× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Shops closed due to doubt and fear
google_news print-icon

সংশয় আর ভয়ে বন্ধ দোকানপাট

সংশয়-আর-ভয়ে-বন্ধ-দোকানপাট
গোলাপবাগে বিএনপির সমাবেশের কারণে শনিবার রাজধানীর অধিকাংশ এলাকায় ব্যবসায়ীরা দোকান খোলেননি। ছবিটি জনসন রোড থেকে তোলা। ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপি শনিবার রাজধানীর গোলাপবাগে বিভাগীয় সমাবেশের আয়োজন করে। মিছিল করে ওই সমাবেশে যোগ দিয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। অপরদিকে নগরীর প্রতিটি এলাকার মোড়ে মোড়ে সতর্ক পাহারা বসায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এ অবস্থায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির শঙ্কায় রাজধানীর অধিকাংশ এলাকায় ব্যবসায়ীরা দোকান খুলে রাখার সাহস পাননি।

‘ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, শোডাউন দিচ্ছে শত শত নেতাকর্মী। সতর্ক পাহারায় পুলিশও। কখন কী হয়, এই আশঙ্কায় দোকান খুলি নাই। খুললে যদি ক্ষতিগ্রস্ত হই!’

চোখ-মুখে এক ধরনের আতঙ্ক নিয়ে শনিবার দুপুরের দিকে কথাগুলো বললেন রাজধানীর মিরপুর শেওড়াপাড়ার মুদি দোকানি জসিম উদ্দিন।

বিএনপি শনিবার রাজধানীর গোলাপবাগে বিভাগীয় সমাবেশের আয়োজন করে। মিছিল করে ওই সমাবেশে যোগ দিয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। অপরদিকে নগরীর প্রতিটি এলাকার মোড়ে মোড়ে সতর্ক পাহারা বসায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

এ অবস্থায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির শঙ্কায় রাজধানীর অধিকাংশ এলাকায় ব্যবসায়ীরা দোকান খুলে রাখার সাহস পাননি। অবশ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার জন্য আনুষ্ঠানিক কোনো নির্দেশনা বা ঘোষণা ছিল না।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোনো কিছু হলেই সেটার প্রভাব পড়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ওপর। সমাবেশের কারণে আতঙ্কে অনেকে দোকান খোলেননি। অবশ্য এদিন দোকান বন্ধ রাখার কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি।’

ঢাকা মহানগর দোকান ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি আরিফুর রহমান টিপু বলেন, ‘মার্কেট কিংবা বিপণি বিতান বন্ধের কোনো নির্দেশনা ছিল না। তবে অনেকেই আতঙ্কে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেননি। আবার যারা খুলেছেন তাদেরও ব্যবসা হয়নি।‘

বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে শনিবার দিনভর রাজধানীর পরিস্থিতি ছিল থমথমে। নগরী জুড়েই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছিল বন্ধ। অনেক জায়গায় খুলে রাখা হলেও ছিল না ক্রেতা। কেউ কেউ আবার দোকানের অর্ধেক অংশ খুলে রাখেন। অনেকে দোকান না খুলে বাইরে দাঁড়িয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন।

রাজধানীর মিরপুর, ফার্মগেট, পল্টন, নয়াপল্টন ও গোলাপবাগের আশপাশ এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এসব এলাকায় ব্যবসা কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল না। বড় বড় মার্কেট এবং বিপণি বিতান খুলে রাখা হলেও ক্রেতা ছিল না। যানবাহন বন্ধ থাকায় ক্রেতারা গন্তব্যে পৌঁছতেও পারেননি

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে কথা হয় কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে। তারা জানান, ফুটপাত ও সড়কে অসংখ্য লোকজন বসে আছে। বিএনপির সমাবেশ নিয়ে নানা কারণে উদ্বিগ্ন ব্যবসায়ীরা। তাই দোকান খুলতে এসেও অনেকে ফিরে গেছেন।

