× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
A child is born with four arms and four legs
google_news print-icon

চার হাত চার পা নিয়ে শিশুর জন্ম

চার-হাত-চার-পা-নিয়ে-শিশুর-জন্ম
শেরপুর সদর হাসপাতাল। ছবি: নিউজবাংলা
শেরপুর সদর হাসপাতালের আরএমও খায়রুল কবির সুমন জানান, শিশুটির শরীরের স্বাভাবিক গঠন ফিরিয়ে আনতে সার্জারি প্রয়োজন হওয়ায় শনিবার সকালে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওই শিশুকে পাঠানো হয়েছে।

শেরপুরে চার হাত ও চার পায়ের এক ছেলে শিশুর জন্ম দিয়েছেন এক নারী।

শেরপুর সদর হাসপাতালে শুক্রবারে শিশুটির জন্ম হয়। শিশু ও তার মা বর্তমানে সুস্থ আছে।

শিশুটির জন্ম দেয়া ২৬ বছর বয়সী হোসনে আরা বেগম শ্রীবরদী উপজেলার গিলাগাছা গ্রামের রফিক মিয়ার স্ত্রী। তার আরও একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে।

শেরপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) খায়রুল কবির সুমন জানান, গর্ভকালীন সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ সেবন অথবা পিল সেবন করলে এ ধরণের জন্মগত ত্রুটি হতে পারে। এ ছাড়া জিনগত কারণেও হতে পারে।

তিনি আরও জানান, শিশুটির শরীরের স্বাভাবিক গঠন ফিরিয়ে আনতে সার্জারি প্রয়োজন হওয়ায় শনিবার সকালে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওই শিশুকে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
পেট ফেটে জন্ম নেয়া শিশুটির দায়িত্ব নিতে চান দাদা
বিস্কুট খাওয়ার অভিযোগে শিশুকে বেঁধে মারধরের অভিযোগ
৫ বছরের নিচের শিশুদের জন্য বিশেষ বরাদ্দের সুপারিশ
শিশুকে নিয়ে বাবার কীটনাশক পান, শিশুর মৃত্যু
বাঁশবাগানে শিশুর গলাকাটা দেহ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
50 year old shop is being swallowed by the river

‘৫০ বছরের দোকান নদী গিলে খাইছে’

‘৫০ বছরের দোকান নদী গিলে খাইছে’ মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় বাজারে পদ্মা নদীর ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনা। ছবি: নিউজবাংলা
দীঘিরপাড় বাজারে শুক্রবার দুপুরে গিয়ে দেখা যায়, স্রোতের তীব্রতায় শাখা নদীর তীরের মাটি ভেঙে আছড়ে পড়ছে। বড় বড় ঢেউয়ের আঘাতে বাজারের তীরঘেঁষা দোকানপাটের ভিটেমাটি পড়ছে নদীর বুকে। বাজারের পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকের ২০০ মিটার এলাকাজুড়ে সবচেয়ে বেশি ভাঙনের চিত্র চোখে পড়ে।

‘বছরের পর বছর ধরে কাজ করে আইতাছি এই দোকানেই। চোখের সামনেই ৫০ বছরের সেই দোকান নদী গিলে খাইছে। এহন কই যামু এই বয়সে? কী কইর‌্যা খামু? পেটও তো বাঁচাইতে অইব।’

পদ্মার শাখা নদীর ভাঙনে নিজের দোকানঘর হারিয়ে এসব কথা বলেই আক্ষেপ করছিলেন মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় বাজারের কামার সুনীল মন্ডল (৭৫)।

তার ভাষ্য, কিশোর বয়সেই বাবার হাত ধরে এ পেশায় আসেন। বাবার মৃত্যুর পর পাঁচ দশক ধরে বাবার রেখে যাওয়া দোকানে লোহার সঙ্গে হাতুড়ি পেটার কাজ করে আসছেন।

নদীর দুই দিনের ভাঙনে দীঘিরপাড় বাজারের কামার সুনীল মন্ডলের মতোই পাঁচজন কামার দোকানঘর হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার সকালে ভাঙন শুরু হয়। শুক্রবারও ভাঙন অব্যাহত ছিল। এ দুই দিনে ভাঙনের কবলে বাজারের অন্তত ১৫টি দোকানঘর নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

প্রায় ২০০ বছরের পুরোনো ওই বাজারের পুরোটই এখন ভাঙনের কবলে পড়েছে। ভাঙনের তীব্রতায় অনেকেই দোকানঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অন্য জায়গায় সরিয়ে নিচ্ছেন।

