× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Opposition movement will be swept away with corruption Planning Minister
google_news print-icon

বিরোধী দলের আন্দোলন কচুরিপানার সঙ্গে ভেসে যাবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

বিরোধী-দলের-আন্দোলন-কচুরিপানার-সঙ্গে-ভেসে-যাবে-পরিকল্পনামন্ত্রী
সুনামগঞ্জে রোববার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পাঠদান কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা
দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকে মন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আলু ডিম নিয়ে কিছু লোক খেলা খেলতে চেয়েছিল আমরাও খেলা খেলবো তবে আমরা খেলবো বাজারে আলু, ডিম আমদানি করে।’

পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন, ‘মানুষ নির্বাচনে যাবে, মানুষের মধ্যে আনন্দ উৎসাহ রয়েছে। নির্বাচনী জোয়ারে বিরোধী দলের আন্দোলন কচুরিপানার সঙ্গে ভেসে যাবে।’

সুনামগঞ্জে রোববার সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পাঠদান কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আগে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনের পরিবেশ এখনো শতভাগ তৈরি হয়নি তবে সময়মতোই দেশে জনগণের নির্বাচন জোয়ার বইবে। হরতাল-অবরোধের কারণে দেশে অর্থনৈতিক ক্ষতি হচ্ছে এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

‘যারা এমন কর্মসূচি দিচ্ছে তারা নিজেরাই নিজেদের পায়ে কুড়াল মারছে, জাতির পায়ে কুড়াল মারছে। অতীতেও কিছু মানুষ এমন অপকর্মের চেষ্টা করেছে কিছুই করতে পারেনি, ভবিষ্যতেও পারবে না। লড়াই সংগ্রম করে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। দরকার হলে আবারও দেশের মানুষ উন্নয়নের সংগ্রাম করে উন্নয়নের সরকার শেখ হাসিনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

মূল্যস্ফিতি তিনি বলেন, ‘সব কিছু সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেই, মূল্যস্ফিতি সকল দেশেই আছে, আমাদের দেশেও আছে। প্রতিবেশী দেশ ভারতেও বর্তমানে ৮ ভাগ ও ইংল্যান্ডে ৯ ভাগ মূল্যস্ফিতি আছে। এর মানে এটা না যে মন্দ দিয়ে ভালোর মূল্যায়ন করা যায় না, তবে সরকার চেষ্টা করছে।

‘সরকারের মূল লক্ষ্য নিম্ন আয়ের মানুষ। সরকার এক থেকে দেড় কোটি নিম্ন আয়ের মানুষকে ন্যায্য মূল্যে খাবার দিচ্ছে। এই ন্যায্য মূল্যে খাবার বিতরণ করায় মূল্যস্ফিতির ছোবল টা নিচে দিকে থাকছে। এইটা না হলে মূল্যস্ফিতি ১৫ থেকে ১৬ ভাগে উঠে যেত। সরকার এ মূল্যস্ফিতি আরও কমিয়ে আনবে। এখন অগ্রয়াহন মাস আর ২০ থেকে ২২ দিন পরেই ধান কাটা শুরু হবে তখন আরও মূল্যস্ফিতি নামা শুরু হবে।’

দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকে মন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আলু ডিম নিয়ে কিছু লোক খেলা খেলতে চেয়েছিল আমরাও খেলা খেলবো তবে আমরা খেলবো বাজারে আলু, ডিম আমদানি করে।’

এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী, সুনামগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল কলেজের প্রকল্প পরিচালাক ডা. শামস উদ্দিন আহমেদ, সিভিল সার্জন আহমদ হোসেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহশান শাহ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান বখত পলিনসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন:
সৌদির উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী
গাড়িতে লাঠি ও লোহার রড রাখার পরামর্শ তথ্যমন্ত্রীর
নৌকা যাকেই দেই, বিজয়ী করুন: প্রধানমন্ত্রী
আন্দোলন কীভাবে বন্ধ করতে হয় জানা আছে: প্রধানমন্ত্রী
আরামবাগের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Want justice for every accused in BDR mutiny case Moin

