× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Awami League established the right to vote Sheikh Hasina
google_news print-icon

আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করেছে ভোটের অধিকার: শেখ হাসিনা

আওয়ামী-লীগই-প্রতিষ্ঠা-করেছে-ভোটের-অধিকার-শেখ-হাসিনা
রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের ২২তম কেন্দ্রীয় সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্য দেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: আওয়ামী লীগের ফেসবুক পেজ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভোট দেয়ার যে অধিকার, সাংবিধানিক অধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার, সেই অধিকার আওয়ামী লীগই নিশ্চিত করেছে। আমি জানি, এই ভোট অনেকেই কন্ট্রোভার্সিয়াল করতে চায়, অনেকে অনেক কথা বলেন, কিন্তু আমরা সেটা করেছি।’

ভোটকে বিতর্কিত করে নানা মানুষ নানা কথা বললেও এ দেশের মানুষের নিজের ভোট নিজে দেয়ার যে সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার রয়েছে, তা আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও যুদ্ধের জের ধরে দেয়া নিষেধাজ্ঞা ও পাল্টা নিষেধাজ্ঞা দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় অন্তরায় হিসেবে চিহ্নিত করেছেন সরকারপ্রধান। তাই রাশিয়া-ইউক্রেনকে উসকানি না দিয়ে যুদ্ধ বন্ধ ও নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের ২২তম কেন্দ্রীয় সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভোট দেয়ার যে অধিকার, সাংবিধানিক অধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার, সেই অধিকার আওয়ামী লীগই নিশ্চিত করেছে। আমি জানি এই ভোট অনেকেই কন্ট্রোভার্সিয়াল করতে চায়, অনেকে অনেক কথা বলেন, কিন্তু আমরা সেটা করেছি।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে তার সরকার আইন করে দিয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সেই আইন মোতাবেকই মহামান্য রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটি করে নির্বাচন কমিশন গঠন করছে। সেখানে আমরা আওয়ামী লীগ কোনো হস্তক্ষেপ করি না। নির্বাচন কমিশনকে সম্পূর্ণ স্বাধীন করে দিয়েছি।’

আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করেছে ভোটের অধিকার: শেখ হাসিনা

আগে নির্বাচন কমিশনের নিজস্ব আর্থিক সক্ষমতা ছিল না জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে এটা রাখা ছিল। আমরা সেটা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে সম্পূর্ণ নির্বাচন কমিশনকে, এই আর্থিক সক্ষমতা তাদের তাদের হাতে দিয়ে দিয়েছি। বাজেট থেকে সরাসরি তাদের টাকা দেয়া হয়। যাতে তারা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে, সেই ব্যবস্থা করেছি। ভোটার আইডি তৈরি করেছি। ইভিএম কিছু কিছু চালু হয়েছে। সেখানে কারচুপি করার কোনো সুযোগ আছে বলে আমরা জানি না।’

তিনি বলেন, ‘২০২২ সালের ২৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন-২০২২ আমরা পাস করে দিয়েছি। আমাদের যদি জনগণের ভোট চুরির দুরভিসন্ধি থাকত, তাহলে আমরা সেটা কেন করব? খালেদা জিয়ার মতো ওই আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন আমরা করতাম, তাতো আমরা করি নাই। আমাদের জনগণের ওপর আস্থা আছে, বিশ্বাস আছে, সেই বিশ্বাস নিয়েই আমরা চলি।’

১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনের কথা স্মরণ করে বলেন, ‘খালেদা জিয়া ভোট চুরি করে নিজেকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু কারও ভোট চুরি করলে বাংলাদেশের মানুষ তা মেনে নেয় না। এ দেশের মানুষ মেনে নেয়নি। তখন গণ-অভ্যুত্থান হয়েছিল, আন্দোলন হয়েছিল। খালেদা জিয়া ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল। আর ৩০ মার্চ পদত্যাগে বাধ্য হয়েছিল। বাংলার জনগণ তাকে বাধ্য করেছিল।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের নির্বাচন কী ছিল? নির্বাচন মানেই ছিল, আমরা যেটা বলতাম ১০টা হোন্ডা, ২০টা গুন্ডা নির্বাচন ঠান্ডা। এই নির্বাচনি সংস্কার, এটা কিন্তু আমরা আওয়ামী লীগ, ১৪ দল, মহাজোট মিলে আমরা একটা প্রস্তাব দিয়েছি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর যে কাজ করুক, আমাদের জেল খাটাক আর যা-ই করুক তারা অন্তত সেই প্রস্তাবের কিছু কাজ বাস্তবায়ন করে গেছে।’

