× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Rohingya youth shot dead in Ukhia
google_news print-icon

উখিয়ায় রোহিঙ্গা যুবককে গুলি করে হত্যা

উখিয়ায়-রোহিঙ্গা-যুবককে-গুলি-করে-হত্যা
কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা আশ্রয় কেন্দ্র। ফাইল ছবি
ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটের দিকে ক্যাম্প ১২-এর জি/৭ ব্লকের সামনে সন্ত্রাসীরা হাফেজ মাহবুবকে লক্ষ্য করে উপর্যুপরি গুলি চালায়। এ সময় দুই রাউন্ড গুলি তার শরীরে বিদ্ধ হয়। তাকে প্রথমে এমএসএফ হাসপাতাল ও পরে উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কক্সবাজারের উখিয়ায় বালুখালী ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হাফেজ মাহবুব নামে এক রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছেন।

শনিবার রাত ৯টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী।

নিহত মাহবুব ক্যাম্প-১৯ এর ডি/৯ ব্লকের সৈয়দ আমিনের ছেলে। হাফেজ পড়ুয়া এই শিক্ষার্থী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহায়তা করতেন।

ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটের দিকে ক্যাম্প ১২-এর জি/৭ ব্লকের সামনে সন্ত্রাসীরা হাফেজ মাহবুবকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় দুই রাউন্ড গুলি তার শরীরে বিদ্ধ হয়। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে এমএসএফ হাসপাতাল ও পরে উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরও জানান, বর্তমানে ক্যাম্পের পরিস্থিতি পুলিশ ও এপিবিএনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
অপহরণের ২৪ ঘণ্টা পর মিলল রোহিঙ্গার ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ
উখিয়ায় গুলিতে রোহিঙ্গা স্বেচ্ছাসেবক নিহত
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: মিয়ানমারের প্রতিনিধি দল টেকনাফে
দুর্বৃত্তদের গুলিতে রোহিঙ্গা নেতা গুলিবিদ্ধ
উখিয়ায় ফের দুর্বৃত্তদের গুলিতে রোহিঙ্গা মাঝি নিহত

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The case against the police in the case of kicking the farmer is human chain

কৃষককে লাথির ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা, মানববন্ধন

কৃষককে লাথির ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা, মানববন্ধন কৃষককে মারধর ও হামলার প্রতিবাদে পাকুন্দিয়ায় বুধবার মানববন্ধন করেন গ্রামবাসী। ছবি: নিউজবাংলা
পাকুন্দিয়া উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের মহিষবেড় এলাকায় জুয়াড়ি আখ্যা দিয়ে পুলিশ লাথি ও লাঠিপেটা করে কৃষক সিরাজ উদ্দিনকে। এতে তার বাম ঊরুর হাড় ভেঙে যায়। এর প্রতিবাদ ও দায়ী পুলিশ সদস্যদের শাস্তি দাবিতে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। এ ঘটনায় এএসআই নূরুল হকসহ চার/পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় নিরীহ কৃষককে পুলিশের বুটের লাথি ও লাঠিপেটার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। এ ঘটনায় দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

বুধবার বিকেলে উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের কুমরী বাজারে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। এতে কুমরী গ্রামের শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

এ ঘটনায় আহুতিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সহকারী উপ-পরিদর্শক নূরুল হকের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও চার/পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

রোববার রাত ১১টার দিকে উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের মহিষবেড় এলাকার নলা বিল থেকে বাড়ি ফেরার পথে পুলিশি হামলা-নির্যাতনের শিকার হন সিরাজ উদ্দিন। পুলিশের বুটের লাথি ও লাঠিপেটায় তার বাম পায়ের ঊরুর হাড় ভেঙে যায়। এছাড়াও তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। এক পর্যায়ে চিৎকার শুনে তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয়রা।

গুরুতর আহত ৪৫ বছর বয়সী কৃষক সিরাজ উদ্দিন পাকুন্দিয়া উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের বাসিন্দা। তার বাবা আশ্রাব আলী এই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি।

সিরাজের ছোট ভাই রিয়াজ উদ্দিন জানান, নলা বিলে মাছের খাদ পাহারা দিয়ে তার ভাই বাড়ি ফেরার পথে এএসআই নুরুল হকসহ অন্য পুলিশ সদস্যরা জুয়াড়ি অপবাদ দিয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। সিরাজ এর প্রতিবাদ করলে এএসআই নুরুল হক তার বাম উরুতে লাথি মারেন। এতে তার উরুর হাড় ভেঙে যায়। পরে মাটিতে পড়ে থাকা সিরাজে গলায় পা দিয়ে চেপে ধরেন ওই এএসআই। এ সময় তার সঙ্গে থাকা অন্য পুলিশ সদস্যরাও সিরাজকে মারধর করেন। সিরাজের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে পুলিশের ওই সদস্যরা সটকে পড়েন। সিরাজ ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

রিয়াজ উদ্দিন আরও জানান, এ বিষয়ে পাকুন্দিয়া থানায় গিয়ে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি তিনি। পরে বুধবার দুপুরে তিনি বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেছেন।