বিডিআর বিদ্রোহ মামলার প্রত্যেক আসামির সুবিচার চাই: মঈন

বিডিআর বিদ্রোহ মামলার প্রত্যেক আসামির সুবিচার চাই: মঈন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বক্তব্য দিচ্ছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান। ফাইল ছবি
আবদুল মঈন খান বলেন, “অপরাধী শাস্তি পাবে, সে সম্বন্ধে আমাদের কিছু বলার নেই, কিন্তু আমরা যে আইনের ব্যবস্থায় বিশ্বাস করি, যার ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশের জুরিসপ্রুডেন্স (আইনের দর্শন) এবং জাস্টিস সিস্টেম (বিচার ব্যবস্থা) দাঁড়িয়েছে, সেখানে একটি কথা বলা আছে। সে কথাটি হচ্ছে এই যে, ‘কোনো দোষী ব্যক্তি যদি আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বের হয়ে যায়, সেটা হতে পারে। একজন নিদোর্ষ ব্যক্তিও যেন কখনও শাস্তি না পায়।’ আমরা সেই নীতিতে বিশ্বাস করি এবং সেই নীতিতে বিশ্বাস করে আমরা আজকে প্রতিটি বিডিআরের এই দুঃখজনক ট্র্যাজেডির প্রতিটি মানুষ, যারা এই সংক্রান্ত মামলায় যারা অভিযুক্ত রয়েছে, তাদের সুবিচার আজকে আমরা কামনা করি।”

রাজধানীর পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় হওয়া দুই মামলার প্রতিটি আসামির সুবিচার দাবি করেছেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান।

পিলখানায় নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ১৫তম বার্ষিকীতে রাজধানীর বনানীতে শহীদ সেনা কর্মকর্তাদের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন দাবি করেন।

পিলখানায় ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি বিডিআর বিদ্রোহ চলাকালে ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর এ হত্যা মামলার রায় হয়। তাতে ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড, ১৬০ জনকে যাবজ্জীবন ও ২৫৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মামলায় ২৭৮ জনকে খালাস দেয়া হয়। এ বিষয়ে আপিল সর্বোচ্চ আদালতে শুনানির অপেক্ষায়।

আদালত সংশ্লিষ্টরা জানান, বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় হওয়া দুটি মামলার মধ্যে হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড এবং যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে ১৮৪ জনের আপিল এখন দেশের সর্বোচ্চ আদালতে শুনানির অপেক্ষায়। আর বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের মামলায় চলছে সাক্ষ্যগ্রহণ।

বিডিআর বিদ্রোহের বিষয়ে জানতে চাইলে আবদুল মঈন খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের সেই কথাটি পুনরায় বলতে হয় যে, এই ঘটনা কীভাবে ঘটেছে, এই ঘটনার যবনিকার পেছনে কী ছিল, আজকে বাংলাদেশের মানুষ সেই সত্যি জানতে চায়। এটা তো গেল একটি দিক। অন্য দিকটি, যে মানবিক দিক, সেই দিকে আমি আপনাদের দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে চাই।

‘যারা প্রাণ দিয়েছিলেন, সেই ৫৭ জন ছাড়াও আরও সর্বমোট প্রায় ৭৪ জন যারা প্রাণ দিয়েছিলেন, তাদের পরিবারবর্গ যারা রয়েছেন, আপনারা তাদের কথাটি, তাদের যে বেদনা, সেই বেদনার কথা একবার চিন্তা করে দেখুন এবং সর্বশেষ তৃতীয় যে দিকটি রয়েছে, যে বিচারের কথা আমরা শুনেছি, সে বিচার হয়েছে, সে বিচার কি হয়নি, সে বিচারে কি আপিল হয়েছে, সে আপিলের শুনানি কি আজকে ১৫ বছর পার হয়েছে, তার পরবর্তীতে ২০১১ সালে কি আরেকটি বিস্ফোরক মামলা দেয়া হয়েছে, সেই মামলার বিচারকার্য আজকে প র্যন্ত কেন বিলম্বিত হচ্ছে?’

