× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Domestic and foreign weapons in training of new militant outfit CTTC
google_news print-icon

নতুন জঙ্গি সংগঠনের প্রশিক্ষণে দেশি-বিদেশি অস্ত্র: সিটিটিসি

নতুন-জঙ্গি-সংগঠনের-প্রশিক্ষণে-দেশি-বিদেশি-অস্ত্র-সিটিটিসি
নতুন জঙ্গি সংগঠনের সদস্যের তথ্যের ভিত্তিতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী এলাকার দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারের কথা জানায় সিটিটিসি। ছবি: নিউজবাংলা
সিটিটিসির প্রধান মো. আসাদুজ্জামান জানান, গত ২১ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম এলাকা থেকে গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলাম তুহিন ও নাঈম হোসেনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই সংগঠনে অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে কবির আহাম্মদকে শনাক্ত করে সিটিটিসি। পরবর্তী সময়ে কবিরকে বান্দরবান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী এলাকার দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে অভিযান চালিয়ে মাটির নিচে লুকানো অবস্থায় দুটি প্লাস্টিকের ড্রাম থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সদস্যদের প্রশিক্ষণে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে বলে ধারণা করছে সিটিটিসি।

এই সংগঠনের অস্ত্র সরবরাহকারীসহ তিনজনকে রোববার গ্রেপ্তারের কথা জানিয়ে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সিটিটিসির প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান।

সিটিটিসি জানায়, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি ও রাজধানীর কদমতলী এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় কবীর আহাম্মদ, ইয়াসিন ও আবদুর রহমান ইমরানকে।

ইউনিটটির ভাষ্য, ওই তিনজনের কাছ থেকে তিনটি দেশীয় অস্ত্র, ছয়টি একনলা বন্দুক, ১১টি গুলি, সিসা, অ্যাসিড, গান পাউডার, অকটেনসহ বিভিন্ন ধরনের দাহ্য রাসায়নিক পদার্থ উদ্ধার করা হয়েছে।

আসাদুজ্জামান জানান, গত ২১ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম এলাকা থেকে গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলাম তুহিন ও নাঈম হোসেনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই সংগঠনে অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে কবির আহাম্মদকে শনাক্ত করে সিটিটিসি। পরবর্তী সময়ে কবিরকে বান্দরবান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী এলাকার দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে অভিযান চালিয়ে মাটির নিচে লুকানো অবস্থায় দুটি প্লাস্টিকের ড্রাম থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে সিটিটিসির এ কর্মকর্তা জানান, কবির জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়াকে অস্ত্র সরবরাহ করেছিলেন এবং উদ্ধারকৃত অস্ত্রের কিছু অংশ বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর কাছে সরবরাহের পরিকল্পনায় ছিলেন। প্রাথমিকভাবে তার নামে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় অস্ত্র মামলার তথ্য পাওয়া গেছে।

আসাদুজ্জামান জানান, জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার মাস্টারমাইন্ড পলাতক শামিন মাহফুজ দুর্গম পার্বত্য এলাকায় সংগঠনের সশস্ত্র প্রশিক্ষণের জন্য বিভিন্ন ধাপে অস্ত্র সংগ্রহ করতে কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

তিনি জানান, গ্রেপ্তার কবিরের তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকা মহানগরীর কদমতলী থানা এলাকা থেকে জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার আরও দুই সক্রিয় সদস্য ইয়াসিন ও আবদুর রহমান ইমরানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মো. আসাদুজ্জামান বলেন, কবীর আহাম্মদ আগে অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে কাজ করলেও এখন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সক্রিয় সদস্য। তিনি অস্ত্র সরবরাহের জন্য এই জঙ্গি সংগঠনের কাছ থেকে টাকাও নিতেন।

নতুন জঙ্গি সংগঠনের এখন পর্যন্ত কত সদস্য জানতে চাইলে সিটিটিসির প্রধান বলেন, ‘আমরা এখনও কথিত হিজরতকারীদের নিয়ে কাজ করছি। এ ছাড়া এই সংগঠনের কত সদস্য আছে, তা বলা যাচ্ছে না।