ছবিসহ ভোটার তালিকা, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সের প্রচলন আওয়ামী লীগের সদিচ্ছার কারণেই বাস্তবায়ন হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

উসকানি থামান, যুদ্ধ বন্ধ করুন

বিশ্বজুড়ে শান্তি স্থাপনে ও সাধারণ মানুষের কল্যাণের কথা ভেবে রাশিয়া-ইউক্রেনকে আর উসকানি না দিয়ে যুদ্ধ বন্ধ ও নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বিশ্ব নেতাদের ভূমিকা নিয়ে আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘সব বন্ধ্যত্ব কাটিয়ে আমরা দুর্দান্ত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছি। এই যে বাংলাদেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, একটা বাধা করোনা আর যুদ্ধ। এ জন্য আমার আহ্বান, আমরা যুদ্ধ চাই না। ওই যুদ্ধ চাই না, স্যাংশন চাই না। ওগুলো বন্ধ করেন। সব দেশ স্বাধীন। স্বাধীনভাবে চলার অধিকার আছে। এই অধিকার সব দেশের থাকতে হবে। যুদ্ধ মানুষের ক্ষতি করে। যুদ্ধের ভয়াবহতা কী আমরা জানি। ওই ১৯৭১ সালে বন্দিখানায় ছিলাম। আমার প্রথম সন্তান জয় ওই বন্দিখানায় জন্ম নিয়েছিল। আমাদের পাকিস্তান হানাদার বাহিনী একটা কম্বল দিয়েছিল।’

যুদ্ধকালের নিজ পরিবারের অবর্ণনীয় কষ্টের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সব থেকে বেশি মেয়েরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় যুদ্ধের সময়। শিশুরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাদের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়। এই জন্য যুদ্ধ চাই না। আমি বিশ্ব নেতৃত্বের কাছে আহ্বান করব, ওই ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ বন্ধ করেন। তাদের উসকানি দেয়া বন্ধ করেন। শান্তি চাই।’

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও যুদ্ধের জের ধরে দেয়া নিষেধাজ্ঞায় অর্থনৈতিক সংকটের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্ব ক্ষতিগ্রস্ত। উন্নত ধনী দেশগুলো আজকে অর্থনৈতিক মন্দায় ভুগছে। বাংলাদেশে আমরা এখনও আমাদের অর্থনীতি সচল রাখতে পেরেছি। কিন্তু তার পরও এর আঘাতটা তো আমাদের ওপরে আসবে।’

কোভিড থেকে বেরিয়ে আসতে না আসতেই এই যুদ্ধ সব অগ্রযাত্রা নষ্ট করছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই শীতের মধ্যে আজকে তারা বিদ্যুৎ পায় না। যান ইউক্রেনের শিশুদের অবস্থা, শুধু ইউক্রেন কেন, উন্নত দেশগুলোর অবস্থা আপনারা দেখেন। কতভাগ তারা বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে। আমরা বাংলাদেশ এখনও ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছি। সেই জন্য আমি আহ্বান করেছি সবাইকে, যার যেটুকু জমি আছে চাষ করেন, উৎপাদন করেন।’

‘দুর্নীতি করে টাকা বানাতে আসিনি’

প্রধানমন্ত্রী তার দীর্ঘ বক্তব্যে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের গৌরবগাথাও তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের ওপর দুর্নীতির অভিযোগ এসেছিল। দুর্নীতি করে টাকা বানাতে আসিনি। আমার বাবা রাষ্ট্রপতি ছিলেন, প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আর আমি চার চারবার প্রধানমন্ত্রী। আমাদের পরিবার দুর্নীতি যদি করত, তাহলে দেশের মানুষকে কিছু দিতে পারতাম না। আমরা দেশের মানুষকে দিতে এসেছি, মানুষের জন্য করতে এসেছি। এ কারণেই বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে- এটা অন্তত আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের মেয়ে মেনে নিতে পারি না।’

নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণে দেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগই পারে দেশের উন্নয়ন করতে, এটাই বাস্তবতা।’

করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে সরকারের সাফল্য, করোনা প্রতিরোধে বিনা মূল্যে টিকা দেয়া এবং ব্যবসায়ীদের প্রণোদনা দেয়ার বিষয়গুলো তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