বিডিআর বিদ্রোহ মামলার বিচার নিয়ে বিএনপির বর্ষীয়ান এ রাজনীতিক বলেন, “একটি কথা আছে আমাদের বাংলা ভাষায়: বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদে। ইংরেজি ভাষায় একটি কথা আছে, ‘যদি বিচার বিলম্ব হয়, তাহলে সেই বিচারের কোনো মূল্য থাকে না।’ কাজেই আজকে আমরা শুনেছি যে, সেই বিচার প্রক্রিয়া এখনও ঝুলে আছে।

“কেন ঝুলে আছে, কেন সেই অভিযোগে, যাদেরকে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে, তারা আজকে পর্যন্ত বিনা বিচারে কেন তারা কারাবাস করছেন?”

তিনি বলেন, “অপরাধী শাস্তি পাবে, সে সম্বন্ধে আমাদের কিছু বলার নেই, কিন্তু আমরা যে আইনের ব্যবস্থায় বিশ্বাস করি, যার ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশের জুরিসপ্রুডেন্স (আইনের দর্শন) এবং জাস্টিস সিস্টেম (বিচার ব্যবস্থা) দাঁড়িয়েছে, সেখানে একটি কথা বলা আছে।

“সে কথাটি হচ্ছে এই যে, ‘কোনো দোষী ব্যক্তি যদি আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বের হয়ে যায়, সেটা হতে পারে। একজন নিদোর্ষ ব্যক্তিও যেন কখনও শাস্তি না পায়।’ আমরা সেই নীতিতে বিশ্বাস করি এবং সেই নীতিতে বিশ্বাস করে আমরা আজকে প্রতিটি বিডিআরের এই দুঃখজনক ট্র্যাজেডির প্রতিটি মানুষ, যারা এই সংক্রান্ত মামলায় যারা অভিযুক্ত রয়েছে, তাদের সুবিচার আজকে আমরা কামনা করি।”

আরও পড়ুন:
পিলখানা ট্র্যাজেডি: বিচার দ্রুত শেষ হবে, আশা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর
যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে ফখরুল, উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক
সুসময় এলে সব হত্যা-গুমের বিচার করবে বিএনপি: মিনু
সরকার পরিবর্তন অবশ্যই হবে: নজরুল
বিএনপি রোজা রমজান ঈদ কোনোটাই মানে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
1400 candidates for two posts of Chittagong Chhatra League

চট্টগ্রাম ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের জন্য প্রার্থী ১৪০০

চট্টগ্রাম ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের জন্য প্রার্থী ১৪০০ ফাইল ছবি
এবার ১৪ শ’ জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়লেও আলোচনায় আছেন মাত্র ১৫ থেকে ২০ জন। এদের মধ্যে থেকেই শীর্ষ পদে আসতে পারেন। তাদের বেশিরভাগই নগরের এমইএস, সিটি ও ইসলামিয়া কলেজকেন্দ্রিক ছাত্রলীগ নেতা।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। ইতোমধ্যে কমিটির গঠন প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে আগ্রহীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়েছে। মিলেছে অভাবনীয় সাড়া।

শীর্ষ এ দুটি পদে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন অন্তত এক হাজার ৪০০ জন। তারা নানাভাবে চেষ্টা-তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্যে পদপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে জীবনবৃত্তান্ত গ্রহণ করা শুরু করে তারা। ১৬ ফেব্রুয়ারি জীবনবৃত্তান্ত জমা দেয়ার শেষ দিন থাকলেও পরে সময় বাড়িয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত করা হয়।

জানা গেছে, প্রায় দুই দশক ধরে মহানগর ছাত্রলীগ কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ এমইএস এবং সিটি কলেজ-কেন্দ্রিক হয়ে পড়ে। এবারও নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে এ দুই কলেজের শিক্ষার্থীদের আধিক্যই লক্ষণীয়। তবে নতুন কমিটির শীর্ষ দুটি পদের অন্তত একটি এবার এই দুই কলেজের বাইরে যেতে পারে বলে বলছেন অনেকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবার ১৪০০ জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়লেও আলোচনায় আছেন মাত্র ১৫ থেকে ২০ জন। এদের মধ্যে থেকেই শীর্ষ পদে আসতে পারেন। তাদের বেশিরভাগই নগরের এমইএস, সিটি ও ইসলামিয়া কলেজ-কেন্দ্রিক ছাত্রলীগ নেতা।

