× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Metro rail master plan in total 6 routes in Dhaka
google_news print-icon

ঢাকায় মোট ৬ রুটে মেট্রোরেলের মহাপরিকল্পনা

মেট্রোরেল
২০৩০ সালের মধ্যে ঢাকা মহানগর ও সংলগ্ন অঞ্চলে মোট ছয়টি মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ছবি: নিউজবাংলা
উত্তরা-কমলাপুর রুটের বাইরে আরও পাঁচটি রুটে মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে। এ জন্য ২০১৩ সালের ৩ জুন গঠিত হয় ঢাকা মাস ট্রানজিট (এমআরটি) কোম্পানি লিমিটেড।

যানজটে বিপর্যস্ত রাজধানীবাসীকে মুক্তি দিতে ২০৩০ সালের মধ্যে ঢাকা মহানগর ও সংলগ্ন অঞ্চলে মোট ছয়টি মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

এর মধ্যে এমআরটি-৬ এর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১.৭৩ কিলোমিটার অংশ খুলছে বুধবার। তবে এই রুটটির মোট দৈর্ঘ্য ২১.২৬ কিলোমিটার। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষ হলে উত্তরা থেকে সরাসরি পৌঁছানো যাবে কমলাপুর।

এই প্রকল্পের বাইরে আরও পাঁচটি মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াও চলছে। এ জন্য ২০১৩ সালের ৩ জুন গঠিত হয় ঢাকা মাস ট্রানজিট (এমআরটি) কোম্পানি লিমিটেড।

‘বাঁচবে সময়, বাঁচবে পরিবেশ, যানজট কমাবে মেট্রোরেল’ শ্লোগানে যাত্রা করা এই কোম্পানি ইতোমধ্যে এমআরটি লাইন-১ (বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর) এবং এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটের (হেমায়েতপুর থেকে ভাটারা) কাজও অনেকটা গুছিয়ে এনেছে। এমআরটি লাইন-৫ এর সাউদার্ন রুটও রয়েছে। এছাড়া এমআরটি-২ এবং এমআরটি-৪ রয়েছে পরিকল্পনার পর্যায়ে।

এমআরটি-

২৬.৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এমআরটি-১ এর রুট হলো হযরত শাহজালাল (রঃ) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে খিলক্ষেত, কুড়িল, যমুনা ফিউচার পার্ক, বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ, রাজারবাগ, কমলাপুর এবং কুড়িল থেকে কাঞ্চন সেতুর পশ্চিম পাশ পর্যন্ত।

এর মধ্যে বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ১৬.৪ কিলোমিটার হবে পাতাল রেল আর কুড়িল থেকে কাঞ্চন সেতু পর্যন্ত ১০.২ কিলোমিটার হবে উড়াল রেল।

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া ৫২ হাজার ৫৬১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এমআরটি-১ প্রকল্পটির ২০২৬ সালের ডিসেম্বরে শেষ হওয়ার কথা। এমআরটি লাইন-১ চালু হলে দৈনিক আট লাখ যাত্রী পরিবহন সক্ষমতা তৈরি হবে।

প্রকল্পের নির্মাণ কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়ে গেছে। এছাড়া এমআরটি লাইন-১-এর পিতলগঞ্জ ডিপোর ভূমি উন্নয়নের জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গেও চুক্তি হয়েছে।

এমআরটি-১ প্রকল্পের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাপানের বহুজাতিক কনসোর্টিয়ামের নিপ্পন কোআই করপোরেশন কোম্পানি জেভির সঙ্গে গত ২৩ অক্টোবর চুক্তি সই হয়। এ কনসোর্টিয়ামে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে দেশি-বিদেশি আটটি প্রতিষ্ঠান। চুক্তিতে সই করেন ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক এবং নিপ্পন কোয়াই কোম্পানি লিমিটেডের প্রতিনিধি নাও কি কুদো।

পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৫১৭ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে জাইকা অর্থায়ন করছে ১ হাজার ১২৩ কোটি টাকা, বাংলাদেশ সরকার দিচ্ছে ৩৯৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা।

ঢাকায় মোট ৬ রুটে মেট্রোরেলের মহাপরিকল্পনা

এমআরটি লাইন-১-এর ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়নের জন্য ঠিকাদারও নিয়োগ হয়ে গেছে। প্রকল্পের জন্য নারায়ণগঞ্জের পিতলগঞ্জের মৌজায় ৩৫.৯০ হেক্টর বা ৮৮.৭১ একর ভূমিতে উন্নয়নকাজ করা হবে। এ কাজের ঠিকাদারের দায়িত্ব পেয়েছে জাপানের টকিউ কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড ও বাংলাদেশের ম্যাক্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড।

এমআরটি-১ বিষয়ে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এমআরটি-১ এর প্রায় সব কাজ আমরা গুছিয়ে এনেছি। আগামী বছরের জানুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে অথবা ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেলে এর নির্মাণকাজের উদ্বোধন শুরু করতে পারব বলে আশা রাখি।’

তিনি বলেন, ‘এই এমআরটি-১ আমরা ১২টি প্যাকেজের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করব। এসব প্যাকেজ এখন বিভিন্ন পর্যায়ে আছে। অনেকগুলো এগিয়ে আছে আবার কিছু প্যাকেজ একটু পিছিয়ে আছে। কিছুদিন পরেই আমরা বলতে পারব এই রুটের আন্ডারগ্রাউন্ডের খনন কবে শুরু করা যাবে। তবে আশা করছি এই অর্থবছরের ভিতরেই কাজ শুরু করতে পারব।’

এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি মাটি খননের টানেল বোরিং মেশিন (টিবিএম) আমাদের এখানেই তৈরি করার। তাহলে আমাদের নিজেদের ক্যাপাবিলিটি বাড়বে। খনন কাজটি কমলাপুর থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত মাটির নিচে ৩০ মিটার আবার কোথাও কোথাও ৭০ মিটার গভীরে করা হবে।

‘টিবিএম মেশিং যখন মাটির নিচে কাজ করবে তখন রাস্তার উপর থেকে কিছু বোঝা যাবে না। সমস্যা একটু হবে স্টেশন নির্মাণের সময়ে। তবে এই রুটের যে ১২টি স্টেশন থাকবে সেখানে আমরা ওপেন কাট পদ্ধতিতে কাজ করব। স্টেশন এলাকায় সর্বোচ্চ ছয় মাস কাজ চলবে। এ সময় আমরা রাস্তার অর্ধেকটা অংশ চালু রেখে বাকি অর্ধেক অংশে কাজ শেষ করব। পরে এই অংশে মাটি ভরাট করে পরের অংশ ধরব। এমআরটি-৬ এর সময় দীর্ঘ সময় যে ভোগান্তি হয়েছিল সেটি এমআরটি-১ এর সময় হবে না।’

এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, ‘খনন কাজ যেহেতু মাটির ৩০ মিটার নিচে করা হবে সেহেতু এখানে ইউটিলিটি লাইন সরানোরও কোনো প্রয়োজন হবে না। আর স্টেশন এলাকায় আমরা অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করব।’

এমআরটি লাইন-

এমআরটি লাইন-৫ এর দুটি রুট থাকবে। একটি নর্দান রুট আরেকটি সাউথদান রুট।

নর্দান রুট হলো, হেমায়েতপুর থেকে বলিয়ারপুর, বিলামালিয়া, আমিনবাজার, গাবতলী, দারুস সালাম, মিরপুর ১, মিরপুর ১০, মিরপুর ১৪, কচুক্ষেত, বনানী, গুলশান ২, নতুন বাজার থেকে ভাটারা পর্যন্ত। এর মধ্যে হেমায়েতপুর থেকে আমিনবাজর পর্যন্ত হবে উড়াল রেল আর আমিন বাজার থেকে ভাটারা পর্যন্ত থাকবে পাতাল রেল।

নর্দান রুটে ২০২৮ সালের মধ্যে হেমায়েতপুর থেকে ভাটারা পর্যন্ত পাতাল ও উড়াল সমন্বয়ে ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে পাতালপথ ১৩ দশমিক ৫০ কিলোমিটার এবং ৬ দশমিক ৫০ কিলোমিটার উড়াল মেট্রোরেল হবে। এতে ১৪টি স্টেশন থাকবে, যার মধ্যে ৯টি পাতাল এবং ৫টি উড়াল হবে।

ইতোমধ্যে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই শেষ হয়েছে। এখন চলছে বিভিন্ন জরিপ ও মূল নকশার কাজ। মূল নকশা তৈরির কাজের অগ্রগতি ৫০ শতাংশের বেশি।

এমআরটি-৫ এর নর্দান রুটের বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘২০৩০ সালের মধ্যে সবগুলো এমআরটি চালু করা আমাদের র্টাগেট। এর মধ্যে আগামী বছরের (২০২৩) জুলাই মাসে এমআরটি-৫ এর নর্দান রুটের কাজ শুরুর জন্য আমরা চেষ্টা করছি।’

এ ছাড়া সাউথদান রুট হলো, গাবতলী থেকে টেকনিক্যাল, কল্যাণপুর, শ্যামলী, কলেজ গেট, আসাদ গেট, রাসেল স্কয়ার, কারওয়ান বাজার, হাতিরঝিল, তেজগাঁও, আফতাব নগর, আফতাব নগর সেন্ট্রাল, আফতাব নগর পূর্ব, নাছিরাবাদ থেকে দাশেরকান্দি পর্যন্ত।

ঢাকায় মোট ৬ রুটে মেট্রোরেলের মহাপরিকল্পনা

সাউদার্ন রুটে ২০৩০ সালের মধ্যে গাবতলী থেকে দাশেরকান্দি পর্যন্ত ১৭ দশমিক ৪০ কিলোমিটার মেট্রোরেলপথ নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে পাতাল ১২ দশমিক ৮০ কিলোমিটার এবং উড়াল ৪ দশমিক ৬০ কিলোমিটার।

এতে মোট ১৬টি স্টেশন থাকবে, এর মধ্যে ১২টি পাতাল এবং চারটি উড়াল। এই প্রকল্পের প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই শেষ হয়েছে। প্রজেক্ট রেডিনেস ফাইনেন্সিংয়ের (পিআরএফ) জন্য উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সঙ্গে ঋণচুক্তিও সই হয়েছে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের কার্যক্রম রয়েছে চূড়ান্ত পর্যায়ে।

ডিএমটিসিএল সূত্র বলছে, এমআরটি-৫ এর দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০২৮ সালের মধ্যে নর্দান রুটের নির্মাণকাজ শেষ হবে। তৃতীয় পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৫ এর সাউদার্ন রুটের কাজ শেষ হবে।

এমআরটি-২ এবং ৪

২০৩০ সালের মধ্যে গাবতলী থেকে চট্টগ্রাম রোড পর্যন্ত উড়াল ও পাতাল সমন্বয়ে প্রায় ২৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এমআরটি লাইন-২ প্রকল্প গ্রহণ করেছে সরকার। এটি বাস্তবায়নে জিটুজি ভিত্তিতে পিপিপি পদ্ধতিতে নির্মাণের লক্ষ্যে জাপান ও বাংলাদেশ সরকার সহযোগিতা স্মারক সই করেছে।

অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর এই প্রকল্পে নীতিগত অনুমোদন দেয়। এমআরটি লাইন-২ এর পিপিপি গবেষণা শেষ করে ২০২০ সালের মার্চে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। এছাড়া পরামর্শক প্রতিষ্ঠান প্রথমিক সমীক্ষা করছে, যার অগ্রগতি ৫০ শতাংশ বেশি।

এমআরটি লাইন-৪ এরও নির্মাণকাজও ২০৩০ সালের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য সরকারের। পিপিপি পদ্ধতিতে কমলাপুর-নারায়ণগঞ্জ রেলওয়ে ট্রাকের পাশ দিয়ে প্রায় ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ হবে এই উড়াল মেট্রোরেল।

আরও পড়ুন:
এমআরটি পুলিশের অনুমোদন সোমবার
১০ মিনিট পরপর মেট্রোরেল, শুরুতে ছুটবে ২০০ যাত্রী নিয়ে
রঙিন হয়ে উঠছে মেট্রোরেলের সড়কদ্বীপ
মেট্রোরেল উদ্বোধন: ফ্ল্যাটে নতুন ভাড়াটে নয়, ছাদে কাপড় শুকাতে মানা
২৮ ডিসেম্বর মেট্রোরেল উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Former Vice President of Kishoreganj Chhatra League arrested

চিনি চোরাচালানে অভিযুক্ত কিশোরগঞ্জ ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি গ্রেপ্তার

চিনি চোরাচালানে অভিযুক্ত কিশোরগঞ্জ ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি গ্রেপ্তার কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি নাজমুল হীরা। ছবি: সংগৃহীত
ময়মনসিংহের গাঙিনারপাড় এলাকা থেকে শনিবার রাত দেড়টার দিকে হীরাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

চিনি চোরাচালানে অভিযুক্ত ও পর্নোগ্রাফি আইনে করা মামলার আসামি কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি নাজমুল হীরাকে বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ময়মনসিংহের গাঙিনারপাড় এলাকা থেকে শনিবার রাত দেড়টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে কিশোরগঞ্জের ১ নম্বর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. আশিকুর আদালতে রোববার দুপুরে পর্নোগ্রাফি আইনে হীরাসহ তিনজনের নামে মামলা করেন এক ছাত্রী। মামলার বাদী শহরের একটি সরকারি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি নাজমুল হোসেন হীরাকে। এ ছাড়া হীরার দুই মামা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন ও তার বড় ভাই মোশাররফ হোসেন মোল্লা বাবুলকে মামলার আসামি করা হয়েছে।

আসামিদের সবাই শহরের বয়লা তারাপাশা এলাকার বাসিন্দা।

কিশোরগঞ্জের ১ নম্বর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারী শিখা রাণী দাস এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

যা আছে এজাহারে

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালে দক্ষিণ কোরিয়া প্রবাসী এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে হয় কলেজপড়ুয়া তরুণীর। দাম্পত্য জীবনে বনিবনা না হওয়ায় বিয়ের এক মাস পরই তাদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় এবং তিনি বাবার বাড়িতে চলে আসেন। সেখান থেকে ফের কলেজে যাওয়া শুরু করেন।

কলেজে যাওয়ার পথে প্রায়ই তাকে প্রেম নিবেদন করতেন নাজমুল হোসেন হীরা। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে বিয়ের কথা বলে শারীরিক সম্পর্ক করেন হীরা। ওই সময় হীরা কৌশলে তাদের ব্যক্তিগত মুহূর্তের কিছু স্থিরচিত্র ও ভিডিও ধারণ করে রাখেন।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়, সম্পর্কের বিষয়টি হীরার মামা আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন ও মোশাররফ হোসেন মোল্লা বাবুলকে জানান মেয়েটি। তখন সুমন ও বাবুল মেয়েটিকে হুমকি দিয়ে বলেন, তাদের ভাগ্নের সঙ্গে বেশি বাড়াবাড়ি করলে শহরে থাকতে দেবেন না।

এভাবে ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে মেয়েটিকে বেশ কিছুদিন থামিয়ে রাখেন তারা। পরে বাধ্য হয়েই নাজমুল হীরার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক বজায় রাখতে হয় মেয়েটিকে। এভাবে টানা এক মাস অতিক্রান্ত হলে আবারও হীরাকে বিয়ের জন্য চাপ দেন তিনি।

একপর্যায়ে ২০২৩ সালের ৮ জুন গোপনে কাজী ডেকে বিয়েও করেন তারা। বিয়ের পরে তিনি জানতে পারেন, নাজমুল হীরা বিবাহিত; বাড়িতে তার স্ত্রী রয়েছে। বিষয়টি জানার পর মৌখিকভাবে হীরাকে তালাক দিয়ে চলে আসেন তিনি।

পরবর্তী সময়ে হীরা আবারও যোগাযোগ স্থাপন করে শারীরিক সম্পর্ক না রাখলে তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল করে দেয়ার হুমকি দেন। এভাবে মেয়েটিকে ব্ল্যাকমেইল করে দুইবারে পাঁচ লাখ টাকা আদায় করেন তিনি। এই টাকা দিয়ে একটি মোটরসাইকেল কেনেন তিনি।

এজাহারে বলা হয়, হীরার পর একই পন্থা অবলম্বন করেন তার মামা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন। তিনিও ভয় দেখিয়ে মেয়েটির কাছ থেকে টাকা আদায় করে একটি আইফোন ও একটি স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন কেনেন। সুমনের বড় ভাই মোশারফ হোসেন মোল্লা বাবুল আদায় করেন নগদ তিন লাখ টাকা। তিনিও কেনেন একটি পালসার মোটরসাইকেল।