তারা জানান, অনেকে দোকান না খুললেও বসে আছেন সামনে। এর আগে এই এলাকায় এত লোক কোনো সমাবেশে আসতে দেখেননি তারা।

মূলত শনিবার সকাল ১১টায় সায়েদাবাদের কাছে গোলাপবাগ মাঠে বিএনপির সমাবেশ শুরু হয়। তার আগে রাত থেকেই নেতাকর্মীরা সেখানে জড়ো হতে শুরু করে। ফলে ওই এলাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে যায়।

পল্টনের একজন ওষুধের দোকানি বলেন, দোকান বন্ধের কোনো নির্দেশনা নেই। কিন্তু মার্কেটে অনেকে দোকান খোলেনি। ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে তারা দোকান বন্ধ রেখেছেন।

সংশয় আর ভয়ে বন্ধ দোকানপাট

ফার্মগেটের ব্যবসায়ী আব্দুল করিম বলেন, ‘মারামারি বা সংঘর্ষ হলে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারি। তাই দোকান বন্ধ রেখেছি।’

শেওড়াপাড়ার ফুটপাতের দোকানি তসলিম বলেন, ‘বিকেলের পর দোকান খোলার ইচ্ছা আছে। তখন পরিস্থিতি শান্ত হতে পারে।’

মেট্রোরেল স্টেশনের নিচেই ছোট্ট চায়ের দোকান চালান স্বপন কুমার। তিনি বলেন, প্রতিদিন সকাল ৮টায় দোকান খুলি। আজ ১২টার দিকে খুলেছি। দু-একজন পুলিশ ছাড়া ক্রেতা নেই। ক্রেতাদের চাপ থাকে। কিন্তু আর বেচা-বিক্রি হবে না মনে হয়।’

চা বিক্রেতা হাফিজ মিয়া বলেন, ‘দুপুর পর্যন্ত ২০ কাপ চা-ও বিক্রি হয়নি। আজ সকাল থেকে মানুষই নেই। চার ঘণ্টা বসে থেকে ১০০ টাকা বিক্রি হয়েছে। অন্যান্য দিন এই সময়ে ৪০০-৫০০ টাকা বিক্রি হয়।’

ফুটপাতের শীতবস্ত্র বিক্রেতা নাজমুল হোসেন বলেন, ‘আজ ভয়ে দোকান পুরোপুরি খুলতেই পারলাম না। আর খুলেই বা কী হবে, লোকজন নেই। বিক্রি করবো কার কাছে!’

পোশাক, কসমেটিকস, কম্পিউটার, এক্সেসরিজসহ বিভিন্ন পণ্যের জন্য জনপ্রিয় এলিফ্যান্ট রোড। ব্যস্ততম এই এলাকা সকাল থেকেই ছিল সুনসান।

দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘একদিন দোকান বন্ধ মানেই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বেশি সমস্যা। অনেকের দোকান একদিন না খুললে ঘরের খাবারই হয় না। এজন্য কাল থেকে যেন সবাই দোকান খোলে আমরা সেই চেষ্টা করছি। কোনো ধরনের নাশকতা বা ঝামেলা না হলে দোকানপাট স্বাভাবিকভাবেই খুলে যাবে বলে মনে করছি।’

ঢাকা মহানগর দোকান ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি আরিফুর রহমান টিপু বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা আছে- সবকিছু স্বাভাবিক নিয়মে চলবে। তাই দোকানপাট বন্ধ রাখার কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।’

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির তথ্য অুনযায়ী, সারাদেশে তাদের সদস্য প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৭৬ লাখ ৭৬৩। এর মধ্যে রাজধানীতেই সাড়ে ৫ লাখ ক্ষুদ্র বা সাধারণ প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় তিন কোটি।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Singer Beko started her transformation journey with Burak Ujchivit

