× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Chabirs audio scam takes years to file
google_news print-icon

চবির ‘অডিও কেলেঙ্কারি’: মামলা করতে বছর পার

চবির-অডিও-কেলেঙ্কারি-মামলা-করতে-বছর-পার
চবির ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের সাইনবোর্ড। ফাইল ছবি
চবির ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নুর আহমদ বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদন জমা পড়েছে। সেটা আগামী সিন্ডিকেটে যবে। সিন্ডিকেটে যাওয়ার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের নিয়োগ সংক্রান্ত কয়েকটি ফোনালাপ গত বছর ফাঁস হয়। শিক্ষক নিয়োগে ‘দরকষাকষি’র সেই আলাপে নিয়োগের বিনিময়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করতে শোনা যায়।

ফোনালাপের তিনটি ক্লিপ ২০২২ সালের মার্চে নিউজবাংলার হাতে আসে। ক্লিপে একজন আবেদনকারীর কাছ থেকে ১৬ লাখ টাকা দাবি করা হয়। বলা হয়, তৃতীয় শ্রেণির একটি চাকরির জন্য এখন ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা লাগে। মালি, প্রহরীর মতো চতুর্থ শ্রেণির চাকরির জন্য লাগে আট লাখ টাকা।

ফাঁস হওয়া ফোনালাপে উচ্চপদস্থ ব্যক্তিদের ‘ম্যানেজ’ করতেই অর্থের প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করা হয়।

ওই ঘটনায় অভিযোগের তির যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারের সেই সময়কার ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) ও উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক খালেদ মিছবাহুল মোকর রবীন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টস শাখার কর্মচারী আহমদ হোসেনের বিরুদ্ধে, তবে তখন অভিযোগের বিষয়ে উপাচার্যের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এরপর সমালোচনার মুখে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট ফারসি বিভাগের নিয়োগ বোর্ডটি বাতিল করে। অভিযোগ খতিয়ে দেখতে গঠন করে তদন্ত কমিটি।

এ বিষয়ে ওই বছরের মার্চ মাসে ‘চবির ফারসি বিভাগের সেই নিয়োগ বাতিল’ শিরোনামে নিউজবাংলার প্রতিবেদনে বলা হয়, অর্থ লেনদেনসংক্রান্ত অডিও ফাঁসসহ নানা অনিয়মের ঘটনায় সমালোচনার মুখে চবির ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে শিক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে সিন্ডিকেট।

নিয়োগে অনিয়মে জড়িতদের শনাক্তে চার সদস্যের উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন তদন্ত কমিটি করে তাদের তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতেও বলা হয়।

ওই সময় এক চিঠিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান।

এরপর তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে পরবর্তী ৫৩৮তম সিন্ডিকেটে (জরুরি) উপাচার্য শিরীণ আখতারের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) খালেদ মিছবাহুল মোকর রবীনকে পদাবনতি (ডিমোশন) এবং কর্মচারী আহমদ হোসেনকে চাকরিচ্যুত করার সুপারিশ করা হয়। ঘটনার ‘নেপথ্যের কারিগরদের’ বের করতে পিএস রবিন ও কর্মচারী আহমদ হোসেনের পাশাপাশি অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে জরুরি ভিত্তিতে থানায় ফৌজদারি মামলা করার সুপারিশও করা হয়।

ওই সিন্ডিকেট সভায় দুজনের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশের পাশাপাশি অধিকতর যাচাই-বাছাই করার লক্ষ্যে দ্বিতীয় আরেকটি তদন্ত কমিটি করা হয়। দ্বিতীয় তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে এ বিষয়ে আসামিদের শাস্তি কার্যকর হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ঘটনার পরপরই তদন্তের স্বার্থে খালেদ মিছবাহুল মোকর রবীন ও আহমদ হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রশাসন। কয়েক মাস পরে রবীনের রিটের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত বরখাস্তের আদেশের বিষয়ে তিন মাসের স্থগিতাদেশ দেয়। পরে কয়েক দফা স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়ায় আদালত।

অন্যদিকে সম্প্রতি আরেক অভিযুক্ত কর্মচারী আহমদ হোসেনও উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ নিয়ে চাকরিতে যোগদান করেন। ফলে স্বপদে বহাল আছেন খালেদ মিছবাহুল মোকর রবীন ও আহমদ হোসেন।

দ্বিতীয় তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব ও গোপনীয় শাখার ডেপুটি রেজিস্ট্রার সৈয়দ ফজলুল করিম জানান, কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগের প্রমাণ পেলে দুটি তদন্ত কমিটি হয়। প্রথম কমিটি শাস্তির সুপারিশ করলে দ্বিতীয় কমিটি সেটি আবার অধিকতর যাচাই-বাছাই করে। দ্বিতীয় কমিটির সুপারিশের আলোকে শাস্তি বাস্তবায়নের বিষয়টি আসে।

