× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Harmony match in Bangladesh sets precedent across world IGP
google_news print-icon

বাংলাদেশে সম্প্রীতির মেলবন্ধন সারা বিশ্বে নজির: আইজিপি

বাংলাদেশে-সম্প্রীতির-মেলবন্ধন-সারা-বিশ্বে-নজির-আইজিপি
রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা ২০২৩ উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শনে আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন। ছবি: নিউজবাংলা
আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, ‘প্রতিবছর যখনই কোনো উৎসব আয়োজন হয় তখন প্রতিটি উৎসবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে তাদের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করার এবং নিরাপত্তার সহায়তার নির্দেশনা দিয়ে থাকেন। সে নির্দেশনার আলোকে আমরা বাংলাদেশের সকল ধর্মের সকল বর্ণের লোক একসঙ্গে উৎসব পালন করি। সম্প্রীতির যে মেলবন্ধন আমরা সৃষ্টি করেছি তা সারা বিশ্বে নজির সৃষ্টি করেছে।’

বাংলাদেশে সম্প্রীতির যে মেলবন্ধন তা সারা বিশ্বে নজির সৃষ্টি করেছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন।

রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা ২০২৩ উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, ‘প্রতিবছর যখনই কোনো উৎসব আয়োজন হয় তখন প্রতিটি উৎসবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে তাদের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করার এবং নিরাপত্তার সহায়তার নির্দেশনা দিয়ে থাকেন। সে নির্দেশনার আলোকে আমরা বাংলাদেশের সকল ধর্মের সকল বর্ণের লোক একসঙ্গে উৎসব পালন করি। সম্প্রীতির যে মেলবন্ধন আমরা সৃষ্টি করেছি তা সারা বিশ্বে নজির সৃষ্টি করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কিছুদিন আগে গ্লোবাল টেরিজম ইনডেক্স (জিটিআই) তে বাংলাদেশের অবস্থান আরও সুদৃঢ় হয়েছে। অনেক দেশের থেকে আমরা ভালো আছি। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর যে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছেন, তার ফলে আজকে আমরা দায়িত্ব পালন করে এই অবস্থায় এসেছি। জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ শীর্ষ স্থানীয় সাফল্য অর্জন করেছে। এদেশের মানুষ সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করে। যার ফলে আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন তথ্য পেয়েছি। পাশাপাশি সকল বাহিনী একসঙ্গে কাজ করেছি। এর ফলে আমরা আজকে জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে সাফল্য অর্জন করেছি।’

পুলিশের মহাপরিদর্শক বলেন, ‘যেকোনো অনুষ্ঠানে সকল ধর্মপ্রাণ ভাই-বোন যারা আছেন তারা নিজের ধর্ম যাতে যথাযথভাবে পালন করতে পারেন এজন্য আমরা তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা সবসময় প্রদান করে আসছি। প্রধানমন্ত্রী বলে থাকেন ধর্ম যার যার উৎসব সবার। সে উৎসব আমরা সবাই একসঙ্গে মিলিত হতে এসেছি। এবং তাদেরকে আশ্বস্ত করতে চাচ্ছি যেকোনো প্রয়োজনে আপনারা পুলিশ বাহিনীকে পাশে পাবেন। যেকোনো প্রয়োজনে আপনারা স্থানীয় পুলিশকে ফোন করতে পারেন, পাশাপাশি ৯৯৯ এ ফোন দিতে পারেন।’

আরও পড়ুন:
হুমকি না থাকলেও বৈশাখে থাকবে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা: আইজিপি
বঙ্গবন্ধু কর্নার পরিদর্শনে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানার আগ্রহ সৃষ্টি হবে: আইজিপি
রোজায় নিত্যপণ্যের কৃত্তিম সংকট যেন না হয়: আইজিপি
গুলিস্তান ও সায়েন্স ল্যাব এলাকার বিস্ফোরণে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই: আইজিপি
পুলিশ ক্রিকেটাররা একদিন জাতীয় দলে খেলবে: আইজিপি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Historic Mujibnagar Day today

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ। ছবি: নিউজবাংলা
একাত্তরের এই দিনে কুষ্টিয়া জেলার তদানীন্তন মেহেরপুর মহকুমার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে স্বাধীন-সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করে। এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়।