এভাবে টাকা দিতে দিতে বর্তমানে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করেন তরুণী।

এজাহারে অভিযোগ করা হয়, এতকিছুর পরও তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হয়।

মেয়েটির অভিযোগ, ‘নাজমুল হীরার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন এবং যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়ার কারণেই সে এমনটা করেছে। আর এ ক্ষেত্রে তাকে সহযোগিতা করেছেন তার মামা সুমন ও বাবুল।’

হীরা ও আনোয়ারের ভাষ্য

গতকাল এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাজমুল হোসেন হীরা বলেন, ‘যিনি মামলা করেছেন, তিনি তার বিবাহিত স্ত্রী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটির বিষয়ে আমি নিজেও মামলা করেছি।

‘সে মামলায় আমার স্ত্রী সাক্ষী। কিছু লোকের কুপরামর্শে সে হয়তো এমনটা করেছে।’

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন ঘটনাটিকে ‘ষড়যন্ত্র’ উল্লেখ করে বলেন, ‘আমার ভাগ্নে হীরার সঙ্গে মেয়েটির বিয়ে হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপত্তিকর ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার বিষয়ে ঢাকা সাইবার ট্রাইব্যুনালে হীরা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছিল, কিন্তু এখন কী কারণে মেয়েটি ভাগ্নের বিষয় টেনে এনে বড় ভাইসহ আমাকে মামলার আসামি করেছে, সেটা আমার বোধগম্য হচ্ছে না।’

চিনি চোরাচালানে অভিযুক্ত

ভারত থেকে চোরাচালানের মাধ্যমে চিনি এনে দেশে বিক্রি চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন ও তার স্বজন নাজমুল হীরার বিরুদ্ধে। এ নিয়ে নিউজবাংলায় সম্প্রতি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।

ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, হীরা নিজেও ছাত্রলীগের কমিটিতে ছিলেন। সুমন-হীরা একা নন, তাদের অনুসারীরাও এ কর্মকাণ্ডে জড়িয়েছেন। এ বিষয়ে হোয়াটসঅ্যাপে কথোপকথনের স্ক্রিনশট ফাঁস হয়েছে।

সম্প্রতি চোরাচালানের চিনিসহ একটি ট্রাক আটক করে পুলিশ। ট্রাকটি সুমন ও হীরার ঘনিষ্ঠ একজন আনেন বলে খবর চাউর হয়। অথচ মামলার আসামি করা হয় ছাত্রলীগের অন্য এক নেতাকে। ওই নেতার দাবি, চোরাই চিনিবোঝাই ট্রাক ধরিয়ে দিতে তিনি সহযোগিতা করেছেন।

দেশে প্রতি কেজি চিনির দাম ১৪০ টাকা হলেও ভারতে দাম ৫০ রুপির মতো। ফলে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে অনেকে চিনি নিয়ে এসে অবৈধভাবে দেশে বিক্রি করেন। সম্প্রতি সিলেট ছাত্রলীগের একাধিক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে চিনি চোরাকারবারে সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠেছে।

আরও পড়ুন:
কিশোরগঞ্জে ক্যারিয়ারের দিকনির্দেশনা পেলেন শিক্ষার্থীরা
‘ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিন হত্যাকারীদের খুঁজে বের করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’
ছাত্রলীগ নেতা হত্যা: মানববন্ধনে নিস্তব্ধতা, গ্রেপ্তার ১
লিজগ্রহীতাকে না জানিয়ে সম্পত্তি বিক্রির অভিযোগ 
‘রিমালে’ ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে ছাত্রলীগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Farmers League leader accused of stealing goats under suspicion

‘সন্দেহের বসে’ ছাগল চুরিতে অভিযুক্ত কৃষক লীগ নেতা

‘সন্দেহের বসে’ ছাগল চুরিতে অভিযুক্ত কৃষক লীগ নেতা ছাগল চুরির ঘটনায় অভিযুক্ত নেতা সানাউল হক হিরো (বাঁয়ে) এবং ছাগলের মালিক অভিযোগকারী জাহেরা বেগম। কোলাজ: নিউজবাংলা
জাহেরা বেগম নামে এক নারী শুক্রবার তাকে বিবাদী করে থানায় ছাগল চুরির অভিযোগ করেন। এরপর কিছু সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে এলাকায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। তবে হয়রানির জন্যই এমন অভিযোগ করা হয়েছে বলে দাবি ওই কৃষকলীগ নেতার।

নওগাঁর বদলগাছীতে ব্যক্তিগত আক্রোশ ও পারিবারিক শক্রতার জেরে বদলগাছী উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতির বিরুদ্ধে ছাগল চুরির অপবাদ এনে হয়রানি করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন অভিযুক্ত নেতা সানাউল হক হিরো।

একই এলাকার জাহেরা বেগম নামে এক নারী শুক্রবার তাকে বিবাদী করে থানায় ছাগল চুরির অভিযোগ করেন। এরপর কিছু সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে এলাকায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। তবে হয়রানির জন্যই এমন অভিযোগ করা হয়েছে বলে দাবি ওই কৃষকলীগ নেতার।

বদলগাছী উপজেলার সদর ইউনিয়নের মাস্টারপাড়া এলাকার বাসিন্দা সানাউল হক বর্তমানে বদলগাছী উপজেলার কৃষকলীগের সভাপতি।

