× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
BNP claims that the treatment of jailed leaders is being disrupted
google_news print-icon

কারাবন্দি নেতাদের চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে, দাবি বিএনপির

কারাবন্দি-নেতাদের-চিকিৎসা-ব্যাহত-হচ্ছে-দাবি-বিএনপির
নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। ছবি: নিউজবাংলা
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ‘গায়েবি মামলায় কারাবন্দি বয়জ্যেষ্ঠ নেতাদের কারাবন্দি করায় তাদের চিকিৎসায় ব্যাঘাত ঘটছে। কারাগারে তারা সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন তাদের স্বজনরা।’

দলের কারাবন্দি নেতাদের চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। শুক্রবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলন তিনি এ দাবি করেন।

প্রিন্স বলেন, ‘মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহবায়ক আব্দুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ বিএনপির কারাবন্দি শীর্ষ নেতারা দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে-বিদেশে চিকিৎসা নিয়েছেন। অনেকে একাধিকবার ভয়াবহ করোনা রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

‘গায়েবি মামলায় কারাবন্দি বয়জ্যেষ্ঠ নেতাদের কারাবন্দি করায় তাদের চিকিৎসায় ব্যাঘাত ঘটছে। কারাগারে তারা সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন তাদের স্বজনরা।’

প্রিন্স বলেন, ‘হাজার হাজার নেতাকর্মীকে কারাবন্দি করায় বর্তমানে কারাগারে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। কারাবিধি অনুয়ায়ী অনেক নেতা ডিভিশন পাওয়ার অধিকারী হলেও অনেককে এখনও ডিভিশন দেওয়া হয়নি। কারাবন্দি নেতাদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। তাদের ২৪ ঘণ্টা লক-আপে রাখা হচ্ছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাস, আব্দুস সালাম, রুহুল কবির রিজভী, খায়রুল কবির খোকন, শামছুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, শহীদ উদ্দীন চৌধুরি এ্যানী, ফজলুল হক মিলন, মোস্তাক মিয়াসহ শীর্ষ নেতারা জামিন পাওয়ার অধিকারী হলেও সরকারের নির্দেশেই তাদের জামিন দেওয়া হচ্ছে না। আমি আবারও বিএনপি মহাসচিবসহ আটক সকল রাজবন্দীর মুক্তি দাবি করছি।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন গাজীপুরে মিথ্যা গায়েবি মামলায় কারাবন্দি বিএনপি নেতা আলী আজম খান মায়ের মৃত্যুর পর প্যারোলে মুক্তি পেয়ে জানাজার নামাজে অংশ নিতে গেলে তাকে ডান্ডাবেড়ি ও হাতকড়া পরানো হয়। তিনি এজাহারভুক্ত আসামি নন, এমনকি মামলার বাদী আল্লাহর কছম খেয়ে বলেছেন যে ওই ঘটনার তিনি কিছুই জানেন না। এমনকি এই মামলার বাদীও তিনি নন। পুলিশ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও গায়েবি মামলাটি দায়ের করেছে। তিনি কোনো দুর্ধর্ষ খুনের বা জঙ্গি মামলার আসামি নন।

‘বিচারাধীন এ ধরনের একটি গায়েবি মামলার আসামিকে ডান্ডাবেড়ি ও হাতকড়া পরানোর ঘটনা বেআইনি, নজিরবিহীন, সংবিধান বিরোধী ও মানবাধিকার পরিপন্থি, সরকারের ফ্যাসিবাদি চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ। সরকারের এ ধরনের ঘৃন্য আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করছি এবং অবিলম্বে আলী আজমের মুক্তি দাবি করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সহ দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, সহ তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল ও দপ্তরে সংযুক্ত বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bloombergs praise of Sheikh Hasina is an indication of A League coming to power again

শেখ হাসিনার প্রশংসায় ব্লুমবার্গ, ফের আ.লীগের ক্ষমতায় আসার ইঙ্গিত

শেখ হাসিনার প্রশংসায় ব্লুমবার্গ, ফের আ.লীগের ক্ষমতায় আসার ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়ক ভিত্তিক অর্থ বিষয়ক সংবাদ সংস্থাটি নিবন্ধে বাংলাদেশে আগামী সাধারণ নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার চতুর্থ মেয়াদে নির্বাচিত হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে।

বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যেও ‘সময়োচিত সংস্কার পদক্ষেপ’ গ্রহণের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে নিবন্ধ ছেপেছে বিশ্বখ্যাত সংবাদ সংস্থা ব্লুমবার্গ।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়ক ভিত্তিক অর্থ বিষয়ক সংবাদ সংস্থাটি নিবন্ধে বাংলাদেশে আগামী সাধারণ নির্বাচনের মাধ্যমে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ চতুর্থ মেয়াদে সরকারে আসবে হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে। খবর বাসসের

ব্লুমবার্গ লিখেছে, ‘তিনি (শেখ হাসিনা) টানা চতুর্থ মেয়াদে জয়ী হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।’ একই সঙ্গে শেখ হাসিনাকে পুরো তহবিল পেতে আরও সংস্কার করতে হবে বলেও পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, শেখ হাসিনা ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনে টানা চতুর্থ মেয়াদে সম্ভাব্য জয়ী হওয়ার কারণ এটা নয় যে, তার অনেক প্রতিপক্ষ কারাগারে আছেন বা আইনি ফাঁদে পড়েছেন।

নিবন্ধে বলা হয়েছে, শেখ হাসিনার বিজয়ের কারণ ‘কেবলমাত্র তার অনেক প্রতিপক্ষ কারাগারে আছে বা আইনি ফাঁদে পড়েছেন-এটা নয় বরং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে তার সাফল্যের কারণেই এটা ব্যাপকভাবে প্রত্যাশিত।’

আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির সময়োপযোগী সংস্কারের জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণ প্রাপ্তির পটভূমিতে ব্লুমবার্গ দুটি উপ-শিরোনামসহ ‘বাংলাদেশ লিডার বেটস আইএমএফ-ম্যান্ডেটেড রিগর উইল পে অফ ইন পোলস’ শিরোনামের এই নিবন্ধটি প্রকাশ করে।

এতে বলা হয়, পুরো তহবিল পেতে শেখ হাসিনাকে আরও সংস্কার করতে হবে।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা টানা চতুর্থবারের মতো জয়ী হবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ব্যালট বাক্সে পরাজিত হওয়ার ভয়ে বিশ্বজুড়ে সরকারি দলের নেতারা প্রায়শই আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গে সম্মত সংস্কার বাস্তবায়নে পিছিয়ে পড়ছেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের মতো নন।

ব্লুমবার্গ বলছে, তার (শেখ হাসিনা) দ্রুত আইএমএফ ম্যান্ডেটের বাস্তবায়ন দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটি ঘুরে দাঁড়িয়েছে, যেখানে পাকিস্তান এখনও জ্বালানি ভর্তুকি নিয়ে দুরবস্থার মধ্যে রয়েছে। শ্রীলঙ্কা স্থানীয় পৌরসভা নির্বাচন বিলম্বিত করেছে, কারণ, তারা গত সপ্তাহে আইএমএফ তহবিল পেতে কর এবং সুদের হার বাড়িয়েছে।

গত জুলাই মাসে আইএমএফের সহায়তা চাওয়া দক্ষিণ এশিয়ার তিনটি দেশের মধ্যে সর্বশেষ ছিল বাংলাদেশ। দেশটি দ্রুত জ্বালানি মূল্য বৃদ্ধির পর প্রথম ঋণ অনুমোদন পেয়েছে। শেখ হাসিনা এই পদক্ষেপ নিতে কোনো কুন্ঠা বোধ করেননি।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Talks with EC are meaningless Fakhrul

ইসির সঙ্গে আলোচনা অর্থহীন: ফখরুল

ইসির সঙ্গে আলোচনা অর্থহীন: ফখরুল সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: সংগৃহীত
মঙ্গলবার দুপুরে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সভা হয়। সভায় চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ইসির সঙ্গে কোনো আলোচনায় যাবে না বিএনপি- এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ভার্চুয়ালি হওয়া এ সভায় দলের পক্ষ থেকে সাতটি সিদ্ধান্ত হয়।