আজ বুধবার ১৭ এপ্রিল, ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সুদীর্ঘ ইতিহাসে চির ভাস্বর অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে কুষ্টিয়া জেলার তদানীন্তন মেহেরপুর মহকুমার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে স্বাধীন-সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করে।

এই অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার প্রণীত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়। এদিন থেকে স্থানটি মুজিবনগর নামে পরিচিতি লাভ করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ পরিচালনা ও স্বদেশ ভূমি থেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে বিতাড়িত করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত ও নির্দেশিত পথে স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয়।

১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর তৎকালীন পাকিস্তানের শাসক চক্র নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে অস্বীকৃতি জানায় এবং বেআইনিভাবে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে।

পরবর্তীতে ১৯৭১-এর ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর গণহত্যা শুরু করলে ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওয়্যারলেসের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।

বঙ্গবন্ধুর সেই ঘোষণার ধারাবাহিকতায় ১০ এপ্রিল মেহেরপুরের সীমান্তবর্তী এলাকার মুক্তাঞ্চলে নির্বাচিত জাতীয় পরিষদে আওয়ামী লীগের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা এক বিশেষ অধিবেশনে মিলিত হন এবং স্বাধীন-সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠন করেন।

এই অধিবেশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবর্তমানে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালনকারী উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং তাজউদ্দিন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী করে গঠিত হয় বাংলাদেশ সরকার।

মেহেরপুর হয়ে ওঠে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের অস্থায়ী রাজধানী। মুজিবনগর সরকারের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার দুই ঘণ্টার মধ্যেই পাকিস্তানি বিমান বাহিনী বোমাবর্ষণ ও আক্রমণ চালিয়ে মেহেরপুর দখল করে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সরকারের প্রতিনিধিরা ভারতে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন এবং সেখান থেকেই কার্যক্রম চালাতে থাকেন। নয় মাস সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয় এবং স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

ঐতিহাসিক দিনটিকে বরাবরের মতোই স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসী সবার সঙ্গে একত্রিত হয়ে যথাযথ মর্যাদা ও গুরুত্বের সঙ্গে পালন করবে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ভোর ৬টায় বঙ্গবন্ধু ভবন, কেন্দ্রীয় কার্যালয় এবং সারাদেশে সংগঠনের সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ঘোষিত কর্মসূচি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর সব স্তরের নেতাকর্মীসহ দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মুজিবনগরের কর্মসূচি

ভোর ৬টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল সাড়ে ৯টায় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ। সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে গার্ড অফ অনার। ১০টায় মুজিবনগর দিবসের জনসভা। এই জনসভায় প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ।

আরও পড়ুন:
শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Loadshedding is likely to increase if the heat wave continues

তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে লোডশেডিং বাড়ার শঙ্কা

তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে লোডশেডিং বাড়ার শঙ্কা
বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে শুরু করে সরবরাহ পর্যন্ত ঘাটতি থাকায় দেশে ব্যাপক লোডশেডিং হচ্ছে। গ্যাস সরবরাহ পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও এখনও লোডশেডিংয়ে ধুঁকছে দেশ।

বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে শুরু করে সরবরাহ পর্যন্ত ঘাটতি থাকায় দেশে ব্যাপক লোডশেডিং হচ্ছে। গ্যাস সরবরাহ পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও এখনও লোডশেডিংয়ে ধুঁকছে দেশ।

দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানায়, চলমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে সন্ধ্যার গুরুত্বপূর্ণ সময়ে লোডশেডিংয়ের মাত্রা আরও বাড়তে পারে।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলার দাপ্তরিক তথ্যে দেখা যায়, সোমবার গ্যাস সরবরাহ ২ হাজার ৩৪৫ মিলিয়ন ঘনফুট থেকে মঙ্গলবার ২১০ মিলিয়ন ঘনফুট বেড়ে ২ হাজার ৫৫৫ মিলিয়ন ঘনফুট হয়েছে।

তারপরও বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাসের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে প্রায় এক হাজার মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের বিশাল ঘাটতি রয়ে গেছে। এর ফলে বেশ কয়েকটি গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ হয়ে গেছে।

সরকারি সূত্র জানায়, শেভরন পরিচালিত বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রটি ১২শ’ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের পূর্ণ উৎপাদন ক্ষমতায় ফিরে এসেছে। কিন্তু পূর্ণ সক্ষমতায় ফিরলেও কেন্দ্রটি উৎপাদন করে মাত্র ৬শ’ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস।

