× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Suffering on second day of transport strike in Natore
google_news print-icon

নাটোরে পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনেও ভোগান্তি

নাটোরে-পরিবহন-ধর্মঘটের-দ্বিতীয়-দিনেও-ভোগান্তি-
১১ দফা দাবীতে রাজশাহী বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনেও নাটোরে যাত্রীদের ভোগান্তির চিত্র দেখা গেছে। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
শুক্রবার ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে সকাল থেকেই শহরের বড়হরিশপুর, বাইপাস চত্বর, মাদ্রাসা মোড়, বনপাড়া বাইপাস থেকে কোন ধরনের যাত্রীবাহী বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি। যাত্রীবাহী গাড়ী চলাচল না করায় ভোগান্তিতে পড়েছে কর্মজীবী মানুষ ও বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতকারী যাত্রীরা।

মহাসড়কে অবৈধ যান চলাচল বন্ধসহ ১১ দফা দাবীতে রাজশাহী বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনেও নাটোরে যাত্রীদের ভোগান্তির চিত্র দেখা গেছে।

শুক্রবার ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে সকাল থেকেই শহরের বড়হরিশপুর, বাইপাস চত্বর, মাদ্রাসা মোড়, বনপাড়া বাইপাস থেকে কোন ধরনের যাত্রীবাহী বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি।

যাত্রীবাহী গাড়ী চলাচল না করায় ভোগান্তিতে পড়েছে কর্মজীবী মানুষ ও বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতকারী যাত্রীরা। জরুরী প্রয়োজনেও অনেকেই গন্তব্যে যেতে পারছেন না। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বাস চালক ও সহকারীরাও পড়েছেন বিপদে।

গাড়ি বন্ধ থাকলে তাদের আয় থকে না। ফলে সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়ে। তারা এই ধর্মঘট নয় শান্তিপূর্ণভাবে গাড়ি চালাতে চান।

জামান আলী নামে এক যাত্রী বলেন, ‘গত রাত (বৃহস্পতিবার) ১১টায় জানতে পারি আমার বড় বোন গুরুতর অসুস্থ। দ্রুত আমাকে ঢাকায় যেতে হবে। সকালে বের হয়ে বড়হরিশপুর কাউন্টারে এসে দেখি বাস বন্ধ। কিভাবে গন্তব্যে যাব তা নিয়ে খুবই দুঃচিন্তায় আছি।’

হাসান আলী নামে আরেক যাত্রী বলেন, ‘আমি চট্টগ্রাম থেকে এসেছি, রাজশাহীতে যাব। এখন নাটোরে এসে আটকে গেছি। লম্বা একটা সময় জার্নি করে এসে এই ভোগান্তি ভাল লাগছে না। ধর্মঘট দিয়েই দায় সারে পরিবহন মালিকরা। আমাদের মতো সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা মাথায় রাখে না।’

হোসাইন আলী নামে আরেক যাত্রী জানান, কোম্পানীর কাজে কুষ্টিয়া থেকে রাজশাহী যাবার উদ্দেশ্যে বের হয়েছি। ভোগান্তিতো হচ্ছেই। সেই সঙ্গে দ্বিগুণ, তিনগুণ টাকা খরচ হচ্ছে।

গত ২৬ নভেম্বর রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সংশোধন করাসহ হাইকোর্টের নির্দেশানুযায়ী মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে থ্রি হুইলার, সিএনজি ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ ও জ্বালানি তেলসহ যন্ত্রাংশের দাম কমানোসহ ১১ দফা বাস্তবায়নে পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষণা দেয় রাজশাহী বিভাগীয় সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক পরিষদ।

এদিকে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে বিএনপির মহাসমাবেশকে বাধাগ্রস্ত করতেই সরকারের সহযোগী হিসাবে বাস ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পরিবহন সংশ্লিষ্টরা। তারপরেও সরকার রাজশাহীর মহাসমাবেশের গণজোয়ার থামাতে পারবে না।

তবে নাটোর বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি লক্ষন পোদ্দার জানান, তাদের দীর্ঘদিনের দাবি আদায়ে আলটিমেটাম দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ওই ব্যাপারে কোনও ঘোষণা না আসায় পূর্বঘোষিত কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশের সঙ্গে এই কর্মসূচির কোনও সম্পর্ক নেই।

