× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
The empty space is covered with yellow
hear-news
player
google_news print-icon

হলুদে সজীব পরিত্যক্ত চর

হলুদে-সজীব-পরিত্যক্ত-চর
গোমতী নদীর তীরে চলছে হলুদের পরিচর্যা। ছবি: মাহফুজ নান্টু/নিউজবাংলা
গোমতীর চরের টিক্কারচর ব্রিজের পাশে পরিত্যক্ত জমিতে হলুদ চাষ করা আবাদ হোসেন বলেন, ‘১৫ শতক জমি খালি থাকত। ৯ মাস আগে হলুদ লাগাইছি। এবারই প্রথম। মোটামুটি ভালো ফলন হইছে। এখন হলুদ সংগ্রহ করছি। ঘরের খোরাকি রেখে বাকিগুলো বিক্রি করব।’

দিনের পর দিন ফাঁকা পড়ে ছিল গোমতীর দিগন্ত বিস্তৃত চর। চাষযোগ্য হলেও এগুলোতে আবাদ হতো না ফসল।

উদ্যোগী কৃষকের হাত ধরে সে খরা কাটে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে। তাদের বোনা হলুদে চরগুলো যেমন হয়েছে সজীব, তেমনি ঘরের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি সুযোগ তৈরি হয়েছে বাড়তি আয়ের।

নদীর তীরে হলুদ চাষ করা কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা, যাদের একজন কুমিল্লার আদর্শ সদরের ইউনুস মিয়া।

কটকবাজার সীমান্তে গোমতীর চরে এ বছর ৩৬ শতক জমিতে হলুদের চাষ করেছেন এ কৃষক, যে জমিন ছিল পরিত্যক্ত।

সম্প্রতি কথা হয় ইউনুসের প্রবাসী ছেলে ওয়াসিম উদ্দিনের সঙ্গে, যিনি বিদেশ থেকে এলে সহায়তা করেন বাবার কাজে।

রোদে শুকাতে দেয়া হলুদের দেখভাল করা ওয়াসিম জানান, তাদের জমিটিতে বড় বড় ঘাস জন্মেছিল; ছিল ঝোপঝাড়ও। সেখানে হলুদের ফলন হয়েছে ভালো।

হলুদে সজীব পরিত্যক্ত চর

হলুদ চাষের আগ্রহ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ইউনুস মিয়া বলেন, ‘কাঁচা হলুদ স্বাস্থ্যর জন্য উপকারী। খুচরা প্রতি কেজি ৩০ টাকা দরে বিক্রি করি। শুকানোর পর মেশিনে ভাঙিয়ে আড়াই শ টাকা বিক্রি করি। এ বছর ৩৬ শতক জমিতে হলুদ চাষে ৪০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। আশা করছি সব ব্যয় বাদে অন্তত ৪৫ হাজার টাকা লাভ হবে।

‘যে জমিটাতে কিছুই হতো না, সেখান থেকে বছরে ৪০-৪৫ হাজার টাকা আসছে পরিবারে। বাজার থেকে হলুদ কিনতে হয় না এখন।’

গোমতীর চরের টিক্কারচর ব্রিজের পাশে পরিত্যক্ত জমিতে হলুদ চাষ করা আবাদ হোসেন বলেন, ‘১৫ শতক জমি খালি থাকত। ৯ মাস আগে হলুদ লাগাইছি। এবারই প্রথম। মোটামুটি ভালো ফলন হইছে।

‘এখন হলুদ সংগ্রহ করছি। ঘরের খোরাকি রেখে বাকিগুলো বিক্রি করব। আমার আশা আছে আগামী বছর আরও বেশি জায়গায় হলুদ চাষ করার।’

পরিত্যক্ত ১০ শতক জমিতে হলুদের চাষ করা বুড়িচং উপজেলার হোসেন মিয়া বলেন, ‘৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। শুকানোর পরে অন্তত ২৫ কেজি গুড়া হলুদ পাবেন। আড়াই শ টাকা করে কেজি বিক্রি করব।

‘খরচ উঠে যাবে। আর যা থাকবে, তা দিয়ে সারা বছরের ঘরের চাহিদা মিটবে।’

গোমতীর চর ছাড়াও কুমিল্লা জেলা সদর, সদর দক্ষিণের লালমাই পাহাড়, সীমান্তবর্তী বুড়িচংয়ের টিলাগুলোতে হলুদ চাষ বেড়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর কুমিল্লায় ১৪০ হেক্টর জমিতে হলুদ চাষ হয়েছে।

গোমতীচরের ইউনুস, আবাদ, হোসেনের মতো অনেকেরই আগ্রহ বেড়েছে হলুদ চাষে, তবে কীভাবে হলুদ চাষ করতে হয়, কোন মাটিতে আবাদে ফলন ভালো হয়, তা নিয়ে দ্বিধান্বিত কৃষকরা।

কুমিল্লা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, ‘যেকোনো পরিত্যক্ত জমিতে আদা ও হলুদ চাষ করা যায়। দুইটা ফসল খুব মূল্যবান। যেকোনো মাটিতেই হলুদ চাষ করা যায়, তবে যেসব জমি পরিত্যক্ত থাকে, ঘন ঝোপজঙ্গল আছে, সেসব জমিতে হলুদ চাষ করলে ভালো ফলন পাওয়া যায়।

‘জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পারিবারিক পুষ্টি বাগানের মতো হলুদ চাষে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে। আগ্রহী কৃষকদের জন্য হলুদ চাষে সব ধরনের সহযোগিতা করতে আমরা বদ্ধপরিকর।’

আরও পড়ুন:
কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে মোবাইল হারানোর ৭১ জিডি
কুমিল্লায় সমাবেশ নিয়ে সাক্কু-কায়সারের রাজ্যের হতাশা
সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ কুমিল্লার সমাবেশ
ভালোয় ভালোয় কেটে পড়ুন: সরকারকে ফখরুল
দল আমাকে বহিষ্কার করলেও বিএনপি ছাড়ব না: সাক্কু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Red bahubali on green field