বুরাক ঔজচিভিতের সঙ্গে রূপান্তর যাত্রা শুরু করল সিঙ্গার বেকো

বুরাক ঔজচিভিতের সঙ্গে রূপান্তর যাত্রা শুরু করল সিঙ্গার বেকো

তুরস্কের কচ গ্রুপের ফ্ল্যাগশিপ প্রতিষ্ঠান আর্চেলিকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড এক সংবাদ সম্মেলনে ‘ট্রান্সফরমেশন জার্নি উইথ বুরাক ঔজচিভিত’ শীর্ষক পদক্ষেপের ঘোষণা দেয়।

এ আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও জনাব এমএইচএম ফাইরোজ, আর্চেলিকের সাউথ এশিয়া রিজিওনাল মার্কেটিং, বিজনেস ট্রান্সফরমেশন অ্যান্ড গ্রোথের পরিচালক মিস হানদান আবদুররাহমানোগলু ও সিঙ্গার বাংলাদেশের এই রূপান্তর যাত্রার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর জনপ্রিয় তুর্কি অভিনেতা জনাব বুরাক ঔজচিভিত।

এ বছরের শুরুতে প্রতিষ্ঠানের নতুন লক্ষ্যের সঙ্গে মিল রেখে একটি অত্যাধুনিক ম্যানুফ্যাকচারিং প্ল্যান্ট, নতুন কনসেপ্ট স্টোর ও ওয়ার্কস্পেস সহ বেশকিছু রূপান্তরের ঘোষণা দেয় সিঙ্গার বাংলাদেশ। এই রূপান্তরের মাধ্যমে বাংলাদেশে কচ গ্রুপ ও আর্চেলিকের বৈশ্বিক দক্ষতা ও মান নিয়ে আসা হয়েছে; যা ক্রেতাদের অভিজ্ঞতা আরও সমৃদ্ধ করবে এবং এই পদক্ষেপ সিঙ্গার বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠত্বের প্রতিশ্রুতিকেই পুনর্ব্যক্ত করে।

রূপান্তরের এই ধারাবাহিক প্রক্রিয়া শুরু করার পর বুরাক ঔজচিভিত বেশকিছু ক্রিয়েটিভ কমিউনিকেশনে অংশ নিয়ে এই যাত্রার সহযোগী হন। বুরাক বিভিন্ন ধারাবাহিক নাটকে নিজের অসামান্য অভিনয় প্রতিভা দেখানোর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের দর্শকদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

রূপান্তরের এই প্রচেষ্টার বিষয়ে সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এমএইচএম ফাইরোজ বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রমের মূল স্তম্ভ হিসেবে গ্রাহক-কেন্দ্রিকতাকে রেখে, বাংলাদেশের ক্রেতাদের জন্য সমসাময়িক ও বৈশ্বিক মানদণ্ড নিশ্চিত করতে সিঙ্গার বাংলাদেশ-এর কার্যক্রমে পরিবর্তন নিয়ে আসছে। বাংলাদেশের মানুষের জীবন ও এই খাতে অবদান রাখার জন্য বৈশ্বিক দক্ষতা ও মান নিয়ে আসার মাধ্যমে দেশের শীর্ষ ব্র্যান্ড হওয়াই সিঙ্গার বাংলাদেশের লক্ষ্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে জনপ্রিয় অভিনেতাদের মধ্যে বুরাক ঔজচিভিত অন্যতম। তিনি গত কয়েকদিন ধরে আমাদের অতিথি হিসেবে ছিলেন এবং তাকে আপ্যায়ন করতে পেরে আমরা সম্মানিত বোধ করছি। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসেবে তুরস্কের সঙ্গে আমাদের দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে এবং তুর্কি মান ও দক্ষতা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশে আমরা আমাদের রূপান্তর যাত্রা শুরু করেছি। আমাদের এই সফল রূপান্তর যাত্রার গল্প আমরা ক্রেতাদের সঙ্গেও ভাগাভাগি করে নিতে চাই। আর আমাদের বিশ্বাস, আমাদের ক্রেতাদের কাছে এই গল্পটি তুলে ধরার জন্য বুরাক ঔজচিভিত-ই সবচেয়ে উপযুক্ত।’

