× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Collection of nomination papers of 14 candidates in Brahmanbaria 2 seat
google_news print-icon

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ১৪ প্রার্থীর মনোনয়পত্র সংগ্রহ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২-আসনে-১৪-প্রার্থীর-মনোনয়পত্র-সংগ্রহ
২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে বিএনপির নেতা উকিল আবদুস সাত্তার জয়ী হন। ছবি: সংগৃহীত
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও এই আসনের উপনির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা জিল্লুর রহমান বলেন, ‘এ পর্যন্ত ১৪ প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। আগামী ৫ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেয়ার শেষ দিন। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচনে ১৪ প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে জাতীয় সংসদ থেকে সদ্য পদত্যাগকারী এ আসনের সংসদ সদস্য আবদুস সাত্তার রয়েছেন। জাতীয় পার্টি থেকে দুই বারের সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মৃধাও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন।

এবার আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক দেয়া হচ্ছে না। এ কারণে দলটির ৫ নেতা-কর্মী স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়, সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়নপত্র বিতরণ করা হচ্ছে।

গত মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে নতুন করে জাতীয় পার্টির মনোনীত নতুন প্রার্থী আবদুল হামিদ ভাসানী ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত বাংলাদেশ শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) প্রতিষ্ঠাতা ও বর্তমানে সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু মনোনয়নপত্র কিনেছেন।

আগের দিন সোমবার সরাইল উপজেলার চুন্টা গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রহিম, সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি মো. আশরাফ উদ্দিন, জাতীয় পার্টি থেকে দুবারের সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মৃধা, ঢাকার ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশীষ কুমার চক্রবর্তী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বাংলাদেশ আইন সমিতির সভাপতি কামরুজ্জমান আনসারি, আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবু আসিফ আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী এবং জেলা আওয়ামী লীগে সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মঈন উদ্দিন মনোনয়নপত্র কেনেন।

দলীয় মনোনীত প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মনোনীত প্রার্থী মো. রাজ্জাক হোসেন এবং জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী জহিরুল ইসলাম।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও এই আসনের উপনির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা জিল্লুর রহমান বলেন, ‘এ পর্যন্ত ১৪ প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। আগামী ৫ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেয়ার শেষ দিন।

আরও পড়ুন:
টাকা ফেরত চেয়ে ভোটারদের বিরুদ্ধে প্রার্থীর মামলা
আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য হলেন যারা
উপনির্বাচনে মনোনয়ন ফরম নিলেন আবদুস সাত্তার
চাঁপাই ও বগুড়ার তিন আসনে নৌকার প্রার্থী ঘোষণা
মে মাসে সীমানা নির্ধারণ, জুনে নিবন্ধন পাবে নতুন দল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
BNP announced a 15 day program around Zias death anniversary

জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী ঘিরে ১৫ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির

জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী ঘিরে ১৫ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির ছবি: সংগৃহীত
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক, আধুনিক বাংলাদেশ নির্মাণের মহান পথপ্রদর্শক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য আমরা আগামী ২৮ মে থেকে ১১ জুন পর্যন্ত কর্মসূচি গ্রহণ করেছি।’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ১৫ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি। ২৮ মে থেকে ১১ জুন পর্যন্ত চলবে এই কর্মসূচি।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বুধবার যৌথসভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘আজ এই মহান নেতা, দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক, আধুনিক বাংলাদেশ নির্মাণের মহান পথপ্রদর্শক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য আমরা আগামী ২৮ মে থেকে ১১ জুন পর্যন্ত কর্মসূচি গ্রহণ করেছি।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

কর্মসূচি

বিএনপি ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ৩০ মে জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ৬টায় দলীয় কার্যালয়সহ সারাদেশে দলীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, ড্যাবের উদ্যোগে নয়াপল্টনে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ এবং ছাত্রদলের উদ্যোগে আলোকচিত্র প্রর্দশনী।

২৮ মে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভা। ৩১ মে নয়াপল্টনে দোয়া মাহফিল। এছাড়া সারাদেশের মহানগর, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আলোচনা সভা, সেমিনার, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, রচনা প্রতিযোগিতা, স্বরচিত কবিতা পাঠ ও বইমেলা প্রদর্শনী ইত্যাদি।

