× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
BNP is interested in discussing the venue
hear-news
player
google_news print-icon

সমাবেশ নয়াপল্টনেই, বাধা দিলে ব্যবস্থা নেবে জনগণ: ফখরুল

সমাবেশ-নয়াপল্টনেই-বাধা-দিলে-ব্যবস্থা-নেবে-জনগণ-ফখরুল
গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: নিউজবাংলা
বুধবারের ঘটনার পর এখন যে পরিস্থিতি, তাতে নয়াপলটনে বা আশেপাশে সমাবেশ কি করতে পারবেন? এমন প্রশ্নে ফখরুল বলেন, ‘এক শ ভাগ। কারণ, এটা আমাদের ঘোষিত কর্মসূচি।’ যদি সরকার অ্যালাউ না করে, তাহলে কী করবেন? জবাব আসে, ‘জনগণই তখন তার মতো করে ব্যবস্থা নেবে। আমরা স্পটে যাব। জনগণই সিদ্ধান্ত নেবে তারা কী করবে।’

বুধবারের সংঘর্ষের পরও বিএনপি নয়াপল্টনেই তার বিভাগীয় সমাবেশ করতে চায়। সরকারের কাছ থেকে গ্রহণযোগ্য বিকল্প না এলে সেদিন সকালে জনগণ নয়াপল্টনেই যাবে বলে জানানো হয়েছে। বলা হয়েছে, যদি বাধা আসে, তাহলে জনগণই ঠিক করবে তারা কী করবে।

বৃহস্পতিবার বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের একের পর এক প্রশ্নের জবাবে বারবার তিনি এ কথাটিই বলেন।

বিএনপি নেতা বলেন, গত ১২ অক্টোবর থেকে বিএনপি ৯টি বিভাগীয় সমাবেশ করেছে, কোনো সমাবেশে কোনো বিশৃঙ্খলা হয়নি। এখানেও হওয়ার কারণ ছিল না। যা হয়েছে, তার জন্য সরকারই দায়ী সরকারই।

এই সমাবেশের দিন দাবি আদায়ে রাজপথে অবস্থান নেয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলেও সাফ জানিয়ে দেন বিএনপি মহাসচিব। বলেন, এ বিষয়ে যে প্রচার চলছে, সেটি আওয়ামী লীগের অপপ্রচার।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চারদিকে দেয়াল আর নানা স্থাপনার কারণে সেটি আর বড় সমাবেশ করার উপযোগী নয় বলেও মনে করেন বিএনপি নেতা।

এই সমাবেশস্থল হিসেবে বিএনপির প্রথম চাওয়া এখনও নয়াপল্টনই বলে জানান ফখরুল। বলেন, ‘আমরা তো বলছিই, নয়াপল্টনকে সমাবেশের জন্য জায়গা করে দেন। নয় তো এর দায় সম্পূর্ণভাবে সরকারের।’

সমাবেশ নয়াপল্টনেই, বাধা দিলে ব্যবস্থা নেবে জনগণ: ফখরুল
নয়াপল্টনে বুধবার পুলিশ-বিএনপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ছবি: নিউজবাংলা

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরাকরের দবিতে গত ৮ অক্টোবর থেকে বিএনপি বিভাগীয় শহরগুলোতে ধারাবাহিক যে সমাবেশ করছে, তার শেষ কর্মসূচি হিসেবে রাজধানীর এই জমায়েতের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

আগের সমাবেশগুলো নির্বিঘ্নে হলেও রাজধানীর সমাবেশস্থল নিয়েই তৈরি হয়েছে বিরোধ। বিএনপি সেদিন জমায়েত হতে চায় নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে। কিন্তু পুলিশ অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে, যেখানে যেতে আপত্তি আছে দলটির।

নয়াপল্টন না পেলে আরামবাগে অনুমতি দিতে বিএনপির মৌখিক অনুরোধ মৌখিকভাবেই ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে বুধবার বিএনপির পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে জানানো হয়েছে, গ্রহণযোগ্য বিকল্প স্থানের প্রস্তাব দেয়া না হলে সমাবেশ হবে নয়াপল্টনেই।

সেদিন দলের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, বিএনপি যেখানে সমাবেশের অনুমতি চেয়েছে, সেখানেই হবে সমাবেশ। গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব করতে চাইলে সেটা করতে করতে হবে আওয়ামী লীগ ও সরকারকেই। তিনি এ-ও বলেন, ‘পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, বিএনপির কাজ বিএনপি।’

তার এই বক্তব্যের কিছুক্ষণ পরেই শুরু হয় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। নয়াপল্টনের সামনের সড়কে জড়ো হওয়া নেতা-কর্মীদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে শুরু হয় পাল্টাপাল্টি ধাওয়া। প্রাণ হারায় একজন, পুলিশ গ্রেপ্তার করে সাড়ে চার শ ব্যক্তিকে। দলীয় কার্যালয়ে চালানো হয় অভিযান, জব্দ করা হয় চাল, ডাল, তেল, মসলা এবং রান্না করা কয়েক ডেকচি খিচুড়ি।

