× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
3 killed in bus pickup head on collision
google_news print-icon

বাস-পিকআপ সংঘর্ষ, নিহত ৩

বাস-পিকআপ-সংঘর্ষ-নিহত-৩
দিনাজপুরে সদর উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনা। ছবি: নিউজবাংলা
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ফায়ার সার্ভিস জানায়, সন্ধ্যার দিকে বিআরটিসির বাসটি রংপুরের দিকে যাচ্ছিল। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে সেটির সংঘর্ষ হয়।

দিনাজপুর সদর উপজেলায় যাত্রীবাহী বিআরটিসি বাস ও পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। এসময় দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন।

সোমবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় উপজেলার দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের ২নং সুন্দরবন ইউনিয়নের দরবাপুর এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুর ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মো. মঞ্জিল হক।

দুর্ঘটনায় নিহতরা সবাই পিকআপটিতে ছিলেন।

নিহতরা হলেন-চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দর সাতনালা গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের ছেলে ফয়জার রহমান (৩০), রানীরবন্দর গ্রামের সামসুল রহমানের ছেলে মো. সোহান (২৫) ও রানীরবন্দর গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে মোস্তাকিম (২৮)।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ফায়ার সার্ভিস জানায়, সন্ধ্যার দিকে বিআরটিসির বাসটি রংপুরের দিকে যাচ্ছিল। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে সেটির সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে পিকআপের চালকসহ তিনজন নিহত হন। দুর্ঘটনায় বিআরটিসি বাসের বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বিদেশ যাওয়া হলো না মোস্তাকের
'আমার আগে তুই চলে গেলি কেন বাজান'
মাস্টার্সের সার্টিফিকেট আনা হলো না আফসানার
এক্সপ্রেসওয়ের রেলিং ভেঙে বাস খাদে, নিহত বেড়ে ১৯
মাদারীপুরে বাস খাদে পড়ার ঘটনায় তদন্ত কমিটি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
A fire broke out at Kacchi Bhai Restaurant on Bailey Road

বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে আগুন, আটকে অনেকে

বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে আগুন, আটকে অনেকে রাজধানীর বেইলি রোডে গ্রিন কোজি কটেজ নামের ভবন থেকে বের হচ্ছে আগুনের শিখা (বাঁয়ে); আটকে পড়াদের উদ্ধার করছে ফায়ার সার্ভিস। কোলাজ: নিউজবাংলা
ফায়ার সার্ভিসের কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্তোঁরায় আগুন লাগার খবর পেয়েছি আমরা। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট কাজ করছে।’

রাজধানীর বেইলি রোডে আট তলাবিশিষ্ট একটি ভবনে আগুন লেগেছে। এই ভবনে ‘কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্ট’সহ একাধিক রেস্তোরাঁ ও দোকান রয়েছে।

গ্রিন কোজি কটেজ নামের ভবনটির দোতলায় বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট রাত ৯টা ৫৬ মিনিটে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর তৎপরতা শুরু করে। পরে একে একে আরও চারটি ইউনিট তাদের সঙ্গে যোগ দেয়।

ফায়ার সার্ভিসের মোট ১০টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টার করছে। তবে রাত ১১টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি।

বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে আগুন, আটকে অনেকে
আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস। ছবি: নিউজবাংলা

ফায়ার সার্ভিসের কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্তোঁরায় আগুন লাগার খবর পেয়েছি আমরা। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট কাজ করছে।’

ঘটনাস্থলে উপস্থিত বেশ কয়েকজন জানান, ভবনটিতে কাচ্চি ভাই, ইলিয়েনসহ বেশ কয়েকটি দোকান আছে। ভবনটি থেকে দাউ দাউ করে আগুনের শিখা বের হচ্ছে। সঙ্গে ধোঁয়ার কুণ্ডলি। বাইরে রাস্তায় প্রচুর মানুষ ভিড় জমিয়েছে।

আট তলাবিশিষ্ট ভবনটির দ্বিতীয় তলায় কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁ। উপরের তলাগুলো আবাসিক।