বিএনপির প্রতিটি অঙ্গ-সংগঠন পৃথকভাবে এসব কর্মসূচির আয়োজন করবে। ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ প্রতিটি ওয়ার্ডে দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে বস্ত্র ও খাদ্য বিতরণ এবং দোয়া মাহফিল করবে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Munni of the third gender showed surprise
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

চমক দেখালেন তৃতীয় লিঙ্গের মুন্নী

চমক দেখালেন তৃতীয় লিঙ্গের মুন্নী দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মুন্নী আক্তার। ছবি: নিউজবাংলা
বিজয়ের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মুন্নী আক্তার বলেন, ‘আমি মানুষের মৌলিক অধিকার নিয়ে কাজ করব। সমাজের অবহেলিত জনগোষ্ঠীর, বিশেষ করে মা-বোনদের মৌলিক অধিকার আদায়ে কাজ করব।’

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের মুন্নী আক্তার। এই উপজেলায় এবারই প্রথম কোনো তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তি জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হলেন।

মঙ্গলবার ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী পাঁচ প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হন মুন্নী।

নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সেলাই মেশিন প্রতীকে ২৩ হাজার ৭৬৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন মুন্নী আক্তার। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাজেদা বেগম কলস প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ২১ হাজার ১৮৪টি।

বিজয়ের অনুভূতি ও আগামী দিনে কী কী কাজ করবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে মুন্নী বলেন, ‘দেওয়ানগঞ্জের মানুষ আমাকে ভালোবেসে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। এই জন্য আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। তবে পুরুষের তুলনায় নারীদের ভোট বেশি পেয়েছি। আমি মানুষের মৌলিক অধিকার নিয়ে কাজ করব। সমাজের অবহেলিত জনগোষ্ঠীর, বিশেষ করে মা-বোনদের মৌলিক অধিকার আদায়ে কাজ করব।’

এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ৩০ হাজার ২৭৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. সোলায়মান হোসেন মোটরসাইকেল প্রতীকে পান ২৫ হাজার ৮৯৮ ভোট।

এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে বই প্রতীক নিয়ে ২৯ হাজার ৭৭৮ ভোটে পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন মো. আরিফ খান।

আরও পড়ুন:
কালীগঞ্জে চাচাকে হারিয়ে এমপিপুত্রের জয়লাভ
সাবেক এমপি জাফরকে হারিয়ে এবারও উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল
জিতেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্যালক, হেরেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রীর ভাই
নওগাঁয় যারা ছিলেন চেয়ারে, রইলেন তারাই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
MPs son wins by defeating his uncle in Kaliganj
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

কালীগঞ্জে চাচাকে হারিয়ে এমপিপুত্রের জয়লাভ

কালীগঞ্জে চাচাকে হারিয়ে এমপিপুত্রের জয়লাভ কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বেসরকারিভাবে নির্বাচিত চেয়ারম্যান রাকিবুজ্জামান আহমেদ (ডানে) ও তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাহবুবুজ্জামান আহমেদ। কোলাজ: নিউজবাংলা
নির্বাচনে আনারস প্রতীকের প্রার্থী রাকিবুজ্জামান আহমেদকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা হির ঈমাম। তিনি পেয়েছেন ২৪ হাজার ৩০৩ ভোট, অন্যদিকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী মাহবুবুজ্জামান আহমেদ পেয়েছেন ১৯ হাজার ৩৫০ ভোট।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও লালমনিরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদ আপন চাচা মাহবুবুজ্জামান আহমেদকে হারিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। ভোটের লড়াইয়ে ভাতিজার কাছে ৪ হাজার ৯৫৩ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন চাচা মাহবুবুজ্জামান।

নির্বাচনে আনারস প্রতীকের প্রার্থী রাকিবুজ্জামান আহমেদকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা জহির ঈমাম। তিনি পেয়েছেন ২৪ হাজার ৩০৩ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী মাহবুবুজ্জামান আহমেদ পেয়েছেন ১৯ হাজার ৩৫০ ভোট।

এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে দেবদাস কুমার রায় বাবুল বৈদ্যুতিক বাল্প প্রতীকে ১২ হাজার ৯৪৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। টিউবওয়েল প্রতীকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবির হোসেন চৌধুরী ১২ হাজার ৯০৫ ভোট পেয়েছেন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৮ হাজার ৬৪৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন হাঁস প্রতীকের প্রার্থী শিউলি রানি রায়। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোছাম্মদ নাজনীন রহমান পেয়েছেন ১২ হাজার ২৭৯ ভোট।