সংঘর্ষের পর মির্জা ফখরুল নয়াপল্টনে গিয়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনের ফুটপাতে বসে থাকেন সাড়ে তিন ঘণ্টা। পরদিন সকালে তিনি সেখানেও যেতে পারেননি। তাকে বিজয়নগরেই আটকে দেয়া হয়।

আগের রাতেই সংবাদ সম্মেলনে আসার কথা জানানো হয়। সেখানে বিএনপি আসলে শনিবার কী করবে, সে বিষয়ে বক্তব্য আসবে বলে গণমাধ্যমের দৃষ্টি ছিল। স্থানীয় নানা গণমাধ্যমের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীরাও এতে উপস্থিত হয়ে নানা প্রশ্ন রাখেন।

সমাবেশ নয়াপল্টনেই, বাধা দিলে ব্যবস্থা নেবে জনগণ: ফখরুল
নয়াপল্টনে সংঘর্ষের পর পুলিশ দখলে নেয় বিএনপি অফিসসহ সামনের সড়ক। ছবি: নিউজবাংলা

নয়াপল্টন নিয়ে কী কথা

৩৮ মিনিটের এই সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে ফখরুল বুধবারের সংঘর্ষের বর্ণনা দেন। এরপর নেন প্রশ্ন। একের পর এক প্রশ্ন আসলেও মূল জিজ্ঞাসা একটিই ছিল। সেটি হলো, ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশটি আসলে কোথায় হবে।

-১০ ডিসেম্বরের সমাবেশের ব্যাপারে পূর্বের অবস্থানে অটল আছেন কি না এবং নয়াপল্টনেই করবেন কি না- এমন প্রশ্ন ছিল এক গণমাধ্যমকর্মীর।

জবাবে বিএনপি নেতা বলেন, ‘এক কথাই বলেছি আমরা। আমরা নয়াপল্টনের কথাই বলেছি। সরকারের কাছে আমরা এটাও বলেছি, আপনাদের যদি কোনো বিকল্প প্রস্তাব থাকে এবং সেটা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়, তাহলে আমরা সেটা বিবেচনা করব।’

-সেটা যদি মতিঝিল বা আরামবাগ হলেও করবেন?

ফখরুল বলেন, ‘আমি তো সে স্থান বলিনি আপনাকে। যেখানেই…

-আলোচনায় আসছে.. বলতে থাকেন সেই সাংবাদিক।

প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই ফখরুল বলেন, ‘আলোচনার মধ্যে আসতে পারে। আরামবাগে যাওয়া যেতে পারে।’

অন্য এক প্রশ্নে বিএনপি নেতা বলেন, ‘১০ ডিসেম্বর আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আমরা সাংবিধানিক অধিকার প্রয়োগ করে আমরা গণসমাবেশ করব। এই গণসমাবেশ যেন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়, তার সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করার দায়িত্ব সরকারের। অন্যথায় এই দায় দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে।’

-নয়াপল্টন তো অবরুদ্ধ, অলিগলি বন্ধ। তাহলে সমাবেশ কোথায় হবে?

জবাব আসে, ‘আমরা সে জন্য দাবি করেছি যে অবিলম্বে সব বাধা দূর করতে হবে। সেখানে সমাবেশের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। নইলে সব দায়িত্ব সরকারের।’

-বুধবারের ঘটনার পর এখন যে পরিস্থিতি, তাতে নয়াপলটনে বা আশেপাশে সমাবেশ কি করতে পারবেন?

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এক শ ভাগ। কারণ, এটা আমাদের ঘোষিত কর্মসূচি।’

-যদি সরকার অ্যালাউ না করে, তাহলে কী করবেন?

ফখরুল বলেন, ‘জনগণই তখন তার মতো করে ব্যবস্থা নেবে। আমরা স্পটে যাব। জনগণই সিদ্ধান্ত নেবে তারা কী করবে।’

-আপনারা কী করবেন পার্টি হিসেবে?

বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ‘সব দায়িত্ব সরকারের। এটা বিরোধী দল ও জনগণের অধিকারের বিষয়।’

তখন আরেকজন সাংবাদিকের প্রশ্ন ছিল, ‘পুলিশ তো বলছে রাস্তায় দাঁড়াতে দেবে না। কীভাবে প্রোগ্রাম করবেন? আপনারা বলছেন, কোনো সংঘাত চান না, সহিংসতা চান না। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি করতে চান। সরকার বা পুলিশের অবস্থান তো তারা স্পষ্ট করেছে। আপনাদের অবস্থান তাহলে কী?’