তবে এবার তিন কলেজকে ডিঙিয়ে আলোচনায় উঠে এসেছে চট্টগ্রাম কলেজ ও সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ। ১৯৮২ সাল থেকে সাড়ে তিন দশক ধরে ছাত্রশিবিরের দখলে ছিল চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসিন কলেজ। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর কলেজের রাজনীতি শিবিরের দখলমুক্ত করে নগর ছাত্রলীগ। এরপর থেকে ছাত্রলীগের কার্যক্রম শক্তভাবে চলে আসছে। এ কারণে এ দুই কলেজকে প্রাধান্য দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নগর ছাত্রলীগের কমিটির জন্য পদপ্রত্যাশী নেতা-কর্মীরা মূলত দুটি বলয়ে বিভক্ত। তাদের একটি পক্ষ হচ্ছে প্রয়াত সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী। এই পক্ষ বর্তমানে মহিউদ্দিনপুত্র শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারী বলে নিজেদের পরিচয় দেন। অপর পক্ষটি হলো নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলয়ের।

ছাত্রলীগের নতুন কমিটির পদ ভাগিয়ে নিতে নওফেল ও নাছির অনুসারীদের মধ্যে স্নায়ু লড়াই চলছে। নগর যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটির শীর্ষ পদ ভাগিয়ে নিয়েছেন নওফেল অনুসারীরা। ছাত্রলীগের কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদেও কি নওফেল অনুসারীরা প্রাধান্য পাবে- তা নিয়ে চলছে জোর আলোচনা।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি এবং নগর কমিটির সভাপতি পদপ্রত্যাশী মাহমুদুল করিম বলেন, ‘আমি সিভি জমা দিয়েছি। চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসিন কলেজ শিবিরমুক্ত করতে আমরা কী করেছি, সেটা সবাই জানেন। আমার প্রত্যাশা, ত্যাগী ও কর্মঠ কর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে।’

নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু বলেন, ‘নতুন কমিটি গঠনের বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের জানিয়েছি। সবকিছু যাচাইবাছাই করেই দ্রুত কমিটি ঘোষণা করবেন বলে আশা করি।’

নগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন- চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. নূরুন নবী সাহেদ, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হায়দার, কোতোয়ালি থানা ছাত্রলীগের সভাপতি অনিন্দ্য দেব, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম, মহসিন কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার পলাশ, মহসিন কলেজের মায়মুন উদ্দীন, ওমরগণি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগের জাহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ হানিফ, সরকারি সিটি কলেজ ছাত্রলীগের আশীষ সরকার, মুহাম্মদ তাসিন, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগের মীর মুহাম্মদ ইমতিয়াজ, শাহাদাত হোসেন হীরা, ইমন হোসেন, আজিজুর রহমান, মিজানুর রহমান, নগর ছাত্রলীগের উপ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক রাশেদ চৌধুরী, উপ-ছাত্রবৃত্তিবিষয়ক সম্পাদক এস এম হুমায়ন কবির আজাদ, নগর ছাত্রলীগ নেতা ফাহাদ আনিস ও খালেকুজ্জামান, কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বোরহান উদ্দিন প্রমুখ।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এম এ আহাদ চৌধুরী রায়হান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে স্থান পেতে এক হাজার চারশ’র মতো বায়োডাটা জমা পড়েছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা যাচাইবাছাই করে করে এ বিষয়ে যথাসময়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান তিনি।

২০১৩ সালের ৩০ অক্টোবর ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি ও নুরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন নুরুল আজিম রনি। সেসময় সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরকে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rice market stable Food Minister