আরও পড়ুন:
পরিবহন ধর্মঘটে সিরাজগঞ্জে দুর্ভোগ
ধর্মঘটে ভোগান্তি নওগাঁতেও
সদরঘাটে ভিড়ছে লঞ্চ, সচল নৌচলাচল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
If there is no drama about the result I will win Sakku
কুসিক উপনির্বাচন

ফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই জয়ী হব: সাক্কু








ফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই জয়ী হব: সাক্কু প্রচারের তৃতীয় দিন রোববার গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করেন টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে লড়া মনিরুল হক সাক্কু। ছবি: নিউজবাংলা
নির্বাচনের ফল নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে সাবেক মেয়র বলেন, ‘গেল নির্বাচনে ভোটের ফলাফল কেমন হয়েছে, তা নগরবাসী দেখেছে৷ গতবারের মতো শেষ মুহূর্তে ফলাফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই বিজয়ী হব।’ 

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে (কুসিক) মেয়র পদে উপনির্বাচনের ফল নিয়ে নাটক না হলে জয়ী হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন দুবারের সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু।

কুমিল্লা হাই স্কুল সংলগ্ন এলাকায় রোববার গণসংযোগের সময় দেয়া বক্তব্যে তিনি এ আশার কথা জানান।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) আগামী ৯ মার্চ কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে উপনির্বাচন হবে।

এ নগরে দুই লাখ ৪২ হাজার ৬৯৮ জন ভোটার ১০৫টি কেন্দ্রের ৬৮৫টি কক্ষে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।

নির্বাচনের দুই সপ্তাহেরও কম সময় আগে জমে উঠেছে প্রচার। সকাল থেকে রাত অবধি প্রার্থীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে।

নির্বাচনি প্রচারের তৃতীয় দিন সকাল থেকেই প্রার্থীদের গণসংযোগ করতে দেখা যায়।

কুমিল্লা হাই স্কুল সংলগ্ন এলাকা থেকে সকাল ৯টার দিকে গণসংযোগ শুরু করেন বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা সাক্কু।

তিনি ভোটারদের হাতে লিফলেট বিতরণ করে টেবিল ঘড়িতে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান।

মেয়র পদপ্রার্থী সাক্কু বলেন, ‘নগরবাসী আমাকে পছন্দ করে। আমিও নগরবাসীর চাহিদামতো নগরের কাজ করেছি। আরও কিছু কাজ বাকি আছে। এবার বিজয়ী হয়ে অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করব।’

নির্বাচনের ফল নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে সাবেক মেয়র বলেন, ‘গেল নির্বাচনে ভোটের ফলাফল কেমন হয়েছে, তা নগরবাসী দেখেছে৷ গতবারের মতো শেষ মুহূর্তে ফলাফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই বিজয়ী হব।’

আরও পড়ুন:
প্রতীক পেয়েই মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন কুসিকের ৪ প্রার্থী
মধুচন্দ্রিমা থেকে ফিরেই পিকআপের ধাক্কায় গেল প্রাণ
ময়নামতিতে মুজিব বর্ষ ১৮তম ফিজ আপ কাপ গলফ টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত
উপজেলা নির্বাচনে চকরিয়ায় আ.লীগের ডজনখানেক প্রার্থী
কুমিল্লায় মেয়র প্রার্থীদের কে কোন প্রতীক পেলেন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The police believe that the mother committed suicide after killing two children under the pressure of debt

ঋণের চাপে দুই শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের

ঋণের চাপে দুই শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের উত্তর ইসলামপুর গ্রামের একটি ঘর থেকে রোববার তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশের ধারণা, ঋণের চাপ সইতে না পেরে রোববার সকালের কোনো এক সময়ে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেন ওই নারী।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে রোববার দুই শিশু সন্তানসহ এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের উত্তর ইসলামপুর গ্রামের একটি ঘর থেকে ওই তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের ধারণা, ঋণের চাপ সইতে না পেরে রোববার সকালের কোনো এক সময়ে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেন ওই নারী।