সিরাজ উদ্দিনের স্ত্রী জেসমিন আক্তার জানান, হাসপাতালে চিকিৎসক জানিয়েছেন যে তার আঘাতগুলো গুরুতর। অপারেশন লাগতে পারে।

তিনি বলেন, ‘তিনটা কন্যা সন্তান নিয়ে এমনিতেই ভালভাবে চলতে পারছি না। যে মানুষটার উপার্জনে সংসার চলে তাকে পুলিশ অযথা মেরে পা ভেঙে দিয়েছে। এমন বর্বরোচিত হামলার তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।

৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. মস্তুফা বলেন, ‘সিরাজ উদ্দিন খুব ভালো লোক। আর কেউ কোনো অপরাধ করলে পুলিশ তাকে আটক করতে পারে। কিন্তু তার শরীরে এভাবে আঘাত করতে পারে না। আমি ঘটনাটি শুনে ওই পুলিশ সদস্যের মোবাইলে ফোন করি। ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতেই তিনি ফোন কেটে দেন। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।’

এ বিষয়ে আহুতিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সহকারী উপ-পরিদর্শক নূরুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন। তার দাবি, তিনি সেখানে যাননি।

মামলার আইনজীবী মো. ফরিদ উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় সিরাজ উদ্দিনের ছোট ভাই আহুতিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সহকারী উপ-পরিদর্শক নূরুল হকের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও চার/পাঁচজনকে আসামি করে কিশোরগঞ্জের ৩ নং জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। বিচারক পার্থ ভদ্র মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআইকে অনুসন্ধানপূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ জানান, মামলা হওয়ার পর তিনি বিষয়টি জেনেছেন। এর আগে কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আদালতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The decision whether bikes will run on Padma bridge or not is after 4 weeks

পদ্মা সেতুতে বাইক চলবে কি না, সিদ্ধান্ত ৪ সপ্তাহ পর

পদ্মা সেতুতে বাইক চলবে কি না, সিদ্ধান্ত ৪ সপ্তাহ পর ফাইল ছবি
আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, এ রিটটি করার পর আদালত প্রথমে সরকারকে আট সপ্তাহ সময় দিয়েছিল, সরকার এ ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তা দেখোর জন্য। কিন্তু সেই সময় শেষ হওয়ার পরে আজকে মামলাটি আবার কার্যতালিকায় আসে।

পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মোটারসাইকেল চলাচলক করতে পারবে না কি না, সে বিষয়ে রিটের ওপর হাইকোর্ট আদেশ দেবে আরও চার সপ্তাহ পর।

বুধবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ ওই রিটের শুনানি আগামী চার সপ্তাহের জন্য মুলতবি করে।

আদালত জানিয়েছে, এ সময়ের মধ্যে সরকার কী সিদ্ধান্ত নেয় সেটা দেখে পরবর্তী আদেশ দেয়া হবে।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকার ও আইনজীবী ইয়ারুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।
এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি ওই রিটের শুনানি আট সপ্তাহের জন্য মুলতবি করেছি হাইকোর্ট।

আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, এ রিটটি করার পর আদালত প্রথমে সরকারকে আট সপ্তাহ সময় দিয়েছিল, সরকার এ ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তা দেখোর জন্য। কিন্তু সেই সময় শেষ হওয়ার পরে আজকে মামলাটি আবার কার্যতালিকায় আসে।

তিনি বলেন, এখানে একটা ডেভেলপমেন্ট (উন্নতি) আছে। সেটা হলো সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ থেকে সেতু বিভাগে একটা চিঠি দিয়েছিল। চিঠিতে বলা হয়, রিট আবেদনের ছায়ালিপি বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে নির্দেশক্রমে প্রেরণ করা হলো। অর্থাৎ আমাদের আবেদনটি মহাসড়ক বিভাগ সেতু বিভাগের কাছে পাঠিয়েছে।

আইনজীবী তৈমুর আলম বলেন, এটা আদালতের নজরে আসার পর আদালত বলেছে, সরকার যেহেতু এটা টেকআপ করেছে অতএব সময় দেয়া হোক। এরপর চার সপ্তাহ সময় দিয়েছে, সরকার কী সিদ্ধান্ত নেয়। আমরা আশা করি সরকার চার সপ্তাহের মধ্যে একটি ন্যায়সঙ্গত সিদ্ধান্ত নেবে।

তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে ৩৮ লাখ মোটরবাইকের চালক আছেন। তাদের অধিকার সমন্নুত থাকবে বলে আশা করছি।

গত বছরের ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন। পরে দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এই সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করে সরকার। সরকারের সেই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে আবু হানিফ হৃদয় নামের যাত্রাবাড়ীর এক বাসিন্দা রিট করেন।

আরও পড়ুন:
শেখ হাসিনার প্রজ্ঞা, দক্ষতায় পদ্মা সেতু: চীনা দূত
পদ্মা সেতু দেখে মানুষ খুশি, ফখরুল সাহেবের মন খারাপ: কাদের
ভূমি অধিগ্রহণে প্রতারণা, সার্ভেয়ারকে বরখাস্তের সুপারিশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
City bulldozers at Sramik League leaders house