বিএনপি নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে কোনো আলোচনায় যাবে না বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রাজধানীর গুলশানে বুধবার বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সভায় ওই সিদ্ধান্ত হয়েছে। দলের নেতারা মনে করেন, নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পযন্ত ইসির সঙ্গে আলোচনায় যাওয়া অর্থহীন। এ কারণে ইসির সংলাপের আহ্বানে সাড়া দেয়া হয়নি।

মঙ্গলবার দুপুরে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সভা হয়। সভায় চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ইসির সঙ্গে কোনো আলোচনায় যাবে না বিএনপি- এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ভার্চুয়ালি হওয়া এ সভায় দলের পক্ষ থেকে সাতটি সিদ্ধান্ত হয়।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের পক্ষে বিএনপি মহাসচিবকে পাঠানো চিঠির বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সভায় আলোচনা হয়। সে চিঠিতে বিএনপিকে আনুষ্ঠানিক না হলেও অনানুষ্ঠানিক আলোচনা ও মতবিনিময়ের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়।

এ নিয়ে দলের পক্ষ থেকে সভায় সিদ্ধান্ত হয়, ‘যেহেতু মূল রাজনৈতিক সমস্যার সমাধানের কোনো সম্ভাবনা নির্বাচন কমিশন প্রস্তাবিত আলোচনা ও মতবিনিময়ে সম্ভব নয় সে কারনে বিএনপি এই প্রস্তাব গ্রহণ করতে পারছে না। পত্র পাঠানোর জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানানো হয়।’

বিএনপি মনে করে, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রমাণিত হয়েছে যে নির্বাচন কমিশন স্বাধীন নয়। ইচ্ছা থাকলেও নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের ইসির ক্ষমতা নেই।

বিএনপির সভায় নিত্যপণ্যের দামের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে আলোচনা হয়। বিএনপি মনে করে, সরকার এ ব্যাপারে উদাসীন।

স্থায়ী কমিটির সভা সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। মির্জা ফখরুল ছাড়াও সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সালাহ উদ্দিন আহমেদ, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

আরও পড়ুন:
শাস্তি না হওয়ায় ফের বিচারবহির্ভূত হত্যা: ফখরুল
রমজানেও কর্মসূচি চলবে: ফখরুল
মানবাধিকার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে লজ্জিত হই: ফখরুল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
One Eleven Kushilab and BNP are in conspiracy Information Minister

এক-এগারোর কুশীলব ও বিএনপি এক হয়ে ষড়যন্ত্রে: তথ্যমন্ত্রী

এক-এগারোর কুশীলব ও বিএনপি এক হয়ে ষড়যন্ত্রে: তথ্যমন্ত্রী
বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা
তথ্যমন্ত্রী বলেন, এক-এগারোর কুশীলবরা আবার দেশে-বিদেশে সক্রিয় হয়েছে। তারা আবার বিশেষ ধরনের সরকারের স্বপ্ন দেখছে। বিএনপিও তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে।

এক-এগারোর কুশীলবরা এবং বিএনপি একজোট হয়ে ষড়যন্ত্র করছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জিল্লুর রহমান পরিষদ আয়োজিত এই সভায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এবং প্রয়াত জিল্লুর রহমান তনয়া তানিয়া রহমান বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এক-এগারোর কুশীলবরা আবার দেশে-বিদেশে সক্রিয় হয়েছে। তারা আবার বিশেষ ধরনের সরকারের স্বপ্ন দেখছে। বিএনপিও তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে।

‘কারণ বিএনপি বুঝতে পেরেছে, গত ১৪ বছরে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে উন্নয়ন অগ্রগতি হয়েছে এতে জনগণ তাকে আবার নির্বাচিত করবে এবং বিএনপির জ্বালাও-পোড়াও, মানুষ পোড়ানোর অপরাজনীতির কারণে মানুষ তাদের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এ সব কারণে এক-এগারোর কুশীলবরা, বিএনপি আর বিশেষ পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তিসহ সবাই এক জোট হয়ে দেশে একটি গণ্ডগোল লাগানোর জন্য আন্তর্জাতিকভাবে সক্রিয় হয়েছে, কিন্তু সেটি বাংলাদেশের মানুষ আর কখনো হতে দেবে না।

