× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
The playground is shrinking in Tangail
google_news print-icon

টাঙ্গাইলে সংকুচিত হয়ে আসছে খেলার মাঠ

টাঙ্গাইলে-সংকুচিত-হয়ে-আসছে-খেলার-মাঠ
টাঙ্গাইল পৌরসভার বিভিন্ন মাঠে খেলাধুলার জন্য নেই পর্যাপ্ত জায়গা। ছবি: নিউজবাংলা
টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঈদগাহ মাঠকে যত দ্রুত সম্ভব খেলাধুলার উপযোগী করে গড়ে তোলা হবে। এরই মধ্যে আমি এ বিষয়ে পৌর মেয়রের সঙ্গে আলোচনা করেছি।’

১৩৬ বছরের পুরোনো ২৯ দশমিক ৪৩ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের টাঙ্গাইল পৌরসভার ১৮টি ওয়ার্ডে ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে খেলার মাঠ।

শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যসচেতন পৌর বাসিন্দাদের খেলাধুলা ও শরীর চর্চা করার মাঠগুলোতে গড়ে উঠেছে বড় বড় আকাশচুম্বী অট্টালিকা। কোনো কোনো মাঠে বসানো হয়েছে কাঁচাবাজার। আবার অনেক মাঠের জায়গার মালিকেরা প্লট আকারে বিক্রি করে দিয়েছেন তাদের ব্যক্তিগত জায়গা।

পৌরসভা কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, গত ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যেই পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে হারিয়ে গেছে ১৬টি খেলার মাঠ। আরও কয়েকটি খেলার মাঠ হারাতে বসেছে। কারণ, বিভিন্ন ওয়ার্ডে যে কয়টি খেলার মাঠ এখনও রয়েছে সেগুলোও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ধীরে ধীরে ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

স্থানীয়দের ভাষ্য, বছর জুড়ে মাঠগুলো বাণিজ্য মেলাসহ রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ব্যস্ত থাকে।

তাদের অভিযোগ, উঠতি বয়সী ছেলে মেয়েরা খেলাধুলার সুযোগ না পাওয়ায় ধীরে ধীরে আসক্ত হচ্ছে মোবাইল ফোনে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)-এর গবেষণায় জানা গেছে, শিশু-কিশোরদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য প্রতিদিন ন্যূনতম এক ঘণ্টা করে খেলাধুলা ও শারীরিক সক্রিয় কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকা প্রয়োজন।

টেকসই নগরায়ণ সংক্রান্ত জাতিসংঘের সংস্থা ইউএন-হ্যাবিটেটের তথ্য অনুযায়ী, হাঁটার দূরত্বে খেলার মাঠ থাকা উচিত। অতিঘন নগর এলাকায় প্রতি অর্ধবর্গ কিলোমিটারে জনসংখ্যা বিবেচনায় ন্যূনতম একটি করে খেলার মাঠ থাকা প্রয়োজন।

টাঙ্গাইল পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে মাঠের বর্তমান চিত্র

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, টাঙ্গাইল পৌর এলাকার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে খেলার মাঠের জায়গায় বসতভিটা গড়ে উঠেছে। এই ওয়ার্ডের থানাপাড়া এলাকার রেঞ্জার মাঠ, সবুজ সেনা মাঠ, থানাপাড়া ইস্টার্ন ক্লাব মাঠের (বাবুর্চির মাঠ) জায়গায় এরই মধ্যে বসতি গড়ে উঠেছে। ঘনবসতিপূর্ণ এই ওয়ার্ডে ৩টি খেলাধুলার ক্লাব থাকলেও তাদের কোনো খেলার মাঠ নেই।

স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, ২ নম্বর ওয়ার্ডের ঠাকুর বাড়ির মাঠটি মালিকানা দ্বন্দ্বে এলাকার শিশু-কিশোরদের ওই মাঠে খেলাধুলা প্রায় বন্ধ। স্থানীয়দের আন্দোলনের মুখে, বর্তমানে শিশু-কিশোররা ওই মাঠে খেলাধুলার সুযোগ পেলেও ভবিষ্যতে ওই মাঠের জায়গা প্লট আকারে বিক্রির আলোচনা চলছে।

তিনি জানান, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মির্জা মাঠ ও হাউজিং মাঠে নিকট অতীতে ওই এলাকার শিশু-কিশোররা খেলাধুলা করতো। এ ছাড়া সকাল ও বিকেল স্বাস্থ্য সচেতন লোকজন শরীরচর্চা করতো এই মাঠ দুটিতে। বর্তমানে মাঠগুলোতে বসতি গড়ে উঠেছে।

৬ নম্বর ওয়ার্ডের কলেজ পাড়ার বালুর মাঠে গড়ে উঠেছে বিশাল বিশাল ইমারত। একই এলাকার পানির ট্যাংকের মাঠে এখন আর শিশু-কিশোরদের প্রবেশ অধিকার নেই।

একই চিত্র ১১ নম্বর ওয়ার্ডের খালপাড় মাঠে। গড়ে উঠেছে বসতি; খেলাধুলার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা নেই।

প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে উঠে আসে, টাঙ্গাইল পৌর এলাকার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের ছোট কালিবাড়ী খেলার মাঠ ও কেওছার মাঠের এখন আর অস্তিত্ব নেই। এ ছাড়া নজরুল সেনা মাঠের জায়গায় গড়ে উঠেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শহিদ স্মৃতি পৌর উদ্যান।

এই ওয়ার্ডের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে এক সময় টাঙ্গাইল শহরের বিভিন্ন এলাকার শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি খেলাধুলা ও শরীরচর্চায় ব্যস্ত থাকতো। বর্তমানে এই মাঠের অধিকাংশ জায়গা জুড়ে বসেছে ট্রাকস্ট্যান্ড। ফলে শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সের লোকজন শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এই মাঠটি খেলাধুলা ও শরীরচর্চার জন্য এখন আর ব্যবহার করতে পারছে না।

১৭ নম্বর ওয়ার্ডের শিমুলতলী এলাকার বালুর মাঠে এখন গড়ে উঠেছে বসতি ও বিভিন্ন ধরনের ফল ও গাছের বাগান। ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কোদালিয়া মাঠটি এখন শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অ্যাকাডেমিক ভবন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে বলে জানান বাসিন্দারা।

টাঙ্গাইলে সংকুচিত হয়ে আসছে খেলার মাঠ

শহরের নামকরা একটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র জিসান আহমেদের (ছদ্মনাম) সঙ্গে প্রতিবেদকের কথা হয় শহিদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে।

জিসান বলে, ‘বিকেল থেকে অনেক রাত পর্যন্ত বন্ধুদের সঙ্গে পৌর উদ্যানে আড্ডা দেই। এক সময় আমার ওয়ার্ডে তিনটি খেলার মাঠ থাকলেও বর্তমানে কোনো খেলার মাঠ নেই। খেলাধুলার ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেকটা বাধ্য হয়েই পৌর উদ্যানে এসে আড্ডা দেই।’