শ্রমিক লীগ নেতার বা‌ড়িতে সিটির বুল‌ডোজার

শ্রমিক লীগ নেতার বা‌ড়িতে সিটির বুল‌ডোজার বুধবার বিকেলে নগরীর নতুন বাজারে শ্রমিক লীগ নেতার মালিকানাধীন ভবন‌ ভাঙ‌তে আসে বরিশাল সি‌টি কর‌পো‌রেশন। ছবি: নিউজবাংলা
বরিশাল সিটি করপোরেশনের রোড ইন্স‌পেক্টর রা‌কিবুল ইসলাম রা‌কিব ব‌লেন, ‘ভবন‌টির প্ল্যান র‌য়ে‌ছে ছয়তলার। প্ল্যানে গ‌্যা‌রেজও র‌য়ে‌ছে। কিন্তু ভবনটি সাততলা পর্যন্ত করা হয়েছে, গ‌্যা‌রেজ রাখা হয়নি। এ কার‌ণে ভবন মা‌লিককে একা‌ধিক বার নোটিশ দি‌লেও কো‌নো জবাব মেলেনি।’

ব‌রিশাল জেলা শ্রমিক লীগ সভাপ‌তি শাহজাহান হাওলাদা‌রের মা‌লিকানাধীন ভবন ভাঙ‌তে অভিযান চা‌লি‌য়ে‌ছে ব‌রিশাল সি‌টি করপো‌রেশন। নকশাব‌হির্ভূতভা‌বে ভবনটি নির্মানের অভিযোগে বুধবার এই অভিযান চালানো হয়। ভবন মা‌লি‌কের দাবি, বিনা নো‌টি‌শে সি‌টি কর‌পো‌রেশন বুল‌ডোজার নি‌য়ে ভবনটি ভাঙ‌তে এসে‌ছে।

এদিকে ঘটনাস্থলের ছ‌বি তুল‌তে সাংবা‌দিক‌দের বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে রোড ইন্স‌পেক্ট‌রের সহ‌যোগী‌দের বিরু‌দ্ধে। সাধারণ মানু‌ষের সঙ্গে রুঢ় আচর‌ণেরও অভিযোগ করেছেন অনেকে।

বুধবার বিকেল পৌ‌নে ৩টার দি‌কে নগরীর নতুন বাজারের টেম্পু স্ট‌্যান্ড এলাকায় ভবন‌টি ভাঙ‌তে আসে সি‌টি কর‌পো‌রেশন। ত‌বে ভবন মা‌লিক‌কে কিছু সময় দি‌য়ে বুল‌ডোজার তার ভব‌নের সাম‌নেই রে‌খে দেন কর‌পো‌রেশ‌নের রোড ইন্স‌পেক্টররা।

রোড ইন্স‌পেক্টর রা‌কিবুল ইসলাম রা‌কিব ব‌লেন, ‘ভবন‌টির প্ল্যান র‌য়ে‌ছে ছয়তলার। প্ল্যানে গ‌্যা‌রেজও র‌য়ে‌ছে। কিন্তু ভবনটি অনিয়মের মাধ্যমে সাততলা করা হয়েছে এবং গ‌্যা‌রেজ রাখা হয়নি। এ কার‌ণে ভবন মা‌লিককে একা‌ধিক বার নোটিশ দি‌লেও কো‌নো জবাব মেলেনি।

‘সবশেষ বুধবার এই বা‌ড়ি‌তে এসে নো‌টিশ দি‌য়ে যথাযথ ব‌্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া নেয়া হয়। ভবন মা‌লি‌ক আমা‌দের কা‌ছে সময় চে‌য়ে‌ছেন। বা‌কিটা ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষ বল‌তে পার‌বেন।’

সি‌টি কর‌পো‌রেশন সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে, ১৯ নম্বর ওয়া‌র্ডের নতুন বাজা‌রের বা‌সিন্দা এবং ব‌রিশাল পৌরসভার টানা ১৮ বছর ক‌মিশনার প‌দে দা‌য়ি‌ত্বে থাকা শাহজাহান হাওলাদার‌কে ভবনটির ব্যাপারে গত ৬, ২০ ও ২৭ মার্চ চূড়ান্ত নো‌টিশ দেয়া হয়। তি‌নি কো‌নো জবাব দেননি কর‌পো‌রেশন‌কে। তাছাড়া নো‌টিশপ্রা‌প্তির ২৪ ঘণ্টার ম‌ধ্যে অন‌ু‌মো‌দিত প্ল্যান কর‌পো‌রেশ‌নে দা‌খি‌লের নি‌র্দেশ দেয়া হ‌লেও তি‌নি তা ক‌রেনন‌ি।