‘গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে রাজধানীর ডেমরা থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা হয়েছে। তাদের আজকে আদালতে তুলে রিমান্ড আবেদন করা হবে। রিমান্ডে এনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হবে।’

আরও পড়ুন:
জঙ্গিদল হিন্দাল শারক্বীয়ার পেছনে জামায়াত-শিবির: সিটিটিসি
আফ্রিকা যেভাবে আইএসের সেকেন্ড হোম
জঙ্গি ছিনতাই: রিমান্ড শেষে ১০ আসামি কারাগারে
জঙ্গি ছিনতাই: আনসার আল ইসলামের ৫ সদস্য ৭ দিনের রিমান্ডে
পাহাড়ে জঙ্গিদের রসদ সরবরাহকারী ৫ জন গ্রেপ্তার: র‌্যাব

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Youth arrested in case of rape of madrasa student

মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় যুবক গ্রেপ্তার

মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় যুবক গ্রেপ্তার ময়মনসিংহের গৌরীপুরে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। ছবি: নিউজবাংলা
এ বিষয়ে ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জুলফিকার আলী বলেন, ‘গত বছরের ৭ আগস্ট মেয়েটির বাবা বাড়িতে না থাকার সুযোগে সুমন মেয়ের ঘরে ঢুকে খাটের নিচে লুকিয়ে থাকে। পরে রাতে মেয়েটির মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করে সুমন।

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে পঞ্চম শ্রেণির মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

গাজীপুরের টঙ্গী পূর্ব থানার হোসেন মার্কেট এলাকা থেকে সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার মহিদুল ইসলাম ওরফে সুমন (২৮) গৌরীপুরের মাওয়া ইউনিয়নের কুমড়ী গ্রামের বাসিন্দা।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জুলফিকার আলী বলেন, ‘স্থানীয় একটি মহিলা মাদ্রাসায় পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে ওই শিক্ষার্থী। মাদ্রাসায় আসা-যাওয়ার পথে মেয়েটিকে বিরক্ত করত সুমন। কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সুমন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। গত বছরের ৭ আগস্ট মেয়েটির বাবা বাড়িতে না থাকার সুযোগে সুমন মেয়ের ঘরে ঢুকে খাটের নিচে লুকিয়ে থাকে।

‘পরে রাতে মেয়েটির মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করে সুমন। এ সময় ডাক-চিৎকারের একপর্যায়ে মেয়েটির মানসিক প্রতিবন্ধী মা এগিয়ে এলে সুমন দৌড়ে পালিয়ে যায়।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ‘এ ঘটনায় ২২ আগস্ট মেয়েটির বাবা থানায় বাদী হয়ে সুমনকে আসামি করে ধর্ষণ মামলা করেন। ঘটনাটি র‌্যাবের নজরে আসলে ছায়াতদন্ত শুরু করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে সুমনের পালিয়ে থাকার অবস্থান জানতে পেরে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার সুমনকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
নাটোরে ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
বন কর্মকর্তা হত্যা মামলার প্রধান আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার
সাংবাদিককে মারধর: আওয়ামী লীগ নেতাসহ তিনজনের নামে মামলা
বান্দরবানে সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় ৪ মামলা
চট্টগ্রামে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা, গ্রেপ্তার ১

মন্তব্য

বাংলাদেশ
6 fugitive accused in Jhenaidah murder case arrested

ঝিনাইদহে হত্যা মামলার ৬ পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

ঝিনাইদহে হত্যা মামলার ৬ পলাতক আসামি গ্রেপ্তার শৈলকুপায় হত্যা মামলার ছয়জন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। ছবি: সংগৃহীত
স্থানীয়রা জানায়, রোববার বিকেলে কাদা খেলা নিয়ে ওই গ্রামের মাতব্বর সুনিল বিশ্বাসের সঙ্গে অধির বিশ্বাস নামের এক চৈত্র সন্ন্যাসীর কথা কাটাকাটি হয়। দ্বন্দ্বের একপর্যায়ে সন্ন্যাসীকে থাপ্পড় দেন সুনিল বিশ্বাস। এরই জের ধরে রাতে বাড়ির পেছনে গেলে সুনিল বিশ্বাস ও তার ছেলে স্বাধীনকে লাঠি দিয়ে মারধর করেন সন্ন্যাসীরা।

