× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Sylhet shook by earthquake again
google_news print-icon

আবারও ভূমিকম্পে কাঁপল সিলেট

আবারও-ভূমিকম্পে-কাঁপল-সিলেট
ফাইল ছবি
সিলেট আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজিব আহমদ জানান, রিখটার স্কেলে এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬। এতে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

আবারও ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল সিলেট। রিখটার স্কেলে এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬।

মঙ্গলবার দুপুর ১টা ১৩ মিনিটে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়। ভূমিকম্পটি কয়েক সেকেন্ড স্থায়ী ছিল।

ভূমিম্পের উৎপত্তিস্থল সিলেট জেলার জৈন্তাপুর উপজেলা থেকে ১৮ কিমি দূরে বলে তাৎক্ষণিকভাবে জানিয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ভূমিকম্প সতর্কতা সিস্টেম।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজিব আহমদ জানান, রিখটার স্কেলে এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬। এতে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।



আরও পড়ুন:
বালি দ্বীপ কাঁপল ৭ মাত্রার ভূমিকম্পে
সিলেটের ভূমিকম্পে কাঁপল দেশ
আলাস্কায় ৭.৪ মাত্রার ভূমিকম্প, সুনামি সতর্কতা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Jihad did not buy iftar material for mother
বেইলি রোড ট্র্যাজেডি

মাকে ইফতার সামগ্রী কিনে দেয়া হলো না জিহাদের

মাকে ইফতার সামগ্রী কিনে দেয়া হলো না জিহাদের জিহাদ শিকদার। ছবি: সংগৃহীত
পরিবারের হাল ধরতে তিন বছর আগে রাজধানীর বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে শ্রমিক হিসেবে যোগ দেন জিহাদ শিকদার। তার উপার্জিত বেতনে চলত গ্রামের বাড়িতে মা-বাবার সংসার। বৃহস্পতিবার রাতে রেস্টুরেন্টে কাজ করতে গিয়ে আগুনে পুড়ে মারা যান তিনি।

আসন্ন রমজানে মাকে ইফতার সামগ্রী কিনে দেয়া হলো না জিহাদ শিকদারের। মায়ের সঙ্গে শেষ কথা হয় বৃহস্পতিবার দুপুরে। আর শুক্রবার দুপুরে মায়ের সামনে আসে জিহাদের মরদেহ।

রাজধানীর বেইলি রোডে বৃহস্পতিবার রাতের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ হারান মাদারীপুরের কালকিনির জিহাদ। তিনি কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে সার্ভিস বয় হিসেবে কাজ করতেন। তার মৃত্যুতে গ্রামের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। উপার্জনক্ষম একমাত্র ব্যক্তিটিকে হারিয়ে দিশেহারা পরিবার।

পরিবারের হাল ধরতে তিন বছর আগে রাজধানীর বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে শ্রমিক হিসেবে যোগ দেন জিহাদ শিকদার। তার উপার্জিত বেতনে চলত গ্রামের বাড়িতে মা-বাবার সংসার। বৃহস্পতিবার রাতে রেস্টুরেন্টে কাজ করতে গিয়ে আগুনে পুড়ে মারা যান তিনি।

শুক্রবার দুপুরে জিহাদ শিকদারের মরদেহ কালকিনি উপজেলার কয়ারিয়া ইউনিয়নের আলিমাবাদ গ্রামে এলে কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। সন্তানহারা মা-বাবা পাগলপ্রায়। এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। জিহাদের অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়াতে সরকারি সহযোগিতা কামনা করেছেন স্বজন ও এলাকাবাসী।

২০২০ সালে মোল্লারহাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করে ঢাকায় যান জিহাদ। এরপর সাহেবরামপুর কবি নজরুল ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হন। এবার তার এইচএসসি পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল।

মা র‌হিমা বেগম আহাজারি করতে করতে ব‌লেন, ‘আমার পোলা এবার রোজায় ইফাতা‌রি কি‌নে দি‌তে পার‌লো না। সে আমা‌কে ফো‌নে বল‌লো- মা ক‌য়েক‌দিন প‌রে বেতন পাইয়া ইফতা‌রির জ‌ন্যে টাকা পাঠা‌বো। সেটা আর হ‌লো না…।’