‘আগামী নির্বাচন যথাসময়ে এবং সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের অধিনে অনুষ্ঠিত হবে। সংসদীয় গণতন্ত্রের দেশগুলোর মতো আমাদের দেশেও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন, তার সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘এক-এগারোর পর দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখার ক্ষেত্রে প্রয়াত জিল্লুর রহমান অসাধারণ ভূমিকা রেখেছিলেন। তিনি আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হয়েছিলেন বলেই অনেক চাপ, রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে মুক্ত করার আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন, সর্বোপরি দলকে ঐক্যবদ্ধ রেখেছেন। দেশের ইতিহাসে, দেশের রাজনীতির ইতিহাসে একজন ভালো মানুষ এবং অজাতশত্রু রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনি যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকবেন।’

জিল্লুর রহমান পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. আক্তারুজ্জামান খোকার সভাপতিত্বে এবং রোকন উদ্দীন পাঠানের সঞ্চালনায় আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম, এ বি এম বায়েজিদ, মুক্তিযোদ্ধা হারুন-অর-রশিদ বীরপ্রতীক, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি মানিক লাল ঘোষ সভায় বক্তব্য দেন।

নূরে আলম সিদ্দিকীর মৃত্যুতে শোক

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, স্বাধীনবাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক এবং ঢাকসুর সাবেক ভিপি নূরে আলম সিদ্দিকীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি প্রয়াতের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান তিনি।

হাছান মাহমুদ তার শোকবার্তায় বলেন, ‘দেশ ও মানুষের প্রতি নূরে আলম সিদ্দিকীর ছিলো গভীর অনুরাগ। মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে এবং বাংলাদেশের রাজনীতিতে তার বীরোচিত অবদান স্মরণীয় হয়ে রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকায় বিদেশিরা বিনিয়োগে আগ্রহী: তথ্যমন্ত্রী
মুক্তিযোদ্ধার ছদ্মাবরণে পাকিস্তানিদের দোসর ছিলেন জিয়া: তথ্যমন্ত্রী
রমজানের পবিত্রতা নষ্ট করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Daydreaming of BNPs claim on caretaker issue Kader

তত্ত্বাবধায়ক ইস্যুতে বিএনপির দাবি দিবাস্বপ্ন: কাদের

তত্ত্বাবধায়ক ইস্যুতে বিএনপির দাবি দিবাস্বপ্ন: কাদের সচিবালয়ে বুধবার সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি: সংগৃহীত
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন লাঞ্চের দাওয়াত দিয়েছিল। সেখানে বলেছি সংবিধান অনুযায়ী আমরা কেয়ারটেকার সরকারে ফেরত যেতে পারব না। তারা চায় বাংলাদেশে ফ্রি অ্যান্ড ফেয়ার নির্বাচন হোক। তা তারা বলতেই পারে। এটা ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলতে পারে, যুক্তরাষ্ট্রও বলতে পারে। কেননা তারা আমাদের বন্ধু। ফ্রি, ফেয়ার ইলেকশন বাস্তবায়ন করবে ইলেকশন কমিশন। তখনকার সরকার রুটিন ওয়ার্ক করবে।’

সংবিধানের বাইরে গিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারে ফেরা সম্ভব নয় মন্তব্য করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি যতই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দিবাস্বপ্ন দেখুক, তা কখনও পূরণ হবে না।

সচিবালয়ে বুধবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন লাঞ্চের দাওয়াত দিয়েছিল। সেখানে বলেছি সংবিধান অনুযায়ী আমরা কেয়ারটেকার সরকারে ফেরত যেতে পারব না। তারা চায় বাংলাদেশে ফ্রি অ্যান্ড ফেয়ার নির্বাচন হোক। তা তারা বলতেই পারে।

‘এটা ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলতে পারে, যুক্তরাষ্ট্রও বলতে পারে। কেননা তারা আমাদের বন্ধু। ফ্রি, ফেয়ার ইলেকশন বাস্তবায়ন করবে ইলেকশন কমিশন। তখনকার সরকার রুটিন ওয়ার্ক করবে।’

