× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
In Kurigram there is a complaint that public representatives are not supported during severe winter
hear-news
player
google_news print-icon

কুড়িগ্রামে তীব্র শীতে জনপ্রতিনিধিদের পাশে না পাওয়ার অভিযোগ

কুড়িগ্রামে-তীব্র-শীতে-জনপ্রতিনিধিদের-পাশে-না-পাওয়ার-অভিযোগ
কুড়িগ্রামে তীব্র শীতে কাজে যাচ্ছেন এক ব্যক্তি। ছবি: নিউজবাংলা
নাগেশ্বরীর কেদার ইউপি চেয়ারম্যান আ.খ.ম. ওয়াজিদুল কবির রাশেদ শীতার্ত মানুষের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘শীতার্ত মানুষের সংখ্যা অনুযায়ী সরকারি বরাদ্দ কম হওয়ায় অভিযোগের তীর জনপ্রতিনিধিদের দিকে বেশি। আমরা জনপ্রতিনিধিরাও শীতবস্ত্র কিনে সরকারি বরাদ্দের সঙ্গে বিতরণ করছি। কিন্তু গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার শীত বেশি হওয়ায় মানুষের চাহিদাটাও বেশি।’

উত্তরের কনকনে শীতে কাঁপছে কুড়িগ্রাম। দুর্বিষহ জীবন কাটলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের পাশে না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন শীতার্ত দরিদ্ররা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে বরাদ্দ স্বল্প এবং দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিকে দায়ী করছেন জনপ্রতিনিধিরা।

সদর উপজেলার পাঁচগাছি ইউনিয়নের বাসিন্দা মকবুল মিয়া জানান, এই যে শীত পড়ছে আজ পর্যন্ত কোনো মেম্বার, চেয়ারম্যান, এমপি শীতবস্ত্র বিতরণ করেননি। যা দিয়েছে সরকারিভাবেই। মাঝেমধ্যে কিছু সংগঠন বিভিন্ন জায়গায় শীতবস্ত্র দিলেও জনপ্রতিনিধিরা তাদের নাম ভাংগায়।

সদরের যাত্রাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা সেলিম বলেন, ‘চরের মানুষের দুর্ভোগ বেশি। দিনে-রাতে সমানভাবে বাতাস বয়ে যাচ্ছে। হিম বাতাসের কারণে কামলা দেয়া যায় না। আয়-রোজগারও কমে গেছে। চাল, ডাল, নুন, তরকারি কিনতে টাকা শেষ। শীতের কাপড় চোপড় কিনবো কি দিয়ে। পুরান যা আছে তা দিয়েই হামরা (আমরা) শীত কাটাচ্ছি।’

নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা ইউনিয়নের জিল্লুর রহমান জানান, ভূরুঙ্গামারী থেকে হিমালয় কাছাকাছি হওয়ায় এই অঞ্চলে শীতের প্রভাব অনেক বেশি থাকে। প্রচণ্ড ঠান্ডার কারণে ঘর থেকে বের হওয়া মুশকিল।

ভূরুঙ্গামারী উপজেলার চর ভূরুঙ্গামারী ইউনিয়নের বাসিন্দা করিমন বেগম বলেন, ‘সকাল থেকে সূর্যের কোনো দেখা নাই। কনকনে শীতে শিশু আর বৃদ্ধদের খুব কষ্ট হইছে। মেম্বার, চেয়ারম্যানের তো দেখা নাই। আর এমপিকে তো মুই (আমি) চিনি না। খালি ভোট আসলে ওদের দেখা পাওয়া যায়। এ ছাড়া আর গরিবের কে খোঁজ থোয় (নেয়) ।’

নাগেশ্বরীর কেদার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আ.খ.ম. ওয়াজিদুল কবির রাশেদ শীতার্ত মানুষের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘শীতার্ত মানুষের সংখ্যা অনুযায়ী সরকারি বরাদ্দ কম হওয়ায় অভিযোগের তীর জনপ্রতিনিধিদের দিকে বেশি। আমরা জনপ্রতিনিধিরাও শীতবস্ত্র কিনে সরকারি বরাদ্দের সঙ্গে বিতরণ করছি। কিন্তু গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার শীত বেশি হওয়ায় মানুষের চাহিদাটাও বেশি।’