সবুজ মাঠে লাল বাহুবলি

সবুজ মাঠে লাল বাহুবলি কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার বিটমান গ্রামে জমি থেকে বাহুবলি জাতের টম্যাটো সংগ্রহে ব্যস্ত পার করছেন কৃষকরা। ছবি: নিউজবাংলা
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপপরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘কুমিল্লায় এ বছর এক হাজার ৮৪৬ হেক্টর জমিতে টম্যাটোর চাষ হয়। প্রতি হেক্টরে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৩০ টন। বাহবলি, মানিক-রতনসহ বিভিন্ন হাইব্রিড জাতের টম্যাটো চাষ করেছেন ১৭ উপজেলার কৃষকরা। তবে ভালো লাভ পাওয়ায় বাহুবলির চাহিদা বেশি।’

প্রজাদের কষ্টে পাশে থাকা মহারাজা বাহুবলি অমর হয়ে আছেন যাকে নিয়ে সিনেমাও তৈরি হয়েছে। নাম অমেরন্দ্র বাহুবলি। সেই বাহুবলির নামের লাল টম্যাটো এবার কৃষকদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে।

কুমিল্লার দাউদকান্দির বিস্তৃর্ণ সবুজ মাঠে লাল বাহুবলির রাজত্ব ছড়িয়ে পড়েছে। কাকডাকা ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত চলে টম্যাটো সংগ্রহ। বিকেলের আগে পাইকারদের গাড়িতে করে বাহুবলিরা চলে যায় হাটে। দেখতে বড় স্বাদ ও ঘ্রাণে অসাধারণ। তাই হাট-বাজারে বাহুবলির চাহিদাও অনেক। ফলন ভালো হওয়ায় মুনাফাও পাচ্ছেন চাষিরা।

সরেজমিনে দাউকান্দি উপজেলার আদমপুর, বিটমান ও টামটা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মাচায় ঝুলে আছে লাল সবুজ টম্যাটো। দেশি অন্য কোনো জাতের তুলনায় আকারে বড়। মাচা থেকে ঝুলে মাটি স্পর্শ করছে অধিকাংশ টম্যাটো। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সেই টম্যাটো সংগ্রহ করে জমির পাশে স্তুপ করছেন চাষিরা। পাইকাররা আসছেন, দরদাম করে বস্তাবন্দি করে দূরের হাটে নিয়ে যাচ্ছেন বাহুবলিদের।

বিটমান গ্রামের বকুল রাণী দেবনাথ নামের এক কৃষাণী নিজের ছেলে ও কাজের লোক নিয়ে টম্যাটো সংগ্রহ করছেন। তার জমির আইলে দাঁড়িয়ে রয়েছেন পাইকার ও স্থানীয় খুচরা ক্রেতারা। জমির পাশে স্তুপ করা টম্যাটো পাল্লায় মেপে পাইকারদের হাতে তুলে দিচ্ছেন।

বকুল রানী জানান, এ বছর বাহুবলি জাতের টম্যাটো চাষ করেছেন। চারা, মাঁচা ও জমি প্রস্তুতসহ তার খরচ হয়েছে এক লাখ টাকা। দেড়কানি (৩০শতকে কানি) জমিতে বাহুবলি জাতের টম্যাটোর ভালো ফলন হয়েছে। তিনি আশা করছেন সব খরচ বাদ দিয়ে তার লাভ হবে অন্তত দুই লাখ টাকা।

বাহুবলি হাইব্রিড প্রজাতির টম্যাটো। এই বীজের নাম দিয়েছে এ আর মালিক সিড কোম্পানি। তারাই মূলত নাম দিয়েছে বাহুবলি।

ঢাকা থেকে বাহুবলি টম্যাটো কিনতে আসা পাইকার দবির মিয়া জানান, তিনি সারা বছরই কাওরানবাজারে পাইকারি শাকসবজি বিক্রি করেন। তার পছন্দের জায়গা কুমিল্লার দাউদকান্দি। এবার দাউদকান্দিতে বাহুবলি নামের টম্যাটোর ভালো ফলন হয়েছে। আকারে বড় স্বাদও ভালো। আকার-আকৃতি অনুযায়ী পাইকারি প্রতি ১৫-২০ কেজি দরে কেনেন। পরিবহন খরচ এবং নেয়ার সময় কিছু নষ্ট হয়। এসব মিলে প্রতি কেজি টম্যাটো ৩০-৩৫ টাকা দরে বিক্রি করেন।

কুমিল্লা রাজগঞ্জ থেকে আসা পাইকার জুয়েল হোসেন বলেন, ‘দাউদকান্দির এসব গ্রামগুলোতে যে টম্যাটো হয় সেগুলো আকারে বড়। দেখতে সুন্দর। কাঁচা পাকা মিলিয়ে আমি ১০ মণ টম্যাটো কিনেছি। পাকাগুলো আজকালই বিক্রি হয়ে যাবে। কাঁচাগুলো দোকানে রেখে দিলে পেকে যাবে। তখন বিক্রি করতে পারব।’

দাউদকান্দির আদমপুর গ্রামের শিক্ষক মতিন সৈকত বলেন, ‘আদমপুর, বিটমান, পুটিয়া ও টামটা গ্রামের মাঠে প্রতি বছরই প্রচুর টমেটোর চাষ হয়। এখানের অধিকাংশ কৃষক প্রাকৃতিক বালাইনাশক ব্যবহার করে ফসল উৎপাদন করে। টম্যাটোর ক্ষেত্রেও তাই।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপপরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘কুমিল্লায় এ বছর এক হাজার ৮৪৬ হেক্টর জমিতে টম্যাটোর চাষ হয়। প্রতি হেক্টরে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৩০ টন। বাহবলি, মানিক-রতনসহ বিভিন্ন হাইব্রিড জাতের টম্যাটো চাষ করেছেন ১৭ উপজেলার কৃষকরা। তবে ভালো লাভ পাওয়ায় বাহুবলির চাহিদা বেশি।’