প্রাণ হারানো তিনজন হলো ৩৩ বছর বয়সী সায়মা বেগম ও তার ১১ বছরের মেয়ে ছাইমুনা ও সাত বছরের ছেলে তাওহীদ।

সায়মার স্বামী আলী মিয়া সৌদি আরব প্রবাসী।

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সিরাজদিখান সার্কেল) মোস্তাফিজুর রহমান রিফাত জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ বসতঘর থেকে মা ও দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ তিনটি মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ঋণের চাপে প্রথমে দুই সন্তানকে বিষ পান করিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে মা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করছে পুলিশ।

এ বিষয়ে তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো যাবে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
কুমিল্লায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের
টাকা ভাগাভাগির দ্বন্দ্বে জানাজায় বাধা, পুলিশি হস্তক্ষেপে দুই দিন পর দাফন
চেকপোস্ট বসিয়ে পুলিশের পোশাক পরে ডাকাতি, একজন আটক
কারাগার থেকে সাংবাদিক হত্যা মামলার আসামির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
হাসপাতাল থেকে পালানো দগ্ধ কিশোরের মরদেহ পুকুরে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Cousin of Sramik League worker hacked to death in Jhalkathi is absconding

ঝালকাঠিতে শ্রমিক লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা, চাচাত ভাই পলাতক

ঝালকাঠিতে শ্রমিক লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা, চাচাত ভাই পলাতক প্রাণ হারানো ইমরান হোসেন। ছবি: সংগৃহীত
ইমরানের বড় ভাই রাসেল হাওলাদার বলেন, “আমারই চাচাত ভাই আলমিন হাওলাদারসহ ছয় থেকে সাতজন শনিবার রাতে রামদা নিয়ে ওকে (ইমরানকে) ধাওয়া করে কুপিয়েছে। ইমরান মৃত্যুর আগে শুধু এতটুকুই বলেছে, ‘আলমিন আমারে কোপাইছে।”

ঝালকাঠির নলছিটিতে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার চাচাত ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

নলছিটি পৌর এলাকায় শনিবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

প্রাণ হারানো ৩২ বছর বয়সী ইমরান হোসেন শ্রমিক লীগের নলছিটি উপজেলা শাখার কর্মী এবং নলছিটির ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেল চালক সমিতির সভাপতি।

নলছিটি থানার ওসি মো. মুরাদ আলী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি জানান, শনিবার রাত ৮টার দিকে নলছিটি পৌর এলাকার নান্দিকাঠিতে ইমরানকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। রক্তাক্ত অবস্থায় আহত ইমরানকে স্থানীয়রা নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় ইমরানের।

ইমরানের মৃত্যুর খবরটি সংবাদমাধ্যমকে জানান তার বড় ভাই রাসেল হাওলাদার।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমারই চাচাত ভাই আলমিন হাওলাদারসহ ছয় থেকে সাতজন শনিবার রাতে রামদা নিয়ে ওকে (ইমরানকে) ধাওয়া করে কুপিয়েছে। ইমরান মৃত্যুর আগে শুধু এতটুকুই বলেছে, ‘আলমিন আমারে কোপাইছে।”

নলছিটি থানার ওসি মো. মুরাদ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
স্ত্রীকে দুই বছরে ১১ বার হত্যার হুমকি সন্ত্রাসীদের!
শেরপুরে হাতুড়ির আঘাতে বৃদ্ধকে হত্যার অভিযোগ, ছেলে আটক
শিশুকে হত্যা করে ধানখেতে পুঁতে রাখেন সৎ বাবা
মায়ের অন্যত্র বিয়ে, শিশুপুত্রকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টা বাবার
ক্রাচে ভর দিয়ে চলা বৃদ্ধার মরদেহ ঝুলছিল গাছে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Killed fish worth 3 lakh taka by poisoning the pond in the middle of the night

‘আমাদের স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে’

‘আমাদের স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে’ মরা মাছগুলো উল্টে শ‌নিবার সকালে পুকুরে ভেসে উঠে। ছবি: নিউজবাংলা
মাদারীপুর সদর থানার ওসি এইচ এম সালাহ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি শুনলাম। কেউ অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