জিহাদের ছোট ভাই রিয়াদ জানায়, মাদারীপুরের কালকিনির সাহেববারপুর কবি নজরুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজে মানবিক বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ালেখা করতেন জিহাদ। সংসারে মা-বাবা ও এক ভাই রয়েছে। বড় বোন থাকেন স্বামীর বাড়িতে।

কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাশ বলেন, ‘এমন মর্মান্তিক ঘটনায় সমবেদনা জানানোর ভাষা নেই। জিহাদের পরিবার থেকে কোনো সহযোগিতা চাওয়া হলে সবসময় পাশে থাকবে উপজেলা প্রশাসন।’

আরও পড়ুন:
আগুন কেড়ে নিল পাঁচ সদস্যের পরিবারকে
বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ড: পুলিশ সপ্তাহের অনুষ্ঠান বাতিল
বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডে আহতদের কেউই শঙ্কামুক্ত নন
বেইলি রোডের আগুন কেড়ে নিল দুই বুয়েট শিক্ষার্থীর প্রাণ
বেইলি রোডের আগুনে প্রাণ গেল ২ ড্যাফোডিল শিক্ষার্থীর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BADCs seed rice and wheat are now bird food

বিএডিসির বীজ ধান ও গম এখন পাখির খাবার

বিএডিসির বীজ ধান ও গম এখন পাখির খাবার রাজশাহীর এক পাখির খাবারের দোকানে মিলেছে বিএডিসির বস্তায় ভরা বীজ গম ও ধান। কোলাজ: নিউজবাংলা
বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) বীজ ধান ও গম কৃষকদের না দিয়ে বিক্রি করা হয়েছে পাখির খাবারের দোকানে। রাজশাহীর এক পাখির খাবারের দোকানে মিলেছে বিএডিসির বস্তায় ভরা এসব বীজ গম ও ধান।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) ভালো মানের বীজ উৎপাদন ও সংগ্রহ করে তা ডিলারদের মাধ্যমে কৃষকদের কাছে পৌঁছে দেয়। ভালো ফসল উৎপাদন করতেই রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানটির এই কার্যক্রম।

অবাক করা বিষয় হলো, বিএডিসির বীজ ধান ও গম কৃষকদের না দিয়ে বিক্রি করা হয়েছে পাখির খাবারের দোকানে। রাজশাহীর এক পাখির খাবারের দোকানে মিলছে বিএডিসির বস্তায় ভরা এসব বীজ গম ও ধান। প্রকাশ্যেই এসব বিক্রি করা হচ্ছে।

বিএডিসি বলছে, ডিলারদের অবিক্রীত বীজ তারা যেখানে ইচ্ছা বিক্রি করতে পারে। খেতেও পারে।

তবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, পাখি কিংবা মানুষ কেউই এই বীজ ধান-গম খেতে পারে না। কেননা এগুলোতে রাসায়নিক মিশ্রিত থাকে। এগুলোর দোকানে বিক্রির ঘটনায় বেশ ক্ষুব্ধ তারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজশাহী নগরীর গ্রেটার রোড মসজিদের বিপরীতে পাখির খাবারের দোকান সেলিম এন্টারপ্রাইজ। এখানে নানা ধরনের পাখির খাবার বিক্রি করা হয়। সেখানে সারি সারি সাজানো আছে বিএডিসির বীজ ধান ও গমের বস্তা। এসব বস্তায় বিএডিসির সিলও মারা রয়েছে। বস্তা কেটে বিক্রি করা হচ্ছে এসব বীজ। প্রতি কেজি ধান বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায় আর গম বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়।

দোকানটিতে ঢুকতেই দেখা মিলছে বীজের বস্তা। এসব বস্তা আর বীজ প্রত্যয়নও দেয়া আছে। তাতে লেখা রয়েছে ট্যাগ নম্বর, ধানের জাতের নাম, লট নম্বর, প্রত্যায়ন ইস্যুর তারিখ, বৈধতার মেয়াদ, নেট ওজন। প্রতিটি ১০ কেজি ওজনের বস্তা। এসব বীজ যশোর জোনের।

বুধবার সন্ধ্যায় সেখানে দিয়ে দেখা যায়, ভ্যানে করে এসব বীজ আসছে। চটের বস্তায় মোড়ানো এসব বীজ সরাসরি দোকানে তোলা হলো। প্রায় ৩০টি বস্তা সেখানে ঢুকানো হলো। দোকানের সামনে রাখা হলো আরও ৮টি বস্তা। কিছুক্ষণ পর সেই বস্তার মুখ খুলে সরাসরি বিক্রি শুরু করলেন দোকানি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সেলিম এন্টারপ্রাইজের মালিক সেলিম হোসেন বলেন, ‘আমরা হরিয়ানের এক ডিলারের কাছ থেকে এগুলো এনেছি। এগুলো তারা বিক্রির পর অবশিষ্ট বীজ নিলামে বিক্রি করে দেয়। আমরা দ্বিতীয় হাত থেকে কিনে নিয়েছি।’