আরও পড়ুন:
আমেরিকার কালো টম্যাটো কুমিল্লায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Crop loss due to winter and fog in Madaripur

মাদারীপুরে শীত-কুয়াশায় ফসলের ক্ষতি

মাদারীপুরে শীত-কুয়াশায় ফসলের ক্ষতি মাদারীপুরে শীতকালীন সবজির ক্ষতিতে চিন্তিত চাষিরা। ছবি: নিউজবাংলা
জেলা কৃষি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক দিগবিজয় হাজরা বলেন, ‘শীতে কিছু ফসেলর ক্ষতি হলেও অধিকাংশের উপকার হয়। তবে শীত আর কুয়াশার তীব্রতা বাড়লে বোরো ধান রোপণ থেকে বিরতি থাকতে হবে। যদি শীত আর কুয়াশা বেশি হয়, তাহলে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। কৃষকদের সহযোগিার বিষয় আমাদের মাথায় আছে। আমরা চেষ্টা করি তাদের সহযোগিতা করার।’

গত মাসখানিক জুড়ে শীতের তীব্রতায় জনজীবন বিপন্ন হওয়ার পাশাপাশি ফসল উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে মাদারীপুরে। কৃষকরা বলছেন, কীটনাশক স্প্রে করেও সুফল মিলছে না, তাই প্রান্তিক চাষিরা সরকারিভাবে সহযোগিতা দাবি করছেন। এদিকে শীতে বোরো ধান রোপণ করতে কিছুটা দেরি করার আহ্বান কৃষি অধিদপ্তরের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঘন কুয়াশা ও রোদ না থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শীতকালীন লাউ, বাঁধাকপি, ফুলকপি, ধানের চারা, ঝরে পড়ছে সরিষার ফুল। তীব্র ঠাণ্ডায় কৃষক জমিতে কাজ করতে পারছেনা। অনেকে পলিথিন আর নেট দিয়ে ঢেকে কিংবা নানা রকমের কীটনাশক স্প্রে করেও তেমন কোনও সুফল পাচ্ছেন না।

চলতি রবি মৌসুমে মাদারীপুরে বিভিন্ন ফসল আবাদ হয়েছে ৫৪ হাজার ১১ হেক্টর জমিতে, যার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৯০ হাজার ৪৫ হেক্টর। মৌসুমের শুরু থেকেই বাজারে দাম ভাল থাকলেও অব্যাহত ঘন কুয়াশা মৌসুমি বৃষ্টির ফলে ক্ষেতে ডগা পাচা রোগসহ ও অন্যান্য পোকা মাকড়ের আক্রমণে গাছের ক্ষতি হয়েছে, হ্রাস পেয়েছে উৎপাদনও। তাই চোখে মুখে অন্ধকার দেখছেন চাষিরা।

মাদারীপুরে শীত-কুয়াশায় ফসলের ক্ষতি

পাঁচখোলা গ্রামের চাষি কুদ্দুস ফকির বলেন, ‘গেলো দেড় দুই মাস শীত আর কুয়াশা পড়ায় আমার বেশিরভাগ লাউয়ে ফুল এসে পচে গেছে। যে কারণে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হচ্ছে। কৃষি অফিস থেকে খোঁজ খবরটুকুও নেয় না। আমাদের তৃণমূলের চাষিরা আল্লাহর ওপর ভরসা করে চাষাবাদ করি। কিন্তু সরকারি সহযোগিতা পাই না।’

আরেক কৃষক কুলপদ্ধি এলাকার মোছলেম উদ্দিন বলেন, ‘এবার আমাদের যে ক্ষতি হয়েছে, যদি সরকারিভাবে সহযোগিতা না করে তাহলে আমাদের মাথায় হাত। শীতকালীন ফসলের অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে। তাই সরকারি উদ্যোগে বীজ সার আর সহজ শর্তে ঋণ দাবি করি। যদি এসব দেয়, তাহলে আমরা কৃষকরা বাঁচব।’

জেলা কৃষি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক দিগবিজয় হাজরা বলেন, ‘শীতে কিছু ফসেলর ক্ষতি হলেও অধিকাংশের উপকার হয়। তবে শীত আর কুয়াশার তীব্রতা বাড়লে বোরো ধান রোপণ থেকে বিরতি থাকতে হবে। যদি শীত আর কুয়াশা বেশি হয়, তাহলে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। কৃষকদের সহযোগিার বিষয় আমাদের মাথায় আছে। আমরা চেষ্টা করি তাদের সহযোগিতা করার।’

আরও পড়ুন:
ব্লাস্ট প্রতিরোধী জাতের গমে আশা মেহেরপুরের কৃষকদের
মেহেরপুরে গমের বীজসংকট, দিশেহারা কৃষক
বাজার চড়া, তাই আগাম মাঠে লবণ চাষিরা
কৃষি বিভাগের সহায়তা চান পঞ্চগড়ের পান চাষিরা
‘বড় বিপদে আছি বাপু’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
300 Bigha Sarisha village

৩০০ বিঘার ‘সরিষার গ্রাম’

৩০০ বিঘার ‘সরিষার গ্রাম’
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. এস এম আবু বকর সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ভোজ্য তেলের চাহিদা পূরণে এগিয়ে এসেছেন এ এলাকার কৃষকরা। এখন আর পতিত থাকছে না কোনো জমি।’

‘আগে আমরা চার পাঁচজন সরিষা আবাদ করতাম। এখন অনেক মানুষ সরিষা চাষ করছে, প্রায় দেড়শ জনের মতো। আরও যারা আছেন এখন তারাও আগ্রহ দেখাচ্ছেন সরিষা আবাদে।’

এমনটাই জানালেন নীলফামারী সদর উপজেলার কুন্দপুকুর ইউনিয়নের কাচারি পাড়ার সরিষা চাষি হারুন উর রশিদ।

তিনি এবার পাঁচ বিঘা জমিতে সরিষা আবাদ করেছেন। গতবার যেখানে করেছিলেন তিন বিঘা জমিতে।