জবাবে ফখরুল বলেন, ‘আমরা তো স্পষ্ট করেছি। আমরা আমাদের যে সমাবশ, সেটা আমরা অনুষ্ঠান করব। সে জন্য আমরা চেয়ছিলাম নয়াপল্টনে কার্যালয়ের সামনে। এখন সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে এই সমাবেশটাকে শান্তিপূরণভাবে পালন করতে দেবে। আমরা অবশ্যই আমাদের সমাবেশস্থলে যাব। আর জনগণ কী করবে সেটা তারা ঠিক করবে।’

শেষে অন্য একজন গণমাধ্যম কর্মী জানতে চান, ‘গতকালকের ঘটনা এবং আজকে পল্টনের যে অবস্থা, সব মিলিয়ে যদি বলতে চাই। ১০ তারিখ আপনারা যাবেন। যদি সরকার ব্যবস্থা না করে, তাতে করে কী সংঘাত তৈরি হতে পারে এবং পরে কী হবে?

ফখরুল বলেন, ‘২২ আগস্টের আগে আপনারা বলেছেন, বিএনপি কিছুই পারে না, দাঁড়াতে পারে না। ২২ আগস্টের পর ৯টি সমাবেশ হয়েছে। আপনারা নিজেরাই দেখেছেন জনগণ কীভাবে উঠে দাঁড়াছে। আমি নিজেই বিশ্বোস করি, এই দেশ বাংলাদেশ গণতন্ত্রের জন্য আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছি। সেই গণতন্ত্রকে লুট করে নিয়ে গেছে। জনগণ ঘুরে দাঁড়চ্ছে। নদী সাঁতরে পার হচ্ছে। ১০০ মাইল সাইকেলে চিড়া মুড়ি গুড় নিয়ে ছুটছে।

‘অপেক্ষা করুন, ঢাকায় আপনারা যা দেখবেন, নিজেরাই দেখবেন।’

এর আগে লিখিত বক্তব্যে ফখরুল জানিয়েছিলেন, বুধবার তাকে এবং তার দলের প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানিকে ফোন করে জনসভাস্থল বরাদ্দের চিঠি দিয়ে যেতে বলেছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক।

একজন সাংবাদিক প্রশ্নোত্তর পর্বে জানতে চান, কোন সে স্থান।

জবাবে ফখরুল বলেন, ‘আমার সঙ্গে সে বিষয়ে কথা হয়নি। তিনি বলেছেন, তারা একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’

প্রধানমন্ত্রী দলের এক আলোচনায় পাড়ায় মহল্লায় প্রস্তুত থাকার যে কথা বলেছেন, তাতে নতুন করে কোনো সংঘাতের আশঙ্কা করছেন কি না, এমন প্রশ্নও ছিল একজন সাংবাদিকের।

জবাবে বিএনপি নেতা বলেন, ‘আপনারা তাদের কথা ও ইঙ্গিতে পরিষ্কার হয়ে গেছে তারা পুরোপুরিভাবে এটি সন্ত্রাসী দল। গণতন্ত্রের মূল কথা যে সহনশীলতা ও বিরোধী দলের রাজনীতিকে করতে দেয়া, সেটাতে তারা বিশ্বাস করে না। তারা যে ভয় ও ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করে দেশ পরিচালনা করছে, সেটাই স্পষ্ট হয়।

‘তারা ১০ ডিসেম্বরের শান্তিপূর্ণ সমাবেশ নষ্ট করতে চায়।...সন্ত্রাস ও দর্নীতি আওয়ামী লীগের মজ্জাগত। সন্ত্রাস না করে রাজনীতি করতে পারে না, দুর্নীতি না করলে দেশ চালাতে পারে না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান সংবাদ সম্মেলনের একেবারে শেষ দিকে মাইক নিয়ে বলেন, ‘আমদের তো মহাসচিব বলেছেন, ১২ অক্টোব থেকে ৯টি কর্মসূচি করেছি। আওয়ামী লীগও তো এ সময় অনেকগুলো সমাবেশ করেছে, ঢাকার ভেতর করেছে, ঢাকার বাইরে করেছে। তারা যে সমাবেশগুলো করেছে, তার স্থান কে নির্ধারণ করেছে, সেটা কি আওয়ামী লীগ নির্ধারণ করেছ নাকি বিএনপি নির্ধারণ করেছে নাকি ‍পুলিশ নির্ধারণ করেছে। আমাদের সমাবেশের স্থান আমরা নির্ধারণ করব। পুলিশ নির্ধারণ করবে কেন?’

সমাবেশ নয়াপল্টনেই, বাধা দিলে ব্যবস্থা নেবে জনগণ: ফখরুল
সমাবেশের জন্য সোহরাওয়ারার্দী উদ্যান বরাদ্দ দিতে চায় সরকার। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আপত্তি কেন?