রাসায়নিক মিশ্রিত বীজ গম ও ধান সরাসরি পাখির খাবার হিসেবে বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এসব বীজে যাতে পোকার আক্রমণ না হয় সেজন্য কিছুটা বিষ দেয়া থাকে। তবে সেগুলো বাইরে। সরাসরি ধানে বা গমে নয়। আর এগুলো খেয়ে যদি ক্ষতি হতো তবে এতে অনেক পাখি মারা যেত। এখন পর্যন্ত তো সেরকম কিছু শুনিনি।’

বিএডিসি যশোর জোনের উপ-সহকারী পরিচালক (বীজ বিপণন) মুসা আহমেদ এ বিষয়ে বলেন, ‘চলতি ধান ও গমের মৌসুম শেষ। ডিলাররা উত্তোলন করার পরও কিছু বীজ থেকে যায়। সব বীজ তো আর বিক্রি হয় না। তখন তারা কম দামে বিক্রি করতে পারে। এটা তাদের ব্যাপার। এ বিষয়ে একান্ত এখতিয়ার ডিলারদের।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ডিলাররা কেন বিক্রি করলেন সেটি আমরা বলতে পারব না। আমাদের বীজ বেচার দরকার আমার বীজ তাদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছি। এই বীজগুলো ২৪ মৌসুমের। এসব বীজে আগামী বছর ফসল ফলবে না। আমরা মনে করি এটি বাইরে বিক্রি করা যৌক্তিক না হলেও তা ডিলারদের বিষয়। আমাদের নয়।’

বিএডিসি রাজশাহীর উপ-পরিচালক কেএম গোলাম সরওয়ার বলেন, ‘এসব বীজে সামনের বছরে আর ফসল হবে না। এই বীজ আর চলে না। আর বীজের চাহিদা নির্ণয় করা হয় মন্ত্রণালয় থেকে। চাহিদা দেয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। এরপর এনএসবি মিটিএয় কে কত বীজ উৎপাদন করবে সেটির অনুমোদন দেয়া হয়।’

তিনি বলেন, ‘বীজের যাতে সংকট না হয় সেটি বিএনডিসি দেখভাল করে। কোনো কোনো বছর আবাদ একটু কম হয়। ওই বছর তখন বীজ বেচে যায়। এখন সিজন শেষ। ডিলার যারা এই বীজ নিয়েছেন তারা ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

‘ধরুন, তাদের ৬১ টাকায় কিনে ৬৯ টাকায় বিক্রি করার কথা। সিজনের পর এসব বীজ খাদ্য বা পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হবে। একটা সময় আমরা এগুলো ফুডকেও দিয়ে দিতাম।’

তবে রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাজদার হোসেন বলেন, ‘এসব বীজ পাখির খাওয়ার উপযোগী নয়। মানুষের খাওয়ারও উপযোগী নয়। অনেক কেমিক্যাল মেশানো হয়। আমরা এর পক্ষে নই। এটা কেন হচ্ছে আপনারা তদন্ত করতে পারেন।’

তিনি বলেন, ‘যেখানে ধান ও গমের বীজের চাহিদা আছে সেখানে দেয়া হয়নি। অথবা যেখানে চাহিদা নেই সেখানে বেশি আনা হয়েছে। এ কারণে এগুলো হয়েছে।’

রাজশাহী গম গবেষণাগারের সাবেক প্রধান বিজ্ঞানী ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘আমি গত মাসেই যশোরে বদলি হয়ে এসেছি। আমরা অনেক কষ্ট করে এসব বীজ উৎপাদন করি। এরপর বিএডিসিকে দিয়ে দেয়া হয়। এবার ব্যাপক চাহিদা ছিল গমের বীজের। তারপরও কেন এমনটি হলো আমার জানা নেই।’

তিনি বলেন, ‘বিএডিসির কাছে আমরা জানতে চাইব এটি কেন হলো। এটি হওয়ার কথা নয়। বিএডিসির মাধ্যমে বীজ তো কৃষক পাবে। এটি পাখির খাবারের জন্য নয়। পাখির খাবারের জন্য তো আলাদা গম উৎপাদন হয়।’