এ বিষয়ে আর্চেলিকের সাউথ এশিয়া রিজিওনাল মার্কেটিং, বিজনেস ট্রান্সফরমেশন অ্যান্ড গ্রোথের পরিচালক হানদান আবদুররাহমানোগলু বলেন, ‘সিঙ্গার বাংলাদেশ অধিগ্রহণের পর থেকে স্থানীয় বাজারে বৈশ্বিক দক্ষতা ও মান নিয়ে আসার চেষ্টা করছে আর্চেলিক। এ দেশের মানুষের জীবনমান উন্নত করতে ও কনজ্যুমার ডিউরেবলস খাতকে সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে আমরা তুরস্ক থেকে বাংলাদেশে সেরা অভিজ্ঞতাগুলো নিয়ে আসার প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। উৎপাদন, রিটেইল অভিজ্ঞতা ও কর্মীবান্ধব কর্মস্থল নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে আমাদের বৈশ্বিক দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সিঙ্গার বাংলাদেশের সবধরনের কার্যক্রমকে উন্নত করতে প্রয়োজনীয় রূপান্তর নিয়ে আসছি আমরা। আমরা উদ্ভাবন, গ্রাহক সন্তুষ্টি ও টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি নিশ্চিতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আমরা প্রযুক্তি, রিটেইল স্টোর ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে সিঙ্গার বাংলাদেশে বিনিয়োগ অব্যাহত রাখবো। সিঙ্গার বাংলাদেশের এই যাত্রায় বুরাক ঔজচিভিতকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে পেয়ে আমরা অত্যন্ত উচ্ছ্বসিত।’

গুলশান ১-এ দেশের প্রথম কনসেপ্ট স্টোর চালু করেছে সিঙ্গার বাংলাদেশ। তুরস্কের ইস্তাম্বুলে অবস্থিত আর্চেলিকের পুরস্কার বিজয়ী কনস্টেপ্ট স্টোরের ডিজাইনের আদলে চালু করা এই স্টোরে সিঙ্গার ও বেকো’র (ইউরোপের শীর্ষ ৩ ব্র্যান্ডের একটি) বিস্তৃত পণ্যের সমাহার প্রদর্শনের জন্য কিউরেটেড এক্সপেরিয়েন্স জোন রয়েছে। এই স্টোর থেকে ক্রেতারা পণ্যটি কেনার আগেই যাচাই করে দেখতে পারবেন, যা কেনাকাটার অভিজ্ঞতায় যোগ করবে নতুন মাত্রা।

আরও পড়ুন:
নতুন যুগে সিঙ্গার বাংলাদেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Grameen Bank complained of nepotism to the ACC in the name of Dr Yunus

ড. ইউনূসের নামে দুদকের কাছে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ করল গ্রামীণ ব্যাংক

ড. ইউনূসের নামে দুদকের কাছে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ করল গ্রামীণ ব্যাংক ড. মুহাম্মদ ইউনূস। ফাইল ছবি
এতে বলা হয়, পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন ছাড়াই ড. মুহাম্মদ ইউনূস নিজেই দর নির্ধারণী কমিটি গঠনের মাধ্যমে নিজের প্রণীত ও স্বাক্ষরিত গ্রমীণ ব্যাংক ক্রয় নীতিমালা লঙ্ঘন করেছেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে।

রোববার গ্রামীণ ব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়। খবর বাসসের