ভবনটির মা‌লিক ব‌রিশাল জেলা শ্রমিক লী‌গের সভাপ‌তি ও ব‌রিশাল জেলা মু‌ক্তি‌যোদ্ধা কমা‌ন্ডের সা‌বেক ডেপু‌টি কমান্ডার শাহজাহান হাওলাদার। তিনি ব‌লেন, ‘সি‌টি কর‌পো‌রেশন থে‌কে আমরা আগে কো‌নো ধর‌নের নো‌টিশ পাইনি। এখা‌নে বুলডোজার নিয়ে আসার ৩০ মি‌নিট আগে প্ল্যান ব‌হির্ভূতভা‌বে ভবন তৈরির কথা জানিয়ে আমা‌দেরকে নো‌টিশ দেয়া হ‌য়ে‌ছে। সিটি করপোরেশন উদ্দেশ্যমূলকভাবে এটা ক‌রে‌ছে।’

এদিকে বুধবার বিকেলে ‌শ্রমিক লীগ নেতার ভবন ভাঙার প্রস্তু‌তির আগেই নতুন বাজার টেম্পু স্ট‌্যান্ড থে‌কে গুপ্ত কর্নার মোড় পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ ক‌রে দেয় সি‌টি কর‌পো‌রেশন। ব‌্যস্ততম সড়কটি বন্ধ করে দেয়ায় ভোগান্তিতে পড়া অনেকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান।

ভবন ভাঙার কার্যক্রম না ক‌রে বুল‌ডোজার শাহজাহান হাওলাদা‌রের বা‌ড়ির সাম‌নে রে‌খে দি‌য়ে বিকেল ৪টার দি‌কে ঘটনাস্থল ত‌্যাগ ক‌রেন সি‌টি কর‌পো‌রেশ‌নের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। প‌রে বুল‌ডোজার‌টিও স‌রি‌য়ে নেয়া হয়।

মহানগর আওয়ামী লী‌গের বিশ্বস্ত এক‌টি সূত্রের দাবি, ব‌রিশাল নগরী থে‌কে বি‌ভিন্ন রু‌টে থ্রি হুইলার মা‌হিন্দ্রা চলাচলে চাঁদাবাজি নি‌য়ে শ্রমিক লীগ নেতা শাহজাহান হাওলাদা‌রের সঙ্গে সি‌টি মেয়র সের‌নিয়াবাত সা‌দিক আব্দুল্লাহর দ্বন্দ্ব হয়। মেয়র নিজ ফেসবুক পে‌জে লাইভে এসেও শাহজাহান হাওলাদা‌রের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে কথা ব‌লেন থ্রি হুইলার মা‌হিন্দ্রা শ্রমিক‌দের সঙ্গে নিজ বাসায় আলোচনার সময়। ওই বিষয়‌কে কেন্দ্র ক‌রেই শাহজাহান হাওলাদা‌রের মা‌লিকানাধীন ভবন ভাঙার প্রক্রিয়া নেয় সি‌টি কর‌পো‌রেশন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Protest march in Jabi demanding the release of journalist Shamsuzzaman

সাংবাদিক শামসুজ্জামানের মুক্তি দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

সাংবাদিক শামসুজ্জামানের মুক্তি দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ মিছিল সাংবাদিক শামসুজ্জামানের মুক্তি দাবিতে বুধবার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেন। ছবি: নিউজবাংলা
সমাবেশে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক ঋদ্ধ অনিন্দ্য গাঙ্গুলী বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। সরকার তার প্রয়োজনের সময় অসৎ উদ্দেশ্যে এই আইন ব্যবহার করছে। নিকৃষ্ট উপায়ে সাদা পোশাকে এসে রাষ্ট্রীয় গুণ্ডা বাহিনী সাংবাদিক শামসুজ্জামানকে তুলে নিয়ে গেছে।’

সাভারে কর্মরত দৈনিক প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক শামসুজ্জামানকে তার বাসা থেকে তুলে নেয়ার প্রতিবাদে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বরে শিক্ষার্থীরা এই বিক্ষোভ মিছিল করেন।

মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন শিক্ষার্থীরা।

সমাবেশে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক ঋদ্ধ অনিন্দ্য গাঙ্গুলী বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। সরকার তার প্রয়োজনের সময় অসৎ উদ্দেশ্যে এই আইন ব্যবহার করছে। নিকৃষ্ট উপায়ে সাদা পোশাকে এসে রাষ্ট্রীয় গুণ্ডা বাহিনী সাংবাদিক শামসুজ্জামানকে তুলে নিয়ে গেছে।’

প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী সুদীপ্ত দে বলেন, ‘কোনো সংবাদে আপত্তি থাকলে তার নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া আছে। কিন্তু এখানে অন্যায়ভাবে সাংবাদিককে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হোক। একই সঙ্গে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হোক।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rubel used to see Ayanis sacked body every day