চালের বাজার স্থিতিশীল: খাদ্যমন্ত্রী

চালের বাজার স্থিতিশীল: খাদ্যমন্ত্রী উপকারভোগীদের মাঝে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। ছবি: নিউজবাংলা
মন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের পরেই চালের দাম বাড়িয়ে একটি চক্র খেলতে চেয়েছিল। তাদের সে খেলা আমরা শক্তভাবে দমন করতে সক্ষম হয়েছি। প্রশাসনিকভাবে আমরা তাদের চক্রান্ত প্রতিহত করেছি। চালের বাজার এখন একটা স্থিতিশীল অবস্থায় এসেছে।

একটি চক্রকে শক্তহাতে দমন করায় চালের বাজার এখন স্থিতিশীল অবস্থায় আছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

শনিবার বিকেলে নওগাঁর পোরশা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে প্রাপ্ত চেক উপকারভোগীদের মাঝে বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের পরেই চালের দাম বাড়িয়ে একটি চক্র খেলতে চেয়েছিল। তাদের সে খেলা আমরা শক্তভাবে দমন করতে সক্ষম হয়েছি। প্রশাসনিকভাবে আমরা তাদের চক্রান্ত প্রতিহত করেছি। চালের বাজার এখন একটা স্থিতিশীল অবস্থায় এসেছে।

আসন্ন রমজানে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিরোধে স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি ভোক্তাদেরও সতর্ক থাকার জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের চেক অনেকেই পেয়েছেন। দলমত নির্বিশেষে দেশের মানুষ প্রধানমন্ত্রীর দেয়া সাহায্য পায়।

এ সময় উপজেলার ৩৭জন উপকারভোগী প্রতিজনের হাতে একটি করে ৫০ হাজার টাকার চেক বিতরণ করেন খাদ্যমন্ত্রী।

উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ইউএনও আরিফ আদনানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে এ সময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ্ মঞ্জুর মোরশেদ চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান কাজীবুল ইসলাম ও মমতাজ বেগম, কৃষি কর্মকর্তা মেহেদী হাসান, আবাসিক মেডিকেল অফিসার তারিকুল ইসলাম, অফিসার ইনচার্জ আতিয়ার রহমান সহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
খাদ্যের অবৈধ মজুতকারীরা দেশের শত্রু: খাদ্যমন্ত্রী
খাদ্যমন্ত্রীর সংবাদ বয়কট দিনাজপুরের সাংবাদিকদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fakhrul at the US Embassy at the invitation of Peter Haas

যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে ফখরুল, উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক

যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে ফখরুল, উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক ফেসবুক থেকে নেয়া
এতে বলা হয়, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাসের আমন্ত্রণে গুলশানস্থ যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ।

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাসের আমন্ত্রণে গুলশানে তাদের দূতাবাসে গিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামসহ দলের তিন নেতা।

বিএনপির ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে শনিবার বিকেলে দুটি ছবি পোস্ট করে এ তথ্য জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে দেয়া হয়েছে বৈঠকের খবরও।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাসের আমন্ত্রণে গুলশানস্থ যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ।

পোস্টে বলা হয়, সেখানে তারা বাংলাদেশ সফররত যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের (এনএসসি) দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক জ্যেষ্ঠ পরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল এইলিন লুবাখার, যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আফরিন আক্তার ও যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (ইউএসএআইডি) সহকারী প্রশাসক মাইকেল শিফার সঙ্গে বৈঠক করেন।

আরও পড়ুন:
সুসময় এলে সব হত্যা-গুমের বিচার করবে বিএনপি: মিনু
সরকার পরিবর্তন অবশ্যই হবে: নজরুল
বিএনপি রোজা রমজান ঈদ কোনোটাই মানে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Action as per Manifesto against Market Manipulation External Affairs Minister