এতে বলা হয়, পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন ছাড়াই ড. মুহাম্মদ ইউনূস নিজেই দর নির্ধারণী কমিটি গঠনের মাধ্যমে নিজের প্রণীত ও স্বাক্ষরিত গ্রমীণ ব্যাংক ক্রয় নীতিমালা লঙ্ঘন করে, নিজের মালিকানাধীন পরিবারিক প্রতিষ্ঠান ‘প্যাকেজেস কর্পোরেশন’কে কোনো প্রকার প্রতিযোগিতামূলক উন্মুক্ত দরপত্র আহবান ছাড়াই উচ্চদরে গ্রামীণ ব্যাংকের কোটি কোটি টাকার প্রিন্টিংসামগ্রী ছাপানোর কার্যাদেশ প্রদান করে নিজে ও পারিবারিকভাবে বিপুল অংকের আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করেছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উল্লেখিত অনিয়মের তথ্য-প্রমাণাদি প্রাপ্তির পরিপ্রেক্ষিতে, আইনি পরামর্শকদের মতামত ও পরিচালনা পর্ষদ সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরিবারিক প্রতিষ্ঠান ‘প্যাকেজেস কর্পোরেশনকে’ বহুবিধ অবৈধ সুবিধা প্রদান সম্পর্কিত অনিয়মের বিষয়ে ঢাকাস্থ দুর্নীতি দমন কমিশনে গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এতে আরও জানানো হয়েছে, ড.মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক থাকাকালে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক আর্থিক সুবিধা প্রাপ্তির লক্ষ্যে আইন ভঙ্গ, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং গ্রামীণ ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদের ওপর অর্পিত দায়িত্বের চূড়ান্ত অবমাননা করে ১৯৯০ সাল থেকে নিজের পারিবারিক ছাপাখানা প্রতিষ্ঠান ‘প্যাকেজেস কর্পোরেশনকে’ বহুবিধ অবৈধ সুবিধা প্রদান করেছেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Third tranche of loan from IMF to be available in June Finance Minister

আইএমএফ থেকে ঋণের তৃতীয় কিস্তি পাওয়া যাবে জুনে: অর্থমন্ত্রী

আইএমএফ থেকে ঋণের তৃতীয় কিস্তি পাওয়া যাবে জুনে: অর্থমন্ত্রী ফাইল ছবি
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি যাতে ডলারের প্রবাহ বাড়ানো যায়। এখানে অনেক নেগোসিয়েশন আছে। আশা করছি এ সমস্যার আমরা সমাধান করতে পারব। আমরা কাজ করছি। আইএমএফের নির্বাহী পরিচালক বলেছেন, আপনারা সঠিক পথে আছেন। আপনারা যে কাজ করছেন সমস্যা সমাধানে সেটাতে আমাদের সমর্থন আছে।’

বাংলাদেশকে দেয়া আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের তৃতীয় কিস্তি আগামী জুন মাসে পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

রোববার আইএমএফ নির্বাহী পরিচালক কৃষ্ণমূর্তি ভেঙ্কারা সুব্রামানিয়ানের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা জানান। খবর বাসসের

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি যাতে ডলারের প্রবাহ বাড়ানো যায়। এখানে অনেক নেগোসিয়েশন আছে। আশা করছি এ সমস্যার আমরা সমাধান করতে পারব। আমরা কাজ করছি। আইএমএফের নির্বাহী পরিচালক বলেছেন, আপনারা সঠিক পথে আছেন। আপনারা যে কাজ করছেন সমস্যা সমাধানে সেটাতে আমাদের সমর্থন আছে।’

চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশকে ৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ প্রদান করবে আইএমএফ। তিনি বলেন, জুন মাসেই তারা দেবে। সেখানে কোনো বাধা তো নেই।

তিনি আরও বলেন, আইএমএফ খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনার বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছে। আমরা সে অনুযায়ী ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। আমি ঋণখেলাপিদের ধরতে চাই।

ঋণখেলাপিরা অনেক শক্তিশালী, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব কি-না এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আপনারা দেখছেন সাবেক পুলিশ প্রধানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তার কি ক্ষমতা কম ছিল?