এই প্রশ্নে ফখরুল বলেন, ‘সমস্যা অনেকগুলো। সেখানে এখন বড় সমস্যা করার উপযোগীই না, এত বেশি স্থাপনা করা হয়েছে সেখানে।

‘দুই নম্বর, ওখানে চার দিকে দেয়াল ঘেরা। যদি কোনো ধরনের গোলযোগ হয়, স্ট্যাম্পিড (পদদলিত) হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

‘আবার সেখানে আওয়ামী লীগের পরপর মিটিং হওয়াতে সেখানে বিশাল স্টেজের স্ট্রাকচার করা আছে। সেখানেই সমাবেশ করতে বলা হয়েছে। তার মানে সেখানে চক্রান্তমূলক ঘটনা কিছু একটা আছে। যে কারণে তারা সেখানে জনসভা করতে দিয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব এও জানান, সোহরাওয়ারার্দী উদ্যান বরাদ্দ দেয়ার আগে তাদের সঙ্গে আলোচনা না করায় তারা ক্ষুব্ধ। তিনি বলেন, ‘আমরা চিঠি দেয়ার পর কোনো আলোচনা না করেই কিন্তু আমাদের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর আগে কিন্তু রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
সাড়ে ৩ ঘণ্টা পর নয়াপল্টন ছাড়লেন ফখরুল
ভাইয়ের দাবি নিহত মকবুল বিএনপি সমর্থক, স্ত্রীর ‘না’
শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করতে চাই: ফখরুল
১০ ডিসেম্বর নিয়ে ‘উত্তেজনা ছড়ানো’ আমান-এ্যানি পুলিশ হেফাজতে
বিএনপিকে ডিএমপির হুঁশিয়ারি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The science minister asked the journalists questions about Rooppur

রূপপুর নিয়ে প্র‌শ্ন, সাংবাদিকদের ওপর চটলেন বিজ্ঞানমন্ত্রী

রূপপুর নিয়ে প্র‌শ্ন, সাংবাদিকদের ওপর চটলেন বিজ্ঞানমন্ত্রী সচিবালয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বুধবার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয়বিষয়ক কর্মশালায় সাংবাদিকদের ওপর চটে যান মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। ছবি: নিউজবাংলা
সাংবাদিকের প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না? আর ইউ প্রফেশনাল? লেট মি দিস অ্যান্সার? ইউ আর প্রফেশনাল, লাইক মি আর্কিটেকচার। তোমরা তো প্রফেশনাল। তোমাদের রেগুলার প্রফেশনাল স্টাডির কো‌নো ব্যবস্থা আছে? নাই।’

কর্মশালার বিষয়ের বাইরে গি‌য়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ‌কেন্দ্র নি‌য়ে প্রশ্ন করায় সাংবাদিকদের ওপর চটেছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান।

সচিবালয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বুধবার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয়বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠা‌নে এমন ঘটনা ঘ‌টে।

ওই কর্মশালার বিষ‌য়ে সাংবা‌দিক‌দের স‌ঙ্গে ২৮ মি‌নিট কথা ব‌লেন ইয়াফেস ওসমান। এরপর অনুম‌তি নি‌য়ে এক সাংবা‌দিক প্রশ্ন ক‌রতে চাইলে ইয়াফেস ওসমান ব‌লেন, ‘বলো ভাই, তোমাদের তো আবার সময়ের দাম আছে। তো এতগুলো কথা বললাম, এগুলো কি একটাও কাজের কথা হয় নাই? আচ্ছা বলো।’

এরপর ওই সাংবাদিক বলেন, ‘রাশিয়ার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালামাল সরবরাহে কত দেরি হতে পারে?’

জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ওই ব্যাপারে এখন কিছু বলব না। এত কথার মধ্যে তোমরা চলে গেলে রূপপুরে।’

ওই সময় মন্ত্রীর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব জিয়াউল হাসান বলেন, ‘আজকের ওয়ার্কশপের সঙ্গে এই প্রশ্ন সঙ্গতিপূর্ণ নয়।’

পরে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না? আর ইউ প্রফেশনাল? লেট মি দিস অ্যান্সার? ইউ আর প্রফেশনাল, লাইক মি আর্কিটেকচার। তোমরা তো প্রফেশনাল। তোমাদের রেগুলার প্রফেশনাল স্টাডির কো‌নো ব্যবস্থা আছে? নাই।’

ওই সময় ক‌য়েকজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে জানান, সাংবা‌দিক‌দের জন্যও সেই ব্যবস্থা র‌য়ে‌ছে।

তখন মন্ত্রী বলেন, ‘ঘোড়ার ডিম আছে তোমাদের। আমাদের একটা ইনস্টিটিউট আছে। ওখান থেকে যদি সার্টিফিকেট না পাও, ইউ ক্যান নট প্রাকটিস। কারণ হলো, ওটার (ইনস্টিটিউট) শুরুটা হয় আমার হাত দিয়ে। ওইগুলো করো আগে। বিকজ বাংলাদেশকে আমরা ওই জায়গায় নিতে চাই।’

এরপর একজন সাংবাদিক বলেন, ‘সনদ ছাড়া সাংবাদিকতা করা যাবে না সেই বাধ্যবাধকতা নেই।’

