× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
The Prime Ministers order is not being followed in using block bricks
hear-news
player
google_news print-icon

ব্লক ইট ব্যবহারে মানা হচ্ছে না প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

ব্লক-ইট-ব্যবহারে-মানা-হচ্ছে-না-প্রধানমন্ত্রীর-নির্দেশ-
সরকারি উন্নয়ন কাজে মাটি পোড়ানো ইটের পরিবর্তে শতভাগ পরিবেশবান্ধব ব্লক ইট ব্যবহার (বাঁয়ে) বাধ্যতামূলক করা হলেও এমন নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এ বিষয়ে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্লক ইট ব্যবহারে সবাই যাতে উৎসাহিত হয়, সে জন্য চেষ্টা চলছে। কেউ আইন মানতে চায় না। প্রকল্প অনুমোদনের ক্ষেত্রে এ বিধান বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। শিগগিরই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

সরকারি উন্নয়নকাজে মাটি পোড়ানো ইটের পরিবর্তে শতভাগ পরিবেশবান্ধব ব্লক ইট ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হলেও দৃশ্যত এর কোনো অগ্রগতি নেই। পরিবেশের সুরক্ষায় এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্পষ্ট নির্দেশনা থাকলেও তার যথাযথ প্রয়োগ দেখা যাচ্ছে না। এমনকি এ-সংক্রান্ত উচ্চ আদালতের সিদ্ধান্ত কার্যকরেও উদ্যোগ নেই।

সরকারের নীতিনির্ধারকরা বলেছেন, ‘ভালো উদ্যোগ বাস্তবায়নে নানা বাধা আছে। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে যেভাবে ধাক্কা দেয়া প্রয়োজন ছিল, সেভাবে দেয়া হয়নি। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয়ের অভাব আছে। অভাব আছে সচেতনতারও। তবে বিলম্ব হলেও কার্যকর না করে উপায় নেই।’

বালি, সিমেন্ট, নুড়ি পাথর মিলে নির্দিষ্ট মাত্রায় কিছু রাসায়নিক ব্যবহার করে উচ্চ চাপে ব্লক ইট বানানো হয়। বাংলাদেশে মূলত দুই ধরনের ব্লক ইট তৈরি হচ্ছে- সলিড ও হলোটাইপ। হলো ব্লক দিয়ে বাড়ি নির্মাণ করলে ইটের তুলনায় ভবনের ওজন কম হয়। প্রকল্পের খরচও কমে আসে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এ বিষয়ে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্লক ইট ব্যবহারে সবাই যাতে উৎসাহিত হয়, সে জন্য চেষ্টা চলছে। কেউ আইন মানতে চায় না। প্রকল্প অনুমোদনের ক্ষেত্রে এ বিধান বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। শিগগিরই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

বাংলাদেশে সব ধরনের বাড়ি-ঘর নির্মাণে পোড়া মাটির ইট ব্যবহার করা হয়। এই ইট বানাতে যে মাটি ব্যবহার হয় তা সংগ্রহ করা হয় কৃষিজমির উপরিভাগ থেকে। এতে কৃষি জমির উর্বরতা নষ্ট হয়, যা খাদ্য নিরাপত্তাকে ঝুঁকির মুখে ফেলেছে। পাশাপাশি ইটভাটা থেকে নির্গত ধোঁয়া পরিবেশ দূষণের মাত্রা বাড়িয়ে দিচ্ছে।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীন হাউস বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (এইচবিআরআই) এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, দেশে প্রতিদিন গড়ে ৭০০ একর কৃষিজমি নষ্ট হচ্ছে, যা মোট চাষযোগ্য জমির ১ শতাংশের বেশি। এই ৭০০ একর জমির ২০ শতাংশ নষ্ট হয় ইটভাটার কারণে।

এমন বাস্তবতায় মাটি পোড়ানো ইটভাটাকে নিরুৎসাহিত করে পরিবেশবান্ধব কংক্রিট ব্লক ইট ব্যবহারকে অগ্রাধিকার দিয়ে আইন করে সরকার। পাশাপাশি আইনটি বাস্তবায়নে পরিকল্পনা নেয়া হয়।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রচলিত ইটের ব্যবহার থেকে সরে এসে ধাপে ধাপে ২০২৫ সালের মধ্যে সরকারি সব উন্নয়নকাজে ব্লক ইট ব্যবহারের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। এ পরিকল্পনা নেয়া হয় ২০১৯ সালে। ওই বছরই ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণে আইন সংশোধন করা হয়।