পুলিশের রমনা জোনের সহকারী মোহাম্মদ সালমান ফার্সী জানান, বহুতল ওই ভবনের উপরের তলাগুলোর বাসিন্দারা আটকা পড়েছেন। তাদেরকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, আগুন দ্বিতীয় তলায় লাগলেও তা উপরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ভবনের অনেক বাসিন্দা আটকা পড়েছেন। ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ক্রেনের সাহায্যে দু’দফায় আটতলা থেকে নারী ও শিশুসহ অন্তত ১০ জনকে নামিয়ে এনেছেন। আরও বেশ কয়েকজন এখনও আটকা পড়ে আছেন। তাদের নামিয়ে আনার চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:
বরিশালে রেস্তোরাঁয় আগুন, বিএম কলেজছাত্রী আহত
ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, ছয় শিশুসহ দগ্ধ ৯
তিন ঘণ্টার চেষ্টায় গাজীপুরের ঝুট গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে
গাজীপুরে জ্বলছে ঝুটের গুদাম
ডেমরায় পাটের সুতার কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Job student Khadija was acquitted from two cases

জবি শিক্ষার্থী খাদিজাকে দুই মামলা থেকেই অব্যাহতি

জবি শিক্ষার্থী খাদিজাকে দুই মামলা থেকেই অব্যাহতি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী খাদিজাতুল কুবরা। ছবি: সংগৃহীত
২০২০ সালের অক্টোবরে খাদিজা ও মেজর (অব.) দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে কলাবাগান ও নিউমার্কেট থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুটি মামলা করে পুলিশ। ২০২২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর খাদিজাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গত বছরের ২০ নভেম্বর জামিন পেয়ে কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন খাদিজা।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী খাদিজাতুল কুবরাকে নিউমার্কেট থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের (ডিএসএ) আরেক মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত। তবে মামলার অপর আসামি অবসরপ্রাপ্ত মেজর দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ পুনঃতদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ গঠনের মতো কোনো উপাদান না পাওয়ায় বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেয় ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ এম জুলফিকার হায়াতের আদালত।

এর আগে ২৮ জানুয়ারি রাজধানীর কলাবাগান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা থেকে খাদিজাতুল কুবরাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ১৪ মাস পর গত বছরের নভেম্বরে কাশিমপুর মহিলা কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি।

‘সরকারবিরোধী প্রচারণা ও বাংলাদেশের সুনাম ক্ষুণ্ন করার’ অভিযোগে ২০২০ সালের অক্টোবরে খাদিজা ও অবসরপ্রাপ্ত মেজর দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে কলাবাগান ও নিউমার্কেট থানায় দুটি মামলা করে পুলিশ। ২০২২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর খাদিজাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অবশেষে ২০২৩ সালের ২০ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট থেকে জামিন পেয়ে কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন খাদিজা।

মামলার এজাহারে বলা হয়, খাদিজা ও দেলোয়ার দেশের বৈধ প্রশাসনকে উৎখাত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী, বিভিন্ন সরকারি সংস্থা ও ঊর্ধ্বতন রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তাদের সম্পর্কে মিথ্যা, বানোয়াট ও মানহানিকর প্রচারণা চালানোর ষড়যন্ত্র করেছেন। বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে শত্রুতা, বিদ্বেষ ও বিভেদ সৃষ্টি করে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চান তারা।

২০২০ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাগুলো করার সময় খাদিজার বয়স ছিল ১৭ বছর। কিন্তু তাকে প্রাপ্তবয়স্ক দেখিয়ে মামলা করা হয় বলে তার আইনজীবী জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
জবি শিক্ষার্থী খাদিজাকে এক মামলায় অব্যাহতি
কারামুক্তির পর কেমন আছেন খাদিজা
কারামুক্ত হয়েই পরীক্ষার হলে জবি শিক্ষার্থী খাদিজা
বিনা দোষে প্রায় ১৫ মাস জেল খাটলাম: খাদিজা
জামিনে কারামুক্ত জবি শিক্ষার্থী খাদিজাতুল কুবরা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chairman Mujibul sacked for threatening Ambassador Haas

রাষ্ট্রদূত হাসকে হুমকি দেয়া চেয়ারম্যান মুজিবুল বরখাস্ত

রাষ্ট্রদূত হাসকে হুমকি দেয়া চেয়ারম্যান মুজিবুল বরখাস্ত ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত
বিভিন্ন সময়ে নানা বিতর্কিত বক্তব্য ও কার্যক্রমে ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবু হক ব্যাপকভাবে আলোচিত-সমালোচিত। আর এসব কারণে ইউপি চেয়ারম্যান হয়েও বেশ কয়েকবার জাতীয় গণমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্টদূত পিটার হাসকে হুমকি দেয়া চট্টগ্রামের বাঁশখালীর সেই ইউপি চেয়ারম্যান অবশেষে বরখাস্ত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব পুরবী গোলদার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চৌধুরীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বিভিন্ন সময়ে নানা বিতর্কিত বক্তব্য ও কার্যক্রমে ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবু হক ব্যাপকভাবে আলোচিত-সমালোচিত। আর এসব কারণে ইউপি চেয়ারম্যান হয়েও বেশ কয়েকবার জাতীয় গণমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছেন তিনি।