বাজারে কারসাজির বিরুদ্ধে ইশতেহার অনুযায়ী ব্যবস্থা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাজারে কারসাজির বিরুদ্ধে ইশতেহার অনুযায়ী ব্যবস্থা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার দুপুরে রাজধানীতে জাতীয় সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে এলডি হল চত্বরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা
ভারত থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ দেশে আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রোজার আগেই কিছু পেঁয়াজ বাজারে ঢুকবে, কাজেই বাজার মোটামুটি স্থিতিশীল আছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘নির্বাচনি ইশতেহারে আমরা বলেছিলাম, দ্রব্যমূল্য যেন মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে, সেটি আমাদের অগ্রাধিকার। এই সরকারের যাত্রার শুরু থেকে সেই অগ্রাধিকার নিয়ে আমরা কাজ করছি এবং বাজারের অসাধু সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে সরকার সবরকম ব্যবস্থা নেবে।’

ভারত থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ দেশে আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রোজার আগেই কিছু পেঁয়াজ বাজারে ঢুকবে, কাজেই বাজার মোটামুটি স্থিতিশীল আছে।’

শনিবার দুপুরে রাজধানীতে জাতীয় সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে এলডি হল চত্বরে ‘রাঙ্গুনিয়া সমিতি, ঢাকা’ আয়োজিত সংবর্ধনা, মেজবান ও মিলনমেলা-২০২৪ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাজারের অসাধু লোভাতুর সিন্ডিকেট কারণে-অকারণে নানা অজুহাতে বিভিন্ন পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করে। আমরা দেখেছি, একটি কোল্ড স্টোরেজের ভেতর থেকে দেড় লাখ ডিম উদ্ধার করা হয়েছে। অতীতে পেঁয়াজের সংকট তৈরি করা হয়েছিল। আবার যখন বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হলো, বাজার পেঁয়াজে সয়লাব হয়ে গেল; তখন স্টোরেজ থেকে জমিয়ে রাখা পচা পেঁয়াজ ফেলে দেয়া হয়েছে। এই ধরনের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে আমাদের সরকার সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যারা সরকারকে টেনে নামাতে চায়, এই সিন্ডিকেটের সঙ্গে তারাও যে যুক্ত, সেটিও সঠিক। তবে আপনারা দেখছেন, বাজার মোটামুটি স্থিতিশীল আছে।’

বাজারে কারসাজির বিরুদ্ধে ইশতেহার অনুযায়ী ব্যবস্থা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কেবল পাইকারি বিক্রেতারা নয়, খুচরা বিক্রেতাদের মধ্যেও বেশি মুনাফা করার প্রবণতা দেখা দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা এটির বিরুদ্ধে জনগণকে সচেতন হতে বলেছি। সরকারও সর্বাত্মক ব্যবস্থা নেবে।’

‘বর্তমান সরকার পরিবর্তন হবেই’ বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খানের এ মন্তব্যের বিষয়ে সংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সরকার তো অবশ্যই পাঁচ বছর পর পরিবর্তন হবে। তখন দেশে নির্বাচন হবে, তারপর নতুন সরকার গঠন করা হবে। আশা করি, জনগণের ভোটে সেই সরকারেরও প্রধান হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

এর আগে, অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তৃতায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‘রাঙ্গুনিয়া সমিতি, ঢাকা’র সেবামূলক কার্যক্রম ও বিভিন্ন নিয়মিত আয়োজনের প্রশংসা করেন।

‘রাঙ্গুনিয়া সমিতি, ঢাকা’র সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের হুইপ সাইমুম সরওয়ার কমল, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, ‘চট্টগ্রাম সমিতি-ঢাকা’র সভাপতি মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার উজ্জ্বল মল্লিক বিশেষ অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

রাঙ্গুনিয়া সমিতির নেতারা এ সময় রাঙ্গুনিয়ার সন্তান চট্টগ্রাম-৭ আসনের সংসদ সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের হাতে সংবর্ধনা স্মারক তুলে দেন। পরে আয়োজক ও অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে সমিতির ‘গুমাই’ স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করেন মন্ত্রী।

আরও পড়ুন:
বাজারে কি ক্রেতার অভাব আছে, প্রশ্ন কাদেরের
বিএনপি রোজা রমজান ঈদ কোনোটাই মানে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The question is whether there is a lack of buyers in the market