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় স্বাধীন বিশ্বাস হত্যা মামলার ছয়জন পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৬।

উপজেলার ভাটই বাজার এলাকা থেকে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে সোমবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার সকালে এ তথ্য জানায় র‍্যাব।

গ্রেপ্তার ছয়জন হলেন ভগবাননগর গ্রামের সজীব বিশ্বাস (২০), বিজয় বিশ্বাস (১৮), সুশান্ত বিশ্বাস (৩৫), সুভাষ বিশ্বাস (৪০), প্রশনজিৎ বিশ্বাস (২৬) ও পলাশ বিশ্বাস (১৬)।

এর আগে রোববার রাতে উপজেলার ভগবান নগর গ্রামের আদিবাসী পাড়ার সুনিল বিশ্বাসের ছেলে স্বাধীন বিশ্বাসকে (২২) হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় আহত হন আরও একজন।

স্থানীয়রা জানায়, ভগবান নগর গ্রামের আদিবাসী পাড়ায় পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে নীলপূজার অংশ হিসেবে কাদা খেলার আয়োজন করে স্থানীয় বাগদি সম্প্রদায়। রোববার বিকেলে এ নিয়ে ওই গ্রামের মাতব্বর সুনিল বিশ্বাসের সঙ্গে অধির বিশ্বাস নামের এক চৈত্র সন্ন্যাসীর কথা কাটাকাটি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দ্বন্দ্বের একপর্যায়ে সন্ন্যাসীকে থাপ্পড় দেন সুনিল বিশ্বাস। এরই জের ধরে রাতে বাড়ির পেছনে গেলে সুনিল বিশ্বাস ও তার ছেলে স্বাধীনকে লাঠি দিয়ে মারধর করেন সন্ন্যাসীরা। রাতে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ওই দিন রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বাধীনের মৃত্যু হয় স্বাধীনের।

এ ঘটনায় স্বাধীন বিশ্বাসের বাবা বাদী হয়ে ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও ১০ থেকে ১২ জনকে আসামি করে শৈলকুপা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‍্যাব জানায়, সোমবার বিকেলে র‌্যাব-৬ (ঝিনাইদহ ক্যাম্প)-এর আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শৈলকুপা উপজেলার ভাটই বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ছয়জন পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করে। আসামিদের মঙ্গলবার সকালে শৈলকুপা থানায় হস্তান্তর করা হয়।

আরও পড়ুন:
রূপপুরে পড়ে গিয়ে আহত শ্রমিকের মৃত্যু
ময়মনসিংহে দুই বাসের সংঘর্ষে নারীসহ ২ জন নিহত
কাদা খেলা নিয়ে দ্বন্দ্ব, ‘সন্ন্যাসীদের’ পিটুনিতে যুবক নিহত
ঝরে গেল হাসনাহেনা, মা শুধুই কাঁদছেন
গাছে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ২ যুবক নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The sound of mortar shells is coming intermittently in Teknaf

টেকনাফে থেমে থেমে আসছে মর্টার শেলের শব্দ

টেকনাফে থেমে থেমে আসছে মর্টার শেলের শব্দ কক্সবাজারের টেকনাফের একটি এলাকা। ছবি: নিউজবাংলা
টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা মো. রফিক বলেন, ‘মনে হচ্ছে মিয়ানমারের রাখাইনে আরাকান আর্মি এবং দেশটির সরকারি বাহিনীর মধ্যে তীব্র সংঘর্ষ হচ্ছে। এ কারণে সীমান্তে আগের তুলনায় এখন বিস্ফোরণের শব্দ বেশি শোনা যাচ্ছে।’

মিয়ানমারে সামরিক জান্তার বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের চলমান লড়াইয়ের মধ্যে থেমে থেমে মর্টার শেলের শব্দ ভেসে আসছে সীমান্তবর্তী কক্সবাজারের টেকনাফে।

ঈদের দিন বৃহস্পতিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত উপজেলাটিতে মর্টার শেলের শব্দ শোনা গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তাদের ভাষ্য, সীমান্তে বসবাসকারীদের জন্য নাফ নদী দিয়ে সাগরে মাছ ধরতে যাওয়া এবং টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে যাতায়াত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য খোরশেদ আলম বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ঈদের নামাজ পড়ে বাড়ি ফিরে একটু বিশ্রাম নিচ্ছিলাম। তখন মিয়ানমারের ওপার থেকে ভারি বিস্ফোরণের শব্দ এপারে ভেসে আসে। এতে সীমান্তের বাড়িঘর কেঁপে ওঠে।