এরপর দেড় বছর পেরিয়ে গেলেও এ ঘটনায় মামলা করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ১১ মাস পর গত ২৩ জুলাই প্রতিবেদন জমা দেয় দ্বিতীয় তদন্ত কমিটি।

কমিটির আহ্বায়ক ও সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সিরাজ উদ দৌল্লাহ প্রতিবেদন জমা দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এদিকে প্রতিবেদন জমার প্রায় দুই মাস পেরিয়ে গেলেও কোনো সিন্ডিকেট সভা না হওয়ায় এ বিষয়ে আর কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি।

মামলা না করা ও ‘অডিও কেলেঙ্কারি’তে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর কোনো ব্যবস্থা গ্রহণে ধীরগতি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সম্প্রতি শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকেও চিঠি দিয়ে মামলা করার বিষয়ে আলটিমেটাম দেয়া হয়।

চবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল হক বলেন, ‘মামলা করতে এত সময় লাগার কথা না। সিন্ডিকেট থেকেও মামলা করার কথা বলা হয়েছে। অডিও কেলেঙ্কারিতে যাদের সম্পৃক্ততা আছে, নেপথ্যের কারিগরদের খুঁজে বের করে আনতে মামলা করার কথা আমরা শুরু থেকেই বলে আসছি।

‘এ দাবি আমাদের শুরু থেকেই। আমরা এটি থেকে সরে আসিনি। যাদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে, তাদের আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই আসল নিয়োগসংক্রান্ত বাণিজ্য চক্র বেরিয়ে আসবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের মনে হয়, নিয়োগসংক্রান্ত বাণিজ্য চক্রকে ধরতে প্রশাসনের আন্তরিকতার অভাব রয়েছে। মামলা না করায় যাদের ব্যাপারে অডিও কেলেঙ্কারির অভিযোগ তাদেরকে সুরক্ষা ও প্রশ্রয় দেয়া হচ্ছে ও নেপথ্যে যারা আছে তাদেরকেও সামনে আসতে দেয়া হচ্ছে না বলে মনে হচ্ছে।’

তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সিরাজ উদ দৌল্লাহ বলেন, ‘আমরা প্রতিবেদন জমা দিয়েছি প্রায় দুই মাস পার হয়ে তিন মাস হয়ে যাচ্ছে। এখন উপাচার্য সিদ্ধান্ত নেবেন।

‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও শুদ্ধাচারের স্বার্থে জরুরি ভিত্তিতে সিন্ডিকেট ডেকে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত।’

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারকে একাধিকবার কল করেও পাওয়া যায়নি।

চবির ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নুর আহমদ বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদন জমা পড়েছে। সেটা আগামী সিন্ডিকেটে যবে। সিন্ডিকেটে যাওয়ার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’

খালেদ মিছবাহুল মোকর রবিন ও আহমদ হোসেনের বিষয়ে উচ্চ আদালত স্টে অর্ডার দিয়েছে। এ কারণে তারা চাকরিতে আছেন বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
কানের পর্দা ফেটে গেছে সাংবাদিক মোশাররফের
অছাত্রদের চবির হল ত্যাগের নির্দেশ
সজ্জন ও সচ্চরিত্রবানদের দিয়ে হবে চবি ছাত্রলীগের কমিটি : ইনান
চবির আরও দুই হলে তল্লাশি, বিপুল দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার
সংবাদ প্রকাশের জেরে চবিতে সাংবাদিকের ওপর হামলা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Sadarghat launch tragedy Five accused on three day remand

সদরঘাট লঞ্চ ট্র্যাজেডি: তিন দিনের রিমান্ডে পাঁচ আসামি

সদরঘাট লঞ্চ ট্র্যাজেডি: তিন দিনের রিমান্ডে পাঁচ আসামি সদরঘাটে এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চটির ছিঁড়ে যাওয়া দড়ির আঘাতেই আশপাশে থাকা পাঁচজন প্রাণ হারান। ছবি: মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ/নিউজবাংলা
রিমান্ড পাওয়া আসামিরা হলেন এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার (চালক) আবদুর রউফ হাওলাদার (৫৪), দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার (চালক) সেলিম হাওলাদার (৫৪), ম্যানেজার ফারুক খান (৭০), এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার (চালক) মিজানুর রহমান (৪৮) ও দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার (চালক) মনিরুজ্জামান (২৮)।

রাজধানীর সদরঘাট টার্মিনালের পন্টুনে দুই লঞ্চের মধ্যে ধাক্কা লেগে রশি ছিঁড়ে পাঁচ যাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় হওয়ায় মামলায় গ্রেপ্তার পাঁচ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

পাঁচজনের মধ্যে তিনজন এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের মাস্টার ও ম্যানেজার। বাকি দুজন এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের মাস্টার।

ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আরিফা চৌধুরী হিমেল শুক্রবার রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এ আদেশ দেন।