আয়নীর বস্তাবন্দি মরদেহ প্রতিদিন দেখে আসত রুবেল

আয়নীর বস্তাবন্দি মরদেহ প্রতিদিন দেখে আসত রুবেল শিশু আবিদা সুলতানা আয়নীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় সবজি বিক্রেতা রুবেলকে বুধবার আটক করে পিবিআই। ছবি: নিউজবাংলা
জিজ্ঞাসাবাদের পাওয়া তথ্যের উল্লেখ করে পুলিশ সুপার নাঈমা সুলতানা বলেন, ‘২১ মার্চ রাত ৯টার পর আঁখির বস্তাবন্দি মরদেহ সবজির ভ্যানে করে ত্রিফল দিয়ে ঢেকে মুরগি ফার্ম এলাকার ডোবায় ফেলে আসে রুবেল। রাত ১০টার দিকে শিশুটির পরিহিত স্যান্ডেল, পায়জামা ও হিজাব কনকা সিএনজি স্টেশনের পাশে নালায় ফেলে দেয় সে। এরপর থেকে রুবেল প্রতিদিন মরদেহের অবস্থা দেখে আসত এবং খড়কুটো দিয়ে তা ঢেকে দিত।’

চট্টগ্রামে নিখোঁজের ৮ দিন পর বুধবার উদ্ধার হয়েছে শিশু আবিদা সুলতানা আয়নীর মরদেহ। আর বস্তাবন্দি এই মরদেহ প্রতিদিন গিয়ে দেখে আসত অভিযুক্ত রুবেল। লোকজনের দৃষ্টির আড়ালে রাখতে সে খড়কুটো দিয়ে ওই বস্তা ঢেকে রাখত নিয়মিত।

বুধবার দুপুরে ডবলমুরিং এলাকায় নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের পুলিশ সুপার (এসপি, চট্টগ্রাম মেট্রো) নাঈমা সুলতানা।

তিনি বলেন, ‘ঘটনার দিন (২১ মার্চ) রাত ৯টার পর আখির মরদেহ বস্তাবন্দি করে সবজির ভ্যানে করে ত্রিফল দিয়ে ঢেকে মুরগি ফার্ম এলাকার ডোবায় ফেলে আসে রুবেল। রাত ১০টার দিকে আঁখির পরিহিত স্যান্ডেল, পায়জামা ও হিজাব কনকা সিএনজি স্টেশনের দক্ষিণ পাশের নালায় ফেলে দেয় সে। ডোবায় মরদেহ ফেলে আসার পর থেকে রুবেল প্রতিদিন মরদেহের অবস্থা দেখে আসত এবং লোকজনের দৃষ্টির আড়ালে রাখতে খড়কুটো দিয়ে ঢেকে দিত।’

২১ মার্চ বিকেলে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থানার কাজীর দিঘি এলাকার বাসা থেকে আরবি পড়তে বেরিয়ে নিখোঁজ হয় ১০ বছর বয়সী আবিদা সুলতানা আয়নী ওরফে আঁখি মনি। নিখোঁজের ৮ দিন পর বুধবার ভোরে পার্শ্ববর্তী পুকুরপাড়া মুরগি ফার্ম এলাকার একটি জলাশয় থেকে শিশুটির বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পিবিআই। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হত্যায় জড়িত সন্দেহে সবজি বিক্রেতা রুবেলকে আটক করে পিবিআই।

আয়নীর বস্তাবন্দি মরদেহ প্রতিদিন দেখে আসত রুবেল
আবিদা সুলতানা আয়নী ওরফে আঁখি মনি। ছবি: সংগৃহীত

সংবাদ সম্মেলনে নাঈমা সুলতানা জানান, পাহাড়তলী থানায় দায়ের করা সাধারণ ডায়েরি ও আঁখি মনির মায়ের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ২৩ মার্চ ছায়া তদন্ত শুরু করে পিবিআই। সিসিটিভি ফুটেজ ও শিশুটির স্বজনদের অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয় সবজি বিক্রেতা রুবেলকে শনাক্ত করে তারা৷

‘মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রুবেলকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে রুবেল আঁখি মনিকে বিড়ালছানার প্রলোভন দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী একটি খালি ভবনের চতুর্থ তলায় নিয়ে ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তার দেখানো মতেই মঙ্গলবার ভোরে আঁখি মনির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘আটক রুবেলের স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে মঙ্গলবার ভোর সোয়া ৫টার দিকে পাহাড়তলী থানার মুরগি ফার্ম বাজারের পাশে আলমতারা পুকুর এলাকার ডোবার আবর্জনায় চটের বস্তায় বাঁধা অবস্থায় শিশুটির অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহে কালো রঙের একটি গেঞ্জি ছাড়া আর কোনো কাপড় ছিল না। পরবর্তীতে আটক রুবেলের তথ্যে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে পাহাড়তলীর পোর্ট কানেকটিং রোডে কনকা সিএনজি স্টেশনের দক্ষিণ পাশের নালা থেকে শিশুটির স্যান্ডেল, পায়জামা ও হিজাব উদ্ধার করা হয়।

‘তিন মাস আগে স্বামী আবুল হাশেমের সঙ্গে বিয়েবিচ্ছেদ হওয়ায় আঁখি মনিকে নিয়ে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে এসে মায়ের বাসায় ওঠেন বিবি ফাতেমা। মেয়েকে স্থানীয় বিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে একটি তৈরি পোশাক কারখানায় চাকরি নেন তিনি।’