করোনা মহামারির সময়ে বয়সের চেয়ে বড় স্থানীয় খেটেখাওয়া লোকজনকে ঘরের বাইরে বের হওয়ার অজুহাতে পিটিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছেন মুজিবুল হক। বিগত ইউপি নির্বাচনে জনসভায় প্রকাশ্যে নিজের লোক দিয়ে ভোট নেয়ার হুমকি দিলে সে সময় চাম্বল ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। পরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপরও তিনি লাগামহীন কথাবার্তা বলে গেছেন।

সবশেষ গত বছরের নভেম্বর মাসে হরতালবিরোধী মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে পেটানোর হুমকি দিয়ে ফের আলোচনায় আসেন।

জানা যায়, স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইনে জেলা প্রশাসক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেন। অভিযোগপত্রে এসব বিষয় উঠে আসে। মুজিবুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে উল্লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা যুক্তিযুক্ত নয় মর্মে সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে মূলত তাকে বরখাস্ত করা হয়।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The explosion was not caused by the gas released from the cylinder

বিস্ফোরণ নয়, সিলিন্ডারের ছেড়ে দেয়া গ্যাসে ভাসানচরে অগ্নিকাণ্ড

বিস্ফোরণ নয়, সিলিন্ডারের ছেড়ে দেয়া গ্যাসে ভাসানচরে অগ্নিকাণ্ড নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্প। ফাইল ছবি
ভাসানচর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইনচার্জ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের মাঝে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার বিতরণের তারিখ ছিল। নতুন সিলিন্ডার নিতে সফি আলম তার আগের সিলিন্ডারের তলানিতে থেকে যাওয়া গ্যাস ইচ্ছাকৃতভাবে ছেড়ে দেন। সেসময় পাশের কক্ষের আবদুস শুক্কুরের স্ত্রী আমিনা খাতুন এবং অপর কক্ষে আব্দুল হাকিমের মেয়ে রোমানা গ্যাসের চুলা জ্বালাতে দিয়াশলাই জ্বালালে ওই ছেড়ে দেয়া গ্যাস বাতাসে মিশে আগুন ধরে যায়।’

নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ পাঁচ শিশুরই মৃত্যু হয়েছে। শনিবার ওই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলেও এর কারণ ছিল এতদিন অজানা। তবে পাঁচদিন পর অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানা গেছে।

সিলিন্ডার বিস্ফোরণের কারণে নয়, ইচ্ছাকৃতভাবে সিলিন্ডারের গ্যাস ছেড়ে দেয়ায় এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। ভাসানচর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইনচার্জ মো. রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বৃহস্পতিবার সকালে তিনি বলেন, ‘শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের মাঝে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার বিতরণের তারিখ ছিল। এর আগের দিন সকালে ৮১ নম্বর ক্লাস্টারের ২৪ বছর বয়সী সফি আলম নতুন সিলিন্ডার নিতে তার ব্যবহৃত সিলিন্ডারের তলানিতে থেকে যাওয়া গ্যাস ইচ্ছাকৃতভাবে ছেড়ে দেন। সেসময় পাশের কক্ষের আবদুস শুক্কুরের স্ত্রী আমিনা খাতুন এবং অপর কক্ষে আব্দুল হাকিমের মেয়ে রোমানা গ্যাসের চুলা জ্বালাতে দিয়াশলাই জ্বালালে ওই ছেড়ে দেয়া গ্যাস বাতাসে মিশে ৩, ৫, ৬, ৭ ও ৮ নম্বর কক্ষসহ বারান্দায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে পাঁচ শিশুসহ মোট নয়জন দগ্ধ হন।

তাদের উদ্ধার করে ভাসানচর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। এর মধ্যে গুরুতর সাতজনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অগ্নিদগ্ধ পাঁচ শিশু ৫ বছরের রবি আলম, সোহেল, ৪ বছরের রাসেল এবং তিন বছরের মুবাশিরা ও রোমানার মৃত্যু হয়।

নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস্) মোহাম্মদ ইব্রাহীম বলেন, ‘সাবধানতা অবলম্বন না করে অবহেলা করে সিলিন্ডার থেকে গ্যাস ছেড়ে দেয়ায় আগুনের সুত্রপাত হয়। এ ঘটনায় ৮১ নম্বর ক্লাস্টারের সফি আলমের বিরুদ্ধে ভাসানচর থানায় বুধবার রাতে মামলা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘মামলার একমাত্র অভিযুক্ত সফি আলমের দুই শিশু সন্তানও এ ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

‘তিনি নিজেও অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। তাকে ভাসানচর হাসপাতালে পুলিশ পাহারায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। সুস্থ হলে এ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হবে।’

প্রসঙ্গত, শনিবার সকালে হাতিয়া উপজেলার ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৮১ নম্বর ক্লাস্টারের একটি কক্ষে রান্নার চুলার গ্যাস সিলিন্ডার থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ৫ শিশুসহ ৯ জন দগ্ধ হন।

আহতদের প্রথমে নোয়াখালীর নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ৭ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে পাঠান।

আরও পড়ুন:
ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিস্ফোরণ: দগ্ধ পাঁচ শিশুরই মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Power price hiked for Awami Syndicates profit Rizvi

আওয়ামী সিন্ডিকেটের মুনাফার জন্য বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে: রিজভী

আওয়ামী সিন্ডিকেটের মুনাফার জন্য বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে: রিজভী বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ফাইল ছবি
বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘যখনই সরকারের টাকায় টান পড়ছে তখনই গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির দাম বাড়িয়ে জনগণের পকেট কাটছে। লুটেরা ডামি সরকার আর্থিকভাবে দেউলিয়া হয়ে সাধারণ মানুষের পকেট শূন্য করার নীতি গ্রহণ করেছে।’

আওয়ামী সিন্ডিকেটের মুনাফার জন্য সরকার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, ‘সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস অবস্থার কথা বিবেচনা না করে আওয়ামী ডামি সরকার আবার‌ও বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করেছে।’

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের ক্ষমতা খর্ব করে যখন ইচ্ছা বিদ্যুতের দাম বাড়াতে পারবে সরকার- এই স্বেচ্ছাচারী আইন অনুমোদন করিয়ে জনগণকে নিপীড়ন ও ফতুর করার নীতি নিয়েছে সিন্ডিকেট সরকার।

‘গণমানুষ, ভোক্তা অধিকার কিংবা ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোর যুক্তি ও অনুরোধের তোয়াক্কা না করে যখনই লুটেরা সরকারের টাকায় টান পড়ছে তখনই গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির দাম বাড়িয়ে জনগণের পকেট কাটছে। লুটেরা ডামি সরকার আর্থিকভাবে দেউলিয়া হয়ে সাধারণ মানুষের পকেট শূন্য করার নীতি গ্রহণ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার বেগমপাড়ায় দামি বাড়ি-গাড়ির জন্য টাকা দরকার। এজন্যই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধি। বেগমপাড়া হয়ে উঠেছে আওয়ামী ধনাঢ্য ব্যক্তিদের অবৈধ স্বর্গ বানানোর প্রতীক।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আওয়ামী আগ্রাসী সিন্ডিকেটের মুনাফার জন্য সরকার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করেছে। গ্যাস সংকট জিইয়ে রেখে এলএনজি ব্যবসার দুয়ার খোলা হয়েছে। সরকার-ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ব্যবসার মাধ্যমে নিজেদের পকেট ভরছেন। এটা স্পষ্ট যে, বিদ্যুৎ-জ্বালানি খাতের লোকসান আসলে সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠান ও দায়িত্বশীলদের অব্যবস্থাপনা, অবহেলা আর দুর্নীতির ফল। আর এর দায় মেটাতে হচ্ছে জনগণকে।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সংসদে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন যে মিথ্যা তথ্য ও মিথ্যা খবর দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি বন্ধে সংসদে আইন আনা হবে। তিনি আরও বলেছেন, অলরেডি একটি আইন আছে যেটা হচ্ছে সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট। আরও কিছু আইন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এই সংসদে আসবে।

‘অর্থাৎ নাগরিকদের ওপর নজরদারি আরও তীব্র হবে। এটি পুরো জাতিকে পর্যবেক্ষণে রাখার এক নতুন কালো আইন প্রণয়নের আলামত। মূলত সরকারের দুঃশাসন, লুটপাট ও বাজার সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কেউ যাতে কোনো কথা বলতে না পারে সেজন্যই একের পর এক ড্রাকোনিয়ান আইন তৈরি করছে সরকার।’

