× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Bangladesh is being single handedly targeted Bloomberg article
google_news print-icon

বাংলাদেশকে এককভাবে টার্গেট করা হচ্ছে: ব্লুমবার্গের নিবন্ধ

বাংলাদেশকে-এককভাবে-টার্গেট-করা-হচ্ছে-ব্লুমবার্গের-নিবন্ধ
যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের লোগো। ফাইল ছবি
ব্লুমবার্গ ওপিনিয়ন কলামিস্ট এবং নয়াদিল্লির অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের সিনিয়র ফেলো মিহির শর্মা নিবন্ধে বলেন, অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ গত এক দশক ধরে সাফল্য দেখিয়ে যাচ্ছে। ২০১৬ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে প্রবৃদ্ধি ধারাবাহিকভাবে ছয় শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে এবং গড়ে ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইনের মতো দেশগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশ শিগগিরই দরিদ্র দেশগুলোর তালিকা থেকে ‘উত্তরণ’ করবে এবং বিভিন্ন বাণিজ্য ও উন্নয়ন সহায়তার সুযোগ পরিত্যাগ করবে।

বাংলাদেশে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষিত ভিসানীতির সমালোচনা করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কভিত্তিক আর্থিকবিষয়ক প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গের নিবন্ধে।

অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা করা ভিসানীতিকে ‘দ্ব্যর্থবোধক বিবৃতি’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞাগুলো ন্যায্য নয়। কারণ দৃশ্যত বাংলাদেশকে এককভাবে লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে।

নিবন্ধে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট লাইবেরিয়া, সিয়েরা লিওন এবং নাইজেরিয়াসহ অন্যান্য দেশের ওপর একই ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করলেও এটি আমেরিকার অংশীদারসহ অন্যদের টার্গেট করা থেকে বিরত রয়েছে। সেনাবাহিনী সম্প্রতি থাইল্যান্ড ও পাকিস্তানের মতো দেশে নির্বাচনে প্রকাশ্যে হস্তক্ষেপ করেছে।

ব্লুমবার্গ ওপিনিয়ন কলামিস্ট এবং নয়াদিল্লির অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের সিনিয়র ফেলো মিহির শর্মা নিবন্ধে বলেন, অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ গত এক দশক ধরে সাফল্য দেখিয়ে যাচ্ছে। ২০১৬ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে প্রবৃদ্ধি ধারাবাহিকভাবে ছয় শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে এবং গড়ে ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইনের মতো দেশগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশ শিগগিরই দরিদ্র দেশগুলোর তালিকা থেকে ‘উত্তরণ’ করবে এবং বিভিন্ন বাণিজ্য ও উন্নয়ন সহায়তার সুযোগ পরিত্যাগ করবে।

এতে বলা হয়, আশাবাদী হওয়া কঠিন যে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে দেশের আসন্ন ভোট অনেক বেশি বাধহীন হবে। তা সত্ত্বেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ভুলে যাওয়া ‘গণতন্ত্র প্রথম’ পররাষ্ট্র-নীতি এজেন্ডায় বাংলাদেশকে মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা অনুধাবন করা সমান কঠিন।

নিবন্ধে উল্লেখ করা হয়, গত মাসে একটি দ্ব্যর্থবোধক বিবৃতিতে, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর ঘোষণা করেছে যে, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়া ক্ষুণ্ন করার জন্য তারা ‘আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য, ক্ষমতাসীন দল এবং বিরোধী রাজনৈতিক দলসহ বাধাদানকারী সবার ওপর ভিসা বিধিনিষেধ আরোপের জন্য ‘পদক্ষেপ নিয়েছে’। এই ধরনের খোলাখুলি ধমকানো ন্যায্য বা সংবেদনশীল নয়।

নীতিটি যুক্তিসঙ্গত নয়, এমন উল্লেখ করে কলামনিস্ট বলেন, কারণ এটি যুক্তরাষ্ট্রকে পক্ষপাতদুষ্ট করে তুলেছে। ওয়াশিংটনের কেউ হয়তো মনে করেন, ভারত ও তুরস্কের মতো গণতান্ত্রিক ব্যাকস্লাইডারদের তুলনায় বাংলাদেশের গুরুত্ব ন্যূনতম। যদি তাই হয়, তবে এটি উল্লেখযোগ্যভাবে অদূরদর্শী হবে।

বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন করার মূল্য হবে অনেক বেশি। এটি বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম দেশ, একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ যেটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে একটি ক্ষতবিক্ষত অভ্যন্তরীণ লড়াই করেছে, একটি পরিবর্তনের কারণে মৌলবাদীরা ভালোভাবে হেরে যেতে পারে।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকারকে সরিয়ে দিলেন রিপাবলিকানরা
তলে তলে আপস হয়ে গেছে: কাদের
ভিসা নীতি যার যার দেশের নিজস্ব বিষয়: নাছিম
‘গণমাধ্যমের ওপর চাপিয়ে দেয়া ভিসা নীতি অবমাননাকর’
নির্বাচন নিয়ে বাংলাদেশের জনগণ যা চায় যুক্তরাষ্ট্রও তা চায়: মিলার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
How much is the price of electricity increasing in which sector?

কোন খাতে কত বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

কোন খাতে কত বাড়ছে বিদ্যুতের দাম
দাম বাড়ালেও সমন্বয়টা বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের ওপর দিয়ে বেশি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

এক বছরের মাথায় গ্রাহক পর্যায়ে ফের বাড়ছে বিদ্যুতের দাম। সরকারের নির্বাহী আদেশে গ্রাহক পর্যায়ে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম খুচরা পর্যায়ে সাড়ে আট শতাংশ ও পাইকারি পর্যায়ে ৫ দশমিক শূন্য ৭৪ শতাংশ বাড়ানো হচ্ছে। নতুন দর অনুসারে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতে গ্রাহককে অতিরিক্ত গুনতে হবে ৭০ পয়সা। চলতি ফেব্রুয়ারি মাসের বিল থেকেই নতুন এ দাম কার্যকর করা হবে।

নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের নতুন দাম নির্ধারণ করে বৃহস্পতিবার প্রজ্ঞাপন জারি করছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যুতে ভর্তুকিতে ডলারের তারতম্যটাই মূল বিষয়। গ্যাসের দামও ঊর্ধ্বমুখী। ফলে এবার বিদ্যুতের ভর্তুকি গিয়ে দাঁড়াবে ৪৩ হাজার কোটি টাকায়। সে কারণে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দাম সমন্বয়ে যেতে হবে। আমরা ধীরে ধীরে কয়েক বছর ধরে মূল্য সমন্বয়ে যাব।’

নিচের দিকে ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের দাম ৩৪ পয়সা বাড়ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ওপরের দিকে ৭০ পয়সা বাড়বে। অর্থাৎ নিচের দিকে ৫ শতাংশ ও ওপরের দিকে দাম বাড়বে সাড়ে ৮ শতাংশের মতো। ফলে মাসশেষে হয়ত ১০০ টাকায় ৫ থেকে ৮ টাকা বাড়তি দিতে হতে পারে।’

প্রতিমন্ত্রী জানান, ডলারের দামের তারতম্যের কারণে বর্তমানে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ প্রায় ১২ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে, যা আগে ৭ থেকে ৮ টাকা ছিল। বর্তমানে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ ৭ টাকায় বিক্রি করছে সরকার।

তবে দাম বাড়ালেও সমন্বয়টা বেশি ব্যবহারকারীদের ওপর দিয়ে বেশি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বিদ্যুতের দাম সমন্বয়ের কারণে জনজীবনে এর প্রভাব কেমন পড়বে- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞদের কথায় মনে হচ্ছে, অত বেশি পরিবর্তন ঘটবে না। খুব বেশি প্রভাব পড়বে না।’

নতুন মূল্য কার্যকরের সময় জানাতে তিনি বলেন, ‘ডায়নামিক প্রাইসে (পরিবর্তিত মূল্যে) তেলের দাম নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। ১ মার্চ থেকে সেটি কার্যকর করা শুরু হবে। আর বিদ্যুতের দাম যেটা বেড়েছে, সেটা ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর হবে।’

নসরুল হামিদ বলেন, ‘আমরা জ্বালানির দাম সমন্বয় করেছি বিদ্যুতে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো যে দামে গ্যাস নিত, সেখানে আমরা ৭০ পয়সার মতো সমন্বয় করেছি। আর তেলের দামও ডায়নামিক প্রাইসে নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘কয়লা, তেল ও গ্যাসসহ জ্বালানি আমরা যে দামে কিনতাম, সেখানে একটা ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। গত বছরে মারাত্মকভাবে এ পরিবর্তন এসেছে, যে কারণে ডলারের সঙ্গে জ্বালানির দাম সমন্বয় করার চিন্তাভাবনা করছিলাম। জ্বালানির ব্যাপারেও একটা ডায়নামিক প্রাইসের দিকে যাচ্ছি, যেটা পয়লা মার্চ থেকে শুরু হবে। কাল-পরশুর মধ্যেই এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