অন্যদিকে, জেলার আদিতমারী উপজেলায় ৩৩ হাজার ১৩৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ইমরুল কায়েস ফারুক, ২২ হাজার ৫২৩ ভোট পেয়ে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মাইদুল ইসলাম সরকার এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোছা. শামসুন্নাহার মিলি ২৪ হাজার ৬৮৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে লালমনিরহাটের আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে দুই উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ২৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোট গ্রহণ। গণনা শেষে রাত ১টার দিকে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা লুৎফর কবির বেসরকারিভাবে এসব ফলাফল ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:
সাবেক এমপি জাফরকে হারিয়ে এবারও উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল
জিতেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্যালক, হেরেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রীর ভাই
নওগাঁয় যারা ছিলেন চেয়ারে, রইলেন তারাই
গাইবান্ধায় এমপি সমর্থিত প্রার্থীকে হারিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান হলেন রিংকু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There is someone paid by BNP at the US State Department briefing Hasan Mahmood

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ব্রিফিংয়ে ‘পেইড বাই বিএনপি’ কেউ আছে: হাছান মাহমুদ

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ব্রিফিংয়ে ‘পেইড বাই বিএনপি’ কেউ আছে: হাছান মাহমুদ পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ মঙ্গলবার সেগুনবাগিচায় ডিআরইউ কার্যালয়ে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। ছবি: পিআইডি
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সেখানে কেউ একজন আছেন যিনি খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ে কাজ করতেন। তাকে বিএনপি বেতন দেয়। তিনি উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করেন এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার চেষ্টা করেন।’

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার জন্য বিএনপি বেতন দিয়ে কাউকে নিয়োজিত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এই মন্তব্য করেন তিনি। সূত্র: ইউএনবি

ড. হাছান বলেন, ‘সেখানে কেউ একজন আছেন যিনি খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ে কাজ করতেন। তাকে বিএনপি বেতন দেয়। তিনি উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রশ্ন করেন এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক উত্তর পাওয়ার চেষ্টা করেন। উনি ইচ্ছাকৃতভাবে প্রশ্ন করেন।’

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার তৎকালীন সহকারী প্রেস সচিব মুশফিকুল ফজল আনসারীর উল্লেখ করে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের সবশেষ ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ব্রিফিংয়ে আনসারীর প্রশ্ন ছিল, ‘যুক্তরাষ্ট্র কি বাংলাদেশি পণ্যের জন্য জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালের কথা বিবেচনা করছে, যেমনটা বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার বলেছেন- অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু আশ্বাস দিয়েছেন যে ওয়াশিংটন বাংলাদেশের জন্য জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালের বিষয়টি বিবেচনা করবে?’

জিএসপি সুবিধা বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মূলত বলেছেন, এই কর্মসূচি পুনরায় চালু হলে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে এটি ফেরত পেতে সহায়তা করতে চায়।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি তথ্য ও সত্যের ভিত্তিতে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছি। যুক্তরাষ্ট্রের ইচ্ছার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সার্বিক অবস্থার উন্নয়নে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র শ্রমক্ষেত্রে কাজ করছে এবং যুক্তরাষ্ট্র জিএসপি সুবিধা পুনরায় চালু করলে তারা এটি ফেরত দিতে চায়।’

আনসারী অন্য একটি মিডিয়া ব্রিফিংয়ে বলেছিলেন, ‘ডোনাল্ড লুর সঙ্গে বৈঠকের পর বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সাংবাদিকদের বলেন, মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য র‌্যাবের ওপর আরোপিত যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে হোয়াইট হাউস খুবই আগ্রহী। তাই তিনি বলেছেন যে স্টেট ডিপার্টমেন্ট এবং হোয়াইট হাউস নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে কাজ করছে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ডিআরইউ সভাপতি সৈয়দ শুকুর আলী শুভ ও সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন।

আরও পড়ুন:
আজিজ আহমেদের নিষেধাজ্ঞা ভিসা নী‌তির অধীনে নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
মন্ত্রিসভায় এপোস্টল কনভেনশন স্বাক্ষরের অনুমোদন, বছরে সাশ্রয় হবে ৫০০ কোটি টাকা
রোহিঙ্গা সংকট আরও গভীর হতে পারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
দেশকে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
11 people including Jamaat leader ATM Azhar were sentenced to prison

জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড

জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড ছবি: সংগৃহীত
এ টি এম আজহারুল ইসলামের আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দণ্ডবিধির পৃথক দুই ধারায় এ কারাদণ্ডের আদেশ দেয় আদালত। এক ধারায় দেড় বছর ও আরেক ধারায় ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

রাজধানীর মতিঝিল থানার নাশকতা মামলায় জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারুল ইসলামসহ ১১ জনকে দু’বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে উভয় ধারায় এক হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। মামলায় বেকসুর খালাস পেয়েছেন সাতজন।

ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী মঙ্গলবার এই রায় ঘোষণা করেন।

২০১০ সালের নভেম্বরে নাশকতার অভিযোগে মতিঝিল থানায় মামলাটি করা হয়।

সাজাপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন- মোবারক হোসেন, হাসান আল মামুন, আবু তাহের মেজবাহ, মো. জাহাঙ্গীর, মো. ইব্রাহিম, সাইফুল ইসলাম, মো. জরিপ, আবুল কাশেম, আশরাফুজ্জামান ও মো. রেদুয়ান।

এ টি এম আজহারুল ইসলামের আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দণ্ডবিধির পৃথক দুই ধারায় এ কারাদণ্ডের আদেশ দেয় আদালত। এক ধারায় দেড় বছর ও আরেক ধারায় ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, রায় ঘোষণার সময় যুদ্ধাপরাধ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারুলকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। রায় শেষে তাকে সাজা পরোয়ানাসহ কারাগারে ফেরত পাঠানো হয়। আর সাজাপ্রাপ্ত অন্য ১০ আসামি পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
জামায়াতের আমির ১৪ মাস পর কারামুক্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Minister agreed to run battery operated rickshaws thinking of livelihood Nanak

জীবিকার কথা ভেবেই ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: নানক

জীবিকার কথা ভেবেই ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: নানক মঙ্গলবার রাজধানীর তালতলায় অবস্থিত লায়ন্স অগ্রগতি স্কুলে বিশেষ শিশু, বৃদ্ধ ও পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগীদের হুইল চেয়ারর বিতরণ অনুষ্ঠানে দেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক। ছবি: নিউজবাংলা
নানক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেমন করে গরীব-দুঃখী মানুষের জন্য কাজ করেন, আমরাও ঠিক তেমনভাবে মানুষের জন্য কাজ করতে চাই।’

মেহনতি মানুষের জীবন-জীবিকার কথা চিন্তা করেই গণমানুষের নেত্রী শেখ হাসিনা ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলের নির্দেশ দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরিব-দুঃখী মানুষের আস্থার ঠিকানা বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার রাজধানীর তালতলায় অবস্থিত লায়ন্স অগ্রগতি স্কুলে বিশেষ শিশু, বৃদ্ধ ও পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগীদের হুইল চেয়ারর বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সামাজিক সংগঠন ‘সোসাইটি ফর এইড প্রোগ্রাম’ (এসএপি)।

এ সময় রোগীদের মাঝে হুইল চেয়ার ও গরিব-দুঃখীদের মাঝে রিকশা বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে নানক বলেন, ‘সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটি বার্তা আসে- ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধ করা হয়েছে, তাই শ্রমিকরা বিক্ষোভ শুরু করেছেন। প্রধানমন্ত্রী কথাটা শুনে অবাক হয়ে গেলেন! তিনি জানতে চান- এর কারণ কী? প্রধানমন্ত্রী তখনিই পরিষ্কার করে বললেন- ওরা যা দিয়ে উপার্জন করে জীবন-জীবিকা চালায়, সেই পথ কেন বন্ধ করা হয়েছে? সঙ্গে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন অটোরিকশা চালু করার জন্য এবং চালু হয়ে গেল।’

ঢাকা ১৩ আসনের জনগণের উদ্দেশে স্থানীয় সংসদ সদস্য নানক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেমন করে গরীব-দুঃখী মানুষের জন্য কাজ করেন, আমরাও ঠিক তেমনভাবে মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। যেকোনো প্রয়োজন আপনারা আমাদের কাছে জানাবেন, আমরা আপনাদের পাশে থাকব, চেষ্টা করে যাব।’