আরও পড়ুন:
বিডিআর বিদ্রোহের পেছনে আওয়ামী লীগ সরকার: রিজভী
জনগণের ওপর প্রতিশোধ নিতে বিদ্যুৎ জ্বালানির দাম বাড়াচ্ছে সরকার: রিজভী
ক্ষমতা দখল করে জনগণকে ঔদ্ধত্য দেখাচ্ছে আ. লীগ সরকার: রিজভী
কারা হেফাজতে বিএনপি নেতাদের মৃত্যু পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড: রিজভী
বিএনপি ও আওয়ামী লীগের পার্থক্য কোথায়, জানালেন রিজভী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP favors genocide in Gaza Foreign Minister

গাজায় গণহত্যার পক্ষ নিয়েছে বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

গাজায় গণহত্যার পক্ষ নিয়েছে বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছবি: নিউজবাংলা
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত ইসরায়েলি হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে তো কিছু বলেইনি, বরং ইসরায়েলি বাহিনীর অনুকরণে তারা দেশে সহিংসতা ঘটিয়েছে; পুলিশের ওপর, হাসপাতালের ওপর হামলা করেছে। তারা ইসরায়েলের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে, ইসরায়েলের দোসরে পরিণত হয়েছে।’

ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলি হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে বিএনপি-জামায়াত আজ পর্যন্ত একটি শব্দও উচ্চারণ করেনি মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘চুপ থেকে তারা এই গণহত্যার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে ফিলিস্তিনে নারী ও শিশুহত্যা বন্ধের দাবিতে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সমাবেশ ও মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গাজায় প্রায় ত্রিশ হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়েছে, এর বেশিরভাগ নারী ও শিশু। সেখানে হাসপাতালে হামলা করা হচ্ছে, অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে, হাসপাতালের বিদ্যুৎ লাইন ধ্বংস করা হয়েছে, যেসব কারণে অনেক মানুষ নিহত হয়েছে। ত্রাণের অপেক্ষায় থাকা মানুষের ওপর হামলা করা হয়েছে।

‘একবিংশ শতাব্দীতে এটি ভাবা যায় না। তবুও বিশ্ব মোড়লরা নির্বাক এবং আরব বিশ্বের যে ভূমিকা রাখার দরকার ছিল, তারা সেখানে সে ভূমিকা রাখেনি।’

দেশে রাজনীতির প্রসঙ্গ টেনে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত ইসরায়েলি হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে তো কিছু বলেইনি, বরং ইসরায়েলি বাহিনীর অনুকরণে তারা দেশে সহিংসতা ঘটিয়েছে; পুলিশের ওপর, হাসপাতালের ওপর হামলা করেছে। তারা ইসরায়েলের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে, ইসরায়েলের দোসরে পরিণত হয়েছে।

‘জামায়াত নাকি ইসলাম কায়েম করতে চায়। অথচ তারা ফিলিস্তিনে গণহত্যার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত একটা শব্দ বলল না কেন? তারা চেহারা দেখায় কী করে? এরা একটা শব্দ না বলে ইসরায়েলের পক্ষে হাত বাড়িয়েছে।’

গাজায় গণহত্যার পক্ষ নিয়েছে বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

তিনি বলেন, ‘তারা ভেবেছিল, নির্বাচনের পরে বিশ্ব শেখ হাসিনার সরকারকে স্বীকৃতি দেয় কি না! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ৭৮টি দেশ ও জাতিসংঘসহ ৩২টি সংস্থা অভিনন্দন জানানোর পর এখন তাদের আর কোনো কথা নাই। এখন নিজেরা নিজেদের প্রশ্ন করে- ভাই কী হলো?