স্থানীয়রা জানান, ওই এলাকার বাসিন্দা চা দোকানি জাহেরা বেগমের সঙ্গে ছানাউল হোসেন হিরোর পারিবারিক বিষয়ে বিরোধ চলছিল। এই বিরোধের জের ধরে গত শনিবার (১৫ জুন) দুপুরে জাহেরা বেগমের আনুমানিক ২৬ হাজার টাকা মূল্যের একটি ছাগল (খাসি) বিবাদী হিরোর বাড়ির গেটে গেলে এরপর ছাগলটি (খাসি) অনেক খোঁজাখুঁজি করে পায়নি ভুক্তভোগী ওই নারী। পরে বিভিন্নভাবে তিনি জানতে পারেন, ছাগলটি চুরি করে অন্যের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন হিরো।

এ ঘটনায় তিনি থানায় অভিযোগ এবং বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশের পর এলাকায় সমালোচনার ঝড় ওঠে।

তবে সরেজমিনে গিয়ে সব কিছুতে অস্পষ্টতা চোখে পড়েছে নিউজবাংলার। অভিযোগপত্রে উল্লিখিত সাক্ষী ও বিবাদীদের কেউেই ছাগল চুরির বিয়টি স্বচক্ষে দেখেননি। সন্দেহের বশবর্তী হয়ে বিবাদীকে অভিযুক্ত করেছেন ছাগলের মালিক জাহেরা বিবি।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা রতন ও শাহীনের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার। তারা বলেন, জাহেরা বেগমের সঙ্গে উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি সানাউল হক হিরোর সঙ্গে বিগত ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছে। এর আগেও জাহেরা বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগ দিয়ে হিরোকে হয়রানি ও সন্মানহানির চেষ্টা করেছে।

অভিযোগপত্রে উল্লিখিত সাক্ষীদের অন্যতম স্থানীয় বাসিন্দা সানজিদা বলেন, ‘আমরা ছাগল চুরির ব্যপারে কিছুই জানি না। কে বা কারা নিয়েছে বলতে পারছি না। তবে ছাগলটিকে হিরোর বাড়ির সামনে তার ছাগলের সঙ্গে দেখেছিলাম। একটু পর শুনি, ছাগল নাকি হারায় গেছে। আমি ছাগলটাকে হিরোর বাড়ির সামনে দেখেছিলাম, এটুকুই ছাগল মালিককে বলেছি। তবে ছাগল চুরির বিষয়টি আমি নিজ চোখে দেখিনি।’

স্থানীয় আবু বক্কর পলাশ বলেন, ‘এ এলাকায় নেশাখোর বা মাদকসেবীরা প্রতিনিয়ত এসব কাজ করে। এটা তাদের কাজও হতে পারে।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জাহেরা বেগম বলেন, ‘হিরোর সঙ্গে আমাদের পরিবারের অনেক দিনের ঝামেলা। এর আগে, ঈদের সময় তার সঙ্গে ঝামেলা ও ঝগড়া হলে আমার ছাগল হারিয়ে যায়; এবারও একই ঘটনা ঘটেছে।’

ছাগল চুরি করতে তিনি নিজে বা সাক্ষীরা কেউ দেখেছেন কি না- জানতে চাইলে এই নারী বলেন, ‘ছাগল চুরি করতে আমি বা যে সাক্ষীর নাম দিয়েছি অভিযোগপত্রে তারা কেউ দেখেননি। তবে আমার সন্দেহ যে, হিরোই ছাগল চুরি করেছে। তার সঙ্গে ঝগড়া হলেই এর দুদিন বাদে আমার জিনিস হারায়। সেই সন্দেহের বসে আমি তার নামে অভিযোগ করেছি।’

তবে অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে সানাউল হক হিরো বলেন, ‘আমাকে সামাজিকভাবে হয়রানি করার জন্যই এমন অভিযোগ করা হয়েছে, যা সাজানো নাটক। বংশগতভাবে এবং ব্যবসা করে যা আয় উর্পাজন করি, তা-ই আমার ও পরিবারের জন্য যথেষ্ট। অন্যের ছাগল কেন ছুরি করতে যাব?’

প্রতিবেশী জাহেরার সঙ্গে পূর্বশত্রুতার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘এর আগেও আমার নামে বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। এই মহিলা অত্যন্ত খারাপ প্রকৃতির মানুষ। বিভিন্নভাবে মানুষের নামে অভিযোগ দিয়ে তাদের হয়রানি করে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এলাকার প্রভাবশালী মহলের চক্রান্তে আমার বিরুদ্ধে চুরির এই অভিযোগ করেছে সে (জাহেরা)। এই মিথ্যা অভিযোগের ফলে পরিবার নিয়ে আমি অপমানজনক পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছি। আমি চাইব, এই ঘটনার সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে প্রকৃত দোষী ব্যক্তিকে আইনের আওতায় আনা হোক।’

বদলগাছী থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘জাহেরা বেগম নামের একজন ছাগল চুরির ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। যতটুকু জেনেছি, তাদের মধ্যে পারিবারিক গণ্ডগোল আছে। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা দরকার। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে । শিগগিরিই ছাগল চুরির সঠিক কারণ জানা যাবে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
England in the semi finals after stopping the dream of the United States

যুক্তরাষ্ট্রের স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে সেমিতে ইংল্যান্ড

যুক্তরাষ্ট্রের স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে সেমিতে ইংল্যান্ড ম্যাচ জয়ের পর সল্টের সঙ্গে বাটলারের উদযাপন। ছবি: সংগৃহীত
১১৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৯.৪ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় ইংল্যান্ড। ব্যাট হাতে ৩৮ বলে ৮৩ রান করেছেন বাটলার। এই রান করতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বোলারদের তুলোধুনা করেন তিনি।