সাভারে সম্প্রতি স্কুলছাত্রকে দিনমজুর বানিয়ে সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগ নিয়ে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ও পক্ষপাতমূলক সংবাদ করা হচ্ছে। এগুলো হলুদ সাংবাদিকতা।’

এগুলো পরিহারের আহ্বান জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘সাভারে একটা বাচ্চার হাতে ১০ টাকা দিয়ে ছবি ছেপে ভাইরাল করা হলো। এটা হলুদ সাংবাদিকতা, এখন হলুদ সাংবাদিকতা বেশি হচ্ছে।’

মন্ত্রিসভায় গণপ্রতিনিধিত্ব সংশোধিত আইন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় এটার নীতিগত অনুমোদন হয়েছে; চূড়ান্ত হয়নি। আইন মন্ত্রণালয়ে এখন এটি ভেটিং হবে। চূড়ান্ত অনুমোদনের আগে ফলাও করে বলার সুযোগ নেই।’

সড়ক দুঘটনা নিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিবেশী দেশ ভারতে প্রতি মিনিটে কত মানুষ মারা যায়? ২০ জন মারা গেছে সৌদিতে। এর মধ্যে ৯ জন বাংলাদেশি। সড়কের দুর্ঘটনার কারণে কোনো মন্ত্রণালয় ব্যর্থ এমন বলা ঠিক নয়।’

তিনি বলেন, ‘ভোগ্যপণ্যের দাম কমছে। ধীরে ধীরে আরও কমবে। শুধু দেশে না, সারা দুনিয়াতে পণ্যের দাম বাড়ছে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘তাদের ভাষায় যে জনগণ কষ্টে আছে, সেই জনগণই বিএনপিকে বিশ্বাস করে না। কেননা তাহলে গণআন্দোলন গড়ে উঠত।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা অনেকের থেকে ভালো আছি, জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে, কিন্তু চেয়ে দেখেন পাকিস্তানের দিকে, তাদের রিজার্ভ তলানিতে ঠেকেছে। দেশের উন্নয়ন থেমে থাকলে বিশ্বনেতারা কি বাংলাদেশের প্রশংসা করত?’

মন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তান শ্রীলঙ্কাসহ অন্য অনেক দেশ থেকে ভালো আছি। চেষ্টার কোনো কমতি নেই। সংকটটা আমাদের একার নয়। এটা বিশ্বময়।’

আরও পড়ুন:
বিএনপির আন্দোলনের সঙ্গে জনগণ নেই: কাদের
অপকর্মে জড়িতদের ছাত্রলীগ থেকে বের করে দাও: কাদের
‘ফখরুল বিএনপির অবৈধ মহাসচিব’
ভোট চুরির অপবাদ যুক্তরাষ্ট্রেও আছে : কাদের
বজ্রপাতে মৃত্যুর দায়ও সরকারের ওপর চাপায় বিএনপি: কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Noor Alam Siddiqui one of the 4 Caliphs passed away

চলে গেলেন ‘৪ খলিফার একজন’ নূরে আলম সিদ্দিকী

চলে গেলেন ‘৪ খলিফার একজন’ নূরে আলম সিদ্দিকী স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য নূরে আলম সিদ্দিকী। ছবি: সংগৃহীত
নূরে আলম সিদ্দিকীকে মুক্তিযুদ্ধের ‘চার খলিফার একজন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মুজিববাহিনীর অন্যতম কর্ণধার ছিলেন তিনি। তিনি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ছিলেন।

স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য নূরে আলম সিদ্দিকীর মৃত্যু হয়েছে।

রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে বুধবার ভোরে তার মৃত্যু হয়।

নূরে আলম সিদ্দিকীর প্রেস সচিব অনিকেত রাজেশ নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

হেলিকপ্টারে করে সকাল ১০টায় তার মরদেহ নির্বাচনী এলাকা ঝিনাইদহে নেওয়া হবে। সেখানে জানাজার পর আছরের নামাজের পর গুলশানের আজাদ মসজিদে তার জানাজা হবে। এ সময় নূরে আলম সিদ্দিকীকে ‘গার্ড অব অনার’ দেওয়া হবে। এরপর সাভারে নিজের করা মসজিদের পাশে তাকে দাফন করা হবে।