তিনি আরও জানান, সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজির আহমেদের বিরুদ্ধে আদালত যে ব্যবস্থা নিচ্ছে, তাতে সরকারের সমর্থন রয়েছে।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ানো ও রাজস্ব আয় বৃদ্ধি আগামী অর্থবছরের বাজেটের প্রধান চ্যালেঞ্জ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতিতে বেশ কিছু অসুবিধা রয়েছে, সেগুলোর উত্তরণ ঘটাতে হবে এবং আগামী বাজেটে সেজন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ীমী লীগ যে ইশতেহার দিয়েছিলো সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে আগামী বাজেটে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
KSRM as first industrial group under universal pension scheme

প্রথম শিল্পগোষ্ঠী হিসেবে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় কেএসআরএম

প্রথম শিল্পগোষ্ঠী হিসেবে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় কেএসআরএম কেএসআরএমের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জাতীয় পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্তি উপলক্ষে শনিবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত কর্মীরা। ছবি: কেএসআরএম
সীতাকুণ্ড কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টের প্রায় ১ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী জাতীয় পেনশন স্কিমের আওতায় এসেছেন। অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পর্যায়ক্রমে এ কার্যক্রমের আওতায় আসবেন।

দেশের অন্যতম ইস্পাত প্রস্ততকারী শিল্পগোষ্ঠী কেএসআরএমের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এখন প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জাতীয় পেনশন স্কিমের আওতায়।

এ উপলক্ষে শনিবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় উপজেলা প্রশাসন ও কেএসআরএমের যৌথ উদ্যোগে।

কেএসআরএমই দেশের প্রথম শিল্পগোষ্ঠী হিসেবে তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেনশন স্কিমের আওতায় নিয়ে এসেছে। সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কেএম রফিকুল ইসলামের প্রস্তাবে সম্মত হয়ে কেএসআরএমের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত এ উদ্যোগ নেন।

সীতাকুণ্ড কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টের প্রায় ১ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী জাতীয় পেনশন স্কিমের আওতায় এসেছেন। অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পর্যায়ক্রমে এ কার্যক্রমের আওতায় আসবেন।

কোম্পানির করপোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটির (সিএসআর) অংশ হিসেবে কর্মকর্তা-কর্মকারীদের জাতীয় পেনশন স্কিমের প্রথম কিস্তির টাকা পরিশোধ করবে কেএসআরএম কর্তৃপক্ষ।

কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে কার্যক্রম পরিদর্শন করেন ইউএনও কেএম রফিকুল ইসলাম, কেএসআরএমের পরিচালক (প্ল্যান্ট) কমডোর (অব.) এমএস করিব, উপমহাব্যবস্থাপক (মানবসম্পদ ও প্রশাসন) মো. ওয়াহিদুজ্জামান ও মিডিয়া অ্যাডভাইজার মিজানুল ইসলাম। এ ছাড়াও কেএসআরএমের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় প্রথম শিল্প গ্রুপ কেএসআরএম
আলোচনা ‘চূড়ান্ত’ পর্যায়ে, ঈদের আগেই নাবিকদের মুক্তির আশা
জাহাজটিকে অন্য কোথাও সরিয়েছে জলদস্যুরা: কবির গ্রুপ 
ভারত মহাসাগরে জলদস্যুর কবলে বাংলাদেশি জাহাজ, ২৩ নাবিক জিম্মি
কেএসআরএম অ্যাওয়ার্ড পেলেন তিন ভবিষ্যৎ স্থপতি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Life and Health and Payathai II International Hospitals round the clock joint health care

লাইফ অ্যান্ড হেলথ ও পায়াথাই-২ ইন্টারন্যাশনাল হসপিটালের দিনব্যাপী যৌথ স্বাস্থ্যসেবা