‘সারা দিন থেমে থেমে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেলেও রাতে তা তীব্র হয়ে উঠে আরও। এখনও এ রকম চলতেছে। এপারের ভূখণ্ডে গোলা না পড়লেও ভূখণ্ড কাঁপছে ঠিকই।’

টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা মো. রফিক বলেন, ‘মনে হচ্ছে মিয়ানমারের রাখাইনে আরাকান আর্মি এবং দেশটির সরকারি বাহিনীর মধ্যে তীব্র সংঘর্ষ হচ্ছে। এ কারণে সীমান্তে আগের তুলনায় এখন বিস্ফোরণের শব্দ বেশি শোনা যাচ্ছে।

‘ঈদের দিন ও মধ্যরাতসহ এখনও বিস্ফোরণের বিকট শব্দ ওপার থেকে টেকনাফ সীমান্তে ভেসে আসছে।’

এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আদনান চৌধুরী বলেন, ‘সীমান্তে বিজিবি ও কোস্ট গার্ড সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। এ ছাড়া রোহিঙ্গাসহ মিয়ানমারের কোনো নাগরিক যাতে অনুপ্রবেশ করতে না পারে, সে জন্য আমাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনীগুলো সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।’

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সীমান্তবর্তী রাখাইনে তাদের অভ্যন্তরের অনেক দূরে গোলাগুলি চলছে। এ কারণে এপারে বিকট শব্দ পাওয়া যাচ্ছে, কিন্তু আমাদের সীমান্তবর্তী লোকজনের ভয়ের কোনো কারণ নেই। সীমান্তে বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মিয়ানমারের ১৮০ সেনা ফিরে যাবে, তবে এখনই নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
তিন সপ্তাহ পর উদ্ধার টেকনাফে অপহৃত মাদ্রাসাছাত্র ছোয়াদ
৮০০ টাকার জন্য যুবককে গুলি করে হত্যা, দাবি পরিবারের
নওগাঁ সীমান্তে গুলিতে নিহত বাংলাদেশির মরদেহ হস্তান্তর
টেকনাফের অপহৃত চারজন ফিরেছেন ‘মুক্তিপণ দিয়ে’, এক কৃষকের খোঁজ নেই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Former UP member injured in BSF firing in Lalmonirhat

লালমনিরহাটে বিএসএফের গুলিতে সাবেক ইউপি সদস্য আহত

লালমনিরহাটে বিএসএফের গুলিতে সাবেক ইউপি সদস্য আহত আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন গুলিবিদ্ধ সাইফুল ইসলাম নান্নু। ছবি: নিউজবাংলা
ভারতীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় গরু পাচার করতে সন্ধ্যার পর তালুক দুলালী বড় মালদি সীমান্ত এলাকার ২১ নম্বর পিলার সংলগ্ন কাঁটাতারের বেড়ার পাশে যান গরু ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম নান্নুসহ কয়েকজন। এ সময় বিএসএফ তাদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ছুড়লে সাইফুল ইসলাম নান্নু গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়েন।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে উপজেলার লোহাকুচি সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে সাইফুল ইসলাম নান্নু নামের সাবেক এক ইউপি সদস্য আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আদিতমারী উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের তালুক দুলালী বড় মালদি এলাকায় অবস্থিত ২১ নম্বর পিলার সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনা ঘটে। পরে রাত ৯টার দিকে আহত সাইফুল ইসলামকে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান বিজিবির সদস্যরা।

এলাকাবাসী জানান, ভারতীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় গরু পাচার করতে সন্ধ্যার পর তালুক দুলালী বড় মালদি সীমান্ত এলাকার ২১ নম্বর পিলার সংলগ্ন কাঁটাতারের বেড়ার পাশে যান গরু ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম নান্নুসহ কয়েকজন। এ সময় বিএসএফ তাদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ছুড়লে সাইফুল ইসলাম নান্নু গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা সঙ্গীরা পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোহাকুচি বিজিবি ক্যাম্পের টহল দলকে খবর দিলে তারা আহত সাইফুলকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