রাজারহাট চাকিরপশার ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, সরকারি বরাদ্দকৃত শীতবস্ত্রের পাশাপাশি ব্যক্তিগতভাবেও শীতবস্ত্র দেয়া হচ্ছে। তবে জিনিসপত্রের ঊর্ধ্বগতি কারণে মানুষের শীতবস্ত্র নেবার সংখ্যা বেড়েছে। শীত মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বিত্তবান ও এনজিওদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

জেলা প্রশাসক সাইদুল আরীফ জানান, সরকারিভাবে বিতরণকৃত শীতবস্ত্রের হিসেব থাকলেও বেসরকারি বা ব্যক্তিগত পর্যায়ে শীতবস্ত্র বিতরণের হিসেব না থাকায় সঠিক তথ্য ওঠে আসছে না। আগামীতে শীতবস্ত্র বিতরণে সমন্বয় করার প্রতি জোর দেবেন তিনি।

তিনি আরও জানান, কুড়িগ্রামে শীতার্ত মানুষের জন্য এক লাখ কম্বলের চাহিদা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৫১ হাজার কম্বল যা বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও শীতবস্ত্র ক্রয়ের জন্য নয় উপজেলায় দুই লাখ করে ১৮লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ডাক্তারের ‘প্রতিহিংসায়’ চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুর অভিযোগ
ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে কৃষককে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ
ইউপি চেয়ারম্যানের নামে ৯ মেম্বারের লিখিত অভিযোগ
থানায় মারধরের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ ছাত্র-কোচিং সেন্টার পরিচালকের
পিটিয়ে ছাত্রের দাঁত ফেলে দেয়ার অভিযোগ স্কুলশিক্ষকের বিরুদ্ধে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Case against 1200 accused in double murder

জোড়া খুনে অভিযুক্তদের বাড়িঘরে হামলা, ১২০০ জনের নামে মামলা

জোড়া খুনে অভিযুক্তদের বাড়িঘরে হামলা, ১২০০ জনের নামে মামলা দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার চুনিয়াপাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে জোড়া খুনের ঘটনায় অভিযুক্তদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হাসান কবির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বাড়িঘরে হামলা, অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় স্থানীয় এক গ্রাম পুলিশ অজ্ঞাতনামা এক হাজার ২০০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। আসামিদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। আর হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার চুনিয়াপাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে জোড়া খুনের ঘটনায় অভিযুক্তদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগে মামলা হয়েছে।

অজ্ঞাতনামা এক হাজার ২০০ জনকে আসামি করে শুক্রবার রাতে মামলাটি করেন উপজেলার ঘোড়াঘাট ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ সুনীল চন্দ্র দাস।

ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হাসান কবির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বাড়িঘরে হামলা, অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় স্থানীয় এক গ্রাম পুলিশ অজ্ঞাতনামা এক হাজার ২০০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। আসামিদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। আর হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

খোদাদাতপুর গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধে বুধবার সকালে প্রতিপক্ষের হামলায় মনোয়ার হোসেন (২৪) ও রাকিব হোসেন (২৫) নামের দুজন নিহত হন। পরদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দুপুরে দুজনের জানাজা চলছিল। এ সময় নিহত ব্যক্তিদের পক্ষের লোকজন চুনিয়াপাড়ায় বাড়ি বাড়ি ঢুকে অগ্নিসংযোগ করেন বলে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির লোকজন অভিযোগ করেছেন। অগ্নিসংযোগকালে লোকজন লাঠিসোঁটা, দা ও কোদাল নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িতে হামলা ও লুটপাট চালান। এ সময় প্রাণ বাঁচাতে নারী, শিশু ও পুরুষেরা বাড়িঘর ছেড়ে দৌড়ে পালান।

মামলার এজাহারে বাদী সুনীল চন্দ্র দাস উল্লেখ করেছেন, নিহত দুজনের জানাজা ও দাফনকাজে উপস্থিত খোদাদাতপুর ও পাশের গ্রামের লোকজন লাঠিসোঁটা, দা ও কোদাল নিয়ে চুনিয়াপাড়ায় প্রতিপক্ষের বাড়িসহ আশপাশের বাড়িঘরে হামলা চালান। এ সময় সেখানে উপস্থিত থানা-পুলিশসহ গ্রাম পুলিশের সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রাণপণ চেষ্টা করেন। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টাকালে হামলাকারীরা চুনিয়াপাড়ার আবদুস সালাম, তোতা মিয়া, নুরুল ইসলাম, হাফিজুর রহমানের বাড়িসহ আশপাশের কিছু টিনের বসতবাড়ি এবং বাড়ির সামনে খড়ের গাদায় আগুন লাগিয়ে দেন। এ ছাড়া নজরুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম, মোহাম্মদ আলী, আবদুল ওহাব, মোগেন ওরফে মকবুল হোসেনের বাড়িসহ ২০ থেকে ২৫টি বাড়ি ভাঙচুর করেন।