অনুষ্ঠানে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ঢাকা শহরে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলার অনুমতি প্রধানমন্ত্রীর: কাদের
কালশীতে পুলিশ বক্সে অটোরিকশা চালকদের আগুন
মিরপুরে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকদের সড়ক অবরোধ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sanctions against Aziz in US Appreciation Act Qader

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাক্টে আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা: কাদের

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাক্টে আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা: কাদের আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির কার্যালয়ে মঙ্গলবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন ওবায়দুল কাদের। ছবি: নিউজবাংলা
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘মানুষের আগ্রহ নষ্ট করতেই নির্বাচন নিয়ে বিএনপি, টিআইবিসহ কিছু দেশবিরোধী বুদ্ধিজীবী অপপ্রচার আর মিথ্যাচার করছেন। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি সন্তোষজনক। সংঘাতবিহীন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নীতির কারণে সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়নি বলে দাবি করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাক্টের আওতায় এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে মঙ্গলবার বিকেলে ধানমণ্ডিতে দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যেটা বলেছে, বাংলাদেশের মিশনকে জেনারেল আজিজের বিষয়ে আগেই অবহিত করা হয়েছে। জেনারেল আজিজের বিষয়ে যে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে সেটা ভিসা নীতির প্রয়োগ নয়, যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাক্টের প্রয়োগ। এটা নিয়ে আমি আর কিছু বলব না। আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও কথা বলেছেন। আমরা এতটুকুই জানি, এটুকুই বললাম।’

মানুষের আগ্রহ নষ্ট করতেই নির্বাচন নিয়ে বিএনপি, টিআইবিসহ কিছু দেশবিরোধী বুদ্ধিজীবী অপপ্রচার আর মিথ্যাচার করছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি দাবি করেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি সন্তোষজনক। সংঘাতবিহীন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে।

শাসক দলের দ্বিতীয় শীর্ষ এই নেতা বলেন, ‘ভোটাররা কেন আসেনি একথা যারা বলে তাদেরকে বলব- এটা স্থানীয় সরকার নির্বাচন। স্থানীয় সরকার নির্বাচন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এবং আমাদের বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণ হয় এটা বলা যাবে না। এখানে কিছু সংঘাত, প্রাণহানি ঘটে।

‘বিএনপি নেতাদের বলব- আপনাদের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি নিয়ে বিবিসি মন্তব্য করেছিল ৫ শতাংশ। আর তখন সরকারিভাবে নির্বাচন কমিশন বলেছিল ২১ শতাংশ। তাহলে আপনাদের জাতীয় নির্বাচনে উপস্থিতি ২১-এর তুলনায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ৩০+ কম কিসে?’

রক্তপাত ছাড়া বিএনপি আমলে কোনো স্থানীয় সরকার নির্বাচন হয়নি বলে এ সময় মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘৭ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ৪২ শতাংশের কিছু বেশি ছিলো। সে নির্বাচনও শান্তিপূর্ণভাবেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল।’

জিয়াউর রহমান আবেদন করেই বাকশালের সদস্য হয়েছিলেন এবং এর তথ্য-প্রমাণ আছে দাবি করে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘বাকশাল একক কর্তৃত্ববাদী কোনো দল নয়। এটা জাতির প্রয়োজনে তখনকার বাস্তব অবস্থায় একটি জাতীয় দল। এটা একদলীয় কোনো শাসন নয়। জাতীয় এই দলে নির্বাচনের ব্যবস্থা ছিল।

‘মির্জা ফখরুল সাহেবরা যতই মিথ্যাচার করুন তথ্য-প্রমান আছে। জিয়াউর রহমান বিশেষভাবে বঙ্গবন্ধুর কাছে আবেদন করে বাকশালের সদস্য পদ লাভ করেছিলেন। বাকশালের কমিটিতে ৭১ নম্বরে তার নাম ছিল। মিথ্যাচার করে লাভ নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, সুজিত রায় নন্দীসহ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্র আগের অবস্থানে আছে, ফখরুল কী করে জানলেন: কাদের
নো হেলমেট, নো ফুয়েল: কাদের
যুক্তরাষ্ট্রের স্যাংশন-ভিসানীতি সরকার কেয়ার করে না: কাদের
আইন-বহির্ভূত কর্মকাণ্ড করলে ফের পালাতে হবে বিএনপিকে: কাদের
ডোনাল্ড লুর বাংলাদেশ সফর, যা বললেন ওবায়দুল কাদের

মন্তব্য

p
উপরে