দীঘিরপাড় বাজারে শুক্রবার দুপুরে গিয়ে দেখা যায়, স্রোতের তীব্রতায় শাখা নদীর তীরের মাটি ভেঙে আছড়ে পড়ছে। বড় বড় ঢেউয়ের আঘাতে বাজারের তীরঘেঁষা দোকানপাটের ভিটেমাটি পড়ছে নদীর বুকে। বাজারের পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকের ২০০ মিটার এলাকাজুড়ে সবচেয়ে বেশি ভাঙনের চিত্র চোখে পড়ে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত ভাঙনের মুখে বাজারের কামারপট্টির সাতটি দোকানঘর, দুটি পাটের আড়ত, দুটি সারের দোকান ও চারটি মুদি দোকানঘর নদীগর্ভে চলে গেছে। ভাঙনে নিঃস্ব হয়ে পড়েন কামার গৌতম মন্ডল, দিলীপ মন্ডল, অনীল মন্ডল, সুনীল মন্ডল, শ্যামল মন্ডল, উত্তম মন্ডল ও কালু মন্ডল। এ ছাড়া ভাঙনে অলি বেপারী ও আলমাছ বেপারীর পাটের আড়ত এবং নজির হালদারের দুটি সারের দোকান বিলীন হয়েছে। দোকান হারিয়েছেন আরও চার মুদি দোকানি।

এদিকে ভাঙন প্রতিরোধে চলমান স্থায়ী বাঁধ নির্মাণকাজ ধীরগতিতে চলার কারণেই এ ভাঙনের কবলে পড়েছেন বলে অভিযোগ বাজারের দোকানিদের।

তারা জানান, আড়াই যুগ ধরেই পদ্মা ও পদ্মার শাখা নদীতে বর্ষা মৌসুমে ভাঙন চলে আসছে। এতে ভাঙন প্রতিরোধে বাঁধ নির্মাণকাজ শুরু হয় বছর দুয়েক আগে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার খড়িয়া থেকে টংগিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় বাজার পর্যন্ত পদ্মা তীরে ৪৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯ দশমিক ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ স্থায়ী বাঁধ নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০২২ সালের মে মাসে। স্থায়ী বাঁধ নির্মাণে কয়েকটি ভাগে একাধিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ পেয়েছে।

দীঘিরপাড় বাজার ঘেষে বাঁধ নির্মাণ করছে সিগমা ইঞ্জিনিয়ার্স কোম্পানি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির নদীর তীরে জিও ব্যাগ ফেলে ও ব্লক দিয়ে বাঁধ নির্মাণের কথা রয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে কাজ শেষ হওয়ার কথা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির।

দীঘিরপাড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাইজুদ্দিন বেপারী বলেন, ‘বর্ষা এলেই এখানে ভাঙন দেখা দেয়। অথচ শুষ্ক মৌসুমে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টুকিটাকি করে বাঁধ নির্মাণ কাজ করে আসছে। আমরা এক মাসে আগেও অনুরোধ করেছি ব্লক ফেলে এখানে বাঁধ নির্মাণকাজ শেষ করার জন্য।

‘আমাদের কথা কর্ণপাতই করেনি। আজকের মধ্যে যদি জিও ব্যাগ ও ব্লক ফেলা হয়, তাতেও বাজারটি রক্ষা পাবে।’

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিগমা ইঞ্জিনিয়ার্সের ব্যবস্থাপক মোশারফ হোসেন বলেন, ‘আগামী বছরের জুন মাস পর্যন্ত আমাদের কাজের সময় বাড়ানো হয়েছে। কাজেই যথাসময়েই বাঁধ নির্মাণকাজ শেষ করা হবে। আকস্মিক ভাঙন ঠেকাতে সেখানে জিও ব্যাগ ফেলানো হবে।’

পানি উন্নয়ন বোর্ড মুন্সীগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী তাওহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আর্থিক বরাদ্ধ দিতে না পারার পাশাপাশি কিছু সমস্যার কারণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে সময় বাড়ানো হয়েছে, তবে বর্তমানে আকস্মিক ভাঙন ঠেকাতে প্রতিষ্ঠানটিকে জিও ব্যাগ ফেলার জন্য বলা হয়েছে।