সরকারি সৈয়দ মহাব্বত আলী কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘পৌর শহরে পর্যাপ্ত খেলার মাঠ না থাকার ফলে শিশু-কিশোরদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তারা ধীরে ধীরে আসক্ত হচ্ছে মোবাইল ফোনে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মোবাইল আসক্তি থেকে রক্ষা করার জন্য পৌর এলাকায় শিশু-পার্ক ও খেলার মাঠের কোনো বিকল্প নেই। পৌর শহরে যে কয়টি খেলার মাঠ এখনও অবশিষ্ট আছে সেগুলো রক্ষা করার জোর দাবি জানাচ্ছি।’

এ বিষয় টাঙ্গাইল পৌর মেয়র এস এম সিরাজুল হক আলমগীর বলেন, ‘ব্যক্তি মালিকানাধীন মাঠগুলোর ব্যাপারে পৌর কর্তৃপক্ষের করণীয় কিছু নেই, তবে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ, জেলা পরিষদ মাঠ ও শহিদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে পৌরসভার উন্নয়নমূলক কাজের জন্য কিছু জিনিসপত্র রাখা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগামী ১ মাসের মধ্যেই মাঠগুলো পরিষ্কার করে আবার খেলাধুলার উপযোগী করা হবে। এ ছাড়া ৩নম্বর ওয়ার্ডের হাউজিং স্টেটে শিশু-কিশোরদের জন্য একটি খেলার মাঠ তৈরি করার সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে।’

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঈদগাহ মাঠকে যত দ্রুত সম্ভব খেলাধুলার উপযোগী করে গড়ে তোলা হবে। এরই মধ্যে আমি এ বিষয়ে পৌর মেয়রের সঙ্গে আলোচনা করেছি।’

তিনি জানান, শিশু-কিশোরদের খেলাধুলা ও মানসিক বিকাশের জন্য টাঙ্গাইল পৌর শহরের অদূরে দাইন্যা ইউনিয়নের বাসাখানপুরে নির্মিত হচ্ছে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খেলাধুলাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেন বলেই দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম তৈরির প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Chhatra League accused the police of taking and selling shops for free
বইমেলা

ছাত্রলীগ পুলিশের বিরুদ্ধে ফ্রিতে দোকান নিয়ে বিক্রির অভিযোগ

ছাত্রলীগ পুলিশের বিরুদ্ধে ফ্রিতে দোকান নিয়ে বিক্রির অভিযোগ
বাংলা একাডেমি থেকে বিনা মূল্যে বইমেলায় তিনটি খাবারের দোকান বরাদ্দ নিয়ে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে শাহবাগ থানা পুলিশ ও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ ও ছাত্রলীগ বলেছে, তারা খাবারের কোনো দোকান নেয়নি। অন্যদিকে বাংলা একাডেমি বলছে, খরচপাতির কথা বলে পুলিশ ও ছাত্রলীগ বিনা মূল্যে তিনটি দোকান নিয়েছে।

বাংলা একাডেমি থেকে বিনা মূল্যে বইমেলায় তিনটি খাবারের দোকান বরাদ্দ নিয়ে সাড়ে ১৩ লাখ টাকায় বিক্রির অভিযোগ উঠেছে শাহবাগ থানা পুলিশ ও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।

এ অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ ও ছাত্রলীগ বলেছে, তারা খাবারের কোনো দোকান নেয়নি।

অন্যদিকে বাংলা একাডেমি বলছে, খরচপাতির কথা বলে পুলিশ ও ছাত্রলীগ বিনা মূল্যে তিনটি দোকান নিয়েছে।

বাংলা একাডেমির সূত্র নিউজবাংলাকে জানায়, হাত খরচের কথা বলে ছাত্রলীগ একটি আর বইমেলায় স্থাপিত পুলিশ কন্ট্রোলরুম তৈরির খরচ এবং এখানে আসা পুলিশ কর্মকর্তাদের আপ্যায়ন খরচের কথা বলে শাহবাগ থানা পুলিশ দুইটি খাবারের দোকান বিনা মূল্যে বরাদ্দ নিয়েছে।

ওই সূত্রের ভাষ্য, বইমেলায় আসা দর্শনার্থীদের খাবারের চাহিদা মেটাতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশের শেষ প্রান্তে ১৬টি প্রতিষ্ঠান এবং একজন ব্যক্তিকে ২১টি খাবারের দোকান বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে চারটি প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনকে বিনা মূল্যে দেয়া হয়েছে পাঁচটি দোকান। প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনগুলো হলো ছাত্রলীগ, কালী মন্দির, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ও শাহবাগ থানা পুলিশ। এর মধ্যে শুধু শাহবাগ থানা পুলিশই দুটি দোকান বরাদ্দ পেয়েছে।

বাংলা একাডেমির সূত্রটি জানায়, ছাত্রলীগকে দেয়া ৮ নম্বর দোকানটি বরাদ্দ হয় মেহেদী হাসানের নামে। কালী মন্দিরকে দেয়া ১৫ নম্বর দোকানটি বরাদ্দ হয়েছে কালী মন্দিরের নামে। ডিএমপিকে দেয়া ১৭ নম্বর দোকানটি বরাদ্দ হয়েছে মেট্রো মেকার্সের নামে। আর শাহবাগ থানাকে দেয়া ২০ ও ২১ নম্বর দোকানটি শাহবাগ থানার নামেই বরাদ্দ হয়।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ছাত্রলীগকে দেয়া ৮ নম্বর দোকানটি বর্তমানে পরিচালনা করছেন উজ্জ্বল নামের একজন। তিনি দোকানটি কিনে নিয়েছেন আড়াই লাখ টাকায়। উজ্জ্বল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী, যিনি থাকেন কবি জসিমউদ্দীন হলের ২১৯ নম্বর কক্ষে। আর শাহবাগ থানা পুলিশের নামে বরাদ্দ হওয়া দোকানগুলো পরিচালনা করছেন বিল্লাল নামের এক ব্যবসায়ী। তিনি দোকান কিনে নিয়েছেন ১১ লাখ টাকায়। দোকানে থাকা ম্যানেজার শাহিন ও সাব্বির টাকার অঙ্কের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজধানীর বঙ্গবাজার মার্কেটে বিল্লালের ব্যবসা আছে। গত বছরও তিনি শাহবাগ থানার নামে বরাদ্দ হওয়া দোকান দুটি কিনে নিয়েছিলেন।

এত টাকায় দোকান কিনে নেয়ার কারণ হিসেবে জানা যায়, প্রতি বছর বাংলা একাডেমির খাবারের দোকানগুলোর দাম একটু বেশি থাকে, কিন্তু এ বছর সেটি কমানো হয়েছে। এর আগেই গত বছরের দামে শাহবাগ থানা পুলিশের সঙ্গে চুক্তি করে ফেলেন বিল্লাল। এ ছাড়া পুলিশের দোকান হলে একটু অতিরিক্ত সুবিধাও পাওয়া যায়। অন্য দোকানগুলোর নির্দিষ্ট জায়গা থাকলেও এই দুটি দোকানের থাকে না নির্দিষ্ট সীমানা। যতটুকু ইচ্ছা জায়গা নিজের করে নেয়া যায়।