এর পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘ওইটাই তো প্রবেলম। তোমার যদি একটা ব্যাকগ্রাউন্ড না থাকে, কালকে বলে দিলা তুমি সাংবাদিক। তুমি তো প্রফেশনালিজমের কিছু বোঝোই না। একটা প্রফেশন মাস্ট নো দ্যাট সাবজেক্ট। তার একটা ব্যাকগ্রাউন্ড থাকতে হবে। একটা কথা বলে দিলা যেকোনো জায়গা থেকে চলে আসলে। তার মানে তোমাদের কোনো স্ট্যান্ডার্ড নাই।

‘তোমার প্রফেশনালি যদি জ্ঞান-গরিমা থাকে, নেচারালি তখন তুমি একভাবে বলবা, আর যদি না থাকে আরেকভাবে বলবা। তারপরও তুমি বলছো আমরা আসতে পারি যেকোনো জায়গা থেকে? এনিওয়ে ভাই, আমি তোমার এই কথায় যেতে চাই না। একদিন আইসো, তোমাদের বসদের সাথে কথা হয় তো, ওদের সাথেই কথা বলব। তোমাদের সাথে বলে আর লাভ নাই।’

সাংবা‌দিকরাও এসব বিষ‌য়ে কথা বল‌তে শুরু কর‌লে মন্ত্রী ব‌লেন, ‘আচ্ছা এই সাবজেক্ট বাদ দিয়ে দাও। আমি ওই জন্য বলছি তোমরা এই সাবজেক্টের ওপর ধরো না কেন? এটা বাদ দিয়ে তুমি চলে গেলে অন্য জায়গায়। এটা নিয়ে আর কোনো কথাই হবে না।

‘তুমি এখানে আসছো কী জন্য? তুমি রূপপুরের ব্যাপারে কথা বলতে আসছো? এখান থেকে তোমার প্রশ্ন বের করতে হবে, উত্তর নিতে হবে। সেটা হলে তুমি প্রোপার জিনিসটা করলা।’

ওই সময় একজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে বলেন, ‘আমরা যারা সাংবাদিকতা করি তাদের সাবজেক্টের বাইরেও প্রশ্ন করতে হয়। আপনাকে আমরা পাই না, গত ৮-৯ মাসে আপনার প্রোগ্রামে আসিনি, এই প্রথম আসলাম। তাও আবার জরুরি ভিত্তিতে আসতে বলেছেন। ১১টার প্রোগ্রাম, ১১টা ১০ মিনিটে আমাদেরকে জানিয়েছেন। আমরা গুরুত্বপূর্ণ মনে করে চলে এসেছি।

‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জনগণের জানার আগ্রহ আছে। জনসাধারণের ভিউ থেকে আমাদেরও অনেক কিছু জানতে হয়।’

তখন মন্ত্রী ক্ষে‌পে গি‌য়ে ধম‌কের সু‌রে বলেন, ‘আমি একটা কথা পরিষ্কার বলে যাই। ইউ লিসেন টু মি। আপনারা যদি না আসতে চান, চলে যান। গেট গোয়িং।’

এরপর সেখা‌নে উপ‌স্থিত থাকা সাংবা‌দিকরাও প্র‌তি‌ক্রিয়া জা‌নি‌য়ে অনুষ্ঠানস্থল ছাড়‌তে চাইলে মন্ত্রী ব‌লেন, ‘ইউ শুড গো। আমি বললাম প্রশ্নটা ওটার ওপর না করে এটার ওপরে করেন। এটা বলতে পারব না আমি?’

আরও পড়ুন:
রূপপুরে দ্বিতীয় ইউনিটের পারমাণবিক চুল্লি স্থাপনকাজ শুরু
বাংলাদেশকে ধন্যবাদ রোসাটমপ্রধানের
যেখানে বাংলার চেয়ে দাপট রুশ ভাষার
রূপপুরের বিদ্যুৎপ্রাপ্তি পেছাতে পারে গ্রিডলাইনের কারণে
রূপপুরে দ্বিতীয় চুল্লি স্থাপনের কাজ শুরু বুধবার
বাংলাদেশ
Prime Minister at Bangla Academy to inaugurate the book fair

বইমেলা উদ্বোধনে বাংলা একাডেমিতে প্রধানমন্ত্রী

বইমেলা উদ্বোধনে বাংলা একাডেমিতে প্রধানমন্ত্রী বইমেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
তিন বছর পর সশরীরে হাজির হয়ে বাঙালির বই উৎসব উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা। করোনাভাইরাস মহামারির আগে প্রতি বছরই তিনি সশরীরে হাজির হয়ে বইমেলা উদ্বোধন করতেন। তিনি মেলায় ঘুরে বইও কিনতেন।

অমর একুশে বইমেলা উদ্বোধন করতে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গনে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার বিকেলে তার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে মেলার এবার আসর।

উদ্বোধনের পর সংক্ষিপ্ত ভাষণ শেষে বইমেলা ঘুরে দেখার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