নূরে আলম সিদ্দিকীকে মুক্তিযুদ্ধের ‘চার খলিফার একজন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মুজিববাহিনীর অন্যতম কর্ণধার ছিলেন তিনি। তিনি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ছিলেন।

নূরে আলম সিদ্দিকী ছয় দফা আন্দোলন, ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ তৎকালীন সব রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। তিনি ১৯৭০-১৯৭২ মেয়াদে ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৩ সালের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন যশোর-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

এ ছাড়া ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তিনি ঝিনাইদহ-২ আসন থেকে অংশ নিয়েছিলেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mirza Fakhruls speech is indecent and impudent Kader

মির্জা ফখরুলের বক্তব্য অশালীন ও ধৃষ্টতাপূর্ণ: কাদের

মির্জা ফখরুলের বক্তব্য অশালীন ও ধৃষ্টতাপূর্ণ: কাদের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মির্জা ফখরুলের এ ধরনের বক্তব্য চরম বিদ্বেষ ও আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ। তার এই মন্তব্য শতাব্দীর সেরা কৌতুক। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তাদের বিবেক-বুদ্ধিই শুধু লোপ পায়নি, চক্ষুলজ্জাও হারিয়ে গেছে।’

আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি নেতারা প্রলাপ বকছেন বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, “দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ‘আওয়ামী লীগ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর প্রেতাত্মা’ বক্তব্য অশালীন এবং ধৃষ্টতাপূর্ণ।”

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মির্জা ফখরুলের এ ধরনের বক্তব্য চরম বিদ্বেষ ও আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ। তার এই মন্তব্য শতাব্দীর সেরা কৌতুক। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তাদের বিবেক-বুদ্ধিই শুধু লোপ পায়নি, চক্ষুলজ্জাও হারিয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের ইতিহাসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ইতিহাস অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। তার এ কথা শুধু আওয়ামী লীগের ঐতিহ্যকে অসম্মানিত করেনি, ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগকেও অপমানিত করেছে।

‘ফখরুল পুরো জাতি ও জনগণের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে তার রাজনৈতিক অবস্থান স্পষ্ট করেছেন। এটি জাতির অনুভূতিতে চরমভাবে আঘাত হেনেছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, “বিএনপি শুরু থেকেই আদর্শগতভাবে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মের মূল চেতনাবিরোধী রাজনীতি করে আসছে। মির্জা ফখরুল কিছুদিন পূর্বে মন্তব্য করেছিলেন- ‘পাকিস্তান আমলে ভালো ছিলাম।’ তাদের পাকিস্তানপ্রীতি নতুন কোনো বিষয় নয়।”

আওয়ামী লীগের এই দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা বলেন, ‘বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করে গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়ে পাকিস্তানি ভাবাদর্শে বাংলাদেশকে পরিচালিত করেছিলেন। এই সামরিক স্বৈরশাসক স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ধারাকে পরিপুষ্ট করেছিলেন। জিয়ার পদাঙ্ক অনুসরণ করে খালেদা জিয়া একইভাবে পাকিস্তানি ভাবাদর্শে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে এখনও মানসিকভাবে মেনে নিতে পারেনি। মানুষ যখন স্বাধীনতার সুফল ভোগ করছে তখনও বিএনপি স্বাধীনতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

‘আমরা বিশ্বাাস করি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণকারী পুরো দেশবাসী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ ঐক্যবদ্ধ এবং তারা আগামীতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণ করবে, ইনশাআল্লাহ।’

আরও পড়ুন:
জিয়া গলা টিপে গণতন্ত্র হত্যা করেছিলেন: ওবায়দুল কাদের
গণহত্যা নিয়ে বিএনপির বক্তব্যে পাকিস্তানের ভাষ্য দেখছেন কাদের
মির্জা ফখরুল অপশক্তির দালাল: কাদের
মির্জা ফখরুলের মর্মবেদনা আমরা বুঝি: ওবায়দুল কাদের
বিএনপির আন্দোলনের সঙ্গে জনগণ নেই: কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Proloy Gang Affiliated terrorist organization of Chhatra League Chhatra Dal