৪৮ বছর বয়সী সাইফুল ইসলাম নান্নু তালুক দুলালী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ভেলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য।

এ বিষয়ে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক বিক্রম চন্দ্র বলেন, ‘আহত সাইফুল ইসলাম নান্নুকে পিঠের নিচে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নিয়ে আসে বিজিবি। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।’

বিজিবি লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে একজন আহত হয়েছেন বলে শুনেছি। তবে নাম ঠিকানা এখনও জানতে পারিনি।’

আরও পড়ুন:
অভয়নগরে গুলিতে ৩ আওয়ামী লীগ নেতা আহত
সাইফুলের মরদেহ ফেরত দিল বিএসএফ
বেনাপোল সীমান্তে বিএসএফের রাবার বুলেটে দুই বাংলাদেশি আহত
লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত, দুজন আহত
যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের গুলিতে বাংলাদেশি যুবক নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
40 gold bars arrested from Maheshpur border 2

মহেশপুর সীমান্ত থেকে ৪০টি স্বর্ণের বারসহ আটক ২

মহেশপুর সীমান্ত থেকে ৪০টি স্বর্ণের বারসহ আটক ২ ছবি: নিউজবাংলা
আটককৃত স্বর্ণের ওজন ৪ কেজি ৬৩৩ গ্রাম বলে জানান ৫৮ বিজিবি মহেশপুর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এইচএম সালাহউদ্দিন চৌধুরী।

ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত থেকে ৪০টি স্বর্ণের বারসহ দুজনকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী পলিয়ানপুর সীমান্তের ছয়ঘরিয়া এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- মহেশপুর উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামের ৫৩ বছর বয়সী মো. জসিম উদ্দিন ও ৪০ বছর বয়সী মো. হুমায়ন কবির।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ৫৮ বিজিবি মহেশপুর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এইচএম সালাহউদ্দিন চৌধুরী জানান, বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে ভারতে সোনা পাচার হচ্ছে- এমন সংবাদের ভিত্তিতে সীমান্ত এলাকায় টহল জোরদার করে বিজিবি। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ছয়ঘরিয়া নামক স্থানে মহেশপুর থেকে সীমান্তের দিকে যাওয়া একটি মোটরসাইকেলের গতিরোধ করা হয়।

তিনি জানান, ওই দুই ব্যক্তির শরীর তল্লাশি করে ৪০টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। আটককৃত স্বর্ণের ওজন ৪ কেজি ৬৩৩ গ্রাম বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় জসিম উদ্দিন ও হুমায়ন কবির নামের ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। পরে বিজিবির পক্ষ থেকে মামলা দিয়ে আসামিদের মহেশপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
পায়ুপথে স্বর্ণের ৬ বার, একজন আটক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The causes of the Faridpur accident were known

ফরিদপুরের দুর্ঘটনার যেসব কারণ জানা গেল

ফরিদপুরের দুর্ঘটনার যেসব কারণ জানা গেল অতিরিক্ত গতি থাকায় সংঘর্ষে দুমড়ে মুচড়ে যায় যানবাহন দুটির সামনের অংশ। ছবি: নিউজবাংলা
সরেজমিনে ঘুরে প্রাথমিকভাবে দুর্ঘটনার বেশ কয়েকটি কারণ খুঁজে পেয়েছে নিউজবাংলা। অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো, মহাসড়কে উল্টো লেনে গাড়ি চালানো ও এবড়ো খেবড়ো সড়কের কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

ফরিদপুরের কানাইপুরে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। দুর্ঘটনায় এক পরিবারের চার সদস্যসহ মোট ১৪ জন নিহত হয়েছেন। হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন আরও দুজন।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে ফরিদপুর-খুলনা মহাসড়কের কানাইপুরের দিগনগর তেঁতুলতলায় ঢাকা থেকে মাগুরা অভিমুখী ইউনিক পরিবহনের একটি বাস ও পিকআপের সংঘর্ষে সড়কেই ঝরে পড়ে ১১ প্রাণ। হাসপাতালে নেয়ার পর আরও তিনজনের মৃত্যু হয়।

দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন দেবে বলে জানিয়েছেন ফরিদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার।