তিন বছর পর সশরীরে হাজির হয়ে বাঙালির বই উৎসব উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা। করোনাভাইরাস মহামারির আগে প্রতি বছরই তিনি সশরীরে হাজির হয়ে বইমেলা উদ্বোধন করতেন। তিনি মেলায় ঘুরে বইও কিনতেন।

গত তিন বছর মহামারির কারণে প্রধানমন্ত্রী মেলায় উপস্থিত হতে পারেননি। তিনি বইমেলা উদ্বোধন করেছেন ডিজিটালি সংযুক্ত হয়ে। এবার তার উপস্থিতি বইমেলায় ভিন্ন মাত্রা দেবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
নৌকায় ভোটের ওয়াদা চাই: শেখ হাসিনা
নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী
বিএনপির পদযাত্রার অনেক মানে জানালেন কাদের
রাজশাহীর জনসভাস্থলে প্রধানমন্ত্রী
কানায় কানায় পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Shahjalals runway will be closed for two months and 5 hours

দুই মাস ৫ ঘণ্টা করে বন্ধ থাকবে শাহজালালের রানওয়ে

দুই মাস ৫ ঘণ্টা করে বন্ধ থাকবে শাহজালালের রানওয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়ে। ফাইল ছবি
বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, ‘বিমানবন্দরের রানওয়ের লাইটিং ব্যবস্থার সংস্কারকাজ শুরু হবে। এ জন্য ২ ফেব্রুয়ারি থেকে দুই মাস রাত ২টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে।’

রানওয়ের লাইটিং ব্যবস্থা সংস্কারকাজের অংশ হিসেবে আগামী দুই মাস ৫ ঘণ্টা করে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।

বৃহস্পতিবার রাত ২টা থেকে শুরু হবে এ সংস্কারকাজ।

শাহজালাল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, রানওয়ের সেন্ট্রাল লাইন লাইট স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এতে ফ্লাইট ব্যবস্থাপনায় সক্ষমতা বাড়বে। এর অংশ হিসেবে ২ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩ এপ্রিল বিমানবন্দরের রানওয়ে রাত ২টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। এ সময়ের মধ্যে সংস্কারকাজ চলবে, যে কারণে এ ৫ ঘণ্টায় বন্ধ থাকবে উড়োজাহাজ ওঠানামা।

এই সময়ে যেসব ফ্লাইটের শিডিউল থাকবে, সেগুলো দিনের অন্য সময়ে চলবে। ফ্লাইট চলাচলের সূচি পুর্নবিন্যাস করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) এয়ার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট (এটিএম) বিভাগ থেকে নোটিশ জারি করা হয়েছে।

ফ্লাইট পুর্নবিন্যাসের ফলে সকাল ৭টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা এবং রাত ১০টা থেকে ২টা পর্যন্ত বিমানবন্দরে ফ্লাইটের চাপ হতে পারে। এ চাপ সামলাতে মনিটরিং টিম গঠন করেছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। সাধারণত রাত ২টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত শাহজালাল বিমানবন্দরে সাত থেকে আটটি ফ্লাইট চলাচল করে।

আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, ‘বিমানবন্দরের রানওয়ের লাইটিং ব্যবস্থার সংস্কারকাজ শুরু হবে। এ জন্য ২ ফেব্রুয়ারি থেকে দুই মাস রাত ২টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে।

‘বছরের এ সময়ে কুয়াশা থাকায় ফ্লাইট চলাচলে বিঘ্ন ঘটে, যে কারণে লাইটিং ব্যবস্থা সংস্কারকাজ করতে এ সময়কে বেছে নেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কুয়াশায় শাহজালালে ফ্লাইট ওঠানামায় বিপত্তি
বাংলাদেশে নতুন বিমানবন্দর তৈরিতে আগ্রহ ভারতের
যাত্রীর সঙ্গে আনা এয়ার ফ্রায়ারে মিলল দেড় কোটি টাকার স্বর্ণ
বিমানবন্দরে তেলবাহী ট্রাকে আগুন জেনারেটরের স্পার্ক থেকে
শাহজালালে তেলবাহী গাড়ির আগুন নিয়ন্ত্রণে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Officially it will take 6 lakh 83 thousand to go to Hajj

সরকা‌রিভা‌বে হ‌জে যেতে লাগবে ৬ লাখ ৮৩ হাজার

সরকা‌রিভা‌বে হ‌জে যেতে লাগবে ৬ লাখ ৮৩ হাজার সরকারিভাবে হজযাত্রার খরচ নির্ধারণ করেছে সরকার। ফাইল ছবি
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান সাংবা‌দিক‌দের ব‌লেন, ‘বেসরকা‌রি হজ প্যা‌কেজ কত টাকার ম‌ধ্যে নির্ধারণ কর‌তে হ‌বে, সে বিষ‌য়ে নি‌র্দেশনা দি‌য়ে‌ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর ভি‌ত্তি‌তে বেসরকা‌রিভা‌বে হজ প্যা‌কেজ ঘোষণা করা হ‌বে।’