কৃষক হারুন বলেন, ‘সরিষাতে খরচ চার হাজার টাকার মতো বিঘা প্রতি। ফলন ভালো হয়, দামও ভালো পাওয়া যায়। পাশাপাশি সরিষার টাকা দিয়ে বোরো আবাদ উঠি যায়। সরিষার কোনো কিছু ফেলানি যায় না, গাছ খড়ি এবং খৈল গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যায়। অনেক লাভ সরিষাত।’

আরেক কৃষক আলমগীর ইসলাম বলেন, ‘আমন ও বোরো দুটি ধানই আমরা আবাদ করতাম বছরে। এখন তিনটি ফসল ফলাচ্ছি বছরে। আমন এবং বোরোর মাঝখানের তিন মাস জমি পতিত থাকত। কোনো আবাদ করতাম না। কৃষি বিভাগের পরামর্শে এই সময়ে সরিষা করছি।

‘সরিষায় খরচ কম। সেচ দিতে হয় না। সার কীটনাশকও তেমন প্রয়োজন হয় না। সরিষা এখন আমাদের পুরো গ্রাম ছড়িয়ে পড়েছে। এবার যারা আবাদ করেননি তারাও আগামীতে সরিষা আবাদ করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।’

আব্দুস ছামাদ নামে আরেক কৃষক বলেন, ‘সরিষা গ্রামের চিত্র বদলে দিয়েছে। এলাকা পরিদর্শনে আসছেন কর্মকর্তাগণ। অনেকে আসছেন ছবি তুলতে।

‘আর ১৫ দিন পরই সরিষা কাটাই মাড়াই শুরু হবে। গতবার আবাদ একটু কম হলেও এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারও ভালো।’

সরেজমিনে কাচারি পাড়া এলাকা গিয়ে দেখা গেছে, ১৪০ জন কৃষক ৩০০ বিঘা জমিতে সরিষা আবাদ করছেন। দুই বিঘা থেকে শুরু করে পাঁচ বিঘা পর্যন্ত সরিষা লাগিয়েছেন জমিতে।

সরকারি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় অনেকে পেয়েছেন সার ও বীজ। কৃষি বিভাগের পরামর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে সরিষা করেছেন কৃষকরা। কৃষি বিভাগ কর্মকর্তারা বলছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ভোজ্য তেলের চাহিদা পূরণে সরিষা চাষে উদ্বুদ্ধ করা হয় কৃষকদের।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আবু তালেব বলেন, ‘বিঘা প্রতি ৫ মণ উৎপাদন হবে সরিষা, যেখানে চার হাজার টাকা মণ বিক্রি হবে। বিঘা প্রতি চার হাজার টাকা খরচ হয় একজন কৃষকের। বিপরীতে একজন কৃষকের ধানে বিঘা প্রতি লাভ আসে তিন হাজার টাকার মতো।’

কাচারী পাড়া ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রশিদুল ইসলাম জানান, কৃষকদের নিয়ে আলোচনা করে এবং পরামর্শ দিয়ে সরিষা চাষে উদ্বুদ্ধ করা হয়। এতে আস্তে আস্তে চাষির সংখ্যা বাড়তে থাকে। এখন ১৪০ জন কৃষক সরিষা করছেন। এই গ্রাম এখন সরিষা গ্রামে পরিণত হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘ভোজ্য তেলের চাহিদা পূরণ করতে সরিষা আবাদের কোনো বিকল্প নেই এবং কোনো জমি পতিত রাখা যাবে না, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন আহ্বানে সাড়া দিয়ে আমরা সফল হয়েছি নীলফামারীতে।’

কুন্দপুকুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ইউনিয়নের প্রতি পাড়া মহল্লায় আবাদ হয়েছে সরিষার। সরকারের প্রণোদনা সফল হয়েছে কৃষকরা আগ্রহ দেখাচ্ছেন। দিন দিন চাষির সংখ্যা আরও বাড়বে।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. এস এম আবু বকর সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ভোজ্য তেলের চাহিদা পূরণে এগিয়ে এসেছেন এ এলাকার কৃষকরা। এখন আর পতিত থাকছে না কোনো জমি।’

আগামী তিন বছরের মধ্যে সরকারের দেয়া ভোজ্য তেল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৪০ ভাগ পূরণ করা হবে। ইতোমধ্যে শতকরা ১৪ ভাগ উৎপাদন হচ্ছে।

তিনি জানান, চলতি মৌসুমে জেলায় ৬৭৭৭ হেক্টর জমিতে ৯১০০ টন সরিষায় ৩৬ লাখ ৪০ হাজার লিটার তেল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সরিষার তেল কি সয়াবিনের বিকল্প হতে পারবে
সয়াবিনের ঘাটতি পূরণে সরিষায় চোখ সরকারের
সরিষা ফুলে রঙিন কৃষকের স্বপ্ন
মাঠের পর মাঠ যেন হলুদের হাট
চাকে মধু আর হলুদে মোড়া ফসলের মাঠ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mustard smiles on the fallen horizon

পতিত দিগন্তে সরিষার হাসি

পতিত দিগন্তে সরিষার হাসি কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার সীমান্তবর্তী পাহাড়পুর বেলবাড়ি এলাকায় পতিত পড়ে থাকা বিস্তীর্ণ এলাকা এখন সরিষার ক্ষেত। ছবি: নিউজবাংলা
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার সীমান্তবর্তী পাহাড়পুর বেলবাড়ি এলাকায় এক সময় পতিত পড়ে থাকা ১১০ বিঘা জমি এখন কৃষকের মুখে হাসি ফোটাচ্ছে। কৃষকদের হাতের ছোঁয়ায় সেই পতিত জমিতে এখন সরিষার হাসি। এই সরিষা গোলায় তোলার পর পর্যায়ক্রমে রোপণ করা হবে তিল, আউশ ও আমন ধান।