শেভরনের এক কর্মকর্তা ইউএনবিকে বলেন, ‘আমরা এখন ১২০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করতে সক্ষম। কিন্তু সরকার বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র থেকে পুরো সরবরাহ পাচ্ছে না। সে কারণেই ক্ষেত্রটি ৬০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করছে।’

পেট্রোবাংলার কর্মকর্তারাও বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র থেকে পুরো সরবরাহ না পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্তৃপক্ষ বলেছে তাদের আর গ্যাসের প্রয়োজন নেই।

কর্মকর্তারা জানান, দেশের সর্ববৃহৎ গ্যাসক্ষেত্র বিবিয়ানা ৩ এপ্রিল তিন দিনের রুটিন রক্ষণাবেক্ষণ প্রক্রিয়ায় যায় এবং যথাসময়ে উৎপাদনে ফিরে আসে।

মহেশখালীর দুটি এলএনজি টার্মিনালের এক হাজার ১০০ মিলিয়ন ঘনফুট সক্ষমতার বিপরীতে ৯৭২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ায় জাতীয় গ্রিডে আমদানি করা এলএনজির সরবরাহও বেড়েছে।

এদিকে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) ও পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশের (পিজিসিবি) তথ্যে দেখা যায়, বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে শুরু করে সরবরাহ পর্যন্ত ঘাটতি থাকায় দেশে ব্যাপক লোডশেডিং হচ্ছে।

তথ্য বলছে, এদিন বিদ্যুতের চাহিদা ছিল ১৩ হাজার মেগাওয়াট এবং সন্ধ্যায় বিদ্যুতের সর্বোচ্চ চাহিদা ছিল ১৫ হাজার মেগাওয়াট।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় দিনের সর্বোচ্চ লোডশেডিং হয়েছে ৫০১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। কারণ এ সময় দেশে ১২ হাজার ৮০০ মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে উৎপাদন হচ্ছিল ১২ হাজার ২৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন যে তাপপ্রবাহ অপরিবর্তিত থাকলে সন্ধ্যার গুরুত্বপূর্ণ সময়ে লোডশেডিংয়ের মাত্রা আরও বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন:
তীব্র লোডশেডিং, পানির সংকটে অতিষ্ঠ সিলেটবাসী
জনরোষ এড়াতে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের কোপ গ্রামে
সিলেটে গ্রামের চেয়ে বেশি লোডশেডিং শহরে
এলএনজি টার্মিনালে ত্রুটি, দেশে ৭০০ মেগাওয়াট লোডশেডিং
গ্যাস সংকটে লোডশেডিংয়ের সতর্কতা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
No one remembered the artisans behind the oath
বাংলাদেশের প্রথম সরকার

শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি

শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা। ছবি: সংগৃহীত
বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠান। হাতে তেমন সময় নেই। কেউ নিয়ে এলেন চেয়ার-টেবিল, কেউ নিয়ে এলেন বাঁশ-খুঁটি। বাড়িতে পরার নতুন কাপড় ব্যবহার করা হলো প্যান্ডেল। রাত মেহেরপুরের বৈদ‍্যনাথতলার আম্রকাননে ঐতিহাসিক সেই শপথ অনুষ্ঠানের নেপথ্য কারিগরদের ভাগ্যে আজও জোটেনি রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি।

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল। বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠান। হাতে তেমন সময় নেই। কেউ নিয়ে এলেন চেয়ার-টেবিল, কেউ নিয়ে এলেন বাঁশ-খুঁটি।

বাড়িতে পরার নতুন কাপড় ব্যবহার করা হলো প্যান্ডেল ঘেরাওয়ের কাজে। আগের দিনের অর্ধেক সময় আর রাত জেগে পাহারা দেয়া হলো মেহেরপুরের তৎকালীন বৈদ‍্যনাথতলার আম্রকানন।

শুরুটা শপথের অনুষ্ঠান থেকে হলেও মুক্তিকামী মানুষকে সহযোগিতা করতে গিয়ে কেটে গেল যুদ্ধের পুরোটা সময়।

সময় গড়িয়েছে, মত-পথ পাল্টেছে। তবে একাত্তরের ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক সেই শপথ অনুষ্ঠানের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি। খোঁজ নেয়নি কেউ।

রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি তো দূরে থাক, স্থানীয়ভাবেও তারা পাননি যথাযথ সম্মান। এই আক্ষেপ নিয়ে কেউ পাড়ি দিয়েছেন পরপারে, কেউবা মৃত্যুর প্রহর গুনছেন।

শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি
মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্সে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণরত বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য। ছবি: নিউজবাংলা

কথাগুলো বঙ্গবন্ধুর ডাকে গঠিত বৈদ্যনাথতলা সংগ্রাম কমিটি নিয়ে।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে প্রত্যেক গ্রামে গ্রামে, পাড়ায় মহল্লায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোলার নির্দেশনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার বৈদ্যনাথতলা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন কয়েক যুবক।

সে সময়ের এমএনএ ছহি উদ্দীন বিশ্বাস এবং এসডিও তৌহিক-এলাহি চৌধুরীর পরামর্শে তারা ঐতিহাসিক শপথের সব আয়োজন করেছিলেন। শপথ অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, বাইবেল পাঠ, জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনসহ বিভিন্ন কাজে যারা যুক্ত হয়েছিলেন তাদেরকে আম্রকাননে নিয়ে এসেছিলেন সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা।

প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠানের পর গোটা এলাকা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর প্রধান লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়। তারপরও জীবনের পরোয়া না করে সংগ্রাম কমিটির অকুতোভয় সদস্যরা ত্রাণ সংগ্রহের কাজ করেছিলেন। তাদের অনেকে রাষ্ট্রের কাছ থেকে সম্মান না পাওয়ার কষ্ট নিয়ে ইতোমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন। দুই-একজন যারা বেঁচে আছেন তারা মৃত্যুর আগে রাষ্ট্রের স্বীকৃতিটুকু পেতে চান।

শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি
মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্স। ছবি: নিউজবাংলা

সংগ্রাম পরিষদের অন্যতম সদস্য বল্লভপুর গ্রামের বয়োবৃদ্ধ থিওফিল মণ্ডল বলেন, ‘প্রাণের টানে প্রতি বছর ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে ছুটে আসি। পঁচাত্তর-পরবর্তী পরিস্থিতিতে ১৯৭৬ সালে কেউ মুজিবনগর দিবস পালন করতে আসেনি। আমরা মাত্র ১৯ জন লোক বাগানে গিয়ে মুজিবনগর দিবস পালন করেছিলাম।’

রাষ্ট্রীয় সম্মান-স্বীকৃতি না পাওয়ার আক্ষেপ করে এই বীর মুক্তিযাদ্ধা বলেন, ‘দেশ স্বাধীন হওয়ার পর শুনেছিলাম হাতেগোনা কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আছেন। পরবর্তীতে দেখি শতাধিক মানুষ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ভাতা পাচ্ছে। তারপরও সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা অবহেলিত।’

একই কথা জানালেন মানিকনগর গ্রামের বয়োবৃদ্ধ দোয়াজ উদ্দীন মাস্টার। তিনি বলেন, ‘সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা সব আয়োজন করেছিল। পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করার জন্য আমার ছাত্র দারিয়াপুর গ্রামের বাকের আলীকে ডেকে নিয়ে আসি। সে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেয়েছে। এছাড়াও সংগ্রাম কমিটির আরেক সদস্য আব্দুল মোমিন চৌধুরী স্বীকৃতি পেয়েছেন।’

সংগ্রাম কমিটির সদস্যসহ যারা সেদিন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠান আয়োজনে প্রাণের মায়া ত্যাগ করে বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছিলেন তাদের সবার স্বীকৃতি দাবি করেন তিনি।

শপথের পেছনের কারিগরদের কেউ মনে রাখেনি
মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ। ছবি: নিউজবাংলা

বাংলা একাডেমী প্রণীত ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস: মেহেরপুর জেলা’ গ্রন্থের মাধ্যমে মূলত সংগ্রাম কমিটির বিষয়টি সবার নজরে আসে। এই গ্রন্থের লেখক মুক্তিযুদ্ধের গবেষক ও বাংলা একাডেমী পুরস্কারপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক রফিকুর রশিদ বলেন, ‘অনিবার্য মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতার হাত বাড়ানো এসব মানুষের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাওয়াটা খুবই প্রয়োজন। তারা শুধু শপথ অনুষ্ঠানের আয়োজনই করেননি, কুষ্টিয়া অঞ্চলে সম্মুখ যুদ্ধে সব রসদ মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন জীবন বাজি রেখে।

বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেনও সংগ্রাম কমিটির সদস্য ও সংশ্লিষ্ট অন্যদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দাবি করেন।

তবে আশার কথা শুনিয়েছেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, ‘ঐতিহাসিক মুহূর্তে ঐতিহাসিক ভূমিকার সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত ছিলেন তারা বীর মুক্তিযোদ্ধা। তাদের সবাইকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়ার জন্য বিষয়টি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে উত্থাপন করা হয়েছে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In the three days of the Eid holiday more than 200 accidents were caused by motorcycles
ঢামেক ও পঙ্গু হাসপাতালের তথ্য

ঈদ ছুটির তিনদিনে দুই শতাধিক দুর্ঘটনা, শীর্ষে মোটরসাইকেল

ঈদ ছুটির তিনদিনে দুই শতাধিক দুর্ঘটনা, শীর্ষে মোটরসাইকেল
ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন ২১২ জন তরুণ ও যুবক। তাদের মধ্যে ৬০ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত হয়েছেন ১৩ জন। আর পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি।

ঈদের আগের দিন থেকে ঈদের পরদিন পর্যন্ত তিন দিনে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দুই শাতাধিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনাই বেশি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগ এবং জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (পঙ্গু হাসপাতাল) থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

ঈদের ছুটির এই তিন দিনে বিভিন্ন দুর্ঘটনায় ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন ২১২ জন তরুণ ও যুবক। তাদের মধ্যে ৬০ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত হয়েছেন ১৩ জন। বাকিদের চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঈদের ছুটিতে রাস্তা ফাঁকা থাকায় চালকরা বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন চালান। ফলে এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

অপরদিকে ছুটির তিন দিনে মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন দুর্ঘটনায় আহত হয়ে পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি। তাদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ ও যুবক।

জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের আবাসিক চিকিৎসক অশোক কুমার জানান, ‘ঈদের আগের দিন ২৩৪ জন জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত ছিলেন ৪০ জন। অন্য দুর্ঘটনায় আহত ৫১ জন।

এছাড়া ঈদের দিন ২৫০ জন জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত ছিলেন ৭৬ জন। অন্য দুর্ঘটনায় আহত ছিলেন ৫৪ জন। আর ঈদের পরদিন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন ৫০ জন। অন্য দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসা নেন ৪০ জন। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসে চিকিৎসা নিয়েছেন তারা।

ডা. অশোক আরও জানান, সাধারণত ঈদ ও ঈদ-পরবর্তী সময়ে এই হাসপাতালে রোগীর চাপ বেশি থাকে। হাসপাতালে আসা রোগীদের বেশিরভাগই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত। জরুরি ওয়ার্ডে জায়গা না হওয়ায় অনেককে বারান্দায় চিকিৎসা দিতে হচ্ছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Action will be taken to close unregistered news portals Minister of State for Information

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত মঙ্গলবার সচিবালয়ে ওনাব কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। ছবি: নিউজবাংলা
মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেন, ‘সরকার গণমাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারি করতে চায় না। তবে নিবন্ধনের একটি প্রক্রিয়া আছে। সেই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করা খুবই জরুরি। দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা এগিয়ে নিতে নিবন্ধিত অনলাইন গণমাধ্যমকে প্রণোদনা ও সমর্থন দেয়ার প্রয়োজন আছে।’

অনিবন্ধিত ও অবৈধ অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত। তিনি বলেছেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশসহ (ওনাব) অন্যান্য পেশাদার সাংবাদিকের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এই পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে ওনাব কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান।

আরাফাত বলেন, ‘সরকার গণমাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারি করতে চায় না। তবে সাংবাদিক ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল অ্যাসোসিয়েশনের দাবির সঙ্গে আমি একাত্মতা প্রকাশ করছি যে একটা শৃঙ্খলা আনা দরকার।

‘নিবন্ধনের একটি প্রক্রিয়া আছে। সেই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করা খুবই জরুরি। দায়িত্বশীল সাংবাদিক ও সাংবাদিকতাকে এগিয়ে নেয়ার জন্য নিবন্ধিত অনলাইন গণমাধ্যমকে প্রণোদনা ও সমর্থন দেয়ার প্রয়োজন আছে।’