বিষয়টি স্বীকারও করেছেন বইমেলার খাবার ও সংশ্লিষ্ট স্টল এবং মোবাইল ফোন টাওয়ারের স্থান বরাদ্দ ও তত্ত্বাবধান কমিটির আহ্বায়ক মো. হাসান কবীর।

তিনি বলেন, ‘সাধারণত খাবারের স্টলগুলোকে আমরা নির্দিষ্ট জায়গা বরাদ্দ দিই, তবে শাহবাগ থানা পুলিশের স্টল দুইটা তারা আমাদের সাথে কথা বলে নিজেদের মতো করে বাড়িয়ে নিয়েছে।’

হাসান কবীর বলেন, ‘অন্য স্টলগুলো থেকে পুলিশের স্টল দুইটা একটু বেশি সুবিধা ভোগ করছে, এটা স্বীকার করতে আমাদের অসুবিধা নেই। বাস্তবতাও আসলে তাই। তারা প্রতিবার একটু অন্যরকমভাবেই এসব স্টল নেয়।’

শাহবাগ থানা পুলিশকে বিনা মূল্যে দুইটি খাবার দোকান বরাদ্দের বিষয়ে ড. কবীর বলেন, “প্রতিবার তাদের একটা দেয়া হয়। এবার খরচ বেশি হচ্ছে বলে দুইটা নিয়েছে, তবে তাদের জন্য কোনো কাগজপত্র নেই।

“তারা (পুলিশ) আমাদের বলেছে, ‘মেলায় পুলিশ কন্ট্রোলরুম তৈরির খরচ এবং সেখানে আসা পুলিশ অফিসারদের আপ্যায়নের জন্য তারা তেমন কোনো বরাদ্দ পান না। আর এবার তাদের খরচ নাকি একটু বেড়ে গেছে। তাই আমরা যেন তাদের দুইটা খাবারের স্টল দিই।’ এ জন্য আমরা দিয়েছি। এরপর সেটা বিক্রি করে যেই টাকা পাওয়া যাবে, সেটা দিয়ে তাদের এসব খরচ চালানো হবে বলে আমাদের জানিয়েছেন তারা।”

মেলায় নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বাকি সংস্থাগুলোও যদি এভাবে বিনা মূল্যে দোকান বরাদ্দ চায় তাদের দেয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘র‌্যাব বা অন্য সংস্থাগুলোর ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু ফোর্স তো বেশি থাকে পুলিশের। তাদের দায়-দায়িত্বও বেশি। তাই তাদের এই সুবিধা দেয়া হয়েছে।

‘বাকিদেরও যদি এই সুবিধা দিতে হয়, তাহলে তো আমরা কিছুই করতে পারব না। সবাইকে দিতে দিতেই তো সব শেষ হয়ে যাবে।’

জানতে চাইলে বিনা মূল্যে খাবারের স্টল নেয়া এবং ১১ লাখ টাকায় বিক্রির বিষয়টি স্বীকার করেননি শাহবাগ থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, ‘আমরা একাডেমি থেকে খাবারের কোনো দোকান নিইনি। আর বিক্রির তো প্রশ্নই আসে না।’

‘শয়ন ও সাদ্দাম জানেন’

ছাত্রলীগকে বিনা মূল্যে খাবারের দোকান বরাদ্দ দেয়ার বিষয়ে কথা হয় বাংলা একাডেমির হিসাব রক্ষণ ও বাজেট উপবিভাগের উপপরিচালক কামাল উদ্দীন আহমেদের সঙ্গে।

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগকে এই দোকান দেয়ার বিষয়ে শয়ন (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন) সাহেবের সাথেও কথা হয়েছে; সাদ্দাম (কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতিসাদ্দাম হোসেন) সাহেবও জানে। এই স্টল নেয়ার জন্য একটা পক্ষ এসেছিল। এরপর তাদের উপস্থিতিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতিকে ফোন দেয়া হয়েছিল। এ সময় সাদ্দাম সাহেবকেও ফোন দেয়া হয়েছে।

‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নেয়ার পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ যদি বলে আমাকেও একটা স্টল দাও, তখন তো ঝামেলা হয়ে যাবে। এ জন্য দুইজনের সাথেই কথা বলে শুধুমাত্র একটা দোকান দেয়া হয়েছে।’

ছাত্রলীগকে কেন বিনা মূল্যে দোকান বরাদ্দ দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে খাবার ও সংশ্লিষ্ট স্টল এবং মোবাইল ফোন টাওয়ারের স্থান বরাদ্দ ও তত্ত্বাবধান কমিটির আহ্বায়ক মো. হাসান কবীর বলেন, ‘দেশ চালায় কারা? পুলিশ আর ছাত্রলীগই তো চালায়। তো তাদেরকে সমীহ করতে হবে না? তাদেরকে আমরা অনেক কিছু দিইনি।

‘সবাইকে বুঝিয়ে শুনিয়ে একটা স্টল দিয়েছি। না হয় অনেক গ্রুপকে দিতে হতো।’

হাসান কবীর বলেন, “তারা (ছাত্রলীগ) আমাদের বলেছে, ‘আমরা ছাত্র মানুষ। আমরা জনগণের জন্য কাজ করতে চাই। আমাদের হাত খরচ লাগে।’ তখন আমরা বলেছি, ‘তাহলে আপনারা বিশ্ববিদ্যালয়, কেন্দ্র বা লোকাল যেই নামে আসেন না কেন, আমরা শুধু একটা স্টলই দিতে পারব।’ তাদেরকে এও বলেছি, ‘আপনারা দায়িত্ব নেন, ছাত্রলীগের নামে যেন আর কেউ না আসে।’ তারা আমাদের আশ্বস্ত করে বলেছে, ‘কেউই আসবে না। আমরা এটি নিয়ন্ত্রণ করব।’”

এগুলো (বিনা মূল্যে দোকান বরাদ্দ নিয়ে বিক্রি করা) ঠিক কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এগুলো ঠিক না। এগুলো ভুল।’

ছাত্রলীগের ভাষ্য

খাবারের স্টল নেয়ার বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন বলেন, “এটি সম্পর্কে আমি অবগত নই। আর এটি করারও কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একমাত্র স্টল ‘মাতৃভূমি প্রকাশনা’ স্টল। এটিকে কেন্দ্র করেই যে আড্ডা বইমেলায়, এটিই আমাদের একমাত্র কর্মসূচি।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবীর শয়ন বলেন, ‘এই বিষয়ে আমার জানা নেই।’