এজাহারে আরও বলা হয়েছে, বাড়িঘরে আগুন লাগানো, ভাঙচুর, প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুট এবং গরু-ছাগল চুরির ঘটনায় প্রায় সাড়ে ১৬ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে। পরে পার্শ্ববর্তী থানাগুলো থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আরও পড়ুন:
ভোটের ফল নিয়ে সংঘর্ষ, ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়ি ভাঙচুর
মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত শিশুর বস্তাবন্দি মরদেহ
৪৫ ঘণ্টা পর বিদ্যুৎ পেল দিনাজপুর পৌরসভা
বিআইডাব্লিউটিএ নষ্ট করল কৃষকের আলুর ক্ষেত
বিচারক বদলি, পেছাল ঘোড়াঘাটের ইউএনও হত্যাচেষ্টা মামলার রায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Paubo informed about the time of completion of Howre dam

হাওরে বাঁধের কাজ শেষের সময় জানাল পাউবো

হাওরে বাঁধের কাজ শেষের সময় জানাল পাউবো তাহিরপুর উপজেলার মাটিয়ান হাওরে শনিবার বিভিন্ন বাঁধের নির্মাণকাজ পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন পাউবোর অতিরিক্ত মহাপরিচালক আমিনুল হক ভূঁইয়া। ছবি: নিউজবাংলা

হাওরাঞ্চলের সব বাঁধের কাজ শেষ করার সময় বেঁধে দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক আমিনুল হক ভূঁইয়া জানিয়েছেন, এ কাজ শেষ করতে হবে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে।

তাহিরপুর উপজেলার মাটিয়ান হাওরে শনিবার বিভিন্ন বাঁধের নির্মাণকাজ পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

ওই সময় গুণগত মান বজায় রাখার পাশাপাশি টেকসই বাঁধ নির্মাণে গোড়া থেকে মাটি উত্তোলনে বিরত থাকতে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিগুলোকে (পিআইসি) নির্দেশনা দেন পাউবোর শীর্ষস্থানীয় এ কর্মকর্তা।

বাঁধ নির্মাণকাজে কোনো ধরনের অনিয়ম বরদাশত করা হবে না বলেও জানান আমিনুল।

বাঁধ পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পাউবোর প্রধান প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী, সুনামগঞ্জ পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার, তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুপ্রভাত চাকমা।

এর আগে তাহিরপুর উপজেলার হলরুমে কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) নীতিমালার আলোকে সুষ্ঠুভাবে হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের জন্য তাহিরপুর উপজেলাধীন বাঁধের পিআইসি সদস্যদের নিয়ে বিশেষ কর্মশালা ও মতবিনিময় সভা করেন পাউবো কর্মকর্তারা।

তাহিরপুর উপজেলায় ১১৩ প্রকল্পের মধ্যে ৮৪ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণে ২০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।

সুনামগঞ্জের ১২ উপজেলার বিভিন্ন হাওরের বোরো ফসলের সুরক্ষায় বাঁধ নির্মাণের জন্য ১ হাজার ১০২ প্রকল্পে ২০৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন:
থানায় বাস, প্রতিবাদে পরিবহন ধর্মঘট সুনামগঞ্জে
খাঁখাঁ হাওর অফিসে কর্মী মাত্র ২
হাওরে এখন চাষের মাছ
হাওরের সৌন্দর্য কেড়ে নিচ্ছে প্রাণও
হাওরে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two dead bodies were recovered from separate places in Natore

নাটোরে আলাদা স্থান থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার

নাটোরে আলাদা স্থান থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার প্রতীকী ছবি
লালপুর থানার ওসি মনোয়ারুজ্জামান জানান, প্রাথমিক সুরতহালে কালামের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

নাটোরের লালপুর ও গুরুদাসপুর থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