জানা যায়, সংশোধিত আইনে সরকারি সব নির্মাণ, মেরামত ও সম্প্রসারণ কাজে পোড়া মাটির তৈরি ইটের পরিবর্তে ব্লক ইট ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয় এবং ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে কার্যকরের কথা উল্লেখ করা হয়।

সরকারের এ পরিকল্পনা কার্যকর করতে ২০১৯ সালের ৪ নভেম্বর পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে।

জানা গেছে, পরিবেশ দূষণ রোধে মাটি পোড়ানো ইটের বিকল্প হিসেবে কংক্রিটের ব্লক ইট ব্যবহারের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দেন ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

পরে এক তথ্যবিবরণীর মাধ্যমে ওই নির্দেশনা জারি করা হয়। তাতে বলা হয়, ‘গৃহনির্মাণ গবেষণা প্রতিষ্ঠান এইচবিআরআই উদ্ভাবিত বিকল্প ইট পরিবেশবান্ধব ও অর্থ সাশ্রয়ী বিধায় প্রধানমন্ত্রী এই ব্লক ইট সরকারি সব উন্নয়নকাজে ব্যবহারের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন।’

এ ছাড়া এ-সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের রায়ে ব্লক ইট ব্যবহারে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নের কথা উল্লেখ করা হয় ২০১৯ সালের অক্টোবরে।

কিন্তু বাস্তবতা হলো ওই নির্দেশনা কাগজেই সীমাবদ্ধ রয়ে গেছে। বাস্তবে উল্লেখ করার মতো অগ্রগতি নেই।

বর্তমানে সারা দেশে প্রায় ১০ হাজার ইটভাটায় ৩ কোটি ৮০ লাখ ইট উৎপাদিত হয়। কিন্তু সরকারি খাতে কত অংশ ব্লক ইট ব্যবহার হচ্ছে, তার কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই। তবে বেশি নির্মাণ কাজ চলে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত, স্থানীয় সরকার, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য- এই চারটি প্রকৌশল অধিদপ্তরে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সরকারি উন্নয়নকাজের ৬০ শতাংশই হয় এই চারটি সংস্থায়।

এদিকে সরকারপ্রধানের উল্লিখিত নির্দেশনা প্রতিপালনে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলো যে খুব একটা গুরুত্ব দিচ্ছে না তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

যোগাযোগ করা হলে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্লক ইট ব্যবহারে পিডব্লিউডি যেভাবে কাজ শুরু করেছিল পরবর্তী সময়ে সেভাবে এগোয়নি। আমি মন্ত্রণালয়ে নতুন এসেছি। যোগদান করার পর বারবার প্রশ্ন করেছি কেন কাজটি করা হচ্ছে না। সংশ্লিষ্টদের বলেছি, যেভাবে নির্দেশ দেয়া আছে, সে অনুযায়ী কার্যাদেশ দিতে। এখন কাজ শুরু হয়েছে। বিলম্ব হলেও এটি বাস্তবায়ন হবে।

তিনি আরও বলেন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের অধীনে যেসব উন্নয়নকাজ হবে, তাতে ব্লক ইট ব্যবহারের জন্য ইতোমধ্যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমি সচিব হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি। কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বলেছি, প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশ অবশ্যই পালন করতে হবে।’

তিনি মনে করেন, সরকারি কাজে ব্লক ইট ব্যবহার শুরু হলে বেসরকারি খাতও উৎসাহিত হবে। তবে এটা ঠিক, এর জন্য যেভাবে ধাক্কা দেয়া প্রয়োজন ছিল সেভাবে দেয়া হয়নি।