ওই আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আনোয়ারুল কবির বাবুল নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শুক্রবার সদরঘাট নৌ পুলিশের সদস্যরা আসামিদের আদালতে হাজির করেন। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাদের সাত দিনের পুলিশি রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা সদরঘাট নৌ থানার উপপরিদর্শক নকীব অয়জুল হক। আসামিদের পক্ষে তাদের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। পরবর্তী সময়ে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে এর বিরোধিতা করা হয়।

শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেক আসামিকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

রিমান্ড পাওয়া আসামিরা হলেন এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার (চালক) আবদুর রউফ হাওলাদার (৫৪), দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার (চালক) সেলিম হাওলাদার (৫৪), ম্যানেজার ফারুক খান (৭০), এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার (চালক) মিজানুর রহমান (৪৮) ও দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার (চালক) মনিরুজ্জামান (২৮)।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের যুগ্ম পরিচালক ইসমাইল হোসেন বাদী হয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।

মামলার এজহারে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার ২টা ৫৫ মিনিটে সদরঘাট টার্মিনালের ১১ নম্বর পল্টুনে এমভি তাসরিফ-৪ নোঙর করা অবস্থায় এমভি ফারহান-৬-এর চালক বেপরোয়া গতিতে লঞ্চ চালিয়ে ১১ নম্বর পন্টুনে ঢোকার সময় তাসরিফ লঞ্চকে ধাক্কা দেয়। এতে তাসরিফ লঞ্চের রশি ছিঁড়ে যায়। সেটি দ্রুত গতিতে এসে পন্টুনে অপেক্ষমাণ যাত্রীদের আঘাত করলে তারা নদীতে পড়ে যায়। এতে এক পরিবারের তিনজনসহ পাঁচ যাত্রীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ফারহান এবং তাসরিফ লঞ্চের দায়িত্ব অবহেলা আছে।

লঞ্চ ট্র্যাজেডিতে প্রাণ হারিয়েছেন পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার মাটিচোরা গ্রামের প্রয়াত আবদুল মালেকের ছেলে বিল্লাল (৩০), তার স্ত্রী মুক্তা (২৬), তাদের মেয়ে সাইমা (৩)। প্রাণ হারানো বাকি দুজন হলেন পটুয়াখালী সদরের জয়নাল আবেদিনের ছেলে রিপন হাওলাদার (৩৮) এবং ঠাকুরগাঁও সদরের নিশ্চিতপুর এলাকার আব্দুল্লাহ কাফীর ছেলে রবিউল (১৯)।

এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ।

কমিটিকে আগামী পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের কাছে প্রতিবেদন পেশ করতে বলা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএর পক্ষ থেকে মৃত প্রত্যেকের নমিনির কাছে দাফন-কাফন বাবদ ২৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সদরঘাটে দুই লঞ্চের সংঘর্ষে পাঁচ যাত্রী নিহত
ঈদের সকালে হরিয়ানায় স্কুলবাস উল্টে ৬ শিশু নিহত, ‘মদ্যপ ছিলেন’ চালক
নোয়াখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ নিহত ৩
চট্টগ্রামে ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, চালকসহ নিহত ২
শেষ কর্মদিবসে সদরঘাট ছেড়েছে যাত্রীভর্তি লঞ্চ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sadarghat accident Five arrested including master manager of two launches

সদরঘাটে দুর্ঘটনা: দুই লঞ্চের মাস্টার ম্যানেজারসহ পাঁচজন আটক

সদরঘাটে দুর্ঘটনা: দুই লঞ্চের মাস্টার ম্যানেজারসহ পাঁচজন আটক ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে অন্য লঞ্চের সঙ্গে এমভি ফারহান-৬। ছবি: মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ/নিউজবাংলা
নৌ পুলিশের ঢাকা জোনের এসপি গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, আটককৃতদের ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ দুর্ঘটনায় বন্দর কর্তৃপক্ষ ও বিআইডব্লিউটিএ বাদী হয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

রাজধানীর সদরঘাট টার্মিনালের পন্টুনে বৃহস্পতিবার লঞ্চ দুর্ঘটনায় দুই লঞ্চের মাস্টার ও ম্যানেজারসহ পাঁচজনকে আটক করে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

আটক পাঁচজন হলেন এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের দুই মাস্টার ও একজন ম্যানেজার এবং এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের দুই মাস্টার।

রাতে তাদের আটক করা হয়েছে বলে নিউজবাংলাকে জানান নৌ পুলিশের ঢাকা জোনের পুলিশ সুপার (এসপি) গৌতম কুমার বিশ্বাস।

এসপি গৌতম জানান, আটককৃতদের ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ দুর্ঘটনায় বন্দর কর্তৃপক্ষ ও বিআইডব্লিউটিএ বাদী হয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

আটক পাঁচজন হলেন এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার মো. মিজানুর রহমান (৪৮) ও দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার মো. মনিরুজ্জামান (২৪) এবং এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার মো. আবদুর রউফ হাওলাদার (৫৪), দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার মো. সেলিম হাওলাদার (৫৪) ও ম্যানেজার মো. ফারুক খাঁন (৭৬)।