ওপারে ভারত। আর এপারে সীমান্ত সংলগ্ন ১১০ বিঘা জমি বছরের পর বছর পতিত পড়ে ছিল। দিগন্ত বিস্তৃত এই ফাঁকা জমিতে গরু-ছাগল চড়ত। চারণ ভূমিটি এখন কৃষকদের স্বপ্ন পূরণের প্রতীক হয়ে উঠেছে।

দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সর্তক দৃষ্টির মাঝে কৃষকদের হাতের ছোঁয়ায় সেই পতিত জমিতে এখন সরিষার হাসি। এই সরিষা গোলায় তোলার পর পর্যায়ক্রমে রোপণ করা হবে তিল, আউশ ও আমন ধান।

বৃহস্পতিবার কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার সীমান্তবর্তী পাহাড়পুর বেলবাড়ি এলাকার এই পতিত জমি পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইনস্টিটিউটের কুমিল্লা উপকেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ড. আশিকুর রহমান ও ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. ফারহানা ইয়াসমিন।

পতিত জমিতে সরিষা আবাদ সম্প্রসারণের পরিকল্পনাকারী বুড়িচং উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা বানিন রায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সরিষার মাঠ ঘুরে দেখান। এ সময় স্থানীয় উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. শাহেদ হোসেনসহ সরিষা চাষী কৃষকরা উপস্থিত ছিলেন।

কৃষক ওমর ফারুক, জাহাঙ্গীর আলম ও আবদুল হালিম জানালেন, গত বছর খরিপ-২ মৌসুমে রোপা আমন চাষের পর পাহাড়পুর গ্রামের বেলবাড়ি মাঠের জমিগুলো পতিত থাকবে শুনে উপজেলা কৃষি অফিস কৃষকদের সরিষা চাষের পরামর্শ দেয়। গত বছর ৬০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদ হলেও এ বছর তা বেড়ে দাঁড়িয়েছি ১১০ হেক্টর। বর্তমানে ফসলের পরিস্থিতি দেখে বিঘাপ্রতি ১২-১৪ হাজার টাকা লাভের আশা করছেন তারা।

পতিত দিগন্তে সরিষার হাসি

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম বৃহস্পতিবার বেলবাড়ি এলাকার সরিষা ক্ষেত পরিদর্শন করেন। ছবি: নিউজবাংলা

স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গেল আউশ মৌসুমে কৃষি বিভাগের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো ৭০ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেন তারা। আমন মৌসুমেও প্রচলিত ব্রি-৪৯ ও স্বর্ণমসুরি ধানের বিপরীতে স্বল্প জীবনকালীন ব্রি-৭১, ব্রি-৭৫ ও বিনা-১৭ ধানের আবাদ করা হয়। আর বর্তমান সরিষা মৌসুমে নতুন জাত হিসেবে বিনা সরিষা-৯, বিনা সরিষা-৪ ও বারি সরিষা-১৮ এর বীজ বিতরণ করে কৃষি বিভাগ।

পরিদর্শনকালে বিনার মহাপরিচারক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম সরিষা চাষীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। তিনি সরিষা চাষের সম্ভাবনার কথা কৃষকদের সামনে তুলে ধরেন। তাছাড়া তিনি সরিষা চাষের কিছু ব্যবস্থাপনা, বীজ সংগ্রহ ও বীজের সংরক্ষণ বিষয়ে কৃষকদের পরামর্শ দেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ বানিন রায় বলেন, ‘পাহাড়পুরের বিস্তীর্ণ জমিতে বোরো-পতিত-রোপা আমন শস্য বিন্যাসের পরিবর্তে সরিষা-তিল-রোপা আউশ-রোপা আমন ও সরিষা-আউশ-রোপা আমন শস্য বিন্যাস বাস্তবায়ন হয়েছে। আগামী মৌসুমগুলোতে নতুন নতুন জাত নিয়ে তিল, আউশ ও রোপা আমন আবাদে কৃষকরা অর্থনৈতিকভাবে উপকৃত হবেন। পাশাপাশি দেশেরও উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।’

আরও পড়ুন:
নবম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে শরীয়তপুরে
কৃষিপণ্য রপ্তানির নীতিমালা হচ্ছে
সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ
‘কৃষি বাণিজ্য মেলা’ করবে ডিএনসিসি
সরিষা ফুলে ভরে গেছে ঝিনাইদহের মাঠ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bumper yield of onion in Teesta pasture

তিস্তার চরে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন

তিস্তার চরে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন নীলফামারীর ডোমারে তিস্তা নদীর চর জুড়ে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা
নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই, টেপা খড়িবাড়ী, খগা খড়িবাড়ী, ঝুনাগাছ চাপানী, খালিশা চাপানী ইউনিয়নের তিস্তা নদীর চর ঘুরে দেখা গেছে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন।

নীলফামারীর ডিমলায় তিস্তা নদীর বালুচরে যেদিকে চোখ যায় শুধুই পেঁয়াজের আবাদ। দাম বেশি পাওয়ার আশায় এবার কৃষকেরা পেঁয়াজ চাষে ঝুঁকেছেন। অনুকূল আবহাওয়া এবং রোগবালাই কম থাকায় এবার পেঁয়াজের বাম্পার ফলনের আশা করছেন চরাঞ্চলবাসী।

কয়েক বছর ধরে পেঁয়াজের সঙ্কট এবং দাম বেশি হওয়ায় এসব চরাঞ্চলের কৃষকরা অন্যান্য ফসলের চেয়ে পেঁয়াজ চাষে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। অন্যান্য বছরের মতো গম ও তামাক চাষ না করে এবার অধিকাংশ কৃষক পেঁয়াজ চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।

উপজেলার পূর্ব ছাতনাই, টেপা খড়িবাড়ী, খগা খড়িবাড়ী, ঝুনাগাছ চাপানী, খালিশা চাপানী ইউনিয়নের তিস্তা নদীর চর ঘুরে দেখা গেছে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন। এসব চর এলাকার কৃষকরা বন্যায় রোপা আমন চাষে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও পেঁয়াজ চাষে সফলতার স্বপ্ন দেখছেন।

