয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল ওয়াদুদ পিন্টু।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী মানছুরুল হক খসরু।

এদিন বিকেল সাড়ে ৫টায় বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে শুরু হবে সংগীত ও নৃত্যানুষ্ঠান। রাত ১০টায় কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীদের সনদ প্রদান করা হবে।

হাশেম লোক উৎসব-২০২৪ উপলক্ষে ‘লোকগীতির জাদুকর মোহাম্মদ হাশেম’ শিরোনামে স্মরণিকা প্রকাশ করা হবে।

নোয়াখালীর প্রধান সংগীত খ্যাত ‘আঙ্গো বাড়ি নোয়াখালী রয়াল ডিস্ট্রিক ভাই/ হেনী মাইজদী চৌমুহনীর নাম কে হুনে নাই’সহ হাজারও গানের গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী মোহাম্মদ হাশেমের জন্ম ১৯৪৭ সালের ১০ জানুয়ারি। তার জন্মস্থান নোয়াখালী সদরের চরমটুয়া ইউনিয়নের শ্রীকৃষ্ণপুর গ্রামে।

মোহাম্মদ হাশেম ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৭০ সালে রেডিও পাকিস্তানের অনুষ্ঠান সংগঠক হিসেবে তার পেশাজীবন শুরু। পর্যায়ক্রমে ঢাকা সংগীত কলেজ, কবিরহাট সরকারি কলেজ, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজসহ দেশের বিভিন্ন কলেজে শিক্ষকতার পর তিনি ২০০৫ সালে নোয়াখালী সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে অবসর নেন।

২০০৫ সালে অমর একুশে বইমেলায় উৎস প্রকাশন বের করে মোহাম্মদ হাশেমের গানের প্রথম সংকলন ‘নোয়াখালীর আঞ্চলিক গান’। এরপর ২০১৫ সালে মোহাম্মদ হাশেমের রচিত বাছাই করা আড়াই শ’ গান নিয়ে উৎস প্রকাশন বের করে ‘নির্বাচিত নোয়াখালীর আঞ্চলিক গান’।

মোহাম্মদ হাশেম ২০২০ সালের ২৩ মার্চ ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মাইজদী শহরের বড় দিঘির উত্তর পাড়ে কোর্ট মসজিদের পাশে তাকে সমাহিত করা হয়।

অধ্যাপক মোহাম্মদ হাশেমের লেখা গান চর্চা ও সংরক্ষণের লক্ষ্যে ২০২০ সালে যাত্রা শুরু করে মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশন। জেলা শহরে চার বছর ধরে মোহাম্মদ হাশেমের জন্মদিন উদযাপনে হাশেম উৎসব আয়োজন করে আসছে এই ফাউন্ডেশন। ২০২২ সাল থেকে প্রবর্তন হয় মোহাম্মদ হাশেম পদক।

গেল বছর মোহাম্মদ হাশেম পদক-২০২৩ পেয়েছেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের যন্ত্রশিল্পী গৌরাঙ্গ চন্দ্র সরকার। ২০২২ সালে একই পদক পান বরেণ্য গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক হাসান মতিউর রহমান এবং বাংলাদেশ বেতারের সাবেক মহাপরিচালক নারায়ণ চন্দ্র শীল।

এছাড়াও শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ জনকল্যাণে বিশেষ অবদানের জন্য মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের জুরিবোর্ড মনোনীত ১৩ বিশিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
নেচে-গেয়ে উদযাপিত হলো গারোদের ‘ওয়ানগালা’ উৎসব
ঐতিহ্যবাহী ‘খাসি সেং কুটস্নেম’ উৎসবে মাতলেন খাসিয়ারা
‘কুড়া পক্ষীর শূন্যে উড়া’ ও ‘পরাণ’ সেরা
জাহাজ ভাসা উৎসব, সম্প্রীতির মিলনমেলা
আনোয়ারা-কর্ণফুলীতে উৎসবের আমেজ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
PM gave job to rickshaw pullers MA pass wife

রিকশাচালকের এমএ পাস স্ত্রীকে চাকরি দিলেন প্রধানমন্ত্রী

রিকশাচালকের এমএ পাস স্ত্রীকে চাকরি দিলেন প্রধানমন্ত্রী সিমানুরের হাতে নিয়োগপত্র, ল্যাপটপ ও আর্থিক অনুদান তুলে দেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টিতে আসার পর ভাগ্য বদলে যায় প্রত্যন্ত গ্রামের দরিদ্র পরিবারটির। রিকশাচালক ফেরদৌস মন্ডলের স্ত্রী এখন বগুড়ার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রাথমিক শাখার সহকারী শিক্ষক।