‘ইতোমধ্যে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ট্রলারে রাখা আছে। তীব্র স্রোতের কারণে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ ব্যাহত হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
টাঙ্গাইলে যমুনার পানি কমতে শুরু করছে
শীতলক্ষ্যায় ভাঙনে গৃহহারা ৫ পরিবার
আতঙ্ক ছড়িয়ে যমুনায় ভাঙন শুরু
৭২ ঘণ্টায় পানি বাড়তে পারে উত্তরাঞ্চল, সিলেটের বিভিন্ন নদীর
মাছ ধরতে নদীতে বাঁধ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
ICU in district hospitals soon Health Minister

জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী নীলফামারী সদর উপজেলার সংগলশী ইউনিয়নের দীঘলডাঙ্গি গ্রামে শনিবার সকালে সঞ্জীব-মালতী কমিউনিটি ক্লিনিকের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। ছবি: নিউজবাংলা
মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জমি অধিগ্রহণ সমস্যার সমাধান হয়েছে। খুব শিগগিরই অন্যান্য সমস্যা সমাধান করে দ্রুত নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজকে পূর্ণাঙ্গ রূপে চালু করা হবে। সারা দেশের ৫০ শয্যা হাসপাতালগুলো ক্রমান্বয়ে ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হবে।’

জেলা সদর হাসপাতালগুলোতে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) ও কার্ডিওলজি ইউনিট স্থাপন শিগগিরই বাস্তবায়ন হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন‌।

নীলফামারী সদর উপজেলার সংগলশী ইউনিয়নের দীঘলডাঙ্গি গ্রামে শনিবার সকালে সঞ্জীব-মালতী কমিউনিটি ক্লিনিকের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জমি অধিগ্রহণ সমস্যার সমাধান হয়েছে। খুব শিগগিরই অন্যান্য সমস্যা সমাধান করে দ্রুত নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজকে পূর্ণাঙ্গ রূপে চালু করা হবে। সারা দেশের ৫০ শয্যা হাসপাতালগুলো ক্রমান্বয়ে ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হবে।

‘২৫০ শয্যায় উন্নীত হওয়া নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসক, জনবল পদায়ন এবং নতুন ভবনের আসবাবপত্রের চাহিদার বিপরীতে বরাদ্দ প্রদান করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কমিউনিটি ক্লিনিক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খুব পছন্দের। আমি আশা করি এই কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করবে। আমরা সিজারিয়ান সেকশন কমানোর জন্য চেষ্টা করছি।

‘আর কমিউনিটি হেলথ কেয়ার ক্লিনিকগুলোকে যদি আমরা আরও সচল করতে পারি, তাহলে অনেক রোগ কমিউনিটি ক্লিনিকই মনিটর করতে পারবে। তাই কমিউনিটি ক্লিনিকে আপনারা আসবেন এবং সবসময় যোগাযোগ রাখবেন।’

উদ্বোধন শেষে সঞ্জীব-মালতী কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করে সেখানে নিজের ব্লাড প্রেশার চেক করান মন্ত্রী। পরে ক্লিনিক প্রাঙ্গণে তিনটি গাছের চারা রোপণ করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
আরও এক সপ্তাহ স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত আসছে
চিকিৎসকের ওপর হামলা বা চিকিৎসায় অবহেলা কোনোটাই মেনে নেব না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
‘পশুপাখির মধ্যেও অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স বিস্তার লাভ করেছে’
ঈদের দিন আকস্মিক তিন হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী
ঈদের ছুটিতে দুই হাসপাতাল পরিদর্শন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Son arrested in case of hacking mother to death in Pirojpur

পিরোজপুরে মাকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ছেলে গ্রেপ্তার

পিরোজপুরে মাকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ছেলে গ্রেপ্তার নাজিরপুর উপজেলার শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের উত্তর জয়পুর থেকে শুক্রবার যতীশ বালাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
সংবাদ সম্মেলনে পিরোজপুরের এসপি জানান, বৃহস্পতিবার রাতে নাজিরপুর উপজেলার উত্তর জয়পুর এলাকায় জ্যোতিকা বালা নামের এক নারীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত শুরু করে। এরই অংশ হিসেবে নিহতের বড় ছেলে যতীশ বালাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পুলিশের কাছে মাকে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেন তিনি।

পিরোজপুরের নাজিরপুরে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় তার ছেলেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

উপজেলার শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের উত্তর জয়পুর থেকে শুক্রবার যতীশ বালাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শরীফুল ইসলাম গতকাল রাতে সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি জানান।