লাইফ অ্যান্ড হেলথ ও পায়াথাই-২ ইন্টারন্যাশনাল হসপিটালের দিনব্যাপী যৌথ স্বাস্থ্যসেবা

থাইল্যান্ডের স্বনামধন্য হাসপাতাল পায়াথাই-২ এর সঙ্গে যৌথভাবে বাংলাদেশি রোগীদের সরাসরি স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ প্রদান করল লাইফ অ্যান্ড হেলথ লিমিটেড।

শনিবার পায়াথাই-২ ইন্টারন্যাশনাল হসপিটালের চিকিৎসক ডা. উইসিত কাসেতসার্মউইরিয়া (ব্যারিয়াট্রিক এবং জেনারেল সার্জন, মিনিমাল ইনভেসিভ সার্জারি বিশেষজ্ঞ) ও ডা. তানোমসিরি স্তিথিত (গাইনোকোলজি ও গাইনোকোলজিক-অনকোলজি বিশেষজ্ঞ) এই পরামর্শ দেন।

পায়াথাই-২ থাইল্যান্ডের সবচেয়ে বড় বেসরকারি হাসপাতালগুলোর মধ্যে একটি। এখানে সমস্ত বিভাগ একত্রে, এক ছাদের নিচে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয়ে এবং সাশ্রয়ী মূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদান করে। এটি থাইল্যান্ডের বিডিএমএস গ্রুপের একটি জয়েন্ট কমিশন ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই) স্বীকৃত সদস্য হাসপাতাল।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
1283 taka lotus gold price in Bhari

ভরিতে ১২৮৩ টাকা কমল স্বর্ণের দাম

ভরিতে ১২৮৩ টাকা কমল স্বর্ণের দাম ফাইল ছবি
নতুন মূল্য অনুযায়ী, সবচেয়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ২৮৩ টাকা কমিয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে এক লাখ ১৭ হাজার ১৭৭ টাকা। ২১ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ২৩৬ টাকা কমিয়ে এক লাখ ১১ হাজার ৮৪৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

দেশের বাজারে ফের সোনার দাম কমা‌নোর ঘোষণা দি‌য়ে‌ছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)। এবার সবচেয়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের এক ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) সোনার দাম এক হাজার ২৮৩ টাকা ক‌মি‌য়ে নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ১৭৭ টাকা। এতো‌দিন ছিল ১ লাখ ১৮ হাজার ৪৬০ টাকা।

শ‌নিবার (২৫ মে) বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

রোববার (২৬ মে) থেকে নতুন দাম কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।

এর আগে গত ২৪ মে ভালো মানের সোনার দাম ভরিতে এক হাজার ৮৪ টাকা কমানো হয়। এর আগে ২০, ১৯, ১২, ৮, ৬ ও ৫ মে ছয় দফায় সোনার দাম বাড়ানো হয়। ছয় দফায় ভালো মানের এক ভরি সোনার দাম বাড়ে ১০ হাজার ৩৮১ টাকা। এখন দুই দফায় ভালো মানের সোনার দাম ভরিতে কমলো দুই হাজার ৩৬৭ টাকা।

ছয় দফায় সোনার দাম বাড়ানোর পর এখন দুই দফায় কমানোর কারণ হিসেবে বাজুস বলছে, স্থানীয় বাজারে তেজাবী সোনার দাম বেড়েছে। তাই সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বাজুস সোনার নতুন দাম নির্ধারণ করেছে, যা রোববার (২৬ মে) থেকে কার্যকর হবে।

নতুন মূল্য অনুযায়ী, সবচেয়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ২৮৩ টাকা কমিয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে এক লাখ ১৭ হাজার ১৭৭ টাকা। ২১ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ২৩৬ টাকা কমিয়ে এক লাখ ১১ হাজার ৮৪৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া ১৮ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ৬২ টাকা কমিয়ে ৯৫ হাজার ৮৬৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সনাতন পদ্ধতির এক ভরি সোনার দাম ৮৭৫ টাকা কমিয়ে ৭৯ হাজার ২৫৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সোনার দাম কমানো হ‌লেও অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে রুপার দাম। ক্যাটাগরি অনুযায়ী বর্তমানে ২২ ক্যারেটে প্রতি ভরি রুপার দাম দুই হাজার ১০০ টাকা, ২১ ক্যারেটের দাম ২ হাজার ৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের দাম ১৭১৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার দাম ১ হাজার ২৮৩ টাকা।