পরিকল্পনা ও বাস্তবতা

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ২০১৯-২০ সালের মধ্যে সরকারি নির্মাণকাজের ১০ শতাংশ, ২০২০-২১ সালের মধ্যে ২০ শতাংশ, ২০২১-২২ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ, ২০২২-২৩ সালের মধ্যে ৬০ শতাংশ, ২০২৩-২৪ মধ্যে ৮০ শতাংশ এবং ২০২৪-২৫ সালে শতভাগ ব্লক ইট ব্যবহার করতে হবে। ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী, এখন সব সরকারি নির্মাণকাজে অন্তত ৩০ শতাংশ ব্লক ইট ব্যবহার করার কথা। কিন্তু বাস্তবে যা হচ্ছে তা উল্লেখ করার মতো নয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিকল্পনা, পরিবীক্ষণ, মূল্যায়ন ও পরিদর্শন অনুবিভাগের মহাপরিচালক সারোয়ার বারী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বড় প্রকল্পে ব্লক ইট ব্যবহারের জন্য মন্ত্রণালয় থেকে মাঠ পর্যায়ে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নির্দেশটি পালন করতে বলা হয়েছে।

‘করোনা মহামারির কারণে আমরা পিছিয়ে গেছি। এখন থেকে কাজ শুরু হয়ে গেছে। সরকারের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব বলে আশা করি।’

সমস্যা কোথায়?

পরিবেশবান্ধব নির্মাণ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে মীর কংক্রিট কোম্পানি লিমিটেড। এই কোম্পানির একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘বাজার তৈরি না হওয়ার বিষয়টি ব্লক ইটের জন্য এখনও বড় বাধা। দেশে প্রায় ১০ হাজার ইটভাটা রয়েছে এবং বছরে ৩৫-৪০ হাজার কোটি টাকার বাজার আছে পোড়া মাটির ইটের।

‘অন্যদিকে ব্লক তৈরি করছে এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেশি নয়। পুরো মার্কেট তো ইটভাটার মালিকদের দখলে। ফলে ব্লক ইটের মার্কেটিং কম হচ্ছে।’

পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে ব্লক ইট কারখানা বর্তমানে ১৩৫টি। এর মধ্যে ঢাকায় ৮৩টি ও চট্টগ্রামে ২৬টি কারখানা রয়েছে। বাকিগুলো অন্যান্য শহরে।

সাধারণ মানুষ ব্লক ইট সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানে না। এটাকে বড় বাধা হিসেবে দেখছেন আবাসন শিল্প মালিকদের সংগঠন রিহ্যাবের সাবেক সহ-সভাপতি লিয়াকত আলী ভুঁইয়া।

তিনি বলেন, ‘সচেতনতার অভাবই বড় সমস্যা। একটি কংক্রিট ব্লক পাঁচটি ইটের সমান। এই ইট ব্যবহার করলে নির্মাণ ব্যয় ২০ থেকে ২৫ শতাংশ সাশ্রয় হবে। ভবনের ভেতরে ব্যবহারযোগ্য জায়গাও বাড়বে।’

ব্লক ইট নিয়ে ঢাকাসহ সারা দেশে প্রচার বাড়ানোর কথা বলেন আবাসন খাতের অভিজ্ঞ এই ব্যবসায়ী।

খসড়া রোডম্যাপ তৈরি হচ্ছে

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ব্লক ইটের ব্যবহার বাড়াতে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা বাস্তবায়নে খসড়া রোডম্যাপ তৈরি হচ্ছে। এতে ব্লক ইট উৎপাদন উৎসাহিত করতে প্রকল্প অনুমোদনের সময় কমপক্ষে ৪০ শতাংশ বাধ্যতামূলক ব্যবহার, সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ, কর ছাড়, সচেতনতা বৃদ্ধিসহ নানা পদক্ষেপের উল্লেখ থাকছে। আগামী তিন মাসের মধ্যে রোডম্যাপ চূড়ান্ত হবে বলে পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিবেশ অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মাটি পোড়ানো ইটের ব্যবহার কমাতে হলে পরিবেশবান্ধব ব্লক ইটের বিকল্প নেই। প্রজ্ঞাপনের শর্ত বাস্তবায়নের জন্যই রোডম্যাপ করা হচ্ছে। এটি চূড়ান্ত হলে ব্লক ইট ব্যবহারের ক্ষেত্রে অনেক বাধা দূর হবে।’

পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কাজী আবু তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা চাই ব্লক ইটের ব্যবহার বাড়ুক। সে জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মাদারীপুরে ইটভাটায় পোড়ানো হচ্ছে কাঠ
পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেই, তবুও চলছে ইটের ভাটা
ভাটার শ্রমিকরা জিম্মি সর্দারের কাছে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bagar of 55 kg is sold at 75 thousand in Yamuna