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালি আসিফ ইনান বলেন, ‘বইমেলায় ছাত্রলীগের খাবারের স্টল থাকার প্রশ্নই আসে না। এগুলোর সাথে কারও যুক্ত থাকার কোনো সুযোগ বা অবকাশও নেই। কেউ ব্যক্তিগতভাবে এগুলোর সাথে জড়িত থাকলে সেটার দায় ছাত্রলীগ নেবে না।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ‘বাংলা একাডেমি থেকে আমি কোনো খাবারের স্টল নিইনি, এটা কনফার্ম। এগুলো আমার রাজনৈতিক শিক্ষার মধ্যে পড়ে না, তবে আমার প্রেসিডেন্ট (মাজহারুল কবির শয়ন) নিয়েছে কি না, সেটা আমি বলতে পারব না।’

ছাত্রলীগের নামে খাবারের স্টল বরাদ্দ নেয়া বিব্রত করছে কি না জানতে চাইলে সৈকত বলেন, ‘অবশ্যই এটি আমাকে বিব্রত করছে। ছাত্রলীগ সাধারণ শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করবে; বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার জন্য কাজ করবে।

‘সেখানে আমরা দোকানদারি করতে যাব কেন? এটি তো আমাদের কাজ না। যারা এসব করছে, তারা সংগঠনের নীতি-আদর্শের সাথে সাংঘর্ষিক বিষয়ে জড়িত হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
একুশের চেতনায় উজ্জীবিত বইমেলায় জনস্রোত
শহীদ মিনারে ফুল দিতে গিয়ে ছাত্রলীগের হাতাহাতি
ফটোগ্রাফি নিয়ে ভিন্নধর্মী বই ‘বিখ্যাত ছবির পেছনের গল্প’
প্রাণের মেলায় অপ্রতুল ভাষা আন্দোলনের ওপর বই
বইমেলায় মীরাক্কেল খ্যাত রাশেদের ‘ফিলিং চিলিং’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Ziaul Haque returned with one medal joy in the whole village

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যে কথা হয় জিয়াউল হকের

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যে কথা হয় জিয়াউল হকের পাঠাগারের জন্য জিয়াউল হকের হাতে বই তুলে দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান ও পুলিশ সুপার ছাইদুল হাসান। ছবি: নিউজবাংলা
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কী কথা হলো জিয়াউল হকের? তিনিই বা কী বলছিলেন প্রধানমন্ত্রীকে- এ নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই স্থানীয়দের।

এবারের একুশে ফ্রেব্রুয়ারি, আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসের দিনটি ভোলাহাট উপজেলার মানুষের জন্য অন্য মাত্রা নিয়ে এসেছে। কেননা তাদের উপজেলার জিয়াউল হক পেয়েছেন রাষ্ট্রের সম্মানজনক একুশে পদক।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে সে প্রদক গ্রহণের পর গ্রামে ফিরেছেন জিয়াউল হক। এ নিয়ে পুরো এলাকাজুড়ে বইছে উৎসবের আবহ।

সকাল থেকেই জিয়াউল হকের বাড়িতে তার ছোট্ট পাঠাগারে মানুষের ভিড়। সকালের প্রভাত ফেরিও তার সঙ্গে করেন স্থানীয় স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে জিয়াউল হকের সঙ্গে বেশ কিছুসময় ধরে কথপোকথন হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তাই বুধবার জিয়াউলের বাড়িতে অভিনন্দন জানাতে আসা অনেকেরই আগ্রহ ছিল- কী কথা হলো প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে, কী বলছিলেন সাধাসিধে জিয়াউল হক?

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনের বিষয়ে নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমি আমার পাঠাগারের স্থায়ী ভবন ও বই চেয়েছিলাম। সেই সঙ্গে আমার এলাকার স্কুলটি সরকারিকরণের বিষয়ে কথা বলেছি। প্রধানমন্ত্রী আমার কথা শুনেছেন ও দাবিগুলো মেনে নিয়েছেন।’

অনেকে দিন থেকেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার ইচ্ছা ছিল সাদা মনের মানুষ জিয়াউল হকের। অনেকের কাছেই বলেছেন সেই আকাঙ্ক্ষার কথা। তার সেই স্বপ্ন পূরণ হওয়ায়, খুশি ৯১ বছর বয়সী এ গুণী। বলেন, ‘এখন মরেও শান্তি পাবো।’

জিয়াউল হক পাঠাগারের বই পড়ে আজ অনেকেই শিক্ষকসহ বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত হয়েছেন। জিয়াউল হকের একুশের পদক প্রাপ্তির পর, তারও জানিয়েছেন জিয়াউল হকের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও নিজেদের আনন্দের অনুভূতি।

একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিজের জন্য কিছুই চাননি সাদা মনের মানুষ জিয়াউল হক হক। প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাধাসিধে মানুষটির আবদার ছিল- তার পাঠাগারের উন্নয়ন ও গ্রামে তারই সহযোগিতায় গড়ে ওঠা স্কুলটি সরকারি করা।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যেই জিয়াউল হকের সেই দাবি পূরণের আশ্বাস দেয়ায় স্থানীয়রাও খুশি।

এদিকে দুপুরে জিয়াউল হককে শুভেচ্ছা জানাতে তার বাড়িতে যান চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান ও পুলিশ সুপার ছাইদুল হাসান।

এ সময় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জিয়াউল হকের পাঠাগারের জন্য বই উপহার দেন জেলা প্রশাসক। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত সকল বিষয় অক্ষরে অক্ষরে পালন করা হবে।’

আরও পড়ুন:
বেচি দই কিনি বই, অতঃপর একুশে পদক
রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহসহ একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ জন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A day of respect and a year of contempt
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

এক দিন শ্রদ্ধা, বছরজুড়ে অবজ্ঞা

এক দিন শ্রদ্ধা, বছরজুড়ে অবজ্ঞা একুশে ফেব্রুয়ারির আগের দিন স্থানীয় প্রশাসন ব্রাহ্মণাবড়িয়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পরিষ্কারের পাশাপাশি সজ্জার কাজ করে, তবে এ দিন বাদে বছর ধরে চলে শহীদ মিনারটির অবজ্ঞা। ছবি: নিউজবাংলা
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের স্নাতক পড়ুয়া ওমর খান বলেন, ‘সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শহীদ মিনারের বেদিতে বসে অনেক মানুষ আড্ডা দেন। এটি প্রতিদিনের চিত্র। তা ছাড়া সকালে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীর প্রায় সবাই জুতা পরে বেদিতে বসে থাকে। আমি নিজেও অনেকবার অনকেজনকে বলেছি জুতা খোলার জন্য, কিন্তু কে শোনে কার কথা।’

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

একুশে ফেব্রুয়ারির আগের দিন স্থানীয় প্রশাসন শহীদ মিনার পরিষ্কারের পাশাপাশি সজ্জার কাজ করে, তবে এ দিন বাদে বছর ধরে চলে শহীদ মিনারের অবজ্ঞা।