ডায়নামিক প্রাইসের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিশ্বে যদি জ্বালানির দাম বাড়ে, তাহলে আমাদের দেশেও সেটার সঙ্গে সমন্বয় করে বাড়বে। আবার বিশ্বে যদি কমে, আমাদের দেশেও কমবে।

‘এটা প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহে করা হবে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ প্রতিদিন এটা করে। যেমন কলকাতার কথা যদি বলি, সেখানে এক লিটার ডিজেলের দাম ১৩৩ টাকা। আমাদের দেশে ডিজেলের দাম ১০৯ টাকা।’

এভাবে গ্যাসের দামও সরকারকে ডলারের সঙ্গে সমন্বয় করতে হচ্ছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘গ্যাস আমদানি সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। আমরা যদি তা সারের সঙ্গে যদি মিক্স করি, তাহলে ২৪ টাকার ওপরে পড়ে যায়। সারকে এ গ্যাস দিচ্ছি ১৬ টাকা রেটে, বিদ্যুতকে দিচ্ছি ১৪ টাকা রেটে। যে কারণে গ্যাসের দাম ১৪ টাকা ৭০ পয়সা করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মার্চ নয়, বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police must prepare to deal with new forms of crime PM

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার নিজ কার্যালয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন। ছবি: পিআইডি
শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে নানাভাবে অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলার ওপর সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছে। অপরাধ মোকাবিলায় সিস্টেম আপগ্রেড করা না গেলে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না।’

প্রযুক্তির উন্নয়নের যুগে অপরাধের নতুন নতুন ধরন মোকাবিলা করতে পুলিশ সদস্যদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পুলিশ সপ্তাহ-২০২৪ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে নিজ কার্যালয়ে বাংলাদেশ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

‘স্মার্ট পুলিশ স্মার্ট দেশ, শান্তি ও প্রগতির বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩ মার্চ পর্যন্ত ছয় দিনব্যাপী পুলিশ সপ্তাহ পালিত হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে নানাভাবে অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। অপরাধের নতুন নতুন ধরন তৈরি হচ্ছে। আমাদের পুলিশ বাহিনীকে সম্ভাব্য সব উপায়ে এগুলো মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলার ওপর সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছে। অপরাধের ধরন পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে অপরাধ মোকাবিলায় সিস্টেম আপগ্রেড করা না গেলে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না।’

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ফটোসেশনে অংশ নেন। ছবি: পিআইডি

পুরুষ, নারী ও শিশু নির্বিশেষে জনগণকে কর্মক্ষেত্রে আপনজন বিবেচনা করে সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে সেবা দেয়ার জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান সরকার প্রধান।

তিনি বলেন, ‘পুলিশ এখন জনগণের বন্ধুতে পরিণত হয়েছে। এখন মানুষ অতীতের মতো পুলিশকে ভয় পায় না। এখন তারা (জনগণ) তাদের আস্থা ফিরে পেয়েছে এবং সাধারণ মানুষ পুলিশকে তাদের বন্ধু ও আস্থাভাজন মনে করে।’

আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা, পুলিশকে মারা, পুলিশ হত্যাসহ সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের যে মামলাগুলো রয়েছে এর দীর্ঘসূত্রতা থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই মামলাগুলো কিন্তু যথাযথভাবে চলে না। আমি মনে করি যারা এ ধরনের অপরাধ করে তাদের মামলাগুলো যথাযথভাবে চললে এবং দ্রুত সাজা হয়ে গেলে আর অপরাধ করার সাহস পাবে না।’

আগামীতে যেন আর কেউ পুলিশের ওপর আক্রমণ করতে না পারে সেভাবে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের প্রস্তুত থাকতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘রাজনীতির নামে হোক আর সন্ত্রাসের নামে হোক আইনকে যাতে নিজের হাতে তুলে নিতে না পারে এবং আইন-শৃঙ্খলা ও মানুষের জানমাল এবং জাতীয় সম্পদের ক্ষতি করতে না পারে এ ব্যাপারে পুলিশকে অবিচল থাকতে হবে। যখনই যেটা দরকার যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘কেউ যেন আইনকে নিজের হাতে তুলে নিতে এবং আইনশৃংখলার অবনতি ঘটাতে না পারে।’