যমুনায় ৫৫ কে‌জির বাগাড়, বিক্রি ৭৫ হাজারে

যমুনায় ৫৫ কে‌জির বাগাড়, বিক্রি ৭৫ হাজারে সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে যমুনা নদীতে ধরা পড়া বাগাইড় মাছটি শনিবার ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী বাজারে তোলা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
গো‌বিন্দাসী মাছ বাজার স‌মি‌তির সভাপ‌তি বাবলু হ‌ালদার বলেন, ‘সিরাজগঞ্জের বেলকু‌চি উপজেলার যমুনা নদীতে এক জেলের জালে ধরা পড়ে বিশাল আকারের বাগাড় মাছটি। বিক্রির উদ্দেশ্যেই সেখান থেকে মাছটি কিনে আনি আমি। প‌রে সেটি ৭৫ হাজার টাকায় বি‌ক্রি ক‌রে‌ছি।’

টাঙ্গাই‌লের ভূঞাপু‌রে যমুনা নদী থে‌কে জে‌লের জা‌লে ধরা প‌ড়ে‌ছে ৫৫ কে‌জি ওজ‌নের এক‌টি বাগাড় মাছ‌। পরে স্থানীয় বাজা‌রে মাছ‌টি ৭৫ হাজার টাকায় বি‌ক্রি ক‌রেন বাবলু হালদার।

শ‌নিবার দুপুরে উপ‌জেলার গো‌বিন্দাসী বাজা‌রে বাগাড় মাছ‌টি বিক্রির জন‌্য আ‌নেন বাবলু হালদার। এদিন সকা‌লে সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকু‌চি এলাকায় যমুনা নদী থেকে এক জে‌লের কাছ থে‌কে মাছটি কেনেন তিনি।

গো‌বিন্দাসী মাছ বাজার স‌মি‌তির সভাপ‌তি বাবলু হালদার প‌রে গো‌বিন্দাসী বাজা‌রে বাগাড় মাছ‌টি ৭৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। মাছটি কিনে নেন মধুপুর উপ‌জেলার গা‌রোবাজা‌রের সুজন না‌মে এক ব্যক্তি।

ক্রেতা সুজন জানান, বিশাল আকৃ‌তির বাগাড় মাছ‌টি কিনে তারা কয়েকজন মিলে ভাগ ক‌রে নি‌য়ে‌ছেন।

বাবলু হ‌ালদার বলেন, ‘বেলকু‌চির যমুনা নদীতে এক জেলের জালে ধরা পড়ে মাছটি। বিক্রির উদ্দেশ্যেই সেখান থেকে মাছটি কিনে আনি আমি। প‌রে মাছটি ৭৫ হাজার টাকায় বি‌ক্রি ক‌রে‌ছি।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
642 deaths in accidents in January are highest on bikes

জানুয়ারিতে দুর্ঘটনায় ৬৪২ প্রাণহানি, সর্বোচ্চ বাইকে

জানুয়ারিতে দুর্ঘটনায় ৬৪২ প্রাণহানি, সর্বোচ্চ বাইকে মহাসড়কে দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি মোটরসাইকেল। ফাইল ছবি
যাত্রী কল্যাণ সমিতির দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন অনুযায়ী, জানুয়ারিতে ২১৪টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ২০৫ জন। এসব দুর্ঘটনায় আহত জন ১১৪ বাইক আরোহী।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে সড়ক, রেল ও নৌপথে ৬৫০টি দুর্ঘটনায় ৬৪২ জন প্রাণ হারিয়েছে জানিয়ে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলেছে, বিগত মাসে যাত্রাপথে সবচেয়ে বেশি নিহত হয়েছেন মোটরসাইকেল বা বাইক আরোহীরা।

সংবাদমাধ্যমে শনিবার পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংস্থাটি।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জানুয়ারিতে ৫৯৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৮৫ জন নিহত ও ৮৯৯ জন আহত হয়েছে। এ ছাড়া রেলপথে ৪৪টি দুর্ঘটনায় ৪৬ প্রাণহানি ও ৭৮ জন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নৌপথে ১৩ দুর্ঘটনায় ১১ জনের মৃত্যু, একজন আহত ও ছয়জন নিখোঁজ হয়।