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাওয়ার খরচ পড়বে ৬ লাখ ৮৩ হাজার ১৮ টাকা।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খানের সভাপ‌তি‌ত্বে বুধবার সচিবালয়ে হজ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত নির্বাহী ক‌মি‌টির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

সভা শেষে প্র‌তিমন্ত্রী সাংবা‌দিক‌দের ব‌লেন, ‘বেসরকা‌রি হজ প্যা‌কেজ কত টাকার ম‌ধ্যে নির্ধারণ কর‌তে হ‌বে, সে বিষ‌য়ে নি‌র্দেশনা দি‌য়ে‌ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর ভি‌ত্তি‌তে বেসরকা‌রিভা‌বে হজ প্যা‌কেজ ঘোষণা করা হ‌বে।’

তিনি আরও জানান, সরকা‌রি হজ প্যা‌কে‌জের মধ্যে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৭৯৭ টাকা লাগবে বিমান ভাড়া বাবদ। রিয়া‌লের মূল্য ২১ টাকা থে‌কে বে‌ড়ে ৩০ টাকা হওয়ায় হজে যাওয়ার খরচ বে‌ড়ে‌ছে।

বাংলা‌দেশ থে‌কে এবার ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হ‌জে যে‌তে পার‌বেন। এর ম‌ধ্যে সরকা‌রি ব্যবস্থাপনায় ১৫ হাজার এবং বেসরকা‌রি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ১ লাখ ১২ হাজার ১৯৮ জন।

বেসরকা‌রি হজ প্যা‌কেজ বৃহস্প‌তিবার ঘোষণা করা হ‌বে ব‌লে জানিয়েছেন হাব নেতারা।

আরও পড়ুন:
সাইকেলে হজযাত্রা: ভারতে ঢুকতে পারেননি সালাম  
সাইকেলে হজযাত্রা, থাই বৃদ্ধ থামলেন মাগুরায়
হজযাত্রীর সংখ্যা মহামারির আগের অবস্থায় ফিরে যাচ্ছে
কর দিলে মনে হয় দেশের জন্য কিছু করছি: মেহজাবীন
শাহজালালে তেলবাহী গাড়ির আগুন নিয়ন্ত্রণে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Winter may increase from Thursday

শীত বাড়তে পারে বৃহস্পতিবার থেকে

শীত বাড়তে পারে বৃহস্পতিবার থেকে কুয়াশাচ্ছন্ন সড়কে যান চলাচল। ফাইল ছবি
আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক নিউজবাংলাকে জানান, বৃহস্পতিবার থেকে তাপমাত্রা কমে একই রকম থাকতে পারে চার থেকে পাঁচ দিন।

সারা দেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা কমতে পারে জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, শীতের অনুভূতি বাড়তে পারে বৃহস্পতিবার থেকে।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটির আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক নিউজবাংলাকে জানান, বৃহস্পতিবার থেকে তাপমাত্রা কমে একই রকম থাকতে পারে চার থেকে পাঁচ দিন।

২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাস

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বুধবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, নিম্নচাপটি দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। এটি পশ্চিম-দক্ষিণ পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। এর বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। এ ছাড়া উপমহাদেশীয় উচ্চতাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বিহার ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

দিনভর আবহাওয়া কেমন থাকবে, তা নিয়ে পূর্বাভাসে জানানো হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

কুয়াশা নিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, সারা দেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে।

পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থা নিয়ে বলা হয়, উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, মঙ্গলবার দেশের সর্বোচ্চ ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল কক্সবাজারে। বুধবার দেশের সর্বনিম্ন ১৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়।

আরও পড়ুন:
শীত বাড়তে পারে ফেব্রুয়ারির শুরুতে
শীত বাড়তে পারে রাতে
দিনে তাপমাত্রা কমতে পারে উত্তরে
শীত ওঠানামা করতে পারে দুই-তিন দিন
‘মাঘের শীতে বাঘ পালায়’ শুধু বইয়েই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Voting begins in 6 seats left by BNP

বিএনপির ছেড়ে দেয়া ৬ আসনে ভোট শুরু

বিএনপির ছেড়ে দেয়া ৬ আসনে ভোট শুরু ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের একটি ভোটকেন্দ্র। ছবি: নিউজবাংলা
নিজেদের অধীন প্রথম সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করলেও এ ভোটে তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন কমিশন, তবে জাতীয় নির্বাচনে ক্যামেরা ব্যবহারে আগ্রহ রয়েছে তাদের।

বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের পদত্যাগের কারণে শূন্য হওয়া ছয়টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে বুধবার ভোট শুরু হয়েছে।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট চলবে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত।

উপনির্বাচনের ছয়টি আসন হলো ঠাকুরগাঁও-৩, বগুড়া-৪ বগুড়া-৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২।