‘প্রলয় গ্যাং’ ছাত্রলীগের সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন: ছাত্রদল

‘প্রলয় গ্যাং’ ছাত্রলীগের সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন: ছাত্রদল সোমবার বিকেলে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। ছবি: নিউজবাংলা
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি খোরশেদ আলম সোহেল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কখনও কোনো গ্যাংস্টার সংস্কৃতির জন্ম হয়নি। কিন্তু ছাত্রলীগ তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য এই গ্যাং সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে। সংগঠনটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫ বছর ধরে পেশিশক্তির মাধ্যমে নানা অপকর্মসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।’

বেপরোয়া গতিতে গাড়ি না চালাতে বলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে বেদম পিটুনির ঘটনার পর প্রকাশ্যে এসেছে ‘প্রলয় গ্যাং’। এই গ্যাংয়ের সদস্যরা মারধরসহ বিভিন্ন চাঁদাবাজি ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত।

জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের একদল শিক্ষার্থী এই গ্যাং তৈরি করেছেন। আর এই গ্যাং-এর কিছু সদস্য ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

প্রলয় গ্যাংস্টারের উদ্ভব ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশব্যাপী সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগের ‘সিরিজ অপকর্ম’-এর প্রতিবাদে সোমবার বিকেলে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। এ সময় সংগঠনটির নেতারা প্রলয় গ্যাংকে ছাত্রলীগের নতুন সহযোগী সন্ত্রাসী সংগঠন বলে উল্লেখ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি খোরশেদ আলম সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে এই বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে শুরু হয়ে কার্জন হলের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে এই বিক্ষোভ শেষ হয়।

এ সময় খোরশেদ আলম সোহেল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কখনও কোনো গ্যাংস্টার সংস্কৃতির জন্ম হয়নি। কিন্তু ছাত্রলীগ তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য এই গ্যাং সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে। সংগঠনটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫ বছর ধরে পেশিশক্তির মাধ্যমে নানা অপকর্মসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এসব অপকর্ম ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের তীব্র নিন্দা ও কঠোর প্রতিবাদ জানায় এবং সব সন্ত্রাসী কার্যক্রম প্রতিহত করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছে। আমরা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রদলসহ সব ছাত্র সংগঠনের সহাবস্থান নিশ্চিত করার জোর দাবি জানাচ্ছি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি।’

সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একটি নব্য সন্ত্রাসী সংগঠন হচ্ছে প্রলয় গ্যাং, যা সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিপীড়ন সেল।

‘ছাত্রলীগ তাদের অতীত ঐতিহ্যগত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অব্যাহত রেখেছে। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, টেন্ডারবাজি, হলে সিট বাণিজ্য, ভর্তি বাণিজ্য, মাদকের কারবার ইত্যাদি কর্মকাণ্ডের কারণে ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের কাছে ঘৃণ্য সংগঠনে পরিণত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল ছাত্রলীগের এহেন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় এবং সাংগঠনিক অভিভাবক তারেক রহমানের নির্দেশনায় ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অচিরেই সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নিয়ে ছাত্রলীগকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করবে ইনশাআল্লাহ।’

ঢাবি ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান মাসুদ, যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, মাসুম বিল্লাহ, তরিকুল ইসলাম তারিক, নাছির উদ্দিন শাওন, সাদ্দাম হোসেন, রাজু আহমেদ, হান্নান তালুকদারসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
কোমরে পিস্তল নিয়ে ফেসবুকে ছাত্রলীগ নেতা
জাবিতে ছাত্রলীগের দেশীয় অস্ত্রের মহড়া, সাংবাদিকের ওপর হামলা
আলোচিত সেই ছাত্রলীগ সভাপতি গ্রেপ্তার
বিছানায় চবি ছাত্রলীগ সভাপতি, পা টিপছেন ২ নেতা
ছাত্র অধিকারের ২৪ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৬ এপ্রিল

মন্তব্য

p
উপরে