বগুড়ার সেই রিকশাচালকের এমএ পাস করা স্ত্রীকে চাকরি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বগুড়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. সাইফুল ইসলাম তার হাতে কালেক্টর পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রাথমিক শাখার সহকারী শিক্ষক পদে চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেন।

জেলার গাবতলী উপজেলার বাগবাড়ি গ্রামের ফেরদৌস যখন বিয়ে করেন তখন তার স্ত্রী সিমানুর এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। বিয়ের পর স্ত্রীকে দেয়া কথা ফেরদৌস রেখেছিলেন। রিকশায় স্ত্রীকে কলেজে পৌঁছে দিয়ে তিনি নিজে রিকশা চালিয়ে সংসারের বোঝা টেনেছেন। রিকশা চালিয়ে সিমানুরের লেখাপাড়ার খরচ জুগিয়েছেন।

স্ত্রী এমএ পাস করার পর এবার তার জন্য চাকরি খুঁজতে শুরু করেন ফেরদৌস। এই দম্পতির সংগ্রামী জীবনকথা নিয়ে মিডিয়ায় খবর প্রকাশ হলে তা তা নজরে আসে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার। বগুড়ার জেলা প্রশাসককে খোঁজখবর নিতে বলা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বার্তা পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে বগুড়ার জেলা প্রশাসক প্রশাসক মো. সাইফুল ইসলাম সোমবার ব্যবস্থা নেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টিতে আসার পর ভাগ্য বদলে যায় প্রত্যন্ত গ্রামের দরিদ্র পরিবারটির। রিকশাচালক ফেরদৌস মন্ডলের স্ত্রী এখন বগুড়ার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রাথমিক শাখার সহকারী শিক্ষক।

চাকরির সঙ্গে মিলেছে সিমানুরের স্বামী রিকশাচালক ফরদৌস মন্ডলের রিকশাা কেনার ঋণ পরিশোধের জন্য ২৫ হাজার টাকা, বাড়ি সংস্কারের টিন ও আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে রিকশাচালকের উচ্চশিক্ষিত স্ত্রী যেন শক্তিশালী আর্থিক ভিত্তিতে পৌঁছাতে পারেন সে জন্য একটি ল্যাপটপ।

জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম জানান, ‘এসবই হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায়। সোমবার সিমানুরের হাতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেয়া হয়েছে।’

নিয়োগপত্র হাতে পেয়ে সিমানুর স্কুলে গিয়ে সহকারী শিক্ষক পদে যোগদান করেন। চাকরি পেয়ে তার উৎসাহ আরও বেড়েছে। চাকরির পাশাপাশি তিনি এখন বিসিএস-এর জন্য প্রস্তুতি নিতে চান। তিনি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার কৃতজ্ঞতার কথা পৌঁছে দেয়ার অনুরোধ জানান।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mukti Jodha Parivar organizations debut in the media

‘গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার’ সংগঠনের আত্মপ্রকাশ

‘গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার’ সংগঠনের আত্মপ্রকাশ বুধবার আগারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করে ‘গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার-জিএমপি’। ছবি: নিউজবাংলা
লেখক-সাংবাদিক হারুন হাবীব মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘দেরিতে হলেও এমন একটি উদ্যোগের বড় বেশি প্রয়োজন ছিলো। অবশেষে গণমাধ্যমকর্মীরা তা শুরু করেছেন।’

‘বিশ্ব গণমাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ’ বিষয়ক আলোচনার মধ্যদিয়ে যাত্রা শুরু করলো ‘গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার-জিএমপি)’ নামের একটি সংগঠন।

বুধবার বিকেলে আগারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সেমিনার কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করে সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে মূল আলোচক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক কাবেরী গায়েন। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি গণমাধ্যমগুলোর ভূমিকা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘বেশকিছু গণমাধ্যম বাংলাদেশের পক্ষে কথা বললেও অপর একটি অংশ মুক্তিযুদ্ধকে সহজভাবে নেয়নি। বিশেষ করে আমাদের সে সময়ে ঘটে যাওয়া গণহত্যাটিও আড়াল হয়েছে নানাভাবে।’