কৃষক নুর ইসলাম, হুকুম আলী, জুলহাস, আজাহার ও আবুল হোসেন জানান, তারা প্রত্যেকেই ৩/৪ বিঘা করে জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছেন। ১৫শ’ টাকার বীজ কিনে রোপণ করে শতক প্রতি এক থেকে দেড় মণ করে পেঁয়াজ ফলনের স্বপ্ন তাদের।

হুকুম আলী বলেন, সব মিলে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হয়েছে এই ক্ষেতে। ৭০ শতক জমিতে ৭০ থেকে ৯০ মণ পেঁয়াজ পেলে বাজার অনুযায়ী মণ প্রতি ৫ থেকে ৬ শ’ টাকা দরে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা বিক্রি হবে।

জুলহাস বলেন, ‘খরচ ও পরিশ্রম কম হয়ে ভালো ফলন হওয়ায় চরের অধিকাংশ কৃষকই এখন পেঁয়াজ চাষের দিকে ঝুঁকছে। সহজ সেচ ব্যবস্থা ও ন্যায্য মূল্যের নিশ্চয়তা পেলে চরে পেঁয়াজ চাষ আরও বৃদ্ধি পাবে। তাতে দেশে পেঁয়াজের ঘাটতিও পূরণ হবে।’

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী বলেন, ‘তিস্তায় জেগে ওঠা চরে এখন বিভিন্ন ধরনের ফসল হচ্ছে। তিস্তার চরাঞ্চলে বন্যা-পরবর্তী ফসল হিসেবে এবার ৬৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। বিঘা প্রতি ৬০ থেকে ৭০ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ‘মসলা জাতীয় এই ফসলে কৃষকরা সময় সময় লাভবান হন। চরের কৃষকদের ভালো ফলনের জন্য আমরা কৃষি বিভাগ সার্বক্ষণিক পরামর্শসহ বীজ থেকে শুরু করে অন্যান্য উপকরণ সরবরাহ করে যাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
নবম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে শরীয়তপুরে
কৃষিপণ্য রপ্তানির নীতিমালা হচ্ছে
সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ
‘কৃষি বাণিজ্য মেলা’ করবে ডিএনসিসি
সরিষা ফুলে ভরে গেছে ঝিনাইদহের মাঠ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Successful businessman started mushroom cultivation after watching YouTube

ইউটিউব দেখে মাশরুম চাষ শুরু করে সফল ব্যবসায়ী

ইউটিউব দেখে মাশরুম চাষ শুরু করে সফল ব্যবসায়ী মাশরুম পরিচর্যায় সাগর আলী। ছবি: নিউজবাংলা
মাশরুম চাষি সাগর আলী বলেন, ‘গত বছরের শেষের দিকে মাশরুম খামার গড়ে তুলি। সবমিলে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছিল। খরচের টাকা উঠে কিছু লাভও হয়েছে। বর্তমানে খামারে মাশরুম বীজ আছে তা থেকে আগামী তিন মাস বিক্রি করা যাবে মাশরুম। আশা করছি তিন মাস মাশরুম বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকার আয় করতে পারব।’

নওগাঁ সদর উপজেলার কির্ত্তিপুর ইউনিয়ন বিনে ফতেপুর গ্রামের সাগর আলী। পড়াশোনা করেছেন পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত। আবাদের জন্য তেমন কৃষি জমি নেই। গত ১৪-১৫ বছর যাবৎ নওগাঁ সদর উপজেলা পরিষদের সামনে রাস্তার পাশে বাজারে সবজি বিক্রি করে আসছেন।

২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ইউটিউবে মাশরুম চাষের একটি ভিডিও দেখে সিন্ধান্ত নেন তিনি মাশরুম চাষ করবেন। এর পর মার্চ মাসের শুরুর দিকে যশোর ডিএম সেন্টার নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে চারদিনের একটি কোর্স করেন মাশরুম চাষের ওপর।

এরপর অক্টোবর মাসে সেখান থেকে কিছু বীজ সংগ্রহ করে নিজ বাড়ির পাশের জায়গায় শুরু করেন মাশরুম চাষ। তার খামারে বর্তমানে দুই কেজির একটি স্পন প্যাকেট করা ৩০০টি মাশরুমের স্পন রয়েছে।

খড়, কাঠের গুঁড়া, কাগজ, গমের ভুসি, বীজ, ছাঁউনিসহ সবমিলে খরচ হয়েছিল ১৫ হাজার টাকার মতো। ইতোমধ্যে তিনি মাশরুম বিক্রি করে লাভবান হয়েছেন। আগামী তিন মাস যাবৎ তিনি তার খামার থেকে মাশরুম বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন।

প্রতিদিনই সাগরের মাসরুমের খামার দেখতে আসছেন অনেকই আবার কেউবা মাশরুম কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। স্থানীয়রা তার এই সফলতা দেখে আগামীতে এমন উদ্যোগ নেয়ার কথাও জানান।

ইউটিউব দেখে মাশরুম চাষ শুরু করে সফল ব্যবসায়ী

স্থানীয় বিনে ফতেপুর গ্রামের বুলবুলি বেগম বলেন, ‘সাগর চাচার মাশরুম খামার দেখে খুবই ভালো লাগছে। একবার বীজ ৩০ থেকে নাকি ৩৫ বার ফলন পাওয়া যায়। আমরাও বাড়ির ফাঁকা জায়গায় এমন মাশরুম চাষ করার পরিকল্পনা করছি।’

সাজ্জাত হোসেন নামের স্থানীয় আরেক বাসিন্দা বলেন, ‘সাগর চারমাস আগে থেকে এখানে মাশরুম চাষ শুরু করেছে। বর্তমানে তিনি সফল একজন চাষি। সবজি বিক্রির পাশাপাশি মাশরুম চাষ করে থাকেন। প্রথম মাসেই তিনি মাশরুম চাষে লাভবান হয়েছেন। কম খরচে অধিক লাভবান হওয়া সম্ভব, আমরা এমন উদ্যোগ নিব বলে ভাবছি।’