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সাংবাদিকরাই বলছেন যে শৃঙ্খলার জন্য নজরদারি দরকার। গণমাধ্যম এতটাই মুক্ত ও স্বাধীন যে নিবন্ধন ছাড়াও তারা চলছে এবং নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের কথা পেশাদার সাংবাদিকরাই বলছেন। এটা প্রমাণ করে যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার মুক্ত গণমাধ্যম এবং গণমাধ্যমের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে। তবে অবাধ স্বাধীনতার কারণে কিছুটা শৃঙ্খলার অভাবও হয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘অনিবন্ধিত পোর্টালগুলোর মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের মানহানিকর অপতথ্যের বিস্তার হয়। এই অপতথ্যের বিস্তার অনলাইন নিউজ পোর্টাল অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের ছাড়াও বিভিন্ন পেশাদার সাংবাদিকদের পীড়া দেয় বলে বিভিন্ন সময় তারা জানিয়েছেন।

‘এটি খুব ভালো দিক যে আমাদের সাংবাদিকরা গণমাধ্যমে একটা শৃঙ্খলা ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতার বিকাশ চাচ্ছেন। এখানে সরকার পূর্ণাঙ্গভাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে একমত।’

মোহাম্মদ আলী আরাফাত আরও বলেন, ‘সরকার গণমাধ্যমের নিয়ন্ত্রণ নয়, বরং স্বচ্ছতায় স্বচ্ছতায় বিশ্বাস করে। নজরদারিতে নয় বরং দায়িত্বশীলতায় বিশ্বাস করে। আমরা মুক্ত গণমাধ্যম ও স্বাধীন সাংবাদিকতায় বিশ্বাস করি। অপতথ্যের বিস্তৃতি, গুজব ও অপপ্রচার সাংবাদিকতা, গণমাধ্যম, গণতন্ত্র সবকিছুকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। সবার স্বার্থে এগুলো রোধ করার জন্য সরকার ও গণমাধ্যমের একটি অংশীদারত্ব দরকার।’

গণমাধ্যমের বিজ্ঞাপন নীতিমালাসহ অন্যান্য নীতিমালা সময়োপযোগী ও আধুনিকীকরণের উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী।

মতবিনিময় সভায় ওনাব সভাপতি মোল্লাহ এম আমজাদ হোসেন, সহ-সভাপতি লতিফুল বারী হামিম ও সৌমিত্র দেব, যুগ্ম সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান ও আশরাফুল কবির আসিফ, কার্যনির্বাহী সদস্য নজরুল ইসলাম মিঠু, তৌহিদুল ইসলাম মিন্টু, রফিকুল বাসার, হামিদ মো. জসিম, মহসিন হোসেন, অয়ন আহমেদ ও খোকন কুমার রায় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ভুটানের রাজার সঙ্গে থিম্পু পৌঁছেছেন আরাফাত
‘বিএনপি নির্বাচন বানচালে সফল হলে দেশে অগণতান্ত্রিক শক্তির উত্থান হতো’
তথ্য সংগ্রহে সাংবাদিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
৭ মার্চের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এগিয়ে যেতে হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
শুধু নিবন্ধিত অনলাইন পোর্টাল চালানোর অনুমতি দেয়া হবে: আরাফাত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rain of relief after intense heat

তীব্র গরমের পর স্বস্তির বৃষ্টি

তীব্র গরমের পর স্বস্তির বৃষ্টি রাজধানীর শাহবাগে বৃষ্টিতে যান চলাচল। ফাইল ছবি
বৃষ্টির বিষয়ে জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকেল চারটার দিকে নিউজবাংলাকে জানান, তারা ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় বৃষ্টির খবর পেয়েছেন। কী পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে, তা পরবর্তী সময়ে জানানো যাবে।

গত কয়েক দিন ধরে প্রচণ্ড গরমে হাঁসফাঁস অবস্থা শুরু হয়েছে দেশজুড়ে। দিনে অস্বস্তি নিয়ে কাজকর্ম করার পর রাতে স্বস্তির ঘুমও কেড়ে নিয়েছে উত্তাপ। এমন পরিস্থিতি থেকে স্বস্তি পেতে অনেকেই অপেক্ষা করছিলেন বৃষ্টি। তাদের সেই অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে রাজধানীতে নেমে এলো বৃষ্টি।

ঈদের ছুটির পর দ্বিতীয় কর্মদিবস মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীতে নামে বৃষ্টি, যা নিয়ে স্বস্তি প্রকাশ করেন অনেকে।

রাজধানীর একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘বৃষ্টি হওয়াতে খুব ভালো লাগল। যে গরম শুরু হয়েছিল!