আরও পড়ুন:
পুকুরে বিলীন তিন ফসলি জমি
পাথরে ফুটেছে ফুল
মাটি ভরাটে বন্ধ সেচযন্ত্র, মুন্সীগঞ্জে ধান চাষ ব্যাহতের শঙ্কা
পরিবেশবান্ধব ভার্মি কমপোস্টে বাড়তি আয়
পাঁচ বছরে ৫০০ কোটি টাকার কৃষিপণ্য রপ্তানির আশা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Gunfire sounds again at Teknaf border

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ কয়েকদিন শান্ত থাকার পর আবারও সীমান্ত এলাকায় গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। ফাইল ছবি
টেকনাফ-২ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘আজ গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেছে একটু একটু, তবে এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সীমান্ত এলাকা হওয়াতে মানুষের মনে একটু ভয় কাজ করে। এটা স্বাভাবিক বিষয়।’

মিয়ানমারে সামরিক জান্তার বাহিনীর সঙ্গে সশস্ত্র বিদ্রোহীদের চলমান সংঘর্ষের মধ্যে আতঙ্ক কাটছে না কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার কয়েকটি সীমান্তে। কয়েকদিন শান্ত থাকার পর আবারও সীমান্ত এলাকায় গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে।

টেকনাফ-২ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মহিউদ্দীন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, তবে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই বলে জানান তিনি।

এদিকে শুক্রবার সকালে কথা হয় সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের সঙ্গে।

টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য আবদুস সালাম বলেন, ‘গোলাগুলির শব্দ হচ্ছে, তবে এতোটা বিকট নয় শব্দ। রাতে বন্ধ থাকলে আবার সকালে থেকে শুরু হয় গোলাগুলি। কয়েক দিন ধরে সীমান্তের ওপারে গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়নি।

শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা মুজিব উল্লাহ বলেন, ‘গত পাঁচ দিন ধরে শান্তি করে ঘুমাতে পারছি। আবার আজ সকাল ৬টা থেকে একটু একটু গোলাগুলির শব্দে কানে আসে। তাদের যুদ্ধ আমাদের জন্য অশান্তির বার্তা নিয়ে আসে। সীমান্তের মানুষ ভয়ে রাতে অনেকটা নির্ঘুম থাকছে এখন।’

টেকনাফ হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বাসিন্দা তৈয়ব বলেন, রাতে মর্টার শেল ও গোলাগুলির শব্দে কয়েকটি গ্রামের মাটি পর্যন্ত কাঁপছে। ওপারে তোদারদিয়া নামক জায়গায় আরকান আর্মি দখল নেয়ার জন্য তারা ভয়ংকর হয়ে গেছে। যেকোনো মুহূর্তে তারা দখলে নিতে পারে।

সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন বলেন, ‘আজ সকাল ৯টা থেকে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে, এখন আর শোনা যাচ্ছে না গোলাগুলির শব্দ। কয়েকদিন বন্ধ থাকলেও আবার গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। এ কারণে স্থানীয়রা নির্ঘুম রাত কাটিয়েছে।

‘রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বিজিবি ও কোস্ট গার্ড সবসময় প্রস্তুত আছে। পাশাপাশি আমাদের জনপ্রতিনিধি তাদের সহযোগিতা করে যাচ্ছে।’

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে টেকনাফ-২ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘আজ গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেছে একটু একটু, তবে এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সীমান্ত এলাকা হওয়াতে মানুষের মনে একটু ভয় কাজ করে। এটা স্বাভাবিক বিষয়।’

রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বিজিবি সবসময় প্রস্তুত আছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
‘ভুলে ভারত সীমান্তে’, বিএসএফের গুলিতে আহত বাংলাদেশি যুবক
মিয়ানমার থেকে গুলির শব্দ আসছে শাহপরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিনে
এবার শাহপরীর দ্বীপ সেন্টমার্টিনে মর্টার শেল গুলির শব্দ
ফেরত পাঠানো হলো বিজিপিসহ মিয়ানমারের ৩৩০ নাগরিককে
ইনানী জেটি ঘাটে বিজিপিসহ মিয়ানমারের ৩৩০ নাগরিক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The mayor could not keep his word but the hawker was not evicted