জুতা পায়ে এ শহীদ মিনারের বেদিতে বসে আড্ডা যেন স্বাভাবিক ঘটনা। এমনকি রাতে শহীদ মিনারে মাদকসেবীদের আড্ডা নিত্যকার ঘটনা। এ ছাড়া রাজনৈতিক দলের নেতাদের বিরুদ্ধে জুতা পায়ে মিনারে বক্তব্য দেয়ার অনেক অভিযোগ আছে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আগে গত শনিবার, রোববার ও সোমবার একই চিত্র দেখা যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণে থাকা এ শহীদ মিনারে জুতা পায়ে বসেই শিক্ষার্থীরা আড্ডা দিতে থাকেন। শুধু শিক্ষার্থী নন, শহীদ মিনারটি উন্মুক্ত স্থানে থাকায় বাইরের অনেকে বসে থাকেন এর ওপর।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের স্নাতক পড়ুয়া ওমর খান বলেন, ‘সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শহীদ মিনারের বেদিতে বসে অনেক মানুষ আড্ডা দেন। এটি প্রতিদিনের চিত্র। তা ছাড়া সকালে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীর প্রায় সবাই জুতা পরে বেদিতে বসে থাকে।

‘আমি নিজেও অনেকবার অনকেজনকে বলেছি জুতা খোলার জন্য, কিন্তু কে শোনে কার কথা।’

শহীদ মিনার চত্বরের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, প্রায়ই শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে মারামারি হয়। সন্ধ্যা নামার পরপরই শহীদ মিনারে বসে গাঁজাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য সেবন করতে দেখা যায় কিছু যুবককে। তা ছাড়া জুতা পায়ে দিয়ে আড্ডায় মেতে ওঠা নিত্যকার ঘটনা।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, শহীদ মিনারের অবজ্ঞার ঘটনায় কেউ প্রতিবাদ করতে যান না। কারণ যারা এর সঙ্গে জড়িত, তারা ছাত্র রাজনীতি করেন অথবা বড় কোনো রাজনীতিকের পৃষ্ঠপোষকতায় চলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘এগুলো দেখার কেউই নেই। বছরের একটি দিন একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারটিকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়, সম্মান জানানো হয়।

‘এই দিন পার হলেই ভুলে যায় এটি যে একটু মর্যাদাপূর্ণ স্থান। শহীদ মিনারের এমন অমর্যাদার বিষয়ে কেউ কোনো ব্যবস্থাই নেয় না।’

জুতা পায়ে শহীদ মিনারের বেদিতে ওঠার বিষয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আহ্বায়ক আবদুন নূর বলেন, ‘জুতা পায়ে দিয়ে শহীদ মিনারের বেদিতে ওঠা মানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন না করা এবং শহীদদের মর্যাদার ব্যাপারে অজ্ঞতার পরিচয় দেয়া।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভাষা আন্দোলনের প্রতীক হচ্ছে শহীদ মিনার। ভাষাশহীদদের স্মৃতিকে অমর করে রাখার জন্য শহীদ মিনার নির্মিত, তবে বর্তমানে দেখা যায় শহীদ মিনারকে শুধু এক দিনের জন্য মর্যাদা দেয়া হয়। আর সেটি হচ্ছে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে।

‘তাহলে বিষয়টি এমন দাঁড়াচ্ছে, এক দিনে শ্রদ্ধা, অন্য দিনগুলোতে অবজ্ঞা। স্কুল-কলেজের ছেলে-মেয়ে থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষও জুতা পায়ে দিয়ে উঠে আড্ডা দিচ্ছেন। এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এটা রীতিমতো অপরাধ।’

‘ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ নামের একটি সংগঠনের সভাপতি মো. আবু বক্কর বলেন, ‘শহীদ মিনার আমাদের একটা বেদনা ও আবেগের জায়গা। একাধিকবার সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে শহীদ মিনার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কার্যক্রম করেছি, তবে শহীদ মিনারের পবিত্রতা নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

‘এর ওপরে বসেই সিগারেট খায় কতিপয় যুবক। এটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে আমি দাবি জানাচ্ছি।’

ইউনাইটেড কলেজের শিক্ষক শাহাদৎ হোসেন বলেন, ‘প্রকৃত অর্থে শহীদ দিবসের মর্যাদা সুরক্ষিত নয়। কারণ একুশে ফেব্রুয়ারিকে একটি মাত্র তারিখ হিসেবে বিবেচনা করে শহীদ দিবস পালন করছি। শহীদ দিবসের প্রকৃত তাৎপর্য অনেকের মাঝেই নেই।

‘এর বড় প্রমাণ শহীদ মিনার। দিবস আসলেই তার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় মগ্ন হন সংশ্লিষ্টরা। বাকি ৩৬৪ দিনই শহীদ মিনারে জুতা পায়ে সবাই আড্ডা দেয় এবং শহীদ মিনারটি নোংরা অবস্থায় পড়ে থাকে। শহীদদের আত্মত্যাগ মনে হয় আমরা ভুলতে বসেছি। শহীদদের চেতনাকে সকলের মাঝে লালন করতে হবে।’

সার্বিক বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ এ.জেড.এম আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার লোকজন প্রতিনিয়তই শহীদ মিনারটি ঝাড়ু দেয় এবং পরিষ্কার করে থাকে, তবে মিনারটির চারপাশে কোনো সুনির্দিষ্ট বেষ্টনী না থাকায় এটি উন্মুক্ত।

‘আর মিনারটি দেখভালের দায়িত্ব সম্পূর্ণ পৌরসভার কাছে। পৌর কর্তৃপক্ষ মিনারের চারপাশে একটি বেষ্টনী তৈরি করে দিতে পারলে অমার্যাদার বিষয়টি আর উঠে আসবে না। এতে শহীদ মিনারের পবিত্রতা বজায় থাকবে।’

শহীদ মিনার চত্বরে বিশৃঙ্খলার বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন বলেন, ‘এখানে আমাদের টহল টিম নিয়মিত কাজ করে। এর পরও শহীদ মিনারে কোনো বিশৃঙ্খলা বা আইনবিরোধী কর্মকাণ্ড করলে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

বিষয়টি নিয়ে জানতে শহীদ মিনারের দেখভালের দায়িত্বে থাকা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল কুদ্দুসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তাদের পক্ষ থেকে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা কাজ করে। শহীদ মিনারের বেদিসহ চারপাশ রক্ষণাবেক্ষণে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘শহীদ মিনারে জুতা নিয়ে না ওঠার ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। পাশাপাশি পুলিশ বা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করি।’

আরও পড়ুন:
নামাজে দাঁড়ানো নিয়ে মারধর, যুবকের মৃত্যু
ঐতিহ্য হারাচ্ছে নাসিরনগরের শুঁটকি মেলা
নাসিরনগরে সাম্প্রদায়িক হামলার মামলায় ১৩ জনের কারাদণ্ড
ইসলামি বক্তার জিহ্বা কাটার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫
মানসিক চাপে আত্মগোপনে ছিলাম: আসিফ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hospital ambulance wrapped in polythene for eight months