‘বিএনপি নেতারা এখন চ্যালেঞ্জের মুখে; তাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান চ্যালেঞ্জের মুখে। তাদের নেতাদের কর্মীরা জিজ্ঞেস করে বলে- আপনারা নেতৃত্ব দেয়ার অযোগ্য নেতা।’

বর্তমান শেখ হাসিনা সরকার বিগত যেকোনো সরকারের চেয়ে বেশি শক্তিশালী জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘শুধু দেশের উন্নয়নেই নয়, বঙ্গবন্ধুকন্যা বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা পালন করছেন। ৪ ও ৫ মার্চ আমি ওআইসির সম্মেলনে যোগ দেব। প্রধানমন্ত্রী আমাকে ওআইসির সম্মেলনে গিয়ে ফিলিস্তিনের পক্ষে বক্তব্য তুলে ধরতে বলেছেন।

‘ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি নিজে যেচে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তাকেও প্রধানমন্ত্রী যুদ্ধ বন্ধ করতে বলেছেন। গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হত্যাকাণ্ড বন্ধের কথা বলেছেন।’

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি ডা. অরূপ রতন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানার উপস্থাপনায় আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য বলরাম পোদ্দার, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুরাদ, স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের অপর সহ-সভাপতি রেদওয়ান খন্দকার, সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন হালদার, প্রচার সম্পাদক মিজানুর রহমান, ডিইউজের সহ-সভাপতি মানিক লাল ঘোষ সমাবেশ ও মানববন্ধনে বক্তৃতা দেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর পূর্বপুরুষ এ দেশে ইসলাম প্রচারে এসেছিলেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিশৃঙ্খলা করতে ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ পুলিশের ওপর চড়াও হয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police must prepare to deal with new forms of crime PM

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার নিজ কার্যালয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন। ছবি: পিআইডি
শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে নানাভাবে অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলার ওপর সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছে। অপরাধ মোকাবিলায় সিস্টেম আপগ্রেড করা না গেলে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না।’

প্রযুক্তির উন্নয়নের যুগে অপরাধের নতুন নতুন ধরন মোকাবিলা করতে পুলিশ সদস্যদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পুলিশ সপ্তাহ-২০২৪ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে নিজ কার্যালয়ে বাংলাদেশ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

‘স্মার্ট পুলিশ স্মার্ট দেশ, শান্তি ও প্রগতির বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩ মার্চ পর্যন্ত ছয় দিনব্যাপী পুলিশ সপ্তাহ পালিত হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে নানাভাবে অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। অপরাধের নতুন নতুন ধরন তৈরি হচ্ছে। আমাদের পুলিশ বাহিনীকে সম্ভাব্য সব উপায়ে এগুলো মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলার ওপর সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছে। অপরাধের ধরন পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে অপরাধ মোকাবিলায় সিস্টেম আপগ্রেড করা না গেলে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না।’

অপরাধের নতুন ধরন মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুতি নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ফটোসেশনে অংশ নেন। ছবি: পিআইডি

পুরুষ, নারী ও শিশু নির্বিশেষে জনগণকে কর্মক্ষেত্রে আপনজন বিবেচনা করে সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে সেবা দেয়ার জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান সরকার প্রধান।

তিনি বলেন, ‘পুলিশ এখন জনগণের বন্ধুতে পরিণত হয়েছে। এখন মানুষ অতীতের মতো পুলিশকে ভয় পায় না। এখন তারা (জনগণ) তাদের আস্থা ফিরে পেয়েছে এবং সাধারণ মানুষ পুলিশকে তাদের বন্ধু ও আস্থাভাজন মনে করে।’

আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা, পুলিশকে মারা, পুলিশ হত্যাসহ সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের যে মামলাগুলো রয়েছে এর দীর্ঘসূত্রতা থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই মামলাগুলো কিন্তু যথাযথভাবে চলে না। আমি মনে করি যারা এ ধরনের অপরাধ করে তাদের মামলাগুলো যথাযথভাবে চললে এবং দ্রুত সাজা হয়ে গেলে আর অপরাধ করার সাহস পাবে না।’

আগামীতে যেন আর কেউ পুলিশের ওপর আক্রমণ করতে না পারে সেভাবে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের প্রস্তুত থাকতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘রাজনীতির নামে হোক আর সন্ত্রাসের নামে হোক আইনকে যাতে নিজের হাতে তুলে নিতে না পারে এবং আইন-শৃঙ্খলা ও মানুষের জানমাল এবং জাতীয় সম্পদের ক্ষতি করতে না পারে এ ব্যাপারে পুলিশকে অবিচল থাকতে হবে। যখনই যেটা দরকার যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘কেউ যেন আইনকে নিজের হাতে তুলে নিতে এবং আইনশৃংখলার অবনতি ঘটাতে না পারে।’

আরও পড়ুন:
রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে
নিজের লেখা দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর
সরকার অফশোর গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
দেশের মানুষের সেবা করুন: পুলিশকে প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

p
উপরে