কোপে প্রাণ হারানো জ্যোতিকা বালা (৫০) নাজিরপুর উপজেলার শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের উত্তর জয়পুর গ্রামের নারায়ণ বালার স্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে পিরোজপুরের এসপি জানান, বৃহস্পতিবার রাতে নাজিরপুর উপজেলার উত্তর জয়পুর এলাকায় জ্যোতিকা বালা নামের এক নারীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত শুরু করে। এরই অংশ হিসেবে নিহতের বড় ছেলে যতীশ বালাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পুলিশের কাছে মাকে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেন তিনি।

যতীশের বরাত দিয়ে এসপি জানান, দীর্ঘদিন ধরে আর্থিক নানা সংকট ও পারিবারিক বিরোধের কারণে তার মায়ের ওপর ক্ষোভ ছিল। তাই পরিকল্পিতভাবে বৃহস্পতিবার রাতে ঘরে থাকা দা দিয়ে মাকে কুপিয়ে হত্যা করেন তিনি।

এসপি আরও জানান, কোপে জ্যোতি নিহতের ঘটনায় তার স্বামী নারায়ণ বালা বাদী হয়ে নাজিরপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
বাড়ির সামনে পড়ে ছিল বৃদ্ধের গলা কাটা মরদেহ
সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
ভৈরবে ইজিবাইক চালক হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড
আত্মহত্যার চিরকুট লিখে আত্মগোপনে
‘কাঠের চেলার আঘাতে’ বাবা নিহত, ছেলে আটক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Father arrested for life sentence for daughters murder

মেয়ে হত্যায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত বাবা গ্রেপ্তার

মেয়ে হত্যায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত বাবা গ্রেপ্তার কমলগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল শ্রীমঙ্গল থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে শুক্রবার গভীর রাতে আসামি ছমিরকে গ্রেপ্তার করে। ছবি: নিউজবাংলা
ছমিরকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি জানিয়ে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল আলম বলেন, ‘মৌলভীবাজার জেলার পুলিশ সুপার মো. মনজুর রহমান বিপিএম, পিপিএম (বার)-এর নির্দেশনায় চলমান বিশেষ অভিযানে শুক্রবার রাতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছমির মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে নিজ মেয়েকে হত্যার ঘটনায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

কমলগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল শ্রীমঙ্গল থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে শুক্রবার গভীর রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তার ছমির মিয়ার বাড়ি কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামে।

রামচন্দ্রপুর এলাকায় ২০১১ সালে স্ত্রীর সঙ্গে রাগ করে নিজের তিন বছরের মেয়ে ফাহিমাকে বাড়ির পাশে ধলাই নদীতে ফেলে হত্যা করেন ছমির। সে সময় শিশুর মা রুবি বেগম বাদী হয়ে তার স্বামীর নামে কমলগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন।

শিশু হত্যার এ ঘটনায় দীর্ঘ এক যুগ পর আদালত ছমির মিয়াকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়।

ছমিরকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি জানিয়ে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল আলম বলেন, ‘মৌলভীবাজার জেলার পুলিশ সুপার মো. মনজুর রহমান বিপিএম, পিপিএম (বার)-এর নির্দেশনায় চলমান বিশেষ অভিযানে শুক্রবার রাতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছমির মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
বাড়ির সামনে পড়ে ছিল বৃদ্ধের গলা কাটা মরদেহ
সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
ভৈরবে ইজিবাইক চালক হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড
আত্মহত্যার চিরকুট লিখে আত্মগোপনে
‘কাঠের চেলার আঘাতে’ বাবা নিহত, ছেলে আটক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The water of Yamuna is increasing again and new areas are drowning

ফের বাড়ছে যমুনার পানি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা

ফের বাড়ছে যমুনার পানি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা পানি বৃদ্ধি পেয়ে ফুলে-ফেঁপে উঠছে যমুনা নদী। ছবি: নিউজবাংলা
যমুনা নদীর সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ হার্ড পয়েন্টে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ১২ ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৪৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর কাজিপুরের মেঘাই ঘাট পয়েন্টে ৫ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে যমুনা।

মৌসুমী বায়ুর প্রভাব ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে আবারও সিরাজগঞ্জে যমুনাসহ অভ্যন্তর্রীণ নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা।

যমুনা নদীর সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ হার্ড পয়েন্টে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ১২ ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৪৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রভাবিত হচ্ছে।

অপরদিকে কাজিপুরের মেঘাই ঘাট পয়েন্টে ৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে যমুনা।

ফের বাড়ছে যমুনার পানি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা

দুদিন পানি কমার পর আবারও যমুনায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বাড়ছে। জেলার নদীপারের চরাঞ্চল ও নিচু এলাকার মানুষের পাশাপাশি গো-খাদ্য নিয়ে সংকটে পড়েছে মানুষ।