সেমি-ফাইনাল নিশ্চিত করতে দক্ষিণ আফ্রিকার নেট রান রেট (0.৬২৫) টপকে যাওয়া লাগত ইংল্যান্ডের। প্রথম ইনিংসে ক্রিস জর্ডানের হ্যাটট্রিক ও আদিল রশিদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে ১১৫ রানে গুটিয়ে দিয়ে, দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং ঝড় তোলেন অধিনায়ক জস বাটলার। আর তাতেই হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিতে হয়েছে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রকে।

১১৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৯.৪ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় ইংল্যান্ড। ব্যাট হাতে ৩৮ বলে ৮৩ রান করেছেন বাটলার। এই রান করতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বোলারদের তুলোধুনা করেন তিনি। ৭টি ছক্কা ও ৬টি চার মেরে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন বাটলার। তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন আরেক ওপেনার ফিলিপ সল্ট। তিনি ২১ বলে ২৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন। এই রান করতে গিয়ে মাত্র দুটি চার মারেন সল্ট।

জর্ডানের হ্যাটট্রিকসহ চার উইকেট এবং বাটলারের ৩৮ বলে ৮৩ রানের ইনিংস সত্ত্বেও নিয়ন্ত্রিত বোলিং আর প্রয়োজনীয় মুহূর্তে দলকে উইকেট এনে দিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন আদিল রশিদ।

৬২ বল ও ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানের জয়ে নেট রান রেটে লম্বা লাফ দিয়েছে ইংল্যান্ড। ০.৪১২ থেকে ১ দশমিক ৯৯২ রান রেট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে সুপার এইট শেষ করেছে ইংলিশরা।

এর ফলে দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের জন্য অপেক্ষা না করেই সেমি-ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেছে জস বাটলার অ্যান্ড কোং।

পাশাপাশি, স্বাগতিক দেশ হওয়ার সুবাদে বিশ্বকাপের মতো আসর দিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট শুরু করা যুক্তরাষ্ট্রের স্বপ্নযাত্রা থেমেছে সুপার এইট অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে। সবাইকে চমকে দিয়ে সুপার এইট নিশ্চিত করলেও এই পর্বের কোনো ম্যাচই জিততে পারেনি অ্যারন জোন্সের দল। ফলে অনেক অর্জনের সঙ্গে শূন্য হাতেই ফিরতে হচ্ছে তাদের।

অন্যদিকে, দুই ম্যাচে দুই জয় পেয়ে শূন্য দশমিক ৬২৫ নেট রান রেট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে নেমেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তাদের পয়েন্ট চার। আরেক স্বাগতিক দেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ একটি ম্যাচ জিতে ২ পয়েন্ট সংগ্রহ করলেও তাদের নেট রান রেট অনেক বেশি (১.৮১৪)। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচটিতে যারা জিতবে, তারাই সেমি-ফাইনালে উঠে যাবে।

ম্যাচটি জিতলে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থাকবে দক্ষিণ আফ্রিকা। আর ক্যারিবীয়রা জিতলে প্রোটিয়াদের সমান ৪ পয়েন্ট নিয়েও নেট রান রেটে অনেক এগিয়ে থেকে সেমিতে চলে যাবে নিকোলাস পুরানের দল।

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরই সোমবার ভোর সাড়ে ৬টায় অ্যান্টিগার স্যার ভিভিয়ান রিচার্ড স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে।

আরও পড়ুন:
জর্ডানের হ্যাটট্রিকে ১১৫ রানে গুটিয়ে গেল যুক্তরাষ্ট্র
টস জিতে বোলিং করছে ইংল্যান্ড
অজিদের বধ করে ইতিহাস আফগানদের
ভারতের বিপক্ষেও হেরে বিদায় প্রায় নিশ্চিত বাংলাদেশের
সুপার এইটে হার দিয়ে শুরু বাংলাদেশের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Concerns of the Editorial Board regarding the letter from the Police Service Association

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ
প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

দেশের সব গণমাধ্যমের সম্পাদক বরাবর দেয়া বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠির বিষয়ে উদ্বেগ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সম্পাদক পরিষদ।

রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রতিবাদ জানায় পরিষদ। খবর বাসসের

প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

পরিষদ মনে করে, যারা এসব খবর প্রকাশ করেছেন তাদের দায়িত্ব পালন নিয়ে সংশয় থাকলে যথাযথ নিয়ম ও বিধি অনুসরণ করে সংশ্লিষ্ট সংস্থা প্রেস কাউন্সিলের দ্বারস্থ হতে পারে। তা না করে প্রতিবাদের মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সম্পর্কে কোনো ধরনের রিপোর্ট প্রকাশের ক্ষেত্রে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বনের নামে গণমাধ্যমকে হুমকি দেয়া হয়েছে, যা স্বাধীন গণমাধ্যম ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা চর্চার পরিপন্থি।

পাশাপাশি ভবিষ্যতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের নীতি বাস্তবায়নে গণমাধ্যমকর্মীদের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় পুলিশ বাহিনীর সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেছে পরিষদ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The A League leader has withdrawn the announcement of the prize for Russells viper

রাসেল’স ভাইপার নিয়ে পুরস্কারের ঘোষণা প্রত্যাহার আ.লীগ নেতার

রাসেল’স ভাইপার নিয়ে পুরস্কারের ঘোষণা প্রত্যাহার আ.লীগ নেতার পুরস্কারের ঘোষণা শুনে জীবিত রাসেলস ভাইপার ধরে শনিবার ফরিদপুর বনবিভাগের অফিসে হাজির হন রেজাউল। কোলাজ: নিউজবাংলা
প্রথমে রাসেলস ভাইপার সাপ মারতে পারলে এবং পরে জীবিত ধরতে পারলে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়া হবে- এমন ঘোষণা দিয়ে হুলস্থুল কাণ্ড বাঁধিয়ে ফেলেন ওই নেতা।