বাজারে কি ক্রেতার অভাব আছে, প্রশ্ন কাদেরের

বাজারে কি ক্রেতার অভাব আছে, প্রশ্ন কাদেরের রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার ব্রিফিংয়ে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছবি: সংগৃহীত
ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পরও বাজারে সেগুলোর ঊর্ধ্বগতি কেন, তা নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের কাছে জানতে চান এক সাংবাদিক। ওই প্রশ্নের উত্তরে ক্ষমতাসীন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নেতা বলেন, ‘খাদ্য তো পাচ্ছেনই। একটা লোক না খেয়ে মারা গেছে বাংলাদেশে এত সংকটের মধ্যে? বলেন? বাজারে কি ক্রেতার অভাব আছে?

নানা সংকটের মধ্যেও বাংলাদেশে না খেয়ে কেউ মারা গেছে কি না এবং বাজারে ক্রেতার সংকট আছে কি না, সে প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি উল্লিখিত প্রশ্নগুলো করেন।

ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পরও বাজারে সেগুলোর ঊর্ধ্বগতি কেন, তা নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের কাছে জানতে চান এক সাংবাদিক।

ওই প্রশ্নের উত্তরে ক্ষমতাসীন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নেতা বলেন, ‘খাদ্য তো পাচ্ছেনই। একটা লোক না খেয়ে মারা গেছে বাংলাদেশে এত সংকটের মধ্যে? বলেন? বাজারে কি ক্রেতার অভাব আছে?

‘গত ঈদের সময় দেখছি, রাত তিনটার সময়ও মানুষ বাজারে কেনাকাটা করছে। পয়সা না থাকলে কিনছে? মানুষের পারচেজিং/বায়িং ক্যাপাসিটি (কেনার সামর্থ্য), পারচেজিং পাওয়ার (ক্রয়ক্ষমতা) বেড়ে গেছে। এটা হলো বাস্তবতা।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি সিন্ডিকেট লালনপালন করেছে, মজুতদারদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে, এ কথা বললে কি ভুল হবে? যারা করছে তারা বিএনপির পুরোনো সিন্ডিকেট।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি সরকার ছিল ব্যবসায়ী সরকার। আওয়ামী লীগ ব্যবসা করতে আসেনি। এখানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকার হাল ছেড়ে দিয়েছে, এ কথা মনে করার কোনো কারণ নেই।

‘বিভিন্নভাবে সরকার পরিকল্পনা নিয়ে যে অশুভ চক্র দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে জনঅসন্তোষের কারণ সৃষ্টি করছে, তাদের কোনো অবস্থাতেই ছাড় দেয়া হবে না। প্রধানমন্ত্রী নিজেই জোরালোভাবে সেটি বলেছেন।’

বিদ্যুতের দাম সমন্বয় আরেক দফা দাম বাড়ানোর ইঙ্গিত কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা তো বিদ্যুৎমন্ত্রীই বলছে…এটা আমি কেন বলতে যাব? যেই মন্ত্রী এটা ডিল করেন, তিনিই বলেছেন।

‘সমন্বয়ের বিষয়ে আগেও বলেছেন, এখনও বলছেন। বিদ্যুতে আমাদের ভর্তুকি অনেক বেশি হয়ে গেছে। ভর্তুকি আর বাড়তে দেয়া ঠিক হবে না।’

ক্ষমতায় থাকাকালে বিএনপি দফায় দফায় বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছিল উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে দিনে ১৮ ঘণ্টা লোডশেডি এবং সেখানে বিদ্যুতের দাম পাঁচ বছরে তারা ৯ বার বাড়িয়েছিল। আওয়ামী লীগ সরকার শতভাগ বিদ্যুৎ দিয়েছে। শেখ হাসিনার সরকারের আমলে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৯ হাজার ৭০০ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে।’