কথা রাখতে পারেননি মেয়র, উচ্ছেদ হয়নি হকার

কথা রাখতে পারেননি মেয়র, উচ্ছেদ হয়নি হকার হকারদের কারণে ফুটপাত দিয়ে হাঁটা-চলার উপায় নেই। ছবি: নিউজবাংলা
সিসিক মেয়র বলেন, ‘এর আগে বহুবার হকারদের পুনর্বাসনের জন্য উদ্যোগ নেয়া হলেও কার্যত কোনো কাজে আসেনি। আমি নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে এ সমস্যার সমাধানের জন্য প্রতিজ্ঞা করেছিলাম।’

এক মাসের মধ্যে নগরের ফুটপাত ও সড়ক দখল করে বসা হকারদের উচ্ছেদ করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র মো. আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

তবে বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, নির্ধারিত এক মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও উচ্ছেদ করা হয়নি হকারদের।

সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে গত ১৬ জানুয়ারি মেয়র বলেছিলেন, ‘রাজপথে হকার থাকার কারণে যানজটের কবলে পড়তে হচ্ছে। ইনশাআল্লাহ আগামী এক মাসের মধ্যে এ সমস্যার সমাধান হবে। সিলেটের রাজপথ অবশ্যই হকার মুক্ত করতে প্রয়োজনীয় সবকিছু করা হবে। আগামী এক মাসের মধ্যে সিলেটের রাস্তাঘাট হকারমুক্ত করা হবে।’

এরপর মাস পেরিয়ে গেলে প্রতিশ্রুত সময়ের মধ্যে হকারদের সড়ক থেকে সরাতে না পেরে এবার মেয়র আনোয়ারুজ্জামান বলছেন, রমজানের আগেই হকারদের পুনর্বাসন করা হবে। সে লক্ষ্যে ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।

সরেজমিনে বিভিন্ন সড়ক ঘুরে দেখা যায়, এখনও নগর সড়ক আর ফুটপাতগুলো দখল করে আছে হকাররা। হকারদের কারণে ফুটপাত দিয়ে হাঁটা-চলার উপায় নেই পথচারীদের। আর সড়কের অনেকাংশ দখল করে রাখার কারণে তীব্র যানজট লেগেই থাকছে।

ফলে সিলেট নগরের অন্যতম প্রধান সমস্যা হয়ে উঠেছে হকার।

১৬ জানুয়ারির অনুষ্ঠানে মেয়র আনোয়ারুজ্জামান বলেছিলেন, ‘সিলেট মহানগরীর বিভিন্ন সড়কে হকারদের অবস্থান নিয়ে সমালোচনা চলছে। বিষয়টা আমাদেরও দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এ নিয়ে আমরা কাজ করতে শুরু করেছি। হকার সংশ্লিষ্ট সবপক্ষের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে।’

এ সমস্যা নিয়ে সিসিক কর্তৃপক্ষ বলছে, নগরের লালদিঘীরপাড়ে স্থায়ী পুনর্বাসন করা হবে হকারদের। তাদের গলি ও শেড তৈরি করে দেয়া হবে। এ কাজ টেন্ডার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। রমজানের মধ্যে হকারদের পুরোপুরি সেখানে পুনর্বাসন করা হবে।

স্থানীয়রা জানান, সিলেট নগরে এখন অন্যতম প্রধান সমস্যা হকার। নগরের মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান থেকে শুরু করে সদ্য সাবেক আরিফুল হক চৌধুরীর সময়েও বড় চ্যালেঞ্জ ছিল এই হকার উচ্ছেদ।

আরিফুল হক চৌধুরী নগরভবনের পেছনের লালদিঘীর পাড়ে ‘হলিডে’ মার্কেট চালু করেছিলেন। সেখানে হকারদের পুনর্বাসন ও করা হয়, কিন্তু দেখা যায় কয়েক মাসের মাথায় তারা ফের সড়ক ও ফুটপাতের ওপর চলে আসেন।

বর্তমান মেয়র আনোয়ারুজ্জামানের নির্বাচনী ইশতেহারেও হকার উচ্ছেদের কথা বলা হয়েছে।