বন্যায় গবাদিপশুর চারণভূমি তলিয়ে যাওয়ায় খাদ্য সংকটে পড়েছে জেলার প্রায় ৫০ হাজার গবাদি পশু। বন্যাদুর্গতরা নিজেদের চেয়ে গবাদি পশুর খাদ্য সংকটে বেশি চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।

ফের বাড়ছে যমুনার পানি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা

পানি উন্নয়ন বোর্ড, সিরাজগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘জেলার দুটি পয়েন্টে আবারও পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর ফলে দুটি পয়েন্টে যমুনার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে এ মৌসুমে বড় ধরনের বন্যার আশঙ্কা নেই।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বাবুল কুমার সূত্রধর বলেন, ‘ইতোমধ্যে বানের পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে জেলার চার হাজার ৬৩০ হেক্টর ফসলি জমি। এসব জমির পাট, তিল, কলা ও মরিচের ক্ষেত তলিয়ে গেছে। এখনও ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা যায়নি।’

ফের বাড়ছে যমুনার পানি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘জেলার পাঁচটি উপজেলার ৩৪টি ইউনিয়নের ২৩ হাজার ৩৬২টি পরিবারের এক লাখ তিন হাজার ৮৩৬ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ইতোমধ্যে ১৩৩ টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। আরও ৪৪০ টন চাল, নগদ ১০ লাখ টাকা ও ৫০০ প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
যমুনার ভাঙন থামছে না, ৮ শতাধিক ঘরবাড়ি নদীগর্ভে
যমুনায় একদিনে পানি বেড়েছে ৩৩ সেন্টিমিটার
বৃষ্টির পানিতে ডুবে রাজধানীতে শিশু নিহত
বন্যায় ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় যমুনা পাড়ের কৃষকরা
টাঙ্গাইলে যমুনার পানি কমতে শুরু করছে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Children of BNP Jamaat have entered the field in the name of quota reform
সিলেটে যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নিখিল

কোটা সংস্কারের নামে বিএনপি-জামায়াতের সন্তানেরা মাঠে নেমেছে

কোটা সংস্কারের নামে বিএনপি-জামায়াতের সন্তানেরা মাঠে নেমেছে শুক্রবার সিলেটে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মাইনুল হোসেন খান নিখিল। ছবি: নিউজবাংলা
যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, ‘নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে জামায়াত-বিএনপি। কোটা সংস্কারের নামে নিজেদের সন্তান মাঠে নামিয়েছে তারা। এতদিন দলের ব্যানারে আন্দোলন করে সফল হতে পারেনি। এবার তারা কোটা সংস্কারের নাম নিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা করছে।’

আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল এমপি বলেছেন, ‘নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে জামায়াত-বিএনপি। কোটা সংস্কারের নামে তাদের সন্তান মাঠে নামিয়েছে তারা। এতদিন দলের ব্যানারে আন্দোলন করে সফল হতে পারেনি। এবার তারা কোটা সংস্কারের নাম নিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা করছে।’

শুক্রবার দুপুরে সিলেটে বন্যাকবলিতদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা বিতরণকালে তিনি এসব বলেন।

নিখিল বলেন, ‘যুবলীগ-ছাত্রলীগসহ আওয়ামী পরিবারের নেতাকর্মীরা যখন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে তখন দেশবিরোধী চক্র জামায়াত-বিএনপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে ৩১ কোটি টাকার বিদেশি লবিস্ট নিয়োগ করে। এতে ব্যর্থ হয়ে এখন তারা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।’

তিনি বলেন, ‘যুবলীগ এলিট শ্রেণির সংগঠন নয়। এটি শ্রমিক ও মেহনতি মেধাবী যুবকদের সাংগঠনিক ক্ষমতাসম্পন্ন একটি রাজনৈতিক সংগঠন। শিক্ষিত ও সাধারণ মানুষকে নিয়ে গঠিত যুবসংগঠন। এখানে কোনো অনুপ্রবেশকারী, দুষ্কৃতকারী, দুর্নীতি ও ক্যাসিনোবাজদের ঠাঁই নেই।’

সিলেট মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে শুক্রবার সিলেট সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে, জেলা যুবলীগের উদ্যোগে বিকেল ৩টায় দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজারে ও বিকেল ৪টায় ওসমানীনগরে বন্যাদুর্গত ক্ষতিগ্রস্ত গরিব-দুস্থদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা বিতরণ করেন মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্যে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘যুবলীগ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভ্যানগার্ড হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। সিলেট মহানগর যুবলীগ একটি সুশৃঙ্খল যুব সংগঠন। আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বে যুবলীগ আজ মানবিক যুবলীগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’