ঢাকার গোলাপবাগে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর বিভাগীয় সমাবেশে বিএনপির সংসদ সদস্যদের একযোগে পদত্যাগের ঘোষণা আসে। পরের দিন পদত্যাগপত্র জমা দিতে পাঁচজন এমপি সংসদ ভবনে যান।

ওই দিন অসুস্থ থাকায় পদত্যাগপত্র জমা দিতে আসতে পারেননি ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের এমপি উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া। অন্যদিকে বিদেশে থাকায় যেতে পারেননি চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের এমপি হারুনুর রশীদ। তাদের হয়ে পদত্যাগপত্র জমা দেন রুমিন ফারহানা।

নিজেদের অধীন প্রথম সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করলেও এ ভোটে তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন কমিশন, তবে জাতীয় নির্বাচনে ক্যামেরা ব্যবহারে আগ্রহ রয়েছে তাদের।

প্রচার-প্রচারণা চলাকালীন বড় ধরনের সহিংসতার খবর পাওয়া না গেলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের এক প্রার্থী এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান মনে করছেন, নিখোঁজ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আত্মগোপনে আছেন।

এ নিয়ে ইসি আনিছ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এ ভোটে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা নেই। ভোটকেন্দ্রে নিরবচ্ছিন্নভাবে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে।’

নির্বাচনী এলাকায় ভোটের দিন ট্রাক, পিকআপ ও ইঞ্জিনচালিত নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে। মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত, তবে ইসির অনুমতি নিয়ে যেকোনো যান চলাচল করতে পারবে।

নির্বাচন কমিশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এই ছয় আসনের ভোটে সাধারণ কেন্দ্রে ১৬ থেকে ১৭ জন এবং গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৭ থেকে ১৮ জন করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে।

আরও পড়ুন:
চাঁপাইয়ে আওয়ামী লীগের ‘ঘরের শত্রু বিভীষণ’
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে সাত্তার-চমকের কী প্রভাব
ছয় আসনে ৫৩ মনোনয়নপত্র
জামানত হারালেন বিকল্পধারার প্রার্থীসহ ৩ জন
ঠাকুরগাঁওয়ে ভোট বর্জনে গণসংযোগ করবে বিএনপি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
6 seats vacated by BNP will be voted late at night

বিএনপির ছেড়ে দেয়া ৬ আসনে ভোট আজ

বিএনপির ছেড়ে দেয়া ৬ আসনে ভোট আজ গাইবান্ধা-৫ আসনে উপনির্বাচনের একটি কেন্দ্র। ফাইল ছবি
নিজেদের প্রথম সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে সিসি ক্যামেরা ব্যবহার করলেও এ ভোটে ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন কমিশন। তবে জাতীয় নির্বাচনে ক্যামেরা ব্যবহারে আগ্রহ রয়েছে তাদের।

বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের পদত্যাগের কারণে শূন্য হওয়া ৬টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন আজ বুধবার। সকাল সাড়ে ৮টা থেকে একটানা বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে।

উপনির্বাচনের ছয়টি আসন হলো- ঠাকুরগাঁও-৩, বগুড়া-৪ বগুড়া-৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২।

নিজেদের প্রথম সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করলেও এ ভোটে তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন কমিশন। তবে জাতীয় নির্বাচনে ক্যামেরা ব্যবহারে আগ্রহ রয়েছে তাদের।

প্রচার-প্রচারণা চলাকালীন বড় ধরনের সহিংসতার খবর পাওয়া না গেলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের এক প্রার্থী এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান মনে করছেন, নিখোঁজ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আত্মগোপনে আছেন।

এ নিয়ে ইসি আনিছ সাংবাদিকদের বলেন, 'সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এ ভোটে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা নেই। ভোটকেন্দ্রে নিরবচ্ছিন্নভাবে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।'

ইতোমধ্যে এসব নির্বাচনী এলাকায় সব ধরনের প্রচারণা বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া ওইসব এলাকায় ভোটের দিন ট্রাক, পিকআপ ও ইঞ্জিনচালিত নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে। মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত। তবে ইসির অনুমতি নিয়ে যেকোনো যান চলাচল করতে পারবে।

নির্বাচন কমিশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এই ছয় আসনের ভোটে সাধারণ কেন্দ্রে ১৬ থেকে ১৭ জন এবং গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৭ থেকে ১৮ জন করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে।

আরও পড়ুন:
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে সাত্তার-চমকের কী প্রভাব
ছয় আসনে ৫৩ মনোনয়নপত্র
জামানত হারালেন বিকল্পধারার প্রার্থীসহ ৩ জন
ঠাকুরগাঁওয়ে ভোট বর্জনে গণসংযোগ করবে বিএনপি
দ্বিতীয় ভোটে গাইবান্ধায় রিপনের জয়

মন্তব্য

p
উপরে