‘আমরা তিন বন্ধু মিলে লেখাপড়ার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হতে এই মাছ চাষ করি, কিন্তু আমাদের সেই স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে। কারা আমাদের পুকুরে বিষ দিয়েছে, আমরা জানি না।’

কথাগুলো বলছিলেন মাদারীপুর সদরের খোয়াজপুর ইউনিয়নের চরগোবিন্দপুর গ্রামের মাথাভাঙ্গা এলাকার সোহানুর বেপারী।

তার অভিযোগ, শুক্রবার রাতের আঁধারে দুর্বৃত্তরা তাদের পুকুরে বিষ দিয়ে তিন লাখ টাকার মাছ নিধন করেছে।মরা মাছগুলো উল্টে শ‌নিবার সকালে পুকুরে ভেসে ওঠে।

সোহানুর জানান, ছয় মাস আগে তিনি, রাব্বি সরদার ও ফেরদাউস শিকদার মিলে মাথাভাঙ্গা হাটের পশ্চিম পাশে সোনালি ব্রিকস নামের ইটভাটা সংলগ্ন ৪০ শতাংশ জমিতে পুকুর খনন করে মাছ চাষ শুরু করেন। পুকুরে তারা ছয় লাখ টাকার তেলাপিয়া, রুই, কাতলা, ব্রিগেড, পাঙ্গাসসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ছাড়েন।

তিনি জানান, সেই মাছগুলোর একেকটা এক কেজি ওজনের বেশি হয়েছে। তারা তিন বন্ধু মিলে ভেবেছিলেন, দুই-এক দিনের মধ্যে মাছগুলো ধরবেন, কিন্তু তার আগেই পুকুরে দেয়া হয় বিষ।

এ যুবক জানান, পুকুরে বিষ প্রয়োগের পর চিকিৎসক ডেকে আনে পানি পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা শেষে চিকিৎসক জানান, পুকুরে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে, যার কারণে মাছ মরে উল্টো হয়ে ভেসে ওঠে।

সোহানুরের বন্ধু রাব্বি সরদার বলেন, ‘মাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা? আমরা নিজের অর্থ দিয়ে এই মাছ চাষের উদ্যোগ নিয়েছি। এখনও আমাদের মাছের খাবারের এক লক্ষ টাকা বাকি পড়ে আছে দোকানে।

‘এ অবস্থায় এখন আবার পুকুরের অর্ধেক মাছ মারা গেছে। আমরা এখন এই ক্ষতি কেমন করে পূরণ করব? যারা আমাদের এই ক্ষতি করেছে, আমি প্রশাসনের কাছে তাদের বিচার চাই।’

জানতে চাইলে মাদারীপুর সদর থানার ওসি এইচ এম সালাহ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি শুনলাম। কেউ অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
I will work for the development of football in Bangladesh Barrister Suman

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব: সুমন

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব: সুমন বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন ব্যারিস্টার সুমন। ছবি: নিউজবাংলা
সুমন বলেন, ‘আমি ফুটবলের ব্যাপারে প্রতিবাদ করছি বহুদিন আগে থেকেই, প্রতিবাদ করতে করতেই আমি এখন মেম্বার অফ পার্লামেন্ট। আমি এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে কথা বলতে পারি। আমার একটা বিশ্বাস ফুটবলের এখন গণজাগরণ শুরু হয়েছে।’

নব্বই দশকের ফুটবলে ফিরে যেতে চান উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন জানিয়েছেন, তিনি বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করে যাবেন।

তিনি বলেন, ‘আমার যতটুকু সাধ্য, আমি মেম্বার অফ পার্লামেন্ট হিসেবে শুধু আমার এলাকার ফুটবল না, বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব। যেভাবে কাজ করলে নব্বই দশকের ফুটবলে ফিরে যাওয়া যায়, যেখানে ফুটবল আমাদের ঐহিত্য ছিল। আমরা সেটাই করব।’

জামালপুর বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবদুল হাকিম স্টেডিয়ামে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