সংস্থাটির দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন অনুযায়ী, জানুয়ারিতে ২১৪টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ২০৫ জন। এসব দুর্ঘটনায় আহত জন ১১৪ বাইক আরোহী।

দেশের জাতীয়, আঞ্চলিক সংবাদপত্র ও অনলাইন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়।

এতে দেখা যায়, ২০২২ সালের জানুয়ারির চেয়ে ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে সড়কে দুর্ঘটনা ৫.৩ শতাংশ এবং আহত ১০.০৪ শতাংশ বেড়েছে, তবে প্রাণহানি ৪.৬ শতাংশ কমেছে।

দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা যায়, জানুয়ারিতে সংঘটিত দুর্ঘটনার ২৯.৫১ শতাংশ জাতীয় মহাসড়কে, ৩৮.৬১ শতাংশ আঞ্চলিক মহাসড়কে ও ২৪.৪৫ শতাংশ ফিডার রোডে হয়েছে।

সারা দেশে মোট দুর্ঘটনার ৫.২২ শতাংশ ঢাকা মহানগরীতে, ১.১৮ শতাংশ চট্টগ্রাম মহানগরীতে এবং ১.০১ শতাংশ রেলক্রসিংয়ে ঘটেছে।

গত মাসে সড়ক দুর্ঘটনা সবচেয়ে বেশি হয় ১৭ জানুয়ারি। ওই দিনে ৩৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২০ জন নিহত ও ৩১ জন আহত হয়।

সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে ২ জানুয়ারি, যেদিন ১২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১০ জন নিহত ও ২১ জন আহত হয়।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, সড়ক দুর্ঘটনার উল্লেখযোগ্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে বেপরোয়া গতি, বিপজ্জনক ওভারটেকিং, ফিটনেসবিহীন যানবাহনের অবাধ চলাচল, যাত্রী ও পথচারীদের অসতর্কতা, চালকের অদক্ষতা, চালকের বেপরোয়া মনোভাব, চলন্ত অবস্থায় মোবাইল বা হেডফোন ব্যবহার, মাদক সেবন করে যানবাহন চালানো ইত্যাদি।

আরও পড়ুন:
মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে গিয়ে ফিরলেন লাশ হয়ে
রেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় গেল যুবকের প্রাণ
দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩
পেরুতে বাস খাদে পড়ে গেল ২৪ প্রাণ
শ্রীমঙ্গলে অটোরিকশায় পিকআপের ধাক্কা, নিহত ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Glimpse of winter after winter

শৈত্যপ্রবাহের পর শীত কমার আভাস

শৈত্যপ্রবাহের পর শীত কমার আভাস রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত লোকজন। ফাইল ছবি/পিয়াস বিশ্বাস
তাপমাত্রার বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়, সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

দেশের দুই জেলার ওপর দিয়ে শুক্রবার মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে গেলেও শনিবার কোথাও এমন পরিস্থিতি দেখা যায়নি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের শনিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসেও শৈত্যপ্রবাহের কোনো বার্তা দেয়া হয়নি।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি রাতের তাপমাত্রা বাড়ার আভাস দিয়েছে, যার অর্থ হলো দেশজুড়ে কমতে পারে শীতের অনুভূতি।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, উপমহাদেশীয় উচ্চতাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বিহার ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

দিনভর আবহাওয়া কেমন থাকবে, তা নিয়ে পূর্বাভাসে জানানো হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে।

কুয়াশা নিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকার কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং দেশের অন্যত্র কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থা নিয়ে বলা হয়, এ সময়ের শেষের দিকে রাতের তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শুক্রবার দেশের সর্বোচ্চ ৩০.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল কক্সবাজারের টেকনাফে। শনিবার দেশের সর্বনিম্ন ১০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গায়।

আরও পড়ুন:
শীত ওঠানামা করতে পারে দুই-তিন দিন
‘মাঘের শীতে বাঘ পালায়’ শুধু বইয়েই
শীত আরও কমতে পারে টানা তিন দিন
শীত কমার আভাস
মাঝারি শৈত্যপ্রবাহে বিপাকে নওগাঁর শ্রমজীবীরা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangladesh has a new role in the UN Peacebuilding Commission