পিবিআই এসপি জানান, সবজি বিক্রির সুবাদে আঁখি মনির নানী বিবি খাদিজার সঙ্গে পরিচয় ছিল রুবেলের। মাস তিনেক আগে একটি বিড়ালছানা ধরতে গিয়ে রিকশার সঙ্গে ধাক্কা লাগে আঁখি মনির। তখন শিশুটির সঙ্গে পরিচয় হয় রুবেলের। সব সময় রুবেলের কাছে বিড়ালছানা চাইতো আঁখি, রুবেলও বোনের বাসা থেকে আঁখিকে বিড়ালছানা এনে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়।

ঘটনার আগের দিন, ২০ মার্চ এক বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে বিড়ালছানা আনতে রুবেলের বাসায় যায় আঁখি। ওইদিন বেলা ১১টায় সবজি বিক্রির সময় নিজেদের বাসার নিচে রুবেলের সঙ্গে কথা হয় আঁখির। সে সময় বিকেলে বিড়ালছানা দেয়ার কথা বলে আঁখিকে পার্শ্ববর্তী একটি নির্দিষ্ট স্থানে যেতে বলে রুবেল।

বিকেলে আঁখি ওই নির্দিষ্ট স্থানে গেলেও রুবেলের দেখা না পেয়ে ফিরে আসে সে। পরদিন স্কুলের সামনে রুবেলকে দেখে বিড়ালছানার কথা জিজ্ঞেস করে সে। ওই সময় স্কুল শেষে আঁখিকে আগের নির্ধারিত স্থানে যেতে বলে রুবেল। স্কুল শেষে আঁখি পোশাক পরিবর্তন করে হিজাব পরে নির্ধারিত স্থানে যায়। হিজাব পরায় শুরুতে রুবেল চিনতে না পারলেও আঁখির ডাকে চিনতে পারে৷ তখন আঁখিকে কৌশলে রুবেল তার ফুফুর ভবনের চতুর্থ তলার খালি বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় আঁখি চিৎকার করলে গলাটিপে ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে রুবেল।

রুবেলের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

আয়নী হত্যার ঘটনায় আটক সবজি বিক্রেতা মো. রুবেল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। বুধবার বিকেল ৪টার দিকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল দেবের আদালতে এই জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী নূর ই খোদা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘গ্রেপ্তারের পর পিবিআই রুবেলকে আদালতে হাজির করলে তিনি শিশুটিকে হত্যা ও ধর্ষণের কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। আদালত জবানবন্দি রেকর্ড করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।’

আয়নীর বস্তাবন্দি মরদেহ প্রতিদিন দেখে আসত রুবেল
বুধবার দুপুরে বন্দর নগরীর পাহাড়তলী থানার সাগরিকা মোড় এলাকায় মানববন্ধন করে আয়নীর সহপাঠিরা। এতে অংশ নেন অভিভাবকরাও। ছবি: নিউজবাংলা

আঁখি হত্যা ও ধর্ষণের প্রতিবাদে সহপাঠীদের মানববন্ধন

চট্টগ্রামে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ুয়া আবিদা সুলতানা আয়নী ওরফে আঁখি মনিকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদ এবং অভিযুক্তের বিচার দাবিতে বুধবার মানববন্ধন করেছে ওর সহপাঠীরা। আয়নীর স্কুল সরাইপাড়া হাজি আব্দুল আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মানববন্ধনে যোগ দেন অভিভাবকরাও।

বুধবার দুপুরে নগরীর পাহাড়তলী থানার সাগরিকা মোড় এলাকায় এই মানববন্ধন হয়।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা অভিযুক্ত রুবেলের ‘ফাঁসি চাই, ফাঁসি চাই’ স্লোগান দিতে থাকে। শিক্ষার্থীদের অভিবাবক এবং শিক্ষকরাও দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঘটনায় জড়িত সবজি বিক্রেতা রুবেলের যথোপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান।

আঁখি মনির সহপাঠী সুমাইয়া আক্তার সানজিদার বাবা মো. সেলিম বলেন, ‘এক সময় আমাদের বাসা পাশাপাশি ছিল। কিছুদিন আগে আমরা বাসা চেঞ্জ করে একটু দূরে চলে গেছি। বাচ্চাটি আমার মেয়ের সঙ্গে হাজী আব্দুল আলী স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়তো। দুজনের বন্ধুত্বও ছিল। ঘটনাটি শুনে খুবই খারাপ লাগছে। আমরা খুনির ফাঁসি চাই।’

বর্ষা ও আয়াতের পথ ধরে আয়নী আঁখি

আবিদা সুলতানা আয়নী হত্যাকাণ্ডের আগে চট্টগ্রামে গত বছরের অক্টোবর ও নভেম্বরে নিখোঁজের পর দুটি শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