‘জীবন থাকতে দেশের স্বার্থ নষ্ট হবে না’

১৯৯৬ সালে প্রথমবারের মতো সরকার গঠন করে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার আওয়ামী লীগের অবদান তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তবে ২০০১ সালের নির্বাচনে হেরে যাওয়ার বিশদ বিবরণ না দিলেও দিয়েছেন ইঙ্গিত।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে এতটুকু স্বার্থ আমার জীবন থাকতে নষ্ট হবে না। কারও হাতে তুলে দেব না। আমার এই প্রতিজ্ঞাই ছিল। হয়তো সে কারণে আমরা আবার আসতে পারিনি। তাতে আমার কোনো আফসোস নেই।’

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর দেশের মানুষের ওপর আবার শোষণ, বঞ্চনা শুরু হয় বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা কী চেয়েছিলেন? তিনি চেয়েছিলেন, এ দেশটি হবে ক্ষুধা-দারিদ্র্য মুক্ত সোনার বাংলাদেশ। অর্থাৎ প্রতিটি মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষা- এই সুযোগ তিনি করে দিয়ে এ দেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করতে চেয়েছিলেন। দুর্ভাগ্যের বিষয় তিনি তা পারেননি।’

৬ বছরের নির্বাসন জীবন ছেড়ে ১৯৮১ সালে ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সময়ে দেশে ফেরার কারণ তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই স্বাধীনতা যাতে ব্যর্থ না হয়, স্বাধীনতার ‍সুফল যেন বাংলার মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছায়, তৃণমূলের মানুষ যেন সেই সুযোগ পায়, সেটা নিশ্চিত করাই ছিল আমার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সরকার গঠন করার পর থেকে এই বাংলাদেশকে কিন্তু এগিয়ে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছি।’

টানা তিন মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে বলেই দেশকে উন্নয়নের পথে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরিসহ এ খাতে সরকারের সাফল্য তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যমূল্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় কিছুদিন লোডশেডিং দিতে হয়েছে বলে জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখন ধীরে ধীরে সেখান থেকে আমরা বেরিয়ে এসেছি। কিন্তু আমার অনুরোধ থাকবে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে, মিতব্যয়ী হতে হবে। কারণ এই বিদ্যুৎ উৎপাদন, গ্যাস ক্রয়ে অনেক খরচ হয়, এ কথা মাথায় রাখতে হবে।’

আরও পড়ুন:
জীবন থাকতে দেশের স্বার্থ নষ্ট হবে না: শেখ হাসিনা
৩০ ডিসেম্বর ঘোড়ায় ডিম পাড়বে, বিএনপিকে কাদের
জাপা, ১৪ দল যোগ দিলেও নেই বিএনপি
নেতৃত্ব নির্বাচনে শেখ হাসিনায় আস্থা কাউন্সিলরদের
আওয়ামী লীগের সম্মেলনে কাদের সিদ্দিকী-ইনু-জি এম কাদের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Concerns of the Editorial Board regarding the letter from the Police Service Association

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ
প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

দেশের সব গণমাধ্যমের সম্পাদক বরাবর দেয়া বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠির বিষয়ে উদ্বেগ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সম্পাদক পরিষদ।

রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রতিবাদ জানায় পরিষদ। খবর বাসসের

প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

পরিষদ মনে করে, যারা এসব খবর প্রকাশ করেছেন তাদের দায়িত্ব পালন নিয়ে সংশয় থাকলে যথাযথ নিয়ম ও বিধি অনুসরণ করে সংশ্লিষ্ট সংস্থা প্রেস কাউন্সিলের দ্বারস্থ হতে পারে। তা না করে প্রতিবাদের মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সম্পর্কে কোনো ধরনের রিপোর্ট প্রকাশের ক্ষেত্রে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বনের নামে গণমাধ্যমকে হুমকি দেয়া হয়েছে, যা স্বাধীন গণমাধ্যম ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা চর্চার পরিপন্থি।

পাশাপাশি ভবিষ্যতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের নীতি বাস্তবায়নে গণমাধ্যমকর্মীদের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় পুলিশ বাহিনীর সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেছে পরিষদ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Oxfam calls for solving the crisis of 28 million displaced people including the Rohingya