বিএনপি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবে এবং এই আন্দোলনে সরকারের পতন হবে, দলটির এক নেতার এমন মন্তব্যের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এখন প্রশ্ন হচ্ছে দেশে একটা নির্বাচন হয়ে গেল, তারা নির্বাচনে অংশ নেয়নি। আন্দোলনের নামে সন্ত্রাসের মহড়া দিয়েছে; আগুন সন্ত্রাস করেছে।

‘আন্দোলনের নামে কত ভয়ংকর ভূমিকায় বিএনপি হতে পারে, সেটা তারা করে দেখিয়েছে বারেবারে। জনগণ সম্পৃক্ত ছিল না বলে অতীতে তারা ব্যর্থ হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কক্সবাজারগামী পর্যটকদের জন্য ‘বিশেষ ট্রেন’
দেশে আন্দোলনের কোনো ইস্যু নেই: কাদের
দেশে উগ্রবাদের জন্ম বিএনপির হাত ধরে: কাদের
বিএনপিকে পরবর্তী নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার পরামর্শ কাদেরের
বিএনপিকে নিষিদ্ধ করার চিন্তা দলগতভাবে আওয়ামী লীগ করেনি: কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Illegal hoarders of food are enemies of the country Food Minister

খাদ্যের অবৈধ মজুতকারীরা দেশের শত্রু: খাদ্যমন্ত্রী

খাদ্যের অবৈধ মজুতকারীরা দেশের শত্রু: খাদ্যমন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রাধানগরে নির্বাচন-পরবর্তী সুধী সমাবেশে বক্তৃতা করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। ছবি: নিউজবাংলা
অবৈধ মজুতকারীরা বিএনপির দোসর উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা শেখ হাসিনাকে উৎখাত করতে চায়, বেকায়দায় ফেলতে চায়। আমাদের দেশকে রক্ষা করতে হবে। আপনারা যে ভোট দিয়েছেন, তার মর্যাদা রক্ষা করতে হবে।’

খাদ্যের অবৈধ মজুত করে যারা সংকট তৈরি করে তাদের ‘দেশের শত্রু’ বলে আখ্যায়িত করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

শুক্রবার বিকেলে নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রাধানগরে শিবনদীর উপরে ১৯২ মিটার দীর্ঘ নবনির্মিত সেতুর চলমান কার্যক্রম পরিদর্শন ও দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন-পরবর্তী সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

অবৈধ মজুতকারীরা বিএনপির দোসর উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা শেখ হাসিনাকে উৎখাত করতে চায়, বেকায়দায় ফেলতে চায়। আমাদের দেশকে রক্ষা করতে হবে। আপনারা যে ভোট দিয়েছেন, তার মর্যাদা রক্ষা করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের দুই দিন আগে হঠাৎ করে অসৎ ব্যবসায়ীরা চালের দাম ৮/১০ টাকা বাড়িয়ে দেয়। তারা মনে করেছিল, অন্য কেউ খাদ্যমন্ত্রী হলে বুঝতে বুঝতে একমাস পার হয়ে যাবে। যখন তারা দেখেছে মন্ত্রী সাধন মজুমদার হয়েছে, তখন তারা বেকায়দায় পড়েছে; আমাদেরও বেকায়দায় ফেলেছে।

‘চালের বাজার ঠিক রাখতে জেলায় জেলায় বৈঠক করতে হয়েছে। মজুতবিরোধী অভিযানও চালাতে হয়েছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস করে। ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ সে চেতনার পক্ষে রায় দিয়ে শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘রাধানগর সেতু রাজশাহী ও নওগাঁ জেলার মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়াতে ভূমিকা রাখবে। সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হবে সড়ক যোগাযোগ ক্ষেত্রে। গ্রামের সঙ্গে শহুরের মানুষের যোগাযোগ সহজ ও দ্রুততর হওয়ার ফলে কৃষক সহজেই তার পণ্য বাজারজাত করতে পারবে।’

বাহাদুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক, নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক সম্পাদক আবেদ হোসেন মিলন, সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ, সহ-সভাপতি ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন, সাধারণ সম্পাদক নারায়ন চন্দ্র প্রামাণিকসহ প্রমুখ।

মন্তব্য

p
উপরে