যেভাবে দুর্ঘটনা

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঈদুল ফিতরের দিন বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে কোতোয়ালি থানাধীন সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের ১১ নম্বর পন্টুনের সামনে ঢাকা থেকে ভোলাগামী এমভি তাশরিফ-৪ ও এমভি টিপু নামে দুটি লঞ্চ রশি দিয়ে পন্টুনে নোঙর করা ছিল। লঞ্চ দুটির মাঝখান দিয়ে ফারহান নামের আরেকটি লঞ্চ প্রবেশের চেষ্টা চালায়। ওই সময় এমভি ফারহান-৬ লঞ্চটি এমভি টিপু-১৩কে সজোরে ধাক্কা দেয়। পরবর্তী সময়ে এমভি টিপু-১৩ ধাক্কা দেয় এমভি তাসরিফ-৪-কে। ওই সময় এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের রশি ছিঁড়ে যায়।

তারা আরও জানান, ছিঁড়ে যাওয়া সেই দড়িটিই পন্টুনের আশপাশে থাকা পাঁচজনকে সজোরে আঘাত করে। সেখানে গুরুতর আহত অবস্থায় মিটফোর্ড হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে কর্মরত প্রধান ডোম মোহাম্মদ মিলন শেখ জানান, পাঁচজনেরই মৃত্যু হয়েছে মাথায় আঘাত লেগে।

এদিকে লঞ্চের দড়ির আঘাতে পাঁচজনের প্রাণ যাওয়ার পর ধুয়েমুছে স্বাভাবিক করা হয়েছে সদরঘাটের পন্টুন। এ দুর্ঘটনায় সদরঘাট সাময়িক থমকে গেলেও দেড় ঘণ্টা পরই শুরু হয় স্বাভাবিক কার্যক্রম। দুর্ঘটনায় জড়িত এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের যাত্রীদের এমভি কর্ণফুলী-১২ লঞ্চে তুলে দেয়া হয়েছে।

তদন্ত কমিটি

এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। সংস্থাটির ক্রয় ও সংরক্ষণ পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম কমিটির আহ্বায়ক, নৌ সংরক্ষণ ও পরিচালন বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মো. আজগর আলী এবং বন্দর শাখার যুগ্ম পরিচালক মো. কবীর হোসেন কমিটির সদস্য।

কমিটিকে আগামী পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের কাছে প্রতিবেদন পেশ করতে বলা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএর পক্ষ থেকে প্রাণ হারানো প্রত্যেক ব্যক্তির স্বজনের কাছে দাফন-কাফন বাবদ ২৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
চট্টগ্রামে ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, চালকসহ নিহত ২
শেষ কর্মদিবসে সদরঘাট ছেড়েছে যাত্রীভর্তি লঞ্চ
ময়মনসিংহে এক দিনে সড়কে ঝরল ৮ প্রাণ
সদরঘাটে ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড়
ময়মনসিংহে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The committee canceled the route permit of two launches in the investigation of launch accident at Sadarghat

সদরঘাটে লঞ্চ দুর্ঘটনা তদন্তে কমিটি, দুই লঞ্চের রুট পারমিট বাতিল

সদরঘাটে লঞ্চ দুর্ঘটনা তদন্তে কমিটি, দুই লঞ্চের রুট পারমিট বাতিল সদরঘাটে এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চটির ছিঁড়ে যাওয়া দড়ির আঘাতেই আশপাশে থাকা পাঁচজন নিহত হন। ছবি: মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ/নিউজবাংলা
ঈদুল ফিতরের দিন বিকেলে সদরঘাট টার্মিনালের পন্টুনে বাঁধা দুটি লঞ্চের মাঝখান দিয়ে আরেকটি লঞ্চ প্রবেশের সময় একটি লঞ্চের রশি ছিঁড়ে পাঁচ যাত্রীর প্রাণহানি হয়। এ ঘটনায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে তিনজন এক পরিবারের সদস্য।

রাজধানীর সদরঘাট টার্মিনাল এলাকায় বৃহস্পতিবার লঞ্চ দুর্ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠনের পাশাপাশি তাৎক্ষণিকভাবে দুটি লঞ্চের ‍রুট পারমিট বাতিল করা হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

ঈদুল ফিতরের দিন বিকেলে সদরঘাট টার্মিনালের পন্টুনে বাঁধা দুটি লঞ্চের মাঝখান দিয়ে আরেকটি লঞ্চ প্রবেশের সময় একটি লঞ্চের রশি ছিঁড়ে পাঁচ যাত্রীর প্রাণহানি হয়।

এ ঘটনায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে তিনজন এক পরিবারের সদস্য।

মর্মান্তিক এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তদন্ত কমিটি

লঞ্চ দুর্ঘটনায় প্রাণহানির বিষয়টি তদন্ত করতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে বিআইডব্লিউটিএ।