রোহিঙ্গাসহ বাস্তুচ্যুত ২৮ লাখ মানুষের সংকট নিরসনের আহ্বান অক্সফ্যামের

রোহিঙ্গাসহ বাস্তুচ্যুত ২৮ লাখ মানুষের সংকট নিরসনের আহ্বান অক্সফ্যামের অক্সফ্যাম রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে জলবায়ুজনিত কারণে বাস্তুচ্যুতদের সংকট নিরসনের আহ্বান জানিয়েছে। ছবি: অক্সফ্যাম
মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সমর্থন, উদ্যোগ ও সংহতির প্রয়োজন বলেও মনে করছে অক্সফ্যাম।

মিয়ানমারে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা এবং দেশের অভ্যন্তরে জলবায়ু সংশ্লিষ্ট কারণে ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্য জায়গায় যাওয়া আরও ১৮ লাখ মানুষের বিদ্যমান সংকট নিরসনের পাশাপাশি পুনর্বাসনে পদক্ষেপ নিতে বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা অক্সফ্যাম ইন বাংলাদেশ।

বিশ্ব শরণার্থী দিবস-২০২৪ উপলক্ষে গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানায় সংস্থাটি।

বিজ্ঞপ্তিতে অক্সফ্যামের সমীক্ষার ডেটা তুলে ধরে বলা হয়, ‘বাংলাদেশে বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়সহ পানি সংক্রান্ত দুর্যোগ অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত সৃষ্টির পাশাপাশি খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার মতো বিপর্যয়কে প্রভাবিত করছে। এ মুহূর্তে দেশের প্রায় এক কোটি ২০ লাখ মানুষ খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার শিকার, যা মোট জনসংখ্যার ১৭ শতাংশ।

‘সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় রিমালে ৪৬ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং ৪৬ জেলার কৃষির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, যা এ সংকটকে আরও বাড়িয়ে তুলবে। এটি দেশের ভবিষ্যৎ খাদ্য নিরাপত্তার জন্য একটি উল্লেখযোগ্য উদ্বেগ তৈরি করেছে।’

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পে ২০১৭ সাল থেকে অবস্থানরত প্রায় ১০ লাখ (৯ লাখ ৮১ হাজার ৬৪ জন) মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এবং সম্প্রতি মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষগুলো শত শত রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে সীমানায় আশ্রয় নিতে বাধ্য করছে, যা দেশের শরণার্থী সংকটে নতুন অস্থিরতা তৈরি করছে। এমন পরিস্থিতিতে মানবিক সহায়তা ও টেকসই সমাধানের ওপর জোর দিচ্ছে অক্সফ্যাম।

অক্সফ্যাম ইন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর আশিষ দামলে বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশের মতো ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর বৈষম্যগুলো উন্মোচন করে দিয়েছে। ক্রমাগত জলবায়ু সংশ্লিষ্ট দুর্যোগ দেশের ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর ভোগান্তি আরও বাড়াচ্ছে। একটি দুর্যোগ কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই নতুন দুর্যোগের মুখোমুখি হচ্ছে।

‘এমন অবস্থায় সংকট নিরসনে বিশ্বব্যাপী পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি। বিশেষত ধনী দূষণকারী দেশগুলোকে অবশ্যই তাদের কার্বন নির্গমন হ্রাস করতে হবে, বাংলাদেশের মতো জলবায়ু ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোতে যথাযথ জলবায়ু অর্থ বরাদ্দ দিতে হবে। কারণ জলবায়ু অভিযোজন অর্থের প্রয়োজন; দুর্যোগ পূর্বপ্রস্তুতি ব্যবস্থা এবং সামাজিক সুরক্ষার জন্য অর্থায়ন প্রয়োজন।’

মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সমর্থন, উদ্যোগ ও সংহতির প্রয়োজন বলেও মনে করছে অক্সফ্যাম।

দামলে বলেন, ‘আমাদেরকে অবশ্যই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীসহ সবাইকে রক্ষা করতে হবে। তাদের অধিকার ও মর্যাদা নিশ্চিত করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
অক্সফ্যামের নবায়নযোগ্য শক্তি বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন বুটেক্স
অক্সফ্যামের দ্বিতীয় আন্তবিশ্ববিদ্যালয় নবায়নযোগ্য শক্তি বিতর্ক প্রতিযোগিতা শুরু
পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলনে ‘নিপীড়ন’ বন্ধের আহ্বান অক্সফ্যামের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Waqar uz Zaman took charge as the army chief

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রী হাসিনার উপস্থিতিতে রোববার গণভবনে নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান ও বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল হাসান মাহমুদ খান নবনিযুক্ত সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামানকে র‍্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেন। ছবি: ফোকাস বাংলা
আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) রোববার বিষয়টি জানিয়েছে।

সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) রোববার বিষয়টি জানিয়েছে।

এর আগে গত ১১ জুন আইএসপিআর জানায়, সেনাবাহিনীর নতুন প্রধান হচ্ছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। তিন বছরের জন্য তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণ করবেন ২৩ জুন।

ওই দিন আইএসপিআরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৩ জুন থেকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামানকে জেনারেল পদে পদোন্নতি দিয়ে ৩ বছরের জন্য সেনাবাহিনীর প্রধান পদে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে।

জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ২০২১ সালের ২৪ জুন সেনাবাহিনীর ১৭তম প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। ওয়াকার-উজ-জামান তার স্থলাভিষিক্ত হলেন।

ওয়াকার-উজ-জামান ১৯৮৫ সালের ২০ ডিসেম্বর ১৩তম দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের সঙ্গে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন।

তিনি ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ, মিরপুর এবং যুক্তরাজ্যের জয়েন্ট সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেন।

ওয়াকার-উজ-জামান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স অফ ডিফেন্স স্টাডিজ এবং যুক্তরাজ্যের কিংস কলেজ, ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন থেকে মাস্টার্স অব আর্টস ইন ডিফেন্স স্টাডিজ ডিগ্রি অর্জন করেন।

দীর্ঘ ৩৯ বছরের বর্ণাঢ্য সামরিক জীবনে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদের পাশাপাশি নবম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং এবং সাভার এরিয়া কমান্ডার, সেনাসদরে সামরিক সচিব এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আরও পড়ুন:
মাতৃভূমি রক্ষা করা আমাদের প্রধান কর্তব্য: সেনাপ্রধান
পাহাড়ের পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত কম্বিং অপারেশন চলবে: সেনাপ্রধান
পেশাগত দক্ষতা দিয়ে সেনাবাহিনী বিদেশেও সুনাম অর্জন করেছে: সেনাপ্রধান
কাতার সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান
আমিরাত সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Heavy rains may occur anywhere in the three divisions including Sylhet

ভারি বর্ষণ হতে পারে সিলেটসহ তিন বিভাগের কোথাও কোথাও

ভারি বর্ষণ হতে পারে সিলেটসহ তিন বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি বৃষ্টিতে যান চলাচল। ফাইল ছবি
পূর্বাভাসে আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, ‘রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গা, চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।’

বন্যায় আক্রান্ত সিলেটসহ দেশের তিনটি বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে বলে রোববার জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এমন তথ্য জানায়।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, ‘মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।’

আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, ‘রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গা, চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।’

তাপমাত্রার বিষয়ে অধিদপ্তর জানায়, সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টি হতে পারে
সন্ধ্যার মধ্যে ৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টির আভাস
সমুদ্র বন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি
দুপুরের মধ্যে ৮ অঞ্চলে হতে পারে ঝড়
দেশজুড়ে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Ministers tribute to Bangabandhu on the 75th founding anniversary of Awami League

আওয়ামী লীগের হীরক জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর

আওয়ামী লীগের হীরক জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। ছবি: ইয়াসিন কবির জয়
বাসস জানায়, সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর (হীরক জয়ন্তী) দিন রোববার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাসস জানায়, সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ব্যক্তিগতভাবে শ্রদ্ধা জানিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে আরেকবার পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গঠন হয়, যা পরবর্তী সময়ে দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়। দলটি স্বাধিকার, মুক্তিযুদ্ধ ও দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনগুলোতে নেতৃত্ব দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
বৈঠকে হাসিনা-মোদি
মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা
ভারতে রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা
ঢাকা-দিল্লি সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
শেখ হাসিনার সফর দ্বিপক্ষীয় অংশীদারত্ব জোরদার করবে: ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The Prime Minister returned home after visiting India

ভারতে সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

ভারতে সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকসহ সামরিক-বেসামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ। ছবি: ফোকাস বাংলা
প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট শনিবার রাত ৮টা ২৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

ভারতে দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে শুক্রবার নয়াদিল্লি যান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট শনিবার রাত ৮টা ২৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এর আগে ফ্লাইটটি বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে নয়াদিল্লির পালাম বিমানবন্দর ত্যাগ করে।

ভারতের পরিবেশ, বন এবং জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শ্রী কীর্তিবর্ধন সিং এবং ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান।