লালপুরের বড়বাদকয়া গ্রাম এবং গুরুদাসপুর উপজেলার কাছিকাটা বিশ্বরোড এলাকা থেকে শনিবার সকালে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত ৫০ বছর বয়সী আবুল কালাম বড়বাদকয়া গ্রামের বাসিন্দা। আর ৪৫ বছর বয়সী আবু সাঈদ বগুড়ার কাহালু উপজেলার আলোকছত্র গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ারুজ্জামান জানান, শনিবার সকাল ৬টার দিকে বড়বাদকয়া গ্রাম থেকে তিন কিলোমিটার দূরের একটি পুকুরপাড়ে আবুল কালামের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। পরে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক সুরতহালে কালামের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি জানান, শুক্রবার রাতে কালামের সঙ্গে তার স্ত্রী আর্জিনার ঝগড়া হয়। এতে আর্জিনার আগের পক্ষের ছেলে আল আমিনও যোগ দেয়। এ ঘটনায় কালামের ভাই শহিদুজ্জামান একটি হত্যা মামলা করেছে। এরই মধ্যে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আল আমিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মতিন জানান, শনিবার সকাল ৯টার দিকে নাটোরের গুরুদাসপুরের বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের কাছিকাটা মোড় এলাকা থেকে আবু সাঈদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। আবু সাঈদ ব্যক্তি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল।

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

আরও পড়ুন:
বড় ভাইয়ের কোদালের আঘাতে প্রাণ গেল ছোট ভাইয়ের
স্ত্রীর প্রতি ‘অভিমানে’ আত্মহত্যা
গুলিস্তানে মাজারের সামনে থেকে মরদেহ উদ্ধার
বাসায় ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার, হাসপাতালে মৃত্যু
হাতকড়া পরা অজ্ঞাত মরদেহের সন্ধান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A sharp knife was recovered after killing the old man by cutting his throat

বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যা, ধারালো ছুরি উদ্ধার

বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যা, ধারালো ছুরি উদ্ধার প্রতীকী ছবি
সাদুল্লাপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. এনায়েত কবির জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ হত্যার সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত এবং গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। 

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে এক ব্যক্তিকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

সাদুল্লাপুর সরকারি ডিগ্রী কলেজ সংলগ্ন ঘাঘট নদীর বাঁধের পাশের জমি থেকে শনিবার সকাল ১০টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত ৬০ বছর বয়সী সুরত আলী প্রামাণিক সাদুল্লাপুর উপজেলার কামারপড়া ইউনিয়নের পুরান লক্ষ্মীপুর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি কৃষক ছিলেন।

স্বজনদের বরাত দিয়ে সাদুল্লাপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. এনায়েত কবির জানান, শুক্রবার বিকেলে বাড়ি থেকে বাজার করতে সাদুল্লাপুর বন্দরে গিয়ে আর বাড়ি ফেরেনি সুরত আলী। এরপর রাতে খোঁজাখুজি করেও তার সন্ধান পায়নি তারা। শনিবার সকালে রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে তাকে শনাক্ত করে স্বজনরা। পরে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ ও একটি ধারালো ছুরি উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, সুরত আলীর গলা ও পেটে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, রাতের আঁধারে দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে মরদেহ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

ওসি জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ হত্যার সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত এবং গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:
সীমান্তে হত্যা চোরাচালান বন্ধে কাঁটাতার মিছিল
স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার বড় কারণ অভিমান: প্রতিবেদন
নায়িকা শিমু হত্যা মামলায় মেয়ের সাক্ষ্য
‘গাড়ি চালকের সাহায্যে বাসায় ঢুকে সাংবাদিক আফতাবকে হত্যা’
বরিশালে বিষ মিশিয়ে দুই নারীকে হত‌্যা: পুলিশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Snowy owls in the hands of Bangladeshi traffickers

বরফাঞ্চলের পেঁচা বাংলাদেশি পাচারকারীদের হাতে

বরফাঞ্চলের পেঁচা বাংলাদেশি পাচারকারীদের হাতে বরফাঞ্চলের পেঁচা বাংলাদেশি পাচারকারীদের হাতে। ছবি: নিউজবাংলা
ডুলাহাজরা সাফারি পার্কের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. মাহমুদ হোসেন বলেন,‘পাচারকারীরা বিরল এই পেঁচাটি বান্দরবানের আলীকদম এলাকা থেকে ধরেছে।’