জাতিসংঘ শান্তি বিনির্মাণ কমিশনে নতুন দায়িত্বে বাংলাদেশ

জাতিসংঘ শান্তি বিনির্মাণ কমিশনে নতুন দায়িত্বে বাংলাদেশ
সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর কমিশনের সদস্যরা ২০২৩ সালের জন্য ক্রোয়েশিয়াকে সভাপতি এবং বাংলাদেশ ও জার্মানিকে সহ-সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করেন। বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে রাষ্ট্রদূত মুহিত আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রোয়েশিয়ার কাছে কমিশনের সভাপতির দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত সর্বসম্মতিক্রমে ২০২৩ সালের জন্য জাতিসংঘ শান্তি বিনির্মাণ কমিশনের (পিবিসি) সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি এর আগে ২০২২ সালে কমিশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর কমিশনের সদস্যরা ২০২৩ সালের জন্য ক্রোয়েশিয়াকে সভাপতি এবং বাংলাদেশ ও জার্মানিকে সহ-সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করেন। বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে রাষ্ট্রদূত মুহিত আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রোয়েশিয়ার কাছে কমিশনের সভাপতির দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন।

শুক্রবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক সরকারি তথ্য বিবরণীতে এ সংবাদ জানানো হয়। এতে বলা হয়, অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত কমিশনে সভাপতির দায়িত্ব পালনের সময় বাংলাদেশের প্রতি সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময় থেকে ক্রমান্বয়ে বাংলাদেশ জাতিসংঘের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

বিশ্বের সর্বোচ্চ শান্তিরক্ষী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বশান্তি রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। মুহিত আগামীতে কমিশনের কাজে বাংলাদেশের পূর্ণ সমর্থন অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

আরও পড়ুন:
রোহিঙ্গা ফেরত বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদে রেজল্যুশন গৃহীত
বাংলাদেশকে বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জাতিসংঘের
জাতিসংঘের নারী অধিকার সংস্থা থেকে ইরানকে বহিষ্কার
নাগরিক মত প্রকাশের স্বাধীনতা কমেছে: জাতিসংঘ মহাসচিব
বঙ্গবন্ধুর উক্তি জাতিসংঘ রেজুলেশনে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Cold flow in two districts

দুই জেলায় শৈত্যপ্রবাহ

দুই জেলায় শৈত্যপ্রবাহ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন ৯.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। ফাইল ছবি
কোনো অঞ্চলের তাপমাত্রা ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে সেখানে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে বলে জানায় আবহাওয়া অধিদপ্তর।

দেশজুড়ে জানুয়ারিতে অনেকটা কমে আসা শীতের অনুভূতি ফের তীব্র হয়েছে কয়েকটি জেলায়।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে দেশের সীমান্তবর্তী দুই জেলা কুড়িগ্রাম ও মৌলভীবাজারে।

কোনো অঞ্চলের তাপমাত্রা ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে সেখানে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে বলে জানায় আবহাওয়া অধিদপ্তর।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটির শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, শ্রীলঙ্কা ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে প্রথমে সুস্পষ্ট লঘুচাপ এবং পরবর্তী সময়ে লঘুচাপে পরিণত হয়ে গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে। উপমহাদেশীয় উচ্চতাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাংশ পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

দিনভর আবহাওয়া কেমন থাকবে, তা নিয়ে পূর্বাভাসে জানানো হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে।

কুয়াশা নিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্য কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

শৈত্যপ্রবাহ নিয়ে বলা হয়, কুড়িগ্রাম ও মৌলভীবাজার জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

তাপমাত্রার বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থা নিয়ে অধিদপ্তর জানায়, তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি আরও জানায়, বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ ৩১ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল রাঙ্গামাটিতে। শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন ৯.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে।

আরও পড়ুন:
‘মাঘের শীতে বাঘ পালায়’ শুধু বইয়েই
শীত আরও কমতে পারে টানা তিন দিন
শীত কমার আভাস
মাঝারি শৈত্যপ্রবাহে বিপাকে নওগাঁর শ্রমজীবীরা
১৬ জেলায় শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Ministers office is an example of austerity