আরও পড়ুন:
স্বর্ণের দাম এ যাবতকালের সর্বোচ্চ, ভরি ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
KSRM is the first industrial group under the universal pension scheme

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় প্রথম শিল্প গ্রুপ কেএসআরএম

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় প্রথম শিল্প গ্রুপ কেএসআরএম

দেশের অন্যতম ইস্পাত প্রস্ততকারী শিল্পগ্রুপ কেএসআরএমের কর্মীরা এখন জাতীয় পেনশন স্কিমের আওতায়। এর মাধ্যমে কেএসআরএমই দেশের প্রথম শিল্প গ্রুপ হিসেবে তাদের কর্মীদের পেনশন স্কিমের আওতায় নিয়ে এসেছে।

এ উপলক্ষে শনিবার উপজেলা প্রশাসন ও কেএসআরএমের যৌথ উদ্যোগে সীতাকুণ্ড কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কেএম রফিকুল ইসলামের প্রস্তাবে সম্মত হয়ে কেএসআরএমের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত এ উদ্যোগ নিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে সীতাকুণ্ড কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টের প্রায় এক হাজার কর্মী জাতীয় পেনশন স্কিমের আওতায় এসেছেন। অন্যান্য কর্মীরা পর্যায়ক্রমে এ কার্যক্রমের আওতায় আসবেন।

কোম্পানির কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপন্সিবিলিটির (সিএসআর) অংশ হিসেবে কর্মীদের জাতীয় পেনশন স্কিমের প্রথম কিস্তির টাকা পরিশোধ করবে কেএসআরএম কর্তপক্ষ।

কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্টে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে কার্যক্রম পরিদর্শন করেন ইউএনও কেএম রফিকুল ইসলাম, কেএসআরএমের পরিচালক (প্ল্যান্ট) কমডোর (অব.) এমএস করিব, উপ-মহাব্যবস্থাপক (মানবসম্পদ ও প্রশাসন) মো. ওয়াহিদুজ্জামান ও মিডিয়া অ্যাডভাইজার মিজানুল ইসলাম। এ ছাড়াও কেএসআরএমের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

ইউএনও কেএম রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘কেএসআরএম কর্তৃপক্ষ আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে কর্মীদের জন্য পেনশন স্কিম চালু করতে যে আর্থিক সহযোগিতা দিয়েছে, তা সারা দেশে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এতে প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরতদের ভবিষ্যৎ আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের পথ সুগম হলো।

‘পাশাপাশি দেশের প্রথম শিল্প গ্রুপ হিসেবে কেএসআরএমে কর্মরতরা সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় এসেছে। আমরা আশা করছি, ভবিষ্যতেও সীতাকুণ্ড উপজেলা প্রশাসন এবং কেএসআরএম জনহিতকর যেকোনো কাজ একসঙ্গে করবে।’

এ প্রসঙ্গে কেএসআরএমের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত বলেন, ‘আমরা সরকারের যেকোনো জনবান্ধব কর্মকাণ্ডে সহযোগী হিসেবে কাজ করে থাকি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জাতীয় পেনশন স্কিম সরকারের জনহিতকর কাজের মধ্যে অন্যতম। তাই প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে শিল্প গ্রুপ হিসেবে কেএসআরএম সেই অগ্রযাত্রার সারথী হয়েছে। আগামীতেও এমন সব কাজের অংশীদার হবে কেএসআরএম।’

মন্তব্য

p
উপরে