শহীদ বুদ্ধিজীবীর সন্তান নুজহাত চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের গণমাধ্যম এখন অনেক শক্তিশালী। আমরাই আমাদের ইতিহাসের সঠিক তথ্য অনুসন্ধান করে গণমাধ্যমে প্রকাশ করতে পারি। মানুষকে জানাতে পারি সেসব ঘটনার বীভৎসতা। একাত্তরে গণহত্যার সঠিক ইতিহাস গণমাধ্যমে প্রকাশ করে বিশ্ব দরবারে এর স্বীকৃতি আদায় করতে হবে।’

অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাফল্য কামনা করে এই সংগঠনে যুক্ত থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা, লেখক ও সাংবাদিক হারুন হাবীব মুক্তিযুদ্ধের সময়ের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘দেরিতে হলেও এমন একটি উদ্যোগের বড় বেশি প্রয়োজন ছিলো। অবশেষে গণমাধ্যমকর্মীরা তা শুরু করেছেন।’

অনুষ্ঠানে সংগঠনটির সভাপতি একাত্তর টিভির সাংবাদিক মহিম মিজান বলেন, ‘বাঙালির মুক্তি-সংগ্রামের ইতিহাসের অচ্ছেদ্য অংশ হয়ে আছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ও সাংবাদিক সমাজের অবদান। গণমাধ্যমকর্মীদের এই অবদান তুলে ধরতেই এ আয়োজন।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A primary school was finally established in Khasiapunji on the initiative of the YouTuber

ইউটিউবারের উদ্যোগে অবশেষে খাসিয়াপুঞ্জিতে বসল প্রাথমিক বিদ্যালয়

ইউটিউবারের উদ্যোগে অবশেষে খাসিয়াপুঞ্জিতে বসল প্রাথমিক বিদ্যালয় নব নির্মিত বিদ্যালয়ের সামনে আনন্দিত শিশুরা। ছবি: নিউজবাংলা
খাসি সোশ্যাল কাউন্সিলের প্রচার সম্পাদক সাজু মার্ছিয়াং বলেন, ‘সম্প্রতি ইনফো হান্টার চ্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা সাকিবুর রহমান ভাই আমাদের স্কুলের সমস্যা নিয়ে ফেসবুক ও ইউটিউবে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। এত দেশে-বিদেশে অনেকে আমাদের সমস্যা জানতে ও বুঝতে পারেন। সাকিবুর ভাইয়ের কারণে আজ আমরা স্কুলটি পেলেম। আমাদের কষ্টের অবসান ঘটলো।’

সিলেটের মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া। খাসিয়া উপজাতির মানুষদের বসবাস এখানে। খাসিয়া পুঞ্জির শিশুদের শিক্ষার জন্য দীর্ঘদিন থেকে এখানে চাহিদা একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। খাসি সোশ্যাল কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ফিলা পতমী জানান, স্কুলের জন্য স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের কাছে বেশ কয়েকবার গেলেও পাত্তা দেননি কেউই।

বৃহস্পতিবার খাসিয়া পুঞ্জির শিশুদের শিক্ষার এ সমস্যা সমাধানে ৪ জন বিদেশী বন্ধুর সহায়তায় নতুন প্রাথমিক বিদ্যালয় উদ্বোধন করেন একজন বাংলাদেশী ইউটিউবার।

ইউটিউবভিত্তিক চ্যানেল ইনফো হান্টারের (Info Hunter) প্রতিষ্ঠাতা সাকিবুর রহমান তার ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজে খাসিয়াপুঞ্জির শিশুদের পড়াশোনার দুর্ভোগের চিত্র তুলে ধরে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও প্রচারের পর ওই ভিডিও দেখে শিশুদের পড়াশোনার দুর্ভোগ লাঘবে এগিয়ে আসেন জার্মান, লন্ডন ও যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৪ ব্যক্তি। তাদের সহায়তায় লাউয়াছড়া খাসিয়াপুঞ্জির শিশুদের পড়াশোনার সমস্যার দীর্ঘদিনের অপেক্ষার অবসান ঘটে।