মহানগরের প্রাণকেন্দ্র বন্দরবাজার-জিন্দাবাজার-চৌহাট্টার ঘুরে দেখা যায়, প্রতিদিনই সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত এ সড়কের ফুটপাত ছাড়িয়ে সড়কের অর্ধেকেরও বেশি অংশ হকারদের দখলে রয়েছে। ভ্রাম্যমাণ কাপড় বিক্রেতা ছাড়াও মাছ এবং সবজি বিক্রেতারাও বসেন সড়ক-ফুটপাতে। খোদ নগরভবনের সামনের অংশ সবজি ও মাছ বিক্রেতারা দখল করে রাখে প্রতিদিন।

ব্যবসায়ী জানান, রাতের বেলা বিদ্যুতের আলোরও সুবিধা পান তারা।

আসন্ন রমজান মাস চলাকালেই মহানগরের সব হকার ফের লালদিঘীর পাড়ের ‘হলিডে’ মার্কেটে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সিসিক মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

মেয়র বলেন, ‘এর আগে বহুবার হকারদের পুনর্বাসনের জন্য উদ্যোগ নেয়া হলেও কার্যত কোনো কাজে আসেনি। আমি নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে এ সমস্যার সমাধানের জন্য প্রতিজ্ঞা করেছিলাম। তারই পরিপ্রেক্ষিতে হকারদের নির্ধারিত স্থানে পুনর্বাসন করে নগরবাসীকে যানজট ও ফুটপাত মুক্ত শহর উপহার দেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘দ্রুত সম্পন্ন করার লক্ষ্যে লালগিঘির পাড়ে হকারদের জন্য শেড নির্মাণে ইতিমধ্যে ১০টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ বণ্টন করে দেয়া হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যে এই সমস্যা সমাধান হবে এবং সিলেটবাসীর দুর্ভোগ লাঘব হবে।’

লালগিঘিরপাড়ে যাতে বৃষ্টিতে ক্রেতা-বিক্রেতাদরে ভোগান্তি পোহাতে না হয় সে জন্য মাটি দিয়ে গলিগুলো উঁচু করে শেড বানিয়ে দেয়ার কথা জানান মেয়র।

তিনি বলেন, ‘আশা করছি, রমজানে বিনা ভোগান্তিতে ফুটপাত ও সড়কে নগরবাসী এবং পথচারীরা হাঁটতে পারবেন।’

এ বিষয়ে কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে। তাদের অভিযোগ, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর, কর্মচারী, কতিপয় পুলিশ সদস্যরা টাকা নিয়ে ফুটপাতে ব্যবসা করার সুযোগ করে দেন। যার কারণে ফুটপাথে বসে যারা ব্যবসা করেন, তারা সন্ধ্যায় বিদ্যুতের আলোরও সুবিধা পান।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘যানজট নিরসন ও হকারসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সম্প্রতি সিসিকের সঙ্গে আমরা বৈঠক করেছি। যদিও হকার উচ্ছেদের বিষয়টি আমাদের না, তবে সড়কে চলাচলে বাধা সৃষ্টি করলে সে হকার হোক আর যেই হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পুলিশকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘মেয়র কোনো আল্টিমেটাম দিলে সেটা তার বিষয়। তবে সিটি করপোরেশন আমাদের কাছে সহযোগিতা চাইলে আমরা সহযোগিতা করব।’

আরও পড়ুন:
২৮ বছরে এক দিনও জ্বলেনি বাতিগুলো
সিলেটে সিএনজি স্টেশনে আগুনে দগ্ধ একজনের মৃত্যু
সিলেটে সিএনজি ফিলিং স্টেশনে আগুন, দগ্ধ ৫
সিলেট নগরের দুই যন্ত্রণা
তীব্র শীতে বিপর্যস্ত সিলেটের জনজীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Awami League BNP pro lawyers scuffle result suspended in Rajshahi bar

রাজশাহী বার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপিপন্থিদের ‘হাতাহাতি’

রাজশাহী বার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপিপন্থিদের ‘হাতাহাতি’ রাজশাহী বার অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচনে বৃহস্পতিবার ভোট দেন মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। ছবি: নিউজবাংলা
রাজশাহী নগরের রাজপাড়া থানার ওসি রুহুল হক বলেন, সারা দিন ভোটগ্রহণ শেষে রাজশাহী অ্যাডভোকেটস বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মধ্যে ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে মারামারি হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

রাজশাহী বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ-বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মধ্যে আদালতে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রাজশাহী আদালতে দুপক্ষের মধ্যে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত করা হয়।