জীবিত হোক বা মৃত, কোনো প্রকার রাসেল’স ভাইপার সাপের জন্য কোনো পুরস্কার নেই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক। প্রথমে রাসেলস ভাইপার সাপ মারতে পারলে এবং পরে জীবিত ধরতে পারলে ওই ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়া হবে- এমন ঘোষণা দিয়ে হুলস্থুল কাণ্ড বাঁধিয়ে ফেলেন তিনি।

এরপর রোববার দুপুরে নিজের ফেসবুক আইডিতে এ-সংক্রান্ত একটি পোস্ট দেন শামীম হক।

এর আগে, বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনের প্রস্তুতি সভার বিবিধ আলোচনায় শামীম হক ফরিদপুরে রাসেলস ভাইপার সাপ মারতে পারলে ওই ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়া হবে বলে ঘোষণা দেন।

সেসময় সাধারণ সম্পাদক ইশতিয়াক আরিফ এই ঘোষণার পুনরাবৃত্তি করে বলেন, ‘শুধুমাত্র কোতোয়ালি থানার মধ্যে কেউ এই সাপ মারতে পারলে তাকে এই টাকা পুরস্কার দেয়া হবে। আমাদের সভাপতি সাহেব এই টাকা দেবেন।’

ঘোষণার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গণমাধ্যমে খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। পুরস্কার পেতে বিভিন্ন জায়গায় সাপ মারার উৎসাহ ছড়িয়ে পড়ে। সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের দুর্গম চরের ৩৮ দাগ এলাকায় শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে জমিতে ঘাস কাটার সময় একটি রাসেলস ভাইপার সাপ দেখতে পেয়ে সেটি লাঠির আঘাতে মেরে ফেলেন ওই গ্রামের মুরাদ মোল্লা নামের ৪৩ বছর বয়সী এক কৃষক। এরপর তিনি সাপটি পদ্মা পাড়ি দিয়ে সিএন্ডবি ঘাটে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন আবু ফকিরের অফিসে নিয়ে যান। আবু ফকির তখন সাংবাদিকদের জানান, মুরাদ মোল্লাকে সভাপতি ঘোষিত পুরস্কার দেয়া হবে।

তবে জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা এই পুরস্কারের ঘোষণার পর বনবিভাগের পক্ষ থেকে এটি আইনসিদ্ধ নয় বলে সমালোচনা করা হয়। এরপর অবশ্য রাসেলস ভাইপার সাপ মেরে ফেললে পুরস্কার দেয়ার আগের ঘোষণা থেকে সরে এসে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়, মেরে ফেললে নয়, জীবিত অবস্থায় রাসেলস ভাইপার ধরতে পারলে পুরস্কার দেয়া হবে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ আলী আশরাফ পিয়ার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফরিদপুর সদর উপজেলাধীন কেউ যদি নিজেকে রক্ষাকারী পোশাক সম্বলিত হয়ে এবং সব ধরনের সাবধানতা অবলম্বন করে জনস্বার্থে রাসেলস ভাইপার সাপটি জীবিত অবস্থায় ধরতে পারেন, তবে তাকে ৫০ হাজার টাকায় পুরস্কৃত করা হবে।

এই ঘোষণা পর আবার স্থানীয়দের মাঝে জীবিত সাপ ধরার উৎসাহ সৃষ্টি হয়।

পরের দিন (শনিবার) সকালে পদ্মার চর থেকে একটি জীবিত রাসেলস ভাইপার সাপ ধরেন রেজাউল নামের এক যুবক। শনিবার সন্ধ্যায় পাতিলের মধ্যে সাপটি নিয়ে ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সামনে হাজির হন সদর উপজেলার আলিয়াবাদ ইউনিয়নের কাদেরের বাজার ওই ব্যক্তি।

রেজাউল বলেন, ‘সকালে চরের মধ্যে থেকে ধরছি। সাপটা হাইট্যা যাইতেছিল। গায়ের গেঞ্জি ছুড়ে ওকে ধরছি।’

তিনি বলেন, ‘নেতারা পুরস্কার ঘোষণা করছেন। এজন্য রিস্ক নিয়ে ধরছি। এখন বনবিভাগে জমা দিতে আইছি।’

তবে রোববার দুপুরে ফরিদপুরের বনবিভাগের অফিসে সাপটি নিয়ে গেলে তাকে সাপসহ ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়।

ফরিদপুরের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা গোলাম কুদ্দুস ভূঁইয়া বলেন, ‘এ ধরনের পুরস্কার ঘোষণা করাটাই তো অবৈধ। মানুষকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলা! আমরা এটা প্রমাণ করতে যাব কেন? ওই কৃষকের উচিৎ হবে, যেখান থেকে সাপটি ধরেছেন ওই স্থানেই ছেড়ে দেয়া।’

এদিকে রোববার দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক পুরস্কারের ঘোষণা প্রত্যাহারের বিষয়টি জানিয়ে সকলকে রাসেলস ভাইপার সাপ মারা বা ধরার চেষ্টা থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ জানান।

শামীম হক তার ফেসবুক পোস্টে লেখেন, জীবিত বা মৃত কোনো প্রকার রাসেলস ভাইপারের জন্য কোনো পুরস্কার নেই।