বিআইডব্লিউটিএর পরিচালক (ক্রয় ও সংরক্ষণ) রফিকুল ইসলাম কমিটির আহ্বায়ক। এ ছাড়া সংস্থাটির নৌ সংরক্ষণ ও পরিচালন বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মো. আজগর আলী এবং বন্দর শাখার যুগ্ম পরিচালক মো. কবীর হোসেনকে কমিটির সদস্য করা হয়েছে।

কমিটিকে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের কাছে প্রতিবেদন পেশ করতে বলা হয়েছে।

ঢাকার সদরঘাট নদীবন্দরের দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মুহাম্মদ ইসমাইল হোসেন জানান, এমভি ফারহান-৬ লঞ্চটি জোরে পার্কিং করতে যাওয়ায় এমভি তাসরিফ-৪-এর রশি ছিঁড়ে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, এ দুর্ঘটনার পর এমভি ফারহান-৬ ও এমভি টিপুর যাত্রা বাতিল করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

রুট পারমিট বাতিল

বিআইডব্লিউটিএর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের পরিচালক জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘লঞ্চের রশি ছিঁড়ে ঘটা এ দুর্ঘটনার পর এমভি ফারহান-৬ ও এমভি তাসরিফ-৪-এর রুট পারমিট তাৎক্ষণিকভাবে বাতিল করা হয়েছে।’

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রীর শোক

সদরঘাটে লঞ্চের ছিঁড়ে যাওয়া রশির আঘাতে পন্টুনে থাকা পাঁচ যাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

প্রতিমন্ত্রী এক শোকবার্তায় নিহত যাত্রীর আত্মার শান্তি কামনার পাশাপাশি শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। তিনি আহত যাত্রীদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, দোষীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যে লঞ্চ দুর্ঘটনা

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে কোতোয়ালি থানাধীন সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের ১১ নম্বর পন্টুনের সামনে ঢাকা থেকে ভোলাগামী এমভি তাশরিফ-৪ ও এমভি টিপু নামের দুটি লঞ্চ রশি দিয়ে পন্টুনে বাঁধা ছিল। লঞ্চ দুটির মাঝখান দিয়ে এমভি ফারহান-৬ নামের আরেকটি লঞ্চ প্রবেশের চেষ্টা চালায়। ওই সময় এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের রশি ছিঁড়ে গেলে পাঁচজন যাত্রী লঞ্চে ওঠার সময় গুরুতর আহত হন। এদের মধ্যে বাবা-মা ও সন্তান ছিল।

তারা আরও জানান, সদরঘাট ফায়ার স্টেশনের কর্মীরা অ্যাম্বুলেন্সে করে আহত ব্যক্তিদের মিটফোর্ড হাসপাতালে পাঠালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক পাঁচজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

ফেয়ারী শিপিং লাইনস লিমিটেডের মালিকানাধীন এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চটি ঢাকা-চরফ্যাশন-বতুয়া রুটে চলাচল করে।

গুরুতর আহত পাঁচজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিউজবাংলাকে জানান স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের (মিটফোর্ড) জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক হিমাদ্রি শেখর।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালে নিয়ে আসার পর তাদের শরীরে পালস না পাওয়া যাওয়ায় তাদের মৃত ঘোষণা করা হয়েছে। গুরুতর আহত হওয়ায় পাঁচজনের শরীর থেকেই প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে।

‘মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে, তবে এ ঘটনায় এখন কোনো রোগী হাসপাতালে ভর্তি নেই। এ ঘটনায় পুলিশ পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।’

সদরঘাট নৌ থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, নিহত পাঁচজনের মধ্যে এক নারী, তিন পুরুষ ও এক শিশু আছে। তাদের মরদেহ মিটফোর্ড হাসপাতালে রাখা আছে। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় আইনি কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

এদিকে ঘটনার পরপরই অভিযুক্ত এমভি ফারহান-৬-এর চালক পালিয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন সদরঘাট নৌ থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় প্রাণ হারানো যাত্রীরা হলেন পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার মাটিচোরা গ্রামের প্রয়াত আবদুল মালেকের ছেলে বিল্লাল (৩০), তার স্ত্রী মুক্তা (২৬), তাদের মেয়ে সাইমা (৩)। তারা তিনজন একই পরিবারের সদস্য। বাকি দুজন হলেন পটুয়াখালী সদরের জয়নাল আবেদিনের ছেলে রিপন হাওলাদার (৩৮) ও ঠাকুরগাঁও সদরের নিশ্চিতপুর এলাকার আব্দুল্লাহ কাফীর ছেলে রবিউল (১৯)।

এ ঘটনায় নৌ পুলিশ কাজ করছে বলে জানিয়েছেন নৌ পুলিশের ঢাকা জোনের পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস।