২৪ অক্টোবর চিপস কিনতে বের হয়ে নগরীর জামালখান এলাকায় নিখোঁজ হয় ৭ বছর বয়সী মার্জনা হক বর্ষা। এর তিন দিন পর একই এলাকার একটি নালা থেকে বর্ষার বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে লক্ষণ দাশ নামের এক দোকান কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এরপর ১৫ নভেম্বর নগরীর ইপিজেড থানার বন্দরটিলা নয়ারহাট বিদ্যুৎ অফিস এলাকার বাসা থেকে পার্শ্ববর্তী মসজিদে আরবি পড়তে যাওয়ার সময় নিখোঁজ হয় আলিনা ইসলাম আয়াত। পরদিন এ ঘটনায় ইপিজেড থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করেন তার বাবা সোহেল রানা।

নিখোঁজের ৯ দিন পর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িত সন্দেহে আয়াতের পরিবারের ভাড়াটিয়া আবির আলীকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে আয়াতকে অপহরণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে বলে আদালতে জবানবন্দি দেয় আবির। এরপর পিবিআইয়ের কয়েক দফা চেষ্টায় নগরীর আকমল আলী সড়কের আশপাশে বিভিন্ন জলাশয় থেকে আয়াতের খণ্ডিত পা ও মাথা উদ্ধার করা হয়। সে সময় আয়াতের ওই মৃত্যুর ঘটনাও নাড়া দেয় সবাইকে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Former A League MP acquitted in rape case for marrying plaintiff

বাদীকে বিয়ে করায় ধর্ষণ মামলায় আ.লীগের সাবেক এমপিকে অব্যাহতি

বাদীকে বিয়ে করায় ধর্ষণ মামলায় আ.লীগের সাবেক এমপিকে অব্যাহতি আদালতে সাবেক এমপি খন্দকার আজিজুল হক আরজু। ছবি: সংগৃহীত
পাবনা-২ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য খন্দকার আজিজুল হক আরজুকে ১৩ মার্চ আদালত জামিন দেয়। শর্ত ছিল তার বিরুদ্ধে করা ধর্ষণ মামলার বাদীকে বিয়ে করতে হবে। জামিনের সেই শর্ত মানার পর বুধবার তাকে ওই মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

ধর্ষণ মামলার বাদীকে ৫০ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করে সংসার শুরু করায় পাবনা-২ আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য খন্দকার আজিজুল হক আরজুকে ধর্ষণের মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক বেগম সামছুন্নাহার বুধবার এই অব্যাহতির আদেশ দেন।

এর আগে ১৩ মার্চ একই আদালত বাদীকে বিয়ের শর্তে আরজুকে জামিন দিয়েছিল। সে অনুযায়ী বাদীকে বিয়ে করেন আসামি।

গত বছরের ২২ এপ্রিল শিক্ষানবিশ এক আইনজীবী আদালতে মামলাটি করেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০০০ সালের ডিসেম্বরে বাদীর সঙ্গে প্রথম স্বামীর বিয়েবিচ্ছেদ হয়। সে সময় ওই নারী একটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিতে চাকরি করা অবস্থায় অনেকটা নিঃসঙ্গ জীবনযাপন করছিলেন। স্বজনরা তাকে ফের বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকেন।

একপর্যায়ে ২০০১ সালের শেষের দিকে চাচার মাধ্যমে আসামি আরজুর সঙ্গে পরিচয় হয় বাদীর। আরজু নিয়মিত ওই নারীর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে তাকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করে একপর্যায়ে সফল হন। আরজু তাকে জানান, তার প্রথম পক্ষের স্ত্রী মারা গেছেন। একাকীত্বের অবসান ঘটাতে নতুন সংসার শুরু করতে চান তিনি। ওই নারী আরজুর প্রেমে পড়ে তার বিয়ের প্রস্তাবে সাড়া দেন। ২০০৩ সালের ১০ ডিসেম্বর তারা বিয়ে করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ২০০৮ সালের ১৬ জানুয়ারি ওই দম্পতির একটি মেয়ে সন্তান হয়। এ সন্তান গর্ভে আসার সময় থেকে আরজু বিভিন্ন ছলচাতুরির মাধ্যমে ভ্রূণ নষ্ট করার চেষ্টা করেন। ওই নারীর দৃঢ়তায় তার সে চেষ্টা সফল হয়নি।

মামলার বিবরণে আরও বলা হয়, সন্তান হওয়ার পর আরজুর আচার-আচরণে পরিবর্তন লক্ষ‍্য করা যায়। তিনি ওই নারীর বাসায় আসা কমিয়ে দেন। এ ছাড়া ফ্ল্যাট কিনে দেয়ার কথা বলে ওই নারীর বাবার কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা এবং নারীর জমানো ৮ লাখ টাকা নিলেও ফ্ল্যাট কিনে দেননি আরজু। তিনি টাকাও ফেরত দেননি।

পরে খোঁজ নিয়ে ওই নারী জানতে পারেন, আরজুর প্রথম পক্ষের স্ত্রী জীবিত। তার ঘরে মেয়েসন্তান আছে এবং স্ত্রীর সঙ্গেই থাকেন তিনি।