সুমন বলেন, ‘আমি ফুটবলের ব্যাপারে প্রতিবাদ করছি বহুদিন আগে থেকেই, প্রতিবাদ করতে করতেই আমি এখন মেম্বার অফ পার্লামেন্ট। আমি এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে কথা বলতে পারি। আমার একটা বিশ্বাস ফুটবলের এখন গণজাগরণ শুরু হয়েছে।’

ভারতের ফুটবলের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দেখেন, ইন্ডিয়া অনেক দূর এগিয়ে গেছে, এখন তারা মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। আর আমরা এখনও সাউথ এশিয়াতেই টিকতে পারি না।

‘যেহেতু আমাদের প্রথম প্রেম ফুটবল, এ ফুটবলের প্রেমটা আবার ফিরিয়ে নিয়ে আসতে চাই। আমরা সবাই আবার মাঠে আসতে চাই।’

আরও পড়ুন:
পোস্টারে জাতির পিতার ছবি, ব্যারিস্টার সুমনকে শোকজ
ব্যারিস্টার মইনুলের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত
ব্যারিস্টার মইনুলের সম্মানে অর্ধবেলা বন্ধ বিচারকাজ
ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন মারা গেছেন
শোকজের জবাব দিয়ে যা বললেন ব্যারিস্টার সুমন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Munshiganj passenger bus ditch

মুন্সীগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে

মুন্সীগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে 
দুর্ঘটনাকবলিত বাস। ছবি: নিউজবাংলা
ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বাসের ভে।তরে তল্লাশি চালিয়েছেন। তবে বাসে কোনো যাত্রী পাওয়া যায়নি। বাসের নিচে কেউ চাপা পড়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের টিম।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে গেছে।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার কাজীরবাগ চৌরাস্তা এলাকায় সিরাজদিখান-টঙ্গিবাড়ী আঞ্চলিক সড়কে ওই দুর্ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে উদ্ধার অভিযানে যোগ দিয়েছে সিরাজদিখান ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা থেকে টঙ্গিবাড়ীর উদ্দেশে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাসটি রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলার কাজীরবাগ চৌরাস্তা এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বাসের ভেতরে তল্লাশি চালিয়েছেন। তবে বাসে কোনো যাত্রী পাওয়া যায়নি। বাসের নিচে কেউ চাপা পড়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের টিম।

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুজাহিদুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনা কবলিত বাসে অল্পসংখ্যক যাত্রী ছিল, তারা বাস থেকে নেমে যেতে সমর্থ হয়েছে। এদের মধ্যে আহত তিনজনকে সিরাজদিখান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। বাস টেনে তোলার কাজ অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
1400 candidates for two posts of Chittagong Chhatra League

চট্টগ্রাম ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের জন্য প্রার্থী ১৪০০

চট্টগ্রাম ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের জন্য প্রার্থী ১৪০০ ফাইল ছবি
এবার ১৪ শ’ জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়লেও আলোচনায় আছেন মাত্র ১৫ থেকে ২০ জন। এদের মধ্যে থেকেই শীর্ষ পদে আসতে পারেন। তাদের বেশিরভাগই নগরের এমইএস, সিটি ও ইসলামিয়া কলেজকেন্দ্রিক ছাত্রলীগ নেতা।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। ইতোমধ্যে কমিটির গঠন প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে আগ্রহীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়েছে। মিলেছে অভাবনীয় সাড়া।

শীর্ষ এ দুটি পদে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন অন্তত এক হাজার ৪০০ জন। তারা নানাভাবে চেষ্টা-তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্যে পদপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে জীবনবৃত্তান্ত গ্রহণ করা শুরু করে তারা। ১৬ ফেব্রুয়ারি জীবনবৃত্তান্ত জমা দেয়ার শেষ দিন থাকলেও পরে সময় বাড়িয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত করা হয়।