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ফটক। ফাইল ছবি
গত বছরের জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয়ের হিসাব থেকে দেখা যায়, বিদ্যুৎ বিল হ্রাস পেয়েছে ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ, অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার কমানো হয়েছে ২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং আপ্যায়ন খাতের ব্যয় কমানো হয়েছে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বিদ্যুৎ ও আপ্যায়ন খাতে খরচ প্রায় অর্ধেকে নামিয়ে আনা হয়েছে। জ্বালানি তেলে খরচ কমানো হয়েছে প্রায় ৪ ভাগের এক ভাগ। পাশাপাশি অন্যান্য খাতেও ব্যয় কমানো হয়েছে।

ব্যয় সংকোচনে এসব পদক্ষেপের সুবাদে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দ থেকে ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

গত বছরের জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয়ের হিসাব থেকে দেখা যায়, বিদ্যুৎ বিল কমেছে ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ, অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার কমানো হয়েছে ২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং আপ্যায়ন খাতের ব্যয় কমানো হয়েছে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মো. আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মানুষকে করোনা ভ্যাকসিন দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছিলেন কিছু খাতে ব্যয় সংকোচন করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাদ্দের কিছু টাকা বাঁচিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে দেয়া যায় কি না। ২০২০ সাল থেকে শুরু করেছি। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবেই ব্যয় কমানো শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘২০২২ সালে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে অর্থনৈতিক সংকট শুরু হলো এবং ঢেউটা বাংলাদেশ পর্যন্ত আসল। তখন আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয় আরও কমানোর কাজ শুরু করলাম।

‘প্রথমত আমরা বিদ্যুতে হাত দিলাম। তারপরে পেট্রল এবং লুব্রিকেন্টের খাতে খুবই বৈজ্ঞানিক উপায়ে গাড়িগুলোকে একটু রেশনিং করে আমরা সেটাও কমিয়ে এনেছি। একইভাবে আপ্যায়ন খাতেও আমরা ব্যয় কমিয়ে নিয়ে এসেছি। আমরা যে আপ্যায়নের মেন্যুটি করেছি, সেটি খুবই সাদামাটা।’

বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ কমিয়ে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দ থেকে ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ফেরত দেয়ার কথা জানিয়ে আহসান কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা সংসদীয় বাজেট থেকে অর্থ বিভাগের কাছে সমর্পণ করেছি। এ টাকা সরকারের কোষাগারে জমা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রীর অফিসের ব্যয় আরও কমে আসবে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের জুনে বিদ্যুৎ খাতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয় ছিল ২৩ লাখ ৮ হাজার ৮৩৮ টাকা। জুন থেকে ৭ দশমিক ৩০ শতাংশ কমিয়ে জুলাইয়ে খরচ হয় ২১ লাখ ৩৮ হাজার ৬২৫ টাকা। জুন থেকে খরচ ৩১ দশমিক ৮৪ শতাংশ কমিয়ে আগস্টের ব্যয় হয় ১৫ লাখ ৭৩ হাজার ৮১৩ টাকা। জুন থেকে খরচ ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ (প্রায় অর্ধেক) কমিয়ে সেপ্টেম্বরে বিদ্যুৎ খাতের ব্যয় দাঁড়ায় ১২ লাখ ২৭ হাজার ৩৫৩ টাকা।

২০২২ সালের জুনে পরিবহনের জন্য জ্বালানি খাতে অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার ছিল ৪১ হাজার ৪০২ লিটার। জুন থেকে ৪ হাজার ৪০০ লিটার (১০ দশমিক ৬৩ শতাংশ) কমিয়ে জুলাইয়ে জ্বালানি তেলের ব্যবহার হয় ৩৭ হাজার ২ লিটার। জুন থেকে ১৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ কমিয়ে আগস্টে জ্বালানি তেলের ব্যবহার হয় ৩৪ হাজার ৮৪১ লিটার। আর জুন থেকে ৯ হাজার ৬৬৬ লিটার তেল (২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ) কমিয়ে সেপ্টেম্বরে তেলের ব্যবহার ৩১ হাজার ৭৩৬ লিটারে নামিয়ে আনা হয়।

জুনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আপ্যায়ন ব্যয় ছিল ৩ লাখ ২১ হাজার ৬৬৫ টাকা। ওই মাস থেকে ১৬ দশমিক ৮১ শতাংশ খরচ কমিয়ে জুলাইয়ের আপ্যায়ন ব্যয় ২ লাখ ৬৭ হাজার ৫৭০ টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

জুন থেকে ৩২ দশমিক ১০ শতাংশ কমিয়ে আগস্টের আপ্যায়ন ব্যয় ২ লাখ ১৮ হাজার ৪১০ টাকায় নামিয়ে আনা হয়। ওই মাস থেকে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ খরচ কমিয়ে সেপ্টেম্বর আপ্যায়ন ব্যয় হয় ১ লাখ ৭৪ হাজার ১২০ টাকা।

আরও পড়ুন:
রাজশাহীতে বিএনপির চেয়ে ১৪ গুণ বড় সমাবেশ আওয়ামী লীগের: হাছান
অনির্বাচিত কাউকে দিয়ে দেশের উন্নয়ন হয় না: প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ পালায় না, জনগণকে নিয়ে কাজ করে: শেখ হাসিনা
নৌকায় ভোটের ওয়াদা চাই: শেখ হাসিনা
নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mujibnagar University is located in Meherpur

মেহেরপুরে হচ্ছে মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয়

মেহেরপুরে হচ্ছে মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয় ফাইল ছবি।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে বিলটি পাসের আগে জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব উত্থাপন করেন বিরোধী দলীয় সদস্যরা। তাদের প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। এরপর বিলের ওপর আনীত সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি করেন স্পিকার।

মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয় পাচ্ছে মেহেরপুর জেলা। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে এ লক্ষ্যে একটি বিল পাস হয়েছে।

অধিবেশনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ‘মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয়, মেহেরপুর বিল-২০২৩’ উত্থাপন করলে কণ্ঠভোটে তা পাস হয়।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে বিলটি পাসের আগে জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব উত্থাপন করেন বিরোধী দলীয় সদস্যরা। তাদের প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। এরপর বিলের ওপর আনীত সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি করেন স্পিকার।

১০ জানুয়ারি সংসদে বিলটি উত্থাপনের পর তা অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন আদেশ-১৯৭৩ এর বিধানাবঈ পরিপালন করতে হবে। রাষ্ট্রপতি হবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য।

আচার্য নির্ধারিত শর্তে স্বনামধন্য একজন শিক্ষাবিদকে চার বছরের জন্য উপাচার্য পদে নিয়োগ দেবেন। কোনো ব্যক্তি একাদিক্রমে বা অন্য কোনোভাবে উপাচার্য হিসেবে দুই মেয়াদের বেশি নিয়োগ লাভের যোগ্য হবেন না। আচার্য যেকোনো সময় উপাচার্যের নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন।

বিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কর্মচারীদের চাকরির শর্তাবলী নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বেতনভোগী শিক্ষক ও কর্মচারী, সংসদ সদস্য বা স্থানীয় সরকারের কোনো পদে নির্বাচিত হতে প্রার্থী হতে চাইলে ওই নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি থেকে ইস্তফা দেবেন।

বিলে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজনে আচার্যের অনুমোদন নিয়ে ‘বিজনেস ইনকিউবেটর’ প্রতিষ্ঠা করতে পারবে। বিজনেস ইনকিউবেটর হলো বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক স্থাপিত বা পরিচালিত কোনো বিজনেস ইনকিউবেটর, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে সব সহযোগিতা দেয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বা শিক্ষার্থী কর্তৃক কোনো উদ্ভাবন, মেধাস্বত্ব, আবিষ্কার বা প্রক্রিয়া, বাজারজাত এবং বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের জন্য সহযোগিতা প্রদান।

আরও পড়ুন:
সবার জন্য পেনশন, সংসদে বিল পাস
সংসদে শীর্ষ ২০ ঋণ খেলাপির তালিকা
দেশে শনাক্ত এইচআইভি রোগী ৯৭০৮
পিএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁসে ১০ বছরের কারাদণ্ড
বিদেশে বাড়ি-গাড়ির খবরের সত্যতা জানতে চান চুন্নু

মন্তব্য

p
উপরে