তবে সরেজমিনে ঘুরে প্রাথমিকভাবে দুর্ঘটনার বেশ কয়েকটি কারণ খুঁজে পেয়েছে নিউজবাংলা। অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো, মহাসড়কে উল্টো লেনে গাড়ি চালানো ও এবড়ো খেবড়ো সড়কের কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। ফরিদপুর পুলিশ সুপার, ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ম্যানেজার ও স্থানীয়দের দাবি অন্তত তা-ই।

দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোর্শেদ আলম বলেন, ‘দুর্ঘটনাকবলিত বাস ও পিকআপ দুটিরই অতিরিক্ত গতি ছিল। আর পিকআপচালক তার নির্দিষ্ট লেন ছেড়ে বিপরীত লেনে চলে আসেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘বাসের চালক ফিট ছিলেন কি না, পিকআপটির চালকের লাইসেন্স ছিল কি না তা খতিয়ে দেখা হবে।’

ফরিদপুর ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন ম্যানেজার সুবাস বাড়ৈ বলেন, ‘গাড়িটি (বাস) ওভার স্পিডে (অতিরিক্ত গতি) চলছিল। এ কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটে।’

দুর্ঘটনাস্থলের পাশেই শেখ লিমনের বাড়ি। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘এখানে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে কিছু বিট ও তার পাশে গর্ত আছে, রাস্তাও এবড়ো থেবড়ো। ঈদের আগেও এখানে বিশ-বাইশটি ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। সকালে ওই বিটের কাছেই দুর্ঘটনা ঘটে।’

দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার জানান, নিহতদের দাফনের জন্য নগদ ২০ হাজার টাকা এবং আহতদের চিকিৎসার জন্য ১০ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়েছে। নিহতদের স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের পরবর্তীতে ৫ লাখ এবং গুরুতর আহতদের ৩ লাখ টাকা করে প্রদান করা হবে।

আরও পড়ুন:
ফরিদপুরে পিকআপে বাসের ধাক্কায় নিহত ১৩

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Clash between Jubo League leader and councilor group in Natore kills 1

নাটোরে যুবলীগ নেতা ও কাউন্সিলর গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১

নাটোরে যুবলীগ নেতা ও কাউন্সিলর গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ নাটোর পৌর কার্যালয় চত্বরে মঙ্গলবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।সিহাব হোসেন শিশির (ডানে)। ছবি: নিউজবাংলা
ঠিকাদারির টাকা ভাগাভাগি নিয়ে সংঘর্ষের এই ঘটনায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোকনুজ্জামান হিরু এবং একই ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসুকে আটক করা হয়েছে।

ঠিকাদারি কাজের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে নাটোর পৌরসভা চত্বরে যুবলীগ নেতা হাসানুর রহমান হাসু ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর রোকনুজ্জামান হিরু গ্রুপের সংঘর্ষে সিহাব হোসেন শিশির নামে একজন নিহত হয়েছেন। এ সময় হাসানুর রহমান হাসু আহত হয়েছেন।

সংঘর্ষ ও নিহত হওয়ার এই ঘটনায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোকনুজ্জামান হিরু এবং একই ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসুকে আটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা ২টার দিকে এই সংঘর্ষ হয়। নিহত সিহাব হোসেন শিশির শহরের মল্লিকহাটি মহল্লার মোজাহার আলীর ছেলে ও কাউন্সিলর হিরুর সমর্থক।

নাটোরের পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম জানান, দুপুরে পৌরসভার দ্বিতীয় তলায় ঠিকাদারি কাজের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে কাউন্সিলর হিরু ও হাসুসহ দুই গ্রুপের কয়েকজনকে নিয়ে পৌর মেয়র উমা চৌধুরী আলোচনা করছিলেন। এ সময় পৌরসভা চত্বরে দুই গ্রুপের সমর্থকদের কথাকাটাকাটি শুরু হয়। হাসু গ্রুপের সমর্থকরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে শিশিরের গলায় আঘাত করে। স্থানীয়রা তাকে সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রোকনুজ্জামান হিরু ও ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হাসানুর রহমান হাসুকে আটক করেছে। ঘটনায় জড়িত বাকিদের আটক করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

মন্তব্য

p
উপরে