জানা গেছে, প্রায় দুই দশক ধরে মহানগর ছাত্রলীগ কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ এমইএস এবং সিটি কলেজ-কেন্দ্রিক হয়ে পড়ে। এবারও নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে এ দুই কলেজের শিক্ষার্থীদের আধিক্যই লক্ষণীয়। তবে নতুন কমিটির শীর্ষ দুটি পদের অন্তত একটি এবার এই দুই কলেজের বাইরে যেতে পারে বলে বলছেন অনেকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবার ১৪০০ জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়লেও আলোচনায় আছেন মাত্র ১৫ থেকে ২০ জন। এদের মধ্যে থেকেই শীর্ষ পদে আসতে পারেন। তাদের বেশিরভাগই নগরের এমইএস, সিটি ও ইসলামিয়া কলেজ-কেন্দ্রিক ছাত্রলীগ নেতা।

তবে এবার তিন কলেজকে ডিঙিয়ে আলোচনায় উঠে এসেছে চট্টগ্রাম কলেজ ও সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ। ১৯৮২ সাল থেকে সাড়ে তিন দশক ধরে ছাত্রশিবিরের দখলে ছিল চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসিন কলেজ। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর কলেজের রাজনীতি শিবিরের দখলমুক্ত করে নগর ছাত্রলীগ। এরপর থেকে ছাত্রলীগের কার্যক্রম শক্তভাবে চলে আসছে। এ কারণে এ দুই কলেজকে প্রাধান্য দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নগর ছাত্রলীগের কমিটির জন্য পদপ্রত্যাশী নেতা-কর্মীরা মূলত দুটি বলয়ে বিভক্ত। তাদের একটি পক্ষ হচ্ছে প্রয়াত সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী। এই পক্ষ বর্তমানে মহিউদ্দিনপুত্র শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারী বলে নিজেদের পরিচয় দেন। অপর পক্ষটি হলো নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলয়ের।

ছাত্রলীগের নতুন কমিটির পদ ভাগিয়ে নিতে নওফেল ও নাছির অনুসারীদের মধ্যে স্নায়ু লড়াই চলছে। নগর যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটির শীর্ষ পদ ভাগিয়ে নিয়েছেন নওফেল অনুসারীরা। ছাত্রলীগের কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদেও কি নওফেল অনুসারীরা প্রাধান্য পাবে- তা নিয়ে চলছে জোর আলোচনা।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি এবং নগর কমিটির সভাপতি পদপ্রত্যাশী মাহমুদুল করিম বলেন, ‘আমি সিভি জমা দিয়েছি। চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসিন কলেজ শিবিরমুক্ত করতে আমরা কী করেছি, সেটা সবাই জানেন। আমার প্রত্যাশা, ত্যাগী ও কর্মঠ কর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে।’

নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু বলেন, ‘নতুন কমিটি গঠনের বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের জানিয়েছি। সবকিছু যাচাইবাছাই করেই দ্রুত কমিটি ঘোষণা করবেন বলে আশা করি।’

নগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন- চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. নূরুন নবী সাহেদ, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হায়দার, কোতোয়ালি থানা ছাত্রলীগের সভাপতি অনিন্দ্য দেব, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম, মহসিন কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার পলাশ, মহসিন কলেজের মায়মুন উদ্দীন, ওমরগণি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগের জাহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ হানিফ, সরকারি সিটি কলেজ ছাত্রলীগের আশীষ সরকার, মুহাম্মদ তাসিন, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগের মীর মুহাম্মদ ইমতিয়াজ, শাহাদাত হোসেন হীরা, ইমন হোসেন, আজিজুর রহমান, মিজানুর রহমান, নগর ছাত্রলীগের উপ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক রাশেদ চৌধুরী, উপ-ছাত্রবৃত্তিবিষয়ক সম্পাদক এস এম হুমায়ন কবির আজাদ, নগর ছাত্রলীগ নেতা ফাহাদ আনিস ও খালেকুজ্জামান, কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বোরহান উদ্দিন প্রমুখ।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এম এ আহাদ চৌধুরী রায়হান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে স্থান পেতে এক হাজার চারশ’র মতো বায়োডাটা জমা পড়েছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা যাচাইবাছাই করে করে এ বিষয়ে যথাসময়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান তিনি।

২০১৩ সালের ৩০ অক্টোবর ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি ও নুরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন নুরুল আজিম রনি। সেসময় সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরকে।

মন্তব্য

p
উপরে