মামলার বিবরণ অনুযায়ী, আসামি বাদীর কাছে ফারুক হোসেন নামে পরিচয় দিলেও প্রকৃতপক্ষে তার নাম খন্দকার আজিজুল হক আরজু। শারীরিক সম্পর্ক করার জন্যই বিয়ের নামে প্রতারণা করেছেন তিনি। আরজু কয়েকবার নিজে এবং ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে বাদীকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালান। একপর্যায়ে বাদীর সঙ্গে বিয়ে এবং তার ঔরসের সন্তানকে সরাসরি অস্বীকার করেন তিনি।

মামলার তদন্তে বাদীর মেয়ে সন্তানের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। এতে ওই সন্তান বাদীর গর্ভজাত এবং আরজু তার জন্মদাতা বলে তথ্য-প্রমাণ উঠে আসে।

আরও পড়ুন:
ধর্ষণ মামলায় জামিন নাকচ, সাবেক এমপি আরজু কারাগারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prothom Alo journalist Shamsuzzaman filed a case under the Digital Security Act

সাংবাদিক শামসুজ্জামানের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

সাংবাদিক শামসুজ্জামানের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা মো. শামসুজ্জামান
ওসি বলেন, গোলাম কিবরিয়া একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে মামলাটি করেছেন। এই মামলায় তাকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গ্রেপ্তার করেছে। মামলাটির তদন্তও সিআইডি করছে।

প্রথম আলোর সাংবাদিক মো. শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা হয়েছে।

রাজধানীর তেজগাঁও থানায় সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া নামে একজন বুধবার এ মামলা করেন।

তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গোলাম কিবরিয়া একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে মামলাটি করেছেন। এই মামলায় তাকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গ্রেপ্তার করেছে। মামলাটির তদন্তও সিআইডি করছে।’

মামলার বাদী গোলাম কিবরিয়া ঢাকা উত্তর মহানগর যুবলীগের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক।

মামলা করা প্রসঙ্গে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার কাছে মনে হইছে, এই সংবাদপত্রটা মিথ্যা এবং আমাদের দেশের বিরুদ্ধে হয়ে গেছে। এ কারণে আমরা মামলাটা করছি, আর কিছু না।’

যুবলীগের এই নেতা বলেন, ‘মামলা করার পেছনে অন্য কোনো কারণ নেই। আমি একজন সাধারণ মানুষ, সাধারণ নাগরিক হিসেবে এটা করছি। আমি দলীয় পরিচয় বা হাইলাইট হওয়ার জন্য এটা করি নাই।’

মো. শামসুজ্জামান সাভারে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কর্মরত। গুলশানের হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় নিহত এসপি রবিউল ইসলামের ভাই তিনি। এই সাংবাদিক সাভারের আমবাগান এলাকায় ভাড়া বাসায় একাই থাকেন।

শামসুজ্জামান যে বাসায় থাকেন সে বাড়ির মালিক ফেরদৌস আলম কবির বলেন, ‘রাতে সিআইডি পরিচয়ে ৫-৭ জন বাসায় এসেছিল। তাদের আচরণ পেশাদার ছিল। শামসুজ্জামানকে নিয়ে তারা ভোর ৪টার দিকে বের হয়ে যায়, এক সাথে সেহরি খাওয়ার কথা বলে। পরে তাকে নিয়ে তারা আবার আসছে।

‘কাপড়চোপর আর ফোন ও ল্যাপটপজাতীয় ডিভাইসগুলো নিয়ে গেছে। আমি তাদের জিজ্ঞেস করেছিলাম, আসলে কী ব্যাপার। তারা বলেছে, উনি একটা নিউজ করেছিল। সেটার পরিপ্রেক্ষিতে একটা মামলা হয়েছে।’

এদিকে সচিবালয়ে বুধবার এক প্রশ্নে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘আইন নিজস্ব গতিতে চলে। আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রসহ সব চলে। কেউ যদি সংক্ষুব্ধ হয়ে বিচার চায়, থানায় মামলা করে, সে অনুযায়ী পুলিশ কিন্তু ব্যবস্থা নিতেই পারে, আমি যতটুকু জানি, একটা মামলা রুজু হয়েছে। সেই জন্য সিআইডি...।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমার কাছে সব রিপোর্ট আসেনি। আমি যতটুকু অবগত হয়েছি, এই মামলাকে কেন্দ্র করে খুব সম্ভব কিছু একটা ঘটেছে, এখনও পরিষ্কার নই।’

স্বাধীনতা দিবসে প্রথম আলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদন নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘তবে প্রথম আলোর সাংবাদিক সাহেব যেটা করেছেন, এটা সঠিক ছিল না, যেটা নাকি একাত্তর টিভির মাধ্যমে আপনারাই প্রচার করেছেন।

‘আপনারাই সাংবাদিক ভাইরা সংক্ষুব্ধ হয়ে একাত্তর টিভির মাধ্যমে এই সংবাদটা যে ভিত্তিহীন, মিথ্যা, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এটা ছাপানো হয়েছে, একাত্তর টিভিতে এটা সুন্দর করে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।’

মন্তব্য

p
উপরে