আট মাস ধরে পলিথিনবন্দি হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স

আট মাস ধরে পলিথিনবন্দি হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স অ্যাম্বুলেন্সটি টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়। ছবি: নিউজবাংলা
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালের জুনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে একজন রোগী নিয়ে ঢাকা গেলে সেখান থেকে ফেরার পথে টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে অ্যাম্বুলেন্সটির ব্যাপক ক্ষতি হয়। যার কারণে পুরো অ্যাম্বুলেন্সটি একেবারে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে।

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি অ্যাম্বুলেন্স অকেজো হওয়ায় প্রায় আট মাস ধরে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো রয়েছে।

এতে উপজেলার মানুষের অ্যাম্বুলেন্স সেবা পেতে অসুবিধা হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকায় সোমবার সকালে সরজমিনে দেখা যায়, পুরাতন বিল্ডিংয়ের পাশে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় অ্যাম্বুলেন্সটি পড়ে রয়েছে। চারটি চাকার ভেতরে দুইটি চাকা নেই। দুর্ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্সের সামনের অংশটি পুরোটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একেবারে চলাচলের জন্য অযোগ্য হওয়ার কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষ এটি পলিথিন দিয়ে জড়িয়ে রেখেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালের জুনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে একজন রোগী নিয়ে ঢাকা গেলে সেখান থেকে ফেরার পথে টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে অ্যাম্বুলেন্সটির ব্যাপক ক্ষতি হয়। যার কারণে পুরো অ্যাম্বুলেন্সটি একেবারে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে।

ওখান থেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ উদ্ধার করে নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে পলিথিন দিয়ে মুড়িয়ে রাখে।

কয়েকজন রোগীর সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি অ্যাম্বুলেন্স। তার মধ্যে নতুনটি বর্তমানে অ্যাকসিডেন্ট করে অকেজো হয়ে আছে। আর একটি পুরাতন, তা দিয়েই রোগী পরিবহন করা হচ্ছে, তবে সেটির সার্ভিস ভালো না হওয়ার কারণে জরুরি রোগী পরিবহন করা কষ্টসাধ্য হয়ে গেছে।

তাই অনেক সময় বাইরে থেকে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে রোগীকে হাসপাতালে পৌঁছাতে হয়। এতে খরচও বেশি হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা একেএম মোফাখখারুল ইসলাম জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি অ্যাম্বুলেন্সের মধ্য নতুনটি দুর্ঘটনার শিকার হয়ে অকেজো হয়ে গেছে। আপাতত আমরা পুরাতনটা মেরামত করে রোগী পরিবহন করছি, কিন্তু সেটির সার্ভিসটা সন্তোষজনক নয়। আমরা একটি নতুন অ্যাম্বুলেন্সের চাহিদা আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। এখন কতদিনে তা পাব এটি জানা নেই।’

সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন রাম পদ রায় মুঠোফোনে বলেন, ‘অ্যাম্বুলেন্সটি মেরামত করতে অনেক টাকা লাগবে। আমি মন্ত্রণালয়ে বরাদ্দ চেয়েছি, না হলে নতুন একটা অ্যাম্বুলেন্সের জন্যও আবেদন করেছি। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অবশ্যই একটা ব্যবস্থা করবে বলে আশা করছি।’

আরও পড়ুন:
জবিতে অ্যাম্বুলেন্স একটিই, ডাকলে না পাওয়ার অভিযোগ
বরিশালের অ্যাম্বুলেন্স মালিকদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ
‘আমার গ্রাম, আমার শহর’ নিশ্চিতে ‘স্বপ্নযাত্রা’ অ্যাম্বুলেন্স
অনুদানের অ্যাম্বুলেন্সে ফেনসিডিল চালান
‘দুর্গম এলাকায় এয়ার অ্যাম্বুলেন্স প্রয়োজন’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The complaint against the chairman of locking the main gate of the house in Thakurgaon

ভাড়া বাসায় ‘চেয়ারম্যানের দেয়া’ তালা খোলার অপেক্ষায় দম্পতি

ভাড়া বাসায় ‘চেয়ারম্যানের দেয়া’ তালা খোলার অপেক্ষায় দম্পতি ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় তালা খোলার অপেক্ষায় থাকা বৃদ্ধ দম্পতি। ছবি: নিউজবাংলা
ঠাকুরগাঁও সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নির্মল রায় জানান, ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে সেখানে যান তিনি। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে হবে। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের এক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শুক্রবার ভাড়াটিয়ার বাসার ফটকে তালা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ওই ভাড়াটিয়া দম্পতির ভাষ্য, পরিবার নিয়ে ১০ দিন আগে তারা ভাড়া বাড়িতে ওঠেন। এরই মধ্যে গত শুক্রবার ভোররাতে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন তাদের ঘুম থেকে ডেকে তুলে টেনেহিঁচড়ে বাড়ির বাইরে বের করে ফটকে তালা দেন। ঘরের ভেতরে তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র রয়েছে। কিছুই বের করতে দেয়া হয়নি। এখন পর্যন্ত তারা তালা খোলার অপেক্ষায়।

এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, রোববার বিকেলে বাড়ির ফটকে টিনের বেড়ার সঙ্গে শিকল দিয়ে দুটি তালা ঝুলছে। আর বৃদ্ধ দম্পতি বাড়ির বাইরে বেঞ্চে বসে আছেন।

অভিযুক্ত মোস্তাফিজুর রহমান লিটন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

ওই দম্পতি হলেন আবদুল হালিম ও তার স্ত্রী জোৎস্না বেগম। তাদের অভিযোগ, ঘটনার পর থেকে স্থানীয় লোকজন কোনো প্রতিবাদ করছে না।

আবদুল হালিম বলেন, ‘আমরা ভাড়াটিয়া হিসেবে উঠেছি। জায়গা-জমি নিয়ে বাড়ির মালিকের সঙ্গে কার কী সমস্যা আছে, সেটা আমাদের বিষয় না, কিন্তু আমাদের সঙ্গে এমন অন্যায় কেন করা হলো? আমরা বিচারের দাবি জানাই।’

তিনি বলেন, ‘আমি একটি বেসরকারি কোম্পানির ট্রাক চালাই। এভাবে এমন পরিস্থিতিতেও বাইরে স্ত্রী-সন্তানদের রেখে কাজে যেতে হয়। আমাদের হাঁড়ি-পাতিল, আসবাপত্র কাপড়সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সবই বাড়ির ভেতরে। বাড়ির ভেতরে এখন অন্য অচেনা লোকেরা অবস্থান করছে।’

বাড়ি ভাড়া দেয়া স্কুল শিক্ষিকা ফারহানা ইসলাম কলি বলেন, ‘ঘটনাটি দুঃখজনক। এটি পৌরসভার অন্তর্ভুক্ত এলাকা। এখানে স্থানীয় কাউন্সিলর রয়েছে। ঘটনার দিন আমার স্বামী কাউন্সিলরকে জানিয়েছে।