আরও পড়ুন:
ময়মনসিংহে এক দিনে সড়কে ঝরল ৮ প্রাণ
সদরঘাটে ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড়
ময়মনসিংহে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ২
ভোলাগামী ওয়াটার বাসে আগুন
ধামরাইয়ে বাইক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আরোহীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Committee to investigate Volvo bus fire incident in Demra

ডেমরায় ভলভো বাসে আগুনের ঘটনা তদন্তে কমিটি

ডেমরায় ভলভো বাসে আগুনের ঘটনা তদন্তে কমিটি সোমবার রাতে ডেমরার কোনাপাড়ায় গ্যারেজে লাগা আগুনে ১৪টি ভলভো বাস পুড়ে যায়। ফাইল ছবি
সোমবার রাত ৮টা ৫০ মিনিটে ডেমরার ধার্মিকপাড়া এলাকার কোনাপাড়ায় একটি গ্যারেজে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও গ্যারেজে থাকা ১৪টি বাস পুড়ে যায়।

রাজধানীর ডেমরার ধার্মিকপাড়ায় আগুনে লন্ডন এক্সপ্রেস-এর ১৪টি বাস পুড়ে যাওয়ার ঘটনা তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। কমিটিকে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস মিডিয়া সেল জানিয়েছে, তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, ঢাকা বিভাগের উপ-পরিচালক মো. ছালেহ উদ্দিনকে। কমিটির সদস্য সচিব ডিএডি মো. শামসুজ্জোহা এবং সদস্য ডেমরা ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ওসমান গণি।

প্রসঙ্গত, সোমবার রাত ৮টা ৫০ মিনিটে ডেমরার ধার্মিকপাড়া এলাকার কোনাপাড়ায় একটি গ্যারেজে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও গ্যারেজে থাকা ১৪টি বাস পুড়ে যায়।

আগুনের খবর পেয়ে রাত ৮টা ৫৯ মিনিটে ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট প্রথমে ঘটনাস্থলে যায়। পরে সিদ্দিকবাজার স্টেশন থেকে আরও চারটি ইউনিট তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। ছয়টি ইউনিটের সম্মিলিত চেষ্টায় রাত ৯টা ৪৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যারহাউজ ইনস্পেক্টর মো. আনোয়ারুল ইসলাম ওইদিন মিডিয়াকে জানান, গ্যারেজে দাঁড়ানো কয়েকটি ভলভো বাসে আগুন লেগেছে। তবে বাসে কীভাবে আগুন লেগেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ঢাকা ফায়ার সার্ভিসের ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর ফয়সালুর রহমান জানান, গ্যারেজে থাকা লন্ডন পরিবহনের ১২ থেকে ১৪টি বাসে আগুন লাগে।

আরও পড়ুন:
ডেমরায় গ্যারেজে থাকা কয়েকটি ভলভো বাসে আগুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Savar oil tanker overturned and caught fire 2 dead 7 injured

সাভারে তেলের ট্যাংকার উল্টে আগুন: নিহত বেড়ে ২, দগ্ধ ৭

সাভারে তেলের ট্যাংকার উল্টে আগুন: নিহত বেড়ে ২, দগ্ধ ৭ সাভারে তেলবাহী লড়ি উল্টে গিয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা
প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ সোলায়মান জানান, ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে হেমায়েতপুর এলাকায় তেলের ট্যাংকার আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে পাশের তরমুজের ট্রাকসহ অন্য চারটি গাড়িতে আগুন ধরে যায়।

সাভারের হেমায়েতপুরে তানজিব কোয়েল ফ্যাক্টরির সামনে একটি তেলের লরি উল্টে গিয়ে পাঁচটি গাড়িতে আগুন লাগার ঘটনায় দগ্ধ আটজনের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে ঘটনাস্থলে মারা যান একজন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনিস্টিটিউটে মঙ্গলবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় নজরুল ইসলামের মৃত্যু হয়। দগ্ধ বাকি সাতজন একই ইনিস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তারা হলেন মিম (১০), আল-আমিন (৩৫), নীড়াঞ্জন (৪৫), মিলন মোল্লা (২২), সাকিব (২৪), ট্রাকের হেলপার হেলাল (৩০) ও তরমুজ ব্যবসায়ী সালাম (২৪)। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জোড়পুল এলাকায় মঙ্গলবার ভোরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মহাসড়কে আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে একটি তেলবাহী লরি উল্টে গিয়ে পেছনে থাকা প্রাইভেটকার ও ট্রাকসহ চারটি গাড়ির সঙ্গে সংঘর্ষে আগুন লেগে যায়। এতে ঘটনাস্থলে একজনের মৃত্যু হয়, দগ্ধ হন আটজন।