তিনি লেখেন, বর্তমানে রাসেলস ভাইপার একটি আলোচিত বিষয়, পাশাপাশি জনগণের জন্য হুমকিস্বরূপ। এটি অত্যন্ত বিপজ্জনক বিধায় যেকোনো পুরস্কার বা কৌতূহলবশত এই সাপ নিয়ে অতি উৎসাহী হবেন না। জীবিত বা মৃত কোনো প্রকার রাসেলস ভাইপারের জন্য কোনো পুরস্কার নেই।

তিনি আরও লেখেন, সাপ দেখলে তা ধরা বা মারার চেষ্টা করবেন না। প্রয়োজনে জাতীয় হেল্পলাইন ৩৩৩ নম্বরে কল করুন অথবা নিকটস্থ বন বিভাগের অফিসকে অবহিত করুন।

আরও পড়ুন:
রাসেল ভাইপার নিয়ে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রাসেল ভাইপার নিয়ে গুজব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A pacemaker was installed in Khaleda Zias heart

খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেসমেকার বসানো হলো

খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেসমেকার বসানো হলো বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি
রোববার সন্ধ্যায় এ তথ্য জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেসমেকার বসানো হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যায় এ তথ্য জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

তিনি বলেন, ‘ম্যাডামের হৃদরোগের সমস্যা আগে থেকেই ছিল। হার্টে ব্লকও ধরা পড়েছিল। সেখানে একটা স্টেন্টও (রিং) লাগানো ছিল। সব কিছু পর্যালোচনা করে মেডিক্যাল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তার হার্টে পেসমেকার বসানো হয়েছে।’

পেসমেকার হলো হৃৎস্পন্দন নিয়মিত রাখার কৃত্রিম বৈদ্যুতিক যন্ত্র, যা বৈদ্যুতিক স্পন্দন তৈরি করে হৃদপেশিতে পাঠায় এবং হৃদপিণ্ডের গতিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

এর আগে শুক্রবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে খালেদা জিয়াকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৭৯ বছর বয়সি খালেদা জিয়া আর্থরাইটিস, হৃদরোগ, ফুসফুস, লিভার, কিডনি, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছেন।

দুর্নীতির দুই মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাবন্দি হন। দুই বছরের বেশি সময় কারাবন্দি ছিলেন তিনি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সাজা ২০২০ সালের ২৫ মার্চ সরকার নির্বাহী আদেশে স্থগিত করে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দিয়েছিল। তখন থেকে ৬ মাস পরপর তার সাজা স্থগিত করে মুক্তির মেয়াদ বাড়াচ্ছে সরকার।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
ASI shot with his own pistol

নিজের পিস্তলের গুলিতে বিদ্ধ এএসআই

নিজের পিস্তলের গুলিতে বিদ্ধ এএসআই বাংলাদেশ পুলিশের লোগো। ফাইল ছবি
আহত অবস্থায় তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ভোলার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পরবর্তীতে তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ভোলার ইলিশা নৌ-থানায় পুলিশের এক সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। টেবিলের ওপর রাখা পিস্তল থেকে অসাবধানতাবশত গুলি বের হয়ে মোকতার হোসেন নামের পুলিশের ওই কর্মকর্তা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে জানা গেছে।

ইলিশা নৌ-থানার ভেতরে রোববার বিকেলের দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আহত অবস্থায় তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ভোলার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পরবর্তীতে তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

গুলিবিদ্ধ এএসআই মোক্তার হোসেন ইলিশা নৌ-থানায় প্রায় দুই বছর ধরে কর্মরত। তার বাড়ি চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে।

ঘটনার পর সন্ধ্যার দিকে পূর্ব ইলিশা সদর নৌ-থানা পরিদর্শনে যান ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রিপন কুমার সরকার।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, নৌ-থানার এএসআই মোক্তার হোসেন ডিউটিতে যাওয়ার জন্য অস্ত্রাগার থেকে অস্ত্র বুঝে নেয়ার সময় মিস-ফায়ার হয়ে গুলিবিদ্ধ হন। প্রত্যক্ষদর্শী কেউ থানায় না থাকায় এর বেশি জানা যায়নি। ঘটনাটি নৌ-থানায় ঘটায় এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কীভাবে ওই এএসআই গুলিবিদ্ধ হলেন, তা তদন্ত হলে জানা যাবে।’

তিনি জানান, ঘটনার সময় থানায় ৮ জন পুলিশ সদস্য ছিলেন। মোকতার বিশেষ অভিযানে চট্টগ্রামের কাপ্তাই যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তবে আহত হওয়ার পর তাকে নিয়ে ওসি ও দুজন কনস্টেবল বরিশাল গিয়েছেন; বাকি ৫ জন থানায় আছেন।

এই ঘটনা সম্পর্কে জানতে একাধিকবার সংশ্লিষ্ট থানার ওসি বিদ্যুৎ বড়ুয়াকে ফোন দিলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

তবে একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে, বিভিন্ন নৌ-ঘাটের উপরি টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে নৌ-থানার ওসির সঙ্গে এএসআই মোক্তার হোসেনের দীর্ঘদিন ধরে ঝামেলা চলে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় এই ঘটনা ঘটেছে।

আরও পড়ুন:
সহকর্মীকে গুলি করে হত্যার মামলায় কনস্টেবল কাওসার রিমান্ডে
বারিধারায় পুলিশের গুলিতে পুলিশ নিহত: পূর্ণাঙ্গ তদন্তের ঘোষণা আইজিপির
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্ব খোয়ালেন পুলিশ সদস্য
এক এসআইয়ের মাথা ফাটালেন আরেক এসআই
৪ বছর ধরে সরকারি গাড়ি পারিবারিক কাজে ব্যবহার করছেন পরিদর্শক শাহানুর

মন্তব্য

p
উপরে