সিলেট জেলা যুবলীগ সভাপতি ও ওসমানীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামীম আহমদ ভিপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মো. শামীম আহমদ।

আরও উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম জোয়ার্দার সৈকত, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ড. রেজাউল কবির, যুবলীগ সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মুকিত চৌধুরী, মীর মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য গিয়াস উদ্দিন আজম, ইঞ্জিনিয়ার মো. মুক্তার হোসেন চৌধুরী কামাল, ড. বিমান বড়ুয়া, নুরুল ইসলাম নুর মিয়া, সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি, সাধারণ সম্পাদক মুসফিক জায়গীরদার, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা চেয়ারম্যান বদরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
কাফনের কাপড়ের সঙ্গে হত্যার হুমকির চিরকুট, অভিযোগ যুবলীগ নেতার
কুমিল্লায় যুবলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যা, ধারণা পুলিশের
স্বাধীন তদন্ত কমিশনের মাধ্যমে জিয়ার ‘মুখোশ উন্মোচন’ করতে হবে: শেখ পরশ
ছাত্রদল নেতা হত্যায় কুমিল্লায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন
যুবলীগ নেতাকে মারধরের মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান জেলে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Anti independence spirit has filled the quota movement Law Minister

কোটা আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধী প্রেতাত্মা ভর করেছে: আইনমন্ত্রী

কোটা আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধী প্রেতাত্মা ভর করেছে: আইনমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া রেলস্টেশনে শুক্রবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: সংগৃহীত
আনিসুল হক বলেন, ‘যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল এবং যারা ষড়যন্ত্র করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পরিবারের ১৭ জন সদস্যসহ হত্যা করেছিল, সেই প্রেতাত্মারা আজকে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে কিছুটা হলেও ষড়যন্ত্রের মধ্যে লিপ্ত আছে- এটি অস্বীকার করতে পারব না।’

সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধী প্রেতাত্মা ভর করেছে বলে মন্তব্য করেছেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া রেল স্টেশনে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল এবং যারা ষড়যন্ত্র করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পরিবারের ১৭ জন সদস্যসহ হত্যা করেছিল, সেই প্রেতাত্মারা আজকে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে কিছুটা হলেও ষড়যন্ত্রের মধ্যে লিপ্ত আছে, এটি অস্বীকার করতে পারব না।’

তিনি বলেন, ‘কোটা আন্দোলন নিয়ে সর্বোচ্চ আদালতের আদেশ মেনে শিক্ষার্থীরা ঘরে ফিরে যাবেন বলে আশা করি। জানমাল রক্ষা করা এবং জনগণের সুবিধা-অসুবিধা দেখা সরকারের দায়িত্ব। এসব যদি কেউ বাধাগ্রস্ত করে, সরকারকে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নিতে হবে।

‘আমার বিশ্বাস নতুন প্রজন্মের ছাত্রছাত্রী যারা কোটার ব্যাপারে তাদের বক্তব্য পেশ করেছে এবং এর পরিপ্রেক্ষিতে সর্বোচ্চ আদালত যে আদেশ দিয়েছে, সেই আদেশ মেনে তারা ঘরে ফিরে যাবেন। আমি বিশ্বাস করি যে জনগণের অসুবিধা হোক, জনগণ দুঃখ-কষ্ট ভোগ করুক- সেগুলো পরিহারে আন্দোলনকারীরা পদক্ষেপ নেবে। আমার মনে হয় তারা ঘরে ফিরে যাবে।’

আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম সারওয়ার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন, আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল, আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী চৌধুরীসহ অনেকে এ সময় আইনমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বেনজীরের স্ত্রীর ঘেরের মাছ চুরির মামলায় তিনজন গ্রেপ্তার
মোমবাতি জ্বালিয়ে মহাসড়ক অবরোধ কুবি শিক্ষার্থীদের, যানজট
সারা দেশে শুক্রবার বিক্ষোভের ঘোষণা দিয়ে শাহবাগ ছাড়লেন শিক্ষার্থীরা
চট্টগ্রাম ও কুমিল্লায় হামলার প্রতিবাদে রাজশাহীতে রেললাইন অবরোধ
জবি গেটের তালা ভেঙে মিছিল নিয়ে শাহবাগে শিক্ষার্থীরা

মন্তব্য

p
উপরে