প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ সোলায়মান জানান, ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে হেমায়েতপুর এলাকায় তেলের ট্যাংকার আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে পাশের তরমুজের ট্রাকসহ অন্য চারটি গাড়িতে আগুন ধরে যায়। এই ঘটনায় ড্রাইভার, হেলপার ও তরমুজ ব্যবসায়ীসহ আট জনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসলে নজরুলকে চিকিৎসক মৃত বলে জানান।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘হেমায়েতপুরে দগ্ধ হয়ে আমাদের এখানে আটজন এসেছে। তাদের মধ্যে নজরুল ইসলাম নামে একজন মারা যায়, বাকি সাতজনকে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
মাইক্রোতে বাসের ধাক্কায় দুই সন্তান নিহত, আহত মা-বাবা
পাহাড়ে মাটিখেকোদের ডাম্পার ট্রাকচাপায় প্রাণ গেল বন কর্মকর্তার
দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেনে ইঞ্জিনের ধাক্কা, আহত ৫০
সাজেকে পণ্যবাহী মাহেন্দ্র খাদে, চালক নিহত
দক্ষিণ আফ্রিকায় বাস খাদে পড়ে নিহত ৪৫

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The parents and brother left alone and the partner also went to the hospital
গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে দগ্ধ

চলে গেলেন মা-বাবা ও ভাই, একা হয়ে পড়া সাথীও হাসপাতালে

চলে গেলেন মা-বাবা ও ভাই, একা হয়ে পড়া সাথীও হাসপাতালে মা-বাবা ও ভাইয়ের সঙ্গে এই ছবি ইশরাত জাহান সাথীর কাছে আজ কেবলই স্মৃতি। ছবি: সংগৃহীত
ধামরাই পৌরসভার মোকামটোলা এলাকায় ভাড়া বাসায় ২৬ মার্চ সেহরির রান্না করার সময় গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ ও আগুন ধরে যায়। এতে পরিবারের চার সদস্যই দগ্ধ হন। তাদের মধ্যে তিনজন বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সোমবার।

গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে ভয়াবহ বিস্ফোরণ। নিমিষেই ফ্ল্যাট জুড়ে ছড়িয়ে পড়া আগুনের লেলিহান শিখায় দুই সন্তানসহ দগ্ধ হন মা-বাবা। ২৬ মার্চ ধামরাই পৌরসভার মোকামটোলা এলাকায় ভাড়া বাসার নিচতলায় নুরুল ইসলামের ফ্ল্যাটে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

দগ্ধ চারজনকে দ্রুত রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে তিনজনই মারা গেছেন।

তারা হলেন- সাভার উপজেলার শিমুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক স্বাস্থ্য পরিদর্শক নুরুল ইসলাম, তার স্ত্রী সুফিয়া বেগম ও ছেলে সাভার মডেল কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সোহাগ হোসেন। বেঁচে আছেন কেবল পরিবারের একমাত্র মেয়ে ইশরাত জাহান সাথী।

সোমবার সুফিয়া বেগমের ভাই জাহিদুল ইসলাম তিনজনের মৃত্যুর বিষয়টি জানান। সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সায়েমুল হুদাও বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) গভীর রাতে অচেনা নম্বরের ফোনে ঘুম ভাঙে আমার। তখন ধামরাই পৌরসভার মোকামটোলা আমার বোনের ভাড়া বাসায় আগুন লাগার সংবাদ পেয়ে দ্রুত রওনা হই। আসার আগেই আমার বোন সুফিয়া, তার স্বামী নুরুল ইসলাম, ভাগ্নে সোহাগ ও ভাগ্নি ইশরাত জাহান সাথীকে হাসপাতালে পাঠায় স্থানীয়রা। সবাই বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন ছিলো।’

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল (রোববার) দুপুরে আমার বোন সুফিয়া মারা যায়। আমাদের গ্রাম ধামরাইয়ের বাইশাকান্দা ইউনিয়নে পারিবারিক কবরস্থানে বোনকে দাফন করে আজ লাশ নিতে এসেছি বোনজামাই আর ভাগ্নের।

‘আজ (সোমবার) শেষ রাতে দুলাভাই নুরুল ইসলাম মারা গেছেন। আর দুপুরের দিকে ভাগ্নে সোহাগের মৃত্যু হয়। অথচ গতকালও সে অনেক ভালো ছিলো। আমাদের সঙ্গে কথাও বলেছে।’

স্বজনহারা এই ব্যক্তি বলেন, ‘ভাগ্নি সাথীর অবস্থা কিছুটা ভালো আছে। তবে পুরো পরিবারটা নিমিষেই শেষ হয়ে গেলো। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত চাই আমরা। জানতে চাই- কিভাবে কার অবহেলায় এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটলো।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সায়েমুল হুদা বলেন, ‘মারা যাওয়া নুরুল ইসলাম শিমুলিয়া ইউনিয়নের স্বাস্থ্য পরিদর্শক ছিলেন। তিনি ২৪ ফেব্রুয়ারি অবসর গ্রহণের পর থেকে তিনি ধামরাইয়ে বসবাস করতেন। আর আজ পরিবারটির তিনজন সদস্যই নেই।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BUET students boycott of class exams continues