আরও পড়ুন:
রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে
নিজের লেখা দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর
সরকার অফশোর গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
দেশের মানুষের সেবা করুন: পুলিশকে প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Day temperature may increase slightly

সামান্য বাড়তে পারে দিনের তাপমাত্রা

সামান্য বাড়তে পারে দিনের তাপমাত্রা রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খেলছে শিশু-কিশোররা। ফাইল ছবি/পিয়াস বিশ্বাস
পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, সামান্য বাড়তে পারে দিনের তাপমাত্রা।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এমন বার্তা দিয়েছে।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে পূর্বাভাসে জানানো হয়, সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে।

ঢাকায় বাতাসের গতি ও দিক নিয়ে বলা হয়, পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ ছয় থেকে ১২ কিলোমিটার।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় বৃষ্টি হতে পারে
ফের ১০ ডিগ্রির ঘরে পঞ্চগড়ের তাপমাত্রা 
সামান্য বাড়তে পারে দিনের তাপমাত্রা
দেশজুড়ে কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা
দেশজুড়ে কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prices of daily necessities will be affordable during Ramadan
সংসদে প্রধানমন্ত্রী

রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে

রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বুধবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: ফোকাস বাংলা
জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকার প্রধান বলেন, ‘আশা করি পবিত্র রমজান মাসে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে থাকবে এবং বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামের লাগাম টেনে ধরা সম্ভব হবে।’

পবিত্র রমজান মাসে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আশা করি পবিত্র রমজান মাসে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে থাকবে এবং বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামের লাগাম টেনে ধরা সম্ভব হবে।’

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্বে ভোলা-২ থেকে নির্বাচিত ক্ষমতাসীন দলের সদস্য আলী আজমের লিখিত প্রশ্নের জবাবে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনগণের সরকার। তাই জনগণের দুর্ভোগ কমাতে সরকার সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে। সরকারের পদক্ষেপের ফলে দরিদ্র মানুষ, বিশেষ করে দরিদ্র পরিবার, বয়স্ক ব্যক্তি, বিধবা, স্বামী পরিত্যক্তা ও নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে স্বস্তি আসবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের স্বাভাবিক মূল্য বজায় রাখতে সব ধরনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা ইতোমধ্যে ভোক্তা মূল্যের অস্বাভাবিক বৃদ্ধিকে অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্ববাজারে কিছু পণ্য- যেমন জ্বালানি তেল, ভোজ্যতেল, গম, সার, বিভিন্ন খাদ্যপণ্য, ভোগ্যপণ্য ও শিল্পের কাঁচামালের দাম বেড়েছে। এ কারণে দেশে আমদানি পণ্যে মূল্যস্ফীতির চাপ অনুভূত হচ্ছে। মূল্যস্ফীতি কমাতে বিভিন্ন শুল্ক ছাড় দেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
নিজের লেখা দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর
সরকার অফশোর গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
দেশের মানুষের সেবা করুন: পুলিশকে প্রধানমন্ত্রী
বাইডেনের চিঠির জবাব পাঠালেন শেখ হাসিনা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Ministers instructions not to hold official big Iftar parties

সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: ফোকাস বাংলা
মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে বেসরকারিভাবে ইফতার পার্টি আয়োজনকেও নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরিব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।’

আসন্ন পবিত্র রমজানে সরকারিভাবে বড় ধরনের কোনো ইফতার পার্টি উদযাপন না করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় তিনি এই নির্দেশনা দেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই বৈঠকে একইসঙ্গে বেসরকারিভাবেও এ ধরনের ইফতার পার্টি আয়োজনকে নিরুৎসাহিত করার কথা বলেছেন সরকার প্রধান।

বিকেলে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বৈঠকের সিদ্ধান্ত ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে একটা নির্দেশনা আছে, সেটা হলো রমজান মাসে সরকারিভাবে বড় করে কোনো ইফতার পার্টি আয়োজন করা যাবে না।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে নির্দেশনা আছে, রমজান মাসে সরকারিভাবে বড় ধরনের ইফতার পার্টি নামক কোনো বিষয় উদযাপন করা যাবে না। তিনি এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন।

তিনি বলেন, বেসরকারিভাবে ইফতার পার্টি আয়োজনকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরিব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