রাজশাহী নগরের রাজপাড়া থানার ওসি রুহুল হক এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সারা দিন ভোটগ্রহণ শেষে রাজশাহী অ্যাডভোকেটস বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগপন্থি আইনজীবী ও বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মধ্যে ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে মারামারি হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ভোটের ফলাফল স্থগিত করে। ভোটের সব ব্যালট সিলগালা করে ট্রেজারি ভবনে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আইনজীবী আসলাম সরকার বলেন, নির্বাচন ফলাফল নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কুসিক উপনির্বাচনে অনিয়মের সুযোগ নেই: ইসি আনিছুর
সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিদের গেজেট প্রকাশ
কুসিক নির্বাচন: কী আছে চার প্রার্থীর হলফনামায়
রাজশাহী এডিটরস ফোরামের সভাপতি লিয়াকত সম্পাদক অপু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mayoral candidate Sakkurs courtyard meeting vandalized in Comilla

কুমিল্লায় মেয়র প্রার্থী সাক্কুর উঠান বৈঠকে হামলা, ভাংচুর

কুমিল্লায় মেয়র প্রার্থী সাক্কুর উঠান বৈঠকে হামলা, ভাংচুর শুক্রবার কুমিল্লা নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে গদার মার কলোনিতে সাক্কুর উঠান বৈঠকে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। ছবি: নিউজবাংলা
কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি ফিরোজ হোসেন বলেন, ‘মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর উঠান বৈঠকে বাস প্রতীকের কর্মী-সমর্থকরা হামলা চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের উপনির্বাচনে মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর উঠান বৈঠকে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় চেয়ার-টেবিল ভাংচুর করা হয়।

শুক্রবার বিকেল ৫টায় নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে গদার মার কলোনিতে এই ঘটনা ঘটে।

টেবিল ঘড়ি প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর ব্যক্তিগত সহকারী কবির মজুমদার বলেন, ‘পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী গদার মার কলোনিতে আমাদের উঠান বৈঠকের প্রস্তুতি চলছিলো। বৈঠকের আগে সংশ্লিষ্ট কর্মীরা চেয়ার-টেবিল সাজানোর কাজ করছিল।

‘হঠাৎ করে ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল ও যুবলীগ নেতা রোকন উদ্দীনের নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের একটি দল এসে চেয়ার-টেবিল ভাংচুর শুরু করে। এই হামলা-ভাংচুর চলাকালে স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।’

কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি ফিরোজ হোসেন বলেন, ‘মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর উঠান বৈঠকে বাস প্রতীকের কর্মী-সমর্থকরা হামলা চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কুসিক উপনির্বাচনে অনিয়মের সুযোগ নেই: ইসি আনিছুর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Today two MPs of Chittagong took oath in the cabinet of the State Minister

সম্প্রসারিত মন্ত্রিসভায় চট্টগ্রামের ওয়াসিকা ও নজরুল

সম্প্রসারিত মন্ত্রিসভায় চট্টগ্রামের ওয়াসিকা ও নজরুল চট্টগ্রামের দুই এমপি ওয়াসিকা আয়শা খান ও নজরুল ইসলাম চৌধুরী। কোলাজ: নিউজবাংলা
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক ওয়াসিকা আয়শা খান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এবং নজরুল ইসলাম চৌধুরী শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ হচ্ছে। এতে চট্টগ্রামের দুজন এমপি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পাচ্ছেন, যারা শপথ নেবেন শুক্রবার সন্ধ্যায়।

সম্প্রসারিত মন্ত্রিসভায় চট্টগ্রাম থেকে যে দুজন স্থান পাচ্ছেন, তাদের বৃহস্পতিবার রাতে কল করে আমন্ত্রণ জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন।

ডাক পাওয়া দুই এমপি হলেন ওয়াসিকা আয়শা খান ও নজরুল ইসলাম চৌধুরী। তাদের মধ্যে ওয়াসিকা আয়শা খান সংরক্ষিত নারী আসন-৩১-এর তিনবারের এমপি। তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রয়াত আতাউর রহমান খান কায়সারের মেয়ে।

আরেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম চৌধুরী চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) আসন থেকে তিনবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক ওয়াসিকা আয়শা খান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এবং নজরুল ইসলাম চৌধুরী শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এমপি নজরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘আমাকে মন্ত্রিপরিষদ থেকে শপথ নেয়ার জন্য কল করা হয়েছে। আমাকে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে।’

মন্তব্য

p
উপরে