অবস্থান স্থগিত, চলছে বুয়েট শিক্ষার্থীদের ক্লাস পরীক্ষা বর্জন

অবস্থান স্থগিত, চলছে বুয়েট শিক্ষার্থীদের ক্লাস পরীক্ষা বর্জন বুয়েটে মধ্যরাতে বহিরাগত নিয়ে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের প্রবেশের অভিযোগ তুলে পাঁচ দাবিতে দুই দিন ধরে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি
আন্দোলনরত এক শিক্ষার্থী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা আজকে কোনো অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি না, তবে ক্লাস, পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি চলছে।’

পাঁচ দাবিতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থীদের ডাকা রোববারের অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে, তবে তারা শনিবারের মতো আজও ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি পালন করছেন।

আন্দোলনরত একাধিক শিক্ষার্থী নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানিয়েছেন, যাদের একজন বলেন, ‘আমরা আজকে কোনো অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি না, তবে ক্লাস, পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি চলছে।

‘ছাত্রলীগের সমাবেশ শেষ হওয়ার পর আমরা একটি সংবাদ সম্মেলন করতে পারি, তবে সেটি এখনও নিশ্চিত না। নিশ্চিত হলে আপনাদের জানানো হবে।’

গতকাল বুয়েট শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, রোববার সকাল সাতটা থেকে পূর্বের পাঁচ দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন তারা। তার সঙ্গে চলবে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি।

আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০তম ব্যাচের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা হওয়ার কথা রয়েছে।

বুয়েটে মধ্যরাতে বহিরাগত নিয়ে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের প্রবেশের অভিযোগ তুলে পাঁচ দাবিতে দুই দিন ধরে অবস্থান এবং রোববারসহ তিন দিন ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষার্থীরা।

পাঁচ দাবি

বুয়েট শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের সুস্পষ্ট বিধিমালা লঙ্ঘনের দায়ে বুধবার মধ্যরাতে রাজনৈতিক সমাগমের মূল সংগঠক ইমতিয়াজকে বুয়েট থেকে স্থায়ী বহিষ্কার; তাঁর সঙ্গে জড়িত পাঁচ শিক্ষার্থীকে (এএসএম আনাস ফেরদৌস, হাসিন আরমান নিহাল, অনিরুদ্ধ মজুমদার, জাহিরুল ইসলাম ও সায়েম মাহমুদ) বুয়েট থেকে স্থায়ী—অ্যাকাডেমিক ও হল থেকে বহিষ্কার, জড়িত অন্যদের অবিলম্বে শনাক্ত করে শাস্তি দেয়া; ক্যাম্পাসে প্রবেশ করা বহিরাগত রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থার বিষয়ে প্রশাসনের লিখিত নোটিশ ও তা বাস্তবায়ন; ‘দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ’ ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালকের (ডিএসডব্লিউ) পদত্যাগ; আন্দোলনরত বুয়েট শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে কোনো রকম হয়রানিমূলক ব্যবস্থা না নেয়ার বিষয়ে লিখিত প্রতিশ্রুতি।

তদন্ত কমিটি

শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে ইমতিয়াজ রাব্বিকে হল থেকে বহিষ্কার করে বুধবারের ঘটনা তদন্তে ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করে দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার।

তিনি বলেন, তারা শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একমত, কিন্তু বাস্তবায়ন করতে তাদের সময় প্রয়োজন।

ছাত্রলীগের সমাবেশ

শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলন একটি অন্ধকার গোষ্ঠীর ইন্ধনে পরিচালিত হচ্ছে বলে দাবি করেন বুয়েটের পাঁচ শিক্ষার্থী। শনিবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে তারা এই দাবি জানান।

এদিকে শনিবার রাতে বুয়েট শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে মৌলবাদী গোষ্ঠীর ‘কালো ছায়া’ দেখতে পাচ্ছেন দাবি করে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দেয়া হয়েছে।

ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বলা হয়, মৌলবাদী গোষ্ঠীর ‘কালো ছায়া’ থেকে মুক্ত করে বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্ররাজনীতির দাবি এবং বুয়েটে গৃহীত অসাংবিধানিক, মৌলিক অধিকার-পরিপন্থি ও শিক্ষাবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের এ সমাবেশ।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রোববার বেলা ১১টা থেকে এ সমাবেশ শুরুর কথা থাকলেও দুপুর ১২টার দিকে তা শুরু হয়।

আরও পড়ুন:
বুয়েটে মধ্যরাতে ছাত্রলীগ নেতাদের প্রবেশ, প্রতিবাদে আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা
বুয়েট ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ
বহিষ্কৃত বিটু ক্লাসে ফেরায় বুয়েট শিক্ষার্থীদের অবস্থান
রাজনীতিতে জড়িত থাকলে সুনামগঞ্জে আটক শিক্ষার্থীদেরও শাস্তি চান বুয়েট শিক্ষার্থীরা
ছাত্র রাজনীতির বিরুদ্ধে বুয়েটে ফের শিক্ষার্থীদের শপথ পাঠ

মন্তব্য

p
উপরে