লোকসভা নির্বাচনের পর বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠনের পর ভারতে কোনো সরকার প্রধানের এটিই প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

এছাড়া, ১৫ দিনেরও কম সময়ের মধ্যে ভারতের রাজধানীতে এটি শেখ হাসিনার দ্বিতীয় সফর। গত ৯ জুন মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে তিনি ছিলেন।

প্রতিবেশী দেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সম্পর্ককে আরও সুসংহত করতে সফরের দ্বিতীয় দিনে ঢাকা ও নয়াদিল্লি ১০টি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করেছে। এর মধ্যে সাতটি নতুন এবং তিনটি নবায়ন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
তিস্তা নিয়ে আলোচনা করতে ঢাকায় আসছে ভারতের কারিগরি দল
পারস্পরিক সহযোগিতায় ঢাকা-দিল্লির মধ্যে ১০ চুক্তি সই
উভয় দেশের কল্যাণে সহযোগিতার বিষয়ে একমত ঢাকা-দিল্লি: শেখ হাসিনা
বৈঠকে হাসিনা-মোদি
মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Indian technical team is coming to Dhaka to discuss Teesta

তিস্তা নিয়ে আলোচনা করতে ঢাকায় আসছে ভারতের কারিগরি দল

তিস্তা নিয়ে আলোচনা করতে ঢাকায় আসছে ভারতের কারিগরি দল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে শনিবার নয়াদিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: ফোকাস বাংলা
মোদি বলেন, “দুই দেশে ৫৪টি অভিন্ন নদী রয়েছে। বন্যা ব্যবস্থাপনা, আগাম সতর্কীকরণ, সুপেয় পানি প্রকল্পে আমরা সহযোগিতা করে আসছি। ১৯৯৬ সালের ‘গঙ্গা পানি চুক্তি’ নবায়নের জন্য কারিগরি বিষয় নিয়ে আলোচনা শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

তিস্তা নদী সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার বিষয়ে আলোচনা করতে ভারতের একটি কারিগরি দল শিগগিরই বাংলাদেশ সফর করবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

নয়াদিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক এবং দ্বিপক্ষীয় প্রতিনিধি পর্যায়ের বৈঠক শেষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খবর ইউএনবি

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘সবুজ অংশীদারত্ব, ডিজিটাল অংশীদারত্ব, সুনীল অর্থনীতি এবং মহাকাশের মতো অনেক ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে সম্পাদিত চুক্তির ফলে উভয় দেশই উপকৃত হবে। আমরা যোগাযোগ, বাণিজ্য ও সহযোগিতার ওপর গুরুত্ব দিয়েছি।’

তিনি বলেন, “দুই দেশে ৫৪টি অভিন্ন নদী রয়েছে। বন্যা ব্যবস্থাপনা, আগাম সতর্কীকরণ, সুপেয় পানি প্রকল্পে আমরা সহযোগিতা করে আসছি। ১৯৯৬ সালের ‘গঙ্গা পানি চুক্তি’ নবায়নের জন্য কারিগরি বিষয় নিয়ে আলোচনা শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদন থেকে শুরু করে সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকীকরণসহ প্রতিরক্ষা সহযোগিতা আরও জোরদার করার বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে বিশদ আলোচনা হয়েছে।

সন্ত্রাস দমন, উগ্রবাদ হ্রাস ও সীমান্তের শান্তিপূর্ণ ব্যবস্থাপনায় সহযোগিতা জোরদার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

মোদি বলেন, ভারতের বৃহত্তম উন্নয়ন অংশীদার বাংলাদেশ এবং তারা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়।

এসময় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের স্থিতিশীল, সমৃদ্ধ ও প্রগতিশীল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে ভারতের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।

মোদি বলেন, ‘সোনার বাংলায় নেতৃত্ব দেয়ার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানাই।’

তিনি বলেন, নতুন ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য ভারত একটি ভবিষ্যতের দৃষ্টিভঙ্গি প্রস্তুত করেছে।

আরও পড়ুন:
পারস্পরিক সহযোগিতায় ঢাকা-দিল্লির মধ্যে ১০ চুক্তি সই
বাংলাদেশিদের জন্য ই-মেডিক্যাল ভিসা চালু করবে ভারত: মোদি
উভয় দেশের কল্যাণে সহযোগিতার বিষয়ে একমত ঢাকা-দিল্লি: শেখ হাসিনা
বৈঠকে হাসিনা-মোদি
মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা

মন্তব্য

p
উপরে