চট্টগ্রামের লোহাগড়ায় একটি বিরল প্রজাতির তুষার পেঁচা ও দুটি লজ্জাবতী বানর পাচারকালে চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার বার আউলিয়া কলেজ এলাকা থেকে শুক্রবার দুপুরে তাদের আটক করা হয়।

আটক চারজন হলেন বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার দানু সদ্দার পাড়ার ২৭ বছর বয়সী মোবার হোসেন, একই উপজেলার দক্ষিণ পূর্ব পাড়ার ২৮ বছর বয়সী মো. সাদ্দাম হোসেন, উত্তর পালং বাড়ির ২৪ বছর বয়সী মহিউদ্দিন ও খুলনার সোনাডাঙ্গা উপজেলা বইরা গ্রামের ৪২ বছর বয়সী আজাহার সিকদার।

লোহাগাড়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শাহজাহান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিরল প্রজাতির তুষার পেঁচা ও লজ্জাবতী বানরসহ তাদের আটক করে পুলিশ। পরবর্তীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা তাদের প্রত্যেককে ৬ মাসের কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়।

তিনি আরও জানান, বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন, ২০১২ এর ৩৪(খ) ধারা অনুযায়ী এভাবে বন্যপ্রাণী ক্রয়-বিক্রয় এবং আমদানি-রপ্তানি করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

ডুলাহাজরা সাফারি পার্কের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. মাহমুদ হোসেন বলেন, ‘প্রাণীগুলো আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আমাদের এই পরিবেশে তুষার পেঁচা পাওয়া যায় না, অতিথি পাখি হিসেবে এই এলাকায় এসে থাকতে পারে। তবে এখনো যেহেতু বেঁচে আছে, তাই আমরা ধারণা করছি হয়তো সার্ভাইব করবে এটি।’

তিনি আরও বলেন, ‘পাচারকারীরা বিরল এই পেঁচাটি বান্দরবানের আলীকদম এলাকা থেকে ধরেছে।’

তুষার পেঁচা সাধারণত বরফাচ্ছন্ন এলাকায় বসবাস করে। উত্তর মেরু, উত্তর আমেরিকা, উত্তর এশিয়া আর ইউরোপের বরফ ঢাকা এলাকায় এদের দেখা যায়। বাংলাদেশে এই পেঁচার দেখা না মিললেও অতিথি পাখি হিসেবে এটি বরফাচ্ছন্ন কোনো এলাকা থেকে এদেশে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
উখিয়া থেকে অস্ত্র-গুলি, ইয়াবাসহ যুবক আটক
হেরোইনসহ ছাত্রলীগ নেতা আটক
চাঁপাইনবাবগঞ্জে অস্ত্রসহ চারজন আটক
সরকার উৎখাতের পরিকল্পনার অভিযোগে আটক ২০
গফরগাঁওয়ে যুবক খুন, আটক ৩

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Teaching through English in Govt Primary in Comilla

কুমিল্লায় সরকারি প্রাথমিকে ইংরেজি মাধ্যমে পাঠদান  

কুমিল্লায় সরকারি প্রাথমিকে ইংরেজি মাধ্যমে পাঠদান   কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমে ক্লাস শুরু হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা
কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘আগামীর চ্যালেঞ্জিং সময়গুলোর জন্য আমরা এখন থেকেই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যম শুরু করেছি।’

কুমিল্লায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমে ক্লাস শুরু হয়েছে। যুগান্তকারী এমন পদক্ষেপে আশা দেখছেন অভিভাবকরা।

কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বুধবার থেকে আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে ইংরেজি মাধ্যমে ক্লাস শুরু হয়।

কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি মাধ্যমের উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভাশিষ ঘোষ, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইসমত আরাসহ অন্যান্য শিক্ষক ও অভিভাবকরা।

চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঘুরে দেখা যায়, ছিমছাম সাজানো-গোছানো স্কুল প্রাঙ্গণ। স্কুলে প্রবেশ করতেই চোখ আটকে যায় বাহারি জাতের ফুলের গাছ লাগানো বাগানটায়। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দেখা যায় নির্দিষ্ট পোশাকে ক্লাসে পাঠগ্রহণে।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক ইসমত আরা বলেন, ‘চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১৬ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ইংরেজি মাধ্যমের যাত্রা শুরু হল। আট জন শিক্ষক রয়েছেন স্কুলে। তার মধ্যে একজন শিক্ষক রয়েছেন যিনি ইংরেজি মাধ্যম পরিচালনা করছেন। বছর দুয়েকের মধ্যে পুরো স্কুলটি বাংলার পাশাপাশি ইংরেজি মাধ্যমে পাঠদান শুরু হবে। আমরা সে লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।’

সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভাশিস ঘোষ বলেন, ‘২০১৯ সালের মার্চের দিকে কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান সদর দক্ষিণ উপজেলায় বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসেছিলেন। সে সময় জেলা প্রশাসক মহোদয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি ভার্সন চালুর কথা জানান। স্যারের স্বপ্ন ছিল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বাংলার পাশাপাশি ইংরেজি মাধ্যমেও যেন পাঠদান হয়।

‘সেই থেকে আমরা চেষ্টা করেছি। এ বছর দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে ভর্তি শুরু হল। সারা দেশের খবরটা জানি না। তবে আমরা এটা জানি কুমিল্লায় ইংরেজি মাধ্যমের সরকারি স্কুল হল চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।’

কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য স্মার্ট নাগরিক প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে ভাষা হবে অগ্রগণ্য। বাংলা ভাষার পাশাপাশি যে ভালো ইংরেজি জানবে সে পুরো পৃথিবী বিচরণ করতে পারবে।

‘আগামীর চ্যালেঞ্জিং সময়গুলোর জন্য আমরা এখন থেকেই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যম শুরু করেছি।’

বুধবার কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় যাত্রা শুরু হলো। বৃহস্পতিবার এলজিআরডি মন্ত্রী মহোদয় উনার নির্বাচনী এলাকার লাকসামে দুটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যম উদ্বোধন করেন।

আরও পড়ুন:
ইংরেজি মাধ্যম স্কুল কমিটি নিয়ে অভিভাবকদের দ্বন্দ্ব
শিক্ষায় ইংরেজি মাধ্যমে বাড়ছে আগ্রহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
UP member in jail in case of attempted rape of housewife

গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ইউপি সদস‌্য কারাগারে 

গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ইউপি সদস‌্য কারাগারে  গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ইউপি সদস‌্য মাসুদ খান কারাগারে। ছবি: নিউজবাংলা 
মির্জাগঞ্জ থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন,‘ভুক্তভোগী গৃহবধূ থানায় মামলা করেন। পরে ইউপি সদস্য মাসুদকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

পটুয়াখালীর মির্জাগ‌ঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস‌্যকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

মির্জাগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শুক্রবার দুপুরে ইউপি সদস্য মাসুদ খানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন ।

এর আগে শুক্রবার সকালে ভুক্তভোগী গৃহবধূ মাসুদের নামে মামলা করেন। মামলায় জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন মির্জাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন।

মাসুদ খান মির্জাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সুন্দ্র কালিকাপুর গ্রামের বাসিন্দা। সে একই ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য।

মামলার অভিযোগের বরাদ দিয়ে মির্জাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘‘বিভিন্ন সময় ওই গৃহবধূকে যৌনপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন মাসুদ। বৃহস্পতিবার রাতে গৃহবধূর ঘরের সামনে গিয়ে ইউপি সদস্য মাসুদ বলেন, ‘আপনার মামাতো বোনের চাকরির পুলিশ ক্লিয়ারেন্স কাগজ নিয়ে আসছি।’ পরে ঘরের দরজা খুললে ওই গৃহবধূরকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করেন মাসুদ। এ সময় ওই গৃহবধূ চিৎকার দিলে স্থানীয়রা এসে মাসুদকে আটক করে। পরে পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে যায়।’’

তিনি আরও বলেন, ‘ভুক্তভোগী গৃহবধূ থানায় মামলা করেন। পরে ইউপি সদস্য মাসুদকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
৬ মাসের সাজা এড়াতে ৩ বছর পলাতক
মাদক মামলায় যাবজ্জীবন পাওয়া ভিপি লিমন র‌্যাবের কব্জায়
ব‌রিশা‌লে সাজাপ্রাপ্ত ব‌হিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার
উপনির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আসিফের নির্বাচনি প্রচার প্রধান গ্রেপ্তার
সরকারি চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ৫

মন্তব্য

p
উপরে