‘আমি প্রেশারের রোগী। অতিরিক্ত গরম হলে সমস্যা হয়ে যায়।’

পূর্বাভাসে যা বলেছিল আবহাওয়া অধিদপ্তর

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানিয়েছিল, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বৃষ্টির বিষয়ে জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকেল চারটার দিকে নিউজবাংলাকে জানান, তারা ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় বৃষ্টির খবর পেয়েছেন। কী পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে, তা পরবর্তী সময়ে জানানো যাবে।

আরও পড়ুন:
দিনে গরম বাড়বে
বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি, আরও ঘামবে মানুষ
কোথাও কোথাও হতে পারে শিলা বৃষ্টি
ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে পাঁচ বিভাগে
ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে সাত বিভাগে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The Prime Minister does not want MP ministers to interfere in the upazila elections
সাংবাদিকদের কাদের

উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের হস্তক্ষেপ চান না প্রধানমন্ত্রী

উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের হস্তক্ষেপ চান না প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
কাদের বলেন, ‘আগামী আট মে প্রথম দফার নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব বিস্তার না করতে। উপজেলা নির্বাচনে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ থাকবে না। অবাধ-সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’

উপজেলা নির্বাচনে হস্তক্ষেপ না করতে সংসদ সদস্য (এমপি) ও মন্ত্রীদের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

কাদের বলেন, ‘আগামী আট মে প্রথম দফার নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব বিস্তার না করতে। উপজেলা নির্বাচনে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ থাকবে না। অবাধ-সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠুভাবে হয়। কেউ কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ করবে না। নির্বিঘ্নে ভোটদানের ব্যবস্থা করেছেন নির্বাচন কমিশন।

‘বিএনপি প্রকাশ্যে উপজেলা নির্বাচনের বিরোধিতা করলেও আমাদের জানা মতে তাদের অনেকেই অংশগ্রহণ করবেন।’

গাজায় ইসরায়েলি তাণ্ডবের বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘হিটলারের চেয়েও ভয়ংকর রূপে আবির্ভূত হয়েছে নেতানিয়াহু।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজকে সারা বিশ্বেই রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। মনে হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের হিটলারের যে দাম্ভিকতা, যুদ্ধংদেহী মনোভাব, সেটা আবারও নতুন করে বিশ্ব রাজনীতিতে দেখতে পাচ্ছি। হিটলার যে হলোকাস্ট ঘটিয়েছিল ৬০ লাখ ইহুদি হত্যা করে, আজকে গাজায় গণহত্যার যে নায়ক একই রূপে আবির্ভূত হয়েছে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু।

‘এই নেতানিয়াহু জাতিসংঘকে মানে না, হোয়াইট হাসকে তোয়াক্কা করে না। আমেরিকান প্রেসিডেন্টের কথা শুনে না। সে হিটলারের চেয়েও ভয়ংকর। ১৪ হাজার শিশুকে গাজায় ইতোমধ্যে হত্যা করে ফেলছে।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ইরানের ইসরায়েল আক্রমণের পর পৃথিবীর ইনফ্লুয়েনশিয়াল রাষ্ট্রগুলো যুক্তরাষ্ট্রসহ ইসরায়েলকে শান্ত থাকার নির্দেশ দিয়েছিল, কিন্তু নেতানিয়াহু আবারও ইরান আক্রমণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে মনে হয় বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে শক্তিধর ব্যক্তি হচ্ছেন নেতানিয়াহু। আপন ইচ্ছায় চলেন, যা খুশি করেন।

‘যাকে ইচ্ছা তাকে মারেন। ভাতে মারেন, পানিতে মারেন, এয়ার স্ট্রাইক করে মারেন। বাউন্ডারি সাইডে সেনাবাহিনী মারেন। তাদের দুর্দমনীয় শক্তির অনুপ্রেরণা দিচ্ছে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু। এটা পৃথিবীর ভয়ংকর চিত্র। তার দাপট মনে হয় হিটলারকেও ছাড়িয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন:
দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী
যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ফল ও মিষ্টি পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী
আয়ারল্যান্ডের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী
শেখ হাসিনাকে ঈদের শুভেচ্ছা মোদির

মন্তব্য

p
উপরে