বৃহস্পতিবার সকালে অতিথিদের নিয়ে স্কুলটি উদ্বোধন করা হয়। ৪০ জন শিক্ষার্থী ও দুইজন শিক্ষক নিয়ে চালু হয় এই স্কুল। শিক্ষকদের মধ্যে ১ জন খাসিয়া ভাষা ও ১ জন বাংলা ভাষায় পাঠদান করাবেন শিক্ষার্থীদের।

প্রাথমিক বিদ্যালয়টির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইনফো হান্টারের প্রতিষ্ঠাতা সাকিবুর রহমান, ব্যবসায়ী সৈয়দ ইশতিয়াক বাবেল, আসাদুর রহমান, খাসি সোশ্যাল কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ফিলা পতমী, প্রচার সম্পাদক সাজু মার্ছিয়াং প্রমুখ।

ইউটিউবারের উদ্যোগে অবশেষে খাসিয়াপুঞ্জিতে বসল প্রাথমিক বিদ্যালয়

খাসি সোশ্যাল কাউন্সিলের প্রচার সম্পাদক সাজু মার্ছিয়াং জানান, এলাকায় যেই বিদ্যালয়টি ছিল, তা দূরে হওয়ায় বাচ্চাদের পড়াশোনা করানো এলাকাবাসীর জন্যে কষ্টকর ছিল। তারা শিশুদেরকে একদিন স্কুলে নিয়ে গেলে বাকি ৫ দিন নিয়ে যেতে পারতেন না। স্কুল দূরে হওয়ায় ও অর্থনৈতিক সংকট থাকায় শিশুদের বিদ্যালয়ে নেয়া ছিল কঠিন।

তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি ইনফো হান্টার চ্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা সাকিবুর রহমান ভাই আমাদের স্কুলের সমস্যা নিয়ে ফেসবুক ও ইউটিউবে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। এত দেশে-বিদেশে অনেকে আমাদের সমস্যা জানতে ও বুঝতে পারেন। সাকিবুর ভাইয়ের কারণে আজ আমরা স্কুলটি পেলেম। আমাদের কষ্টের অবসান ঘটলো।’

নব নির্মিত এই স্কুলের দুইজন শিক্ষক সামসুন্নাহার ও এলটি।

সামসুন্নাহার বলেন, ‘এখানে বেসরকারি স্কুলটি হওয়ার পর আমাদের নিয়োগ দিয়েছে স্থানীয় খাসিয়া পুঞ্জির নেতৃবেৃন্দরা। আমরা দুইজন শিক্ষক পাঠদান করাবো। একজন বাংলা ও একজন খাসি ভাষার ওপড় ক্লাস নেব।’

খাসি সোশ্যাল কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ফিলা পতমী বলেন, ‘স্কুলের জন্য স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের কাছে অনেকবার গিয়েছি। কেউ পাত্তা দেননি। আজ সাকিবুর ভাইয়ের মাধ্যমে আমাদের বাচ্চারা স্কুল পেয়েছে। উনাকে খাসিয়া পুঞ্জির সবার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের এক ফাঁকে এ বিষয়ে কথা হয় ইনফো হান্টারের প্রতিষ্ঠাতা সাকিবুর রহমানের সঙ্গে।

ইউটিউবারের উদ্যোগে অবশেষে খাসিয়াপুঞ্জিতে বসল প্রাথমিক বিদ্যালয়

তিনি বলেন, ‘আমি যখন আমার ইউটিউব ও ফেসবুক পেজে এ স্কুলের ভিডিও আপলোড দেই, তখন লাখ লাখ মানুষ তা দেখে। তাদের দীর্ঘদিনের চাহিদা ১টা প্রাথমিক স্কুলের। পরে ভাবলাম একটা স্কুলের ব্যবস্থা করে দেব। আমার ভিডিও দেখে অনেকে সাড়া দেন। এর মধ্যে ৪ জনের সহযোগীতায় আমি স্কুলের ব্যবস্থা করে দেই। তাদের দীর্ঘদিনের সমস্যার কিছুটা হলেও অবসান ঘটলো। স্কুলটা করতে প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা লেগেছে। সব টাকাই বিদেশী ৪ জন বন্ধুর মাধ্যমে পেয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘অন্যান্য পুঞ্জিগুলোকে এভাবে সহযোগিতা করব বলে আশা করছি। আমার মানবিক ভাইদের সহযোগিতায় এই কাজগুলো ধারাবাহিকভাবে করে যাব, যাতে সবার উপকার হয়।’

মন্তব্য

p
উপরে