‘এখনও কোনো সমাধান আসেনি। একজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কোন আইনে অন্যের বাড়িতে ঢুকে এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটাতে পারে? পুলিশকে জানিয়েছি, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘তালাতে হাত দিলে হাত কেটে নেবে চেয়ারম্যান, এমন হুমকিও আমাদের দিয়েছে। আমরা এখন প্রত্যেকে আতঙ্কিত ও অনিরাপদ।

‘ভাড়াটিয়া দম্পতি আমার বাড়িতে যেতে চায় না। এখন তাদের মধ্যে অনেক রাগ-আক্ষেপ রয়েছে আমাদের সবার ওপর।’

স্থানীয় গৃহবধূ আমিনা বেগম বলেন, ‘তালা দেয়ার পর থেকে আমরা আর ঘরে ঢুকতে পারিনি। আমার স্বামী দিনমজুর। সে কলি আপার বাড়িতে বেড়া বানানোর কাজ করছিল। আমাদেরও ভয় দেখানো হচ্ছে।’

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর জমিরুল ইসলাম বলেন, ‘এ ঘটনা শুনে প্রথমে আমি জায়গা চিনতে পারিনি। এই প্রতিবেদক এই বিষয়ে আমাকে জানায়। এরপর স্কুলশিক্ষিকার স্বামী জুয়েল ইসলাম তাকে মোবাইলে কল দিয়ে যোগাযোগ করা হয়। এ ছাড়াও আমি ভাড়াটিয়া আবদুল হালিমের কাছেও ঘটনাটি শুনি।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান লিটন মোবাইল ফোনে বলেন, ‘সেখানে স্থানীয়দের সঙ্গে জমিসংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে। আমি দুদিন সেখানে গিয়েছি। অন্যান্য গণমাধ্যমকর্মীরাও গিয়েছিল।’

এ সময় তিনি তালা দেয়া ও হুমকি দেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন। স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানিয়েছেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর বলেন সরাসরি সাক্ষাৎকার নিতে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নির্মল রায় জানান, ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে সেখানে যান তিনি। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে হবে। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Out of 51 brick kilns in Panchgarh 10 brick kilns have licenses and the rest are illegal

পঞ্চগড়ে ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে ৪১ ইটভাটা

পঞ্চগড়ে ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে ৪১ ইটভাটা পঞ্চগড়ে ইটভাটার জন্য প্রতিনিয়ত মাটি কাটার ফলে নষ্ট হচ্ছে কৃষিজমি। ছবি: নিউজবাংলা
দেবীগঞ্জের ইউএনও শরীফুল আলম বলেন, ‘জমির টপ সয়েল কাটা আইনত অপরাধ। ভূমির মালিকসহ যারা এই কাজের সঙ্গে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সকল ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

পঞ্চগড় জেলার বিভিন্ন স্থানে রয়েছে ৫১টি ইটভাটা, যার মধ্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই কার্যক্রম চালাচ্ছে ৪১টি।

জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় সর্বোচ্চ ২২টি ইটভাটা আছে, যার মধ্যে অধিদপ্তরের ছাড়পত্র পেয়েছে ১০টি।

এসব ইটভাটার জন্য প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ এক্সক্যাভেটর (ভেকু) দিয়ে কাটা হচ্ছে কৃষিজমির উপরিভাগ। এসব মাটি দুই শতাধিক ট্রাক্টর এবং ১০টির বেশি ড্রাম ট্রাকে করে নেয়া হচ্ছে বিভিন্ন ইটের ভাটায়। প্রতিনিয়ত মাটি কাটার ফলে নষ্ট হচ্ছে ওই এলাকার কৃষিজমি; ভারসাম্য হারাচ্ছে পরিবেশ।

এলাকা ঘুরে দেখা যায়, সবচেয়ে বেশি ১৫টি ইটভাটা রয়েছে দেবীগঞ্জ উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নে। বাকিগুলো সুন্দরদিঘী, পামুলী, শালডাঙ্গা ও চেংঠি হাজরাডাঙ্গা ইউনিয়নে।

এ বছর ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে ৪টি ইটভাটাকে জরিমানা ও দুটির নামে মামলা করা হয়। পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট শাখা আরও একটি ইটভাটার মালিককে দেড় লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করে।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, প্রায় ২৪ বছর ধরে মাটি কাটা হচ্ছে, তবে আগে ইটভাটার সংখ্যা কম ছিল। এখন ইটভাটা বাড়ায় মাটির চাহিদাও বৃদ্ধি পেয়েছে। নগদ টাকার প্রয়োজনে জমির মালিকরা কৃষিজমির মাটি বিক্রি করছেন। তিন ফুট গভীরতার এক বিঘা জমির মাটি ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকায় বিক্রি হয়।

তারা জানান, এরই মধ্যে দন্ডপাল ইউনিয়নের প্রায় পাঁচ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিচু জমিতে পরিণত হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে একটা সময় এখানকার কয়েকটি গ্রাম অপরিকল্পিত খালে পরিণত হবে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) পঞ্চগড় আঞ্চলিক শাখার সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম জুয়েল বলেন, ‘পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। তিন ফসলি জমি নষ্ট করে সেখান থেকে মাটি কেটে ইটভাটার জন্য ব্যবহার কোনোক্রমেই আইনসিদ্ধ নয়। ইটভাটা স্থাপন ও নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৩ অনুযায়ী, এভাবে কৃষিজমির মাটি কাটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হলেও এ ক্ষেত্রে আইনের প্রয়োগ হয় না।

‘সচেতন মহলের কেউ কেউ এ বিষয়ে দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের অবহিত করলেও নেয়া হয় না কোনো ব্যবস্থা। এতে করে মাটি কাটায় জড়িতরা আইনকে বৃদ্ধাঙুলি দেখাচ্ছে। আমরা অবিলম্বে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

শ্রমিক সংগঠনের নেতা রবিউল ইসলাম জানান, দন্ডপাল ইউনিয়নে প্রায় ২২টি ভেকু, ২০০টি ট্রাক্টর এবং ১৫টি ড্রাম ট্রাক প্রতিদিন মাটি সরবরাহ করে। ইটভাটাগুলোতে মালিকদের চাহিদামতো তিনি মাটি সরবরাহ করেন।

এই কাজে বৈধতার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে ইটভাটার মালিকদের সঙ্গে কথা বলেন আপনারা।’

উপজেলার ইটভাটা সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘মাটি কাটার কারণে জমির তেমন ক্ষতি হয় না। সরকার আমাদের ব্যবসার স্বার্থে মাটি কাটার বিকল্প ব্যবস্থা না করলে আমরা কী করব? আমরা তো গণমাধ্যমকর্মী, পরিবেশ অধিদপ্তর, উপজেলা-জেলা প্রশাসনসহ সবাইকে ম্যানেজ করেই চলছি।’

উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নের ধনমন্ডল গ্রামের ইউনুছ আলী জানান, তার জমির চারপাশের মাটি বিক্রি হয়ে গেছে। তার প্লটটি চাষের অনুপযোগী হয়ে গেছে। এ কারণে বাধ্য হয়েই ভাটায় জমির মাটি বিক্রি করেছেন।

দেবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শরীফুল আলম বলেন, ‘জমির টপ সয়েল কাটা আইনত অপরাধ। ভূমির মালিকসহ যারা এই কাজের সঙ্গে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সকল ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

পরিবেশ অধিদপ্তর পঞ্চগড়ের সহকারী পরিচালক ইউসুফ আলী সংস্থাটিকে ম্যানেজ করে ইটভাটা চালানো ও উপরিভাগের মাটি কেটে নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন।

তিনি বলেন, ‘জেলায় ৫১টি ইটভাটার মধ্যে ১০টি ইটভাটার পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র আছে, বাকিগুলো অবৈধ। এ বছর ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে চারটি ইটভাটার মালিককে জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া দুইটি ইটভাটার মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তিনটি ভাটার বিরুদ্ধে অভিযোগ অধিদপ্তরে পাঠানো হয়।

‘এর মধ্যে নিষিদ্ধ এলাকায় ইটভাটা স্থাপনের মাধ্যমে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধন করায় একটি ইটভাটার বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট শাখা দেড় লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করেছে।’

আরও পড়ুন:
নৌকার বিরোধীদের পা ভেঙে দেয়ার হুমকি ইউপি চেয়ারম্যানের 
পঞ্চগড়ে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি যুবক আহত
অবৈধ ইটভাটা বন্ধে ৩ ডিসিকে আইনি নোটিশ
নওগাঁয় পাশাপাশি ও গ্রামের মধ্যে ইটভাটা, মজুত আছে কাঠ
দুর্গাপূজা: বাংলাবান্ধায় ৮ দিন বন্ধ আমদানি-রপ্তানি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Abdallah a Kuwaiti is impressed by Chouddagram

চৌদ্দগ্রামে মুগ্ধ কুয়েতি আবদুল্লাহ

চৌদ্দগ্রামে মুগ্ধ কুয়েতি আবদুল্লাহ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের প্রকৃতি বেশ টেনেছে কুয়েতি আবদুল্লাহ মোহাম্মদ আল বন্দরকে। ছবি: নিউজবাংলা
কয়েক দিন আগে বন্ধুর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুর ইউনিয়নের ছেঁউড়িয়া গ্রামে আসেন কুয়েতি আবদুল্লাহ। বন্ধুর মেয়ের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সবকিছুতেই মুগ্ধ হয়েছেন তিনি। গ্রামের প্রাণ-প্রকৃতিও তাকে বেশ টেনেছে। 

‘আমি এখন বাংলাদেশে। আমার বন্ধুর মেয়ের বিয়েতে এসেছি। এখানকার কৃষিজমিতে ফসল সুন্দর। মানুষজন আমাকে আপন করে নিয়েছে।

‘আমি খুব আনন্দে আছি। বিয়েতে দারুণ সব খাবারের আয়োজন করেছে। আমি মুগ্ধ। বন্ধুরা, ভিডিওতে তোমরা দেখো।’

আরবি ভাষায় এভাবে নিজের সুখানুভূতি প্রকাশ করছিলেন কুয়েতি নাগরিক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ আল বন্দর।

চৌদ্দগ্রামে মুগ্ধ কুয়েতি আবদুল্লাহ

কয়েক দিন আগে বন্ধুর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুর ইউনিয়নের ছেঁউড়িয়া গ্রামে আসেন এ কুয়েতি। বন্ধুর মেয়ের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সবকিছুতেই মুগ্ধ হয়েছেন তিনি। গ্রামের প্রাণ-প্রকৃতিও তাকে বেশ টেনেছে।

নিজের গ্রামে কুয়েতি বন্ধুকে পেয়ে আনন্দিত তার বন্ধু ইকবাল হোসেনসহ স্থানীয়রা। শনিবার সকালে দেখা যায়, স্থানীয়দের নিয়ে আবদুল্লাহ মোহাম্মদ আল বন্দর ঘুরে ঘুরে ছবি তুলছেন। মোবাইল ফোনে লাইভে যাচ্ছেন। শিশুদের মতো উল্লাস প্রকাশ করছেন।

চৌদ্দগ্রামে মুগ্ধ কুয়েতি আবদুল্লাহ

বন্ধুত্ব যেভাবে

কুয়েতির সঙ্গে কীভাবে বন্ধুত্ব হলো সে বিষয়ে ইকবাল বলেন, ‘২০১৫ সালে আমি কুয়েতে যাই। সেখানে কাজের সুবাদে তার সঙ্গে পরিচয় হয়। তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। এখন অবসরে আছেন।

‘কাজের সুবাদে আমাদের সম্পর্ক গাঢ় হয়। আমরা একে অপরের বন্ধু হই। বয়সের একটু ব্যবধান থাকলেও মনের কোনো ব্যবধান নেই আমাদের।’

তিনি বলেন, “গত বছরের শেষের দিকে আমি আমার বন্ধু আবদুল্লাকে বলি আমার মেয়ের বিয়ের বিষয়ে। সে আমাকে বলে, ‘তোমার মেয়ের বিয়ে দেখতে তোমার দেশে যাব।’ যেই কথা সেই কাজ।

“গত ১৪ ফেব্রুয়ারিতে সে কুয়েত থেকে আমার বাড়িতে আসে। আমি খুব অবাক হয়েছি। সে এখানে খুব আনন্দ করছে। আমার মেয়ের বিয়েতে এসে ছবি ভিডিও তুলে রাখছে। কুয়েতে গিয়ে সবাইকে দেখাবে।”

ইকবালের ভাই এসএন ইউসুফ বলেন, ‘আমার ভাতিজির বিয়েতে একজন কুয়েতি নাগরিক এসেছেন। তিনি আমার ভাইয়ের বন্ধু। অন্য একটি দেশ থেকে এসে তিনি যে আনন্দ পাচ্ছেন, আমার কাছে খুবই ভালো লাগছে।

‘কুয়েতি নাগরিক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ আল বন্দর আমাদের গ্রামে এ বিয়েতে অংশগ্রহণ করাতে বিয়ের উৎসব আরও দ্বিগুণ হয়েছে।’

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জেপি দেওয়ান বলেন, ‘শুনেছি একজন কুয়েতি নাগরিক চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুর ইউনিয়নে তার বন্ধুর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে এসেছেন। তিনি বেশ কিছুদিন বাংলাদেশে অবস্থান করবেন।

‘কুয়েতি নাগরিকের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছি। তার আগমনকে আমরা স্বাগত জানাই।’

আরও পড়ুন:
সাবেক এমপি আবুল হাশেমের জানাজা সম্পন্ন
কুমিল্লায় স্বর্ণ ডাকাতির ঘটনায় ঢাকায় গ্রেপ্তার ৫
পরিবেশবান্ধব ভার্মি কমপোস্টে বাড়তি আয়
নির্বাচনে জিতেই সিএনজি স্ট্যান্ডের চাঁদা বন্ধ করলেন এমপি আজাদ
কুমিল্লায় এক কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার প্রত্যাহার

মন্তব্য

p
উপরে