নওগাঁ শহরের থানার মোড় এলাকা থেকে মাশরুম কিনতে এসেছেন আব্দুল্লাহ আল মুসাব্বের। তিনি বলেন, ‘বাজার থেকে মাশরুম কিনলে অনেক সময় কীটনাশক যুক্ত হয়। যার কারণে ফ্রেস ও টাটকা মাশরুম যাতে পাই, সেজন্য সাগর ভাইয়ের এখানে এসেছি। মাশরুম খামার থেকে সংগ্রহ করে ৩০০ টাকা কেজি দরে দুই কেজি কিনলাম।’

মাশরুম চাষি সাগর আলী বলেন, ‘খড়, কাঠের গুঁড়া, কাগজ, গমের ভুসি, ইত্যাদি দিয়ে ওয়েষ্টার জাতের মাসরুমের খামার গড়ে তুলেছি। প্রথম স্পন প্যাকেট থেকে ২৫ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে ফলন আসে। দুই কেজির একটি স্পন প্যাকেট থেকে প্রায় দুই কেজি মাশরুম পাওয়া যায়। প্রতিদিন ৬ থেকে ৮ কেজি মাশরুম বিক্রি করে থাকি। প্রতি কেজি কাঁচা মাশরুম পাইকারি ২৫০ এবং খুচরা ৩০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে থাকি। যশোরে চার দিনের প্রশিক্ষণ নিয়েছিলাম।

‘গত বছরের শেষের দিকে মাশরুম খামার গড়ে তুলি। সবমিলে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছিল। খরচের টাকা উঠে কিছু লাভও হয়েছে। বর্তমানে খামারে মাশরুম বীজ আছে তা থেকে আগামী তিন মাস বিক্রি করা যাবে মাশরুম। আশা করছি তিন মাস মাশরুম বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকার আয় করতে পারব।’

ইউটিউব দেখে মাশরুম চাষ শুরু করে সফল ব্যবসায়ী

সাগর আরও বলেন, ‘খামারে প্রতিদিন তিন বেলা পানি দিয়ে স্প্রে করতে হয়। আমার কাজে আমার মেয়ে ও পরিবারের সদস্যরা সহযোগিতা করে থাকেন। যদি কৃষি অফিস থেকে সহায়তা পেতাম তবে আগামীতে আরও বড় পরিসরে মাশরুমের আবাদ করতাম।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নওগাঁর উপপরিচালক আবু হোসেন বলেন, ‘মাশরুম অত্যন্ত পুষ্টিকর সুস্বাদু ও ওষধি গুণসম্পন্ন খাবার। ইতোমধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এটি। দিন দিন নওগাঁতেও মাশরুম চাষের আগ্রহ বাড়ছে। মাশরুম চাষ বাড়তি আয়ের উৎস হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। মাশরুম চাষি সাগর আলী বর্তমান এটি চাষে সফল হয়েছেন। যদি কৃষি অফিস থেকে কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হয়, তবে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে অবশ্যই তাকে সাধ্যমতো সহযোগিতা করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাশরুম চাষে কোনো আবাদি জমির প্রয়োজন হয় না। চাষের জমি না থাকলেও বসত ঘরের পাশে অব্যবহৃত জায়গা ও ঘরের বারান্দা ব্যবহার করে অধিক পরিমাণ মাশরুম উৎপাদন করা সম্ভব। সহজেই মাশরুমের বীজতলা তৈরি করা যায়।’

আরও পড়ুন:
আশা জাগাচ্ছে কাসাভা
ঠাকুরগাঁওয়ে কমেছে আলুর আবাদ, সংরক্ষণ নিয়েও শঙ্কা
মেহেরপুরে গমের বীজসংকট, দিশেহারা কৃষক
কমলা-মাল্টা চাষে একরামুলের বছরে আয় ৭০ লাখ
শিম চাষে ভাগ্য বদল চাকরি হারানো যুবকের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sukhsagar is the hope of farmers in onion seeds

সুখসাগর পেঁয়াজের বীজে চাষিদের আশা

সুখসাগর পেঁয়াজের বীজে চাষিদের আশা মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলার একটি মাঠ থেকে সম্প্রতি সময় সুখসাগর জাতের পেঁয়াজের ফুল। ছবি: নিউজবাংলা
মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার মজুমদার বলেন, ‘মেহেরপুরের আবহাওয়া পেঁয়াজ চাষের জন‍্য বেশ উপযোগী। চলতি মৌসুমে জেলায় প্রায় ২৮ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে, যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭৫ হাজার ৬০০ টন। স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন বাজারে রপ্তানি করা হবে এ পেঁয়াজ।’

মেহেরপুরে আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে সুখসাগর পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন করে সফল হয়ে লাভবান হচ্ছেন জেলার স্থানীয় কৃষকরা।

একটা সময় ছিল পেঁয়াজের বীজ বপণের মৌসুম আসলেই আমদানি করা পেঁয়াজের বীজের জন‍্য অপেক্ষা করা লাগত। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অনেক সময় অসাধু ব‍্যবসায়ীরা নিম্নমানের বীজ কৃষকদের কাছে পৌঁছে দেয়ায় বির্পযয়ের মুখে পড়ে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে কৃষকদের। আবার ভালো বীজের আশায় বীজ সংকটকের সময় অতিরিক্ত দামে কিনতে হয়েছে পেঁয়াজের বীজ।

কৃষকরা বলছেন, নিজেদের উৎপাদিত পেঁয়াজের বীজে ঝুঁকি কম থাকে, ফলনও ভালো হয়। এতে উৎপাদন খরচ কমে গিয়ে অধিক মুনাফা পাওয়া যায়।

কৃষি বিভাগ বলছে, কৃষকরা নিজ উদ্যোগে বীজ উৎপাদন করে সফল হওয়ায় আমদানি নির্ভরতা কমে যাবে। এতে উৎপাদন ব‍্যায়টাও কমে যাবে। নিজেদের বাড়ির বীজ হওয়াই সঠিক সময়ে বীজ বপণও করতে পারবে। তাই বীজ উৎপাদনে চাষিদেরকে প্রণোদনাসহ প্রয়োজনীয় সহায়তাও করা হচ্ছে।

জেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী, জেলায় চলতি মৌসুমে প্রায় ২৮ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে, যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭৫ হাজার ৬০০ টন। এটি স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের রাজধানীসহ বিভিন্ন বাজারে রপ্তানি করা হবে।

জেলার মুজিব নগর ও সদর উপজেলার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কৃষি নির্ভর মেহেরপুর জেলার সদর ও মুজিব নগর উপজেলায় বিগত পাঁচ বছর যাবত সুখসাগর পেঁয়াজের চাষ করছেন সেখানকার চাষিরা। অন্যান্য যেকোনো জাতের পেঁয়াজ চাষের তুলনায় কম খরচে অধিক ফলন পাওয়া যায় সুখসাগর জাতের পেঁয়াজে। এই এলাকাগুলোতে আরও বেশ কয়েকটি জাতের পেঁয়াজ চাষ ও বেশ জনপ্রিয় তাদের মধ‍্যে অন‍্যতম তাহেরপুরি, বারি ৪, নাসিকা রেড ও ফিপটি।

তবে আকারে বড় অধিক ফলন ও বীজ উৎপাদনের পাশাপাশি পেঁয়াজ ও পাওয়ায় এক খরচে দুই ফলন। ফলে খরচের তুলনায় বেশি লাভবান হওয়া যায় এ সুখসাগর জাতের পেঁয়াজ চাষে।

তাই বেশ কয়েক বছর এ জাতটি পেঁয়াজ চাষিদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে বীজটি যখন আমদানি নির্ভর ছিল। তখন ভরা মৌসুমে বীজ পেতে চাষিদের বেশ বেগ পেতে হতো। আবার বীজ সংকটের কারনে দ্বিগুন দাম দিয়ে কিনতে হতো।

শুধু বপনকালীন বীজ সংকট কিংবা বেশি মূল্য দিয়ে বীজ কেনা নয়। কতিপয় অসাধু ব‍্যাবসায়ীরা কৃষকদের চাহিদাকে পুঁজি করে ভেজাল বীজ বিক্রয়ের ফলে ফলন বিপর্যয়ে চাষিদের লোকসান গুণতে হয়েছে। তবে স্থানীয়ভাবে বীজ উৎপাদন হওয়াই চাষিদের আর এই সকল সমস‍্যার সম্মুখীন হতে হবে না বলেও কৃষকরা মনে করেন।

মুজিব নগর গ্রামের কৃষক জাহিদ হাসান বলেন, ‘আমাদের স্থানীয় বাজারে প্রতি কেজি বীজ বিক্রি হয়ে থাকে ২৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত। আবার বীজ সংকট দেখা দিলে এর চেয়ে বেশি দামেও কেনা লাগে। আর জমিতে বীজ ভালো হলে প্রতি বিঘা জমিতে ৮০ থেকে ৯০ কেজি পযর্ন্ত বীজ পাওয়া সম্ভব।

একই এলাকার পেঁয়াজ চাষি রাজিবুল বলেন, ‘সুখসাগর জাতের পেঁয়াজ আবাদ মানে একসঙ্গে দুই ফসল পাওয়ার মতো। শুধু বীজ নয়, ফুল থেকে বীজ সংগ্রহ করার পর গাছ থেকে পেঁয়াজ পাওয়া যায়। প্রতি বিঘায় ৩৫ থেকে ৪০ মণ পেঁয়াজ পাওয়ার পাশাপাশি ৬০ থেকে ৭০ মণ পযর্ন্ত বীজ পাওয়া সম্ভব।

মেহেরপুর সদর উপজেলার কৃষক আরমান আলী বলেন, ‘আমাদের একটা সময় গেছে পেঁয়াজ চাষের ভরা মৌসুম আসলেই বীজের সংকট দেখা দিত। এতে আমরা অনেক সময়, সঠিক সময়ে বীজ বপণ করতে পারিনি। আবার বাজারে বীজ থাকলেও অধিক দামে কেনা লাগছে। আজ দুই বছর মত হবে নিজেদের বীজ থেকেই পেঁয়াজ চাষ করছি। ঘরের বীজ, তাই বীজ নিয়ে টেনশন করতে হয় না।’

একই এলাকার আরেক চাষি রশিদ বলেন, ‘আমি দুই বছর আগে বাজার থেকে সুখসাগর জাতের পেঁয়াজের বীজ কিনে এনে প্রতারিত হয়েছি। মাঠে বীজ বপণের পরে অর্ধেকের কম হবে, কোনো ফলনি পাইনি।’

মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার মজুমদার বলেন, ‘মেহেরপুরের আবহাওয়া পেঁয়াজ চাষের জন‍্য বেশ উপযোগী। চলতি মৌসুমে জেলায় প্রায় ২৮ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে, যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭৫ হাজার ৬০০ টন। স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন বাজারে রপ্তানি করা হবে এ পেঁয়াজ।’

সাধারণত বছরের নভেম্বর মাসে পেঁয়াজ বীজ বপন করা হয়ে থাকে। জানুয়ারি মাসের দিকে পেঁয়াজ বাজারজাত করা হয়। আর বীজ উৎপাদন হয় মার্চ মাসের শেষের দিকে। সুখসাগর জাতের পেঁয়াজ চাষ করে কৃষকরা দুই সুবিধা পাচ্ছে। পেঁয়াজের পাশাপাশি বীজ পাওয়া যায়। ফলে প্রতিনিয়তই জেলার কৃষকরা পেঁয়াজ চাষে ঝুঁকছে। তাছাড়া পেঁয়াজ উৎপাদন না বাড়ালে আমদানি নির্ভরতা থেকে বের হওয়া আসা সম্ভব হবে না। তাই কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের পরামর্শের পাশাপাশি প্রনোদণাও দেয়া হচ্ছে।

মন্তব্য

p
উপরে