মাহবুব হোসেন আরও বলেন, ‘আপনাদের বুঝতে হবে আমরা যেন অপচয় না করি। আমরা যেন লোক দেখানো কার্যক্রমে নিজেদের নিয়োজিত না করি। তার বদলে ওই টাকাটা যদি আপনি কারও কল্যাণে ব্যবহার করতে চান, গরিব মানুষ যাদের টার্গেট করলেন তাদের আপনি বিলিয়ে দিতে পারেন। আমি-আপনি বসে খেলাম, ওখানে অনেক খাদ্যের অপচয় হলো, অর্থের অপচয় হলো। এটার তো ধর্মীয় দিক থেকেও যুক্তি থাকতে পারে না।

প্রসঙ্গত, রমজান মাসের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এ বছর রোজা শুরু হতে পারে ১২ বা ১৩ মার্চ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Make PSC a Center of Excellence President

পিএসসিকে সেন্টার অফ এক্সিলেন্সে পরিণত করুন: রাষ্ট্রপতি

পিএসসিকে সেন্টার অফ এক্সিলেন্সে পরিণত করুন: রাষ্ট্রপতি পিএসসি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বুধবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে কমিশনের বার্ষিক প্রতিবেদন পেশ করে। ছবি: পিআইডি
মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘দেশের মেধাবী তরুণরা যাতে তাদের মেধা ও যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে জনগণের সেবার মনোভাব নিয়ে সরকারি চাকরিতে প্রবেশ করতে পারে সে লক্ষ্যে কর্মকমিশনের সব কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।’

সরকারি কর্ম কমিশনকে (পিএসসি) সব কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতের মাধ্যমে সেন্টার অফ এক্সিলেন্সে পরিণত করার নির্দেশ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

পিএসসি চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসাইনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বুধবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে কমিশনের বার্ষিক প্রতিবেদন-২০২৩ পেশকালে তিনি এই নির্দেশ দেন।

সাক্ষাৎকালে পিএসসি চেয়ারম্যান প্রতিবেদনের বিভিন্ন দিক এবং কমিশনের সার্বিক কার্যক্রম সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘দেশের মেধাবী তরুণরা যাতে তাদের মেধা ও যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে জনগণের সেবার মনোভাব নিয়ে সরকারি চাকরিতে প্রবেশ করতে পারে সে লক্ষ্যে কর্ম কমিশনের সব কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

‘বাছাই প্রক্রিয়ায় চাকরিপ্রার্থীদের দেশপ্রেম, সততা ও নিষ্ঠা এবং স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কিত বিষয়াদির ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।’

নিয়োগ প্রক্রিয়ার জটিলতা ও সময়সীমা কমিয়ে আনতে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোসহ কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার ওপর জোর দেন রাষ্ট্রপতি।

পিএসসির কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেন, ভবিষ্যতে পিএসসি আরও গতিশীল হবে এবং নিয়োগ প্রক্রিয়ার দীর্ঘসূত্রতা কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে।

আরও পড়ুন:
সরকার গঠনে শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রপতির আমন্ত্রণ
পোস্টাল ব্যালটে ভোট রাষ্ট্রপতির
বিচারকদের দ্রুত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বললেন রাষ্ট্রপতি
শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
রাষ্ট্রপতির সাজেক সফর স্থগিত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
MP of reserved 50 women constituencies took oath

শপথ নিলেন সংরক্ষিত ৫০ নারী আসনের এমপি

শপথ নিলেন সংরক্ষিত ৫০ নারী আসনের এমপি
টেলিভিশন থেকে নেয়া
সংসদ ভবনের শপথ কক্ষে প্রথমে আওয়ামী লীগের ৪৮ জন এবং পরের ধাপে জাতীয় পার্টির দুজন এমপিকে শপথ বাক্য পাঠ করান স্পিকার।

শপথ নিয়েছেন জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা।

বুধবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

সংসদ ভবনের শপথ কক্ষে প্রথমে আওয়ামী লীগের ৪৮ জন এবং পরের ধাপে জাতীয় পার্টির দুজন এমপিকে শপথ বাক্য পাঠ করান স্পিকার।

সংরক্ষিত নারী আসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) মুনিরুজ্জামান তালুকদার গত ২৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনি আইনের ১২ ধারা অনুযায়ী, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫০ জন প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন।

নির্বাচনের বিধি অনুযায়ী, সরাসরি ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে নারী আসন বণ্টন করা হয়।

এবার জোট শরিক ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সমর্থনে ৪৮টি সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী মনোনয়ন দেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বিরোধী দল জাতীয় পার্টি মনোনয়ন দিয়েছিল ২টি আসনে। কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতা না থাকায় তাদেরকে সরাসরি নির্বাচিত ঘোষণা করা হয।

মন্তব্য

p
উপরে